বিদ্যুতে মাইলফলকের বছর ২০২১

  সালতামামি


সেরাজুল ইসলাম সিরাজ, স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
বিদ্যুতে মাইলফলকের বছর ২০২১

বিদ্যুতে মাইলফলকের বছর ২০২১

  • Font increase
  • Font Decrease

বঙ্গোপসাগরের বিচ্ছিন্ন দ্বীপ হাতিয়া, সন্দ্বীপ থেকে পাহাড়ের দূর্গমে এবং চরাঞ্চলের বাসিন্দারাও এখন বিদ্যুতের আলোও আলোকিত। কিছুদিন আগেও যেসব এলাকার বাসিন্দারা নিজেরাই বিদ্যুতের আলো দেখতে পাবেন আশাবাদী ছিলেন না।

সারা দেশে (৭ ডিসেম্বর পর্যন্ত) ৯৯ দশমিক ৭৫ শতাংশ গ্রাহক বিদ্যুতের আওতায় এসেছে। দু’একটি জায়গায় বিচ্ছিন্ন কিছু গ্রাহক রয়েছে যেখানে বিদ্যুৎ পৌঁছে দেওয়ার কাজ চলমান। এরমধ্যে রয়েছে পার্বত্য চট্টগ্রাম ও দ্বীপাঞ্চলে । যাদের বিদ্যুৎ সংযোগ দেওয়া হবে শিগগিরই। অর্থাৎ শতভাগ বিদ্যুতায়ন এখন আনুষ্ঠানিক ঘোষণার বিষয় মাত্র। সে কারণে ২০২১ সাল বিদ্যুৎ খাতের জন্য মাইলফলক।

১৯০১ সালে ৭ ডিসেম্বর আহসান মঞ্জিলে লাইট জ্বালানোর মধ্য দিয়ে বিদ্যুতের পথচলা, ১৯১৯ সালে ‘ডেভকো’ নামক ব্রিটিশ কোম্পানির মাধ্যমে ঢাকায় সীমিত আকারে বিদ্যুৎ বিতরণ শুরু, পরবর্তীতে ১৯৩৩ সালে ঢাকার পরীবাগে ৬ মেগাওয়াট ক্ষমতাসম্পন্ন ‘ধানমন্ডি পাওয়ার হাউস’ নির্মাণ করে বাণিজ্যিকভাবে বিদ্যুৎ বিতরণ শুরু ইতিহাস যেমন মুছে ফেলা যাবে না। তেমনি বিদ্যুৎ খাতের শতভাগ অর্জনও বাংলাদেশের ইতিহাসে স্বর্ণাক্ষরে লিপিবদ্ধ থাকবে।

বিদ্যুতের আলো পৌঁছে যাওয়ায় দুর্গম এলাকার অর্থনৈতিক চিত্রও বদলে যাচ্ছে। গড়ে উঠছে বাণিজ্যিক কেন্দ্র, বসছে চাউল কল, স-মিল, অটোমোবাইলের মতো বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠান। বেরিয়ে আসছে ক্ষুদ্র উদ্যোক্তা। বদলে যাচ্ছে মানুষের জীবনযাত্রার মান।একটি বিদেশি গবেষণায় বলা হয়েছে গ্রামে বিদ্যুতায়নের ফলে বাংলাদেশের শিশুদের গড় উচ্চতা বেড়ে গেছে। প্রায় দুই বছরজুড়েই করোনা মহামারি সত্ত্বেও এই অর্জন সাধুবাদ পাওয়ার দাবি রাখে বলে মন্তব্য করেছেন এই খাতের বোদ্ধারা।

আওয়ামী লীগ সরকার ২০০৮ সালে নির্বাচনী ইশতেহারে যে ঘোষণা দিয়েছেন। তখন অনেকেই একে নির্বাচনী স্ট্যান্ডবাজি বলে মন্তব্য করেছিলেন। বলেছিলেন নির্বাচনী বৈতরণী পার হওয়ার জন্য এই ঘোষণা দেওয়া হয়েছে। ২০২১ সালকে সে সব সমালোচকদের মুখে চুন-কালি লেপনের বছর বলে মন্তব্য করেছেন কেউ কেউ।

ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ র্পৌঁছে দেওয়ার পাশাপাশি সিস্টেম লসে লাগাম টেনে ধরতে সক্ষম হয়েছে সরকার। এক সময় ৩৭ শতাংশ সিস্টেম লস ছিল, সেই সিস্টেম লস এখন এক অংকে নেমে এসেছে অনেক বিতরণ কোম্পানিতে। চলতি অর্থ বছরে (২০২১-২২) এর প্রথম ৩ মাসে বাংলাদেশ বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের সিস্টেম লস ছিল ৯ দশমিক ৫১ শতাংশ, একই সময়ে পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ড ৯ দশমিক ৮০ শতাংশ, ঢাকা পাওয়ার ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি ৬ দশমিক ৩৭ শতাংশ, ঢাকা ইলেকট্রিসিটি সাপ্লাই কোম্পানি ৫ দশমিক ২০ শতাংশ, ওয়েস্টজোন পাওয়ার ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি ৮ দশমিক ১৬ শতাংশ ও নর্দান ইলেকট্রিসিটি সাপ্লাই কোম্পানি ১০ দশমিক ৬৮ শতাংশে নেমে এসেছে। সামগ্রিক সিস্টেম লস ৮ দশমিক ৪৮ শতাংশে নেমে এসেছে।

তুলনামূলক সিস্টেম লস বেশি হয়েছে নর্দান ইলেকট্রিসিটি সাপ্লাই কোম্পানি। ওই কোম্পানির ব্যবস্থাপনা পরিচালক জাকিউল ইসলাম বার্তা২৪.কমকে বলেন, চলতি অর্থ বছরের প্রথম কোয়ার্টারে গীষ্মমৌসুম থাকায় সিস্টেম লস কিছুটা বেশি হয়েছে। আশা করছি পুরো অর্থবছরে গড় সিস্টেম লস লক্ষ্যমাত্রার মধ্যেই থাকবে।

তিনি বলেন, ৫ লাখ গ্রাহককে প্রি-পেইড মিটারের আওতায় আনার কাজ চলছে। আরও একটি প্রকল্প নেওয়া হয়েছে যাতে ১২ লাখ গ্রাহককে প্রি-পেইড মিটার দেওয়া হবে। এই কাজটি শেষ হলে সিস্টেম লস অনেক কমে আসবে।

সিস্টেম লস কমানোর পাশাপাশি নিরবিচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহ ও গ্রাহক সেবার মান বাড়াতে কাজ শুরু করেছে বিদ্যুৎ বিভাগ। সিস্টেম অ্যাভারেজ ইন্টারেপশন ডিউরেশন ইনডেক্স (সাইদি) ও সিস্টেম অ্যাভারেজ ফিকোয়েন্সি ডিউরেশন ইনডেক্স (সাইফি) কঠোর ভাবে মনিটরিং করা হচ্ছে। অতীতে এই সুচকগুলো ম্যানুয়ালি হিসাব করা হতো। তখন সংস্থাগুলোর তথ্য গোপন করার সুযোগ থেকে যেতো। সাইদি- সাইফি অটোমেশনের আওতায় আনা হচ্ছে। এতে করে গোজামিল দেওয়ার আরও কোনো সুযোগ থাকবে না। গ্রাহকের সঠিক চিত্র উঠে আসবে।

বিদ্যুৎ বিভাগের উন্নয়ন ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান পাওয়ার সেল’র মহাপরিচালক প্রকৌশলী মোহাম্মদ হোসেন বলেন, আগে সাইদি-সাইফি ছিল বিতরণ কোম্পানি নির্ভর। এখন স্বয়ংক্রিয় মেশিনের মাধ্যমে ডাটা জেনারেট করার জন্য কাজ করা হচ্ছে। চলতি বছরেই ৫০ শতাংশ অটোমেশন হবে। সবাই কোয়ালিটি ও নিরিবিচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ পাবে, শিল্পে ডাবল সোর্স নিশ্চিত করা হচ্ছে।

