‘ছবি তুলে চলে যায়, বই কিনে না’

  ‘এসো মিলি প্রাণের মেলায়’


স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, চট্টগ্রাম ব্যুরো
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

সামনের টেবিলে থরে থরে সাজানো বই। কাব্যগ্রন্থ থেকে উপন্যাস, আত্মজীবনী থেকে অনুবাদ-কি নেই! বইয়ের প্রচারেও কোনো কমতি রাখেনি প্রকাশনা কর্তৃপক্ষ। সবখানেই ঝুলছে কি কি বই আসল, তারই বিবরণীর ব্যানার-ফেস্টুনে। কিন্তু সেই বই ছুঁয়ে দেখার, কেনার পাঠক কোথায়?

তাই কেমন সাড়া পাচ্ছেন, এমন প্রশ্নে কণ্ঠজুড়ে মন খারাপের সুর বিক্রয়কর্মী জান্নাতুল ফেরদৌস সোনিয়ার। একরাশ হতাশা নিয়ে বইয়ের ওপর জমে থাকা ধুলো মুছতে মুছতে এই তরুণী বললেন, ‘সবাই এসে ছবি তুলে চলে যায়। বই কিনে না। বইমেলা শেষের দিকে। কিন্তু আমাদের প্রত্যাশার অর্ধেকও এখনো পূরণ হয়নি।’

চট্টগ্রাম বইমেলার ‘গলুই’ নামের একটি প্রকাশনীর স্টলের এই নারী বিক্রয়কর্মীর হাহাকার যেন পুরো মেলারই প্রতিকী চিত্র। অথচ প্রতিদিন বিকেল গড়াতেই মেলায় ভিড় নামে দর্শনার্থীদের। সেই ভিড় লেগে থাকে রাত পর্যন্ত।

চট্টগ্রামে এই প্রথমবারের মতো নগরীর রেলওয়ে সেন্ট্রাল বিল্ডিংয়ের (সিআরবি) শিরিষতলায় বসেছে অমর একুশে বইমেলায়। এর আগে চট্টগ্রামের এম এ আজিজ স্টেডিয়াম জিমনেসিয়াম প্রাঙ্গণে বসত এই বইমেলা। ৯ ফেব্রুয়ারি থেকে চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের উদ্যোগে শুরু হওয়া এই বইমেলায় সহযোগিতা করছে চট্টগ্রাম সৃজনশীল প্রকাশক পরিষদ, চট্টগ্রাম নাগরিক সমাজের সদস্য, বীর মুক্তিযোদ্ধা, লেখক, সাংবাদিক, শিক্ষাবিদ ও সাহিত্য-সাংস্কৃতিক সংগঠন। বইমেলায় চট্টগ্রাম ও ঢাকাসহ সারা দেশের মোট ৯২টি প্রকাশনা সংস্থার স্টল রয়েছে। সবমিলিয়ে মেলায় ১৫৫টি স্টল রয়েছে।

সোমবার (২৬ ফেব্রুয়ারি) বিকেল তিনটার দিকে বইমেলায় গিয়ে দেখা যায়, তখনো সেভাবে ভরে উঠেনি মেলা প্রাঙ্গণ। তবে সন্ধ্যার আগে দর্শনার্থীদের ভিড় বাড়ে। অধিকাংশ স্টল ঘুরে দেখা যায় ক্রেতার চেয়ে বই নিয়ে ছবি তোলার মানুষই বেশি।

চারুলিপি প্রকাশনী সংস্থার স্টলে কথা হয় বিক্রয়কর্মী মোহাম্মদ বিল্লাল হোসেনের সঙ্গে। জানতে চাইলে এই তরুণ বলেন, ‘এবার আমাদের প্রকাশনী সংস্থা ১৫টি নতুন বই এনেছে। আর সবমিলিয়ে ১০০ লেখকের বই আছে আমাদের স্টলে। কিন্তু তেমন সাড়া পাচ্ছি না। অন্যান্য বছরে এই সময়ের মধ্যে দুই থেকে আড়াই লাখ টাকার বই বিক্রি হয়। কিন্তু এখন পর্যন্ত মাত্র ১ লাখ টাকার মতো বই বিক্রি হয়েছে।’

