আরও ৫৫ নেতাকে বহিষ্কার করল বিএনপি



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

দলের সিদ্ধান্ত অমান্য করে উপজেলা নির্বাচনের তৃতীয় ধাপে অংশ নেওয়ায় তৃণমূলের আরও ৫৫ জন নেতাকে বহিষ্কার করেছে বিএনপি।

বৃহস্পতিবার (১৬ মে) চার জন ও বুধবার (১৫ মে) ৫১ জনকে বহিষ্কার করা হয়।

বৃহস্পতিবার দলের সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী আহমেদ স্বাক্ষরিত প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ কথা জানানো হয়।

গত ৮ মে থেকে প্রথম ধাপের উপজেলা পরিষদ নির্বাচন শুরু হয়। এই নির্বাচনে বিএনপি অংশ নিচ্ছে না। কিন্তু দলের সিদ্ধান্ত অমান্য করে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন নেতাকর্মীরা। এ কারণে প্রথমে তাদের শোকজ এবং পরে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা হিসেবে বহিষ্কার করছে দলটি। তবে প্রার্থিতা প্রত্যাহার করে নির্বাচন থেকে ফিরে আসায় কয়েকজনের বহিষ্কারাদেশ তুলেও নেওয়া হয়েছে।

প্রথম পর্বে ৮০ জনকে বহিষ্কার করেছে বিএনপি। প্রথম ও দ্বিতীয় ধাপ মিলিয়ে অন্তত ১৪৯ জনকে দল থেকে বহিষ্কার করে দলটি। সব মিলিয়ে এখন পর্যন্ত ২০৪ জনকে বহিষ্কার করা হয়েছে।

   

তারেক রহমানকে তালাক না দিলে বিএনপির ধ্বংস অনিবার্য: নানক



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য এবং পাট ও বস্ত্রমন্ত্রী এডভোকেট জাহাঙ্গীর কবির নানক বলেছেন, তারেক রহমানকে তালাক দিয়ে রাজনীতিতে ফিরে আসেন। নয়তোবা আপনাদের ধ্বংস অনিবার্য।

বৃহস্পতিবার (১৩ জুন) ঢাকা জেলা আওয়ামী লীগের কার্যালয়ে ‘ইতিহাসের গতিধারায় বঙ্গবন্ধু থেকে শেখ হাসিনা’ শীর্ষক সংবাদ চিত্র প্রদর্শন ও আলোচনা সভায় বিএনপি নেতাদের উদ্দেশ্যে তিনি এসব কথা বলেন।

নানক বলেন, হাওয়া ভবনের মাধ্যমে তারেক রহমান হাজার হাজার কোটি টাকা পাচার করেছেন। লন্ডনে বসে রাজপ্রাসাদ থেকে দেশের টাকা লুটপাট করে উপভোগ করছেন। আর বিএনপি নেতাকর্মীদের ভুলভ্রান্তির দিকে ঠেলে দিচ্ছেন।

তিনি বলেন, যেই দুর্নীতি করুক প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিচ্ছেন। কিন্তু বিএনপি ক্ষমতায় থাকাকালীন সময় দুর্নীতিবাজদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থার নেওয়ার নজির সৃষ্টি করতে পারেনি।

তিনি আরও বলেন, প্রধানমন্ত্রীর লক্ষ্য বাস্তবায়নে যারা লক্ষ্য বিচ্যুত হয়ে দুর্নীতির সঙ্গে যুক্ত হয়েছেন- যেই দুর্নীতি করবেন তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে শেখ হাসিনা কোন আপোষ করবেন না। দুর্নীতির বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ থেকে প্রতিরোধ গড়ে তুলতে হবে। দুর্নীতিকে না বলে এগিয়ে যেতে হবে। যে দুর্নীতি করেছেন- বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিয়েছে। কিন্তু বিএনপি'র নেতারা এই নজির সৃষ্টি করতে পারেনি।

