বাংলাদেশ এগিয়েছে ও পিছিয়েছে যেসব খাতে

  সালতামামি


দেবদুলাল মুন্না
প্রতীকী ছবি

প্রতীকী ছবি

  • Font increase
  • Font Decrease

এ লেখাটি তৈরি করতে বেশ কিছু রিপোর্টের সাহায্য নিতে হয়েছে। সব রিপোর্ট গুলো যে নিরপেক্ষ সমীক্ষা চালিয়েছে এমনটি ভাবার কারণ নেই। প্রতিটি প্রতিষ্ঠানেরই কিছু  ‘হিডেন উদ্দেশ্য’ থাকে।

দেশ স্বাধীনের পর ৫০ বছরে এসেও বাংলাদেশ উদার গণতান্ত্রিক সূচকে ভাল অবস্থানে নেই। ১৭৯টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান ১৫৪তম। এমনকি নির্বাচনী ব্যবস্থাও নিরপেক্ষ নয়। ওয়াশিংটনভিত্তিক সংস্থা ওয়ার্ল্ড জাস্টিস প্রজেক্টের ‘রুল অব ল ইনডেক্স’ এর রিপোর্টে এ তথ্য জানানো হয়েছে। আরও জানানো হয়, সরকারি ক্ষমতার অপব্যবহার হচ্ছে সবচেয়ে বেশি। দক্ষিণ এশিয়ার মধ্যে শীর্ষে রয়েছে বাংলাদেশ। ২০২০-২১ সালের পরিস্থিতির ওপর ভিত্তি করে এ রিপোর্ট দিয়েছে সংস্থাটি।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে বাংলাদেশের সম্প্রতি কূটনৈতিক সম্পর্ক ভালো যাচ্ছে না। তবে যুক্তরাষ্ট্র নিয়ন্ত্রিত বেশ কিছু তথাকথিত নিরপেক্ষ সংস্থার হিসেবমতে বাংলাদেশের সাফল্যও অনেক বেশি। উন্নয়ন হচ্ছে। যেমন বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রতিবেদনে বলা হয়েছে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে করোনাভাইরাস মোকাবিলায় বাংলাদেশ সফল।  

এছাড়া অন্তত ১৩টি খাতে বিশ্বে গৌরবোজ্জ্বল অবস্থান তৈরি করেছে। এসব খাতে বাংলাদেশ বিশ্বে শীর্ষ ১০ দেশের তালিকায় রয়েছে। কিছু ক্ষেত্রে প্রাকৃতিক সুবিধা পেয়েছে বাংলাদেশ। এখন কিছু কিছু ক্ষেত্রে চীন ও ভারতের মতো বড় দেশের পরেই উচ্চারিত হচ্ছে বাংলাদেশের নাম। কয়েকটি ক্ষেত্রে তো চীন-ভারতকে পেছনে ফেলে প্রথম অবস্থানে পৌঁছে গেছে বাংলাদেশ। জাতিসংঘের খাদ্য ও কৃষি সংস্থা (এফএও), বাংলাদেশ ব্যাংক, কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর, রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরো (ইপিবি) এবং তথ্য ও যোগাযোগপ্রযুক্তি (আইসিটি) বিভাগ থেকে পাওয়া সর্বশেষ তথ্য–উপাত্ত বিশ্লেষণ করে ১৩টি খাতে দেশে সাফল্যের ধারা অব্যাহত আছে।

বিশ্বে মোট ইলিশের ৮৬ শতাংশই বাংলাদেশে উৎপাদিত হচ্ছে,। চারবছর আগে হতো  তবে  ৬৫ শতাংশ। গত দুইবছরে বেড়েছে ১৬ শতাংশ। ইলিশ উৎপাদনে ভারত দ্বিতীয়, মিয়ানমার তৃতীয়। এ ছাড়া ইরান, ইরাক, কুয়েত, পাকিস্তানেও সামান্য ইলিশ উৎপাদন হয়। পোশাক রপ্তানিতে বাংলাদেশ এখন বিশ্বে দ্বিতীয়। গত ২০১৯–২০ অর্থবছরে বাংলাদেশ ২ হাজার ৭৫০ কোটি মার্কিন ডলার মূল্যের পোশাক রপ্তানি করেছে, যা বিশ্বের মোট পোশাক রপ্তানির ৬ দশমিক ৮ শতাংশ। পোশাক রপ্তানিতে প্রথম হচ্ছে চীন। একসময় বাংলাদেশের চেয়ে ভিয়েতনাম এগিয়ে ছিল। রেমিট্যান্স আহরণে বিশ্বে বাংলাদেশের অবস্থান অষ্টম। গত অর্থবছরে দেশে প্রবাসী আয় বা রেমিট্যান্স এসেছে প্রায় ২ হাজার কোটি ডলার। একই অর্থবছরে ভারত ৭ হাজার ৮০০ কোটি ডলার নিয়ে প্রথম এবং ৬ হাজার ৭০০ কোটি ডলার পেয়ে চীন দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে। সবজি উৎপাদনে তৃতীয় ও ধান উৎপাদনে চার নাম্বার অবস্থানে রয়েছে দেশটি। যুক্তরাষ্ট্রের কৃষিবিভাগ কৃষিখাতের ইতিবাচক দিকগুলো তুলে ধরেছে।