একই সুর অক্ষরবৃত্তের রাজেশ শীলের কণ্ঠেও। তিনি বলেন, ‘কিছু কিছু লেখকের বই ভালোই বিক্রি হচ্ছে। সাড়াও পাচ্ছি এসব বই নিয়ে। কিন্তু সার্বিকভাবে বই বিক্রির হার হতাশাজনক। মানুষ আসছে, বই দেখছে কিন্তু কিনছে কম। আরও ভালো কিছু আশা করেছিলাম আমরা।’

হাওলাদার প্রকাশনী নামের আরেকটি প্রকাশনী সংস্থার স্টলে গিয়ে দেখা যায় দুই বিক্রয়কর্মী অবসর সময় পার করছেন। জানতে চাইলে তাঁদের একজন বললেন, ‘হতাশাজনক। বই বিক্রি নেই, বসে আছি।’

কেন সাড়া কম:

বই বিক্রি কম হওয়ার বিষয়ে বিভিন্ন প্রকাশনা সংস্থার কর্মীদের সঙ্গে কথা হলে সবাই একটা কারণকে সামনে এনেছেন। তাঁরা বলেছেন, স্থান পরিবর্তনের কারণে সাড়া মিলছে কম। আগে এম এ আজিজ স্টেডিয়াম জিমনেসিয়াম প্রাঙ্গণে মেলা হতো, সেখানে দর্শনার্থীদের ভিড়ও ছিল বেশি। কেননা এলাকাটি ছিল জনবহুল। অবশ্য সিআরবিতেও এখন মানুষের ভিড় থাকে, তবে সেখানে বেশিরভাগই মানুষ ঘুরতে-বেড়াতে যান। এ জন্য শুরুর দিকে প্রকাশনী সংস্থাগুলো এই জায়গায় মেলা করা নিয়ে আপত্তি জানিয়েছিল। তবে খেলার মাঠে মেলা নয়-জেলা প্রশাসনের এই নির্দেশনার কারণে তাঁদের সেই চাওয়া পূরণ হয়নি। এখন তাই বিক্রি কম হওয়ায় সেটি আবার সামনে আনছেন তাঁরা।

তবে প্রকাশনী সংস্থার এমন অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে একটা অদ্ভূত কৌশলের বিষয় সামনে আনেন বইমেলার আহ্বায়ক ও সিটি করপোরেশনের কাউন্সিলর নিছার উদ্দিন আহমেদ মঞ্জু।

তিনি বার্তা২৪.কমকে বলেন, ‘বই কম বিক্রি হচ্ছে, এমন দাবি তাঁদের একটা কৌশল হতে পারে। আমি অনেক ভেবে বুঝলাম অধিক বই বিক্রির কথা প্রচার হলে লেখকেরা বেশি রয়্যালিটি দাবি করতে পারেন। এখন কম বিক্রির কথা প্রচার হলে লেখকেরা সেই দাবি করতে পারবেন না। সেজন্য হয়তো বই বিক্রি কম হচ্ছে এমন কৌশল সামনে আনতে পারে তাঁরা।’

   

কক্সবাজার সৈকতে ভেসে এলো অজ্ঞাত নারীর মরদেহ



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, কক্সবাজার
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতের কলাতলী মেরিন ড্রাইভ সড়কের মেম্বার ঘাটা নামক এলাকায় সমুদ্রের পানিতে ভেসে এসেছে অজ্ঞাত এক নারীর মরদেহ। মরদেহটি পুলিশ উদ্ধার করে কক্সবাজার সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠিয়েছে।

বুধবার (২২ মে) রাত ৮টার দিকে জরুরি সেবা ৯৯৯ -এ কল পেয়ে মরদেহটি উদ্ধার করে কক্সবাজার সদর মডেল থানা পুলিশ।

স্থানীয় বাসিন্দা নুরুল আলম বলেন, মানুষজন জড়ো হতে দেখে সেখানে গিয়ে দেখলাম সমুদ্রের পানিতে উঠানামা করছে একজনের মরদেহ। পরে ৯৯৯ -এ কল দিলে পুলিশ এসে মরদেহটি উদ্ধার করে নিয়ে গেছে।

