দক্ষিণাঞ্চলবাসীর জন্য যেমন ছিলো ২০২১ সাল

  সালতামামি



জহির রায়হান, স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, বরিশাল
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

শান্তিপ্রিয় বাসযোগ্য অঞ্চল হচ্ছে সম্ভাবনাময় বরিশাল তথা গোটা দক্ষিণাঞ্চল। কিন্তু ২০২১ সাল জুড়ে দক্ষিণাঞ্চলে ছিলো করোনা, ডায়রিয়ার প্রকোপ, দূর্ঘটনার দুঃসংবাদ ও সম্ভাবনাময় আনন্দের বার্তা। বছরের শেষে এসে যুক্ত হল ঝালকাঠির সুগন্ধা নদীতে এমভি অভিযান-১০ লঞ্চে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা। যে ঘটনা দেশ বিদেশের শিরোনাম হয়েছে এবং কেঁদেছে গোটা দক্ষিণাঞ্চলবাসী। 

যেসব আলোচিত ঘটনাকে ঘিরে বরিশাল তথা দক্ষিণাঞ্চল বার বার সংবাদের শিরোনাম হয়েছে তারই এক ঝলক পাঠকদের জন্য তুলে ধরা হল-

ডায়রিয়ার প্রকোপ: বছরের শুরুর দিনই বরিশাল বিভাগে ডায়রিয়ার প্রাদুর্ভাব দেখা দেয়। ২৬ এপ্রিলের মধ্যে আক্রান্ত হয় ৪০ হাজারের বেশি মানুষ। স্বাস্থ্য বিভাগ বলছে, এর মধ্যে ২০ থেকে ২৬ এপ্রিল এক সপ্তাহে আক্রান্ত হয়েছিল ১০ হাজার ৭ জন। এপ্রিল মাসে সরকারি হিসাবে মারা যান ১১ জন। তবে বেসরকারি হিসাবে মৃত্যুর সংখ্যা ৩৩ জনের বেশি।

করোনা আতঙ্কের মাস জুলাই: বিদায়ী জুলাইয়ে ভয়ঙ্কর সময় পার করে বরিশাল বিভাগের মানুষ। করোনা সংক্রমণ আর মৃত্যু দুটোই চূড়ান্তে পৌঁছায় এই মাসে। নমুনা বিবেচনায় ৩৯ শতাংশ রোগী শনাক্ত হয় জুলাই মাসে। আর মারা যান ৪৪ দশমিক ১৩ শতাংশ রোগী। স্বাস্থ্য বিভাগের হিসাবে, জুলাইয়ে বরিশাল বিভাগে শনাক্ত হয় ১৩ হাজার ১৪৮ জন। এই মাসে করোনা পজিটিভ ও উপসর্গ নিয়ে প্রাণহানি হয় ৪০১ জনের। অপরদিকে আগস্টে শনাক্ত হয় ১০ হাজার ৬১১ রোগী। আর পজিটিভ রোগী মারা যায় ১৮৫ জন। গত ৭ জুলাই এক দিনে করোনা শনাক্ত হয় সর্বোচ্চ ৬২২ জনের। এরপর ১১ জুলাই এ সংখ্যা হয় ৭১০ ও ১৩ জুলাই ৮৭৯। আর ১৯ জুলাই ছিল সবচেয়ে ভয়াবহ দিন। এদিন সংক্রমণের সব রেকর্ড ভঙ্গ করে রেকর্ড ৮৯১ জন শনাক্ত হয়। ৩১ জুলাই পর্যন্ত বিভাগে করোনায় মারা গেছেন ৪৬৯ জন। তাঁদের মধ্যে দ্বিতীয় ঢেউ শুরুর পর মে থেকে ৩১ জুলাই পর্যন্ত মৃত্যু হয়েছে ২০৭ জনের, যা মোট মৃত্যুর ৪৪ দশমিক ১৩ শতাংশ। আর শুধু জুলাইয়ে মৃত্যু হয়েছে ১৫৮ জনের। সেপ্টেম্বর থেকে করোনা শনাক্ত ও মৃত্যুর সূচক নামতে থাকে।