আম, কাঠাল, পেয়ারা রুপ্তানি করেও আয় হচ্ছে ভাল। মিঠাপানির মাছ উৎপাদনে বাংলাদেশ এখন বিশ্বে তৃতীয়। নদ-নদীর খারাপ অবস্থা সত্ত্বেও এফএওর মতে,আগামী বছর বিশ্বের যে চারটি দেশ মাছ চাষে বিপুল সাফল্য অর্জন করবে, তার মধ্যে প্রথম বাংলাদেশ। এরপর থাইল্যান্ড, ভারত ও চীন। গত ১০ বছরে মাছের উৎপাদন ৫৩ শতাংশ বেড়েছে। আর মাছ রপ্তানি বেড়েছে ২০ শতাংশের বেশি। আউটসোর্সিং এ ভাল করছে শিক্ষিত তরুণ তরুণীরা। বাংলাদেশের তথ্যপ্রযুক্তি (আইটি) খাতে ফ্রিল্যান্সারের সংখ্যা ছয় লাখ, যা শতকরা হারে বিশ্বের প্রায় ২৭ শতাংশ। এ মন্ত্রণালয় দাবি করছে,  বাংলাদেশ এ খাতে বিশ্বে দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে। ফ্রিল্যান্সারের সংখ্যায় প্রথম হচ্ছে ভারত।

যদিও আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠান ওকলার ‘স্পিডটেস্ট গ্লোবাল ইনডেক্স’র মতে, ইন্টারনেটের গতির ক্ষেত্রে বিশ্বের ১৩৭টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান ১৩৫ নম্বরে। পেছনে রয়েছে আফগানিস্তান এবং ভেনেজুয়েলা। বিশ্বের প্রধান সাইবার নিরাপত্তা প্রতিষ্ঠান সার্ফশার্ক প্রকাশিত ‘ডিজিটাল কোয়ালিটি অব লাইফ ইনডেক্স ২০২১’ ডিজিটাল জীবনযাত্রার সূচকে ১১০ দেশের মধ্যে বাংলাদেশ ১০৩তম।

বাংলাদেশ এখন উন্নয়নশীল প্রথম পাঁচটি দেশের তালিকায় রয়েছে। জলবায়ুর ঘাত-প্রতিঘাত মোকাবিলা করে কাঙ্ক্ষিত উন্নয়ন অর্জনের লক্ষ্যে ‘বাংলাদেশ বদ্বীপ পরিকল্পনা-২১০০’ নামের শতবর্ষের একটি পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়েছে। ভারতের সঙ্গে ৬৮ বছরের অমীমাংসিত স্থলসীমান্ত চুক্তি বাস্তবায়নের ফলে ছিটমহলের মানুষ অভিশপ্ত জীবনে মুক্তির আস্বাদ পেয়েছে। ১১১টি ছিটমহলের ১৭ হাজার ৮৫১ একর জায়গা বাংলাদেশের সীমানায় যুক্ত হয়েছে। সমুদ্রসীমায়ও প্রায় ১ লাখ ৩১ হাজার ৯৮ বর্গকিলোমিটার সমুদ্র এলাকা যুক্ত হয়েছে।

বাংলাদেশ জাতীয় তথ্য বাতায়নের প্রতিবেদন মতে, ১৯৮৮ সালে বাংলাদেশ জাতিসংঘ শান্তি মিশনে যোগদানের পর এ পর্যন্ত বিশ্বের ৩৯টি দেশের ৬৪ শান্তি মিশনে খ্যাতি ও সফলতার সাথে তাদের কার্যক্রম পরিচালনা করেছে। এ যাবৎকালে জাতিসংঘ শান্তি মিশনে বিভিন্ন কার্যক্রমে অংশগ্রহণকারী ১১৫টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান এগিয়ে। কিন্তু ঠিক কতো নাম্বারে বলা হয়নি।

