১৭ মে গণতান্ত্রিক অধিকার ফিরিয়ে আনার দিন: নাছিম



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
ছবি: বার্তা ২৪

ছবি: বার্তা ২৪

  • Font increase
  • Font Decrease

আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দীন নাছিম বলেছেন, 'এই দিবসটি একটি ঐতিহাসিক দিন। বাঙালি জাতির উন্নয়ন অগ্রগতি, গণতান্ত্রিক অধিকার, রাজাকার, খুনি মোস্তাকদের হাত থেকে দেশকে ফিরিয়ে আনার দিন।'

শুক্রবার (১৭ মে) বিকালে তেজগাঁওয়ের জেলা আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৪৪তম স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনা সভার বক্তব্যে তিনি একথা বলেন।

তিনি বলেন, 'বাংলাদেশকে পাকিস্তান বানানোর সকল ষড়যন্ত্র থেকে ফিরিয়ে আনার দিবস এটি। আমরা বাংলাদেশের ১৮ কোটি মানুষকে এগিয়ে নিয়ে উন্নয়নশীল রাষ্ট্রে পরিণত হয়েছি। জাতীর পিতার স্বপ্নের বাংলাদেশ, মুক্তিযুদ্ধের চেতনার বাংলাদেশ শেখ হাসিনার নেতৃত্বে গড়ে তুলতে সক্ষম হয়েছি।'

এই চলার পথ এতো সহজ নয়, সাবলীল নয় উল্লেখ করে নাছিম বলেন, 'অনেক তিক্ততার ইতিহাস আছে, জীবন গড়ার ইতিহাস আছে। যারা তার সাথে থাকার কথা ছিলো তাদের পাওয়া যায়নি। বঙ্গবন্ধু কন্যাকে রেখে ভিন্ন দল করার চেষ্টা করেছিলো। আমরা দেখেছি, কেউ কেউ খুনি মোস্তাককে বলেছে, আপনি আওয়ামী লীগ করেন, আমরাও করি। যদি খুনি মোস্তাক বেঁচে থাকতো তাহলে দেখা যেতো তারা সেই খুনি মোস্তাকের অন্য আওয়ামী লীগ করছে।'

আওয়ামী লীগের এ যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক বলেন, 'বাংলাদেশের ১৮ কোটি মানুষ আজ শেখ হাসিনার সাথে একাত্ব হয়ে শেখ হাসিনার স্বপ্ন পূরণে তার পাশে এসে দাঁড়িয়েছে। আগামীর পথগুলো যত সহজ করে দেখেন, আমিও দেখি। তবে সেটা তখনই সম্ভব হবে, আমরা যদি সকল ষড়যন্ত্রকারীদের বিরুদ্ধে গিয়ে যদি তাদের স্বপ্নকে দুঃস্বপ্নে পরিণত করতে পারি।'

বিএনপির সমালোচনা করে তিনি আরও বলেন, 'মির্জা ফখরুলরা এখনো স্বপ্ন দেখছে, মিথ্যাচার করছে। বাংলাদেশের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র লিপ্ত আছে। তবে আমরা বাংলাদেশের স্বার্থ রক্ষায় শেখ হাসিনার সাথে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করবো এটা হউক আজকের দিনের আমাদের অঙ্গীকার।'

আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক ডা. দীপু মনি বলেছেন, 'বঙ্গবন্ধু কন্যা ছয় বছর দুঃসহ নির্বাসন জীবন শেষে ফিরে এলেন তবে ফিরে এলেন মৃত্যু ঝুঁকি মাথায় নিয়ে। বলা হয়েছিলো দেশে আসলে হত্যা করা হবে। সে মৃত্যু ঝুঁকি তুচ্ছ জ্ঞান করে তিনি ফিরে আসেন। যখন ফিরে এলেন, কেউ নেই, কিচ্ছু নেই। তখন পিতার অসমাপ্ত কাজ কে সমাপ্ত করার প্রত্যয় ব্যক্ত করেছিলেন। শেখ হাসিনা ফিরে এসেছিলেন বলেই আমরা নতুন করে স্বপ্ন দেখেছি, তার নেতৃত্বে আন্দোলন করে গণতন্ত্রকে ফিরে আনতে পেরেছি।'

