এখনো অনিশ্চিত প্রোটিয়াদের সেমিফাইনাল

  ক্রিকেট কার্নিভাল


স্পোর্টস ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে এখন পর্যন্ত অপরাজিত আছে যে তিন দল, তাদের মধ্যে একটা দক্ষিণ আফ্রিকা। দলটা এবার গ্রুপ পর্ব থেকেই স্নায়ুক্ষয়ী সব ম্যাচে জিতে এসেছে সুপার এইটে। এই পর্বেও দুটো ম্যাচই দলটা জিতেছে স্নায়ুর চরম পরীক্ষা দিয়ে। শেষ ম্যাচে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে জিতলেই শেষ চারে নিশ্চিত হয়ে যাবে তাদের। 

ছয় ম্যাচের ছয়টিতেই জিতেছে দক্ষিণ আফ্রিকা। এরপরও দলটার শেষ চারে খেলা নিশ্চিত হয়নি। এমনকি বিদায়ের শঙ্কাও ভর করেছে দলটাতে।

কেন, কীভাবে সেমিফাইনালের আগেই বাদ পড়ে যেতে পারে দক্ষিণ আফ্রিকা? দলটা সুপার এইটে দুই ম্যাচই জিতেছে ছোট ব্যবধানে। প্রথম ম্যাচে যুক্তরাষ্ট্রকে হারিয়েছে ১৮ রানে, দ্বিতীয় ম্যাচে ইংলিশদের হারিয়েছে ৭ রানে। সব মিলিয়ে দলটার নেট রান রেট ধনাত্মক অবশ্যই, তবে তা খুব বেশি নয়। 

এবার ইংল্যান্ডের হিসেবটা দেখি। প্রথম ম্যাচে উইন্ডিজের বিপক্ষে ১৫ বল হাতে রেখে পাওয়া জয় নেট রান রেটে এগিয়ে দিয়েছে দলটাকে। দ্বিতীয় ম্যাচে হারটাও খুব বেশি বড় ব্যবধানে নয়, ৭ রানে হেরেছে দলটা।

দুই ম্যাচ শেষে ইংলিশদের নেট রান রেট +০.৪১২। আর সমান ম্যাচ খেলে দক্ষিণ আফ্রিকার নেট রান রেট +০.৬২৫। মূলত এই নেট রান রেটই শেষ ম্যাচে প্রোটিয়াদের এনে দাঁড়িয়েছে নকআউট পরিস্থিতিতে। 

শেষ ম্যাচে ওয়েস্ট ইন্ডিজের মুখোমুখি হবে দক্ষিণ আফ্রিকা। সে ম্যাচে দলটা জিতলে কোনো হিসেব ছাড়াই চলে যাবে সেমিফাইনালে। তবে হেরে বসলেই তাকাতে হবে অন্য ম্যাচের দিকে। সে ম্যাচে যদি যুক্তরাষ্ট্র ইংল্যান্ডকে হারিয়ে দেয়, তাহলেই তারা যাবে সেমিতে। আর ইংল্যান্ড যদি ১০ রানের ব্যবধানেও জিতে যায়, তাহলেই বাধবে সমস্যাটা। তখন ইংল্যান্ড আর ওয়েস্ট ইন্ডিজ চলে যাবে সেমিফাইনালে।

তলানীতে থাকা যুক্তরাষ্ট্রের সুযোগটাও শেষ হয়ে যায়নি। দক্ষিণ আফ্রিকা ওয়েস্ট ইন্ডিজকে হারিয়ে দিলেন, নিজেরা ইংল্যান্ডকে বড় ব্যবধানে হারিয়ে দিলেই কেল্লাফতে। তবে শেষ এই দুই ম্যাচে যাই হোক না কেন, তার আগে গ্রুপের লড়াইটা ভালোভাবেই জমে গেছে।

আর্জেন্টিনার চিন্তার কারণ ব্রাজিলিয়ান রেফারি



স্পোর্টস ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

কোপার ফাইনালে না থেকেও আছে ব্রাজিল। কারণ কোপায় আর্জেন্টিনার শিরোপা ধরে রাখার মিশনে ম্যাচে পরিচালনার দায়িত্বে থাকবেন ব্রাজিলিয়ান রেফারি রাফায়েল ক্লাউস।