কয়েক বছর আগেও বিদ্যুৎ নিয়ে হাহাকার ছিল, লোডশেডিংয়ের অভিযোগ ছিল নিত্যদিনের চিত্র। গীষ্মমৌসুমে ডিমান্ড সাইড ম্যানেজমেন্টসহ নানারকম কৌশল নিতে হতো। বিদ্যুৎ দিতে না পেরে শিল্পে ক্যাপটিভ পাওয়ার প্লান্টের অনুমোদন দেওয়া হয়। এখন সরকারের হাতে পর্যাপ্ত বিদ্যুৎ উৎপাদনের সক্ষমতা রয়েছে। ২০১৮-২০১৯ সালেও বিদ্যুৎ চালিত অটো রিকশা বন্ধে গলমঘর্ম হলেও এখন বিদ্যুৎ বিভাগেই চায় বৈদ্যুতিক বাস আমদানি উন্মুক্ত করা হোক।

জ্বালানি তেলের দাম ঊর্ধ্বমুখী থাকায় বছরজুড়েই গুঞ্জন ছিল বিদ্যুতের দাম বৃদ্ধির খবর। শেষ পর্যন্ত গুঞ্জনেই থেকে গেছে বিদ্যুতের দাম বাড়ানোর খবর টি। কমে এসেছে লোডশেডিংসহ বিদ্যুৎ বিভ্রাটের প্রবনতা। সারপ্লাস উৎপাদন থাকলেও এখনও নানা সীমাবদ্ধতার কথা বলে লোডশেডিং করা হচ্ছে।

নিরবিচ্ছিন্ন বিদ্যুতের জন্য আরও কিছুটা সময় চেয়েছেন বিদ্যুৎ জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ। তিনি বলেছেন, এতদিন সবার ঘরে বিদ্যুৎ পৌঁছানো ছিল অগ্রাধিকার। সেই কাজ চূড়ান্ত পর্যায়ে। এখন নিরবিচ্ছিন্ন ও মানসম্মত বিদ্যুতের লক্ষ্য নিয়ে কাজ চলছে।

   

স্বাধীনভাবে কাজ না করায় ব্যাংকিংখাতে পুঞ্জীভূত সংকট বাড়ছে: সিপিডি



স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

সুশাসন, স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতার অভাব, নিয়ন্ত্রক সংস্থার কাজে বাধা এমন কি অনেক ক্ষেত্রে রাজনৈতিকভাবে প্রভাবিত হয়ে নিয়ন্ত্রক সংস্থা স্বাধীনভাবে কাজ না করায় ব্যাংকিং খাতে পুঞ্জীভূত সংকট বাড়ছে বলে মন্তব্য করে গবেষণা সংস্থা সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগ (সিপিডি)।

বৃহস্পতিবার (২২ মে) রাজধানীর লেকশোর হোটেলের লা ভিটা হলে সিপিডি আয়োজিত ‘বাংলাদেশের ব্যাংকিং খাতের জন্য সামনে কী অপেক্ষা করছে?’ শীর্ষক সংলাপে এ মন্তব্য করে সিপিডি।

সংস্থাটির নির্বাহী পরিচালক ড. ফাহমিদা খাতুন বলেন, স্বাধীনভাবে কাজ না করার অভ্যাস হয়ে যাওয়ায় বাংলাদেশ ব্যাংক তার স্বাধীন সত্তা হারিয়ে ফেলেছে। এর ফলে সুদের হার, ব্যাংকের লাইসেন্স, সুদ মওকুফ, খেলাপি ঋণ পুনঃতফসিলের মত বিষয়াদির নীতিমালা বাংলাদেশ বাংকের বাইরে থেকে চাপিয়ে দেয়া হচ্ছে।

ডা. ফাহমিদা বলেন, প্রাতিষ্ঠানিক সক্ষমতা ও সুশাসনের অভাব, নিয়ন্ত্রণে দুর্বলতা, আইনি জটিলতা আর অবাধ তথ্যের অভাবে ব্যাংকিং খাতের স্বাস্থ্য ক্রমেই দুর্বল হচ্ছে।

পরিস্থিতির উত্তরণে খাতভিত্তিক সাময়িক উদ্যোগের পরিবর্তে দীর্ঘমেয়াদী সমন্বিত উদ্যোগের তাগিদ দিয়ে তিনি বলেন, দৃঢ় রাজনৈতিক সংকল্প এবং সর্বোচ্চ পর্যায়ে নির্দেশনা না আসলে এই খাতকে পুনরুদ্ধার করা সম্ভব হবে না।

