পদ্মা সেতু পারাপারে কড়াকড়ি, কমেছে যান চলাচল

  ‘স্বপ্ন ছুঁয়েছে’ পদ্মার এপার-ওপার



ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, মুন্সিগঞ্জ
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

মোটরসাইকেল চলাচল নিষিদ্ধের পাশাপাশি পদ্মা সেতু পারাপারে বেশ কিছু বিধি-নিষেধ আরোপ করা হয়েছে। এতে করে পদ্মা সেতু পার হওয়া যানবাহনের সংখ্যা উল্লেখযোগ্যভাবে কমেছে।

মঙ্গলবার (২৮ জুন) সকাল থেকে পদ্মা সেতুর মাওয়া প্রান্তে টোলপ্লাজায় অনেকটাই যানবাহন শূন্য দেখা যায়। মোটরসাইকেল ছাড়াও ছোট যানবাহন এবং বাসের সংখ্যাও ছিল খুবই কম।

জানা গেছে, পদ্মা সেতুতে দুর্ঘটনার পর থেকে সেতু কর্তৃপক্ষ, পুলিশ, সেনাবাহিনী ও জেলা ম্যাজিস্ট্রেটের কার্যক্রম জোরদার এবং কঠোর হয়েছে।

টোল প্লাজার অদূরে কিছু সংখ্যক মোটরসাইকেল থাকলেও তাদের পিকআপ ভ্যানে করে মোটরসাইকেল নিয়ে পাড়ি দিতে হচ্ছে সেতু।

বাংলাদেশ সেতু বিভাগের তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী তোফাজ্জল হোসেন জানান, পদ্মা সেতু দিয়ে মোটরসাইকেল পারাপারে নিষেধাজ্ঞার কারণে টোলপ্লাজায় এলাকায় যানবাহনের সংখ্যা খুবই কম। তবে, অন্যান্য যানবাহন পদ্মা সেতু দিয়ে পাড়ি দিতে পারছে।

সূত্র জানায়, পদ্মা সেতু চালুর দ্বিতীয় দিনে পার হওয়া যানবাহনের সংখ্যা উল্লেখযোগ্যভাবে কমেছে। সোমবার ভোর ৬টা থেকে দুপুর ২টা পর্যন্ত ৮ ঘণ্টায় মোট ৪ হাজার ৪৬৮টি যানবাহন পদ্মা সেতু পার হয়েছে। রোববার একই সময়ে মোট ১৫ হাজার ২০০টি যানবাহন সেতু পার হয়েছিল।

সোমবার (২৭ জুন) ৮ ঘণ্টায় পদ্মা সেতুতে টোল আদায় হয়েছে ৫৮ লাখ ৫১ হাজার ৯০০ টাকা। আর রোববার (২৬ জুন) একই সময়ে টোল আদায় হয়েছিল ৮২ লাখ ১৯ হাজার টাকা।

সেতুতে শৃঙ্খলা নিশ্চিত করতে সেনাবাহিনীকে টহল দিতে দেখা গেছে। সেতুতে মোটরসাইকেল চলাচল নিষিদ্ধের পাশাপাশি হেঁটেও কাউকে উঠতে দেওয়া হচ্ছে না। কেউ যেন অনিয়ম না করে সেজন্য নিয়মিত টহল দিচ্ছে সেনাবাহিনী। যান চলাচল শুরুর দ্বিতীয় দিনে অনেকটাই চাপশূন্য পদ্মা সেতুর মুন্সিগঞ্জের মাওয়া টোল প্লাজা। মোটরসাইকেল চলাচল বন্ধের নির্দেশনা বাস্তবায়নে কড়াকড়ি অবস্থানে কর্তৃপক্ষ ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।

  ‘স্বপ্ন ছুঁয়েছে’ পদ্মার এপার-ওপার

পরিবেশ সচেতনতায় আন্তর্জাতিক পুরস্কার পেলেন সাংবাদিক শাহেদ শফিক



নিউজ ডেস্ক, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
পরিবেশ সচেতনতায় আন্তর্জাতিক পুরস্কার পেলেন সাংবাদিক শাহেদ শফিক

পরিবেশ সচেতনতায় আন্তর্জাতিক পুরস্কার পেলেন সাংবাদিক শাহেদ শফিক

  • Font increase
  • Font Decrease

দীর্ঘদিন ধরে বাংলাদেশের জলবায়ু, পরিবেশ ও উপকূল নিয়ে কাজ করায় আন্তর্জাতিক পুরস্কার পেয়েছেন বাংলাদেশি সাংবাদিক শাহেদ শফিক।