সোমবার সকাল ছয়টায় মায়ামির হার্ড রক স্টেডিয়ামে মাঠে গড়াবে ফাইনাল। ম্যাচের দিন দুয়েক আগে এক অফিশিয়াল বিবৃতিতে কোপার ফাইনালের জন্য ম্যাচ অফিশিয়ালদের তালিকা প্রকাশ করেছে সাউথ আমেরিকার ফুটবলের সর্বোচ্চ নিয়ন্ত্রক সংস্থা কনমেবল।

ফাইনালে রাফায়েল ক্লাউসের সহকারির দায়িত্বেও দুই ব্রাজিলিয়ান। ব্রুনো পিরেস ও রদ্রিগো কোরেয়া। চতুর্থ ও পঞ্চম রেফারির দায়িত্বে থাকবেন প্যারাগুয়ের হুয়ান বেনিতেজ ও এদুয়ার্দো কারদোজা। ভিডিও রেফারির দায়িত্বে আরেক ব্রাজিলিয়ান রডোলফো টস্কি। এবং সহকারী ভিএআর রেফারির দায়িত্বেও থাকবেন ব্রাজিলের দানিলো মানিস।

ক্লাউসের অধীনে খেলা ম্যাচগুলোতে এখন পর্যন্ত ৯ বার হলুদ কার্ড দেখেছেন কলম্বিয়ান ফুটবলাররা। টানা ২৮ ম্যাচে অপরাজিত থাকা এই কলম্বিয়া শেষবার হেরেছিল ২০২২ সালে আর্জেন্টিনার বিপক্ষেই। সে ম্যাচেও রেফারি ছিলেন রাফায়েল ক্লাউস। এবার প্রতিশোধ নিয়েই চাইবে কলম্বিয়ানরা।

আর্জেন্টিনার বিপক্ষে আরও তিনটি ম্যাচে রেফারির দায়িত্বে ছিলেন ক্লাউস। যার মধ্যে সবচেয়ে আলোচিত হয়েছিল ইকুয়েডরের বিপক্ষে ম্যাচটা। সেখানে ক্লাউসের বাজানো বাঁশিতেই পেনাল্টি পায় ইকুয়েডর। ম্যাচটা হয়েছিল ড্র। যদিও পেনাল্টির সে সিদ্ধান্ত নিয়ে আর্জেন্টাইন সমর্থকরা আজও নাখোশ।

  ক্রিকেট কার্নিভাল

;

নিজের বহিষ্কার প্রসঙ্গে প্রথমবার কথা বললেন ওয়াহাব



স্পোর্টস ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

হতাশাজনক বিশ্বকাপ সফর শেষ হওয়ার পর থেকেই সমালোচনার মুখোমুখি হচ্ছিল পাকিস্তান ক্রিকেট দল। ২০২৩ ওয়ানডে বিশ্বকাপের পর সদ্য শেষ হওয়া টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপেও ভরাডুবি দেখেছেন বাবর আজমরা। দলের এমন শোচনীয় অবস্থায় কঠোর পদক্ষেপ নিয়ে বুধবার নির্বাচক কমিটি থেকে বহিষ্কার করা হয়েছিল ওয়াহাব রিয়াজ ও আবদুল রাজ্জাককে। গতকাল (বৃহস্পতিবার) নতুন দুই সদস্যকে কমিটিতে অন্তর্ভুক্ত করেছে পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ডের (পিসিবি)।

ওয়াহাবের বহিষ্কার প্রসঙ্গে এই প্রথমবার মুখ খুললেন সাবেক এই পাকিস্তানি ক্রিকেটার। নিজের সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে একটি পোস্ট দিয়ে এ বিষয়ে নিজের অনুভূতি ও মতামত জানালেন তিনি। পোস্টের শুরুতেই তিনি কিছুটা ইঙ্গিতপূর্ণ বাক্য দিয়ে নিজের কথা শুরু করেছেন, ‘আমি অনেককিছুই বলতে পারি। তবে আমি দোষের অংশ হতে চাই না।’

