কিউইরাও শুনবে, তাই বেশি কিছু বলবেন না হাথুরুসিংহে



স্পোর্টস ডেস্ক বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

 

নিজেদের মাঠে কিউইদের বিপক্ষে প্রথমবারের মতো টেস্ট জিতেছে বাংলাদেশ। সিলেটে সিরিজের সেই প্রথম টেস্টে নিউজিল্যান্ডকে ১৫০ রানে হারিয়েছে স্বাগতিকরা। এতে স্বাভাবিক অর্থেই বেশ ফুরফুরে মেজাজে আছেন দলের ক্রিকেটাররা। তাদের সঙ্গে দলের কোচরাও যে স্বাচ্ছন্দ্যেই আছেন তা বোঝা গেল আজকের (মঙ্গলবার) ম্যাচপূর্ব সংবাদ সম্মেলনে। 

সিরিজের দ্বিতীয় ম্যাচ মিরপুর শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে। আগামীকাল (বুধবার) শুরু হবে সেই ম্যাচটি। সেখানে কিউইদের থামিয়ে শান্তদের সামনে আরও একটি ইতিহাস গড়ার হাতছানি, কিউইদের বিপক্ষে টেস্ট সিরিজ জেতার। সেটিকে সামনে রেখেই ম্যাচপূর্ব সংবাদ সম্মেলনে নিজেদের পরিকল্পনার কথা জানান বাংলাদেশের হেড কোচ চন্ডিকা হাথুরুসিংহে। 

এদিন বেশ ফুরফুরে মেজাজেই ছিলেন হাথুরুসিংহে। অনেকটা রসিকতা দিয়েই শুরু করেছেন কথা। তাদের পরিকল্পনা শুনতে মুখিয়ে আছে কিউইরাও, তাই এখানে বেশি কিছু বলবেন বলে জানান শ্রীলঙ্কার সাবেক এই ক্রিকেটার। 

সিলেটে স্পিনাররা ছিলেন দারুণ ছন্দে। দুই ইনিংস মিলিয়ে ১৮ উইকেটই নিয়েছেন স্পিনাররা। এবারও কি তেমন প্ল্যান এই থাকছে নাকি ভিন্ন কিছু ভাবছে দল, এমন প্রসঙ্গে হাথুরুসিংহে বলেন, ‘আসলে, এটা নির্ভর করছে পিচ এবং কন্ডিশনের ওপর। আপনি যেমনটা বললেন, সিলেটের আমরা বেশ ভালো ক্রিকেট খেলেছি। পাঁচ দিনই আমরা বেশ ভালো প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছি।’

বিশ্বের সবচেয়ে ব্যস্ততম উইকেটের মধ্যে একটি মিরপুর। সেখানে শুরুতেই পিচের অবস্থা বলা কঠিন। হাথুরুসিংহে আরও বলেন, ‘ আপনারাও জানেন, কয়েকটি সেশন না গেলে মিরপুরের পিচ নিয়ে বলা কঠিন। এই উইকেটে অনেক ম্যাচ হয়েছে। আমার মনে হয় না বিশ্বের অন্য কোনো মাঠে এত ম্যাচ হয়েছে। তাই আপনি আগেই প্রেডিক্ট করতে পারবেন না। আমরা এই মুহূর্তে খুব বেশি পরিবর্তন করতে চাচ্ছি না।’

   

বরিশালের প্রথম না কুমিল্লার পাঁচ?



স্পোর্টস ডেস্ক বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

‘আগেও দু’বার ফাইনাল খেলেছি কিন্তু কখনো বিপিএলে ট্রফি জিততে পারিনি। যদি চ্যাম্পিয়ন হতে পারি, এবারই প্রথম চ্যাম্পিয়ন হব’-বিপিএলের দশম আসরের ফাইনালের আগে ট্রফি উন্মোচন পর্ব শেষে আক্ষেপ নিয়ে কথাগুলো বলছিলেন ফরচুন বরিশালের তারকা অলরাউন্ডার মেহেদী হাসান মিরাজ। কণ্ঠে আক্ষেপের সুরের সঙ্গে স্পষ্ট শিরোপা জয়ের ক্ষুধাটাও। সেই ক্ষুধা নিবারণের ম্যাচ কাল। যেখানে তাদের প্রতিপক্ষ আসরের সবচেয়ে সফলতম দল কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স। যারা লিগে পঞ্চম ও একইসঙ্গে হ্যাটট্রিক শিরোপা জয়ের পথে রয়েছে।

