Barta24

শনিবার, ২০ জুলাই ২০১৯, ৪ শ্রাবণ ১৪২৬

English Version

কোমল পানীয় পানে কী ঘটে শরীরে?

কোমল পানীয় পানে কী ঘটে শরীরে?
ছবি: সংগৃহীত
ফাওজিয়া ফারহাত অনীকা
স্টাফ করেসপন্ডেন্ট
লাইফস্টাইল


  • Font increase
  • Font Decrease

একটু ভারি খাবার খাওয়া হলেই প্রয়োজন হয় ঠাণ্ডা এক গ্লাস কোমল পানীয়ের।

বাইরে কোথাও ঘুরতে বেরুলে কিংবা পছন্দের খাবারটি খাওয়ার সময়েও প্রয়োজন হয় ঝাঁজ ওঠা কোমল পানীয়ের। এমনকি পিপাসা পেলে অনেক পানি পানের পরিবর্তে কোমল পানীয় পান করে থাকে। টানা কয়েকদিন কোমল পানীয়ের ধারেকাছে না ঘেঁষলেই মনে হতে থাকে কি যেন অনেকদিন যাবত খাওয়া হয়নি, কি যেন জীবনে নেই!

একমত হতেই হবে, এমন অনুভূতি আপনারও হয়েছে। আমাদের নিত্যদিনের জীবনে এভাবেই জড়িয়ে গেছে কোমল পানীয়ের উপস্থিতি। দিন দুয়েক বাদেই চলে আসবে বর্ষবরণের দিনটি। খাবারের বিশেষ আয়োজনের মাঝে নিশ্চয় থাকবে কোমল পানীয়ও।

কিন্তু কোমল পানীয় পানের পর কী ঘটে শরীরে? জানা আছে কি? এটা প্রায় সকলেরই জানা, উচ্চমাত্রার চিনিযুক্ত কোমল পানীয় শরীরের জন্য বেশ অনেকগুলো কারণেই ক্ষতিকর। তবে অজানা রয়েছে কোমল পানীয় পানের পর কী ঘটে শরীরে!

উচ্চমাত্রার চিনি যখন বলা হচ্ছে, তখন বুঝে নিতে হবে কোমল পানীয়তে আক্ষরিক অর্থেই অনেক বেশি মাত্রায় চিনি থাকে। কোমল পানীয় পানের পর রক্তে চিনির মাত্রা হুট করেই অনেক বেড়ে যায়। অতিরিক্ত মাত্রার এই চিনির সঙ্গে মানিয়ে নেওয়ার জন্য বাড়তি শরীরের বিভিন্ন প্রত্যাঙ্গের উপরে বাড়তি চাপের সৃষ্টি হয়।

কোমল পানীয়তে থাকা চিনি হলো কার্বোহাইড্রেট। আমাদের পেশীর শক্তি সরবরাহের জন্য কার্বোহাইড্রেটের প্রয়োজন হয়। তবে কোমল পানীয়ের কার্বোহাইড্রেটের মাত্রা এতো বেশি অতিরিক্ত হয় যে, তা আমাদের পেশীর প্রয়োজন হয় না। মাত্র ২০ আউন্স পরিমাণ কোমল পানীয় থেকে পুরো একবেলার খাবারের কার্বোহাইড্রেট পাওয়া যায়। ফলে পেট ভরে খাবার খাওয়ার মাঝে যখন কোমল পানীয়ও পান করা হয়, তা অতিরিক্ত হিসেবে শরীরে জমা হয়ে যায়।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Apr/11/1554980889669.jpg

এমনটাই জানিয়েছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ইউনিভার্সিটি অফ শিকাগো মেডিসিন এর মেডিসিনের প্রফেসর ও এন্ডোক্রিনোলজিস্ট মেলটেম জেটিংলু। তিনি আরও জানান, এই বাড়তি চিনি শরীরে প্রসেস হতে পারে না বিধায় পেশী ও টিস্যুর মধ্যে ফ্যাট হিসেবে জমে থাকে। যা পরবর্তিতে লিভার ফ্যাট হিসেবে দেখা দেয়।

তবে কোমল পানীয় পানের ফলে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয় কিডনি। মূত্রের সাহায্যে অতিরিক্ত চিনি বের হয়ে যায়। ফলে প্রয়োজনের তুলনায় অতিরিক্ত মূত্রের বেগ দেখা দেয়। এতে করে একাধারে যেমন কিডনির উপরে বাড়তি চাপের সৃষ্টি হয়, তেমনিভাবে শরীরে দেখা দেয় পানিস্বল্পতার সমস্যা। এছাড়া কোমল পানীয়তেও থাক ক্যাফেইন। যা খুব একটা স্বাস্থসম্মত নয়।