এ সরকার আমাদের প্রধান শত্রু- বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের এমন বক্তব্যের করা সমালোচনা করেন আওয়ামী লীগের এই নেতা। নানক বলেন, ফখরুল সাহেবর ভেতরের কথা বের হয়ে গেছে। আওয়ামী লীগ সরকার বিএনপির প্রধান শত্রু। কারণ এই সরকার জনগণের সরকার, এই সরকার অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশের সরকার, এ সরকার দেশের উন্নয়নের সরকার, কারণ এই সরকার আপনাদের (বিএনপি) বন্ধু একাত্তরের মানবতাবিরোধীদের বিচার করেছে, বিচারের রায় কার্যকর করেছে।

আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, আমাদের শুধু ঢেকুর দিলে চলবে না। আমরা পঞ্চমবারের মত সরকার গঠন করেছি। সতর্ক থাকতে হবে। বিএনপি-জামায়াত জনগণের সমর্থন না পেয়ে আন্দোলনে ব্যর্থ হয়েছে। এখন তারা নতুন করে ষড়যন্ত্রের পথ খুঁজছে।

দলের ৭৫তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী নিয়ে আওয়ামী লীগের নীতিনির্ধারণী ফোরামের এই নেতা বলেন, আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর অনুষ্ঠান শুধু রাজধানীতে নয় মানুষের দোরগোড়ায় পৌঁছে দিতে হবে।

আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মির্জা আজম বলেন, ষড়যন্ত্রকারীরা থেমে নেই। বঙ্গবন্ধু থেকে শেখ হাসিনা পর্যন্ত- পরাজিত শক্তি দেশের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করে যাচ্ছে। তাদেরকে মোকাবিলা করতে গেলে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের ঐক্যবদ্ধ থাকতে হবে।

ঢাকা জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বেনজির আহমেদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানের সঞ্চালনা করেন সাধারণ সম্পাদক পনিরুজ্জামান তরুণ। এ সময় ঢাকা জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি শওকত শাহিন. সাংগঠনিক সম্পাদক হালিমা আক্তার লাবণ্য, সাংগঠনিক সম্পাদক হাবিবুর রহমানসহ নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

;

হরিজনদের উচ্ছেদ করা হবে সবচেয়ে বড় ডাকাতি: জিএম কাদের



স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

হরিজনদের উচ্ছেদ করা হবে সবচেয়ে বড় ডাকাতি। এটা যেকোনো মূল্যে বন্ধ করতে হবে বলে মন্তব্য করেছেন বিরোধীদলীয় নেতা ও জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যান জিএম কাদের।

বৃহস্পতিবার (১৩ জুন) দুপুর সাড়ে ১২টায় পুরান ঢাকার মিরনজিল্লা হরিজনপল্লী পরিদর্শন শেষে এমন মন্তব্য করেন।

তিনি বলেন, দেশ এখন আওয়ামী লীগের হয়ে গেছে, তারা সাধারণ মানুষকে মানুষ মনে করে না। তাদের সুবিধামত দেশ পরিচালনা করছে।  দুঃখের সঙ্গে লক্ষ্য করছি এই সরকার দলীয় সরকার, দলীয় লোকদের স্বার্থসিদ্ধির জন্য কাজ করছে। তারা উন্নয়নের নামে ব্যক্তি ও দলের উন্নয়ন করছে।

তিনি বলেন, দেশের মালিক এখন আর জনগণ নেই, তারা সরকার পরিবর্তন করতে পারে না। জনগণের কথায় সরকার কোনো সিদ্ধান্ত নেয় না। এটা অত্যন্ত দুঃখজনক, এই জন্যই আমরা গণতন্ত্রের জন্য যুদ্ধ করে যাচ্ছি। মানুষের প্রয়োজন মেটাতে হবে, তাদের পাওনা বুঝিয়ে দিতে হবে।

