করোনা এনবিআরের আরেক কর্মকর্তা মৃত্যু, চেয়ারম্যানের শোক

  বাংলাদেশে করোনাভাইরাস


সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
করোনা এনবিআরের আরেক কর্মকর্তা মৃত্যু, চেয়ারম্যানের শোক

করোনা এনবিআরের আরেক কর্মকর্তা মৃত্যু, চেয়ারম্যানের শোক

  • Font increase
  • Font Decrease

জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) ঢাকা কাস্টমস হাউসের রপ্তানি পরীক্ষা ইউনিটে কর্মরত অবস্থায় করোনা আক্রান্ত রাজস্ব কর্মকর্তা (সুপারিন্টেনডেন্ট) খোরশেদ আলম শনিবার(১৩জুন) ভোর রাতে ঢাকার উত্তরায় ইস্ট ওয়েস্ট হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন( ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)।

খোরশেদ আলম এর অকাল মৃত্যুতে গভীর শোক জানিয়েছেন চেয়ারম্যান আবু হেনা মো. রহমাতুল মুনিম।

শনিবার (১৩ জুন) এনবিআরের সিনিয়র তথ্য অফিসার সৈয়দ এ মু'মেন স্বাক্ষরিত সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে তথ্য জানানো হয়েছে।

এতে বলা হয়, অত্যন্ত দুঃখের সাথে জানানো যাচ্ছে যে, ঢাকা কাস্টমস হাউসের রপ্তানি পরীক্ষা ইউনিটে কর্মরত অবস্থায় করোনা আক্রান্ত রাজস্ব কর্মকর্তা (সুপারিন্টেনডেন্ট) খোরশেদ আলম শনিবার ভোর রাতে ঢাকার উত্তরায় ইস্ট ওয়েস্ট হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন।

জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের চেয়ারম্যান আবু হেনা মো. রহমাতুল মুনিম করোনা আক্রান্ত রাজস্ব কর্মকর্তা'র মৃত্যুতে গভীর শোক জানিয়েছেন। পাশাপাশি তাঁর শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জ্ঞাপন করেছেন। পরম করুনাময় আল্লাহ্ যেন তাঁকে জান্নাতবাসী করেন এবং পরিবারের সবাইকে এই শোক সহ্য করার শক্তি দিন। আমিন।

বাংলাদেশ কাস্টমস এন্ড ভ্যাট এক্সিকিউটিভ অফিসার্স এসোসিয়েশন (বাকাএভ), করোনা যুদ্ধে বাংলাদেশ কাস্টমস এন্ড ভ্যাট বিভাগের ২য় শহীদের বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনার পাশাপাশি শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জ্ঞাপন করেছে

   

আমতলীতে বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধে ভাঙন, তলিয়ে গেছে ৩ গ্রাম



ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, বরগুনা
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

ঘূর্ণিঝড় রিমলের প্রভাবে বঙ্গোপসাগর ও তৎসংলগ্ন পায়রা (বুড়িশ্বর) নদীর পানি বৃদ্ধি পেয়ে বরগুনার আমতলী উপজেলার আরপাঙ্গাশিয়া ইউনিয়নের বালিয়াতলী গ্রামে নির্মাণাধীন একটি বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধ ভেঙে গেছে। এতে পানিতে তলিয়ে গেছে ওই ইউনিয়নের তিনটি গ্রাম।

রবিবার (২৬ মে) দুপুরে পায়রা (বুড়িশ্বর) নদীতে স্বাভাবিক জোয়ারের চেয়ে ৩ ফুট উচ্চে পানি প্রবাহিত হওয়ায় উপকূলীয় এলাকাসহ আমতলীর নিম্নাঞ্চল প্লাবিত এবং আরপাঙ্গাশিয়া ইউনিয়নের বালিয়াতলীতে পায়রা (বুড়িশ্বর) নদীর তীর ঘেষে নির্মাণাধীন বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধের ৪০ মিটার ভেঙে ৩টি গ্রাম বালিয়াতলী, উত্তর ঘোপখালী ও পশুরবুনিয়া গ্রাম তলিয়ে গেছে।