পরিবেশ ও প্রকৃতি বিষয়ক আন্তর্জাতিক সংগঠন ‘উই ন্যাচারালিস্ট’ এ পুরস্কার দিয়েছে। তাদের ‘ক্লাইমেট চেঞ্জ ভয়েস অব দ্য ইয়ার’- এ ভূষিত হয়েছেন তিনি।

এ বছর তাকেসহ পৃথিবীর বিভিন্ন দেশের মোট ১৬ জনকে বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে এ পুরস্কারে ভূষিত করা হয়।

বৃহস্পতিবার (২৯ সেপ্টেম্বর) এক ভার্চুয়াল অনুষ্ঠানে এ পুরস্কার ঘোষণা করা হয়। অ্যাওয়ার্ড প্রাপ্তরা প্রত্যেকে পাচ্ছেন এক হাজার ইউএস ডলার, ট্রফি ও সনদ।

শাহেদ শফিক ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির (ডিআরইউ) পাঁচবার বেস্ট রিপোর্টিং অ্যাওয়ার্ড, ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশের (টিআইবি) ‘অনুসন্ধানী সাংবাদিকতা পুরস্কার-২০১৬’ ও ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশের (টিআইবি) ‘অনুসন্ধানী সাংবাদিকতা ফেলোশিপ-২০১৬’, ‘বাংলা ট্রিবিউন-ওমর ফারুক বর্ষসেরা পুরস্কার-২০১৯, ইউনিসেফ মীনা মিডিয়া অ্যাওয়ার্ড-২০২১, রোটারি মিডিয়া অ্যাওয়ার্ড-২০২১ ও গ্রিনম্যান অ্যাওয়ার্ড-২০২১ লাভ করেন। তিনি স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন উপকূল বাঁচাও আন্দোলনের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি।

  ‘স্বপ্ন ছুঁয়েছে’ পদ্মার এপার-ওপার

;

বেসরকারি শিক্ষক-কর্মচারীদের সেপ্টেম্বরের বেতন ছাড়



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

এমপিওভুক্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের (স্কুল ও কলেজ) শিক্ষক-কর্মচারীদের ২০২২ সালের সেপ্টেম্বর মাসের বেতন-ভাতার সরকারি অংশ ছাড় করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (২৯ সেপ্টেম্বর) মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদফতর বেতন-ভাতার সরকারি অংশ ছাড় করে। আগামী ৬ অক্টোবরের মধ্যে শিক্ষক-কর্চমারীরা সংশ্লিষ্ট ব্যাংকের শাখা থেকে বেতন-ভাতার সরকারি অংশ উত্তোলন করবে পারবেন।

এ সংক্রান্ত বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, মাউশির অধিনস্থ বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষক-কর্মচারীদের সেপ্টেম্বর মাসের বেতন-ভাতার সরকারি অংশের আটটি চেক অনুদান বন্টনকারি অগ্রণী ও রূপালী ব্যাংকের প্রধান কার্যালয়ে এবং জনতা ও সোনালী ব্যাংকের স্থানীয় কার্যালয়ে হস্তান্তর করা হয়েছে।

শিক্ষক-কর্মচারীদের সেপ্টেম্বর মাসের সরকারি অংশের বেতন-ভাতা আগামী ৬ অক্টোবরের মধ্যে সংশ্লিষ্ট শাখা ব্যাংক থেকে উত্তোলন করতে পারবে।

তবে সাধারণ স্কুল-কলেজের সেপ্টেম্বর মাসের বেতন-ভাতা ছাড় দেওয়া হলেও এখানো কারিগরি-মাদ্রাসা শিক্ষক-কর্মচারীদের অর্থ ছাড় দেওয়া হয়নি। প্রতি মাসে এ দুই স্তরের শিক্ষকদের অর্থ পেতে কিছুটা বিলম্ব হয়ে থাকে। আগামী রোববার বা সোমবার বেতন-ভাতার অর্থ ছাড় দেওয়া হতে পারে বলে সংশ্লিষ্টদের কাছে জানা গেছে।

  ‘স্বপ্ন ছুঁয়েছে’ পদ্মার এপার-ওপার

;

পাঁচ দশকে বাংলাদেশ উল্লেখযোগ্য অর্থনৈতিক উন্নয়ন করেছে: বিশ্বব্যাংক



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

বাংলাদেশ গত পাঁচ দশকে উল্লেখযোগ্য অর্থনৈতিক ও উন্নয়ন অগ্রগতি করেছে। এখন দেশে প্রবৃদ্ধির গতিপথ ধরে রাখতে এবং দীর্ঘমেয়াদে প্রবৃদ্ধির হারকে আরও ত্বরান্বিত করতে একটি শক্তিশালী সংস্কার এজেন্ডা প্রয়োজন। বিশ্বব্যাংকের নতুন প্রতিবেদন একথা বলা হয়।

