মন্ত্রী-এমপির স্বজনদের নির্বাচনে মানা ক্ষমতাসীনদের, অনড় প্রার্থীরা



রুহুল আমিন, স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

আসন্ন উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে মন্ত্রী ও সংসদ সদস্যদের সন্তান ও নিকটাত্মীয়দের প্রার্থী না হওয়ার নির্দেশনা দিয়েছে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগ। তবে সে নির্দেশনা উপেক্ষা করে এখনো নির্বাচনি কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছেন মন্ত্রী, সংসদ সদস্যদের অনেক স্বজনেরা।

মন্ত্রী-সংসদ সদস্য ও প্রার্থীদের এ বিষয়ে তাগাদা দিতে দলীয় প্রধান শেখ হাসিনা সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরকে নির্দেশনা দেন। সে নির্দেশনা অনুযায়ী গত বৃহস্পতিবার (১৮ এপ্রিল) ধানমন্ডির সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয়ে দায়িত্বশীল যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক ও সাংগঠনিক সম্পাদকরা বৈঠক করেন। বৈঠকে আত্মীয়দের তালিকা করারও নির্দেশনা দিয়ে এই বার্তা সবার কাছে পৌঁছে দেওয়ার কথা বলা হয়।

তবে এমন কঠোর বার্তাও নির্বাচন থেকে সরাতে পারছে না প্রার্থীদের। প্রার্থীরা বলছেন, আমরা মন্ত্রী-এমপিদের রাজনীতি করি না। তাহলে আমাকে কেন এমপি সাহেবদের জন্য সরে দাঁড়াতে হবে? আমরা আমাদের যোগ্যতায় নিজেদের রাজনীতির মাঠ তৈরি করেছি কিন্তু আমার স্বজন কেউ এমপি বা মন্ত্রী হলেন বলেই আমি সব কিছু ছেড়ে দেব, এটা সম্ভব না।

মন্ত্রী-সংসদ সদস্যদের নিকটাত্মীয়দের বিষয়ে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে প্রার্থী হয়েছেন প্রায় দুই ডজনেরও অধিক স্বজন। তাদের মধ্যে আছেন, মাদারীপুর-১ আসনের সংসদ সদস্য শাহজাহান খানের ছেলে আসিবুর রহমান খান, বগুড়া-১ আসনের সংসদ সদস্য সাহাদারা মান্নানের ছেলে মোহাম্মদ সাখাওয়াত হোসেন ও ছোট ভাই মিনহাদুজ্জামান ওরফে লিটন (তারা ভিন্ন ভিন্ন উপজেলায় চেয়ারম্যান প্রার্থী হয়েছেন), টাঙ্গাইল-১ আসনের সংসদ সদস্য ও সাবেক কৃষিমন্ত্রী মো. আব্দুর রাজ্জাকের খালাত ভাই, পিরোজপুর-১ আসনের সংসদ সদস্য শ ম রেজাউল করিমের ছোট ভাই নূর-ই আলম, বরিশাল-১ আসনের সংসদ সদস্য আবুল হাসানাত আবদুল্লাহর ছোট ছেলে আশিক আব্দুল্লাহ, শরীয়তপুর-১ আসনের সংসদ সদস্য ইকবাল হোসেন অপুর চাচাত ভাই বিল্লাল হোসেন নিপু।