পানিতে ওই তিন গ্রামের মানুষের ঘর-বাড়ি ও পুকুর তলিয়ে ব্যাপক ক্ষয়-ক্ষতি হওয়ার পাশাপাশি দুই শতাধিক পরিবারের ঘর-বাড়ি পানির নিচে থাকায় তাঁরা মানবেতর জীবন যাপন করছেন।

খবর পেয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মুহাম্মদ আশরাফুল আলম, সহকারী কমিশনার (ভূমি) তারেক হাসান ও প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মোহাম্মদ জামাল হুসাইন ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

এদিকে ঘূর্ণিঝড় মোকাবিলায় উপজেলা প্রশাসন ব্যাপক প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছে। সন্ধ্যা পর্যন্ত উপজেলার আশ্রয় কেন্দ্রগুলোতে মানুষজন তেমন যায়নি বলে জানায় ঘূর্ণিঝড় রিমালে কাজ করা কয়েকটি সেচ্ছাসেবী সংগঠনের কর্মীরা।

বঙ্গোপসাগর তৎসংলগ্ন পায়রা (বুড়িশ্বর) নদীতে স্বাভাবিক জোয়ারের চেয়ে ৩ ফুট পানি বেড়ে নিম্নাঞ্চল তলিয়ে গেছে।

বালিয়াতলী গ্রামের শহিদুল ইসলাম, খবির উদ্দিন, সাহেদা ও হোসনেআরা বেগম বলেন, নতুনভাবে নির্মাণ করা বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধ ভেঙে পানিতে ঘর-বাড়ী, পুকরসহ সবকিছুই তলিয়ে গেছে। তারা আজ দুপুরে রান্না পর্যন্ত করতে পারেননি। ভাটায় পানি নেমে যাওয়ার পরে রান্না করে তারপর তারা খাবার খেয়েছেন। তাদের অভিযোগ দায়সারাভাবে বাঁধ নির্মাণ করে আবার তা অল্প দিনের মধ্যেই নদীতে ভেঙে যায়।

বরগুনা পানি উন্নয়ন বোর্ডেও নির্বাহী প্রকৌশলী মো. রাকিব বলেন, বেশ কিছু জায়গায় বেড়িবাঁধে ভাঙনের খবর পেয়েছি ভাঙন রোধে তাৎক্ষনিক ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। অধিক জোয়ার ও বৃষ্টিতে যে সকল এলাকার বেড়িবাধের নাজুক অবস্থা তৈরি হয়েছে সেই এলাকাগুলোতে নজরদারি বৃদ্ধি করা হয়েছে। তাৎক্ষনিকভাবে ভাঙনের হাত থেকে উপকূলবাসীকে রক্ষা করতে জরুরী মেরামতে অংশ হিসেবে ৮০০ জিও ব্যাগ প্রস্তুত রাখা হয়েছে।

আমতলী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মুহাম্মদ আফরাফুল আলম বলেন, ‘ঘূর্ণিঝড় মোকাবিলায় যথেষ্ট প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে। ১০১টি আশ্রয়কেন্দ্র প্রস্তুত রাখা হয়েছে। পায়রা (বুড়িশ্বর) নদীর পানি বৃদ্ধি পেয়ে আরপাঙ্গাশিয়া ইউনিয়নের বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধ ভাঙে গেছে। ভাঙা এলাকা পরিদর্শন করেছি। বন্যা নিয়ন্ত্রন বাঁধের বাহিরে বসবাসরত মানুষকে আশ্রয় কেন্দ্রে নিয়ে আসতে কাজ করছি ও বিভিন্ন ইউপি চেয়ারম্যান ও সদস্যদের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

  বাংলাদেশে করোনাভাইরাস

;

চট্টগ্রাম বিমানবন্দর সড়কে দুই শতাধিক অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, চট্টগ্রাম
দুই শতাধিক অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ

দুই শতাধিক অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ

  • Font increase
  • Font Decrease

চট্টগ্রাম নগরীর শাহ আমানত বিমানবন্দর জননেত্রী শেখ হাসিনা সড়কের ভিআইপি অংশে উচ্ছেদ অভিযান চালিয়েছে চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন (চসিক)। এসময় প্রায় দুই শতাধিক অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করা হয়।

রোববার (২৬ মে) দুপুরে চসিকের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট চৈতী সর্ববিদ্যা এ অভিযান পরিচালনা করেনG

অভিযানে ফুটপাত ও রাস্তার দুই পাশের অবৈধ ঘর-বাড়ি, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান এবং বাটার ফ্লাই পার্কের সামনের প্রায় দুই শতাধিক স্থাপনা উচ্ছেদ করা হয়। উচ্ছেদ অভিযানের পর সিটি মেয়র মো. রেজাউল করিম চৌধুরী এলাকাটি পরিদর্শন করে উদ্ধার হওয়া জায়গায় বেষ্টনী তৈরির নির্দেশ দেন।

অভিযানকালে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটকে সহায়তা করেন চসিকের নির্বাহী প্রকৌশলী আশিকুল ইসলামসহ সংশ্লিষ্ট বিভাগের কর্মকর্তা-কর্মচারী ও চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশ।

  বাংলাদেশে করোনাভাইরাস

;

বরগুনায় বাঁধ ভেঙে ১০ গ্রাম প্লাবিত

  ঘূর্ণিঝড় রিমাল



ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, বরগুনা
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

ঘূর্ণিঝড় রিমালের প্রভাবে জোয়ারের চাপে বরগুনায় বেড়িবাঁধ ভেঙে ১০টি গ্রাম প্লাবিত হয়েছে।

রোববার (২৬ মে) সকাল থেকেই বরগুনার আকাশ ছিলো মেঘাচ্ছন্ন। ঘূর্ণিঝড় রিমাল গতি সঞ্চার করে উপকূলের দিকে এগিয়ে আসতে আসতে রুদ্র মূর্তি ধারণ করে বরগুনার প্রকৃতি। বেলা বাড়ার সাথে সাথে বাড়তে থাকে বাতাসের গতিবেগ। সেই সাথে থেমে থেমে জড়ো বৃষ্টি ঝড়ছে।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, বরগুনা সদর উপজেলার ঢলুয়া ইউনিয়নের পোটকাখালী, ডালভাঙা ও নলী এলাকা, নলটোনা ইউনিয়নের নিশানবাড়িয়া, নলটোনা, সোনাতল ও কুমিড়মারা, বুড়িরচর ইউনিয়নের গুলবুনিয়া, বাঁশবুনিয়া, চালিতাতলী, আয়লা পাতাকাটা ইউনিয়ন, বদরখালী ইউনিয়নের ফুলঝুড়ি, কুমড়াখালী ও গুলিশাখালী এলাকা, পাথরঘাটা উপজেলার সদর ইউনিয়নের পদ্মা, জীনতলা, টেংরা, কালমেঘা, কাকচিড়া, তালতলী উপজেলার নিশানবাড়িয়া, ছোটবগী, নিদ্রার চর, তেতুলবাড়িয়া, খোট্টার চর, সোনাকাটা, নিউপাড়া, আমতলী উপজেলার সদর ইউনিয়ন, গুলিশাখালী, বামনা উপজেলার রামনা, বদনীখালী, বেতাগী উপজেলার কালিকাবাড়ি, ঝিলবুনিয়া, ছোট মোকামিয়া এলাকার বাঁধের বাইরের প্রায় লক্ষাধিক বাড়ি-ঘর অধিক জোয়ারে নিমজ্জিত হয়েছে।