বিদ্যুৎখাতে বাংলাদেশের উল্লেখযোগ্য অর্জনের মধ্যে রয়েছে জাতীয় গ্রিডে অতিরিক্ত ৬ হাজার ৩২৩ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ সংযোজন, যার ফলে বিদ্যুতের সুবিধাভোগীর সংখ্যা ৪৭ শতাংশ থেকে ৬২ শতাংশে উন্নীত হয়েছে। একই সাথে মাথাপিছু বিদ্যুৎ উৎপাদনের পরিমাণ ২২০ কিলোওয়াট ঘণ্টা থেকে বেড়ে ৩৪৮ কিলোওয়াট ঘণ্টায় দাঁড়িয়েছে। নতুন বিদ্যুৎ সংযোগ প্রদান করা হয়েছে ৩৫ লক্ষ গ্রাহককে।নির্মাণ করা হয়েছে নতুন ৬৫টি বিদ্যুৎ কেন্দ্র।

তবে বেশ কিছু ক্ষেত্রে বদনামও কুড়িয়েছে বাংলাদেশ। বিশ্বের শীর্ষ বিশ্ববিদ্যালয়ের র্যাংকিংয়ে বাংলাদেশের বিশ্ববিদ্যালয় নেই, হচ্ছে ধারাবাহিক অবনতি।এসব বিশ্ববিদ্যালয়ে হচ্ছে না কোন গবেষণা বলে দাবি করেছে বিশ্ব শিক্ষা উন্নয়ন সংস্থা ( ডব্লিউএডেও ) । যুক্তরাজ্যভিত্তিক সংস্থা কোয়াককোয়ারেলি সায়মন্ডসের (কিউএস) সর্বশেষ হিসাবেও তাই বলা হয়েছে। বিশ্বের ১ হাজার ৩টি বিশ্ববিদ্যালয়ের তালিকায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অবস্থান ৮০১ থেকে ১০০০-এর মধ্যে। অথচ ২০১২ সালেও ৬০১তম ছিল ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়। ১৯৯৫ সালে ছিল ৪০৭।

করোনার কারণে বন্ধ ছিল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। ফলে, ক্লাস-পরীক্ষা হয়নি। তবে, সংক্রমণ কমে আসায় বছরের শেষদিকে সীমিত পরিসরে হয়েছে অনলাইনে ক্লাস-পরীক্ষা। ২০২১ সালের ৩০ জানুয়ারি প্রকাশ করা হয় ২০২০ সালের এইচএসসি অটোপাসের ফল। করোনা মহামারির কারণে হয়নি এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষা। জেএসসিতে প্রাপ্ত নম্বরের ২৫ শতাংশ ও এসএসসিতে প্রাপ্ত নম্বরের ৭৫ শতাংশের যোগফলের ভিত্তিতে এইচএসসি‘র অটোপাসের ফল প্রকাশ করা হয়।সম্প্রতি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো খুলেছে ও পরীক্ষা হচ্ছে। পাঠদানও চলছে।২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষে দেশের ২০টি সাধারণ এবং বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রথমবারের মতো গুচ্ছ পদ্ধতিতে স্নাতক প্রথম বর্ষের ভর্তি পরীক্ষা হয়েছে।

বিশ্বে পাসপোর্টের মান নির্ধারণকারী সূচক ‘হেনলি পাসপোর্ট ইনডেক্স-২০২১’ সূচকের মোট ১১৬টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশ ১০৮তম স্থানে রয়েছে। ২০০৭ সালের ৬৮তম অবস্থান থেকে ক্রমশ অবনতি ঘটছে এ বিষয়েও। বিশ্বব্যাংকের মতে, ১৪০টি মেগাসিটির মধ্যে ঢাকার অবস্থান ১৩৮তম। ট্র্যাফিক জ্যামের শিকার ৯১ শতাংশ মানুষ।আর রাজধানীর ৭১ শতাংশ মানুষ ডিপ্রেসনে ভোগেন।

ইউএনডিপির মানব উন্নয়ন সূচকে ১৮৫টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান ১৩৩তম। এক্ষেত্রে আরেকটি বিষয় উল্লেখযোগ্য সেটি হলো, আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থার (আইএলও) প্রকাশিত গ্লোবাল ওয়েজ রিপোর্ট ২০২০-২১-এ জানানো হয়েছে, এশিয়া–প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলে ন্যূনতম মজুরিতে সবচেয়ে পিছিয়ে আছে বাংলাদেশ।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বলেছে,নারী নির্যাতন বেড়েছে। স্ত্রী নির্যাতনের সূচকে  বিশ্বে চতুর্থ বাংলাদেশ। বাল্যবিয়ে তেও চতুর্থ। যৌন সহিংসতায় ঢাকা বিশ্বের মধ্যে চতুর্থ অবস্থানে এবং  নারীর প্রতি আরও সহিংসতা আরও বাড়বে বলে মনে করে সংস্থাটি।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা আরও বলছে, চিকিৎসাব্যয় মেটাতে মানুষ আরও গরিব হচ্ছে। প্রতিবছর ১ কোটি ১৪ লাখের মতো মানুষ দারিদ্র্যসীমার নিচে নেমে যাচ্ছে। বাংলাদেশ সরকার জিডিপির মাত্র ৩ দশমিক ৪ শতাংশ খরচ করে স্বাস্থ্য খাতে, যা বৈশ্বিক তলানিতে। এছাড়া স্বাস্থ্যখাতে দুর্নীতির অভিযোগ রয়েছে।