কক্সবাজার সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রকিবুজ্জামান বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, ৯৯৯ -এ কল পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে মরদেহটি উদ্ধার করেছে। নারীর মরদেহটি কার পরিচয় তৎক্ষনাৎ পাওয়া যায়নি। মরদেহটি উদ্ধারের পর পরিচয় না মেলায় নানা প্রশ্ন তৈরি হয়েছে। 

  ‘এসো মিলি প্রাণের মেলায়’

;

যশোরে জেলি পুশ করা ২৬০ কেজি চিংড়ি জব্দ



ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, যশোর
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

যশোর থেকে ২৬০ কেজি জেলি পুশ করা বাগদা চিংড়ি মাছ জব্দ করেছে র‌্যাব-৬। 

বুধবার (২২ মে) বিকেলে রাজারহাট বাজারে গোপন তথ্যের ভিত্তিতে অভিযান চালিয়ে প্রায় ২ লাখ টাকার চিংড়ি মাছ জব্দ করা হয়।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন র‌্যাব-৬ যশোরের কোম্পানি এ এস পি হাবিবুর রহমান। মাছ ধ্বংস করার সময় উপস্থিত ছিলেন- যশোর সদর উপজেলার সিনিয়র মৎস্য কর্মকর্তা রিপন কুমার ঘোষ।

একই সাথে এ ঘটনার সাথে জড়িত থাকার অপরাধে ওই মাছের মালিক খুলনা পাইকগাছা উপজেলার শামুকপোতা গ্রামের মা ফিশের প্রশান্ত মন্ডলকে ১৮ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করা হয়েছে।

যশোরের কোম্পানি এ এস পি হাবিবুর রহমান বলেন, গোপন সংবাদের প্রেক্ষিতে তারা জানতে পারেন একটি ট্রাকে জেলি পুশ করা চিংড়ি মাছ পাইকগাছা থেকে মণিরামপুর হয়ে যশোরের দিকে আসছে। তখন আমরা ১৬ জন সদস্য বিশিষ্ট তাৎক্ষণিক রাজার হাট এলাকায় অবস্থান করি। ট্রাকের মধ্যে ১৮ ট্রেতে জেলি পুশ করা চিংড়ি মাছের বিষয়টি প্রমাণিত হয়। এক পর্যায় গাড়িতে থাকা কামাল হোসেন স্বীকারও করেন। পরে তাদেরকে জরিমানা করে জেলি পুশ করা সব মাছ ধ্বংস করা হয়।

যশোর সদর উপজেলার সিনিয়র মৎস্য কর্মকর্তা রিপন কুমার ঘোষ বলেন, চিংড়ি মাছের মধ্যে ওজন বৃদ্ধি করার জন্য কিছু অসৎ ব্যবসায়ী জেলি পুশ করে। কিন্তু তারা বোঝে না জেলি মানব দেহের জন্য কি পরিমাণ ক্ষতি। এ জেলিতে ক্যান্সারের মত মারাত্মক রোগ হওয়ার সম্ভবনা খুব বেশি। তবে এ ধরনের অন্যায় মাছ চাষিরা করে না। এগুলো করে একটি অসৎ ব্যবসায়ী চক্র। আমরা গোপন তথ্যের মধ্য দিয়ে বিষয়টি জানতে পারি। ‘মা ফিশ’র প্রশান্ত মন্ডলকে ১৮ হাজার টাকা জরিমানাও করা হয়েছে।

  ‘এসো মিলি প্রাণের মেলায়’

;

এমপি আনোয়ারুলের নিহতের ঘটনায় ঢাকায় মামলা, যা আছে এজাহারে



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
ঝিনাইদহ-৪ আসনের সংসদ সদস্য আনোয়ারুল আজীম আনার

ঝিনাইদহ-৪ আসনের সংসদ সদস্য আনোয়ারুল আজীম আনার

  • Font increase
  • Font Decrease

ভারতের কলকাতায় ঝিনাইদহ-৪ আসনের সংসদ সদস্য (এমপি) আনোয়ারুল আজীম আনার খুনের ঘটনায় মামলা হয়েছে। মামলায় অজ্ঞাতদের আসামি করা হয়েছে।