তার এই কথা দ্বারা ওয়াহাব ঠিক কোন বিষয়কে ইঙ্গিত করেছেন তা স্পষ্টভাবে জানাননি। তবে এর পরে তিনি বোর্ডকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন তাকে এই সুযোগটি দেয়ার জন্য। ওয়াহাব বলেন, ‘পিসিবিতে নির্বাচক কমিটির সদস্য হিসেবে আমার সময় শেষ হতে যাচ্ছে। আমি আমার ভক্তদের জানাতে চাই যে খেলাটি আমি পছন্দ করি, সেটা বিশ্বাস এবং ভরসার সঙ্গে পাকিস্তান ক্রিকেটের উন্নতির জন্য শতভাগ দিয়েছি।’

পাকিস্তান ক্রিকেটের সুন্দর ভবিষ্যৎ কামনা করে ওয়াহাব আরও বলেন, 'নির্বাচক প্যানেলে কাজ করা আমার জন্য সম্মানের। সাত সদস্যের এই নির্বাচক প্যানেলে সম্মিলিতভাবে সিদ্ধান্ত নেয়াটা সম্মানের বিষয়। সবার ভোটকেই সেখানে সমান গুরুত্ব দেয়া হয়েছে। যারা আমার জন্য দোয়া করেছেন তাদের প্রতি আমি কৃতজ্ঞ। আমি পাকিস্তান ক্রিকেটের সুন্দর ভবিষ্যৎ কামনা করি।'

  ক্রিকেট কার্নিভাল

;

পুলিশ ও নৌবাহিনীর জয়



স্পোর্টস ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

বাংলাদেশ কাবাডি ফেডারেশনের ব্যবস্থাপনায় এবং স্বপ্নভূমি প্রপার্টিজের উদ্যোগে আয়োজিত স্বপ্নভূমি সিনিয়র সার্ভিসেস কাবাডি লিগে আজ শুক্রবার (১২ জুলাই) নিজ নিজ খেলায় জয় তুলে নিয়েছে বাংলাদেশ পুলিশ এবং বাংলাদেশ নৌবাহিনী।

আজ দিনের প্রথম খেলায় মুখোমুখি হয় বাংলাদেশ পুলিশ এবং বাংলাদেশ বিমান বাহিনী। তুমুল প্রতিদ্বন্দ্বীতাপূর্ণ, হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ে শেষ পর্যন্ত জয়ের হাসি পুলিশের। বিমান বাহিনীর বিরুদ্ধে দলটির জয় ৩৩-৩০ পয়েন্ট ব্যবধানের। বিজয়ী দল খেলার প্রথমার্ধে ১৭-১২ পয়েন্ট ব্যবধানে এগিয়ে ছিল। প্রথমার্ধে কিছুটা পিছিয়ে পড়লেও দ্বিতীয়ার্ধে দারুণ লড়াই করেন বিমান বাহিনীর খেলোয়াড়রা। তবে শেষরক্ষা হয়নি। পুলিশের কাছে হার নিয়ে ম্যাট ছাড়ে বিমান বাহিনী।

এদিকে দিনের দ্বিতীয় ম্যাচে ম্যাটে নামে আসরের বর্তমান চ্যাম্পিয়ন বাংলাদেশ নৌবাহিনী। যাদের প্রতিপক্ষ ছিল ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স। খেলায় কোনো প্রতিদ্বন্দ্বীতাই গড়তে পারেনি ফায়ার সার্ভিসের খেলোয়াড়রা। একপেশে ম্যাচটি ৫০-১৫ পয়েন্টের বিশাল ব্যবধানে জেতে বাংলাদেশ নৌবাহিনী। জয়ী দল খেলার প্রথমার্ধে ৩৪-১০ পয়েন্ট ব্যবধানে এগিয়ে ছিল।

উল্লেখ্য ৮ দলের অংশগ্রহণে এবারের সিনিয়র সার্ভিসেস কাবাডি লিগ অনুষ্ঠিত হচ্ছে। দলগুলো হলো : বাংলাদেশ নৌবাহিনী, বাংলাদেশ সেনাবাহিনী, বাংলাদেশ বিমান বাহিনী, ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি), বাংলাদেশ পুলিশ, ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স, বাংলাদেশ আনসার ও ভিডিপি এবং বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি)।

  ক্রিকেট কার্নিভাল

;

