ভারতকে হারিয়ে ২ সোনা জয়ের সুযোগ বাংলাদেশের



স্পোর্টস ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
ছবি- সংগৃহীত

ছবি- সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

এশিয়া কাপ আর্চারিতে দুটো সোনা জেতার সুযোগের সামনে এসে দাঁড়িয়েছে বাংলাদেশ। রিকার্ভ দলগত ও মিশ্র ইভেন্টের ফাইনালে চলে গেছেন হাকিম আহমেদ রুবেল-দিয়া সিদ্দিকীরা। ফাইনালে লড়াইটা ভারতের বিপক্ষে। তাদের হারাতে পারলেই দুই সোনার পদক জিতে যাবে কোচ মার্টিন ফ্রেডেরিখের দল।

রিকার্ভ পুরুষ দলগত ইভেন্টে ফাইনালটা বাংলাদেশ নিশ্চিত করেছে সহজেই। আব্দুর রহমান আলিফ, সাগর ইসলাম ও হাকিম আহমেদ রুবেলদের নিয়ে গড়া বাংলাদেশ দল খেলেছে সরাসরি সেমিফাইনালে। সব মিলিয়ে ৬টি দল অংশ নিয়েছিল। র‍্যাঙ্কিং বিচারে বাংলাদেশ বাই পেয়ে গিয়েছিল। সেমিতে তাদের সামনে ছিল উজবেকিস্তান। তাদেরকে ৫-১ সেট পয়েন্টে পরাজিত করে ফাইনালে ওঠেন হাকিমরা। ফাইনালে ভারত প্রতিপক্ষ, সেমিফাইনালে স্বাগতিক ইরাককে ৬-০ সেট পয়েন্টে উড়িয়ে দিয়েছে তারা।

মিশ্র রিকার্ভেও সরাসরি সেমিফাইনালে খেলেছে বাংলাদেশ। সেখানেও উজবেকিস্তানই হয় প্রতিপক্ষ। সেখানেও জয় এসেছে বাংলাদেশের পক্ষে। ৫-৩ সেট পয়েন্টে উজবেকদের হারান সাগর আর দিয়া। তার আগে কোয়ার্টার ফাইনালে পাকিস্তানের বিপক্ষে লড়াইটা অবশ্য হাড্ডাহাড্ডিই হয়েছে। সেখানে ৪-৪ ড্রয়ের পর টাইব্রেকারে গড়ায় ম্যাচটা। সেখানে পাকিস্তানকে ১৭-১৫ ব্যবধানে হারায় বাংলাদেশ।

দলগত ইভেন্টে ছয়টির মধ্যে বাংলাদেশ চার ইভেন্টে অংশ নিয়েছে। চার ইভেন্টেই পদক জেতার সম্ভাবনা জিইয়ে রেখেছে দলগুলো। সোনা জয়ের সম্ভাবনা নিয়ে দুই ফাইনালে বাংলাদেশ নামবে ২৫ ফেব্রুয়ারি। আর ব্রোঞ্জের লড়াই ২৪ ফেব্রুয়ারি। 

তার আগে আজ রিকার্ভ ও কম্পাউন্ড ইভেন্টের একক লড়াইয়ে নামবেন হাকিম-দিয়ারা।

   

আইপিএল ছাড়াও টিভিতে যা দেখবেন আজ



স্পোর্টস ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

আইপিএল

রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স বেঙ্গালুরু–সানরাইজার্স হায়দরাবাদ

রাত ৮টা 📺 গাজী টিভি, টি স্পোর্টস ও স্টার স্পোর্টস ১

ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগ

চেলসি–এভারটন

রাত ১টা 📺 স্টার স্পোর্টস সিলেক্ট ১

লা লিগা

ওসাসুনা–ভ্যালেন্সিয়া

রাত ১টা 📺 র‍্যাবিটহোল ও স্পোর্টস ১৮–১

;