বুধবার (২২ মে) রাত আটটায় শেরেবাংলা নগর থানায় মামলাটি করেন আনারের ছোট মেয়ে মুমতারিন ফেরদৌস ডরিন।

মামলা নং-৪২। সন্ধ্যা সাড়ে ছয়টায় তিনি থানায় অভিযোগ করলেও সেটি মামলা হিসেবে রুজু হয় রাত আটটায়।

বিষয়টি নিশ্চিত করেন শেরেবাংলা নগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুল আহাদ।

তিনি বলেন, সংসদ সদস্যের মেয়ে মামলা করেছে। তবে আসামির নাম উল্লেখ করা হয়নি। সংখ্যা কত সেটাও উল্লেখ করা হয়নি।

মামলার এজাহারে যা যা উল্লেখ করা হয়েছে: 

মামলার বাদি ডরিন এজাহারে উল্লেখ করেছেন, গত ৯ মে তার বাবা ঢাকার শেরেবাংলা নগর থানার মানিকমিয়া এভিনিউয়ের ন্যাম ভবন (সংসদ সদস্যদের আবাসিক ভবন) থেকে গ্রামের বাড়ী ঝিনাইদহ যাওয়ার জন্য বের হন। দুই দিন পর ১১ মে বিকেল পৌনে পাঁচচার দিকে তার বাবার সাথে মোবাইল ফোনে কথা হয়। কিন্তু তার সাথে কথা বার্তার এক পর্যায়ে তিনি বুঝতে পারেন, তার বাবা অসংলগ্ন কথা বার্তা বলছেন। এরপর তিনি তার বাবার ফোনে একাধিকবার কল করলেও সেটি বন্ধ পান। পরে ১৩ মে তার বাবার ভারতীয় সিম নম্বর থেকে উজির মামা নামের একজনের মোবাইলে একটি ক্ষুদে বার্তা আসে। তাতে জানানো হয়, 'আমি হঠাৎ করে দিল্লি যাচ্ছি, আমার সাথে ভিআইপি আছে। আমি অমিত সাহার কাছে যাচ্ছি। আমাকে ফোন দেওয়ার দরকার নাই। আমি পরে ফোন দিব।'

এছাড়াও আরও কয়েকটি বার্তা আসে। সেই ম্যাসেজগুলি আমার বাবার মোবাইল ফোন ব্যবহার করে অপহরনকারীরা করে থাকতে পারে। এরপর আমরা বিভিন্ন জায়গায় আমার বাবার খোঁজ খবর করতে থাকি। আমার বাবার কোন সন্ধান না পেয়ে আমার বাবার বন্ধু শ্রী গোপাল বিশ্বাস গত ১৮ মে কলকাতার রাধানগর থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেন। আমরা আমার বাবাকে খোঁজাখুঁজি অব্যাহত রাখি। পরবর্তীতে বিভিন্ন গণমাধ্যম ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে জানতে পারি অজ্ঞাত ব্যক্তিরা পূর্ব পরিকল্পিতভাবে পরস্পর যোগসাজশে আমার বাবাকে অপহরণ করেছে। আমার বাবাকে সম্ভব্য সকল স্থানে খোঁজাখুঁজি করেও কোথাও না পেয়ে থানায় এসে এজাহার দায়ের করতে সামান্য বিলম্ব হলো। শেষে তিনি উল্লেখিত বিষয়ে আইনগত ব্যবস্থা নেয়ার জন্য অনুরোধ করেন পুলিশকে।

ঘটনার সময় উল্লেখ করা হয়েছে, গত ৯ মে রাত আটটা থেকে ১৩ মে যেকোন সময়।

এর আগে, ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশের অতিরিক্ত কমিশনার মোহাম্মদ হারুন অর রশীদ জানান, নিহত এমপির মেয়ে আমাদের কাছে এসেছেন। তার বাবা বাসা থেকে বের হয়ে গেলেন। এরপর আর পাওয়া যায়নি। সেখানে কী ঘটেছে, এই ঘটনায় একটি মামলা দায়ের করার জন্য এসেছেন। মামলা কীভাবে কোথায় করবেন, তা আমরা বলেছি। তার বাবা সংসদ ভবন এলাকায় থাকতেন। সেখান থেকে তিনি ভারতে গেছেন। আমরা তাকে বলেছি শেরে বাংলা নগর থানায় মামলা করতে। মামলা করতে আমাদের কর্মকর্তারা তাকে সহযোগিতা করছে। মামলাটি আজকের মধ্যেই হবে।