সেই হিসেবে কুমিল্লার ধারে কাছেও নেই বরিশাল। আসরে এখন পর্যন্ত দু’বার ফাইনাল খেললেও শিরোপা ছুঁয়ে দেখা হয়নি ফ্র্যাঞ্চাইজিটির। শেষবার তো ২০২২ বিপিএলে এই কুমিল্লার বিপক্ষে হেরেই শিরোপা খুয়াতে হয়েছে বরিশালকে। সেটাও হৃদয়ে রক্তক্ষরণ হয়ে। হারতে হয়েছে মাত্র ১ রানের ব্যবধানে। বিপিএলের ইতিহাসে এমনভাবে হারের নজির নেই কোনো দলের।

তাই কুমিল্লার সঙ্গে বরিশালের হিসেবটা বেশ পুরনো। যা মেটাতে হলে ফাইনালে শিরোপা জিতেই মেটাতে হবে তাদের। সেই সামর্থ্য রয়েছেও দলটির ক্রিকেটারদেরও। বাংলাদেশ জাতীয় দলের একঝাঁক অভিজ্ঞ ও বিদেশী পরীক্ষিত ক্রিকেটার নিয়ে গড়া এই দলটা হারিয়ে দিতে পারে যে কোনো দলকেই। একটি এলিমিনেটর ও কোয়ালিফায়ার জিতে ফাইনালে পা রেখে যার প্রমাণ এরইমধ্যেই দিয়ে রেখেছে তামিম ইকবালের দল। তাছাড়া সবশেষ লিগ পর্বে কুমিল্লার বিপক্ষে পাওয়া জয়ও ফাইনালে বাড়তি আত্মবিশ্বাসী দেবে দলটিকে।

তবে ওসবে কুমিল্লার ভাবনা কমই। কেননা, হার দিয়ে আসর শুরু ও সবশেষ ট্রফি জয়। যেন নিয়মেই পরিণত করে ফেলেছে কুমিল্লা। এবারও দলটি আসর শুরু করেছিল টুর্নামেন্টের সবচেয়ে দুর্বল দল ঢাকার বিপক্ষে নিজেদের প্রথম ম্যাচ হেরে। সেই তারাই সবার আগে ফাইনালে। তাই শিরোপার বাতাসটা বেশ ভালোভাবেই লাগতে শুরু করেছে দলটির। তাছাড়া আগের চার আসরের ফাইনালে উঠে কখনোই খালি হাতে ফিরতে হয়নি কুমিল্লাকে। যা এ ম্যাচেও বাড়তি প্রেরণা হিসেবে কাজ করবে লিটন দাসের দলের।

দলটিকে এগিয়ে রাখবে তাদের ফর্ম। লিটন ও তাওহীদ হৃদয় চলতি টুর্নামেন্টে দুর্দান্ত ফর্মে রয়েছেন। হৃদয় চলতি টুর্নামেন্টের সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহকের তালিকায় দুই নম্বরে। দেশি ক্রিকেটারদের মধ্যে সর্বোচ্চ ছক্কার রেকর্ডটাও এরইমধ্যে নিজেদের করে নিয়েছেন তিনি। সঙ্গে প্রয়োজনের সময় জ্বলে উঠতে পারার সামর্থ্য আছে জাকের আলীর। দলটির বিদেশি ক্রিকেটাররাও রয়েছেন দারুণ ছন্দে। আন্দ্রে রাসেল, মঈন আলী কিংবা সুনীল নারিনরা নিজেদের দিনে একাই ম্যাচ ঘুরিয়ে দেওয়ার সামর্থ্য রাখেন। যা এই ম্যাচে নামার আগেও সাহস যোগাবে কুমিল্লাকে।

সব মিলিয়ে তাই বলতে গেলে আসরের অন্যতম সেরা দুই দলই উঠেছে এবারের ফাইনালে। তাই রোমাঞ্চটাও ছাড়াচ্ছে বেশ। শুক্রবার ছুটির দিনে সন্ধ্যা সাড়ে ছয়টার ফাইনালটাও তাই হয়ে উঠেছে দর্শক আগ্রহের কেন্দ্রবিন্দুতে। যেখানে দু’দলই মুখিয়ে শিরোপার জন্য। আর এই শিরোপা প্রশ্নের উত্তর মিলবে কাল। যেখানে হয় বরিশাল প্রথম না নয় কুমিল্লা হ্যাটট্রিক ও পঞ্চম শিরোপার আনন্দে মাতবে।

;