তিনি বলেন, হরিজন সম্প্রদায় বৃটিশ আমল থেকে সব চেয়ে বড় স্বাস্থ্যসেবা দিয়ে আসছে। এখানে প্রায় ৫ থেকে ৭ হাজার মানুষ বাস করছে। এখানে তারা মানবেতর জীবন যাপন করছে। সিটি কর্পোরেশনে তারা পরিচ্ছন্নকর্মী হিসেবে কাজ করছে। এটা লক্ষ টাকার বিনিময়েও অনেকেই করতে পারবে না। এরা সবচেয়ে বেশি নিগৃহিত ও নিপিড়িত এবং অসহায়। দেশ-রাষ্ট্র-সরকার তো তাদের পাশে থাকার কথা। দেশের উন্নয়ন হচ্ছে দেশের সাধারণ মানুষের উন্নয়ন। এই মানুষগুলোকে রাস্তায় ঠেলে দিলে, তারা কোথায় যাবে? এ নিয়ে সরকারের কোনো ভাবনা নেই। এই মানুষগুলোকে হুমকি দেয়া হচ্ছে। ৫ থেকে ৬ হাজার মানুষকে রাস্তায় ফেলে দিয়ে কিসের উন্নয়ন? কিছু মানুষ হয়তো দোকান-পাট করে বা ইজারা নিয়ে লাভবান হবে।

এ বিষয়ে আমরা বুধবার (১২ জুন) সংসদে কথা বলেছি। আমরা বুঝতে পারছিনা সরকার আমাদের কথা রাখবে কিনা। কাল নাকি এটা ভেঙে দেয়া হবে, কথা না শুনলে চাকরিচ্যুত করা হবে। এই মানুষগুলো অত্যন্ত অসহায়। তারা দোকান দিতে পারে না, তাদের হাতে কিছু খেতে চায় না... অথচ তাদের সার্ভিস ছাড়া আমাদের জীবন অচল। মানবিক দৃষ্টি দিয়ে বিষয়টি দেখা উচিত। যেকোনো ভাবে এটা ঠেকাতে আমরা চেষ্টা করব।

তিনি বলেন, উন্নয়নের নামে বিল্ডিং করে নিজেদের মধ্যে ভাগ বাটোয়ারা করা অন্যায়। আজ হরিজনদের পাশে থাকার লোক নেই, এদের দিয়ে ব্যবসা করা বা ভালো থাকার লোকের অভাব নেই। এটা দেশ ও সরকারের জন্য দুর্ভাগ্যজনক। এই গরীর মানুষদের উচ্ছেদ করে বিল্ডিং করে ভাগ বাটোয়ারা করলে তা হবে সব চেয়ে অন্যায় এবং লজ্জার। 

তিনি বলেন, সরকার এখন অনেক শক্তিশালী। তাদের সঙ্গে প্রশাসন, আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী আছে। তাদের পেশিশক্তি, অর্থশক্তি ও মাস্তানদের সামনে সাধারণ মানুষ অসহায়। সাধারণ মানুষ সংখ্যায় বেশি হলেও দানবীয় শক্তির কাছে পরাজিত হচ্ছে। এর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াতে হবে। আমাদের প্রচেষ্টা অব্যাহত থাকবে।

বাংলাদেশ হরিজন ঐক্য পরিষদের সভাপতি কৃষ্ণলাল, পঞ্চায়েত কমিটির সভাপতি কৃষ্ণচরণ কুঞ্জমাল, হরিজন নেতা বায়জুলাল, জাতীয় পার্টির সাংগঠনিক সম্পাদক নির্মল দাস, জাতীয় পার্টি নেতা সাধন কুমার মিশ্র এসময় উপস্থিত ছিলেন।

;

প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যে মির্জা ফখরুলের নিন্দা



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

সংসদে প্রশ্নোত্তর পর্বে ২১শে আগস্ট গ্রেনেড হামলা নিয়ে দেওয়া প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

