লোডশেডিং দিতেই হবে: প্রধানমন্ত্রী



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

  • Font increase
  • Font Decrease

রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে বিশ্বব্যাপী জ্বালানির মূল্য বৃদ্ধি পেয়েছে। এমন অবস্থায় জ্বালানি তেল আমদানি, এলএনজি আমদানি সাময়িক বন্ধ রয়েছে। তাই পরিস্থিতি বিবেচনায় লোডশেডিং দিতেই হবে বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

বুধবার (৬ জুলাই) সকালে চট্টগ্রাম প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে শেখ কামাল আইটি বিজনেস ইনকিউবেটরের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী এ কথা বলেন। অনুষ্ঠানে গণভবন থেকে ভার্চুয়ালি যুক্ত ছিলেন তিনি।

সরকার প্রধান বলেন, মানুষের কল্যাণে যা যা করার দরকার সে জিনসটাই আমরা করছি। আমরা বিদ্যুৎ উৎপাদন বাড়িয়েছে, সেজন্য বাংলাদেশের প্রত্যেকটি ঘরে বিদ্যুৎ পৌঁছে দিতে সক্ষম হয়েছি। তবে আপনারা জানেন ইউক্রেনের যুদ্ধের কারণে আমেরিকা ও ইউরোপ রাশিয়ার ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করলো। যার ফলশ্রুতিতে তেলের দাম বেড়ে যাচ্ছে। প্রত্যেকটা জিনিসের দাম বেড়ে যাচ্ছে। এলএনজির দাম বেড়ে গেছে। এমন অবস্থায় বিদ্যুৎ কেন্দ্রগুলো চালিয়ে রাখা আমাদের যেটুকু গ্যাস আছে তাছাড়া বিদ্যুৎ কেন্দ্রগুলো চালিয়ে রাখাই একটা কষ্টকর ব্যাপার হয়ে দাঁড়িয়েছে।

তিনি বলেন, রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে বিদ্যুৎকেন্দ্রগুলো চালিয়ে রাখা অত্যন্ত ব্যয়বহুল হয়ে দাঁড়িয়েছে। ফার্নেস অয়েলের আগে দাম ছিল ৭০৮ টাকা সেখানে ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে ১০৮০ টাকা, অর্থ্যাৎ ৫২ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে। এলএনজি যেটা মাত্র এমএমবিটিইউ ১০ মার্কিন ডলারে পাওয়া যেতে এখন তা ৩৮ মার্কিন ডলার। প্রায় ২৮০ শতাংশ দাম বৃদ্ধি পেয়েছে। কয়লাও ১৮৭ মার্কিন ডলার থেকে এখন তা ২৮৭ মার্কিন ডলার। ডিজেলের লিটার আগে ছিল ৮০ মার্কিন ডলার এখন সেটা ১৩০ চলে এসেছে। এবং শোনা যাচ্ছে এটা নাকি ৩০০ মার্কিন ডলার পর্যন্ত উঠতে পারে। এখন একটা ভয়াবহ পরিস্থিতির দিকে সারাবিশ্ব যাচ্ছে। এবং আমরা অনেক নির্ভরশীল ডিজেলের ওপর আর সেই ডিজেলের দাম আরও বৃদ্ধি পাবে। প্রতিনিয়ত বাড়ছে। আর যদি নিষেধাজ্ঞাটা না দিত তাহলে কিন্তু রাশিয়া থেকে, ইউক্রেন থেকে তেল, গম ও সার এগুলোর সরবরাহ থাকতো। 

প্রধানমন্ত্রী বলেন, করোনার কারণে শুধু আমরা নই, পুরো বিশ্বই ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। অর্থনৈতিক ভাবে শুধু আমরা নই সবাই ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। যুদ্ধের কারণে বিশ্বে বিভিন্ন জিনিসের মূল্য বৃদ্ধি পেয়েছে। সারের মূল্য বেড়েছে। যার প্রভাব পড়েছে বাংলাদেশেও।

কক্সবাজারে জেন্ডার সংবেদনশীল সাংবাদিকতা বিষয়ক কর্মশালা



নিউজ ডেস্ক, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
কর্মশালা

কর্মশালা

  • Font increase
  • Font Decrease

কক্সবাজারে জেন্ডার সংবেদনশীল সাংবাদিকতা বিষয়ক দুই দিনব্যাপী কর্মশালা শুরু হয়েছে।

