বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়ামে দৌড়ালেন শান্ত-মুশফিক-তানজিমরা



স্পোর্টস ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়াম, দেশের ক্রিকেট যাত্রা শুরু হয়েছিল এই মাঠের মাধ্যমেই। ২০০৬ সালের আগে আন্তর্জাতিক অথবা ঘরোয়া ম্যাচের বেশিরভাগই গড়াতো এই মাঠে। এরপর এই মাঠ ফুটবলের জন্য বরাদ্দতা পায় এবং ক্রিকেটের নতুন ঠিকানা হিসেবে পরিচিতি পায় মিরপুরের শেরে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়াম।

আজ অনেক বছর পর আবারও দেশের প্রথম সারির ক্রিকেটারদের দেখা পেল বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়াম। তবে ক্রিকেট খেলার মাধ্যমে নয়, বরং অ্যাথলেটিক্স ট্র্যাকে দৌড়ের মাধ্যমে। ফিটনেস টেস্টকে উদ্দেশ্য করেই মুলত এই আয়োজন।

মে মাসের শুরতেই জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে সিরিজ খেলতে নামবে বাংলাদেশ, এরপরই টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ। এই টুর্নামেন্টকে মাথায় রেখেই খেলোয়াড়দের ফিটনেস বিষয়ে বেশ সচেতন ক্রিকেট বোর্ড। তাই আজ (শনিবার) থেকে শুরু হয়েছে ক্রিকেটারদের ফিটনেস টেস্ট। যেখানে অংশ নেবেন সিরিজের জন্য বিবেচনায় থাকা ৩৫ জন ক্রিকেটার। ফিটনেস টেস্টের শুরুর ধাপটা হয়ে গেল বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়ামের অ্যাথলেটিক্স ট্র্যাকে ১৬০০ মিটার দৌড়ের মাধ্যমে।

ভোর ৬টায় পৌঁছে ৪০০ মিটারের এই ট্র্যাকে মোট চারটি চক্কর মেরে দৌড় সম্পন্ন করেছেন টাইগার ক্রিকেটাররা। ১৬০০ মিটারের দৌড় শেষে ৪০ মিটারের স্প্রিন্টেও অংশ নেন সবাই। এরপর মিরপুরে যেয়ে জিম সেশন দিয়ে শেষ হবে আজকের ফিটনেস ট্রেনিংয়ের পর্ব। ট্রেনিংয়ের এই পর্বগুলো পর্যবেক্ষণ করছেন দলের নতুন ট্রেইনার নাথান কেলি।

এখনও আন্তর্জাতিক দলে খেলছেন এমন ক্রিকেটারদের মধ্যে এই ঐতিহাসিক বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়ামে ম্যাচ খেলেছেন এমন অভিজ্ঞতা আছে মাত্র দুইজনের, তারা হলেন মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ এবং মুশফিকুর রহিম। দীর্ঘ বছর পর এখানে আবারও এসে বেশ স্মৃতিচারণ করছেন তারা। গ্যালারির আশেপাশে তাকিয়ে এবং ঘুরে দেখছিলেন মাহমুদউল্লাহ।

জাতীয় দলের ম্যানেজার নাফিস ইকবালের খেলোয়াড়ি জীবনের শুরুটাও এখানে। তিনি পুরোনো স্মৃতি মনে করে বলেছেন, ‘সবকিছুই দেখি বদলে গেছে! কী স্টেডিয়াম ছিল রে ভাই। খেলার সময় গেট বন্ধ করে রাখা লাগত, কী মনে নাই ভাই?’

বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়ামের মাহাত্ম্য উল্লেখ করে নাফীস আরও বলেন, ‘এখনকার প্রজন্ম হয়তো এখানে খেলেনি। কিন্তু এই স্টেডিয়ামের কথা নিশ্চয়ই শুনেছে। অনেকের জন্ম ২০০০ সালের আশপাশে তাই তাদের খেলার কথাও নয়। তবে আইকনিক স্টেডিয়াম যেহেতু, এটার গল্প নিশ্চয়ই শুনেছে। দেখুন, সাধারণত সকাল ছয়টায় ফিটনেস টেস্ট দেখতে এত মানুষের আশার কথা নয়। যেহেতু বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়াম, তাই সবাই এসেছে। সবার জন্যই দারুণ অভিজ্ঞতা এটা।‘

মুশফিকুর রহিম মজার ছলে বলেছেন, অ্যাথলেটদের মতো যেহেতু তারা দৌড়াবেন, সেহেতু তাদের জন্য পুরষ্কারের ব্যবস্থা থাকলে আরও ভালো হতো। বিসিবির এক কর্মকর্তাকে তিনি মজা করে জিজ্ঞেস করছিলেন, ‘পতাকা কই? পতাকা আনবেন না!’ 