সরেজমিনে বরগুনা সদর উপজেলার ঢলুয়া ইউনিয়নের মাছখালী গ্রামে গিয়ে দেখা গেছে, নদী তীরবর্তী মানুষ বেড়িবাঁধের ওপর আশ্রয় নিয়েছে। উচ্চ জোয়ারের চাপে আশ্রয় নেওয়া সেই বেড়িবাঁধ ভেঙে গিয়ে প্লাবিত হয়েছে ৬টি গ্রাম। প্লাবিত এলাকায় জোয়ারের পানি ঘরের মধ্যে ঢুকে যাওয়া নষ্ট হয়ে গেছে রান্নার চুলা ও নিত্য ব্যবহার্য জিনিসপত্র। এছাড়াও ঘরের ভিতরে পানি প্রবেশ করায় ব্যহত হচ্ছে স্বাভাবিক জীবনযাত্রা। আশ্রয় কেন্দ্র কিংবা নিরাপদ আশ্রয়ে যাওয়ার পথ দুর্ঘম হওয়ায় অনেকটাই বাধ্য হয়ে ঘরের ভিতরই আশ্রয় নিয়েছেন তারা। যে বেড়িবাঁধটিতে ভাঙন দেখা দিয়েছে রাতে যদি জোয়ার ও বৃষ্টি অব্যাহত থাকে তাহলে পুরো বেড়িবাঁধটির এক কিলোমিটার জায়গাজুড়ে নদীগর্ভে বিলীন হয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

বাসিন্দা শহিদুল ইসলাম বলেন, বেলা ১১টার দিকে বেড়িবাঁধ ভেঙে প্লাবিত হয় এখানকার ছয়টি গ্রাম। জোয়ার চলে গেলে পানি যেভাবে নেমে যাওয়ার কথা সেভাবে না নামায় অনেকেই আতঙ্কিত হয়ে পড়েছেন। রাতে যদি পানির পরিমাণ বৃদ্ধি পায় তাহলে তাদের সহায় সম্বল সবকিছু নষ্ট হয়ে যাবে।

একই এলাকার বাসিন্দা সালাম মাঝি বলেন, বছরের পর বছর এভাবে গাঙ্গেও পানিতে ভাসছি। কতো মানুষ আসে কতো মানুষ যায় কিন্তু আমাগো বেড়িবাঁধের কোন ব্যবস্থা হয় না। সরকার যদি আমাগো এই বেড়িবাঁধ করে দিতো তাহলে আমরা নিরাপদে থাকতে পারতাম।

বরগুনা পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. রাকিব বলেন, বেশ কিছু জায়গায় বেড়িবাঁধে ভাঙনের খবর পেয়েছি। ভাঙন রোধে তাৎক্ষণিক ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। অধিক জোয়ার ও বৃষ্টিতে যে সকল এলাকার বেড়িবাঁধের নাজুক অবস্থা তৈরি হয়েছে সেই এলাকাগুলোতে নজরদারি বৃদ্ধি করা হয়েছে। তাৎক্ষণিকভাবে ভাঙনের হাত থেকে উপকূলবাসীকে রক্ষা করতে জরুরি মেরামতে অংশ হিসেবে ৮০০ জিও ব্যাগ প্রস্তুত রাখা হয়েছে।

বরগুনার জেলা প্রশাসক মোহা. রফিকুল ইসলাম বলেন, ঘূর্ণিঝড় মোকাবিলায় আমরা সর্বোচ্চ প্রস্তুতি নিয়েছি। আশ্রয়কেন্দ্রগুলোতে উপকূল তীরবর্তী মানুষ জনকে নিয়ে আসা হয়েছে। কিছু কিছু এলাকায় বেড়িবাঁধ ভাঙনের খবর পাওয়া গেছে। সেই সব এলাকার বাসিন্দাদের নিরাপদ আশ্রয়ে নিয়ে আসার জন্য স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন ও উপজেলা প্রশাসনকে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

  বাংলাদেশে করোনাভাইরাস

;

হাতিয়ায় ১৪ গ্রাম প্লাবিত, পানিবন্দি হাজারো মানুষ



ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, নোয়াখালী
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

ঘূর্ণিঝড় রিমালের প্রভাবে নোয়াখালীর দ্বীপ উপজেলা হাতিয়ার নিঝুম দ্বীপ ইউনিয়নের নয়টি গ্রামসহ ১৪টি গ্রাম জোয়ারের পানিতে প্লাবিত হয়েছে। এতে নিঝুম দ্বীপ ইউনিয়নের ৯টি ওয়ার্ডের প্রধান সড়ক ও বাজারগুলো প্লাবিত রয়েছে।