এসময় আরও বক্তব্য রাখেন সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন, আব্দুর রাজ্জাক, মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া, এড. কামরুল ইসলাম, ডা. মোস্তফা জালাল মহিউদ্দিন, জাহাঙ্গীর কবির নানক, যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ, হাছান মাহমুদ, আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক বিএম মোজাম্মেল হক, আবু সাইদ আল মাহমুদ স্বপন, মির্জা আজম, আফজাল হোসেন, দপ্তর সম্পাদক ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক ইঞ্জিনিয়ার মো. আবদুস সবুর, ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ বিষয়ক সম্পাদক আমিনুল ইসলাম আমিন প্রমুখ।

   

ঈদুল আজহা সাধারণ মানুষের জন্য কষ্টকর: মির্জা ফখরুল



ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঠাকুরগাঁও
ঈদুল আজহা সাধারণ মানুষের জন্য অত্যন্ত কষ্টকর: মির্জা ফখরুল

ঈদুল আজহা সাধারণ মানুষের জন্য অত্যন্ত কষ্টকর: মির্জা ফখরুল

  • Font increase
  • Font Decrease

ঈদুল আজহা সাধারণ মানুষের জন্য অত্যন্ত কষ্টকর। কারণ যারা পশু কোরবানি করেন তারা বড় ধরনের মূল্যস্ফীতিতে আক্রান্ত ও প্রভাবিত হয়েছেন বলে মন্তব্য করেছেন বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল-বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

সোমবার (১৭ জুন) ঈদের নামাজ শেষে ঠাকুরগাঁওয়ের নিজ বাসভবনে ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময়কালে সাংবাদিকদের একথা বলে তিনি।

দলটির এই নেতা বলেন, কোরবানি ঈদে যারা মাংস সংগ্রহ করে রান্না করে খায়। তাদেরও কষ্ট হয়ে দাঁড়িয়েছে। কারণ বর্তমানে বাজারে মসলারও যে দাম তাতে সেসব তাদের পক্ষে সংগ্রহ বা ক্রয় করা খুব জটিল। দ্রব্যমূল্য যেভাবে বেড়েছে তাতে সাধারণ মানুষের জীবন অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছে। এতে ঈদুল আজহার যে আনন্দ সেই আনন্দ উপভোগ করার সুযোগ থাকছে না।

সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের সম্পর্কে বলেন, আপনারা শুধু ওবায়দুল কাদেরের কথা বলেন। আমি ব্যক্তিগতভাবে তাকে পছন্দ করি না। কারণ উনার কথার জবাব দিতে আমার রুচিতে বাধে।

ফখরুল আরও বলেন, যারা রাজনীতিতে আছেন ও ক্ষমতায় আছেন। তারা যদি সত্যকে উপলব্ধি করতে না পারেন। তারা যদি দেশের সমস্যা গুলো বুঝতে না পারেন। তারা যদি গণমানুষের আকাঙ্খা বুঝতে না পারেন। তাহলে তারা কীভাবে দেশ শাসন করবেন। সেটি আমরা দেড় যুগ ধরে দেখছি। এই দখলদারি সরকার জনগণের সব আকাঙ্খা গুলোকে পদধূলিত করে দিয়েছে। ভোটের অধিকার, গণতান্ত্রিতক অধিকার পদধূলিত করে তারা আজকে জোর করে শাসন চাপিয়ে দিয়েছে। এ জন্য জনগণ তাদের পছন্দ করে না। জনগণ তাদের ঘৃণা করতে শুরু করেছে। তারা শুধু মিথ্যা কথা বলে জোর করে রাষ্ট্রযন্ত্র ব্যবহার করে ক্ষমতায় এসেছেন। এই জন্য আমি তাদের খুব বেশি গুরুত্ব দেই না।

তবে তিনি মিয়ানমার ও সেন্টমার্টিন ইস্যু তাদের কাছে গুরুত্বপূর্ণ বলে আরও বলেন, তারা যাই বলুক না কেন সেন্টমার্টিনে গোলাগুলি হচ্ছে। টেকনাফ থেকে সেন্টমার্টিন সমস্ত জাহাজ বন্ধ হয়ে গেছে। সেখান দিয়ে যেতে পারছে না। এটাই সত্য তারা এই সত্যকে অস্বীকার করবে কীভাবে? কেন তাদের বিজিবি সেখানে যাচ্ছে বারবার। কেন সেনাবাহিনীর প্রধান বারবার বলছেন আমরা সর্তক আছি। বাস্তবে মিয়ানমারের ঘটনাবলি সমস্যা তৈরি করেছে। সেই সমস্যাতে সেন্টমার্টিনে জাহাজ যেতে পারছে না। সেখানকার অধিবাসীরা কষ্টে দিন পার করছেন এবং নিরাপত্তার অভাববোধ করছে। সেগুলো তারা স্বীকার না করে ভিত্তিহীন বানোয়াট কথা বলছেন।

