বিশ্বকাপ থেকে কে কত পেল



স্পোর্টস ডেস্ক বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

বিশ্বকাপ; একটা স্বপ্ন। যেই স্বপ্ন জয়ের লড়াইটা শুরু হয়েছিল গত ৫ অক্টোবর। ভারতের ১০টি ভেন্যুতে অভিন্ন লক্ষ্যে ক্রিকেট লড়াইয়ে মাঠে নেমেছিল ১০টি দল। গত ১৯ নভেম্বর ভারত-অস্ট্রেলিয়া ম্যাচের মধ্যে দিয়ে থেমেছে সেই স্বপ্নের যাত্রা। যেখানে ৯টি দেশের স্বপ্ন ভেঙে বিশ্বকাপ ট্রফি উঁচিয়ে ধরেছে অস্ট্রেলিয়া।

এখন চলছে তারই হিসেবনিকেশ। বিশ্বকাপ জিতে কে কত পেল? বিশ্বচ্যাম্পিয়ন অস্ট্রেলিয়া বা রানার্সআপ দল ভারতই বা কত টাকা পেল আইসিসির থেকে? বিশ্বকাপে অংশ নেওয়া বাকিদেরই বা উপার্জন হলো কতটা? কিংবা ব্যক্তিগত পারফরম্যান্সে টুর্নামেন্টে মুগ্ধতা ছড়ানো তারকারাই বা কত টাকা উপার্জন করলেন টুর্নামেন্ট থেকে? এসব প্রশ্নই এখন ঘুরপাক খাচ্ছে ক্রিকেটপ্রেমীদের মনে।

মূলত, টুর্নামেন্টের প্রাইজমানি আগেই ঘোষণা করেছিল আইসিসি। সেই অনুযায়ী চ্যাম্পিয়ন হয়ে ৪০ লাখ মার্কিন ডলার পেয়েছে অস্ট্রেলিয়া। বাংলাদেশ মুদ্রায় যা ৪৪ কোটি টাকারও বেশি। রানার্সআপ ভারত পেয়েছে ২০ লাখ মার্কিন ডলার। যা বাংলাদেশি মুদ্রায় ২২ কোটি টাকারও বেশি।

এবারের ওয়ানডে বিশ্বকাপের দুই সেমি-ফাইনালিস্ট নিউজিল্যান্ড ও দক্ষিণ আফ্রিকা পেয়েছে ৯ কোটি টাকার বেশি। গ্রুপ পর্বে বিদায় নেওয়া ৬ দলের প্রত্যেকে পেয়েছে ১ লাখ ডলার করে। গ্রুপ পর্বে প্রতি জয়ের জন্য ছিল ৪০ হাজার ডলার করে।

বিশ্বকাপে কে কী পেলো

চ্যাম্পিয়ন: অস্ট্রেলিয়া (ট্রফি ও ৪ মিলিয়ন ডলার)
রানার্স-আপ: ভারত (ট্রফি ও ২ মিলিয়ন ডলার)
ফাইনালে ম্যাচসেরা: ট্রাভিস হেড (১৩৭ রান ও ১ ক্যাচ)
টুর্নামেন্ট সেরা: বিরাট কোহলি (৭৬৫ রান, ১ উইকেট ও ৫ ক্যাচ)
সবচেয়ে বেশি রান: বিরাট কোহলি (১১ ইনিংসে ৭৬৫)
সর্বোচ্চ ব্যক্তিগত স্কোর: গ্লেন ম্যাক্সওয়েল (অপরাজিত ২০১)
সবচেয়ে বেশি সেঞ্চুরি: কুইন্টন ডি কক (৪টি)
সবচেয়ে বেশি ফিফটি: বিরাট কোহলি (৬টি)
সবচেয়ে বেশি উইকেট: মোহাম্মদ শামি (৭ ইনিংসে ২৪ উইকেট)
সেরা বোলিং ফিগার: মোহাম্মদ শামি (৭/৫৭, প্রতিপক্ষ নিউজিল্যান্ড)
সবচেয়ে বেশি ছক্কা: রোহিত শর্মা (৩১টি)
সবচেয়ে বেশি ক্যাচ: ড্যারিল মিচেল (১১টি)
সবচেয়ে বেশি ডিসমিসাল: কুইন্টন ডি কক (২০টি)