আরও ভয়ঙ্কর বিষয় হলো- কোমল পানীয় যতই পান করা হোক না কেন, কখনোই সন্তুষ্টি পাওয়া যায় না। বিষয়টা অনেকটাই কোকেইন কিংবা হেরোইনে নেশার মতো। এমনটা হওয়া কারণ, হাই-কার্ব, হাই-ক্যালোরিতে শরীরের বাড়তি চাহিদা তৈরি হওয়া।

কোমল পানীয় অনেক বেশি পছন্দ? সেক্ষেত্রে ভালো একটি খবর আছে আপনার জন্য। কোমল পানীয় পান করা সম্পূর্ণ বাদ দিয়ে দেওয়ার প্রয়োজন নেই। মাসে একবার স্বল্প পরিমাণ পান করা যেতেই পারে। তবে নিয়মিত নয়। এছাড়া পানীয় হিসেবে ফলের জুস, আইসড টি, কোল্ড কফি এগুলোও রাখা যেতে পারে।

আরও পড়ুন: কেকের মোমবাতি ফুঁ দিয়ে নেভাবেন না!

আরও পড়ুন: কিডনি সুস্থ রাখবে ‘পাঁচ নিয়ম’

আপনার মতামত লিখুন :

চার উপাদানে খেজুর গুড়ের আইসক্রিম

চার উপাদানে খেজুর গুড়ের আইসক্রিম
খেজুর গুড়ের আইসক্রিম, ছবি: সংগৃহীত

খেজুর গুড়ের পায়েস নিশ্চয় খাওয়া হয়েছে, কিন্তু খেজুর গুড়ে তৈরি আইসক্রিম কি খাওয়া হয়েছে কখনো?

চিনির মিষ্টি নয়, গুড়ের মিষ্টিতে তৈরি এই আইসক্রিমে পাওয়া যাবে একেবারেই ভিন্ন ঘরানার অচেনা স্বাদ।

বাইরের তাপমাত্রা বাড়তে থাকলে আইসক্রিম খাওয়ার ইচ্ছাটাও তাড়া দিতে থাকে। এই সুযোগে ঘরে বসে ফ্রেশ দুধ ও গুড় দিয়ে তৈরি করে নিন অচেনা স্বাদের মিষ্টান্ন খেজুর গুড়ের আইসক্রিম।

খেজুর গুড়ের আইসক্রিম তৈরিতে যা লাগবে

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jul/19/1563538258867.JPG

১. দুই কাপ ক্রিম।

২. এক কাপ দুধ।

৩. চারটি ডিমের কুসুম।

৪. আধা কাপ খেজুর গুড়।

খেজুর গুড়ের আইসক্রিম যেভাবে তৈরি করতে হবে

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jul/19/1563538280218.JPG

১. একটি পাত্রে ভালোভাবে ডিমের কুসুমগুলো ফেটিয়ে নিতে হবে।

২. ভিন্ন একটি সসপ্যানে ক্রিম ও দুধ একসাথে মিশিয়ে জ্বাল দিয়ে বলক আনতে হবে।

৩. গরম দুধ ও ক্রিমের মিশ্রণের এক-চতুর্থাংশ ডিমের কুসুমে দিয়ে পুনরায় ভালোভাবে হুইস্ক করতে হবে তথা ফেটিয়ে নিতে হবে।

৪. এবারে ডিমের মিশ্রণটি সস্প্যানে দিয়ে পুনরায় জ্বাল দিতে হবে এবং গুড় মেশাতে হবে। সকল উপাদান ভালোভাবে মিশে গেলে কাস্টার্ডের মতো ঘন মিশ্রণ তৈরি হবে।

৫. মিশ্রণ ঘন হয়ে আসলে কিছুক্ষণ নেড়েচেড়ে কাঁচের পাত্রে ঢেলে ঠাণ্ডা করতে হবে। ঠাণ্ডা হয়ে এলে পাত্রের মুখ বন্ধ করে ডিপ ফ্রিজে সারারাতের জন্য রেখে দিতে হবে।

পরদিন সকালে নাশতার সাথে উপভোগ করুন খেজুর গুড়ের আইসক্রিম।

আরও পড়ুন: দশ মিনিটে বাদামের স্বাদে কুলফি মালাই

আরও পড়ুন: গরমে স্বস্তি আনবে তিন ভিন্ন স্বাদের কোল্ড কফি

হৃদরোগের ঝুঁকি কমে দারুচিনি গ্রহণে

হৃদরোগের ঝুঁকি কমে দারুচিনি গ্রহণে
দারুচিনিতে থাকা অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট স্বাস্থ্যের জন্য উপকারী, ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