অনুষ্ঠানে ব্যাংকগুলোর পরিচালক নিয়োগ থেকে শুরু করে ঋণ বিতরণে স্বচ্ছতা নিশ্চিত করা, কেন্দ্রীয় ব্যাংকের স্বাধীনতা চর্চা সমুন্নত করা, দুর্বল ব্যাংকগুলোর এক্সিট পলিসি নিশ্চিত করা, অর্থ ঋণ আদালতে চলমান মামলাগুলোর দ্রুত সমাধান করার সুপারিশ করা হয়।

এ সব সমস্যার সমাধানে বরাবরের মতই একটি স্বাধীন ব্যাংকিং কমিশন গঠনেরও তাগিদ দিয়েছে সিপিডি।

সংলাপে সভাপতির বক্তব্যে সিপিডির ফেলো প্রফেসর ড. মুস্তাফিজুর রহমান বলেন, ব্যাংকিংখাতের অবস্থা ভালো থাকলে বাংলাদেশের অর্থনীতিও ভালো থাকবে।

আর এই খাতে চ্যালেঞ্জ দেখা দিলে সামষ্টিক অর্থনীতিতে এর গুণক প্রভাব পড়বে মন্তব্য করে তিনি বলেন, এই ধরনের সমস্যা মোকাবিলা করতে গিয়ে অর্থনীতি নতুন করে চ্যালেঞ্জের সম্মুখীন হয়।

মূল প্রবন্ধে ড. ফাহমিদা খাতুন বলেন, ২০১২ সালের ৪২,৭২৫ কোটি টাকা থেকে তিন গুণ বেড়ে ব্যাংকিং খাতে খেলাপি ঋণের পরিমাণ ১,৪৫,৬৩৩ কোটি টাকায় উন্নীত হয়েছে। এর বাইরে ২০২২ সালের হিসেবে অবলোপন করা ৪৪৪৯৩ কোটি টাকা এবং রিসিডিউল করা ২১২৭৮০ কোটি টাকা যোগ করলে মোট মন্দ ঋণের পরিমাণ দাঁড়ায় ৩.৭৮ লাখ কোটি টাকায়।

বর্তমাণে অর্থঋণ আদালতে ৭২ হাজারের বেশি বিচারাধীন মামলায় ১.৭৮ লাখ কোটি টাকা আটকে আছে মন্তব্য করে তিনি বলেন, এই টাকা কখন পাওয়া যাবে এ বিষয়ে কেউ নিশ্চিত নয়।

খেলাপি ঋণের কারণে ব্যাংকগুলোর তারল্য সংকট বৃদ্ধির পাশাপাশি সব ধরনের ব্যবসার ব্যয় বাড়ছে মন্তব্য করে তিনি বলেন, ব্যয় বৃদ্ধির জন্য সুদের হারকে দায়ী করা হলেও খেলাপ ঋণের বিষয়টি আলোচনায় আসে না। বাস্তবতা হচ্ছে খেলাপি ঋণের আশঙ্কায় ব্যাংকগুলোকে ঋণ বিতরণের আগেই একটা কুশন রাখতে হয়।

সচরাচর সরকারি ব্যাংকগুলোতে খেলাপি ঋণ বেশি থাকলেও সাম্প্রতিক সময়ে বেসরকারি ব্যাংকগুলোতে পাল্লা দিয়ে খেলাপি ঋণ বাড়ছে বলে মন্তব্য করেন সিপিডির নির্বাহী পরিচালক। এর ফলে ব্যাংকে প্রভিশনিং ঘাটতির পাশাপাশি তারল্যের সংকট ঘনীভূত হচ্ছে বলেও তিনি মন্তব্য করেন।

তিনি বলেন, গত বছরের অক্টোবর-ডিসেম্বরের সময় ৯৮৯৪১ কোটি টাকা প্রয়োজনের বিপরীতে ব্যাংকগুলোর প্রভিশনিং ছিল ৭৯৬৭৯ কোটি টাকা। এ হিসেবে ব্যাংকের প্রভিশনিং ঘাটতি ছিল ১৯. ৫ শতাংশ। এ সময় ১৯২৬১ কোটি টাকা মোট প্রভিশনিং ঘাটতির মধ্যে সরকারি ব্যাংকগুলোর অংশ প্রায় সমান ছিল।