উল্লেখ্য, ঝিনাইদহ-৪ আসনের সংসদ সদস্য আনোয়ারুল আজীম আনার এ মাসের ১২ মে ভারতে বেড়াতে যান। সেখানে তিনি কলকাতায় একজনের ফ্লাটে ওঠেন। এরপর ১৩ মে বিকেলে বের হন। এরপর থেকে নিখোঁজ ছিলেন। তাকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছিল না বলে তার পরিবার জানায়। বিষয়টি নিয়ে দুই দেশের পুলিশ কাজ করছে বলে জানিয়েছিলেন ডিবির প্রধান হারুন অর রশীদ।

সর্বশেষ বুধবার (২২ মে) সকালে কলকাতার গণমাধ্যমের বরাত দিয়ে বাংলাদেশি গণমাধ্যমগুলো খবর প্রকাশ করে যে, কলকাতায় আনারের মরদেহের খণ্ডাংশ উদ্ধার হয়েছে। এ ঘটনার পর তার মেয়ে দুপুরে ডিবিতে গিয়েছিল। সেখান থেকে বের হয়ে তিনি বিকেলে শেরেবাংলা নগর থানায় মামলা করেন। 

  ‘এসো মিলি প্রাণের মেলায়’

;

সোনা চুরি করে বিদেশ পালানোর সময় কর্মচারী ধরা



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, চট্টগ্রাম
সোনা চুরি করে বিদেশ পালানোর সময় কর্মচারী ধরা

সোনা চুরি করে বিদেশ পালানোর সময় কর্মচারী ধরা

  • Font increase
  • Font Decrease

চট্টগ্রাম নগরীর নিউমার্কেট বিপণী বিতান শপিং মলের একটি সোনার দোকান থেকে ২২ ভরি ওজনের ৬টি নেকলেস চুরি করে বিদেশ পালানোর সময় কর্মচারী চন্দন ধরকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। জিজ্ঞাসাবাদে তার দেয়া তথ্য মতে চুরি হওয়া ১৪ ভরি ৪ আনা সোনা উদ্ধার করা হয়।

মঙ্গলবার (২১ মে) চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের (সিএমপি) কোতোয়ালী থানা পুলিশ তাকে শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর এলাকা থেকে গ্রেফতার করে।

গ্রেফতারের পর বুধবার (২২ মে) তাকে আদালতে হাজির করা হয়।

গ্রেফতার চন্দর ধর চট্টগ্রাম জেলার রাঙ্গুনিয়া থানাধীন বেতাগী ইউনিয়নের মধ্য বেতাগী বণিকপাড়ার গৌরাঙ্গ চন্দ্র ধরের ছেলে। তিনি বিপণিবিতান শপিং মলের চৌধুরী জুয়েলার্সের কর্মচারী ছিলেন।

কোতোয়ালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এস এম ওবায়েদুল হক জানান, গত ২৩ মার্চ চৌধুরী জুয়েলার্সের কর্মচারী চন্দন ধর ২২ ভরি ওজনের ৬টি সোনার নেকলেস চুরি করে পালিয়ে যায়। ঘটনা টের পেয়ে দোকান মালিক কাঞ্চন মল্লিক থানায় অভিযোগ করেন। অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে গত ২ এপ্রিল মামলা নেয় থানা পুলিশ।

তিনি আরও বলেন, মামলার তদন্তকালে তথ্যপ্রযুক্তির সহায়তায় অবস্থান শনাক্ত করে বিদেশ পালানোর চেষ্টাকালে আসামি চন্দন ধরকে শাহজালাল বিমানবন্দর এলাকা থেকে গ্রেফতার করা হয়। পরে তার স্বীকারোক্তি অনুযায়ী নগরীর হাজারী গলি এবং হাটহাজারীর মদুনাঘাট এলাকা থেকে ১৪ ভরি ৪ আনা ওজনের সোনা উদ্ধার করা হয়।

  ‘এসো মিলি প্রাণের মেলায়’

;