সাউথ এশিয়ান নেটওয়ার্ক অন ইকোনমিক মডেলিং (সানেম)-এর মতে, দুর্নীতিবাজদের ঘুষের পাতা ফাঁদ সরকারঘোষিত প্রণোদনা প্যাকেজ সঠিকভাবে বাস্তবায়ন হয়নি। দুর্নীতিবাজদের কারণে দেশের ৭৯ শতাংশ ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানই ঘোষিত ওই প্রণোদনা প্যাকেজের অর্থ পায়নি।

আইকিউএয়ারের বায়ুমান সূচক অনুযায়ী বিশ্বের শীর্ষ দূষিত ১০০ শহরের মধ্যে ঢাকা শহরের অবস্থান তিন নম্বরে। এফএও’র ‘স্টেট অব দ্য ওয়ার্ল্ডস ফরেস্ট-২০১৬’ প্রতিবেদনে মতে, বনভুমি উজাড় হচ্ছে বেশি।

করাচির গবেষণা সংস্থা ইন্সটিটিউট অব হিস্টোরিকাল এবং সোশ্যাল রিসার্চের পরিচালক ড. সৈয়দ জাফর আহমেদ বিবিসির সঙ্গে এক সাক্ষাৎকারে বলেন, ১৯৭১ নিয়ে পাকিস্তানে সরকারি ব্যাখ্যা গত ৫০ বছরে তেমন বদলায়নি।কিন্তু বাস্তবতা হচ্ছে বাংলাদেশ অনেক খাতে পাকিস্তানের চেয়ে এগিয়ে যাচ্ছে।

পাকিস্তানের অবসরপ্রাপ্ত সেনা কর্মকর্তা এবং পাকিস্তান সেনা গোয়েন্দা সংস্থার (আইএসআই) সাবেক প্রধান লে. জে. (অবসরপ্রাপ্ত) আসাদ দুররানি বিবিসিকে বলেন, গত ৫০ বছরে সরকারি প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে কোনো স্বীকারোক্তি না এলেও পাকিস্তানের মানুষ এখন অনেকটাই বুঝতে পারছে কোথায় গলদ হয়েছিল।মানুষের মনে এখন আর কোনো সন্দেহ নেই যে ভুল হয়েছিল। সেনাবাহিনীর ভুল হয়েছিল। নির্বাচনের পর (সত্তরের নির্বাচন) শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্ব মেনে না নিয়ে জুলফিকার আলী ভুট্টো ভুল করেছিলেন।

লেখক পরিচিতি: কথাসাহিত্যিক সিনিয়র সাংবাদিক

   

ইতিহাসের পাতায় আজ ২২ ফেব্রুয়ারি



ফিচার ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
হ্যাম্পশায়ারের অ্যাল্ডারশট শহরে বোমা হামলা হয়েছিল ২২ ফেব্রুয়ারি

হ্যাম্পশায়ারের অ্যাল্ডারশট শহরে বোমা হামলা হয়েছিল ২২ ফেব্রুয়ারি

  • Font increase
  • Font Decrease

আজকের এই সময়ে পৌঁছাতে মানুষ হাজার হাজার বছর পার করেছে। দীর্ঘ এই সময়ে সৃষ্টি হওয়া মানব ইতিহাস অনেক দীর্ঘ। সূর্য প্রদক্ষিণ করার সাথে সাথেই বছর ঘুরে তারিখের পুনরাবৃত্তি ঘটে। ইতিহাসের পাতা ঘাটলে দেখা যায় এইসব দিনে ঘটেছে অনেক ঐতিহাসিক ঘটনা। 

ক্যালেন্ডারের আবর্তনে এসেছে নতুন দিন। তার সাথে ইতিহাসের গল্পগুলোও পুনরাবৃত্তি ঘটিয়ে স্মরণ করছে পুরানো নানা কথা। আজ ২২ ফেব্রুয়ারি ২০২৪। আজকের তারিখে যেসব ঘটনা ঘটেছিল, তা জানতে ইতিহাসের পাতায় চোখ বুলিয়ে নেওয়া যাক!

