‘রিয়াদকে ৫-৬ ম্যাচ দিয়ে মূল্যায়ন করা ভুল হবে’



স্পোর্টস ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

দেশের ক্রিকেটে পঞ্চ পাণ্ডবের একজন মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ। টাইগারদের অনেক জয়েই জাতীয় দলের জার্সিতে তার অবদান অবিস্মরণীয়। ঘরের মাঠে সবশেষ আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে সিরিজ থেকে বাদ পড়েন মাহমুদউল্লাহ। এ সময় দলের অভিজ্ঞ এ ক্রিকেটারের বাদ পড়া নিয়ে সমালোচনার ঝড় বয়ে যায়।

এদিকে সবশেষ ২০২১ সালে টেস্টে খেলেছেন রিয়াদ। এমনকি গত বছর টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের আগেও স্কোয়াড থেকে বাদ পড়েন মিডল-অর্ডার এ ব্যাটার। জাতীয় দলের রাডারে না থাকলেও ঘরোয়া ক্রিকেটে নিয়মিত খেলে যাচ্ছেন তিনি। তবে আসন্ন ওয়ানডে বিশ্বকাপের আগেই দলের বাইরে রিয়াদ।

অন্যদিকে পঞ্চ পাণ্ডবের আরেক পাণ্ডব মাশরাফী বিন মুর্তজা ওয়ানডে থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে অবসর না নিলেও, তার লাল-সবুজের জার্সিতে তার ফেরার সম্ভাবনা খুবই ক্ষীণ। আর বাকিরা তামিম-সাকিব-মুশফিক এখনও পুরোদমে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে দেশের হয়ে খেলে যাচ্ছেন।

সবশেষ আইরিশদের বিপক্ষে হোম ও অ্যাওয়ে সিরিজের স্কোয়াডে ছিলেন না রিয়াদ। তাকে ছাড়াই দল সিরিজ জিতলেও তার ব্যাটিং পজিশনে ফিনিশার খ্যাত জায়গাটায় পারফরম্যান্স একদমই দুর্বল। দুটো সিরিজেই এ পজিশনে পুরোদমে ব্যর্থতায় ভেসেছে টাইগাররা।

চলতি বছরের অক্টোবর-নভেম্বরে ভারতের মাটিতে অনুষ্ঠিত হবে ওয়ানডে বিশ্বকাপ। এ বিশ্বকাপে শিরোপায় চোখ রাখছে বাংলাদেশ। আর বৈশ্বিক এ টুর্নামেন্টে টাইগারদের দলে অভিজ্ঞ মাহমুদউল্লাহ রিয়াদকে না-ও দেখা যেতে পারে!

তবে টাইগারদের ওয়ানডে কাপ্তান তামিম ও বিসিবি বস নাজমুল হাসান পাপনের সবশেষ প্রতিক্রিয়ায় আশা দেখাচ্ছে মাহমুদউল্লাহ ভক্তদের। তাদের দাবি, বিশ্বকাপ স্কোয়াডে অভিজ্ঞ এ ক্রিকেটার থাকবেন।

এবার রিয়াদ প্রসঙ্গে একটু ভিন্নতা পোষণ করলেন বিসিবি পরিচালক আকরাম খান।

জাতীয় দলের সাবেক এ অধিনায়কের দাবি, অভিজ্ঞ খেলোয়াড় কিন্তু বিশ্বকাপে অনেক গুরুত্বপূর্ণ। আপনি যদি বিশ্বকাপের তিন বা চার বছর আগে থেকে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করেন, তবে সেটা কিন্তু টিমের জন্য ভালো।

তিনি আরও যোগ করলেন, কিন্তু আপনি যদি একদম শেষ মুহূর্তে এসে এটা করেন, তবে তা আপনার জন্য অনেক খারাপ হবে। এভাবে আমরা আগে অনেকবার অনেক খারাপ করেছি।

তার (আকরাম) ভাষ্য, আর রিয়াদকে শুধু গত পাঁচ বা ছয়টা ম্যাচ দিয়ে মূল্যায়ন করলে ভুল হবে। কারণ, রিয়াদ এমন একজন খেলোয়াড় যে গত দশ বছর বাংলাদেশ দলের জন্য চমৎকার খেলে আসছে। তার অভিজ্ঞতা জিনিসটা আছে।

   