তিনি বলেন, ২১ আগস্ট বোমা হামলা মামলায় রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে তারেক রহমানসহ বিএনপির কয়েকজন নেতাকে যুক্ত করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (১৩ জুন) বিএনপির কেন্দ্রীয় দপ্তর থেকে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে তিনি এসব কথা বলেন। এর আগে গতকাল জাতীয় সংসদে প্রশ্নোত্তর পর্বে তারেক রহমানসহ ২১শে আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলায় ১৫ জন সাজাপ্রাপ্ত আসামি পলাতক থাকার তথ্য সংসদে তুলে ধরেন প্রধানমন্ত্রী।

মির্জা ফখরুল বলেন, তারেক রহমানের ভাবমূর্তি বিনষ্ট করার একটি সুপরিকল্পিত ষড়যন্ত্র। জাতীয়তাবাদী নেতৃত্বকে দুর্বল এবং গণতন্ত্রকে বিপন্ন করতে বর্তমান আওয়ামী শাসকগোষ্ঠী ২০০৯ সালে ক্ষমতা গ্রহণের পর তারেক রহমানের নাম চার্জশিটে ঢোকানো হয় নিজেদের মতাদর্শের অবসরপ্রাপ্ত একজন কর্মকর্তাকে তদন্ত কর্মকর্তা নিয়োগ দিয়ে।

আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার আগে তাদেরই আন্দোলনের ফসল ১/১১ এর সরকারের সময়সহ দুই দফা তদন্ত ও চার্জশিটে তারেক রহমানের নাম না থাকার পরেও তাকে জড়িত করা সম্পূর্ণরূপে আওয়ামী সরকারের চরম আক্রোশের বহিঃপ্রকাশ বলে অভিযোগ করেন মির্জা ফখরুল।

দেশে আইনের শাসনের অনুপস্থিতিতে সত্যের জন্য, সম্মানের জন্য, আত্মমর্যাদার জন্য সুশীল ভদ্রলোকদের সমাজে টিকে থাকা অসম্ভব করে তোলা হয়েছে বলে মন্তব্য করে সাবেক এই মন্ত্রী বলেন, স্বার্থান্ধ, ঔদ্ধত্য ও মহাদুর্নীতিকে পর্দার আড়ালে রেখে সরকার এখন তারেক রহমানের বিষোদগার করছেন। চারিদিক থেকে ব্যর্থ আওয়ামী সরকার রাজনৈতিক বিরোধের ছায়াকে প্রলম্বিত রাখতে চান অশুভ উদ্দেশ্যে। সুশাসন ও ন্যায়বিচার থাকলে লুটেরা, টাকা পাচারকারী এবং ক্ষমতার ঘনিষ্ঠ ঋণখেলাপিদের আইনের আওতায় শাস্তি হতো। অথচ তারাই আজ দাপিয়ে বেড়াচ্ছে।

;

ঐক্যবদ্ধ লড়াই চালালে সরকার ক্ষমতায় থাকতে পারবে না: দুদু



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

দেশে গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনতে হবে বলে মন্তব্য করে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান শামসুজ্জামান দুদু বলেছেন, আমাদেরকে লড়াই করতে হবে। গত ১৫-১৬ বছর ধরে লড়াই করছি। আমার বিশ্বাস ঐক্যবদ্ধভাবে লড়াই চালিয়ে যেতে পারলে এ সরকার ক্ষমতায় থাকতে পারবে না।

বৃহস্পতিবার (১৩ জুন) জাতীয় প্রেসক্লাবের আব্দুস সালাম হলে জাতীয়তাবাদী জনতা দলের উদ্যোগে স্বাধীনতার মহান ঘোষক ও বাংলাদেশে বহুদলীয় গণতন্ত্রের প্রবক্তা শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান বীর উত্তমের ৪৩তম শাহাদাত বার্ষিকী উপলক্ষে এক আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন।