বরিশাল সদর ইউএনওর বাসভবনে হামলা: গত ১৮ আগস্ট রাতে বরিশাল সদর উপজেলার ইউএনও অফিস কম্পাউন্ডে পানি সম্পদ প্রতিমন্ত্রীর শুভেচ্ছা ব্যানার নামাতে গিয়ে সিটি করপোরেশনের কর্মী ও পরে ছাত্রলীগ নেতা-কর্মীদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষ হয়। এতে ইউএনওর বাসভবনে হামলার সময় আনসার সদস্যদের গুলিতে আওয়ামী লীগ ছাত্রলীগের বেশ কয়েকজন নেতা কর্মী গুলিবিদ্ধ হন। এ ঘটনায় ইউএনও এবং কোতোয়ালি থানার ওসিসহ দুই প্রশাসন মেয়র ও মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সেরনিয়াবাত সাদিক আবদুল্লাহকে প্রধান আসামি দুইটি মামলা করা হয়। ঘটনার তিন দিন পর এ ঘটনায় প্রশাসনের সঙ্গে মেয়রসহ আওয়ামী লীগের নেতাদের সমঝোতা বৈঠকে বিষয়টি নিরসন হয়। 

স্বপ্নের পায়রা সেতু উদ্বোধন: দক্ষিণাঞ্চলের মানুষের বহুল প্রতীক্ষিত পায়রা সেতু উদ্বোধন হয় ২৪ অক্টোবর। এদিন ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে স্বপ্নের সেতুটি উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। উদ্বোধনের পরই সেতুর দুই পাড়ে হাজারো মানুষ উল্লাসে ফেটে পড়েন। পরিবর্তন ঘটে কুয়াকাটাসহ গোটা দক্ষিণাঞ্চলের যোগাযোগ ব্যবস্থার। 

এমভি অভিযান-১০ লঞ্চ ট্র্যাজেডি: বছরজুড়ে কমবেশি আনন্দের উচ্ছ্বাস থাকলেও বছরের শেষ মাসটি ছিল চরম বেদনাদায়ক। গত ২৩ ডিসেম্বর গভীররাতে ঝালকাঠির সুগন্ধা নদী পার হওয়ার সময় এমভি অভিযান-১০ লঞ্চে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। ঢাকা থেকে বরগুনাগামী লঞ্চটির ৪৩ যাত্রীর প্রাণহানির খবর নিশ্চিত হওয়া গেছে। হাসপাতালে ভর্তি আছেন দগ্ধ ৮৫ জন। নিখোঁজ রয়েছেন আরো ৪৬ জন। এ দুর্ঘটনায় স্বজনহারাদের আহাজারি, দগ্ধদের আর্তনাদে ভারী হয়ে আছে দক্ষিণের জনপদ। যা নৌপথে চলাচলে যাত্রীদের মাঝে হতাশ সৃষ্টি করছে।

  সালতামামি

ইভিএম একটি দুর্বল ও জালিয়াতি যন্ত্র: বদিউল আলম মজুমদার



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, রংপুর
বদিউল আলম মজুমদার

বদিউল আলম মজুমদার

  • Font increase
  • Font Decrease

সুশাসনের জন্য নাগরিকের (সুজন) সম্পাদক বদিউল আলম মজুমদার বলেছেন, গাইবান্ধা-৫ আসনের নির্বাচন সঠিকভাবে করতে পারেনি বরং তদন্তের নামে রাঘব বোয়ালদের ছাড় দিয়ে চুনোপুঁটিদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার সুপারিশ করেছে নির্বাচন কমিশন। ‘নামকাওয়াস্ত তদন্ত’ করে বিষবৃক্ষ রেখে ডালপালা ছেঁটে ফেলেছেন। ইভিএম একটি দুর্বল ও জালিয়াতি যন্ত্র।

শনিবার (৩ ডিসেম্বর) বিকেলে রংপুরে একটি অনুষ্ঠানে এসে আরডিআরএস মিলনায়তনে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে তিনি এসব মন্তব্য করেন।

