Alexa

ছয় উপায়ে দূর হবে নাক ডাকার সমস্যা

ছয় উপায়ে দূর হবে নাক ডাকার সমস্যা

ছবি: সংগৃহীত

যে সমস্যটি সম্পর্কে বেশিরভাগ ক্ষেত্রে আপনি নিজে অবগত না থাকলেও,

আপনার আশেপাশের মানুষরা খুব ভালোভাবেই বিষয়টি সম্পর্কে অবগত থাকেন সেটা হলো ঘুমের মাঝে নাক ডাকার সমস্যা।

অন্ততপক্ষে ৪৫ শতাংশ প্রাপ্ত বয়স্ক মানুষ নিয়মিত অথবা অনিয়মিতভাবে নাম ডাকার সমস্যায় ভুগে থাকেন। অনেকেই এই সমস্যাটিকে এড়িয়ে যেতে চাইলেও, এই সমস্যাটি ধরা পড়ার সাথে সাথেই সতর্ক হয়ে প্রতিকারের পন্থা অবলম্বন করা উচিৎ। নাক ডাকার মতো বিব্রতকর সমস্যাটি অবগত হলে কীভাবে সমস্যাটিকে কমিয়ে আনবেন বা দূর করবেন সেটা সম্পর্কে জেনে রাখুন।

ওজন কমিয়ে ফেলতে হবে

ওজন বেশি হওয়ার ফলে ঘাড়ের অংশ বৃদ্ধি পায় এবং ফ্যাট জমে থাকে। যা থেকে নাক ডাকার সমস্যাটি তৈরি হয়। মূলত এ কারণেই অধিকাংশ বাড়তি ওজনের মানুষের মাঝে নাক ডাকার প্রবণতা দেখা দেয়। সেক্ষেত্রে ওজনকে কমিয়ে ফেলার চেষ্টা করতে হবে।

ঘুমানোর ভঙ্গি বদলাতে হবে

কিছু ঘুমের ভঙ্গিতে জিহ্বা মুখের ভেতরে গলার কাছে আটকে থাকে, যা মুখ ও গলার মধ্যবর্তী অংশকে বাধাপ্রাপ্ত করে। এতে করে নাক থেকে নিঃশ্বাস বের হওয়ার সময় শব্দের উৎপত্তি হয়। সেক্ষেত্রে ঘুমের ভঙ্গি সম্পর্কে বুঝে ও জেনে সেটা পরিবর্তন করার চেষ্টা করতে হবে।

বাদ দিতে হবে ধূমপান

ধূমপানের ফলে নাসারন্ধ্রতে প্রদাহের সৃষ্টি হয়। এতে করে নাকের ভেতরের অংশ বন্ধ হয়ে যায়। ফলে নিঃশ্বাস-প্রশ্বাস বাধাগ্রস্ত হয়। ফলে ঘুমানোর সময় নাক ডাকার সমস্যাটি দেখা দেয়। ধূমপান বাদ দেওয়ার এক সপ্তাহ থেকে এক মাসের মাঝেই নাক ডাকার সমস্যাটি কমে যায় অনেকখানি।

মুখ বন্ধ করে ঘুমাতে হবে

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Apr/23/1555995054654.jpg
মুখ খোলা রেখে ঘুমানোর অভ্যাস বাদ দিতে হবে। 

 

কিছুক্ষেত্রে দেখা গেছে, অনেকের মুখ খুলে ঘুমানোর অভ্যাস থাকে অথবা ঘুমের মাঝে মুখ নিজ থেকেই খুলে যায়। যার ফলে নাক ও মুখের মাঝে নিঃশ্বাস-প্রশ্বাসের সমন্বয় ঘটানোর সময় নাক ডাকার শব্দ তৈরি হয়। তাই চেষ্টা করতে হবে মুখ বন্ধ করে ঘুমানোর অভ্যাস করা।

ঠাণ্ডার সমস্যা দূর করতে হবে

হুট করেই প্রচন্ড ঠাণ্ডার সমস্যা, সাথে নাক থেকে অনবরত পানি পড়া ও নাক বন্ধ হয়ে আসা- এই সকল কারণে স্বাভাবিকভাবেই নাক ডাকার সমস্যাটি দেখা দেয়। ঠাণ্ডার ফলে নাক ডাকার সমস্যা দেখা দিলে ঠাণ্ডার সমস্যাটি দূর করার চেষ্টা করতে হবে।

অ্যালার্জির সমস্যা চিহ্নিত করতে হবে

কিছু ক্ষেত্রে অ্যালার্জির প্রকোপের ফলে নাসারন্ধ্রের ভেতরে প্রদাহের সৃষ্টি হয়। এতে করে নাকের ভেতরের অংশ সংকুচিত হয়ে আসে। ফলে ঘুমের সময় নাক ডাকার সমস্যাটি দেখা দেয়। সেক্ষেত্রে অ্যালার্জির সমস্যাটি চিহ্নিত করে তার প্রতিকার করতে হবে।

শুধু ঠাণ্ডার সমস্যা কিংবা ঘুমের সমস্যার জন্যেই নয়, নাক ডাকার পেছনে বড় ধরনের সমস্যাও লুকায়িত থাকতে পারে। ক্ষেত্র বিশেষে হৃদরোগের ফলেও নাক ডাকার সমস্যাটি দেখা দিয়ে থাকে। তাই নাক ডাকার সমস্যাটি দীর্ঘসময়ের জন্য থাকলে ও নাক ডাকার প্রকোপ বাড়লে চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে।

আরও পড়ুন: মেটাবলিজম কমছে যেসকল অভ্যাসে

আরও পড়ুন: পরিচিত বদভ্যাসেই দেখা দেয় কিডনির সমস্যা

আপনার মতামত লিখুন :