ফাইনালের টিকিট কাটতে ভারতের বিপক্ষে নামবে বাংলাদেশ



স্পোর্টস ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

নারী এশিয়া কাপের গত আসরটা ভালো কাটেনি বাংলাদেশের মেয়েদের। ঘরের মাটিতে ২০২২ সালের সেই আসরে গ্রুপপর্ব থেকেই বাদ পড়েছিল নিগার সুলতানা জ্যোতির দল। তবে শিরোপা পুনরুদ্ধারের এই মিশনটা সফল করতে এবার আর মাত্র দুই ধাপ দূরে বাংলাদেশের মেয়েরা।

বুধবার গ্রুপপর্বে নিজেদের শেষ ম্যাচে মালয়েশিয়ার বিপক্ষে ১১৪ রানের বড় জয়ে সেমিতে পৌঁছেছে জ্যোতিরা। ফাইনালের ওঠার লড়াইয়ে এবার শক্তিশালী ভারতের বিপক্ষে লড়বে বাংলাদেশ। প্রথম সেমিতে দল দুটি মুখোমুখি হবে আগামীকাল শুক্রবার বাংলাদেশ সময় দুপুর ২টা ৩০ মিনিটে। 

এই ভারতকে ৩ উইকেটে হারিয়ে ২০১৮ আসরে প্রথমবারের মতো এশিয়া কাপের শিরোপা জিতেছিল বাংলাদেশ। এতেই টুর্নামেন্টে নিজেদের দ্বিতীয় শিরোপা নিশ্চিতের পথে আরও একবার স্মৃতি মান্ধানাদের বিপক্ষে লড়বে জ্যোতি-মুর্শিদারা। 

এদিকে আগামীকালই অনুষ্ঠিত হবে সেমি-ফাইনালের দুটি ম্যাচ। দ্বিতীয় সেমিতে বাংলাদেশ সময় সন্ধ্যা ৭টা ৩০ মিনিটে স্বাগতিক শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে নামবে পাকিস্তান। 

এশিয়া কাপের এবারের শুরুটা অবশ্য খুব একটা ভালো হয়নি বাংলাদেশের। নিজেদের প্রথম ম্যাচে লঙ্কানদের বিপক্ষে ৭ উইকেটে হেরে যায় তারা। তবে পরের ম্যাচেই থাইল্যান্ডের বিপক্ষে সমান ৭ উইকেটের জয়ে ঘুরে দাঁড়ায় জ্যোতিরা। পরে গতকালের ম্যাচে তো মালয়েশিয়াকে রীতিমত উড়িয়ে দেয় তারা। এতেই তিন ম্যাচের দুটিতে জিতে গ্রুপ রানার্স-আপ হয়ে শেষ চারের টিকিট নিশ্চিত করে বাংলাদেশ। এদিকে স্বাগতিক লঙ্কানরা জিতেছে তিন ম্যাচের তিনটিতেই। এতে তারা সেমিতে উঠে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়ে। 

নারী এশিয়া কাপের মঞ্চ মানেই ভারতের একচেটিয়া আধিপত্য। এটি টুর্নামেন্টের নবম আসর। এর আগের আট আসরের প্রত্যেকটিতেই ফাইনাল খেলেছে ভারত। এর মধ্যে শিরোপা জিতেছে সাতবারই জিতেছে তারা। কেবল একটিতেই হেরেছে বাংলাদেশের বিপক্ষে। তাই তো ফাইনালে পৌঁছাতে এবার অনেকটাই ইতিহাসই গড়তে হবে জ্যোতি-জাহানারাদের। 

;

ছক্কা মারলেই আউট! এ কেমন নিয়ম?



স্পোর্টস ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

‘ছক্কা মারলে আউট’– কথাটাকে কি একটু পরিচিত শোনাচ্ছে? দেশের পাড়া-মহল্লা কিংবা গলিতে ক্রিকেট খেলতে গিয়ে এমন নিয়মের সামনে তো প্রায় সকল শিশু-কিশোররাই পড়েছেন। এবার সে আশ্চর্যজনক নিয়মটা গলি ক্রিকেটের গণ্ডি ছাড়িয়ে চলে গেছে ইংলিশ কাউন্টিতেও। দ্য সাউথউইক অ্যান্ড শোরহ্যাম ক্রিকেট ক্লাব প্রবর্তন করেছে এই নিয়ম।

