পদ্মা সেতুর প্রথম যাত্রী প্রধানমন্ত্রী, দিলেন টোল

  ‘স্বপ্ন ছুঁয়েছে’ পদ্মার এপার-ওপার



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
মাওয়া পয়েন্টে সেতুর নির্ধারিত টোল পরিশোধ প্রধানমন্ত্রীর

মাওয়া পয়েন্টে সেতুর নির্ধারিত টোল পরিশোধ প্রধানমন্ত্রীর

  • Font increase
  • Font Decrease

বাংলাদেশের গর্ব ও অহংকার স্বপ্নের পদ্মা সেতুর প্রথম যাত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি মাওয়া পয়েন্টে নির্ধারিত টোল নিজ হাতে পরিশোধ করে পদ্মা সেতুতে উঠেন।

শনিবার (২৫ ‍জুন) বেলা ১১টা ৪৭ মিনিটে পদ্মা সেতুর মুন্সিগঞ্জের মাওয়া পয়েন্টে টোল দেন তিনি।

এর আগে সুধী সমাবেশে যোগ দিয়ে বেলা ১১টা ২৫ মিনিটে মাওয়া পয়েন্টে স্মারক ডাকটিকিট, স্যুভেনির শিট, উদ্বোধনী খাম এবং বিশেষ সিলমোহর উন্মোচন করেন শেখ হাসিনা।

এদিকে পদ্মা সেতু উদ্বোধনের পর মাওয়া পয়েন্ট থেকে শরীয়তপুরের জাজিরা পয়েন্টের উদ্দেশে যাত্রা শুরুর কথা রয়েছে প্রধানমন্ত্রীর।

  ‘স্বপ্ন ছুঁয়েছে’ পদ্মার এপার-ওপার

শুধু আকাশ না, আমরা পাতালেও যাচ্ছি: প্রধানমন্ত্রী



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

  • Font increase
  • Font Decrease

তিন প্রকল্পের আওতায় নতুন রেলপথ উদ্বোধন করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘শুধু আকাশ না, আমরা এখন পাতালেও যাচ্ছি।’

আজ বৃহস্পতিবার রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রের মালামাল পরিবহনের জন্য নির্মিত রেলপথসহ রেলওয়ের তিন প্রকল্পের আওতায় নির্মাণ হওয়া ৬৯ দশমিক ২০ কিলোমিটার রেলপথ উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এ সময় গণভবন থেকে ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে তিনি এ কথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘রেলকে নিয়ে অনেক খেলা হয়েছে; এখনো হচ্ছে। সুযোগ পেলেই রেলেও উপর আক্রমণ করা হয়েছে। তবুও সব বাধা পেরিয়ে আমরা রেলকে একটি লাভজনক প্রতিষ্ঠানে রূপান্তরিত করেছি। বিএনপি-জামায়াত জোট লাভজনক খাত রেলকে ধ্বংস করেছে। তাদের সময়ে বহু রেলপথ ব্ন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। আওয়ামী লীগ যতবার ক্ষমতায় এসেছে প্রতিবারই রেলের উন্নতি হয়েছে।’

রেলের বিভিন্ন বড় বড় প্রকল্পের তথ্য জানিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, ‘উত্তরবঙ্গে রেল নিতে যমুনা সেতুতে রেল সংযোগ করে দেওয়া হয়েছিল। এখন সেখানে আলাদা সেতু হচ্ছে। এতে সড়ক ও রেল উভয়ই ভালোভাবে চলতে পারবে। নিজস্ব অর্থায়নে পদ্মা সেতু নির্মাণ করা হয়েছে। এখন সেখানে রেলপথ সংযোগের কাজ চলছে।’

সরকারপ্রধান বলেন, ‘পর্যটন নগরী কক্সবাজারে রেললাইনের কাজ প্রায় শেষ। সেখানে আন্তর্জাতিক মানের রেলস্টেশন নির্মাণ করা হচ্ছে। খুব দ্রুতই সেটি উদ্বোধন করা হবে। খুলনা-মোংলা রেললাইন খালেদা জিয়ার আমলে বন্ধ করে দেওয়া হয়। আমরা সেটি চালু করছি। এখন প্রায় সব জায়গায় ডাবল রেল লাইন নির্মাণ করা হচ্ছে।’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘মেট্রোরেলের কথা একটা সময় মানুষ চিন্তাও করতে পারতো না, এখন মানুষ প্রতিদিনই উঠছে। মাত্র ১০ মিনিটে আগারগাঁও থেকে উত্তরা যেতে পারছে। এই মাসের মধ্যে আরও কিছু স্টেশন চালু করা হবে। তখন মানুষ এই সেবা পাবে।’