তিনি আরও বলেন, গত ফেব্রুয়ারিতে ব্যাংকিংখাতে বাড়তি তারল্য ১৬২০০০ কোটি টাকায় নেমে আসে, যা ২০২১ সালের জুনে ছিল ২৩২০০০ কোটি টাকা। এ সময় ব্যাংকের মোট তারল্যের বিপরীতে উদ্বৃত্ত তারল্যের হার  ৫২ শতাংশ থেকে কমে ৩৭ শতাংশে দাঁড়িয়েছে।

ব্যাংক ব্যবস্থায় সুদের হার বাড়লেও আমানতের সুদের হার মূল্যস্ফীতি বিবেচনায় অনেক নিচে রয়েছে বলে জানিয়েছেন ড. ফাহমিদা।

তিনি বলেন, সুদের গড় হার আর মূল্যস্ফীতির হার পর্যালোচনায় দেখা গেছে, আমানতের প্রকৃত সুদ হার ২০২০ সালের ০.০৩ শতাংশ থেকে কমে -৪.৭ শতাংশে নেমে এসেছে।

ব্যাংক ব্যবস্থায় তথ্য উপাত্তের বড় ঘাটতি রয়েছে মন্তব্য করে ফাহমিদা বলেন, ব্যাংকগুলো নিজেদের পারফর্মেন্সের তথ্য ওয়বসাইটে দেয়ার কথা থাকলেও ব্যাসেল-৩ সম্পর্কিত অনেক তথ্য প্রকাশ করা হচ্ছে না। আবার যে সব তথ্য প্রকাশ করা হচ্ছে, তার মান নিয়েও সংশয় রয়েছে বলে তিনি মনে করেন।

বাংলাদেশ ব্যাংকে সাংবাদিকদের প্রবেশাধিকার রুদ্ধ করার সমালোচনা করে এই অর্থনীতিবিদ আরও বলেন, কেন্দ্রীয় ব্যাংকের কাছে যে তথ্য আসছে সেগুলোর বড় অংশই সাধারণ মানুষের কাছে আসছে না। সেটার দরজাও বন্ধ হয়ে যাচ্ছে।

তিনি বলেন, তথ্যের অবাধ প্রবাহের জন্য আমরা মিডিয়ার ওপর নির্ভর করতাম, সেটাও বন্ধ হয়ে যাচ্ছে। সমস্ত তথ্য হাতের মুঠোয়, কম্পিউটারের একটা বাটনে থাকা উচিত। সেটা হলে সাংবাদিকদের তথ্যের জন্য কোথাও ঘুরতে হবে না।

সাম্প্রতিক সময়ে বিভিন্ন ব্যাংকের একীভূত করার উদ্যোগ নিয়েও বিস্তারিত বক্তব্য রাখেন ড. ফাহমিদা। স্ট্র্যাটেজিক প্ল্যান এবং পরিষ্কার রোডম্যাপ ছাড়াই সাময়িক উদ্যোগ হিসেবে জোর করে মার্জার চাপিয়ে দেয়া হচ্ছে বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

অনেক দেশেই ব্যাংকের অবস্থা খারাপ হলে অন্য ব্যাংককে তা কেনার প্রস্তাব দেয়া হয়। কোথাও জোর করে মার্জার চাপিয়ে দেয়া হয় না।

তিনি বলেন, দুটো ব্যাংক যোগ করে দিলেই হবে না। যারা চাকরি করছেন তাদের জব ইন্টিগ্রেশন, জব কালচার, প্রফেশনাল কালচার, টেকনোলজি ইন্টিগ্রেশন, তথ্যের নিরাপত্তার বিষয়টিও ভাবতে হবে।

অনুষ্ঠানে জাতীয় সংসদে বিরোধী দলীয় নেতা ব্যারিস্টার আনিসুল ইসলাম মাহমুদ, সাবেক পরিকল্পনা মন্ত্রী এমএ মান্নান, অর্থনীতিবিদ ড. সালেহউদ্দিন আহমেদ, আহসান এইচ মনসুর, সাবেক ব্যাংকার নূরুল আমিন, বিজিএমইএর সহসভাপতি আরশাদ জামাল দিপু ও সাংবাদিক সৈয়দ ইশতিয়াক রেজাসহ অনেকেই বক্তব্য রাখেন।

  সালতামামি

;