রোববার (২৬ মে) দুপুর থেকে শুরু হওয়া জোয়ারে এসব গ্রাম প্লাবিত হয়। জোয়ারের প্রভাবে হাতিয়ায় নদীর পানি স্বাভাবিকের চেয়ে ৪-৫ ফুট পানি বেড়ে গেছে। ধারণা করা হচ্ছে, এতে পানিবন্দি হয়ে পড়েছেন প্রায় ৪০ হাজার মানুষ।

প্লাবিত হওয়া গ্রামগুলো হলো, নিঝুমদ্বীপ ইউনিয়নের মোল্লা গ্রাম, মুন্সি গ্রাম, আদর্শ গ্রাম, বান্দাখালী গ্রাম, ডুবাইয়ের খাল গ্রাম, ইসলামপুর গ্রাম, আনন্দগুচ্ছ গ্রাম,বাতায়ন গ্রাম,বসুন্ধরা গ্রাম ও ধানসিঁড়ি গ্রাম, পূর্বাচল গ্রাম,হরণী ইউনিয়নের চর ঘাসিয়া, বয়ারচর গ্রাম, নলচিরা ইউনিয়নের তুফানিয়া গ্রাম, তমরদ্দি ইউনিয়নের পশ্চিম তমরদ্দি গ্রাম।


স্থানীয় বাসিন্দা জিল্লুর রহমান বলেন, সকাল ১০টা থেকে শুরু হওয়া টানা বর্ষণ অস্বাভাবিক জোয়ারের পানিতে পুরো উপজেলার ছয়টি ইউনিয়ন প্লাবিত হয়েছে। ফলে এখানে যোগাযোগ ব্যবস্থা ভেঙে পড়েছে। পানি ঢুকে পড়েছে বাড়িগুলোতে।

স্থানীয় বাসিন্দা ফিরোজ আলম বলেন, নিঝুম দ্বীপে প্রায় ৪০ হাজার লোকের বসবাস। ইউনিয়নটির সাগরের একবারে কাছে হলেও নেই কোনো বেড়িবাঁধ। যার ফলে জোয়ারের সময় চারদিক দিয়ে একসঙ্গে এই ইউনিয়নে পানি প্রবেশ করতে শুরু করে।

নিঝুম দ্বীপ ইউনিয়নের চেয়ারম্যান নুরুল আফছার মো.দিনাজ উদ্দিন বলেন, রোববার দুপুর থেকে টানা বর্ষণ ও জোয়ারের পানি ঢুকে নিঝুম দ্বীপ ইউনিয়নের ৯টি গ্রাম প্লাবিত হয়। এতে প্রায় ২৫ থেকে ৩০ হাজার মানুষ ঘর বন্দি হয়ে পড়েছে। পানিতে ভেসে গেছে গবাদিপশুর খাদ্য ও মাছের ঘের। তলিয়ে গেছে শাকসবজিসহ নানা ফসলের জমি। বেড়িবাঁধ না থাকায় জোয়ারের পানি ঢুকে নিঝুমদ্বীপ ইউনিয়ন প্রায় প্লাবিত হয়।

হাতিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) শুভাশিস চাকমা বলেন, জোয়ার পানিতে হাতিয়ার ছয়টি ইউনিয়ন প্লাবিত হয়েছে। হাতিয়ার বিভিন্ন নৌ রুটে সি-ট্রাক, ট্রলার চলাচল বন্ধ রয়েছে। যাত্রীদের জানমাল ও নিরাপত্তার স্বার্থে পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত হাতিয়ার সঙ্গে সব চলাচল বন্ধ থাকবে। হাতিয়াতে ২৪২ আশ্রয়কেন্দ্র প্রস্তুত রাখা হয়েছে। উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে সার্বিক বিষয়ে খোঁজ খবর রাখা হচ্ছে।

  বাংলাদেশে করোনাভাইরাস

;