মোংলা-ঘোষিয়াখালী ক্যানেলের তীরভূমি দখলের মহোৎসব: নাব্যতা হারানোর শঙ্কা



মনিরুল ইসলাম দুলু, ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বাগেরহাট
ছবি: বার্তা২৪

ছবি: বার্তা২৪

  • Font increase
  • Font Decrease

মোংলা-ঘোষিয়াখালী ক্যানেলের তীর ও প্লাবনভূমির হাজার একর সরকারি চরভরাটি জমি দখল করে মাছ চাষের মহোৎসব চলছে।

এসব জমি দখলে নিয়ে বড় বড় খামার করে মাছচাষ করাসহ বাড়িঘর নির্মাণ করে বসবাস করতে শুরু করেছেন অনেকেই। এতে সরকারের হাজার কোটি টাকা মূল্যের জমি বেহাত হওয়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে।

চ্যানেলের তীর ও প্লাবনভূমির পানি প্রবাহ বাধাগ্রস্ত হওয়ায় নতুন করে হুমকিতে পড়েছে চ্যনেলটি। এতে বিশ্ব ঐতিহ্য সুন্দরবন ও মোংলা বন্দরও হুমকিতে পড়ার ফের আশঙ্কা করছেন বিশেষজ্ঞরা।

বাগেরহাট জেলা কালেক্টর, বাগেরহাটের পানি উন্নয়ন বোর্ড ও বিআইডব্লিউটিএসহ সংশ্লিষ্টদের উদাসিতা ও নজরদারির অভাবে এত বিপুল পরিমাণ মূল্যবান জমি বা তীরভূমি বেহাত হতে চলেছে বলে পরিবেশবাদী সংগঠন ও সচেতন মহল অভিযোগের আঙুল তুলেছে।

মোংলা-ঘোষিয়াখালী চ্যানেল

জানা গেছে, মোংলা-ঘোষিয়াখালী চ্যানেলটি ২৭ কিলোমিটার দীর্ঘ। জলবায়ু পরিবর্তন ও মনুষ্যসৃষ্ট প্রতিবন্ধকতার কারণে এটি নাব্যতা হারায়। পরবর্তীতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হস্তক্ষেপে প্রায় ৫ শত কোটি টাকা ব্যয়ে চ্যানেলটি খনন করে উম্মুক্ত করা হয়।

চ্যানেলটির নাব্যতা রক্ষায় মূল চ্যানেলটির ৫ কিলোমিটার এলাকা বাদ দিয়ে রোমজাইপুর পয়েন্টে লুফ কাট দিয়ে আলাদা করা হয়। ৫ কিলোমিটার এলাকা লম্বা ও প্রায় ৩শ মিটার চওড়া নদীর মূল অংশ খনন না করায় এটি এখন শীর্ণকায় খালে পরিণত হয়েছে, যা মুজিবনগর ও রোমজাইপুর পয়েন্টের বড়দিয়া, ছোটদিয়া, কুমারখালী মৌজার কালিগঞ্জ এলাকা জুড়ে বিস্তৃত।

পাঁচ কিলোমিটার চ্যানেলের অংশে ৬০-এর দশক থেকে নদীর গতিপথ পরিবর্তনের কারণে নদী ভাঙনের সৃষ্টি হয়। এতে প্রায় হাজার একর জমি সরকারি খাস খতিয়ানভুক্ত হওয়ার কথা থাকলেও সেটি নিয়ে প্রশ্ন রয়েছে।

এটি রক্ষণাবেক্ষণেও সরকারের ভূমি ব্যবস্থাপনা সংশ্লিষ্টদের নানান অসামঞ্জস্যতা রয়েছে বলে অভিযোগ দীর্ঘদিনের। নদী ভাঙনের পর চরভরাটি জমি এক শ্রেণির কথিত ভূমিহীন ও ভূমিদস্যুরা রামপালের সেটেলমেন্ট অফিস ও রামপালের সহকারী কমিশনারের অফিসের কতিপয় দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তাদের ‘ম্যানেজ’ করে তঞ্চকি কাগজপত্র তৈরি করে রেকর্ড করে নেন। এমনকী তারা কেউ কেউ আদালতে ভুয়া কাগজপত্র জমা দিয়ে জমি হাতিয়ে নিয়েছেন। ব্যক্তি মালিকানার জমি ভেঙে নদীতে বিলীন হয়ে অপর পাড়ে চর পড়লে সেটিও ভূমিদস্যুরা কাগজপত্র তৈরি করে মালিকানায় নিয়ে নেয়, যা তদন্ত করলে বেরিয়ে আসবে বলে সচেতন মহল মনে করেন।

নতুন করে মুজিবনগর পয়েন্টে ভূমিদস্যুরা আবারও নদীর তীরভূমি ও প্লাবনভূমি দখল করে বেড়িবাঁধ দেওয়া শুরু করেছে।

গিলাতলার মিজান মল্লিকের নেতৃত্বে মুজিবনগর গ্রামের শেখ ইলিয়াসের ছেলে শেখ বেলাল, রুস্তুম শেখের ছেলে শেখ মুকুল, শেখ শরিফুল, শেখ সাইফুল ও শেখ সোলাইমানের ছেলে শেখ আরিফ এবং মৃত শেখ মাহাতাবের ছেলে মোজাফফর হোসেন বেড়িবাঁধ দিচ্ছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

এ বিষয়ের মল্লিক মিজানুর রহমানের কাছে জানতে চাইলে তিনি এ অভিযোগ অস্বীকার করেন।

শেখ বেলাল, মুকুল, আরিফ ও শরিফুল বলেন, সবাই সরকারি খাস জমি দখল করে বাঁধ দিয়ে মাছ চাষ করছেন। আমরা বাঁধ দিতে গেলে মিজান মাস্টারের লোকজন বাধা দিচ্ছে। সবাই জমি ঘিরেছে। আমরা ঘিরলে দোষ হচ্ছে!

মোংলা-ঘোষিয়াখালী ক্যানেল

এ ব্যাপারে ‘মোংলা-ঘোষিয়াখালী চ্যানেল রক্ষা সংগ্রাম কমিটি’র সদস্য সচিব মোল্লা আব্দুস সবুর রানা অভিযোগ করে বলেন, বাগেরহাট জেলা কালেক্টর, সংশ্লিষ্ট পানি উন্নয়ন বোর্ড ও বিআইডব্লিউটিএ’র নজরদারির অভাবে হাজার কোটি টাকা মূল্যের জমি বেহাত হয়েছে। নদীর নাব্যতা হ্রাস পাচ্ছে এবং হুমকির মুখে পড়েছে চ্যানেলটি।

এ বিষয়ে রামপাল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রহিমা সুলতানা বুশরা বলেন, মোংলা-ঘোষিয়াখালী চ্যানেলের নাব্যতা রক্ষায় সব কিছু করা হবে। সরকারি জমি অবৈধভাবে দখলকারীদের বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

জনবল সংকটের কারণে ভূমি ব্যবস্থাপনায় বিড়ম্বনা পোহাতে হচ্ছে বলে দুঃখ প্রকাশ করেন তিনি।

   

স্বাভাবিক ছন্দে ফিরুক প্রাণপ্রকৃতি!