ঝাল ও মিষ্টি উভয় ধরনের খাবার তৈরিতেই দারুচিনি বাড়তি স্বাদ ও গন্ধ যোগ করে।

আমাদের রান্নায় দারুচিনি ব্যবহারের মূল কারণ হলো ফ্লেভার, তবে আরও একটি বিশেষ কারণে নিত্যদিনের খাদ্যাভ্যাসে দারুচিনি রাখা প্রয়োজন। প্রতিদিন পরিমিত পরিমাণ দারুচিনি গ্রহণে আপনার হৃদযন্ত্র সুস্থ থাকবে। সেই সাথে নিয়ন্ত্রণে থাকবে ডায়বেটিসের সমস্যাটিও।

মশলা হিসেবে ব্যবহৃত হওয়া এই উপাদানটিতে থাকা শক্তিশালী অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট ও পলিফেনল শরীরে অক্সিডেটিভ ড্যামেজ থেকেও রক্ষা করতে কার্যকরি। গবেষণা জানাচ্ছে, দারুচিনি গুঁড়া গ্রহণ বেশ কয়েকদিক থেকেই সুস্বাস্থ্যের জন্য নিরাপদ। তেমন কয়েকটি স্বাস্থ্য উপকারিতা জেনে রাখুন।

প্রদাহ কমায় দারুচিনি

বেশ কিছু গবেষণা জানাচ্ছে, দারুচিনিতে থাকা অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট প্রদাহ বিরোধী তথা অ্যান্টি-ইনফ্ল্যামেটরি উপাদান হিসেবে কাজ করে। পেশীর ব্যথাভাব, ফোলাভাব, শরীরের কোন অংশে হুটহাট ব্যথা দেখা দেওয়ার মতো সমস্যাগুলো কমাতে কাজ করে দারুচিনি।

ডায়বেটিস নিয়ন্ত্রণে কাজ করে দারুচিনি

রক্তে চিনি ও ইনস্যুলিনের মাত্রার হেরফেরের উপরেই নির্ভর করে মেটাবোলিজমের মাত্রা ও টাইপ-২ ডায়বেটিস দেখা দেওয়ার সম্ভাবনা। বেশ কিছু পরীক্ষা থেকে দেখা গেছে দারুচিনি গুঁড়া গ্রহণে ডায়বেটিস রোগীদের গ্লাইসেমিক ইনডেক্স নিয়ন্ত্রণে চলে আসে। দারুচিনি শুধু রক্তে চিনির মাত্রাই নয়, ইন্স্যুলিন সেনসিটিভিটিকেও নিয়ন্ত্রণে কার্যকরি ভূমিকা পালন করে।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jul/19/1563531546124.jpg

হৃদরোগ দূরে রাখে দারুচিনি

প্রতিদিন ১২০ মিলিগ্রাম পরিমাণ দারুচিনি গ্রহণে খারাপ কোলেস্টেরল (LDL), ট্রাইগ্লিসারাইডের মাত্রা নিয়ন্ত্রণে থাকে। ভিন্ন একটি গবেষণার ফলাফল বলছে- যারা নিত্যদিনের খাবারে হলুদ ও দারুচিনি গুঁড়া রাখে, তাদের রক্তে খারাপ কোলেস্টেরলের মাত্রা পূর্বের চাইতে কমে যায়। খারাপ কোলেস্টেরলের মাত্রা নিয়ন্ত্রণে থাকলে হৃদরোগ দেখা দেওয়ার ঝুঁকিও কমে যায় তুলনামূলক অনেক বেশি।

ইনফেকশন কমাতে সাহায্য করে

সিনামন এক্সট্র্যাক্ট তেলে রয়েছে অ্যান্টি-ব্যাকটেরিয়াল ও অ্যান্টি-মাইক্রোবিয়াল উপাদান, যা প্রায় সকল ধরনের ইনফেকশনের বিরুদ্ধে কাজ করে। দারুচিনিতে থাকা সিনাম্যালডিহাইড (Cinnamaldehyde) হলো প্রধান উপাদান, যা ইনফেকশন দ্রুত সারাতে কাজ করে। বিশেষত ইষ্ট ইনফেকশনের বিরুদ্ধে দারুচিনির তেল সবচেয়ে উপকারী।

মুখের স্বাস্থ্যের জন্য উপকারী

এক্ষেত্রে ধন্যবাদ দিতে হবে দারুচিনিতে থাকা অ্যান্টিমাইক্রোবিয়াল প্রভাবকে, যা মুখের স্বাস্থ্যকে ভালো রাখতে কাজ করে। গবেষণা থেকে দেখা গেছে দারুচিনি দাঁতের ক্ষয়রোগ ও মুখে বাজে গন্ধ হওয়া প্রতিরোধে কাজ করে।

আরও পড়ুন: গরম আবহাওয়ায়, সুস্থতায় ডাবের পানি

আরও পড়ুন: ঘুম আনতে সাহায্য করবে এই খাবারগুলো

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র