টি- টোয়েন্টি বিশ্বকাপ খেলা হচ্ছে না এবাদতের



স্পোর্টস ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
এবাদত হোসেন

এবাদত হোসেন

  • Font increase
  • Font Decrease

গত বছরের জুলাইয়ের ইনজুরিতে পড়েছিলেন এবাদত হোসেন। আফগানিস্তানের বিরুদ্ধে হোম সিরিজ চলছিল তখন। সেই সিরিজ তো তার শেষ হলোই, সেই সঙ্গে জানা গেল অক্টোবরে ভারতের মাটিতে ওয়ানডে বিশ্বকাপও মিস করছেন তিনি। হলো তাই। তারপর নিউজিল্যান্ডের বিরুদ্ধে দেশে এবং বিদেশে সিরিজ খেললো বাংলাদেশ। চলতি বছরের শুরুতে শ্রীলঙ্কা এলো পুরো মাত্রার সিরিজ খেলতে। সেই সিরিজেও দর্শক হয়ে রইলেন এবাদত হোসেন। মাঝে বিপিএলও চলে গেল। তিনি মাঠের বাইরে। এখন সর্বশেষ জানা গেলে সামনের জুনে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে তার খেলা হচ্ছে না। ইনজুরি থেকে এখনো মুক্তি মেলেনি বাংলাদেশের বেচারা এই পেস বোলারের।

বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) প্রধান চিকিৎসক দেবাশীষ চৌধুরী জানিয়েছেন, বিশ্বকাপের আগে এবাদতের ফিট হওয়ার উপায় নেই। নিশ্চিতভাবেই তিনি এই বিশ্বকাপও মিস করছেন। জুনের এই বিস আয়োজন বসবে যুক্তরাষ্ট্র এবং ওয়েস্ট ইন্ডিজে।

অ্যান্টেরিয়র ক্রুসিয়েট লিগামেন্ট ইনজুরির জন্য অস্ত্রোপচারের পর পুনর্বাসনে থাকা এবাদত টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের আগেই ফিট হয়ে উঠবেন বলে আশায় ছিলেন। তার সেই অপেক্ষা এখন আরো বাড়লো।

বিসিবির প্রধান চিকিৎসক ডাঃ দেবাশিস জানিয়েছেন, টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের আগে ডানহাতি পেসারের কামব্যাক করার কোনও উপায় নেই। ওই সময়ের মধ্যে এটা (তার কামব্যাক) সম্ভবপর না। আট থেকে ১২ মাস সময় লাগবে তার। অন্তত অক্টোবরে তিনি ফিরতে পারবেন। সে একটু আগে কামব্যাক করতে পারে, তবে অবশ্যই টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে নয়।

তবে ইনজুরিতে পড়া আরো দুই ক্রিকেটার সৌম্য সরকার ও তাইজুল ইসলামের বিষয়ে সুখবর শুনিয়েছেন বিসিবির চিকিৎসক। তিনি বলেন, ইনজুরিতে পড়া সৌম্য সরকার ও তাইজুল ইসলামকে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে হোম সিরিজের আগে পাওয়া যাবে বলে তারা আশাবাদী। পাঁচ ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজ খেলতে মে মাসে জিম্বাবুয়ে আসার কথা রয়েছে। এই সিরিজকে আসন্ন টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের জন্য প্রস্তুতি হিসেবে দেখছে বাংলাদেশ।

;

৬ বলে ৬ ছক্কা, যুবরাজ-পোলার্ডের সঙ্গী নেপালের দীপেন্দ্র সিং



খেলা ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
এক ওভারে ছয় ছক্কা মারলেন নেপালের দীপেন্দ্র সিং আইরে

এক ওভারে ছয় ছক্কা মারলেন নেপালের দীপেন্দ্র সিং আইরে

  • Font increase
  • Font Decrease

ডারবানে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ২০০৭ সালের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের ম্যাচে ব্রডকে ছয় ছক্কা হাঁকিয়েছিলেন ভারতের যুবরাজ সিং। সেই রেকর্ড ২০২১ সালে এসে ছুঁয়ে ফেলেন ওয়েস্ট ইন্ডিজ অলরাউন্ডার কাইরন পোলার্ড। এবার তাদের সেই কৃর্তীতে ভাগ বসালেন নেপালের দীপেন্দ্র সিং আইরে। তৃতীয় ক্রিকেটার হিসেবে আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টি ম্যাচে ছয় বলে ছয় ছক্কা মারার রেকর্ড গড়লেন নেপালের এই ফিনিশার। আর আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে সব মিলিয়ে ৫ম ব্যাটার হিসেবে এই কীর্তি গড়লেন তিনি।