হ্যাম্পশায়ারের অ্যাল্ডারশট শহরের বোমা হামলায় ৭ জনের মৃত্যু

আইআরএ ১৯৭২ সালে হ্যাম্পশায়ারের অ্যাল্ডারশট শহরে মার্কিন সেনাবাহিনীদের হত্যার উদ্দেশ্যে বোমা হামলা করা হয়। ঘটনাস্থলেই মারা যান ৫ জন রাঁধুনিসহ মোট ৭ জন। এছাড়াও দুর্ঘটনায় আহত হন ১৯ জন। বিস্ফোরণটি ঘটেছিলো শহরের কেন্দ্রবিন্দু থেকে প্রায় ১ মাইল দূরে। দুপুরের খাবারের জন্য তারা গাড়ি পার্ক করে অফিসার মেসে গেলে সেই গাড়িতেই বোমা বিস্ফোরণটি ঘটে।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট জর্জ বুশ

মার্কিন প্রেসিডেন্ট জর্জ বুশ ১৯৯১ সালে ইরাককে কুয়েতের মাটি ছাড়ার নির্দেশ দেয়। ১৯৯০ সালে শুরু হওয়া যুদ্ধ বন্ধ করতে এই নির্দেশ দেন বুশ। ইরাককে ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে যুদ্ধ স্থগিত এবং বন্দীদের মুক্ত করার আদেশ দেওয়া হয়। যদি তা না করা হয়, তাহলে পশ্চিমা দেশগুলোর মিত্র বাহিনী ইরাকের বিরুদ্ধে পদক্ষেপ নেওয়ার কথা জানায়। তাদের বিরুদ্ধে ভূমিযুদ্ধ শুরু করারও হুমকি দেয় বুশ।

প্রথম সফল ক্লোন ভেড়া ডলি

১৯৯৭ সালে সারা বিশ্বের মানুষ জানতে পারে সফল ক্লোন ভেড়া ডলির কথা। যদিও তার জন্ম ১৯৯৬ সালের ৫ জুলাই হয়েছিল। কিন্তু সম্পূর্ণ প্রাপ্তবয়স্ক কোষ থেকে জন্মানো সুস্থ এবং সফল ক্লোন হিসেবে ডলিকে প্রকাশ করা হয় ২২ ফেব্রুয়ারি।

ক্যালেন্ডারের প্রতিটি পাতাই কোন না কোন দিনের বিশেষ ঘটনা বা ইতিহাসের কথা বয়ে বেড়ায়। সময়ের সাথে সব কিছু পাল্টালেও বদলায় না ইতিহাসের গল্প।

  সালতামামি

;

বিলুপ্তপ্রায় প্রাণী নীলগিরি মার্টেন



ফিচার ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
নীলগিরি মার্টেন

নীলগিরি মার্টেন

  • Font increase
  • Font Decrease

গভীর অরণ্যে গাছের আড়াল থেকে শোনা যায়, পাখির কিচির-মিচির শব্দ। দেখা-অদেখার সে জগতে ঘুরে বেড়ায় বৈচিত্র‌্যময় হরেক রকমের প্রাণী! তাদের কিছু কিছু আমাদের পরিচিত; অনেক কিছুই আবার অপরিচিত। বনে বাস করা প্রাণীদের জীবনযাত্রা আমাদের খুব কাছ থেকে দেখা হয় না। কিন্তু, প্রকৃতির পরিবর্তনের প্রভাব পৃথিবীতে বাসকারী প্রাণীর ওপর পড়ে।

কেউ কেউ হয়ত কালের বিবর্তনে হারিয়ে যায়, পরিবেশ ও সময়ের সঙ্গে নিজেদের খাপ খাওয়াতে না পেরে। খাদ্যের অভাব, বাসস্থানের জায়গা কমে যাওয়া,  নগর উন্নয়ন, বিরূপ পরিবেশে অনেক প্রাণী বিলুপ্ত হয়ে যায়। কারণ যাই হোক, প্রকৃতির ভারসাম্য বজায় রাখতে প্রতিটি প্রজাতিই গুরুত্বপূর্ণ। কিন্তু দিন দিন বিলুপ্তপ্রায় প্রাণীর তালিকা ক্রমে বেড়েই চলেছে। 

তেমনি লম্বা লেজওয়ালা বিড়ালের মতো ছোট লোমশ একটি প্রাণী, নাম- নীলগিরি মার্টেন। দক্ষিণ ভারতে একসময় যাদের হরহামেশাই দেখা যেতো, ছোট ছোট পায়ে এক জায়গা থেকে অন্য জায়গায় দৌড়ে বেড়াতো। কিন্তু সময়ের সঙ্গে সঙ্গে তা বিলুপ্ত হতে চলেছে।

নীলগিরি মার্টেন

ভারতীয় বন্যপ্রাণী নিয়ে কাজ করা আইএএস (ইন্ডিয়ান অ্যাডমিনিস্ট্রেটিভ অফিসার) কর্মকরাত সুপ্রিয়া সাহু সম্প্রতি এই মজাদার প্রাণীর দুরন্তপনার একটি ভিডিও মাইক্রোব্লগিং সাইট এক্সে (সাবেক টুইটার) আপলোড করেছেন। সেখানে একটি ক্ষুদেবার্তায় কিছু কথাও লেখেন তিনি। তিনি লেখেন, অনেকেই হয়ত নীলগিরি মার্টেনের কথা শোনেননি। চকলেট রঙের পশমধারী এই প্রাণীটির গলার কাছের অংশ সর্ষে হলুদ রঙের। ছোট এই জীব এখন সংখ্যায় অত্যন্ত অল্প। তামিলনাড়ু সরকার পরিকল্পনা করেছে, বিলুপ্ত হওয়ার হাত থেকে এদের রক্ষা করার।