বৃহস্পতিবার (২৯ সেপ্টেম্বর) রাজধানীর একটি হোটেলে আনুষ্ঠানিকভাবে প্রকাশিত ‘দ্যা কান্ট্রি ইকোনমিক মেমোরেন্ডাম: চেঞ্জ অফ ফেব্রিক আইডেন্টিফাইস’ শীর্ষক প্রতিবেদনটিতে উচ্চ প্রবৃদ্ধির প্রধান বাধাগুলো চিহ্নিত এবং দ্রুত প্রবৃদ্ধি বজায় রাখার জন্য কার্যকরী সংস্কারের প্রস্তাব করা হয়েছে।

প্রতিবেদন প্রকাশ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান এবং প্যানেল আলোচক হিসেবে বক্তব্য রাখেন সানেমের নির্বাহী পরিচালক অধ্যাপক ডক্টর সেলিম রায়হান এবং এসবিকে টেক ভেঞ্চারস ও এসবিকে ফাউন্ডেশনের প্রতিষ্ঠাতা সোনিয়া বশির কবির।

বিশ্বব্যাংকের বাংলাদেশের প্রধান অর্থনীতিবিদ ইউটাকা ইয়োশিনো’র পরিচালনায় অনুষ্ঠানে ভারপ্রাপ্ত দেশীয় পরিচালক ডানডান চেন উদ্বোধনী বক্তব্য দেন এবং সমাপনী বক্তব্য দেন বিশ্বব্যাংকের দক্ষিণ এশিয়ার ম্যাক্রো ইকোনমিক্স, ট্রেড, ইনভেস্টমেন্ট অ্যান্ড পাবলিক সেক্টর অনুশীলন ব্যবস্থাপক হুন এস সোহ। জ্যেষ্ঠ অর্থনীতিবিদ নোরা দিহেল এবং বিশ্বব্যাংকের প্রধান অর্থনীতিবিদ পরামর্শক জাহিদ হুসেন প্রতিবেদনের ফলাফলের উপর একটি পাওয়ার পয়েন্ট উপস্থাপনা করেন।

অনুষ্ঠানে বক্তৃতায় পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, জিডিপি প্রবৃদ্ধি অর্জন, খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জন, জনগণের দোরগোড়ায় বিদ্যুৎ সংযোগ পৌঁছে দেওয়া এবং শিক্ষার হার বৃদ্ধির ক্ষেত্রে বাংলাদেশ সঠিক পথে রয়েছে।

তিনি আরও বলেন, আমরা নিশ্চিত করতে পারি যে আমরা আরও উন্নতি করার জন্য আমাদের প্রচেষ্টা জোরদার করতে থাকব।

  ‘স্বপ্ন ছুঁয়েছে’ পদ্মার এপার-ওপার

;

আরও এক লাখ টন চাল আমদানির অনুমতি দিতে চিঠি



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

সরকারি গুদামে মজুদ বাড়াতে আরও এক লাখ টন চাল আমদানির অনুমতি পাচ্ছে ৪৫ প্রতিষ্ঠান।

এ প্রতিষ্ঠানগুলোর অনুকূলে আমদানির অনুমতি দেওয়ার অনুরোধ জানিয়ে বৃহস্পতিবার (২৯ সেপ্টেম্বর) খাদ্য মন্ত্রণালয় থেকে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিবের কাছে চিঠি পাঠানো হয়েছে।

এরমধ্যে নন-বাসমতি সিদ্ধ চাল ৮১ হাজার টন এবং আতপ চাল ১৯ হাজার টন। চালে সর্বোচ্চ ৫ শতাংশ ভাঙা দানা থাকতে পারবে।

আমদানির শর্তে বলা হয়, বরাদ্দ পাওয়া আমদানিকারকদেরকে আগামী ৩১ ডিসেম্বরের মধ্যে পুরো চাল বাংলাদেশে বাজারজাত করতে হবে। আমদানি করা চালের পরিমাণ, গুদামজাত ও বাজারজাতকরণের তথ্য সংশ্লিষ্ট জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রককে অবহিত করতে হবে। বরাদ্দের অতিরিক্ত আইপি ইস্যু বা জারি করা যাবে না। আমদানি করা চাল স্বত্বাধিকারী প্রতিষ্ঠানের নামে পুনরায় প্যাকেটজাত করা যাবে না এবং আমদানি করা বস্তায় চাল বিক্রি করতে হবে।

  ‘স্বপ্ন ছুঁয়েছে’ পদ্মার এপার-ওপার

;