  ‘স্বপ্ন ছুঁয়েছে’ পদ্মার এপার-ওপার

;

নোয়াখালীতে ব্যাংক কর্মকর্তার ১৫ বছরের কারাদণ্ড



ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, নোয়াখালী
নোয়াখালীতে ব্যাংক কর্মকর্তার ১৫ বছরের কারাদণ্ড

নোয়াখালীতে ব্যাংক কর্মকর্তার ১৫ বছরের কারাদণ্ড

  • Font increase
  • Font Decrease

অর্থ আত্মসাতের মামলায় এক সাবেক ব্যাংক কর্মকর্তাকে ১৫ বছরের কারাদণ্ড দিয়েছেন নোয়াখালী বিশেষ জজ আদালত। একই সঙ্গে আসামিকে ৩৪ লাখ টাকা অর্থদণ্ড করা হয়।

দণ্ডপ্রাপ্ত আবদুল লতিফ ভূঁইয়া কুমিল্লা জেলার দেবিদ্বার উপজেলার ধামতি এলাকার আব্দুল গফুর মিয়ার ছেলে। তিনি রূপালী ব্যাংক লিমিটেড লক্ষ্মীপুর জেলার পোদ্দার বাজার শাখার প্রিন্সিপাল অফিসার হিসেবে কর্মরত ছিলেন।

বৃহস্পতিবার (৯ ফেব্রুয়ারি) সকালে নোয়াখালী বিশেষ জজ আদালতের বিচারক এ এন এম মোরশেদ খান এ রায় প্রদান করেন। আসামি পলাতক থাকায় রায়ের সময় তিনি আদালতে উপস্থিত ছিলেন না।

দুদক সূত্রে জানা গেছে, দণ্ডপ্রাপ্ত আবদুল লতিফ ভূইয়া ১৯৯৫ সাল থেকে ২০১০ সাল পর্যন্ত রূপালী ব্যাংক পোদ্দার বাজার শাখায় সেকেন্ড কর্মকর্তা (প্রিন্সিপাল অফিসার) হিসাবে কর্মরত ছিলেন। ওই ব্যাংকে কর্মরত অবস্থায় তিনি দুর্নীতির মাধ্যমে চার কোটি বাহাত্তর লাখ আটান্ন হাজার চুয়াত্তর টাকা আত্মসাৎ করেন। যার মধ্যে ২০০৪ সালে ৬২টি ভুয়া এন্ট্রির মাধ্যমে ত্রিশ লাখ বিশ হাজার আটশত ঊনপঞ্চাশ টাকা আত্মসাতের ঘটনায় ২০১১ সালের ডিসেম্বরে তার বিরুদ্ধে লক্ষ্মীপুর থানায় মামলা দায়ের করা হয়। পরবর্তীতে মামলাটি অধিকতর তদন্তের জন্য দুদকে স্থানান্তর করা হয়। মামলাটি তদন্ত শেষে তদন্তকারী কর্মকর্তা নুরুল হুদা আব্দুল লতিফকে অভিযুক্ত করে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেন।

নোয়াখালী দুদকের পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) অ্যাডভোকেট মো. আবুল কাশেম বলেন, আসামির বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় আদালত তাকে দণ্ডবিধি ৪০৯ ধারায় দোষী সাব্যস্ত করে ১০ বছর কারাদণ্ড, দুটি ধারায় ৩৪ লাখ টাকা অর্থদণ্ড করেন।

  ‘স্বপ্ন ছুঁয়েছে’ পদ্মার এপার-ওপার

;

ভ্যান চালিয়ে পরীক্ষা দিয়ে রমজান পেলেন জিপিএ-৫



ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঠাকুরগাঁও
ভ্যান চালিয়ে পরীক্ষা দিয়ে রমজান পেলেন জিপিএ-৫

ভ্যান চালিয়ে পরীক্ষা দিয়ে রমজান পেলেন জিপিএ-৫

  • Font increase
  • Font Decrease

মাত্র তিন বছর বয়সে বাবাকে হারায় রমজান৷ তারপর থেকে মায়ের আদরে বেড়ে ওঠা তার৷ স্বামীকে হারিয়ে চার সন্তান নিয়ে দিশেহারা হয়ে পরে রমজানের মা৷ সন্তানদের ভরণ পোষণ জোগাতে হাড়ভাংগা খাটুনি করতো তার মা৷ পারিবারিক অস্বচ্ছলতা আর তীব্র অভাবের ভিড়ে পড়াশোনা চালিয়ে যাওয়া ছিল বেশ দুষ্কর৷ পরিবারের কষ্ট লাঘবে মাকে সাহায্য করেন তিনি। 