‘স্বাধীনতা সুবর্ণ জয়ন্তী পুরস্কার’ পেল আইবিসিএমএল



নিউজ ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

ইসলামী ব্যাংক ক্যাপিটাল ম্যানেজমেন্ট লিমিটেড (আইবিসিএমএল) দেশের পুঁজিবাজারে অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ মার্চেন্ট ব্যাংকার ক্যাটাগরিতে বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড একচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি) প্রদত্ত ‘‘ স্বাধীনতা সুবর্ণ জয়ন্তী পুরস্কার-২০২৩’’ লাভ করেছে।

বুধবার (২২ মে) রাজধানীর প্যান প্যাসিফিক সোনারগাঁও হোটেলে বিএসইসি আয়োজিত এ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি জাতীয় সংসদের স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী’র কাছ থেকে আইবিসিএমএলের চিফ কো-অর্ডিনেটর ও ইসলামী ব্যাংকের অ্যাডিশনাল ম্যানেজিং ডাইরেক্টর জে কিউ এম হাবিবুল্লাহ, এফসিএস এ পুরস্কার গ্রহণ করেন।

বিএসইসির চেয়ারম্যান অধ্যাপক শিবলী রুবাইয়াত-উল-ইসলামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেন অর্থ প্রতিমন্ত্রী ওয়াসিকা আয়শা খান।

এসময় আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের সচিব মোঃ আবদুর রহমান খান, বিএসইসির কমিশনার ড. শেখ শামসুদ্দিন আহমেদ এবং ড. রুমানা ইসলামসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের ঊর্ধ্বতন নির্বাহী ও কর্মকর্তাগণ উপস্থিত ছিলেন।

  সালতামামি

;

তিতাসের ১৪ নম্বর কূপ থেকে পরীক্ষামূলক গ্যাস উত্তোলন শুরু



ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ব্রাহ্মণবাড়িয়া
তিতাসের ১৪ নম্বর কূপ থেকে পরীক্ষামূলক গ্যাস উত্তোলন শুরু

তিতাসের ১৪ নম্বর কূপ থেকে পরীক্ষামূলক গ্যাস উত্তোলন শুরু

  • Font increase
  • Font Decrease

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার তিতাস গ্যাস ফিল্ডের ১৪ নম্বর কূপ দীর্ঘদিন ধরে বন্ধ থাকার পর ওয়ার্কওভার কাজ শেষে পরীক্ষামূলকভাবে গ্যাস উত্তোলন শুরু হয়েছে। খুব শীঘ্রই কূপটি থেকে গ্যাস উৎপাদনে যাওয়া যাবে। এবং তা জাতীয় গ্রিডে যোগ হবে।

মঙ্গলবার (২১ মে) রাতে জেলার সরাইল বিশ্বরোড এলাকায় কূপ থেকে গ্যাস উত্তোলন শুরু হয় বলে জানিয়েছেন কূপ সংশ্লিষ্টরা।

বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম এক্সপ্লোরেশন অ্যান্ড প্রোডাকশন কোম্পানি লিমিটেড (বাপেক্স) কূপটির ওয়ার্কওভার কাজ সম্পন্ন করেছে। এখান থেকে প্রতিদিন ১৩-১৫ মিলিয়ন ঘনফুট গ্যাস জাতীয় গ্রিডে যুক্ত হবে বলে জানিয়েছে বাংলাদেশ গ্যাস ফিল্ডস কোম্পানি লিমিটেড (বিজিএফসিএল) কর্তৃপক্ষ।