   

বায়ার্নের নতুন কোচ কোম্পানি



স্পোর্টস ডেস্ক, বার্তা ২৪
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

ম্যানচেস্টার সিটি কিংবদন্তি ভিনসেন্ট কোম্পানিকে নতুন কোচ হিসেবে নিয়োগ দিয়েছে জার্মান জায়ান্ট বায়ার্ন মিউনিখ। তিন বছরের চুক্তিতে কোম্পানিকে কোচ হিসেবে নিয়োগ দিয়েছে জার্মান ক্লাবটি।

সদ্যসমাপ্ত মৌসুমে প্রিমিয়ার লিগ থেকে অবনমিত হয়ে যাওয়া দল বার্নলির দায়িত্বে ছিলেন কোম্পানি। বার্নলিকে ক্ষতিপূরণ দিয়ে কোম্পানিকে অ্যালিয়াঞ্জ অ্যারেনায় টেনেছে বায়ার্ন।

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম এক্স-এ করা এক পোস্টে কোম্পানির বায়ার্নে যোগ দেয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেছে বার্নলি। স্কাই স্পোর্টস জানিয়েছে, কোম্পানির জন্য বার্নলিকে প্রায় ১০.২ মিলিয়ন পাউন্ড ক্ষতিপূরণ দিতে হয়েছে বায়ার্নকে।

প্রায় ১২ বছর পর সদ্যসমাপ্ত মৌসুমে লিগ শিরোপা হাতছাড়া হয় বায়ার্নের। চ্যাম্পিয়ন্স লিগে রিয়াল মাদ্রিদের কাছে সেমিফাইনালে হেরে বিদায় নিয়েছিল দলটি। শিরোপাহীন এক মৌসুম কাটানোর পর বায়ার্ন ছেড়ে দেন জার্মান কোচ থমাস তুখেল।

তার উত্তরসূরি হিসেবে এখন হারানো গৌরব ফেরানোর চ্যালেঞ্জ কোম্পানির সামনে। বার্নলির ডাগআউটে দুঃস্বপ্নের এক মৌসুম কাটানো কোম্পানি সে চ্যালেঞ্জ কতটা সামাল দিতে পারেন, সেটাই এখন দেখার বিষয়।

;

বার্সায় জাভির উত্তরসূরি ‘সেই’ ফ্লিক



স্পোর্টস ডেস্ক, বার্তা ২৪
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

সাম্প্রতিককালে বার্সেলোনাকে সবচেয়ে বিব্রতকর হারের স্বাদ দিয়েছে বায়ার্ন মিউনিখ। ২০১৯-২০ মৌসুমে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের কোয়ার্টার ফাইনালে ৮-২ গোলে বায়ার্নের কাছে হেরেছিল বার্সেলোনা। সেদিন বায়ার্নের ডাগআউটে দাঁড়িয়ে বার্সেলোনার গহীন অতলে তলিয়ে যাওয়া দেখেছিলেন হান্সি ফ্লিক। কয়েক বছর পর এবার সেই বার্সেলোনার ডাগআউটেই দাঁড়াতে যাচ্ছেন এই জার্মান কোচ।

মাসখানেক ধরে ফ্লিকের বার্সার দায়িত্ব নেয়ার গুঞ্জন ভেসে বেড়াচ্ছিল। গত ২৪ মে জাভিকে ছাঁটাইয়ের ঘোষণা দেয় বার্সেলোনা। তখন ফ্লিককে নিয়োগ দেয়ার গুঞ্জন আরো জোরালো হয়। অবশেষে আজ আনুষ্ঠানিক বিবৃতির মাধ্যমে ফ্লিককে পরবর্তী কোচ হিসেবে নিয়োগ দেয়ার ঘোষণা দিয়েছে বার্সেলোনা।

আপাতত দুই বছরের চুক্তিতে ২০২৬ সালের জুন পর্যন্ত বার্সেলোনায় যোগ দিয়েছেন ফ্লিক।

পেশাদার ক্যারিয়ারে প্রথমবার ডাগআউটে দাঁড়িয়েই ইতিহাস গড়েছিলেন ফ্লিক। ২০২০ সালে বায়ার্ন মিউনিখকে ঐতিহাসিক ‘সেক্সটাপল’ বা এক মৌসুমে ছয় ট্রফি জিতিয়েছিলেন।