বদিউল আলম মজুমদার বলেন, গাইবান্ধা ৫-আসনের উপনির্বাচনে ইতিহাস সৃষ্টি হয়েছে। সেখানে প্রথমবারের মতো নির্বাচন কমিশন ভোটকেন্দ্রে সিসিটিভি ক্যামেরা স্থাপন করে যেভাবে অনিয়ম উৎখাত করেছে, তা একটি ইতিহাস। পুরো নির্বাচনী এলাকার নির্বাচন বাতিল করে তদন্ত কমিটি গঠন করাও ইতিহাস। তবে তদন্তে যা বেরিয়ে এসেছে, তা খুব একটা ইতিবাচক নয়। সেখানে রাঘব-বোয়ালরা ধরা ছোঁয়ার বাইরে থেকে গেল, ধরা পড়ল চুনোপুঁটিরা। দুর্নীতি বা অনিয়মের যে বিষবৃক্ষ সেটার ডালপালা ছেঁটে দেয়া হয়েছে কিন্তু বিষবৃক্ষটা ঠিকই আছে। এইখানে নির্বাচন কমিশন ব্যর্থ।

সুজন সম্পাদকের অভিযোগ, গাইবান্ধায় রাঘব-বোয়ালরা পার পেয়ে গেছেন। ইসির জালে আটকা পড়েছেন চুনোপুঁটিরা। এই নির্বাচন বার্তা দিয়েছে, যারা ক্ষমতাসীন বা রাঘব-বোয়াল তারা অন্যায় করেও সহজে পার পেয়ে যাবে।

অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন করতে ইভিএম কার্যকর নয় দাবি করে বদিউল আলম মজুমদার বলেন, এটা একটা দুর্বল এবং জালিয়াতির যন্ত্র। এই যন্ত্র দিয়ে নির্বাচন কমিশন যে ফলাফল চায়, তাই সম্ভব। এটাতে যাচাই-বাছাই, অডিট করা এবং ফলাফল পুনর্গণনা করার সুযোগ হবে না। ইভিএম ব্যবহার করে বাহিরের কেউ জালিয়াতি করতে পারবে না। তবে নির্বাচন কমিশনের যোগসাজশে স্যুট-কোট পরিহিতের দিয়ে জালিয়াতি করা সম্ভব। অর্থাৎ যারা বেড়া তারাই ক্ষেত খাবে।

১০ ডিসেম্বর বিএনপির কর্মসূচিকে কেন্দ্র করে সরকার দলীয়দের পাল্টা ‘খেলা হবে’ মন্তব্য সম্পর্কে বদিউল আলম মজুমদার বলেন, এখন যে উত্তেজনা সৃষ্টি হয়েছে, তা একটি গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রের সঙ্গে সংহতিপূর্ণ নয়। এটি কর্তৃত্ববাদী রাষ্ট্রের প্রতিফলন। আসলে কোন খেলা হবে সেটা আমরা নিজেরাও জানি না। কিন্তু এই ধরনের ‘খেলা হবে’ মন্তব্যের মাধ্যমে আমাদের রাজনীতিবিদরা খেলোতে পরিণত করেছেন। রাজনীতি হচ্ছে জনকল্যাণের পেশা, মানুষের মঙ্গল করার পেশা। অথচ এটা এখন খেলোতে পরিণত করা হয়েছে।

এসময় আরও উপস্থিত ছিলেন সুজনের রংপুর মহানগরের সভাপতি অধ্যক্ষ ফখরুল আনাম বেঞ্জু, সদস্য ফরহাদুজ্জামান ফারুক, হাঙ্গার প্রজেক্ট ও সুজনের রংপুর বিভাগীয় সমন্বয়কারী রাজেশ দে রাজু প্রমুখ।

  সালতামামি

;

এসডিজি অর্জনে সকলকে সম্পৃক্ত থাকতে হবে: স্থানীয় সরকার মন্ত্রী



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম

স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম

  • Font increase
  • Font Decrease

স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম বলেছেন, এসডিজি অর্জনে সকলের সম্পৃক্ততা প্রয়োজন, প্রত্যেকের স্বক্রিয় অংশগ্রহণ এসডিজি অর্জন ত্বরান্বিত করবে। তাই সরকার সকল শ্রেণি পেশার মানুষকে অন্তর্ভুক্ত করতে চায়।