টি-টোয়েন্টিতে বাংলাদেশের 'প্রথম' ১০ উইকেটের জয়



স্পোর্টস ডেস্ক বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

শুরুর দুই ম্যাচ হেরে সিরিজটা আগেই খুইয়ে বাংলাদেশের এবারের লড়াই ছিল সিরিজ হোয়াইটওয়াশ এড়ানোর। যুক্তরাষ্ট্রের বিপক্ষে সিরিজের তৃতীয় ও শেষ ম্যাচে এমন সমীকরণের দিনে ব্যাটে বলে দারুণ পারফর্ম করলো নাজমুল হোসেন শান্তর দল। শুরুটা ছিল মুস্তাফিজের রেকর্ড উইকেটের স্পেল ও রিশাদের রেকর্ড ইকোনমিকাল বোলিংয়ের স্পেল দিয়ে। পরে ব্যাটিংয় নেমে তামিম-সৌম্যর ওপেনিং জুটিতেই জয়ের বন্দরে পৌঁছে যায় বাংলাদেশ।

১০ উইকেটের রেকর্ড এই জয়ে সিরিজটা ২-১ ব্যবধানে শেষ করলো শান্ত-সাকিবরা।

বিস্তারিত আসছে…

;

মুস্তাফিজের পেস তোপে অল্পেই থামল যুক্তরাষ্ট্র



স্পোর্টস ডেস্ক বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

ওপেনার আন্দ্রেস গুসের ব্যাটিং ঝড়ে শুরুটা বেশ ভালোই পেয়েছিল যুক্তরাষ্ট্র। তবে পঞ্চম ওভারের শেষ বলে তাকে ফেরান সাকিব। পরের ওভারে মুস্তাফিজ নেন উইকেট মেইডেন। এরপর মুস্তাফিজের পেস তোপে ভুগেছে পুরো স্বাগতিক দল। গুনে গুনে একাই ছয়টি উইকেট তুলেছেন এই বাঁহাতি পেসার। এতে শেষ পর্যন্ত ৯ উইকেটে ১০৪ রানের সংগ্রহ দাঁড় করাতে পেরেছে যুক্তরাষ্ট্র।

হিউস্টনের প্রেইরি ভিউ ক্রিকেট কমপ্লেক্সে টসে হেরে ব্যাটিংয়ে নেমে আন্দ্রেস গুসের ব্যাটিং ঝড়ে শুরুটা বেশ ভালো পেয়েছিল স্বাগতিকরা। ৪ ওভার ৫ বলে বিনা উইকেটে ৪৬ রান তুলে ফেলে তারা। তবে পরের বলেই শেষ হয় ম্যাচে যুক্তরাষ্ট্রের আধিপত্য। পঞ্চম ওভারের শেষ বলে ১৫ বলে ২৭ রান করা গুসকে ফেরান সাকিব।

পরে পাওয়ার প্লের শেষ ওভারে মুস্তাফিজ নেন উইকেট মেইডেন। সেই শুরু মুস্তাফিজের পেস তোপের। যার সামনে টিকতে পারেননি যুক্তরাষ্ট্রের কোনো ব্যাটারই। শেষ ১৪ ওভারে স্কোরবোর্ডে স্রেফ ৫৪ রান যোগ করে স্বাগতিকরা। যেখানে উইকেটও হারায় সাতটি। এতেই নির্ধারিত ২০ ওভারে ৯ উইকেটে ১০৪ রানের মামুলি সংগ্রহ নিয়ে মাঠ ছাড়ে অ্যারন জোন্সের দল।

৪ ওভারে স্রেফ ৯ রান খরচে মুস্তাফিজ নেন ৬ উইকেট। এটি টি-টোয়েন্টি ক্যারিয়ারে তার দ্বিতীয় ফাইফার এবং প্রথমবারের মতো ছয় উইকেটের কীর্তি।

এদিকে প্রথমবারের মতো বাংলাদেশি কোনো বোলার টি-টোয়েন্টিতে ছয় উইকেট নেওয়ার কীর্তি গড়লেন মুস্তাফিজ। এদিকে রিশাদ ৪ ওভারে দিয়েছেন স্রেফ ৭ রান, নিয়েছেন একটি উইকেটও। যেটি বাংলাদেশি কোনো বোলারের সবচেয়ে ইকোনমিকাল বোলিংয়ের রেকর্ড। 

;