কবির য়াহমদ
ছবি: বার্তা২৪

ছবি: বার্তা২৪

  • Font increase
  • Font Decrease

ঘূর্ণিঝড় ‘রিমাল’ তাণ্ডব চালিয়েছে দেশে। ভয়াবহ এই ঝড়-জলোচ্ছ্বাসে মৃতের চূড়ান্ত পরিসংখ্যান না মিললেও এখন পর্যন্ত প্রাপ্ত খবরে এ সংখ্যা ১০।

ঘূর্ণিঝড়ের ভয়াবহতায় লাখ লাখ মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন। ঘরবাড়ি ছাড়া অগণন। কেবল মানুষই নন, ক্ষতিগ্রস্ত মৎস্য সম্পদ, গবাদি পশুও। এই ঘূর্ণিঝড়ে সম্পদ ও মৃত মানুষের সংখ্যা গোনা হবে কিন্তু গোনা হবে না সেই পশুপাখির সংখ্যা।

মানবিক দৃষ্টিতে মানুষ ছাড়াও অন্য প্রাণের কথা বলছি ঠিক, তবে এটা সম্ভব হবে না। অবশ্য ওই পথে যাবেনও না কেউ। প্রাকৃতিক দুর্যোগে মানবপ্রাণ-সম্পদের পাশাপাশি অগণন প্রাণের ক্ষয় হয়। সেদিকে দৃষ্টিও দেওয়া হয় কম। এটাকে স্বাভাবিক হিসেবে ধরে নিয়েছি আমরা।

বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট যেকোনো প্রাকৃতিক দুর্যোগের প্রথম আঘাত আসে সুন্দরবনে। বাংলাদেশের ফুসফুস হয়ে দাঁড়িয়ে থাকা সুন্দরবন প্রতিবারই প্রাথমিক আঘাত সামলায় প্রকৃতির। নিজে লণ্ডভণ্ড হয়ে বাঁচিয়ে দেয় উপকূলীয় এলাকাকে। এবারও এর ব্যতিক্রম হয়নি।

এবারও 'রিমাল'কেও বুক চিতিয়ে রুখে দিয়েছে সুন্দরবন। সুন্দরবনের ক্ষতি হলেও আরো ক্ষয়ক্ষতির হাত থেকে বাঁচিয়েছে এ বন, ছবি-সংগৃহীত

সিডর, আইলাসহ আরো অনেক দুর্যোগের মতো এবারও ঢাল হয়ে দাঁড়িয়েছে সুন্দরবন। ঝড়-জলোচ্ছ্বাসে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে, প্লাবিত হয়েছে সুন্দরবন।

বন বিভাগ সূত্রে জানা যাচ্ছে, ঘূর্ণিঝড় ছাড়াও ৩০ ঘণ্টাব্যাপী জলমগ্ন থাকায় বিশাল ক্ষতি হয়েছে সুন্দরবনের। বিভিন্ন সংবাদমাধ্যম সূত্রে জানা গেছে, এখন পর্যন্ত অন্তত ৩০টি হরিণের মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। উদ্ধার হয়েছে, আরো কয়েকটি হরিণ। বনের মধ্যে থাকা ৮০টি পুকুরে লবণ পানি ঢোকায় মিষ্টি পানির উৎস নষ্ট হয়ে গেছে।

এখানে হয়ত বাঘ ও হরিণের সংখ্যাই আমাদের চোখে পড়বে। এর বাইরে আরো অসংখ্য প্রজাতির বন্যপ্রাণী রয়েছে সুন্দরবনে। তারা গুণতিতে আসলেও আলোচনায় আসবে না।

বনজ সম্পদ ও বন্যপ্রাণীর ক্ষয়ক্ষতির তথ্য জানতে বন বিভাগের সদস্যরা সুন্দরবনের বিভিন্ন এলাকায় যাচ্ছেন। কিন্তু এখন পর্যন্ত বন ও সাগরের প্রতিকূল যে অবস্থা, তাতে এই পরিদর্শন এবং ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ এখনই নির্ণয় সম্ভব হবে না। সময় লাগবে এর। প্রাণ ও সম্পদের এই ক্ষতির পরিমাণ নির্ণয় কাগজে-কলমে হলেও এই ক্ষতি কিন্তু পূরণীয় নয়।

সুন্দরবনে ক্ষয়ক্ষতি নির্ধারণ করতে বন বিভাগ কাজ করবে কিন্তু উপকূলের মানুষজনের যে ক্ষয়ক্ষতি, সেটা নির্ধারণ হবে অধিকাংশ ক্ষেত্রে মাঠপ্রশাসনের দায়িত্বশীলদের অনুমানে ভিত্তিতে। ফলে, বাস্তবতা আর কাগজের মধ্যে থেকে যাবে বিস্তর ব্যবধান। প্রাণপ্রকৃতির ক্ষতির পাশাপাশি এটাও অপূরণীয় এবং একান্তই ব্যক্তিগত অর্থাৎ যার গেছে, তারই কেবল গেছে!

সরকারের পক্ষ থেকে ক্ষতিগ্রস্তদের সহায়তায় যা কিছু দেওয়া হবে, সেটা স্রেফ স্মারক সাহায্য হিসেবে থেকে যাবে। এধরনের সাহায্য-সহযোগিতা এমনই হয়ে থাকে। তবে মানুষকেই এখান থেকে ঘুরে দাঁড়াতে হবে। এসব ক্ষেত্রে আগেও ঘুরে দাঁড়িয়েছে তারা।

‘নার্গিস’, ‘মহাসেন’, ‘বিজলি’, ‘মোরা’, ‘রোয়ানু’, ‘মিধিলি’, ‘মোখা’, ‘আমফান’, ‘ফনি’, ‘সিত্রাং’, ‘বুলবুল’, ‘সিডর’, ‘আইলা’, ‘রিমাল’সহ দুর্যোগ মোকাবিলা করেছেন উপকূলীয় মানুষ

প্রাকৃতিক দুর্যোগের বিপক্ষে জীবনসংগ্রামের লড়ার যে দুরন্ত অভিজ্ঞতা আর সাহস, এখানেও পথ দেখাবে তাদের।

১৯৯১ সালের ২৯ এপ্রিলের প্রলয়ঙ্কয়ী ঘূর্ণিঝড়ে ১ লাখ ৩৮ হাজার মানুষের প্রাণহানি এবং কোটি মানুষ সব হারালেও সেই উপকূলের মানুষ ঘুরে দাঁড়িয়েছেন। মোকাবিলা করেছেন ‘নার্গিস’, ‘মহাসেন’, ‘বিজলি’, ‘মোরা’, ‘রোয়ানু’, ‘মিধিলি’, ‘মোখা’, ‘আমফান’, ‘ফনি’, ‘সিত্রাং’, ‘বুলবুল’, ‘সিডর’, ‘আইলা’, ‘রিমাল’সহ নানা নামের ছোটবড় নানা দুর্যোগকে।

প্রতিবারই ঘূর্ণিঝড়, নিম্নচাপ, জলোচ্ছ্বাস হয়। ক্ষতিগ্রস্ত হয় মানুষ, প্লাবিত হয় বিস্তীর্ণ এলাকা। প্রকৃতির এ ধারা চলতেই থাকবে। কখনো ছোট আবার কখনো বা বড় দুর্যোগ আঘাত হানবে। এটাই ভবিতব্য। এটাকে যখন খণ্ডনের সুযোগ নেই, তখনও সুযোগ আছে মোকাবিলার। মানুষ নিজ নিজ অবস্থান থেকে সেটা মোকাবিলা করে আসছে। সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানগুলো তাদের সহায়তা করছে। এই সহায়তার বাইরে জলোচ্ছ্বাস থেকে বাঁচাতে যে বেড়িবাঁধের কথা বলা হয়, সেটা কি পুরোপুরি হচ্ছে আদৌ!