তিনি আরো বলেন, আগে কর্ণাটক, কেরালা, তামিলনাড়ুতে সহজেই এদের দেখা মিলতো। বর্তমানে বিলুপ্তপ্রায় হওয়ার কারণে ইন্টারন্যাশনাল ইউনিয়ন ফর কনভার্সেশন অব নেচারের (আইউসিএন) বিলুপ্তপ্রায় প্রাণীর তালিকায় আছে এই নীলগিরি মার্টেন। বিলুপ্তপ্রায় এরকম প্রাণীদের তালিকা তৈরি করছে সরকার। সে কারণে এসব প্রাণী সংরক্ষণে তহবিলও গঠন করা হয়েছে।

ভারতীয় আইপিএস অফিসার সুপ্রিয়া সাহুর প্রকাশ করা ভিডিও

ভিডিও দেখার পর অনেকেই মন্তব্য করেছেন। তাদের মতে, জীবজগতের এক অনন্য রত্ন- নীলগিরি মার্টেন। কেউ বলেছেন, বেশি দেরি হয়ে যাওয়ার আগেই আমাদের এক হয়ে এদের রক্ষা করতে হবে।      

তথ্যসূত্র: এনডিটিভি

  সালতামামি

;

বৈচিত্র্যে বর্ণময় বইমেলা



আশরাফুল ইসলাম, পরিকল্পনা সম্পাদক, বার্তা২৪.কম
ছবি: নূর এ আলম/বার্তা২৪.কম

ছবি: নূর এ আলম/বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

বাংলা একাডেমির অমর একুশে বইমেলা এখন বহু বৈচিত্র্যে এক বর্ণময় মিলনমেলায় পরিণত হয়েছে। বাংলা ভাষা-সাহিত্য ও সংস্কৃতির উৎকর্ষে এই বইমেলা আবাল-বৃদ্ধ-বণিতার মনে যে নতুন প্রাণের জোয়ার এনেছে, তা মেলা প্রাঙ্গণে পা দিলেই তা টের পাওয়া যায়।

এই মিলনমেলায় সমাজের বিভিন্ন মেরুর মানুষদের এমন এক সৌহার্দ্যের বাতাবরণে শামিল করেছে যে, এ মেলা শুধু প্রাণেরই সঞ্চার করেনি, সম্প্রীতির ঔদার্যই বহন করে এনেছে।

জাতীয় শহিদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে পাঠক, লেখক, দর্শকদের উপচেপড়া ভিড়ে বইমেলার প্রান্তর ঘুরে বৈচিত্র্যময় প্রাণোচ্ছ্বল কিছু দৃশ্য তুলে এনেছেন বার্তা২৪.কমের ফটো এডিটর ও জ্যেষ্ঠ আলোকিচিত্রী নূর-এ আলম। লেখা: পরিকল্পনা সম্পাদক আশরাফুল ইসলাম

ছবি: নূর এ আলম

পছন্দের নানা অনুষঙ্গে ভরপুর অমর একুশে বইমেলা প্রাঙ্গণ। এক শিশুর মুখ দেখে চিত্রপটে তাকে ফুটিয়ে তোলার চেষ্টা শিল্পীর। চারুকলার এমন অনেক নবীন শিক্ষার্থীই পুরো বইমেলা জুড়ে বাড়তি আনন্দের অনুষঙ্গ যোগ করেছে!

'আঙ্কেল, ওই বইটি দিন’ ব্যাকুলতা নিয়ে বলছে শিশুটি। স্কুলের একগাদা বইয়ের বোঝা বয়ে নিতে নিতে ক্লান্ত শিশুরা বইমেলায় এসে ফের আগ্রহী হচ্ছে বইয়ে। পাঠ্যবইয়ের বাইরে জ্ঞানের বিরাট সমুদ্রে তাদের এই পরিচয় জ্ঞানভিত্তিক এক প্রজন্ম গড়ে তুলতে ভূমিকা রাখে!

ধর্ম প্রচারে এসে ঢাকার অদূরে কালিগঞ্জের নাগরী র্গিজায় বসে বাংলা ভাষা ও সাহিত্যের প্রথম খণ্ডিত ব্যাকরণ রচনা করেন পাদ্রী মানুয়েল দ্য আস্‌সুম্পসাঁউ, যা প্রকাশিত হয় পর্তুগালের লিসবন থেকে। খ্রিস্টান মিশনারীর এই ভগনিগণের বইমেলায় পদচারণা ঐতিহ্যিক সেই পরম্পরাকেই মনে করিয়ে দিলো! 