শনিবার (৩ ডিসেম্বর) রাজধানীর কৃষিবিদ ইনস্টিটিউটে এসডিজি বাস্তবায়নে নাগরিক প্ল্যাটফর্ম বাংলাদেশ আয়োজিত ‘জন শুনানি, জাতীয় উন্নয়ন এবং স্থানীয় বাস্তবতা’ শীর্ষক আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন।

মন্ত্রী জানান, দারিদ্রতা, স্বাস্থ্য, শিক্ষাসহ সকল ক্ষেত্রে স্থায়ী উন্নয়ন করতে আমাদের দীর্ঘ মেয়াদে ধাপে ধাপে আগাতে হবে। প্রতি ৬০০০ মানুষের জন্য ১৯৯৬ সালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কমিউনিটি হাসপাতাল গড়ে তোলেন। প্রত্যন্ত অঞ্চলে প্রাথমিক চিকিৎসার জন্য কমিউনিটি হাসপাতাল কাজ করছে।

স্থানীয় সরকার মন্ত্রী বলেন, দেশে দুর্নীতি, সন্ত্রাসসহ বিভিন্ন সমস্যার শতভাগ সমাধান হয়নি। তবে বর্তমান সরকারের অনেক অর্জন রয়েছে। সমালোচনা করার সুযোগ থাকলেও এই সরকারের অভূতপূর্ব উন্নয়ন অস্বীকার করা উচিত নয়।

তিনি আরও বলেন, যোগাযোগ ব্যবস্থা অর্থনৈতিক উন্নয়নের পূর্বশর্ত। ভৌত অবকাঠামোর পাশাপাশি তথ্য প্রযুক্তি বা ডিজিটাল বাংলাদেশ করা হয়। শতভাগ বিদ্যুৎ এই সুবিধা সকল নাগরিকের কাছে পৌঁছেছে। এখনো আমাদের উৎপাদনের ১ শতাংশ ও কয়লাভিত্তিক না। মিশ্র জ্বালানি না হলে ভবিষ্যতে যে কোনো প্রতিকূলতা মোকাবিলা করা সম্ভব নয়। তাই নিউক্লিয়ার, কয়লা, তরল জ্বালানি গ্যাস ও আমদানিকৃত গ্যাসে বিদুৎ উৎপাদনের ব্যবস্থা করা হয়।

বিশেষ অতিথি হিসেবে অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব ও সংসদ সদস্য আসাদুজ্জামান নূর ও সংসদ সদস্য ব্যারিস্টার রুমিন ফারহানা এবং সভাপতিত্ব করেন সেন্টার ফর পলিসি ডায়লগের (সিপিডি) প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান অধ্যাপক রেহমান সোবহান।

অনুষ্ঠানে অন্যান্যদের মধ্যে আরও উপস্থিত ছিলেন, গণসাক্ষরতা অভিযানের নির্বাহী পরিচালক রাশেদা কে চৌধুরী, ব্রাকের সভাপতি ড. হোসেন জিল্লুর রহমান, বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ অধ্যাপক সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী, সুশাসনের জন্য নাগরিক (সুজন)-এর সম্পাদক ড. বদিউল আলম মজুমদার, অর্থনীতিবিদ অধ্যাপক আনু মুহাম্মদ, বিশিষ্ট নাট্যকার মামুনুর রশীদসহ সমাজের বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ ।

  সালতামামি

;

পঞ্চগড়ে ট্রাক্টর চাপায় শিশুর মৃত্যু



ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, পঞ্চগড়
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়া উপজেলায় মাটিবাহী ট্রাকের চাপায় রাজন (১০) নামে এক শিশুর মৃত্যু হয়েছে।

শনিবার (৩ ডিসেম্বর) দুপুরে তেঁতুলিয়া উপজেলার বুড়াবুড়ি ইউনিয়নের চরকডাঙ্গি এলাকায় এ ঘটনাটি ঘটে।