ব্রাইটনের কাছের এই ক্লাবটি প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল ১৭৯০ সালে। ২৩৪ বছর বয়সী এই ক্লাবে এই নিয়মটা করা হয়েছে সম্প্রতি। প্রথম ছক্কাতেই অবশ্য আউট হবেন না ব্যাটার। সেটাতে কোনো রান যোগ হবে না নামের পাশে। এরপর দ্বিতীয়বার ছক্কা হাঁকালেি আউট বলে গণ্য হবেন সে ব্যাটার।

এই নিয়ম প্রবর্তন করা হয়েছে আবার অদ্ভুত এক কারণে। মাঠের চারপাশে থাকা প্রতিবেশীদের অভিযোগের প্রেক্ষিতে এই নিয়মটা বেধে দিতে বাধ্য হয় ক্লাবটি। তাদের অভিযোগ ছিল, ব্যাটারদের হাঁকানো ছক্কায় তাদের বাড়ির ছাদ, গাড়ি, ছাউনি ভাঙছে প্রতিনিয়ত।

সেই প্রতিবেশীদের একজন মেরি গিল ডেইলি মেইলকে বলেন, ‘মাঠটা অনেক ছোট। আমার আগে আমার বাবা মা, দাদা দাদীরা এখানে থেকেছেন। সে সময় থেকে প্রতিনিয়ত বল এসে আমাদের বাসার ওপর পড়ত, আর আমাদের ক্ষতি হতো। একবার আমার ছোট ভাইয়ের দোলনায় এসে একটা ক্রিকেট বল পড়েছিল। ’

তবে এই নিয়ম পরিবর্তন ভালো চোখে দেখছেন না খেলোয়াড়রা। একজন তো বলেই বসলেন, ‘আপনি কীভাবে এটাকে নিষিদ্ধ করতে পারেন? এটা হাস্যকর। এটা তো খেলা থেকে আনন্দটাই কেড়ে নিচ্ছে! আমার মনে হয় না এ ধরনের নিয়ম খেলাটায় ঢোকানো উচিত।’

ক্লাবের কোষাধ্যক্ষ মার্ক ব্রক্সাপ ডেইলি মেইলকে জানিয়েছেন, ভবিষ্যতে যেন আর কোনো জরিমানা ক্লাবকে দিতে না হয়, সে কারণেই এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে ক্লাবটি। তিনি বলেন, ‘বেশ কিছু ঘটনা ঘটেছে যেখানে গাড়ি, বাড়ি, ছাদের অংশ বিশেষ ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। তাই আমরা এই সিদ্ধান্তটা নিয়েছি। আমরা ইনস্যুরেন্সের মোটা অঙ্ক কিংবা আমাদের বিপক্ষে সম্ভাব্য আইনি জটিলতা এড়াতে চাইছি। সে কারণে এই সিদ্ধান্তটা নেওয়া।’

;

চোটে ভারত সিরিজ থেকে ছিটকে গেলেন তুশারা



স্পোর্টস ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

ইএসপিএন ক্রিকইনফোর প্রতিবেদন অনুযায়ী, ঘরের মাটিতে ভারতের বিপক্ষে শ্রীলঙ্কার আসন্ন সিরিজে খেলা হচ্ছে না লঙ্কান পেসার নুয়ান তুশারার। যদিও পূর্ব ঘোষিত স্কোয়াডে তার নাম ছিল।

শনিবার থেকে শুরু হচ্ছে তিন ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজ। যেখানে স্বাগতিক শ্রীলঙ্কার অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ বোলার তুশারা দল থেকে ছিটকে গিয়েছেন হাতের আঙুলের চোটে। অনুশীলনের সময় তার বাম হাতের একটি আঙুল ভেঙে গিয়েছে।

তবে লঙ্কানদের টিম ম্যানেজার মাহিদা হালানগোদা ক্রিকইনফোকে এটা নিশ্চিত করে জানিয়েছেন যে, চোটটি তুশারা যে হাতে বোলিং করেন সে হাতে পাননি।

তুশারার আগে শ্রীলঙ্কা দলের আরেক গুরুত্বপূর্ণ ক্রিকেটার দুশমান্ত চামিরাও স্কোয়াড থেকে ছিটকে গিয়েছিলেন। তার ব্রংকাইটিস ইনফেকশন হয়েছে বলে জানা গিয়েছে। দলের অন্যতম সেরা দুই খেলোয়াড়কে ছাড়া শক্তিশালী ভারতের বিপক্ষে খেলতে নামা  বিষয়ে কিছুটা চিন্তিতই আছে পুরো দল।