শিশুদের এলোমেলা চুলের মাঝে ‘পুষ্পবন্ধনী’তে এক নয়নাভিরাম সৌন্দর্য উঁকি দিচ্ছে!

টিভি নাটকের জনপ্রিয় মুখ অশনা হাবিব ভাবনার লেখা ‘কাজের মেয়ে’ বইটি এসেছে এবারের বইমেলায়। পছন্দের অভিনেত্রীর অটোগ্রাফসহ বইটি পেতে মরিয়া অনুরাগীরা!

তিল ধারণের ঠাঁই নেই! তবু নেই সামান্য অভিযোগমাত্র! বইয়ের অনুরাগী পাঠকদের ঘা ঘেঁষে এই এগিয়ে যাওয়া পদযুগলগুলো যেন বাংলা ভাষা ও সাহিত্যের অমরত্বের বার্তাই বহন করে চলেছে!

ছবিঃ নূর এ আলম

অভিনেত্রী ফারজানা এবারের বইমেলায় হাজির হয়েছেন "জলছবি" নামের একটি উপন্যাস নিয়ে!

  সালতামামি

;

বাঙালি ছাড়াও বাংলা ভাষায় কথা বলে যারা



প্রমা কোয়েল, ফিচার ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
সিয়েরা লিওয়নের শিশুদের কণ্ঠে ‘আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙানো’

সিয়েরা লিওয়নের শিশুদের কণ্ঠে ‘আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙানো’

  • Font increase
  • Font Decrease

বাংলা ও বাঙালির ইতিহাসের সুবর্ণক্ষণ আজ। ২১ ফেব্রুয়ারি বাঙালির 'জাতীয় শহীদ দিবস 'আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস' হিসেবে স্বীকৃতি পেয়েছে বিশ্বে। একদিকে, যেমন এই দিন আমাদের জয়ের প্রতীক, অপরদিকে স্মরণ করিয়ে দেয়, ভাই হারানোর বেদনা! তবে স্বস্তি এই যে, বাঙালি সন্তানদের বুকের রক্ত বৃথা যায়নি। তাদের সম্মান আজ বিশ্বব্যাপী!

২১ ফেব্রুয়ারির ভাষা আন্দোলনের সঙ্গে সঙ্গে গড়ে উঠেছে বাংলার ইতিহাস। কথা বলার ভাষা যে, ব্যক্তিজীবন থেকে শুরু করে রাষ্ট্রীয় পর্যায়ে কতটা গুরুত্বপূর্ণ, তার মর্মার্থ অনুধাবন করে আজকের দিনে বিশ্বের সব মানুষ তাদের মাতৃভাষার প্রতি সম্মান প্রদর্শন করেন। দিন দিন বাংলা ভাষার প্রচার বেড়েই চলেছে। পশ্চিমা দেশগুলোতে অন্যান্য বিদেশি ভাষার সঙ্গে বাংলা নিয়েও পড়াশোনা করছেন শিক্ষার্থীরা।   

ছোটবেলায় মায়ের কাছে শেখা প্রথম বুলি হিসেবে মুখে ফুটে ওঠে মাতৃভাষা। প্রথম সেই স্মৃতির সঙ্গে জড়িত কত আবেগ, কত ভালোবাসা! আধো আধো ভাষায় প্রথম কথা বলার যে স্মৃতি, তা বড়ই আবেগের! মানুষ মনের ভাব প্রকাশ করে কথোপকথনের মাধ্যমে। বিভিন্ন দেশের মানুষ ভিন্ন ভিন্ন ভাষায় কথা বলেন। নিজের মায়ের থেকে আয়ত্ত করা ভাষার মতো স্বাচ্ছন্দ্য অন্য কোনো ভাষায় পাওয়া যায় না।

বাংলাদেশের বেশির ভাগ মানুষই বাংলা ভাষায় কথা বলেন। এছাড়া দেশে রয়েছে ৪৫টি নৃ-ক্ষুদ্র জাতিসত্তার মানুষ। তারা নিজেদের মাতৃভাষা ছাড়াও বাংলা ভাষায় কথা বলেন। এ ছাড়া বাংলাদেশ সংলগ্ন ভারতের অন্যান্য রাজ্যেও বাংলা বা একই গোত্রীয় ভাষায় কথা বলেন অনেকেই। শুধু তাই নয়, ত্রিপুরা, আসাম, আন্দামান-নিকোবর  দ্বীপপুঞ্জ, ঝাড়খণ্ড, বিহার, মেঘালয়, মিজোরাম, উড়িষ্যার মতো রাজ্যগুলোতেও অনেকেই বাংলা ভাষায় কথা বলেন।