এর আগে প্রথমে তিনি দলের পক্ষ থেকে দেশবাসীকে পবিত্র ঈদুল-আজহার শুভেচ্ছা জানান।

এসময় উপস্থিত ছিলেন জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মির্জা ফয়সাল আমিন সহ বিএনপির অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীর ।

;

আওয়ামী লীগ চাপাবাজি করে চলছে: মির্জা আব্বাস



স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

আওয়ামী লীগ চাপাবাজি করে চলছে। মিথ্যা কথা হচ্ছে তাদের পুঁজি বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির জাতীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস।

সোমবার (১৭ জুন) ঈদুল আজহার নামাজ শেষে চন্দ্রিমা উদ্যানে বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের কবরে শ্রদ্ধা জানানো শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ মন্তব্য করেন।

তিনি বলেন, বাংলাদেশের প্রভুত্ব আজকে অন্যের হাতে বিকিয়ে দিয়ে সরকার কোনো সিদ্ধান্ত নিতে পারছে না। বাংলাদেশের জনগণের কষ্ট অবৈধ ও অনৈতিক সরকারের জন্য। নির্বাচিত সরকার থাকলে মানুষের এতো কষ্ট হতো না।

তিনি বলেন, সেন্টমার্টিন দ্বীপ আজ বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে, খাদ্য সরবরাহ করা যাচ্ছে না। কার ভয়ে মিয়ানমার সেনাবাহিনীর ভয়ে। কিন্তু ১৯৭৮ সালে জিয়াউর রহমানের সামনে নতজানু হয়ে মাফ চেয়ে বিদায় নিয়েছে। সেই মিয়ানমার এখন রক্তচক্ষু দেখায়, কতটুকু উদ্ধত হয়ে গেছে। অনির্বাচিত সরকারের কারণে, দেশের ভেতরে এবং বাইরে কারোই সমর্থন নেই। অবৈধ সরকারের জন্য দেশের আজকের এই অবস্থা। মিয়ানমার সেনাবাহিনীর ৩টি সশস্ত্র শিপ বাংলাদেশের ভূ-খণ্ডে অবস্থান করছে। এটা যদি বিএনপির অপপ্রচার বলে! তারা চাপাবাজি করেই চলে। তারা বলে বাংলাদেশে কোনো অভাব নেই।

তিনি বলেন, দেশের মানুষ অক্টোপাসের মতো বন্দী আছে, অর্থ কি সামাজিক, কি ভোগলিক অর্থনৈতিক, সবদিক থেকে বন্দী হয়ে আছে। এদেশের মানুষের কথা বলার অধিকার নেই। না খেয়ে মারা যাবে তবু কথা বলার অধিকার, সমস্ত ভয়ভীতিকে কোরবানি দিয়ে এই সরকারকে মোকাবিলা করার তৌফিক দিক।


তিনি আরও বলেন, বিএনপির বহু নেতাকর্মী জেলে অবস্থান করছে, বহু নেতাকর্মীর ফুটপাতে থাকে, যারা পুলিশের ভয়ে ফুটপাতে থাকে। তাদের সমবেদনা জানাচ্ছি যদিও সমবেদনা জানানো ছাড়া কিছু করার নেই। ঈদ শব্দের অর্থ খুশী, বাংলাদেশের সাধারণ মানুষের মনে খুশী নেই। অনেক কষ্টে তারা কোরবানি দিচ্ছে। অনেক ব্যাপারি গরু বিক্রি করতে পারেনি।