বায়ার্ন ছেড়ে জার্মান জাতীয় দলের দায়িত্ব নিয়ে অবশ্য খুব একটা সুবিধা করতে পারেননি ফ্লিক। প্রথম জার্মান কোচ হিসেবে বাজে ফলাফলের জন্য চাকরীচ্যুত হন ৫৯ বছর বয়সী এই ফুটবল কোচ।

সদ্যসমাপ্ত ২০২৩-২৪ মৌসুম শিরোপাহীন কেটেছে বার্সেলোনার। দ্বিতীয় স্থানে থেকে লিগ শেষ করলেও চ্যাম্পিয়ন রিয়াল মাদ্রিদের সঙ্গে তাদের পয়েন্টের ব্যবধান ছিল ১০। বড় চ্যালেঞ্জ সামনে নিয়েই তাই বার্সেলোনার ডাগআউটে দাঁড়াতে হবে ফ্লিককে।

;

জাতীয় মহিলা দাবায় চ্যাম্পিয়ন নোশিন



স্পোর্টস ডেস্ক, বার্তা ২৪
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

৪২তম জাতীয় মহিলা দাবা প্রতিযোগিতায় চ্যাম্পিয়ন হয়েছেন গতবারের জাতীয় মহিলা চ্যাম্পিয়ন ফিদে মাস্টার নোশিন আঞ্জুম। বাংলাদেশ নৌবাহিনীর এই দাবাড়ু ১০ খেলায় সাড়ে আট পয়েন্ট পেয়ে এক রাউন্ড আগেই শিরোপা জয় করেন। আজ বুধবার (২৯ মে) বাংলাদেশ দাবা ফেডারেশনের ক্রীড়াকক্ষে অনুষ্ঠিত দশম রাউন্ডের খেলায় নোশিন বাংলাদেশ পুলিশের মহিলা ক্যান্ডিডেট মাস্টার জান্নাতুল ফেরদৌসকে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন হওয়ার গৌরব অর্জন করেন।

সাত পয়েন্ট নিয়ে বাংলাদেশ আনসারের মহিলা আন্তর্জাতিক মাস্টার শারমীন সুলতানা শিরিন দ্বিতীয় স্থানে রয়েছেন। সাড়ে ছয় পয়েন্ট করে নিয়ে বাংলাদেশ পুলিশ এবং কুমিল্লার মহিলা ক্যান্ডিডেট মাস্টার নুশরাত জাহান আলো ও বাংলাদেশ নৌবাহিনীর ওয়াদিফা আহমেদ মিলিতভাবে তৃতীয় স্থানে রয়েছেন। ছয় পয়েন্ট নিয়ে বাংলাদেশ নৌবাহিনীর মহিলা ক্যান্ডিডেট মাস্টার আহমেদ ওয়ালিজা চতুর্থ স্থানে রয়েছেন।

দশম রাউন্ডের খেলায় আন্তর্জাতিক মাস্টার শারমীন সুলতানা শিরিন বাংলাদেশ নৌবাহিনীর মহিলা ক্যান্ডিডেট মাস্টার ওয়ারসিয়া খুশবুর সাথে ড্র করেন। গোপালগঞ্জের মহিলা ক্যান্ডিডেট মাস্টার ইশরাত জাহান দিবা মহিলা ফিদে মাস্টার ওয়াদিফা আহমেদকে, মহিলা ক্যান্ডিডেট মাস্টার আহমেদ ওয়ালিজা মহিলা ক্যান্ডিডেট মাস্টার নুশরাত জাহান আলোকে, মহিলা আন্তর্জাতিক মাস্টার রানী হামিদ নড়াইলের নীলাভা চৌধুরীকে এবং মহিলা ক্যান্ডিডেট মাস্টার কাজী জারিন তাসনিম তাবাসসুম সাদিয়া শাহজাহানকে পরাজিত করেন।

একাদশ তথা শেষ রাউন্ডের খেলা আগামীকাল বৃহস্পতিবার বিকেল ৩টা থেকে একই স্থানে শুরু হবে।

বাংলাদেশ দাবা ফেডারেশনের ব্যবস্থাপনায় ১১দিন ব্যাপী রাউন্ড রবিন লিগ পদ্ধতির এই প্রতিযোগিতা চলবে ৩০ মে পর্যন্ত। বিজয়ীদের নগদ অর্থ পুরস্কার দেয়া হবে।

;