বিভিন্ন মাধ্যম সূত্রে জানা যাচ্ছে, এখনো অনেক বেড়িবাঁধ অরক্ষিত। অনেক জায়গায় সরকারি বরাদ্দ থাকলেও কাজ হয় না ঠিকমতো। ‘রিমাল’ ঘূর্ণিঝড়ের খবরে স্থানীয়রা স্বেচ্ছাশ্রমে অনেক এলাকায় বেড়িবাঁধ মেরামত করেছেন এবারও। উপকূলবাসীকে বাঁচাতে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে এ কাজগুলো করা উচিত। এটা দেশের অন্য যেকোনো মেগা প্রকল্পের চাইতে কম গুরুত্বপূর্ণ নয়। বরং বলা যায়, সবচেয়ে জরুরি এটা! কারণ, এখানে মানুষের বেঁচে থাকা আর জীবনমরণের প্রশ্ন!

দেশের একদিকে যেমন তাণ্ডব চালিয়েছে ঘূর্ণিঝড় ‘রিমাল’, অন্যদিকে কিছু লোক সামাজিক মাধ্যমে ব্যস্ত ‘ভিউ ব্যবসায়’। ফেসবুকে ভাইরাল হওয়া একটি ছবি প্রবল আবেগে ভাসিয়েছে সবাইকে। যে ছবিতে দেখা যায়, কর্দমাক্ত স্থানে এক মা তার সন্তানকে জড়িয়ে শুয়ে আছেন। ছবিটি এবারের ঘূর্ণিঝড়ের বলে দাবি করা হয়। অথচ এই ছবিটি ভুয়া। বাংলাদেশের ফ্যাক্ট চেক প্রতিষ্ঠান ‘রিউমার স্ক্যানার’ জানিয়েছে, মা ও তার সন্তানকে আগলে রাখার এই ছবিটি সঠিক নয়। এটা আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স (এআই) দিয়ে তৈরি করা হয়েছে।

বার্তা২৪.কমকে ছবিটি যে অসত্য, তা নিশ্চিত করেছেন ‘রিউমার স্ক্যানার’-এর হেড অব অপারেশনস সাজ্জাদ হোসেন চৌধুরী।

'রিউমার স্ক্যানার’-এর হেড অব অপারেশনস সাজ্জাদ হোসেন চৌধুরী জানিয়েছেন, ছবিটি আর্টফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্সের মাধ্যমে তৈরি, বাস্তবে নয়

প্রতিষ্ঠানটির অনুসন্ধানে জানানো হয়, ঘূর্ণিঝড় ‘রিমাল’-এর তাণ্ডবে ভোলার চরফ্যাশনে কর্দমাক্ত স্থানে মা ও সন্তানের দৃশ্য দাবিতে প্রচারিত ছবিটি বাস্তব নয়। ছবিটি গত মার্চ মাস থেকেই ইন্টারনেটে পাওয়া যাচ্ছে, যা এআই বা কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার মাধ্যমে তৈরি।

যে বা যারা ফেসবুক, ইউটিউব, এক্স-সহ নানান মাধ্যমে ছড়িয়েছেন নিশ্চিতভাবেই তাদের উদ্দেশ্য সৎ নয়। সামাজিক মাধ্যমের ‘ভিউ ব্যবসার’ কারণে মানুষের আবেগ নিয়ে খেলেছেন। এখানে তাদের প্রাপ্তির জায়গা হলো কিছু ‘লাইক’, ‘কমেন্ট’ ও ‘শেয়ার’।

সামাজিকমাধ্যম থেকে অর্থ উপার্জনের সুযোগ যেখানে রয়েছে, সেখানে তারা এই মানুষের আবেগ ও সমবেদনাকে পুঁজি করে নিজেরা কিছু কামাই করতে চেয়েছেন। এটা অনৈতিক চেষ্টা তাদের। মানুষ যেখানে প্রাকৃতিক দুর্যোগে পড়ে প্রাণ বাঁচাতে লড়ছেন, সেখানে তারা মানুষের অসহায়ত্বকে উপলক্ষ করে মানবিকতার নামে অনৈতিক চর্চা করছেন।

সামাজিকমাধ্যম থেকে অর্থ উপার্জনের সুযোগ নিতে অনেকেই আবেগ ও সমবেদনাকে পুঁজি করে নিজেরা কিছু কামাই করতে চেয়েছেন, ছবি- রিউমার স্ক্যানার

রিউমার স্ক্যানার নামের প্রতিষ্ঠানটি ফ্যাক্ট চেক করায়, এখন ছবির অসঙ্গতিগুলো নিয়ে কথা বলছেন অনেকেই। দোষারোপ করছেন যারা ছবিটি প্রচার করছেন তাদের। এই প্রচারকারীদের মধ্যে বেশিরভাগই হয়ত সরল বিশ্বাসে প্রবল আবেগে আলোড়িত হয়েছিলেন। দুর্যোগেও মানবিকতাকে নিয়ে ব্যবসা করার যে কূটচিন্তা যাদের মাথা থেকে এসেছে, তারা সঠিক কাজ করেননি। এটা অন্যায় হয়েছে তাদের। এই ছবি দিয়ে হয়ত বড় ধরনের ক্ষতি হয়নি কারো কিন্তু এর দ্বারা মানুষের সরল বিশ্বাস, আবেগকে নিয়ে খেলা করা হয়েছে। এ বিষয়টির আইনি প্রতিবিধান থাকলে সেটা অনুসরণ করা উচিত হবে।

ঘূর্ণিঝড় ‘রিমাল’-এর আঘাতে প্রাণপ্রকৃতি ও সম্পদের যে ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে, সেটা অপূরণীয় হলেও ক্রমে সবকিছু ফিরবে স্বাভাবিক নিয়মে, স্বভাব ছন্দে। এই সময়ে সরকারি-বেসরকারি পর্যায়ের ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানকে দুর্গত মানুষদের পাশে দাঁড়ানো উচিত। ঘূর্ণিঝড় ‘রিমাল’ মোকাবিলা করেছে যে, প্রাণপ্রকৃতি, তাদের মধ্যে রয়েছে টিকে থাকার অফুরন্ত শক্তি। দুর্যোগ-পরবর্তী এই পর্বেও তারা বিজয়ী হবে নিশ্চিত।

কবির য়াহমদ: অ্যাসিস্ট্যান্ট এডিটর, বার্তা২৪.কম

;

নদী ধ্বংস করে কোনো প্রতিষ্ঠান নয়: নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

নৌপরিবহণ মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী, এমপি বলেছেন, নদীর পাড়ে শিল্পপ্রতিষ্ঠান হবে, বড় বড় স্থাপত্য হবে কিন্তু নদীকে রক্ষা করে সেসব প্রতিষ্ঠান করতে হবে, নদীকে ধ্বংস করে নয়।

তিনি বলেন, সরকার নদী রক্ষাকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়েছে। আমাদের মন্ত্রণালয়ে যেসব প্রকল্প গ্রহণ করা হয়, সেটা অংশীজনদের সঙ্গে পরামর্শ করেই করা হয়। তবে কিছু ক্ষেত্রে তার ব্যত্যয় হতে পারে। কিছু ক্ষেত্রে সার্ভে ঠিকমতো না করেই প্রকল্প নেওয়ার নজিরও আছে। তবে যথাযথ প্রক্রিয়া অনুসরণ করে অংশীজনদের মতামত ও সার্ভে সম্পন্ন করে যাতে প্রকল্পগুলো নেওয়া হয়, সেটি আমি কেবিনেটে তুলবো।

রোববার (২৬ মে) দুইদিনব্যাপী রাজধানীর কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশন বাংলাদেশ মিলনায়তনে ‘জাতীয় নদী সম্মেলন’-এর শেষদিনের অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী এ সব কথা বলেন।