অন্যের বাড়িতে কাজ করে যা আয় হত তা থেকে কিছু টাকা দিয়ে পড়াশোনার খরচ চালাতো রমজান৷ এসএসসির আগের পড়াশোনার খরচ চালাতে খুব বেশি কষ্ট না হলেও পরে হিমশিম খেতে হয়েছে তাকে। কোন কিছুর লাজলজ্জা না করে শুরু করেন ভ্যান চালানো৷ মনে যে স্বপ্ন স্থির, পড়াশোনায় ভালো ফলাফল করে করতে হবে ভাল চাকুরি৷ তবে সফলতার হাতছানি ছুঁয়েছে রমজানের৷ প্রকাশিত এইচএসসি ও সমমান পরীক্ষার ফলাফলে জিপিএ-৫ পেয়ে উত্তীর্ণ হয়েছে সে৷

ঠাকুরগাঁওয়ের রাণীশংকৈল উপজেলার বাচোর ইউনিয়নের মীরডাঙ্গী গ্রামের মৃত আবু তাহেরের ছেলে রমজান আলী। চার ভাই বোনের মধ্যে সবার ছোট সে। বাড়ির পাশে মীরডাঙ্গী উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এসএসসিতে জিপিএ-৪.১১ ও প্রকাশিত এইচএসসি ফলাফলে রাণীশংকৈল ডিগ্রি কলেজ থেকে মানবিক বিভাগে জিপিএ-৫ পেয়েছে সে৷ অতি কষ্টের মাঝে এমন ফলাফলে নতুন স্বপ্নের ছোঁয়া পেয়েছে সে ও তার পরিবার। তার ফলাফলে খুশি পরিবার ও স্থানীয়রা।

স্থানীয় স্কুল শিক্ষক শরিফুল ইসলাম বলেন, তার জীবনটা একটা সংগ্রাম। অনেক কষ্ট করে সে অন্যের বাড়িতে কাজ করে, ভ্যান চালিয়ে ভাল ফলাফল করেছে। তার ফলাফলে আমরা অনেক খুশি। আমরা তার পাশে ছিলাম। আগামীতেও তার পাশে দাঁড়াব৷ সেই সাথে সকলকে তার পাশে দাঁড়ানোর অনুরোধ করছি।

কষ্টার্জিত কাঙ্ক্ষিত ফলাফল শুনে রমজান আলী বলেন, পরীক্ষা শেষ করার পর আমি ঢাকায় চলে আসি। এখানে এসে গার্মেন্টসে কাজ শুরু করি। এখনো গার্মেন্টস কর্মী হিসেবে কর্মরত আছি৷ ছোটবেলা থেকেই বাবার আদর পাইনি৷ মা অনেক কষ্ট করে আমাকে লালন পালন করেছেন৷ মায়ের সাথে কাজ করে নিজের খরচ ও পড়াশোনার খরচ চালিয়েছি। তবুও পিছপা হয়নি। স্বপ্ন ছিল একদিন ভালো ফলাফল করে একটি মানসম্মত বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশোনা করব৷ আজকে একটা মনের আশা পূরণ হল। আমি পরীক্ষা দেওয়ার সময় যে দিনগুলোতে ফাঁকা ছিল ভ্যান চালিয়ে আয় করেছি। আমার মা বলতো আমি ভালো ফলাফল করব আজকে সে আশা পূরণ হয়েছে। গতকালকে গার্মেন্টসে বলেছি আজকে আমার ছুটি লাগবে৷ ছুটি নিয়ে আজকে বাসায় ছিলাম। জিপিএ -৫ পেয়ে আমি আজ অনেক খুশি। রেজাল্ট শোনে সব কষ্ট ভুলে গেছি। আমার মা অনেক খুশি হয়েছেন।

ভবিষ্যতের পরিকল্পনা কি ও পড়াশোনা নিয়ে জানতে চাইলে রমজান আরো বলেন, আর্থিক সমস্যার কারণে কোচিং করতে পারিনি৷ সে কারণে ভাবছি এক বছর পর ভর্তি হব। তারপরেও চেষ্টা করব ভালো বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হওয়ার। ভবিষ্যতে ভালো একটি চাকুরি করে পরিবারের কষ্ট লাঘব ও দেশ সেবা করব৷