ফেরা হলো না রাহুলের, ধর্মশালা টেস্টে বুমরাহ



স্পোর্টস ডেস্ক বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

পাঁচ ম্যাচের টেস্ট সিরিজ এরইমধ্যে জিতে নিয়েছে ভারত। সফরকারী ইংল্যান্ডের বিপক্ষে স্বাগতিকরা এগিয়ে ৩-১ ব্যবধানে। সিরিজের শেষ ম্যাচ আগামী ৭ মার্চ, ধর্মশালায়। যেই টেস্টে ফেরার কথা ছিল সিরিজের প্রথম টেস্টের পর চোটে ছিটকে যাওয়া লোকেশ রাহুলের। তবে শেষ পর্যন্ত ফেরা হচ্ছে না রাহুলের। তবে রাহুল না ফিরলেও শেষ টেস্টের দলে ফেরানো হয়েছে জাসপ্রিত বুমরাহকে।

বৃহস্পতিবার ধর্মশালা টেস্টের জন্য ১৬ সদস্যের দল ঘোষণা করেছে বিসিসিআই। যেখান থেকে বাদ পড়েছেন অলরাউন্ডার ওয়াশিংটন সুন্দর। রাজ্য দল তামিলনাড়ুর হয়ে রঞ্জি ট্রফির সেমিফাইনাল খেলতে দল থেকে মুক্তি দেওয়া হয়েছে তাকে। তবে আগের টেস্টে বিশ্রামে থাকলেও সিরিজের শেষ টেস্টে ফেরানো হয়েছে বুমরাহকে।

চোটের কারণে এই সিরিজে আর রাহুলের না ফেরার ব্যাপারে বিসিসিআইয়ের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, ‘রাহুল তার কোয়াড্রিসেপ-টেন্ডন ইনজুরির বিষয়ে লন্ডনে ডাক্তারদের সাথে পরামর্শ করেছেন যার ফলে সিরিজের বাকি ম্যাচগুলো থেকে ছিটকে গেছেন। বিসিসিআই মেডিকেল টিম তাকে ঘনিষ্ঠভাবে পর্যবেক্ষণ করছে এবং তার সমস্যাটির আরও পরিচালনার জন্য লন্ডনে বিশেষজ্ঞদের সাথে সমন্বয় করছে।

এদিকে সামনেই আইপিএল মাঠে গড়াবে। যা শুরু হবে ২২ মার্চ থেকে। যেখানে লখনউ সুপার জায়ান্টসের অধিনায়ক রাহুল। তাই অধিনায়ক চোটে থাকায় বিকল্প ভাবতে হচ্ছে ফ্র্যাঞ্চাইজিটিকেও। আর সেখানটাকেও কোনো কারণে চোট পুরোপুরি সারিয়ে রাহুল মাঠে নামতে না পারলে দলের সহ-অধিনায়ক নিকোলাস পুরান নেতৃত্ব দেবেন দলকে।

ধর্মশালা টেস্টের জন্য ভারতের স্কোয়াড:

রোহিত শর্মা (অধিনায়ক), জাসপ্রিত বুমরাহ (সহ-অধিনায়ক), যশস্বী জয়সওয়াল, শুভমান গিল, রজত পাতিদার, সরফরাজ খান, ধ্রুব জুরেল (উইকেটরক্ষক), কেএস ভারত (উইকেটরক্ষক), দেবদত্ত পাডিক্কল, রবীচন্দ্রন অশ্বিন, রবীন্দ্র জাদেজা, অক্ষর প্যাটেল, কুলদীপ যাদব, মোহাম্মদ সিরাজ, মুকেশ কুমার, আকাশ দীপ

;

ফাইনালে ‘কিলার’ মিলারকে পাবে বরিশাল



স্পোর্টস ডেস্ক, বার্তা ২৪
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

আগামী ৯ মার্চ বিয়ের পিঁড়িতে বসার কথা ডেভিড মিলারের। বিয়ের আয়োজনের ঝক্কি কম নয়। তবু অনুরোধের ঢেঁকি গিলে বিয়ের ঠিক আগে ফরচুন বরিশালের হয়ে বিপিএলে দুই ম্যাচ খেলতে এসেছিলেন। তবে দল ফাইনালে ওঠায় এখন সে ম্যাচেও তাকে পেতে চাইছে বরিশাল। আরও একবার বরিশাল কর্তৃপক্ষের অনুরোধ রেখে ফাইনালে খেলতে সম্মত হয়েছেন মিলার।

শুক্রবার (১ মার্চ) ফাইনালে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের বিপক্ষে মিলারকে পাওয়া যাবে বলে আনুষ্ঠানিকভাবে জানিয়েছে ফরচুন বরিশাল কর্তৃপক্ষ। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে খবরটি সমর্থকদের দিয়েছেন তারা।