বাংলাদেশের কাবাডির সুন্দর ভবিষ্যত দেখছেন নৃত্যশিল্পী নীপা



স্পোর্টস ডেস্ক, বার্তা ২৪
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

‘প্রথমবারের মতো এখানে আসলাম। জাতীয় এই খেলাটি আমাদের কৃষ্টির সঙ্গে জড়িয়ে আছে। ছোটবেলা থেকেই খেলাটি দেখে আসছি। ঢাকার বাইরে গ্রামে গেলে ছেলেরা কাদার মধ্যে দুই দল হয়ে যেভাবে খেলে, তা দেখে খুব মজা লাগে। এটা তো আমাদের নিজস্ব খেলা। সেক্ষেত্রে খেলাটি গ্রামে দেখেছি। কিন্তু ফর্মাল ভাবে এই প্রথম দেখলাম।’

কথাগুলো শামীম আরা নীপার। বাংলাদেশের জনপ্রিয় ও তারকা নৃত্যশিল্পী। নৃত্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ‘নৃত্যাঞ্চল’-এর অন্যতম এই প্রতিষ্ঠাতা ঢাকা বিভাগের সেরা নৃত্যশিল্পীর হিসেবে স্বর্ণপদক এবং ২০১৭ সালে একুশে পদক লাভ করেছিলেন।

আজ বুধবার (২৯ মে) মিরপুর শহীদ সোহরাওয়ার্দী ইনডোর স্টেডিয়ামে এসেছিলেন নীপা। উদ্দেশ্য ছিল বঙ্গবন্ধু কাপ ২০২৪ আন্তর্জাতিক কাবাডি টুর্নামেন্ট বাংলাদেশ-ইন্দোনেশিয়া গ্রুপ ম্যাচ উপভোগ করা। সেটা করেছেনও। বাংলাদেশ লোক ফোরাম, জাতীয় যুব পরিষদ এবং অন্যান্য সংস্থাগুলি কর্তৃক সেরা নৃত্যশিল্পীর পুরস্কারে ভূষিত নীপা আরও বলেন, ‘খেলাধুলার সঙ্গে নাচের অনেকটাই মিল আছে। দুটোতেই শারীরিক কসরতের মাধ্যমে কাজটা করতে হয়। আর যখন নিজের দেশের খেলা হয় এবং দেশের দল ভাল খেলে, তখন অন্যরকম অনুভূতি হয়। আজ আমার অনুভূতি ভীষণ ভালো। আজকে নিজেকে লাকি মনে করছি। কারণ আজ মাঠে থেকে নিজ দেশের জয় নিজের চোখে দেখতে পেরেছি। আমি চাইবো আমাদের দেশ লাল-সবুজের পতাকা নিয়ে আরও অনেকদূর এগিয়ে যাবে।’

এই টুর্নামেন্টে বাংলাদেশ তিনবারের চ্যাম্পিয়ন শুনে নীপার ভাষ্য, ‘মনেপ্রাণে চাইবো তারা যেন এবারও শিরোপা অক্ষুন্ন রাখতে পারে। খেলাধুলায় আমরা অনেকটাই এগিয়ে গেছি। সঠিক পরিকল্পনা, পর্যাপ্ত পৃষ্ঠপোষকতা ও ভাল খেলোয়াড়দের ঠিকমতো ট্রেনিং দেয়া হলে আমার বিশ্বাস ক্রীড়াঙ্গনে আরও অনেক সাফল্য আসবে। আসলে সংস্কৃতি ও ক্রীড়া আমাদের রক্তের মধ্যে আছে। নিজস্ব একটা শক্তি আছে এই মাটিতে। আমরা যদি সঠিকভাবে তাদের পরিচর্যা করি তাহলে আমাদের সামনে সুন্দর ভবিষ্যত।’

নাচের মানুষ হলেও কখনও খেলাধুলা করেছেন কি না, এই প্রশ্নের জবাবে নীপা বলেন, ‘আমি খেলাধুলা বেশি পারতাম না, ওই পেছনে পেছনে থাকতাম! যেহেতু একটা অঙ্গনের সাথে জড়িত ছিলাম, নাচ করেছি, খেলাধুলার সঙ্গে তেমন জড়িত ছিলাম না। তবে ভালো লাগে খেলাধুলা। সেভাবে মাঠে গিয়ে খেলা দেখা হয় না, তবে টিভিতে খেলা দেখি। যখন বাংলাদেশের সঙ্গে অন্য দলগুলো খেলে, সেগুলো দেখতে বেশি ভালো লাগে। সমর্থন নিজের মধ্যে এমনিতেই চলে আসে।’

;