অ্যাসোসিয়েশন ফর ল্যান্ড রিফর্ম অ্যান্ড ডেভলপমেন্ট (এএলআরডি), বাংলাদেশ পরিবেশ আইনবিদ সমিতি (বেলা), পানি অধিকার ফোরাম, রিভারাইন পিপল ও বাংলাদেশ নদী পরিব্রাজক দলের যৌথ উদ্যোগে নদী রক্ষায় এ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়।

বালুমহাল নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা সম্পর্কে প্রতিমন্ত্রী বলেন, হাইড্রোগ্রাফিক সমীক্ষা ছাড়া কোথাও কোনো বালুমহাল করতে দেওয়া যাবে না এবং নদীতে কোনো স্লুইসগেট থাকবে না, এটিও প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনায় আছে।

এই নির্দেশনাগুলো বাস্তবায়নে আমাদের সবাইকে একসঙ্গে কাজ করে যেতে হবে। কোনো ব্যত্যয় দেখলে আপনারা পরিচয় গোপন করে আমাদের জানাবেন। আমরা ব্যবস্থা গ্রহণ করবো।

খালিদ মাহমুদ আরো বলেন, নীতিমালা অনুযায়ী সরকার নিজস্ব ব্যবস্থাপনায় ৪০ শতাংশ ড্রেজিং করবে। বাকি ৬০ শতাংশ নিয়মানুযায়ী টেন্ডারের মাধ্যমে বেসরকারি ব্যবস্থাপনার অধীনে দেওয়া হয়। বর্তমানে ১শ ৫০টি ড্রেজার মেশিন সরকারের কাছে আছে। কিন্তু জনবল সংকটের কারণে কাজ সম্পূর্ণ হচ্ছে না।

জাতীয় নদী রক্ষা কমিশনের চেয়ারম্যান সারোয়ার মাহমুদ বলেন, নদী কমিশনের দায়িত্ব মূলত সুপারিশ করা। আইন প্রয়োগ করার ক্ষমতা তাদের দেওয়া হয়নি।
তিনি বলেন, নদীর নাব্যতা, নদীদূষণ, নদীদখল, দখল বা অপদখল এই তিনটি বিষয়কে গুরুত্ব দিয়ে কৌশলগত পরিকল্পনা মাফিক কার্যক্রম বাস্তবায়ন করলে আমাদের লক্ষ্য পূরণ হবে। এজন্য স্থানীয় মানুষদের অভিজ্ঞতার আলোকে সমস্যার সমাধান করতে হবে।

তিনি আরো বলেন, সিএস রেকর্ডে নদীর উল্লেখ থাকলেও পরবর্তীতে দেখা যায়, সেটা স্বার্থান্বেষী মহলের প্রভাবে ব্যক্তি মালিকানার নামে রেকর্ড হয়ে আইনি জটিলতা তৈরি। আইনের অপপ্রয়োগের এই বিষয়গুলো সম্পর্কে জনগণকে আরো সচেতন করতে হবে। অবৈধ দখলকৃত জায়গা শুধু উদ্ধার করলেই হবে না, সরকারের পক্ষ থেকে এর রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্ব নিশ্চিত করতে হবে। অন্যথায় দেখা যায়, এক পক্ষকে উচ্ছেদ করলে আরেক পক্ষ এসে সেটি দখল করে বসবে কিংবা সেই পক্ষেই ফের দখলে চলে আসে।

বাংলাদেশের নদীর জীবন ও অধিকারবিষয়ক প্রবন্ধ উপস্থাপনায় গবেষক ও নদী আন্দোলনকর্মী শেখ রোকন নদী রক্ষায় চারটি দৃষ্টিভঙ্গির প্রস্তাবনা দেন।

নদীকে মুক্তভাবে চলতে দেওয়া, নদীনির্ভর জনগোষ্ঠীর সঙ্গে নদীর অর্থনৈতিক যোগাযোগ স্থাপন করা, নদীর প্রতিবেশগত ঝুঁকি হ্রাস করা এবং নদীর পুনরুজ্জীবনের জন্য আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করা; এছাড়াও আমাদের নদীগুলো কোথায় আছে, কেমন আছে, তা জানা, এ দৃষ্টিভঙ্গিতে আগালে আমরা নদী বাঁচাতে পারবো বলে মনে করেন তিনি।

নদী সুরক্ষায় যুক্ত আন্দোলনকর্মীদের দুই বছরের (২০২৪-২৬) একটি রোডম্যাপ তুলে ধরে বেলা’র প্রধান নির্বাহী অ্যাডভোকেট সৈয়দা রিজওয়ানা হাসান বলেন, নদীর অর্থনৈতিক গুরুত্বকে আমরা প্রায় শূন্যের কোঠায় নামিয়ে নিয়ে এসেছি নানাভাবে দখল-দূষণ, বালু-পাথর উত্তোলন করে।

এ সময় দখল-দূষণকারীদের একটি পূর্ণাঙ্গ তালিকা জনসম্মুখে প্রকাশ করার দাবি করেন তিনি।

এছাড়াও, বালু-পাথর উত্তোলনের রাজনৈতিক অর্থনীতির ওপর গবেষণা করা এবং নদীর উন্নয়নে জনসংযোগ বৃদ্ধি, নদীবিষয়ক ডাটাবেজ তৈরি, অ্যাডভোকেসি ও আইনি উদ্যোগ, নদীর ‘স্বাস্থ্য কার্ড’-এর রূপরেখা প্রণয়ন (শিল্পদূষণ, গৃহস্থালি বর্জ্য, এন্টিবায়োটিক পলি, রাসায়নিক কীটনাশক ও সারের প্রভাব); নদী সংবাদকর্মী প্ল্যাটফর্ম গঠনসহ বেশ কিছু কর্মসূচি তিনি তার রোডম্যাপে উল্লেখ করেন।

এএলআরডি’র নির্বাহী পরিচালক শামসুল হুদা বলেন, নদীর যত দখল, দূষণ এর সবকিছুর সঙ্গে ব্যবসায়ী মহল এবং রাজনৈতিক প্রভাবশালীরা যুক্ত। নদী নিয়ে আমাদের আরো সচেতন হতে হবে।

এজন্য তিনি সরকারিভাবে 'নদী সপ্তাহ' ঘোষণার আহ্বান জানান।

মানবাধিকারকর্মী খুশী কবির বলেন, সবার মধ্যে জবাবদিহিতা নিশ্চিতের পাশাপাশি দায়িত্বশীলতা আনতে হবে। বর্তমানে সব জায়গায় দায়িত্বহীনতা চরমভাবে বিরাজ করছে।

নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব শেখ মো. শরীফ উদ্দিন, এনডিসি বলেন, আমাদের অনেক ভৌত উন্নয়ন হয়েছে। এখন প্রয়োজন নৈতিক উন্নয়ন। আমাদের নৈতিক চরিত্র পথ দেখাবে আলোর দিকে। নৈতিক চরিত্র উন্নয়ন হলে কেউ আর অন্যায়ভাবে নদী দখল, দূষণ করবে না।

নদী সম্মেলনের সমাপনী দিনের সভাপতি ড. আইনুন নিশাত বলেন, আমাদের দেশে প্রতিবছর যে পরিমাণ পলি পরিবাহিত হয়ে আসে, বাজেট সীমাবদ্ধতার কারণে তা দীর্ঘকাল ধরে আর পরিমাপ করা হচ্ছে না। আমাদের বালু উত্তোলন প্রয়োজন কিন্তু তা পরিকল্পিতভাবে হতে হবে এবং যথাযথ মনিটরিং করতে হবে। নদী সম্পর্কে বেসিক ডাটা নেই। স্থানীয় পর্যায়ে বিভিন্ন অঞ্চলে এরকম সম্মেলন হলে আরো বিস্তারিত আলোচনা হয়।