বিএনপির ওই কর্মসূচি ঘিরে সকাল ১০টার দিক থেকেই পুলিশের কড়াকড়ি লক্ষ্যণীয়, ক্রিসেন্ট লেকের দিক থেকে প্রবেশ করতে গেলে পুলিশি জিজ্ঞাসাবাদের মূখে পড়তে হয়। পরিচয় দিয়ে তবেই প্রবেশের অনুমতি মেলে। সকাল সাড়ে ১০ টায় ২ জন কর্মীসহ উপস্থিত হন স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান। এর কয়েক মিনিট পর পেছনের গেট দিয়ে উপস্থিত হন কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য অ্যাডভোকেট আবেদ রেজাসহ কয়েকজন। তারপর আসেন গয়েশ্বর চন্দ রায় ও চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা আব্দুস সালামের নেতৃত্বে জনা সাতেক কর্মী।

বেলা ১১টায় বিএনপির প্রচার সম্পাদক সুলতান সালাউদ্দিন টুকু, নির্বাহী কমিটির সদস্য আব্দুল মোনায়েম মুন্নার নেতৃত্বে একটি খণ্ড মিছিল পেছনের গেট (উত্তর) দিয়ে প্রবেশ করে। এরপর উপস্থিত হন চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য জয়নাল আবেদীন ফারুক। বেলা সোয়া ১১টায় জনা পঞ্চাশেক নেতাকর্মী নিয়ে উপস্থিত হন স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস ও সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবীর রিজভী, যুগ্ম মহাসচিব হাবিব উন-নবী খান সোহেল। অন্যদের মধ্যে সহসাংগঠনিক সম্পাদক আমিনুল ইসলাম নির্বাহী কমিটির সদস্য শাহ নেসারুল হকসহ দুই শতাধিক নেতাকর্মী অংশ নেন।

;

কুমিল্লায় স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতার আঙ্গুল কেটে দিল দুর্বৃত্তরা



ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, কুমিল্লা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

কুমিল্লা উত্তর জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক লিটন সরকারের বাম হাতের বৃদ্ধাঙ্গুল কেটে ফেলেছে দুর্বৃত্তরা। রোববার (১৭ জুন) বেলা ৩টার দিকে দেবিদ্বার উপজেলার বরকামতা ইউনিয়নের বাগুর বাজারে এ ঘটনা ঘটে। তবে ঘটনাটি জানাজানি হয় সন্ধ্যার পর।

লিটন সরকার কাটা আঙ্গুলসহ ঢাকার শেখ হাসিনা বার্ন এন্ড প্লাস্টিক সার্জারি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে। বিষয়টি নিশ্চিত করেন লিটন সরকারের ছোট ভাই সারোয়ার সরকার।

তিনি জানান, স্থানীয় বাগুর বাজারে সবজি কেনার সময় পেছন থেকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে হামলা করে একদল সন্ত্রাসী। হামলাকারী বেশ কয়েকজন। স্থানীয়রা এগিয়ে এলে তারা পালিয়ে যায়।

দেবিদ্বার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোহাম্মদ নয়ন মিয়া বলেন, ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি এবং হামলাকারী শনাক্ত করেছি। আমরা তাদের গ্রেফতারে অভিযান পরিচালনা করছি।

;

মাদক কারবারের অভিযোগে আওয়ামী লীগ নেতাকে দল থেকে বহিষ্কার



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট বার্তা২৪.কম, বগুড়া
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

বগুড়ার শিবগঞ্জে মাদক কারবারের সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে জরিপ ফকির নামের এক আওয়ামী লীগ নেতাকে দল থেকে বহিষ্কার করেছে উপজেলা আওয়ামী লীগ। বহিস্কৃত জরিপ ফকির পিরব ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ।

রোববার (১৬ জুন) শিবগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক শাহাব উদ্দিন শিবলী স্বাক্ষরিত এক বিবৃতিতে এ তথ্য জানানো হয়।

বিবৃতিতে বলা হয় জরিপ ফকিরের বিরুদ্ধে মাদক কারবারী ও দলীয় শৃঙ্খলা পরিপন্থি কর্মকাণ্ড পরিচালনার সুষ্পষ্ট অভিযোগ থাকায় তাকে দল থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে।

জরিপ ফকিরের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদের প্রার্থী উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মোস্তাফিজার রহমান মোস্তার পক্ষে কাজ না করে অন্য প্রার্থীর পক্ষে কাজ করায় আমাকে দল থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে। আমি কখনও মাদক কারবারের সঙ্গে যুক্ত ছিলাম না।

;