ওমানের মাসকাটে কাতারের বিপক্ষে এসিসি প্রিমিয়ার কাপের ম্যাচে আগে ব্যাট করা নেপালের ইনিংসে এই কীর্তি গড়েন দীপেন্দ্র সিং, বোলার ছিলেন কামরান খান।২০তম ওভারে এই রেকর্ড করে তিনি ইতিহাসের পাতায় ঢুকে গেলেন।

শনিবার এসিসি প্রিমিয়ার কাপের ম্যাচে ১৫ বলে ২৮ রানে অপরাজিত থেকে ওভারটি শুরু করেছিলেন দীপেন্দ্র সিং আইরে। ৬ বলে ৬ ছক্কায় ২১ বলে সেই রান গিয়ে ঠেকলো ৬৪-তে। ইনিংসের ২০ তম ওভারে আক্রমণে এসেছিলেন কাতারের কামরান খান। তার এই ওভারের প্রতিটি বলেই ওভার বাউন্ডারি হাঁকালেন। দীপেন্দ্র’র এমন বিধ্বংসী ব্যাটিংয়ে ৭ উইকেটে ২১০ রানে থামে নেপালের ইনিংস।

এর আগেও টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে এমন বিস্ফোরক ব্যাটিং দেখিয়েছেন নেপালের এই তরুণ। গত বছর এশিয়ান গেমসে মঙ্গোলিয়ার বিপক্ষে ৯ বলে অর্ধশত করেন তিনি, টি-টোয়েন্টিতে যুবরাজের দ্রুততম ফিফটির (১২ বল) রেকর্ড ভাঙেন দীপেন্দ্র সিং। টানা ছয় ছক্কা সে ইনিংসেও মেরেছেন তিনি। তবে সেটা দুই ওভার মিলিয়ে।

 

;

সাতক্ষীরায় সাবিনাসহ পাঁচ নারী ক্রীড়াবিদকে সংবর্ধনা



ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, সাতক্ষীরা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

সাতক্ষীরায় দেশসেরা পাঁচ নারী ক্রীড়াবিদকে সংবর্ধনা দেওয়া হয়েছে।

শনিবার (১৩ এপ্রিল) জেলা প্রশাসকের বাংলো নীহারিকার কনফারেন্স রুমে তাদের সংবর্ধনা দেয় সাতক্ষীরা জেলা মহিলা ক্রীড়া সংস্থা।

সংবর্ধনাপ্রাপ্তরা হলেন- বাংলাদেশ জাতীয় মহিলা ফুটবল দলের ক্যাপ্টেন সাবিনা খাতুন, ষোলবার দ্রুততম মানবীর খেতাবপ্রাপ্ত অ্যাথলেট এবং বাংলাদেশের দ্রুততম মানবী শিরিন আক্তার, অনুর্ধ্ব ১৯ জাতীয় মহিলা ফুটবল দলের ক্যাপ্টেন আফঈদা খন্দকার প্রান্তি, বক্সিং এ গোল্ড মেডেলপ্রাপ্ত বক্সার আফরা খন্দকার প্রাপ্তি এবং বাংলাদেশ জাতীয় মহিলা ফুটবল দলের ডিফেন্ডার মোছাঃ মাছুরা খাতুন।

এ উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন সাতক্ষীরা জেলা মহিলা ক্রীড়া সংস্থার সভানেত্রী জেসমিন জাহান। এছাড়াও জেলা মহিলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক ফারহা দিবা খান সাথীসহ অন্যান্যরা উপস্থিত ছিলেন।

জেসমিন জাহান বলেন, সাতক্ষীরার মেয়েরা দেশের মহিলা ক্রীড়াঙ্গনের রোল মডেল। সাতক্ষীরার মেয়েদের সাফল্য বাংলাদেশকে যেমন আন্তর্জাতিক অঙ্গনে সম্মান এনে দিয়েছে, তেমনি দেশের সবার কাছে সাতক্ষীরার ভাবমূর্তি উজ্জ্বল করেছে। যা জেলার মানুষকে গর্ব করার সুযোগ করে দিয়েছে। বৈষম্য নয়, নারীরা যেন ক্রীড়াক্ষেত্র থেকে শুরু করে সব জায়গাতেই সমান অধিকার পায়, সেটা নিশ্চিত করা জরুরি।

;