এছাড়াও নরসিংদী-২ আসনের সংসদ সদস্য আনোয়ার আশরাফ খানের শ্যালক মো. শরিফুল হক, প্রতিমন্ত্রী জুনায়েদ আহমেদ পলকের শ্যালক লুৎফুল হাবীব রুবেল, মাগুরা-২ আসনের সংসদ সদস্য বীরেন শিকদারের ছোট ভাই বিমল শিকদার, সুনামগঞ্জ-৩ আসনে সংসদ সদস্য এম এ মান্নানের ছেলে শাহাদাত মান্নান, সুনামগঞ্জের সংরক্ষিত আসনের সাবেক সংসদ সদস্য ও জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শামসুন্নাহার বেগমের ছেলে ফজলে রাব্বি, মানিকগঞ্জ-৩ আসনের সংসদ সদস্য জাহিদ মালেকের ফুপাত ভাই ইসরাফিল হোসেন, কুষ্টিয়া-৩ আসনের সংসদ সদস্য আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মো. মাহাবুব-উল আলম হানিফের চাচাত ভাই আতাউর রহমান, নোয়াখালী-৬ আসনের সংসদ সদস্য মোহাম্মদ আলীর ছেলে আতিক আলী অমি, এমপি মোহাম্মদ আলীর স্ত্রী ও সাবেক এমপি আয়েশা আলীও উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে প্রার্থী হয়েছেন।

আবার নোয়াখালী-৪ আসনের সংসদ সদস্য মোহাম্মদ একরামুল করিম চৌধুরী এক জনসভায় গিয়ে তার ছেলের পক্ষে দেওয়া বক্তব্য হয়েছে ভাইরাল। সেখানে তিনি বলেছেন, নোয়াখালীর সুবর্ণচরে তার ছেলেকে ভোট না দিলে উন্নয়নকাজ করবেন না তিনি। তার ছেলে আতাহার ইশরাক শাবাব চৌধুরী সুবর্ণচর সদর উপজেলা নির্বাচনে প্রার্থী হয়েছেন।

স্বজনদের প্রার্থিতার বিষয়ে কঠোর হওয়ার বার্তা দিয়ে শনিবার (২০ এপ্রিল) এক সংবাদ সম্মেলনে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, 'একটা দলে আমি এমপি, আমি মন্ত্রী, আবার আমার ভাই, ছেলে এরাও পদ নিয়ে যাবে সব, তাহলে তৃণমূলের কর্মীরা কী করবে? তাদের পদে যাওয়ার কোনো অধিকার নেই? সে সুযোগটা করে দেওয়ার জন্যই এই সিদ্ধান্ত।

তবে মন্ত্রী-এমপিদের স্বজনরা বলছেন ভিন্ন কথা। তাদের ভাষ্যমতে, শুধু স্বজন হওয়ার কারণেই প্রার্থী না হওয়ার বিষয়টি তারা মানতে নারাজ। তাদের কথা, আমরা তো মন্ত্রী-এমপিদের ভরসায় নির্বাচন করছি না। আমরা আমাদের পরিচয়ে নির্বাচন করছি। তাহলে স্বজন হওয়া কি অপরাধ? তারাও তাই অনড় নির্বাচনি মাঠে; দলীয় সিদ্ধান্তের বাইরে গিয়ে হলেও নির্বাচনি মাঠে থেকে দেখতে চান শেষটা।

আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নির্দেশনা অনুযায়ী সংসদ সদস্যদের নিকটাত্মীয়রা উপজেলা নির্বাচনে প্রার্থী হতে পারবেন না, সে ক্ষেত্রে যেহেতু আপনার বোনের স্বামী নরসিংদী-২ আসনের সংসদ সদস্য (আনোয়ার আশরাফ খান), আপনি কি মনোনয়ন প্রত্যাহার করবেন এমন প্রশ্নের জবাবে পলাশ উপজেলার চেয়ারম্যান প্রার্থী মো. শরিফুল হক বার্তা২৪.কমকে বলেন, আমি উইথড্র করব কারণ কী? আমি তো এমপি সাহেবের রাজনীতি করি না।

শরিফুল হক বলেন, ঘোড়াশাল-পলাশে আমরা রাজনৈতিক পরিবার। আমার রাজনৈতিক পরিচয় তো শালা-সম্বন্ধী না। আমার রাজনৈতিক পরিচয় হচ্ছে পলাশের আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি হাসানুল হক হাসান সাহেবের ভাতিজা। ছাত্র সংসদের নির্বাচনের মাধ্যমে আমার রাজনৈতিক জীবনের শুরু। আমার ভগ্নীপতি তখন কোনো রাজনৈতিক নেতাও ছিলেন না, তিনি ছিলেন একজন ডাক্তার। আমি কি আমার বোনের স্বামীর জন্য আমার তিলে তিলে গড়া রাজনীতি ধ্বংস করে দেব? অবশ্যই আমি আমার নির্বাচন চালিয়ে যাব।