মেসির ভাবনায় শুধুই ফাইনাল



স্পোর্টস ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

কোপা আমেরিকা মানেই যেন ফাইনালে আর্জেন্টিনা। গত কয়েক আসরে এটাকে রীতিমত অভ্যাস বানিয়ে ফেলেছেন লিওনেল মেসিরা। এ নিয়ে টানা চারটি ফাইনালের মঞ্চে খেলতে নামছে আলবিসেলেস্তেরা। শুরুটা হয়েছিল ২০২১ কোপা আমেরিকা ফাইনাল দিয়ে, এরপর ২০২২ ফিনালিসিমা, ২০২২ কাতার বিশ্বকাপ ফাইনাল এবং এবারের কোপা ফাইনাল। বৈশ্বিক ও মহাদেশীয় টানা চার টুর্নামেন্টের ফাইনালে জয় তুলে নেওয়ার হাতছানি এবার আর্জেন্টিনার সামনে।

আগের তিনটি ফাইনালেই শিরোপা ঘরে তুলে নিয়েছে মেসির দল। এবারও তাদের নজর শিরোপার দিকেই। দলের সবচেয়ে বড় তারকা লিওনেল মেসির ভাবনাটিও একই। কলম্বিয়ার বিপক্ষে ফাইনাল আগে বাড়তি কোনো চাপ না নিয়ে ম্যাচটা কেমন হবে সেটি নিয়েই ভাবছেন ইন্টার মায়ামির এই তারকা ফরোয়ার্ড।

সেই ম্যাচকে সামনে রেখে টিম হোটেলে গণমাধ্যমকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে মেসি বলেন, ‘ফাইনাল ম্যাচটা সব সময়ই একটু ভিন্ন হয়। তবে পুরো টুর্নামেন্টের মতোন ফাইনালের আগেও আমরা ভালো বোধ করছি। আপাতত ম্যাচটা কেমন হবে সেটা নিয়েই আমরা ভাবছি।’

দল দুটির সবশেষ দেখায় ২০২২ সালের ফেব্রুয়ারিতে বিশ্বকাপ বাছাইয়ে লাওতারো মার্তিনেজের একমাত্র গোলে কলম্বিয়াকে হারিয়েছিলেন আর্জেন্টিনা। এরপর থেকেই টানা ২৮ ম্যাচের একটিতেও হারেনি কলম্বিয়া। আড়াই বছর আগের সেই ম্যাচে যদিও মেসি ছিলেন না তবে ফাইনালে নেস্তর লরেঞ্জো দলকে শক্তিশালী চ্যালেঞ্জ হিসেবেই মানছেন তিনি। ‘এই দলটা (কলম্বিয়া) ভালো। দারুণ কিছু খেলোয়াড় আছে। আক্রমণেও দ্রুতগামী ও বৈচিত্র্যময় কিছু খেলোয়াড় আছে।’

মেসিরা এখন টানা তিনটি বড় টুর্নামেন্টের শিরোপার সামনে দাঁড়িয়ে। তবে ক্যারিয়ারে প্রায় সব জেতা মেসি সামনের এই ফাইনাল নিয়ে খুব একটা বিচলিত নয়। স্রেফ মুহূর্তগুলো উপভোগের চেষ্টায় আছেন তিনি। ‘মুহূর্তটির জন্য (কোপা শিরোপা জয়) অপেক্ষায় আছি। এখন সবকিছু অনেক বেশি উপভোগ করার চেষ্টা করি। কোনো তাড়াহুড়ো নেই।’

এই কোপা দিয়েই ২০২১ আসরে ২৮ বছরের শিরোপা খরা কাটিয়েছিল আর্জেন্টিনা। আসর ঘুরে দক্ষিণ আমেরিকার শ্রেষ্ঠত্বের টুর্নামেন্টে টানা দ্বিতীয়বারের মতো ফাইনালে আলবিসেলেস্তেরা। তবে শিরোপা ধরে রাখার মিশনের শেষ ধাপটি মোটেও সহজ হবে না মেসি-ডি মারিয়াদের জন্য। কেননা ফাইনালে তাদের প্রতিপক্ষ আসরের দারুণ ছন্দে থাকা ও টানা ২৮ ম্যাচ ধরে অপরাজিত থাকা কলম্বিয়া। মায়ামির হার্ড রক স্টেডিয়ামে ম্যাচটি শুরু হবে সোমবার বাংলাদেশ সময় সকাল ৬টায়। 

  ক্রিকেট কার্নিভাল

;