শামসুজ্জামান দুদু বলেন, পৃথিবীতে কিছু কিছু মানুষ আসে পৃথিবীকে এগিয়ে নেওয়ার জন্য, সমৃদ্ধ করার জন্য তেমনি জিয়াউর রহমান এসেছিলেন। তিনি শুধু স্বাধীনতার ঘোষণাই করেননি। রণাঙ্গনের যুদ্ধ করেছেন। উনাকে মহানায়ক, মহাপুরুষ বললে কম হবে। শহীদ জিয়াউর রহমান নিরহংকার মানুষ ছিলেন। তিনি কখনো কারো বিরুদ্ধে কটূক্তি করেননি। আজ যারা শাসক আছে তারা যেভাবে সমালোচনা করে, যে ভাষায় সমালোচনা করে এটা দুঃখজনক।

তিনি বলেন, শেখ মুজিবুর রহমান যেখানে গণতন্ত্র রক্ষা করতে ব্যর্থ হয়েছিলেন। সেখানে শহীদ জিয়াউর রহমান গণতন্ত্রকে বিকশিত করেছিলেন। আওয়ামী লীগ যেখানে রাজনৈতিক দলগুলোকে নিষিদ্ধ করেছিলেন তিনি সব রাজনৈতিক দলগুলোকে ফিরিয়ে এনেছেন। শহীদ জিয়াউর রহমান দুর্ভিক্ষকে এ দেশ থেকে নির্বাসিত করেছেন। এই দেশটাকে তিনি সম্মানিত করেছেন সারা বিশ্বের কাছে।

ছাত্রদলের সাবেক এই সভাপতি বলেন, দেশ নায়ক তারেক রহমান যখনই এদেশের মাটিতে পা দিবেন তখনই এ দেশ থেকে ফ্যাসিবাদ শুধু দূরই হবে না নিশ্চিহ্ন হবে। তিনি ফ্যাসিবাদকে কবরস্থ করার জন্য আসবেন। তিনি তৈরি হয়ে আছেন। যেকোনো মুহূর্তে আসতে পারেন।

তিনি বলেন, বেগম জিয়া আমাদেরকে সম্মানিত করেছেন, গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করেছেন।তিনি শিক্ষার অগ্রদূত, তিনি কথা দিয়েছিলেন ক্ষমতায় আসলে পাঁচ হাজার টাকা কৃষকদের সুদ, ঋণ মওকুফ করবেন তিনি করেছিলেন। তিনি সারের দাম কমিয়ে ছিলেন। দেশকে রক্ষা করেছিলেন। আর বর্তমানে যারা ক্ষমতায় আছে তারা দেশের সার্বভৌমত্বকে রক্ষা করতে পারছেন না। ভাবা যায় বার্মা আমাদের ওপর আক্রমণ করে।

কৃষকদলের সাবেক এ আহবায়ক বলেন, এ সরকার আর বেশিদিন ক্ষমতায় নাই। সরকার নিজেই তার কার্যক্রমে প্রমাণ করেছে। তিনি (শেখ হাসিনা) ভারতে গিয়েছিলেন। তিস্তার পানি আনতে পারতেন সীমান্তে হত্যার কথা বলতে পারতেন। কিন্তু তিনি বলেন নাই। তিনি ভুলে গেছেন। তিনি আসলে ভ্রমণ করতে গিয়েছিলেন।

জনতা দলের সভাপতি রায়হানুল ইসলাম রাজুর সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় আরও বক্তব্য রাখেন বিএনপির চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা হাবিবুর রহমান হাবিব, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনপির আহবায়ক আব্দুস সালাম, বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক শ্যামা ওবায়েদ, লেবার পার্টির চেয়ারম্যান লায়ন ফারুক রহমান, মুক্তিযোদ্ধা দলের সাংগঠনিক সম্পাদক লায়ন মিয়া মোহাম্মদ আনোয়ার, দেশ বাঁচাও মানুষ বাঁচাও আন্দোলনের সভাপতি কে এম রকিবুল ইসলাম রিপন প্রমুখ।

;