জানা যায়, নিহত শিশু রাজন একই এলাকার হবিবর রহমানের ছেলে।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, দুপুরে চরকডাঙ্গি গ্রামের বাড়ি থেকে বেশ দূরে কয়েকজন শিশুর সাথে খেলা করছিল। এদিকে একটি ট্রাক্টর পাশের একটি জমি থেকে মাটি লোড করে নিয়ে যাচ্ছিল। একসময় খেলার ছলে বল ট্রাক্টরের সামনে চলে আসে। এসময় শিশু রাজন বলটি নিতে গেলে মাটিবাহী ট্রাক্টরের নিচে পড়ে। ট্রাক্টরের চাপায় ঘটনাস্থলেই মৃত্যুবরণ করে। এসময় স্থানীয়রা ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যানকে বিষয়টি জানান। পরে চেয়েরম্যান ঘটনাস্থলে ছুটে যান।

বুড়াবুড়ি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান তারেক ইসলাম ট্রাক্টর চাপায় মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেন। তিনি বলেন, নিহতের পরিবারের পক্ষ থেকে কোন অভিযোগ না থাকায় মরদেহ দাফনের ব্যবস্থা করা হচ্ছে।

  সালতামামি

;

ঠাকুরগাঁও মুক্ত দিবস আজ



ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঠাকুরগাঁও
ঠাকুরগাঁও মুক্ত দিবস আজ

ঠাকুরগাঁও মুক্ত দিবস আজ

  • Font increase
  • Font Decrease

আজ ৩ ডিসেম্বর ঠাকুরগাঁও পাকিস্তানী হানাদারমুক্ত দিবস। ১৯৭১ সালের এই দিনে ঠাকুরগাঁও পাক হানাদার মুক্ত হয়। ঠাকুরগাঁও তখন মহকুমা ছিল। ঠাকুরগাঁও-পঞ্চগড় জেলার ১০টি থানা মিলে ওই মহকুমা ছিল। এ অঞ্চলে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের প্রাণপণ লড়াই আর মুক্তিকামী জনগণের দুর্বার প্রতিরোধে নভেম্বরের শেষ দিক থেকেই পিছু হটতে শুরু করে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী। চূড়ান্ত বিজয় আসে আজকের এই দিনটিতে।

আজ নানা আয়োজনের মধ্য দিয়ে দিবসটি পালন করেছে ঠাকুরগাঁও জেলা প্রশাসন। জেলা প্রশাসনের কার্যালয় চত্বর হতে একটি আনন্দ র‌্যালি বের হয়ে জেলা পরিষদ ডাকবাংলোয় গিয়ে শেষ হয়। সেখানে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুস্পস্তবক অর্পণ শেষে জেলা পরিষদ অডিটরিয়াম বিডি হলে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

জানা যায়, ১৯৭১ সালের ২৫শে মার্চ কালরাতে পাক হানাদাররা ঝাঁপিয়ে পড়ে ঠাকুরগাঁওয়ের সহজ সরল মানুষের ওপর। এ সময় হানাদাররা গ্রামে গ্রামে নির্বিচারে হত্যা, ধর্ষণ, লুন্ঠণ ও অগ্নিসংযোগ চালায়। এরপর ১৫ই এপ্রিল আধুনিক অস্ত্রশস্ত্রে সজ্জিত পাকবাহিনীর দখলে চলে যায় ঠাকুরগাঁও। আওয়ামী লীগের ঘাঁটি বলে পরিচিত ঠাকুরগাঁওয়ের ইসলামনগর থেকে ছাত্রনেতা আহাম্মদ আলী, ইয়াকুব আলী, মাজারুল, দবিরুল ইসলাম, নুরুজ্জামান ও সিরাজউদ্দীনকে ধরে এনে পাক হানাদার বাহিনী ঠাকুরগাঁও ক্যাম্পে আটক করে রাখে। পরে তাদের হত্যা করে টাঙ্গন নদীর পারে ফেলে রাখা হয়। যেখানে বর্তমানে বধ্যভুমি গড়ে তোলা হয়েছে।