প্যানেল আলোচক হিসেবে বক্তব্য রাখেন রংপুর কারমাইকেল কলেজের অধ্যাপক ড. তুহিন ওয়াদুদ, রিভার অ্যান্ড ডেল্টা রিসার্চ সেন্টারের চেয়ারম্যান মো. এজাজ, নদী পরিব্রাজক দল-এর মো. মনির হোসেন এবং সিসিডিবি’র নির্বাহী পরিচালক জুলিয়েট কেয়া মালাকার।

এছাড়াও দেশের ৮টি বিভাগ থেকে ৮ জন নদী আন্দোলনের সাথে যুক্ত প্রতিনিধিরা বক্তব্য রাখেন।

অংশীজনদের নিয়ে সম্মিলিতভাবে অতিবিপন্ন নদীগুলোকে কীভাবে রক্ষা করা যায়, সে বিষয়ে বিশদ নাগরিক কর্মপরিকল্পনা গ্রহণ করতে এ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। এতে দেশের ৮ বিভাগের বিভিন্ন জেলা থেকে প্রায় ১শ নদী আন্দোলনকর্মী যোগদান করেন।

;

সুন্দরবনে অগ্নিদুর্ঘটনার দীর্ঘমেয়াদী বহুমাত্রিক প্রভাব



অধ্যাপক চয়ন বিকাশ ভদ্র
সাম্প্রতিক ছবি

সাম্প্রতিক ছবি

  • Font increase
  • Font Decrease

উদ্ভিদ ও প্রাণী বৈচিত্র্য নিয়ে আপন বৈশিষ্ট্যে উজ্জ্বল ম্যানগ্রোভ ফরেস্ট সুন্দরবন। এই বন আমাদের গর্ব। এটি বিশ্ব প্রাকৃতিক ঐতিহ্যের অংশ। নানা ধরনের গাছপালা, পশুপাখি এবং মৎস্যসম্পদে পরিপূর্ণ বিশ্বখ্যাত সুন্দরবন। আমরা জানি, সুন্দরবনের মোট গাছপালার প্রায় শতকরা ৭৩ ভাগই সুন্দরী গাছ। সুন্দরী গাছ ছাড়াও এখানে রয়েছে পশুর, ধুন্দল, কেওড়া গরান, গর্জন, গোলপাতা ও ফার্নের মতো প্রায় ৩৩০ প্রজাতির গাছপালা ও উদ্ভিদ, সি ঈগাল, বাজ, সাদা বক, মাছরাঙা, কাঠঠোকরা, বনমোরগের মতো ২৭০ প্রজাতির পাখি এবং কোড়াল, ফাইসা, চিংড়ির মতো নানা ধরনের বড় ও ছোট আকারের ৪০০ প্রজাতির মাছ।

বলা প্রয়োজন, সুন্দরবন শুধু প্রাকৃতিক সম্পদের আধারই নয়, দেশের প্রাকৃতিক পরিবেশ ভারসাম্য রক্ষা এবং ঝড়, বন্যার মতো ভয়াবহ প্রাকৃতিক বিপর্যয় থেকে এলাকাকে বাঁচাতে সুন্দরবনসহ উপকূলীয় বনাঞ্চলের রয়েছে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা। বিগত প্রায় দুইশ’ বছরে কম করে হলেও ৩০ বার বড় ধরনের ঘূর্ণিঝড় ও জলোচ্ছ্বাসের আঘাত হেনেছে সুন্দরবনের ওপর। সবশেষে সিডর, আইলা ও মহাসেনের প্রবল তান্ডবে সুন্দরবনের অপূরণীয় ক্ষতি হয়েছে। সুন্দরবন হারিয়েছে বিপুলসংখ্যক গাছপালা, পশুপাখি ও মৎস্যসম্পদ, এতে হুমকির সম্মুখীন বনের প্রাণিবৈচিত্র। তারপরেও ঝড়ঝঞ্ঝা, ঘূর্ণিঝড় আম্ফান, সিডর ও আইলার মতো ভয়াবহ প্রাকৃতিক বিপর্যয় থেকে এলাকাকে বাঁচাতে সুন্দরবন রেখেছে সাহসী যোদ্ধার ভূমিকা। ঢাল হাতে নিয়ে দাঁড়িয়ে থকে সৈনিকের মতো সুন্দরবন রক্ষা করেছে উপকূলীয় লাখো মানুষের জীবন, তাদের বাড়িঘর, পশুপাখি, মানুষের বেঁচে থাকার একমাত্র সম্বল। বাংলাদেশের রক্ষাকবচ হয়ে দাঁড়িয়েছে সুন্দরবন। কিন্তু বার বার আগুন লেগে পুড়ে যাচ্ছে সুন্দরবন। একবার আগুন লাগার ধকল সামলে উঠার আগেই আবার আগুনে পুড়ে যাচ্ছে একরের পর একর বন। নষ্ট হয়ে যাচ্ছে জীব বৈচিত্র্য, এলাকা ছেড়ে পালিয়ে যাচ্ছে বহু প্রাণী।

গত ৪ মে ২০২৪ শনিবার সকাল ১১টায় পূর্ব সুন্দরবন বিভাগের চাঁদপাই রেঞ্জের আমুরবুনিয়া টহল ফাঁড়ির লতিফেরছিলা এলাকায় আগুন লেগে বন বিভাগের হিসেবেই পুড়ে যায় ৭.৯ একর বনভূমি। ৪৭ ঘন্টা পর ৬ মে দুপুর আগুন শতভাগ নিয়ন্ত্রনে আসে। বিশেষ করে শুষ্ক মৌসুম মার্চ থেকে মে মাস পর্যন্ত সুন্দরবনে আগুন লাগা যেন নিয়মিত ঘটনা হয়ে দাঁড়িয়েছে। প্রতিবছরই বিশ্ব ঐতিহ্যের অন্তর্গত সুন্দরবনে আগুন লাগার ঘটনায় প্রতীয়মান হয় যে, এর পছনে স্থানীয় প্রভাবশালী কোনো সংঘবদ্ধ চক্রের হাত রয়েছে। প্রতিবছরই পুড়ছে বনের নতুন নতুন এলাকা। এবারের আগুন লেগেছে সুন্দরবন পূর্ব বিভাগের চাঁদপাই রেঞ্জের আমরবুনিয়া টহল ফাঁড়ির এলাকায়। বনে সাধারণত আগুন লেগে থাকে বজ্রপাত অথবা প্রবল ঝড়-বৃষ্টিতে গাছে গাছে সংঘর্ষের কারণে। বন থেকে মধু, গোলপাতা, সুন্দরী গাছ আহরণরতদের ফেলে আসা বিড়ি-সিগারেটের টুকরা থেকেও আগুন লাগা বিচিত্র নয়। তবে তা খুব কমই ঘটে থাকে।