এ বিষয়ে রাণীশংকৈল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সোহেল সুলতান জুলকারনাইন বলেন, বিষয়টি যেমনিভাবে কষ্টের তেমনি অনুপ্রেরণার। উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে তাকে সহযোগিতা করা হবে।

  ‘স্বপ্ন ছুঁয়েছে’ পদ্মার এপার-ওপার

;

তিনটি রেলপথ উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

  • Font increase
  • Font Decrease

নতুন তিনটি প্রকল্পের আওতায় বাংলাদেশ রেলওয়ের নবনির্মিত ৬০ দশমিক ২০ কিলোমিটার রেলপথ উদ্বোধন করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

আজ বৃহস্পতিবার (৯ ফেব্রুয়ারি) প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসবভন গণভবন থেকে ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে রেলপথ উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী।

এর মধ‌্যে পাবনার ঈশ্বরদীতে রূপপুর রেলস্টেশনটি রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রে মালপত্র ও যন্ত্রপাতি আনার সুবিধার্থে নির্মাণ করা হয়েছে। স্টেশনটি চালু করতে ৩৩৫ কোটি ৬৮ লাখ টাকায় ২৬ কিলোমিটার নতুন রেললাইন নির্মাণ করা হয়েছে। ব্রিটিশ আমলে নির্মিত লাইনটিতে ট্রেন চলাচল প্রায় ৩৫ বছর ধরে বন্ধ ছিল।

এ ছাড়া ঢাকা-চট্টগ্রাম রেলপথকে ডাবল লাইনে উন্নীত করতে আখাউড়া-লাকসাম সেকশনে ৭২ কিলোমিটার ডুয়েলগেজ ডাবল লাইন করা হচ্ছে। ৬ হাজার ৫০৪ কোটি টাকার এই প্রকল্পের কাজ ৯ বছরেও শেষ হয়নি। এই রুটের কসবা থেকে মন্দবাগ ও শশীদল থেকে রাজাপুর পর্যন্ত ১৫ কিলোমিটার ডুয়েলগেজ ডাবল লাইনে ট্রেন চলাচলের উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী।

এর আগে এই লাইনের লাকসাম থেকে কুমিল্লা পর্যন্ত ২৩ কিলোমিটার ডাবল লাইন গত বছরের সেপ্টেম্বরে ট্রেন চলাচলের জন্য খুলে দেওয়া হয়। বাকি ৩৪ কিলোমিটারের কাজ চলতি বছরের জুনে শেষ করার কথা থাকলেও প্রকল্পের মেয়াদ এক বছর বাড়ানোর প্রস্তাব করা হয়েছে।

ঢাকা থেকে টঙ্গী পর্যন্ত তৃতীয় ও চতুর্থ ডুয়েলগেজ নির্মাণকাজ চলছে। এ প্রকল্পের আওতায় নির্মাণ করা হচ্ছে টঙ্গী থেকে জয়দেবপুর পর্যন্ত দ্বিতীয় ডুয়েলগেজ রেললাইন। ১২ কিলোমিটার দীর্ঘ টঙ্গী-জয়দেবপুর অংশে নির্মিত দ্বিতীয় লাইনে ট্রেন চলাচলের উদ্বোধন করেন সরকারপ্রধান। ভারতীয় ঋণে ১ হাজার ১০৬ কোটি টাকার এই প্রকল্পের সব কাজ শেষ হতে আরও বছরখানেক সময় লাগবে। টঙ্গী-জয়দেবপুর সেকশনে দ্বিতীয় লাইন চালু হওয়ায় ১৫ থেকে ২০ মিনিট সময় সাশ্রয় হবে।

এ সময় টঙ্গী-জয়দেবপুর অংশে উপস্থিত ছিলেন রেলপথমন্ত্রী নূরুল ইসলাম সুজন। অনুষ্ঠানের অপর প্রান্তে কুমিল্লার শশীদল থেকে রাজাপুর, পাবনার ঈশ্বরদীর রূপপুর এবং টঙ্গী ও জয়দেবপুর সেকশনে উপস্থিত ছিলেন সংশ্লিষ্টরা।

  ‘স্বপ্ন ছুঁয়েছে’ পদ্মার এপার-ওপার

;