ঠাকুরগাঁও তখন ছিল ৬ নম্বর সেক্টরের অন্তর্ভুক্ত। কমান্ডার ছিলেন বিমান বাহিনীর স্কোয়াড্রন লিডার এম খাদেমুল বাশার। এ সেক্টরে প্রায় ১০ হাজার মুক্তিযোদ্ধা ছিল। ২৯ নভেম্বর এ মহকুমার পঞ্চগড় থানা প্রথম শক্রমুক্ত হয়। পঞ্চগড় হাত ছাড়া হওয়ার পর পাকবাহিনীর মনোবল ভেঙে যায়। এরপর তারা প্রবেশ করে ঠাকুরগাঁওয়ে। ২ ডিসেম্বর রাতে ঠাকুরগাঁওয়ে প্রচুর গোলাগুলি শুরু হয়। ওই রাতেই শক্রবাহিনী ঠাকুরগাঁও থেকে পিছু হটে ২৫ মাইল নামক স্থানে অবস্থান নেয়। ৩ ডিসেম্বর ভোররাতে ঠাকুরগাঁও শহর শক্রমুক্ত হয়।

সদর উপজেলার ফাড়াবাড়ীতে মুক্তিযোদ্ধার পিতা শেখ শহর আলী ও তার ভাই শেখ বহর আলীসহ ১৯ জন নিরীহ গ্রামবাসীকে ধরে এনে হত্যা করে তাদের মরদেহ আব্দুর রশিদ ডিগ্রি কলেজের পাশের একটি কূপে ফেলে দেয়। হানাদার বাহিনী ও তার দোসররা গণহত্যা চালায় সদর উপজেলার জাঠিভাঙ্গা গ্রামে। সেখানে স্থানীয় কিছু লোকের সহায়তায় আশ-পাশের অনেক গ্রামের প্রায় তিন হাজার নিরীহ গ্রামবাসীকে ধরে এনে পাকবাহিনী গুলি করে ও ধারালো অস্ত্র দিয়ে হত্যা করে। পরে তাদের মরদেহ মাটি চাপা দেয়া হয়।

জেলার বিভিন্ন এলাকায় শতাধিক স্থানে গণহত্যা চালায় পাকবাহিনী ও তার দোসররা। এরই মধ্যে সুসংগঠিত হতে থাকে ঠাকুরগাঁওয়ের মুক্তিকামি মানুষ। তারা হানাদার বাহিনীর বিরুদ্ধে গড়ে তুলে দুর্বার প্রতিরোধ।

১৯৭১ সালের ৩ ডিসেম্বর পাকবাহিনীর পতনের পর এ এলাকার সর্বত্রই ছড়িয়ে পড়ে মুক্তির উল্লাস। আনন্দ উদ্বেলিত কন্ঠে ‘জয়বাংলা’ ধ্বনি আর হাতে প্রিয় স্বদেশের পতাকা নিয়ে ছুটাছুটি করতে থাকে তরুণ-যুবক সবাই। এদিন সকাল থেকেই ঠাকুরগাঁও শহরসহ জনপদ ও লোকালয়ে মানুষ জড়ো হতে থাকে। শহরের বিভিন্ন রাস্তায় বের হয় আনন্দের মিছিল। স্বাধীন বাংলাদেশের জয়ধ্বনিতে মুখরিত হয়ে ওঠে ঠাকুরগাঁও শহর।

মুক্তিযোদ্ধা ও প্রত্যক্ষদর্শী আব্দুল মজিদ বলেন, এই বধ্যভূমি ১৯৭১ সালে ২৩ এপ্রিল ১৮নং শুকানপুরী ইউনিয়নে দুই হাজার থেকে আড়াই হাজার লোককে পাকিস্তানি সৈন্যরা হত্যা করে। আমাদের এই শুকানপুকুরী বধ্যভূমি সংরক্ষণ করার দাবি জানাচ্ছি।

ঠাকুরগাঁও জেলা প্রশাসক মাহবুবুব রহমান বলেন, জেলার বধ্যভূমিগুলো সংরক্ষণের উদ্যোগে মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয়ে আবেদন করা হয়েছে। এছাড়া আমরা ঠাকুরগাঁওবাসী ৩ ডিসেম্বর হানাদার মুক্ত যথাযথ মর্যাদায় পালন করেছি।

  সালতামামি

;