বুধবার (২৮ সেপ্টেম্বর) শহরের তারকা মানের হোটেলে জাতিসংঘের নারী বিষয়ক সংস্থা ইউএন উইমেনের উদ্যোগে ও জার্মানভিত্তিক সংবাদ সংস্থা ডয়েচে ভেলে একাডেমির সহযোগিতায় কর্মশালা শুরু হয়।সকালে কর্মশালার উদ্বোধন করেন ইউএন উইমেন কক্সবাজার সাব অফিসের হেড সিলিয়া রাজেন্দার।

কর্মশালার প্রশিক্ষক ছিলেন ইউএন উইমেনের গ্রোগ্রাম অ্যানালিস্ট নাদিরা ইসলাম, ডয়েচে ভেলে একাডেমির প্রকল্প ব্যবস্থাপক মাইনুল ইসলাম খান ও মাফিয়া মুক্তা।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন ইউএন উইমেনের কক্সবাজার কমিউনিকেশন্স লীড মাহমুদুল করিম, ডয়চে ভেলে একাডেমির প্রডিউসর জিসান পাল, কমিউনিটি কমিউনিকেশন স্কিলস ডেভেলপমেন্ট ফর সোশ্যাল অ্যাওয়ারনেস ইন কক্সবাজার প্রকল্পের ব্যবস্থাপক শিহাব জিশান প্রমুখ।

কর্মশালার মূল লক্ষ্য গণমাধ্যমে নারী—পুরুষের ভারসাম্য রক্ষা, সংবাদে নারীকে সংবেদনশীলভাবে উপস্থাপন, নারীর প্রতি সহিংসতা বিষয়ক প্রতিবেদনে সংবেদনশীল শব্দ, ছবি ব্যবহার ও নির্ভরযোগ্য তথ্যের উৎস সম্পর্কে স্থানীয় সাংবাদিকদের সম্যক ধারণা দেওয়া।

সিলিয়া রাজেন্দার বলেন, সমাজে নারীদের অধিকার নিশ্চিত করা আবশ্যক। এবং পুরুষের পাশাপাশি নারীদেরও সমাজের আইডল হতে হবে। সমাজে বিভিন্ন লিঙ্গের মানুষ বসবাস করে। এতে লিঙ্গবৈষম্য না করে সকলকে মানুষ হিসেবে বিবেচনা ও সম্মান করতে হবে। নারীদের ভয়েস এবং তাদের কর্মকাণ্ড আন্তর্জাতিকভাবে প্রচার হওয়া উচিত।

কর্মশালায় ভিকটিমদের সুরক্ষার জন্য সাংবাদিকদের সক্রিয় ভূমিকা, বিশ্বে নারীর প্রতিভার স্বীকৃতি, শান্তিপূর্ণ ও সমতার বিশ্ব তৈরিতে সাংবাদিকরা যে গুরুত্বপুর্ণ ভূমিকা রাখতে পারে সেই বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করা হয়। এছাড়া জেন্ডার সংবেদনশীল সাংবাদিকতা ও প্রতিবেদন তৈরির ক্ষেত্রে জেন্ডার সংবেদনশীলতার বিভিন্ন দিক নিয়ে আলোচনা এবং জেন্ডার সংবেদনশীল সাংবাদিকতা নিয়ে গ্রুপ ওয়ার্কে অংশগ্রহণ করা হয়।

এ কর্মশালায় প্রথম দিনে ১৫ জন প্রিন্ট ও ইলেক্ট্রনিক মিডিয়ার সাংবাদিক অংশ নেন। বৃহস্পতিবার (২৯ সেপ্টেম্বর) কর্মশালাটি শেষ হবে।

;

এক দিনে ৫২৪ ডেঙ্গু রোগী হাসপাতালে, মৃত্যু ১



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে গত ২৪ ঘণ্টায় আরও ৫২৪ জন হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। তবে এই সময় নতুন করে আরও এক ডেঙ্গু রোগীর মৃত্যু হয়েছে।

এ নিয়ে চলতি বছরে ডেঙ্গু রোগীর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১৫ হাজার ৩৪৬ জন। এ বছর ডেঙ্গুতে মারা গেছেন ৫৫ জন।

বুধবার (২৮ সেপ্টেম্বর) স্বাস্থ্য অধিদফতরের হেলথ ইমার্জেন্সি অপারেশন সেন্টার ও কন্ট্রোল রুমের দেওয়া তথ্য থেকে এসব জানা যায়।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় (মঙ্গলবার সকাল ৮টা থেকে বুধবার সকাল ৮টা পর্যন্ত) আরও ৫২৪ জন ডেঙ্গু রোগী হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। বর্তমানে ১ হাজার ৮২০ জন ডেঙ্গু রোগী হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। তাদের মধ্যে ৪৩২ জন ঢাকার বাইরে চিকিৎসাধীন।