৯ মার্চ দীর্ঘদিনের বান্ধবী ক্যামিলা হ্যারিসের সঙ্গে গাঁটছড়া বাঁধবেন মিলার। গত ২৫ ফেব্রুয়ারি বিপিএলে খেলতে ঢাকায় পা দিয়েই জানিয়েছিলেন, ’বিয়ে করবো। অনেক কিছু ম্যানেজ করার ব্যাপার ছিল।' তবু তামিম ইকবাল এবং বরিশাল কর্তৃপক্ষের অনুরোধে টুর্নামেন্টের ‘বিজনেস এন্ড’-এ খেলতে রাজি হয়েছিলেন এই প্রোটিয়া ব্যাটার।

উল্লেখ্য, প্লে-অফে দুই ম্যাচ জিতে ফাইনালে জায়গা করে নিয়েছে ফরচুন বরিশাল। এলিমিনেটরে চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স এবং দ্বিতীয় কোয়ালিফায়ারে টুর্নামেন্টের অন্যতম ফেবারিট সাকিব আল হাসানের রংপুর রাইডার্সের বিদায়ঘণ্টা বাজিয়েছে তারা। এখন ফাইনালে চারবারের চ্যাম্পিয়ন কুমিল্লাকে ধরাশায়ী করে প্রথমবারের মতো শিরোপা ছুঁয়ে দেখার স্বপ্নে বিভোর তামিম-মিলারদের বরিশাল।

;

হামজার বাংলাদেশের হয়ে খেলা নিয়ে যা বললেন কাবরেরা



স্পোর্টস ডেস্ক, বার্তা ২৪
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

কয়েকদিন ধরে বাংলাদেশের ফুটবলে জোরেশোরেই চাউর হয়েছে হামজা চৌধুরীর লাল-সবুজের জার্সিতে খেলার গুঞ্জন। বাংলাদেশ টিম ম্যানেজার আমের খানের কথায় এই ইঙ্গিত পাওয়া যায়। বছর দুয়েক আগে বাংলাদেশের জার্সি গায়ে চড়ানোর ইচ্ছের কথা জানিয়েছিলেন হামজা নিজেও।

তবে জাতীয় দলের ক্ষেত্রে তার প্রথম পছন্দ ছিল ইংল্যান্ড। তাদের হয়ে খেলার সুযোগ পেলে সেটাকেই লুফে নিতেন। তবে আপাতত ইংলিশ ফুটবলের দ্বিতীয় বিভাগের দল লেস্টার সিটির হয়ে খেলা হামজার জন্য ইংল্যান্ডের জাতীয় দল বহুদূরের পথ। তাই বাংলাদেশের হয়ে তার খেলার সম্ভাবনা আপেক্ষিকভাবে বেড়েছে।

আজ (বৃহস্পতিবার) বাফুফে ভবনে ফিলিস্তিনের বিপক্ষে বাংলাদেশের বিশ্বকাপ বাছাইয়ের দুই ম্যাচকে সামনে রেখে অনুষ্ঠিত হয় সংবাদ সম্মেলন। সেখানে হামজার বাংলাদেশের হয়ে খেলার ব্যাপারে আশার কথা শুনিয়েছেন জাতীয় দলের কোচ হাভিয়ের কাবরেরা, ‘হামজার সঙ্গে যে পরিস্থিতিটা চলছে, তাতে আমার মনে হয় আমরা আশাবাদী হতেই পারি।’

ইউরোপের শীর্ষ পর্যায়ের ফুটবলে খেলা হামজাকে দলে পাওয়ার স্বপ্নে বিভোর কাবরেরা আরও যোগ করেন, ‘এই বিষয়ে বাফুফে আপনাদের আরও বেশি তথ্য দিতে পারবে। আমার জন্য এখনই হামজার বাংলাদেশের হয়ে খেলার বিষয়টা প্রাসঙ্গিক নয়। বরং যেটা প্রাসঙ্গিক বিষয়, সেটা হলো, এটা শিগগিরই বাস্তবতায় রূপ নিতে পারে। আশা করছি তার মতো কাউকে আমরা খুব তাড়াতাড়িই দলে নিতে পারব।’

যদি কাবরেরার আশা সত্যিই হয়, তাহলে বিষয়টা বাংলাদেশ ফুটবলের জন্য নিঃসন্দেহে দারুণ কিছুই হবে। প্রিমিয়ার লিগজয়ী দলের হয়ে খেলা, ইউরোপীয় ফুটবলের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ক্লাব প্রতিযোগিতা ইউরোপা লিগে গোল করা একজন ফুটবলার বাংলাদেশের জার্সি গায়ে চড়ানো তো আর চাট্টিখানি কথা নয়!

;