সুন্দরবন একদিকে যেমন বাংলাদেশের গর্ব, অন্যদিকে বিশ্ব ঐতিহ্য বা ওয়ার্ল্ড হেরিটেজের অংশও বটে। আর তাই বন ও জলদস্যুদের উৎপাত এবং দুর্বৃত্তদের বারবার আগুন লাগানোর বিষয়টি উদ্বেগজনক। চক্রটি শুকনো মৌসুমে বনে আগুন লাগিয়ে প্রশস্ত করে মাছ চাষের পথ। এর পাশাপাশি বনের জায়গা দখল করাও আরেকটি উদ্দেশ্য হতে পারে। বন বিভাগের তদন্ত প্রতিবেদনে জানা যায়, সর্বশেষ অগ্নিকা-সহ আগের ২৪টি ঘটনায় সুন্দরবনের প্রায় ৮৫ একর বনভূমির বিভিন্ন ধরনের গাছপালা পুড়ে গেছে। ধ্বংস হয়েছে জীববৈচিত্র্য। স্থানীয় গ্রামবাসীদের ভাষ্য, প্রধানত মাছ চাষের জন্যই প্রতিবছর দুষ্টচক্র আগুন লাগিয়ে থাকে সুন্দরবনে। সুন্দরবনে বারবার আগুন লাগার পেছনে কিছু মানুষের দুরভিসন্ধি ও হঠকারিতাই প্রধানত দায়ী বলে মনে করা হচ্ছে ।

আগুনের যে প্রভাব থাকছে অনালোচিত

এবার বারবার আগুন লাগায় এই ম্যানগ্রোভ বনের জীবকুলের উপর এর প্রভাব নিয়ে আলোচনা করবো। ম্যানগ্রোভ বন হল বিশ্বের সবচেয়ে উৎপাদনশীল বাস্তুতন্ত্রের মধ্যে একটি কারণ প্রচুর পরিমাণে জীববৈচিত্র্য রয়েছে, যার মধ্যে মাইক্রো থেকে ম্যাক্রো-অর্গানিজমের পাশাপাশি অমেরুদন্ডী এবং মেরুদন্ডী প্রাণী রয়েছে। ম্যানগ্রোভ উদ্ভিদগুলি উপকূলীয় সুরক্ষা, স্থিতিশীলতা, জলবায়ু নিয়ন্ত্রণ, কার্বন সংরক্ষণ, জল পরিস্রাবণ এবং বিশুদ্ধকরণের মতো অসংখ্য পরিবেশগত ভূমিকা পালন করে। ম্যানগ্রোভের অন্যান্য সহায়ক পরিসেবাগুলি হল পুষ্টিকর সাইকেল চালানো, মাটি তৈরি করা এবং মাছ ও পাখিদের বাসস্থান এবং বাসা বাঁধার জায়গা হিসাবে পরিবেশন করা। ম্যানগ্রোভগুলি প্রায়ই জলাবদ্ধ জলাভূমি পরিবেশে পাওয়া যায় যা ধাতু সমৃদ্ধ। বিভিন্ন ধরণের আগাছা মাটিতে বাস করে এবং খাদ্য শৃঙ্খলে প্রাথমিক উৎপাদক হিসেবে কাজ করে। ম্যানগ্রোভ বনের চারপাশে আগাছার উপস্থিতি বিশেষ করে শুষ্ক মৌসুমে গুল্ম আগুনের জন্য নিজেদের সংবেদনশীল করে তোলে। এছাড়াও, নৃতাত্ত্বিক ক্রিয়াকলাপ যেমন বন উজাড়, বালি খনন, বাড়ি নির্মাণ, পুনরুদ্ধার এবং তৈলকরণ কার্যক্রম ম্যানগ্রোভ গাছপালাকে ধ্বংস করে এবং ম্যানগ্রোভ বনে পলি জমে যা জলাভূমিকে বালুকাময় মাটিতে রূপান্তরিত করে।

বালুকাময় মাটি আগাছা এবং ম্যাক্রোফাইটের বিস্তারকে সমর্থন করে। বনের ক্ষয়প্রাপ্ত অংশে আগাছার বৃদ্ধি অ-ম্যানগ্রোভ প্রজাতি যেমন আর্থ্রোপড (প্রজাপতি, মৌমাছি, ওয়াপ এবং পিঁপড়া), ইঁদুর (বুশ ইঁদুর), সাপ এবং বিভিন্ন প্রজাতির পাখিদের আকর্ষণ করে। বনের চারপাশের ঝোপগুলিতে ইচ্ছাকৃতভাবে আগুন দেওয়া হলে তা সমগ্র বাস্তুতন্ত্রকে বিপন্ন করে, এটি মাটি এবং গাছপালাগুলির উপর তাপের বিরূপ প্রভাব পড়ে। গাছের পাতা শুকিয়ে গেলে (অক্টোবর-মার্চ) এবং সহজেই দাহ্য হলে শুষ্ক মৌসুমে পোড়ার ঘটনা ঘটে। আগুনে পুড়ে যাওয়ার ফলে ফলে বনের মাটির উপর পরিবেশগত প্রভাব পড়ে এবং ম্যানগ্রোভ বনের অন্যান্য জীবের উপরও এ প্রভাব পরিলক্ষিত হয়। উদ্বায়ী মাটির রাসায়নিকগুলি উচ্চ তাপমাত্রার অধীনে বায়ুমন্ডলে প্রবেশ করে এবং অ্যাসিড বৃষ্টি হিসাবে ফিরে আসে, উপরন্তু তরল রাসায়নিকগুলি বৃষ্টিপাতের সময় ভূগর্ভস্থ জলের মাধ্যমে ভূগর্ভস্থ জলের উৎস এবং প্রতিবেশী জলাশয়কে দূষিত করার জন্য সঞ্চারিত হয় পোড়ানোর সময় জ্বলন্ত আগুন মাটিতে বসবাসকারী ঘাস এবং জীবগুলিকে মেরে ফেলে।

সমস্যা হল গুল্ম পোড়ানো মাটির গঠনকে ধ্বংস করে এবং জলাবদ্ধ ম্যানগ্রোভ মাটি এবং আশেপাশের জলে রাসায়নিক পদার্থের ক্ষয় ঘটায়। মাটির প্রোফাইলে ভারী ধাতুর ছিদ্রের ফলে মাটির পুষ্টির ক্ষতি হয়, যা মাটির পৃষ্ঠের জীবের উপর নতিবাচক প্রভাব ফেলে। মাটির উপরের মাটির পুষ্টি এবং মাটির উন্নতি সাধনকারী জীব যেমন কঁচো এবং কীটপতঙ্গের ক্ষয় হয় যা পচন এবং বায়ুচলাচলের সুবিধার্থে মাটিতে ঢোকে। ঝোপের আগুনের তাপে ধীর গতির প্রাণীর মৃত্যু হয় । পোড়া গাছের ধোঁয়া এবং কালি বায়ুমন্ডলীয় কণা বৃদ্ধি করে। পোড়া গাছের ধোঁয়া এবং কালি বায়ুমন্ডলীয় কণার পরিমাণ বাড়িয়ে দেয়, যা স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর। এটি বায়ুমন্ডলীয় কার্বন ডাই অক্সাইড বৃদ্ধিতে অবদান রাখে যার ফলে বিশ্ব উষ্ণায়ন বৃদ্ধি পায়। পোড়ানোর তাপ ম্যানগ্রোভের পাতাকে সঙ্কুচিত করে এবং তাদের সালোকসংশ্লেষণ ক্ষমতাকে প্রভাবিত করে। ফলে উদ্ভিদ সঠিক পরিমাণে কার্বন ডাই অক্সাইড গ্রহণ এবং অক্সিজেন ত্যাগ করতে পারে না।