এছাড়া এ বছর ডেঙ্গুতে মৃতদের মধ্যে ২৭ জন ঢাকার, ১৮ জন কক্সবাজারের, ৪ জন বরিশালের এবং ৬ জন চট্টগ্রামের বাসিন্দা। এ পর্যন্ত মোট ১৩ হাজার ৪৭১ জন রোগী হাসপাতাল থেকে ছাড়া পেয়েছেন।

 

;

মিছিল-সমাবেশে লাঠিসোঁটা আনা পুলিশের জন্য হুমকি: হাফিজ আক্তার



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

রাজনৈতিক দলের মিছিল-সমাবেশে লাঠিসোঁটা আনা পুলিশের জন্য হুমকিস্বরূপ বলে জানিয়েছেন ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (ক্রাইম অ্যান্ড অপারেশনস) এ কে এম হাফিজ আক্তার। তাই এগুলো রাজনৈতিক কর্মসূচিতে না আনার অনুরোধ করেছেন তিনি।

বুধবার (২৮ অক্টোবর) বিকেলে ডিএমপি মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে এ কথা বলেন ডিএমপির এ অতিরিক্ত কমিশনার।

হাফিজ আক্তার বলেন, রাজনৈতিক দলের মিছিল-মিটিংয়ে লাঠিসোঁটা বা দেশীয় অস্ত্র আনা যাবে না। এগুলো আনার কোনো প্রয়োজন নেই। যারা সমাবেশ করবেন, তারা সমাবেশ করে চলে যাবেন।

বিভিন্ন জায়গায় রাজনৈতিক সমাবেশ করার অনুমতি না দেওয়ার বিষয়ে তিনি বলেন, পরিস্থিতি বুঝে ডিসিরা মতামত দেন। একাধিক সংগঠন সমাবেশ করার অনুমোদনের জন্য একসঙ্গে আবেদন করে। তখন আমরা নাগরিক সুরক্ষার জন্য অনুমোদন দেই না।

তিনি আরও বলেন, ডিএমপি থেকে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে লাঠি এবং জাতীয় পতাকা নিয়ে যেন কেউ সমাবেশে না আসেন। পতাকা পড়ে গেলে এটা যেন অবমাননা না হয়। সমাবেশ করতে অনুমোদন দিতে আমাদের কোনো সমস্যা নেই। তবে যেটাতে শুধু সমস্যার সৃষ্টি হওয়ার আশঙ্কা থাকে সেটা দেবে না। বাকি জায়গায় প্রতিনিয়তই প্রোগ্রাম হচ্ছে।

;

বগুড়ায় এক সন্ত্রাসীকে কুপিয়ে হত্যা



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, বগুড়া
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

বগুড়ার শেরপুরে মর্তুজা কাওসার অভি (৩৮) নামের এক সন্ত্রাসীকে কুপিয়ে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা।

বুধবার (২৮ সেপ্টেম্বর) সন্ধ্যা ৭টার দিকে শেরপুর উপজেলা পরিষদ চত্বরে অভিকে কুপিয়ে ফেলে রেখে যায় দুর্বৃত্তরা।

নিহত অভি শেরপুর রেজিস্ট্রি অফিস সংলগ্ন খন্দকার পাড়ার মৃত ফুয়া সরকারের ছেলে।

স্থানীয় সূত্রে জানাগেছে, অভি সরকারি দলের ছত্রছায়ায় থেকে শেরপুর পৌর শহরে বিভিন্ন সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড করতেন। দুই সপ্তাহ আগে সোহাগ নামের এক যুবককে অভি ছুরিকাঘাত করে। সে ঘটনায় অভির বিরুদ্ধে শেরপুর থানায় মামলা হয়।এরপর অভি আত্মগোপনে থেকে উচ্চ আদালত থেকে জামিন পেয়ে শেরপুরে আসেন।

বুধবার সন্ধ্যার পর শেরপুর উপজেলা পরিষদ চত্বরে দুর্বৃত্তরা অভিকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে ফেলে রেখে যায়। স্থানীয় লোকজন তাকে উদ্ধার করে বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে আসলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

শেরপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আতাউর রহমান বলেন, পূর্ব শত্রুতার জের ধরে অভিকে কুপিয়ে হত্যা করা হয় বলে প্রাথমিকভাবে জানাগেছে। হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িতদের গ্রেফতার করতে অভিযান শুরু হয়েছে।

অভির নামে শেরপুর থানায় একাধিক মামলা রয়েছে বলে জানান তিনি।

;