সিটিকে স্তব্ধ করে দিয়ে ইউনাইটেডের এফএ কাপ জয়



স্পোর্টস ডেস্ক, বার্তা ২৪
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

ম্যাচের আগের দিন খবর বেরিয়েছিল, এফএ কাপের ফলাফল যাই হোক ফাইনালের পরই কোচ এরিক টেন হাগকে বরখাস্ত করবে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড। এমন পরিস্থিতিতে এফএ কাপের ফাইনালে পাহাড়সম চাপ মাথায় নিয়েই নেমেছিল প্রিমিয়ার লিগ টেবিলের আট নম্বরে থেকে মৌসুম শেষ করা দলটি। তবে সে চাপ জয় করে এফএ কাপ জিতে নিয়েছে রেড ডেভিলরা। ওয়েম্বলি স্টেডিয়ামে ২-১ গোলে নগর প্রতিদ্বন্দ্বী ম্যানচেস্টার সিটিকে হারিয়ে শিরোপা জয়ের উৎসব করেছে তারা।

এই জয়ে আগামী মৌসুমে ইউরোপা লিগে খেলা নিশ্চিত হয়েছে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের।

ম্যাচের ৩০ মিনিটে অনেকটা ধারার বিপরীতে গোল পেয়ে যায় ইউনাইটেড। তাতে অবশ্য ম্যানচেস্টার সিটি ডিফেন্ডার ইয়সকো ভার্দিওলের দায় আছে। মাঝমাঠ থেকে ভেসে আসা বলটা ক্লিয়ার করতে বক্স ছেড়ে বেরিয়ে আসেন সিটি গোলরক্ষক স্টেফান ওর্টেগা।

তবে তার সামনে থেকে বল হেড করে বল বিপদমুক্ত করতে চান ভার্দিওল। শেষমেশ বলটা ক্লিয়ার হয়নি আর। তা গিয়ে পড়ে ইউনাইটেডের আর্জেন্টাইন ফরোয়ার্ড আলেহান্দ্রো গারনাচোর পায়ে। সহজ ট্যাপ ইনে বলটা তিনি জড়ান জালে।

এর ৯ মিনিট পরই সিটি খায় আরও এক ধাক্কা। ইউনাইটেডের ব্যবধান বাড়ান তরুণ ফরোয়ার্ড কোবি মাইনু। সেই দুই গোলের লিড নিয়েই ম্যানইউ যায় বিরতিতে।

দ্বিতীয়ার্ধে সময় যত গড়িয়েছে, সিটি গোলের জন্য মরিয়া হয়ে চেষ্টা করেছে তত। তাদের সে চেষ্টা সফলতার মুখ দেখে ৮৮ মিনিটে। বক্সের বাইরে থেকে জেরেমি ডকুর শট আন্দ্রে ওনানার হাত গোলে গিয়ে জমা পড়ে জালে। তবে ততক্ষণে বেশ দেরি হয়ে গেছে। অনেক চেষ্টা করেও সমতাসূচক গোলের দেখা পায়নি সিটি। ২-১ গোলের জয় নিয়ে ইউনাইটেড ঘরে তোলে শিরোপা।

;

দারুণ শুরুর পর সাকিব-মুস্তাফিজে হোঁচট যুক্তরাষ্ট্রের



স্পোর্টস ডেস্ক, বার্তা ২৪
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

যুক্তরাষ্ট্রের বিপক্ষে বাংলাদেশের সিরিজের শেষ ম্যাচটা মান বাঁচানোর। দুই ম্যাচ হেরে সিরিজ হাতছাড়া তো হয়েছেই, এখন ধবলধোলাই এড়াতে তৃতীয় ম্যাচে জয়ের বিকল্প নেই। সে লক্ষ্যে শুরুটা মন্দ হয়নি বাংলাদেশের।

টস জিতে যুক্তরাষ্ট্রকে ব্যাটিংয়ে পাঠিয়েছিলেন নাজমুল হোসেন শান্ত। চার পরিবর্তন নিয়ে নেমেও পাওয়ার প্লে’তে শুরুটা দারুণ হয় যুক্তরাষ্ট্র। দুই ওপেনার শায়ান জাহাঙ্গীর এবং আন্দ্রিস গউসের জুটিতে আসে ৪৬ রান।

পঞ্চম ওভারের শেষ বলে সাকিব আল হাসানের শিকার হয়ে ফেরার আগে ১৫ বলে ৪ চার এবং ১ ছক্কায় ২৭ রান করেন গউস। পাওয়ার প্লে’র শেষ ওভারে বল করতে এসে শায়ান জাহাঙ্গীরকে (১৮) চেপে ধরেন মুস্তাফিজ। চার বল ডট দেয়ার পর পঞ্চম বলে পুল করতে গিয়ে তানজিম সাকিবের হাতে ধরা পড়েন এই ব্যাটার।

এই প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত ৬ ওভারে ১ উইকেটে ৪৬ রান তুলেছে স্বাগতিকরা। 

;