বন না থাকলে একদিকে যেমন বাঘ, চিতল হরিণসহ অমূল্য বন্যপ্রাণীর অস্তিত্ব বিপন্ন হবে অন্যদিকে ঝড়-জলোচ্ছ্বাসসহ বিবিধ প্রাকৃতিক দুর্যোগে বিপন্ন হবে জনপদ ও বসতি। বার বার সুন্দরবনে অগ্নিকাণ্ডের ফলে সামগ্রিক ভাবে পরিবেশের ক্ষতি হচ্ছে । গত ২২ বছরে সংরক্ষিত এই ম্যানগ্রোভ বনে ৩২ বার আগুন লেগে বড়গাছসহ লতাগুল্ম মারা গেছে। অগ্নিকান্ডের ফলে প্রাণীকূলের আবাস ও প্রজননস্থল ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। বন্যপ্রাণীরা আতঙ্কগ্রস্ত হয়ে পড়ছে। বনের প্রাণ-প্রকৃতির শৃঙ্খলা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। প্রভাব পড়েছে বনের প্রাণীকূলের খাদ্যচক্রে। চরম আঘাত আসে সুন্দরবনের বাস্তুতন্ত্রের উপর।

পূর্ব সুন্দরবন বিভাগের চাঁদপাই রেঞ্জের আমুরবুনিয়া টহল ফাঁড়ির লতিফের ছিলা এলাকায় লতাগুল্ম বেশি থাকার কারণে আগুনে শুকনো পাতা বেশি পুড়েছে, বড় গাছের তেমন ক্ষতি হয়নি। তবে জানা গেছে, পুড়ে যাওয়া স্থানে লতাপাতা ও গুল্মজাতীয় সিংড়া ও বলা গাছ বেশি ছিল। সিংড়া ও বলা গাছ ম্যানগ্রোভের অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ উদ্ভিদ। আগুন লাগার এ স্থানটি ছিল পাখিদের আশ্রয়স্থল। নানা ধরণের কীটপতঙ্গ, শামুক, ব্যাঙ ও পাখির বিচরণ এখানে লেগেই থাকত। সুন্দরবন এক জটিল বাস্তুসংস্থান। ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র অণুজীব, ছোট-বড় উদ্ভিদ ও প্রাণীর সমন্বয়ে এক বৃহৎ খাদ্যশৃঙ্খল তৈরি হয়েছে এখানে। বনের কোথাও আগুন লাগলে সে স্থানের খাদ্যশৃঙ্খল এলোমেলো হয়ে যাবে এটাই স্বাভাবিক। এই আগুনের কারণে বড় প্রভাব পড়তে পারে অজগরের ওপর। কারণ এই প্রাণীটি ধীরে চলে। এ ছাড়া কীটপতঙ্গ এবং ক্ষুদ্র প্রাণী যারা দ্রুত চলাফেরা করতে পারে না তারা ক্ষতির মুখে পড়বে। বাঘ, শূকর, হরিণ তারা দ্রুত সরে যেতে পারে; তাই তাদের ক্ষতির সম্ভাবনা কম।

বন্যপ্রাণীরা আগুনে ভয় পায়। বনে হঠাৎ আগুন লাগিয়ে দিলে জন্তুরা ভয় পেয়ে দিকভ্রান্ত হয়ে এ দিক ও দিন ছুটতে থাকে। হারিয়ে যায় ওদের বাসস্থান। আগুন লেগে বনের নীচের দিক পরিষ্কার হয়ে গলে শিকারিদের শিকারেও সুবিধা হয়। বাসস্থান বা লুকনোর জায়গা না মেলায় সহজেই বন্যপ্রাণীরা শিকার হয়। আগুনের ভয়ে ছুটোছুটিতে অনেক পশুর বাচ্চাও পালাতে পারে না। শিকারিরা সহজেই তাদের শিকার করে। এমনকি, বড় প্রাণীরাও অনেক সময়ে আগুনে ঝলসে যায়, না হয় মারা যায়। আগুন নেভার পরে আতঙ্কের রেশে অনেক প্রাণীর বংশবৃদ্ধিও ব্যাহত হয়। আগুনের হাত থেকে রক্ষা পায়না-বাদ যায় না সবুজ লতা-পাতা, উদ্ভিদের কন্দ, বীজ ও মূল, মাটির নানা উপকারী জৈব-অজৈব পদার্থ। সুন্দরবনের পূর্ব বন বিভাগের এই অংশটি উঁচু হওয়াতে সেখানে অজগরের আবাসস্থল রয়েছে। এ ছাড়া হরিণ, বানর, শূকর, বাদুড়সহ নানা প্রজাতির প্রাণীর বিচরণ তো রয়েছেই। ফলে আগুনে ক্ষতিগ্রস্ত হবে তারা এবং তাদের আবাসস্থল। তবে আগুনে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে দ্রুত চলাফেরা করতে না পারা প্রাণী, পতঙ্গ এবং বিশেষ করে অজগর।

বাঘ গবেষকরা বলছেন, বাঘেরা আগুন ও শব্দকে বেশি ভয় পেয়ে থাকে। তাই সুন্দরবনের চাঁদপাই রঞ্জের আমরবুনিয়া ক্যাম্পের বনাঞ্চলের আগুনে বেশি প্রভাব পড়বে বাঘের ওপর। পুর্বেই উল্লেখ করা হয়েছে, টেরিটোরিয়াল প্রাণী হওয়াতে বাঘেরা সহসা অন্য এলাকায় গিয়ে অভিযোজিত হতে পারবে না। অন্যদিকে আগুন বেশিদূর না গড়ালেও বাঘের শিকার প্রাণীরা আগুনের কারণে এই এলাকা ছেড়ে চলে গলে খাদ্য সংকটে পড়তে পারে বাঘেরা। বাঘেরা নির্দিষ্ট এলাকায় বিচরণ করে থাকে। এই এলাকায় যে বাঘগুলো ছিল সেগুলো এখন বনের অন্য পাশে চলে যেতে বাধ্য হবে। এতে খাদ্য শিকারে তারা সমস্যায় পড়তে পারে। কারণ বাঘের শিকার প্রাণী হরিণ, শূকর, শজারুসহ বিভিন্ন ছোট-বড় প্রাণী এই এলাকা থেকে সরে যেতে পারে। যেহেতু বনের ওই এলাকায় একটি দুর্যোগ ঘটেছে, তাই সহসা এই এলাকায় ফিরে আসতে চাইবে না বাঘ, হরিণসহ বন্য প্রাণীরা। শিকারি প্রাণী কমে গেলে বাঘের খাদ্যের অভাব হবে। আর বাঘেরা বেশি দিন ক্ষুধার্ত থাকলে লোকালয়েও তাদের শিকার খুঁজতে আসার আশঙ্কা রয়েছে। যতদিন আগুনের ক্ষয়ক্ষতি থাকবে ততদিন আগুন লাগা বনে বন্য প্রাণীর আনাগোনা থাকবে না। যেসব প্রাণী চলাচল করতে পারে তারা দ্রুত সরে গিয়ে রক্ষা পেতে পারে। তবে উদ্ভিদসহ নিম্ন শ্রেণির যে প্রাণীগুলো রয়েছে; যেমন- পোকামাকড়, শামুক, সরীসৃপ ইত্যাদি প্রাণী এ ধরণের আগুনে বেশিই মারা পড়ে। সেকারণেই উদ্বেগ বাড়ছে এই ধরনের অগ্নিদুর্ঘটনার আধিক্যে।