২৭ জুলাই থেকে শ্রীলঙ্কার মাটিতে টি-টোয়েন্টি সিরিজ শুরু হবে ভারতের। ম্যাচ তিনটি যথাক্রমে ২৭, ২৮ ও ৩০ জুলাই। এরপর আগস্টের ২, ৪ ও ৭ তারিখে মাঠে গড়াবে ওয়ানডে ম্যাচগুলো।

ভারতের বিপক্ষে লঙ্কানদের টি-টোয়েন্টি স্কোয়াডঃ

চারিথ আসালাংকা (অধিনায়ক), পাথুম নিসাংকা, কুসাল পেরেরা, আভিশকা ফার্নান্দো, কুসাল মেন্ডিস, দিনেশ চান্দিমাল, কামিন্দু মেন্ডিস, দাসুন শানাকা, ওয়ানিন্দু হাসারাঙ্গা, দুনিথ ওয়েল্লালাগে, মাহিশ থিকসানা, চামিন্দু উইকরামাসিঙ্ঘে, মাথিসা পাতিরানা, আসিথ ফার্নান্দো, বিনুরা ফার্নান্দো, নুয়ান তুশারা (তার বদলি খেলোয়াড়ের নাম ঘোষণা করা হবে)।

;

অসুস্থতার কারণে প্যারিস অলিম্পিকে খেলবেন না সিনার 



স্পোর্টস ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

প্যারিস অলিম্পিকের আনুষ্ঠানিক শুরু আজ (বৃহস্পতিবার) থেকে। সেখানে এবারের টেনিস ইভেন্ট থবে ক্লে কোর্টে। সেই লক্ষ্যে বেশ ভালোভাবেই অনুশীলন সারছিলেন টেনিস র‍্যাঙ্কিংয়ের এক নম্বর খেলোয়াড় ইয়ানিক সিনার। তবে হঠাতই বৈশ্বিক ক্রীড়াঙ্গনের সবচেয়ে এই টুর্নামেন্টের এবারের আসরের একদিন আগে এই ইতালিয়ান তারকা টেনিস খেলোয়াড় জানালেন, প্যারিস অলিম্পিকে তিনি অংশগ্রহণ করছেন না। 

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম এক্স-এর এক পোস্টে গতকাল (বুধবার) প্যারিস অলিম্পিক থেকে নিজের নাম সরিয়ে নেওয়ার বিষয়টি জানান সিনার নিজেই। তার না খেলার কারণটা অবশ্য কিছুটা অদ্ভুত। চোট বা আলোচিত কোনো ইস্যু নয়, অসুস্থতার কারণেই অলিম্পিকে অংশ নিচ্ছেন না তিনি। 

সেই পোস্টে সিনার লিখেন, ‘দুঃখের সঙ্গে জানাচ্ছি যে, দুর্ভাগ্যবশত আমি প্যারিস অলিম্পিকে অংশ নিতে পারব না।’ 

সিনার মূলত ভুগছেন টনসিলের সমস্যায়। এবং চিকিৎসকও তাকে বলেছেন আপাতত বিশ্রামে থাকতে। এতেই সব দিক বিবেচনায় এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছেন ২২ বছর বয়সী এই তারকা। ‘ক্লে কোর্টে অনুশীলনে ভালো একটি সপ্তাহ কাটানোর পর আমি অসুস্থ বোধ করতে শুরু করি। কয়েক দিন বিশ্রাম নেই এবং চিকিৎসককে দেখানোর পর আমার টনসিলাইটিস ধরা পড়ে এবং আমাকে না খেলার জন্য জোর পরামর্শ দেন।’ 

বয়সটা খুব একটা বেশি না হলেও টেনিস বিশ্বে ইতিমধ্যেই তাক লাগিয়ে দিয়েছেন সিনার। চলতি বছরের শুরুতে অস্ট্রেলিয়ান ওপেনের ফাইনালে দানিল মেদভেদেভকে হারিয়ে জেতেন নিজের প্রথম গ্র্যান্ড স্লাম। লক্ষ্য রেখেছিলেন অলিম্পিকেও দারুণ কিছু করার। তবে শারীরিক জটিলতা বাগড়া দেওয়ায় কিছুদিন খেলা থেকে দূরেই থাকতে হচ্ছে সিনারকে।

;