 

যেমন, আসাম রাজ্যের দক্ষিণাংশেও বাংলায় কথা বলার প্রবণতা দেখা যায়। ভারতীয় কয়েকটি দ্বীপে, কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলের অধিকাংশ অধিবাসী বাংলা ভাষায় কথা বলে থাকেন। এর মধ্যে অন্যতম আন্দামান এবং নিকোবর দ্বীপপুঞ্জ।

উড়য়া এবং অসমিয়া ভাষা সরাসরি বাংলা ভাষা না হলেও এসব ভাষাকে ভগিনী বা বোন বিবেচনা করা হয়। কারণ, এই সব ভাষা একই উৎস, ইন্দো-ইউরোপ থেকে এসেছে। সময়ের বিবর্তনে প্রথমে উড়িয়া এবং পরে অসমিয়া বাংলা থেকে আলাদা হয়ে যায়। তবে এখনো এদের মধ্যে পর্যাপ্ত সাদৃশ্য লক্ষ করা যায়।

এই সব ভাষাভাষীর লোক অনায়াসে বাঙালিদের সাথে কথোপকথন করতে পারেন। কোনো পক্ষেরই অন্য পক্ষের মন্তব্য বুঝতে বিশেষ অসুবিধা হয় না। এই জন্যই মানুষ বিশ্বাস করেন, বাংলা সাহিত্যের সবচেয়ে পুরনো নিদর্শন ‘চর্যাপদ’-এর ভাষা থেকে অন্যান্য ভাষার সূত্রপাত হয়েছে। অসমিয়া এবং উড়িয়া ভাষা সাহিত্যের উৎস হিসেবে বিবেচনা করা হয় 'চর্যাপদ'কে। 

তবে বাংলায় কথা বলা মানুষ শুধু এখানেই সীমাবদ্ধ নয়, বিশ্বব্যাপী বিভিন্ন সূত্রে বাঙালি ছড়িয়ে পড়ার সঙ্গে সঙ্গে বাংলা ভাষারও বিস্তার বেড়েছে। বিশ্ববাসী জেনেছে বাংলা ভাষা এবং এর ইতিহাস। অনেকেই এ ভাষার প্রতি মুগ্ধ হয়ে আকৃষ্ট হয়েছেন। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে হরহামেশাই দেখা যায়, অবাঙালিদের বাংলা দক্ষতা।

বিশ্বের প্রতিটি দেশেই নিজের ভাষার প্রতি শ্রদ্ধা প্রকাশ করে আজকের দিনে। তবে এশিয়ার বাইরেও একটি দেশে বিশেষ করে বাংলা ভাষার প্রতি অশেষ শ্রদ্ধার নিদর্শন মেলে। অনেকেই হয়ত জানেন না, সূদূর পশ্চিম আফ্রিকার এক দেশের মানুষও বাংলাকে ভালোবাসেন।

সিয়েরা লিওনে অনেক মানুষ বাংলা ভাষায় কথা বলেন। দূরত্ব মাপতে গেলে অঙ্কের হিসাবে বাংলাদেশ থেকে ১৫ হাজার কিলোমিটার দূরে তাদের বসবাস। তবে সম্মানের সীমানা পরিমাপ করতে গেলে দেখা যায়, কোনো দূরত্বই দূরত্ব নয়! আফ্রিকার দেশ সিয়েরা লিওন ভাষার দিক থেকে বাঙালিদের অনেক কাছের। একই ভাষায় কথা বলায় একে অপরের প্রতি ভাতৃত্ববোধ জাগ্রত হয়।

এর ইতিহাস বাঙালি হিসেবে আমাদের জন্য গর্বের! ১৯৯১ সাল থেকে ২০০২ অবধি দরিদ্র এই দেশে গৃহযুদ্ধ চলছিল। তাদের সেই করুণ সময়ে জাতিসংঘ থেকে শান্তিবাহিনী পাঠানো হয়। তাদের মধ্যে সিংহভাগই ছিলেন বাঙালি। নিজেদের জীবন বাজি রেখে বাঙালি সৈন্যদের প্রাণপণ চেষ্টায় সামলে ওঠে সিয়েরা লিওন। একই সঙ্গে বাংলা ভাষার ইতিহাস সম্পর্কে অবগত হয় সে দেশের সাধারণ জনগণ। সেই থেকেই তাদের মুখেও ফুটে ওঠে বাংলা বুলি।

ভিন্ন সংস্কৃতি, ভিন্ন ভাষার হওয়া সত্ত্বেও বাংলাকে আপন করে নিয়েছে, এই দেশের জনগণ। ভাষা তাদের কণ্ঠে ফুটে ওঠে মধুর ধ্বনির, ‘আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙ্গানো, একুশে ফেব্রুয়ারী, আমি কি ভুলিতে পারি?’     

  সালতামামি

;