কূপ সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, দৈনিক ২৯ দশমিক ৫ মিলিয়ন ঘনফুট গ্যাস উৎপাদন ক্ষমতা সম্পন্ন তিতাস গ্যাস ফিল্ডের ১৪ নম্বর কূপটি সরাইল উপজেলার বিশ্বরোড এলাকায় ২০২০ সালে খনন করা হয়। তবে গ্যাসের সঙ্গে অতিমাত্রায় পানি ওঠায় ২০২১ সালের পহেলা নভেম্বর থেকে কূপটি বন্ধ ঘোষণা করে গ্যাস ফিল্ড কর্তৃপক্ষ। চলতি বছর বিজিএফসিএল পরিচালিত তিতাস, হবিগঞ্জ, বাখরাবাদ ও মেঘনা গ্যাস ফিল্ডের বন্ধ থাকা ৭টি কূপের ওয়ার্কওভারে ৫২৩ কোটি টাকা ব্যয়ে একটি প্রকল্প হাতে নেয় কর্তৃপক্ষ। এর মধ্যে ৪টি কূপের ওয়ার্কওভার কাজ করবে বাপেক্স। বাকি ৩টির কাজ দেওয়া হচ্ছে বিদেশি প্রতিষ্ঠানকে। গত ১৯ মার্চ তিতাস গ্যাস ফিল্ডের ১৪ নম্বর কূপের ওয়ার্কওভার কাজ শুরু করে বাপেক্স। যা চলতি সপ্তাহের প্রথম দিকে শেষ হয়। এরপর গতকাল থেকে পরীক্ষামূলকভাবে গ্যাস উত্তোলন শুরু হয় কূপ থেকে। প্রতিদিন এই কূপ থেকে ১৩-১৫ মিলিয়ন ঘনফুট গ্যাস জাতীয় গ্রিডে যুক্ত হওয়ার আশা সংশ্লিষ্টদের।

এ বিষয়ে গ্যাস কূপ ওয়ার্কওভার প্রকল্পের পরিচালক মোহাম্মদ ইসমাঈল মোল্লা সাংবাদিকদের বলেন, পরীক্ষামূলকভাবে ১৪ নম্বর কূপটি থেকে গ্যাস উত্তোলন করা হয়েছে। তবে পুরোদমে গ্যাস উত্তোলন শুরু হয়নি। আশা করা হচ্ছে আগামী দুই থেকে তিনদিনের মধ্যে কূপটি থেকে গ্যাস উৎপাদনে যাওয়া যাবে এবং উত্তোলিত গ্যাস জাতীয় গ্রিডে যোগ করা যাবে।

  সালতামামি

;

ওয়ালটন ফ্রিজ কিনে মিলিয়নিয়ার হলেন চট্টগ্রামের আলম



নিউজ ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
আবু আলমের হাতে ১০ লাখ টাকার চেক তুলে দেন জনপ্রিয় চিত্রনায়ক আমিন খান ও চিত্রনায়িকা অপু বিশ্বাস

আবু আলমের হাতে ১০ লাখ টাকার চেক তুলে দেন জনপ্রিয় চিত্রনায়ক আমিন খান ও চিত্রনায়িকা অপু বিশ্বাস

  • Font increase
  • Font Decrease

ওয়ালটন পণ্য কিনে মিলিয়নিয়ার হওয়ার কাতারে এবার যুক্ত হলেন বন্দর নগরী চট্টগ্রামের ব্যবসায়ী আবু আলম। ঈদ উপলক্ষে দেশব্যাপী চলমান ডিজিটাল ক্যাম্পেইন সিজন-২০ এর আওতায় দেশের সুপারব্র্যান্ড ওয়ালটনের ফ্রিজ কিনে নগদ ১০ লাখ টাকা পেয়েছেন তিনি। হয়েছেন ওয়ালটন ডিজিটাল ক্যাম্পেইনের ৩৬তম মিলিয়নিয়ার।

মঙ্গলবার (২১ মে) বন্দর নগরীর আগ্রাবাদে ওয়ালটনের ডিস্ট্রিবিউটর শোরুম ‘কেএসটিএল এন্টারপ্রাইজ’ এ আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে আবু আলমের হাতে ১০ লাখ টাকার চেক তুলে দেন জনপ্রিয় চিত্রনায়ক ও ওয়ালটন হাই-টেক ইন্ডাস্ট্রিজের সিনিয়র এক্সিকিউটিভ ডিরেক্টর আমিন খান এবং চিত্রনায়িকা অপু বিশ্বাস।

এ সময় অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন ওয়ালটন ডিস্ট্রিবিউটর নেটওয়ার্কের হেড অব সেলস ফিরোজ আলম, ওয়ালটন ফ্রিজের চিফ বিজনেস অফিসার তাহসিনুল হক, ওয়ালটনের সিনিয়র এক্সিকিউটিভ ডিরেক্টর শাহজালাল হোসেন লিমন, ডিস্ট্রিবিউটর নেটওয়ার্কের ডিভিশনাল সেলস ম্যানেজার আব্দুল বারী, রেজিওনাল সেলস ম্যানেজার নেসার উদ্দীন, কেএসটিএল এন্টারপ্রাইজের সত্ত¡াধিকারী আব্দুল কাদের খান।