অতীতের ঘটনাগুলো বিশ্লেষণ করলে দেখা যায় দেখা যাবে, সুন্দরবনে ঠিক মার্চ-এপ্রিল-মে মাসের সময়টা এলেই আগুন লাগে। এ জন্যে মনে করার যথেষ্ট কারণ আছে এ আগুন প্রাকৃতিক নয়, মানুষের লাগানো। বনের এই এলাকা খুবই ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে উঠে এ সময়। এ সময় সুন্দরবনের এই এলাকা কঠোর নজরদারির মধ্যে রাখতে হবে। কেউ যেন মার্চ -এপ্রিল-মে মাসে ঐ অঞ্চলে বিড়ি, সিগারেট না খায়, মশাল না জ্বালায় সে বিষয়ে কঠোর নজরদারি করতে হবে। আর যেহেতু প্রতি বছরই এমনটি ঘটছে, তাই শীতকালের এই সময় এ এলাকায় বনজীবীদের পাশ বন্ধ করে টহল জোরদার করা যেতে পারে। ড্রোন ও হেলিকপ্টার ব্যবহার করা যেতে পারে এক্ষেত্রে। সেইসঙ্গে বন বিভাগের দক্ষ জনবল ও প্রয়োজনীয় তহবিলের জোগান অপরিহার্য। সর্বোপরি দরকার বনজীবী, ওই অঞ্চলের বাসিন্দাদের মধ্যে সচেতনতা সৃষ্টি। সুন্দরবনকে বাঁচিয়ে রাখা দরকার আমাদের স্বার্থেই। বুক পেতে সিডর, আইলার তান্ডব মোকাবেলা করার কথা আমাদের ভুলে গেলে চলবে না। ভুলে গেলে চলবে না রয়েল বেঙ্গল টাইগারসহ অন্যন্য উদ্ভিদ এবং প্রাণীর বাস এই সুন্দরবন।

লেখকঃ মুমিনুন্নিসা সরকারি মহিলা কলেজের উদ্ভিদবিজ্ঞান বিভাগের প্রধান।

;

পাউলোনিয়া এবং এক রাজকুমারীর গল্প



ড. মইনুল হাসান
ছবি: পাউলোনিয়া, ছবি সৌজন্যে- ড.মইনুল হোসেন

ছবি: পাউলোনিয়া, ছবি সৌজন্যে- ড.মইনুল হোসেন

  • Font increase
  • Font Decrease

ঘটনাটি ঘটেছিল ২০২৩ সালের প্যারিসের ৬ নম্বর মহল্লায়! গত ৮০ বছর ধরে ডালপালা মেলে ঠাঁয় একইস্থানে দাঁড়িয়ে থাকা ঝাঁকড়া মাথার বৃক্ষটি নেই। প্রতিবছর বসন্তের শুরুতেই সাদা, নীল ও বেগুনি, তিনটি রং মিলে ঘণ্টির আকারের ফুলে ফুলে ছেয়ে যেতো গাছটির সব ডালপালা।

গাছটি নেই! পৌর কর্তৃপক্ষের নির্দেশে কেটে ফেলা হয়েছে। কাউকে কিছু না জানিয়ে, ধারালো বৈদ্যুতিক করাতে খণ্ড, খণ্ড করে কেটে ফেলা হয়েছে গাছটিকে।

আট দশকে এ গাছটি অনেক ঘটনার সাক্ষী। অনেক ইতিহাস বুকে নিয়ে সে নিজেই এখন ইতিহাস হয়ে গেল।

খবরটি ছড়িয়ে পড়লো মহল্লায়। একে একে সেখানে জড় হলেন বিষণ্ণ, বিচলিত এলাকাবাসী।

অন্যায়, বড় অবিচার’- ২৫ বছরের তরুণী পলিনের অস্ফুট আর্তি!

ছোটবেলায় এক কবোষ্ণ প্রভাতে বাবার হাত ধরে এ গাছটির নিচে দাঁড়িয়েছিল সে। পরম মমতায় গাছটি ছুঁয়ে তার প্রিয় বাবা বলেছিলেন, ‘পাউলোনিয়া’। রাশিয়ার প্রথম জার, পলের কন্যা রাজকুমারী আন্না পাভলোনার নামে এ গাছটির নামকরণ করা হয়েছে।

পাউলোনিয়া ফুল, ছবি- সংগৃহীত

আজ বাবা বেঁচে নেই! পলিনের মন খারাপ হলেই পাউলোনিয়ার শীতল ছায়াতে এসে দাঁড়াতো। যেন তার বাবার ছায়া! অনেক মায়ার ছায়া! মানুষের নিষ্ঠুরতায় তাও হারিয়ে গেল! সকালের শিশিরের মতো পলিনের চোখে বিন্দু বিন্দু অশ্রু জমে।

বিক্ষুব্ধ এলাকাবাসী উচ্চকিত স্লোগানে উত্তাল হলো। তাদের সঙ্গে যোগ দিলেন সংবাদকর্মীরা।

মেয়রের বরাবরে লিখিত কড়া প্রতিবাদ জানালেন তারা। বিব্রত পৌরপ্রধান এমন পরিস্থিতির জন্য মোটেই প্রস্তুত ছিলেন না। জবাবদিহির বাধ্যবাধকতা এড়াতে পারলেন না তিনি।

তিনি জানান যে, গাছটি ভেতরে ফাঁপা হয়ে গিয়েছিল। যেকোনো সময়ে এমনিতেই ভেঙে পড়তে পারে। দুর্ঘটনা এড়াতে গাছটি কেটে ফেলতে হয়েছে।

পাউলোনিয়াসি পরিবারের পাউলোনিয়ার বেশ কয়েকটি প্রজাতি রয়েছে। তবে Paulownia tomenteux প্রজাতিটি বেশি দেখা যায়। ৭০ থেকে একশ বছর অনায়াসে বেঁচে থাকতে পারে।

পাউলোনিয়া, স্থান- তুলুজ, ফ্রান্স, ছবি সৌজন্যে- ড. মইনুল হাসান

১৮৩৪ সালে অপূর্ব সুন্দর ফুলের এই গাছটি প্রথম জাপান থেকে প্যারিসে পৌঁছে। প্রথম পাউলোনিয়া ১৯৫৬ সাল অর্থাৎ ১শ ২২ বছর পর্যন্ত বেঁচে ছিল। পৌর কর্তৃপক্ষের তথ্যমতে, বর্তমানে প্যারিসে এই প্রজাতির উদ্ভিদ রয়েছে, প্রায় ১ হাজার ৩শটি।

ফ্রান্সের বিভিন্ন অঞ্চলে পাউলোনিয়া বিরল নয়। শুধু ফুলের জন্যই নয়, এ উদ্ভিদটি অনেক কারণে সমাদৃত। অতি দ্রুত বর্ধনশীল এ উদ্ভিদটি সাধারণ উদ্ভিদ থেকে চারগুণ বেশি কার্বন-ডাই-অক্সাইড শোষণ করতে পারে। তেমনি চারগুণ বেশি অক্সিজেন উৎপাদন করে। বাতাস নির্মল করে।

খুব উন্নতমানের কাঠের জন্য এর কদর কম নয়! তাছাড়া আমিষসমৃদ্ধ গাছের পাতা উৎকৃষ্ট পশুখাদ্য। অনুর্বর জমিতে জন্মাতে সক্ষম এবং ভূমির ক্ষয় রোধে কার্যকর।

পাউলোনিয়া ফুলের নেকটার মৌমাছিদের খুব পছন্দ। পাতার মতোই, মধুর আছে অনেক ঔষধি গুণ। মিষ্টি ঘ্রাণের জন্য বিখ্যাত সৌগন্ধিকরা এর ফুলের খুব ভক্ত।

এই উদ্ভিদটির আরেকটি নাম ‘রাজকুমারী’। পলিন নিজেও ছিলেন তার বাবার কাছে আদরের এক রাজকুমারী।

ড. মইনুল হাসান: অনুজীব বিজ্ঞানী, প্যারিস, ফ্রান্স

;