আসন্ন ঈদ উৎসবকে ঘিরে ক্রেতাদের ডিজিটাল ক্যাম্পেইন সিজন-২০ এর আওতায় ‘ননস্টপ মিলিয়নিয়ার’ হওয়ার সুবিধা দিচ্ছে ওয়ালটন। ক্যাম্পেইন চলাকালীন দেশের যেকোনো ওয়ালটন প্লাজা, পরিবেশক শোরুম ও অনলাইন সেলস প্ল্যাটফর্ম ‘ই-প্লাজা’ থেকে ফ্রিজ, এসি, টিভি, ওয়াশিং মেশিন এবং ফ্যান কিনে মিলিয়নিয়ার হওয়ার সুযোগ পাচ্ছেন ক্রেতারা।

এছাড়াও পাচ্ছেন নগদ এক লাখ টাকা পাওয়ার সুযোগ। রয়েছে কোটি কোটি টাকার নিশ্চিত উপহার।

এই ক্যাম্পেইনের আওতায় আবু আলম গত ১৩ মে কেএসটিএল এন্টারপ্রাইজ থেকে ৪৭ হাজার টাকায় ওয়ালটনের ৩৬৫ লিটারের একটি ফ্রিজ কেনেন।ফ্রিজটি কেনার পর তার নাম, মোবাইল নম্বর এবং ক্রয়কৃত ফ্রিজের মডেল নম্বর ডিজিটাল রেজিস্ট্রেশন করা হয়। এর কিছুক্ষণ পর তার মোবাইলে ওয়ালটনের কাছ থেকে ১০ লাখ টাকা ক্যাশব্যাক পাওয়ার একটি ম্যাসেজ যায়।

চেক হস্তান্তর অনুষ্ঠানে চট্টগ্রামের আয়রন ও স্টিলের ব্যবসায়ী আবু আলম বলেন, ওয়ালটন দেশীয় ব্র্যান্ড, তাই সব সময় ওয়ালটনের পণ্য ব্যবহার করি। এক আত্মীয়কে উপহার দেওয়ার জন্য ওয়ালটনের ফ্রিজটি কিনেছি। ফ্রিজটি কিনে ১০ লাখ টাকা পেয়ে আমি বিষ্মিত। সাধারণ ক্রেতাদের এ রকম বিশেষ সুবিধা দেয়ায় ওয়ালটন কর্তৃপক্ষকে ধন্যবাদ।

অনুষ্ঠানে সবাইকে দেশীয় ব্র্যান্ডের পণ্য কেনার আহবান জানিয়ে চিত্রনায়ক আমিন খান বলেন, ওয়ালটন ডিজিটাল ক্যাম্পেইনের আওতায় সারা দেশে এখন পর্যন্ত মিলিয়নিয়ার হয়েছেন ৩৬জন ক্রেতা। বহু ক্রেতা হয়েছেন লাখপতি। ওয়ালটনের সেই টাকায় তাদের ভাগ্যের চাকা ঘুরেছে। সচ্ছল হয়েছে অনেকের সংসার। ব্যবসার পাশাপাশি আর্থ-সামাজিক কর্মকাণ্ডের মধ্য দিয়ে এগিয়ে চলেছে দেশীয় ব্র্যান্ড ওয়ালটন। অর্জন করে নিয়েছে দেশের সিংহভাগ ক্রেতার আস্থা।

অপু বিশ্বাস বলেন, ওয়ালটন আমাদের দেশের জন্য একটি গর্ব। দেশীয় ইলেকট্রনিক্স শিল্পের বিকাশ, কর্মসংস্থান সৃষ্টি, দক্ষ জনবল তৈরিসহ দেশের অর্থনৈতিক অগ্রগতিতে বিস্ময়করভাবে অবদান রেখে চলছে ওয়ালটন। দেশের সীমানা পেরিয়ে বিশ্বের বহু দেশে পণ্য রফতানি করছে ওয়ালটন। দেশের জন্য সুনাম বয়ে আনছে। তাই আমাদেরকে দেশি ব্র্যান্ডের পণ্য কিনতে হবে। এতে দেশের টাকা দেশে থাকবে। উপকৃত হবে দেশ।

  সালতামামি

;