পিরোজপুর-১ আসনের সংসদ সদস্য শ ম রেজাউল করিমের ছোট ভাই নূর-ই আলম নাজিরপুর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান প্রার্থী। তার সংসদ সদস্য ভাইয়ের সাথে সরাসরি কোন সম্পৃক্ততা নেই দাবি করে বার্তা২৪.কমকে বলেন, আমি ৩০ বছর থেকে আলাদা সংসার মেনটেইন করি। আমার মতাদর্শ আলাদা। আমি বঙ্গবন্ধুকে ভালবাসি, শেখ হাসিনাকে ভালোবাসি। আমার ভাই যে সংসদ সদস্য তিনি চিকিৎসার জন্য থাইল্যান্ডে আছেন গত ১৫ দিন। আমি দীর্ঘদিন ধরে সামাজিক নানা কর্মকাণ্ডের সাথে জড়িত। করোনার সময়ে সামাজিক কাজ করেছি, বিভিন্ন সময়ে আর্থিক সাহায্য করেছি। সে কাজের ক্ষেত্রে আমাকে নিয়ে একটা বলয় তৈরি হয়েছে। তারা আমাকে নির্বাচনের জন্য উদ্বুদ্ধ করেছে, সেজন্য আমি নির্বাচন করি।

নূর-ই আলম বলেন, আমি রাজনৈতিক মতাদর্শে আওয়ামী লীগের একজন সমর্থক, কিন্তু অফিসিয়ালি দলের সাথে সংশ্লিষ্ট না। কোনো ইউনিটের সঙ্গে আমি সম্পৃক্ত না। এমনকি আমি এমপি সাহেবের রাজনীতির সাথেও সরাসরি সম্পৃক্ত না। আমি দূর থেকে যতটা পারি সহযোগিতা করি। তার সাথে আসলে আমার রাজনৈতিকভাবে তেমন কোন সম্পৃক্ততা নেই।

তবে দলের দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতারা বলছেন, দলের বার্তা সব জায়গায় পৌঁছে দেওয়া হয়েছে। তারপরও যদি দলের সিদ্ধান্ত অমান্য করে স্বজনরা নির্বাচনে থাকেন তাহলে তাদের বিরুদ্ধে নেওয়া হবে সাংগঠনিক ব্যবস্থা। এমনকি তাদের পক্ষে সমর্থনও করতে পারবেন না দলীয় কোনো ব্যক্তি। এ বিষয়ে কঠোর নজরদারি করা হচ্ছে এবং সে অনুযায়ী তালিকাও প্রস্তুত করা হচ্ছে।

মন্ত্রী ও সংসদ সদস্যদের নিকটাত্মীয়দের উপজেলা নির্বাচনে প্রার্থী না হওয়ার বিষয়ে আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দীন নাছিম বার্তা২৪.কমকে বলেন, ছেলে, স্ত্রী, কন্যা, ভাগিনা, শ্যালক সরাসরি ঘনিষ্ঠ আত্মীয়দেরকে প্রার্থী করা যাবে না। আমরা অংশগ্রহণমূলক একটি সুন্দর নির্বাচন চাই। এই নির্বাচন যেন কোনোভাবে প্রশ্নবিদ্ধ না হয় সেজন্যই আমরা আওয়ামী লীগ থেকে দলীয় কোন প্রতীক দিইনি। এটা সবাই মানবে, মানার জন্যই বলা হয়েছে। দলের সিদ্ধান্ত কেউ মানবে না বলে আমরা মনে করি না।

নাছিম বলেন, আমাদের দলের গুরুত্বপূর্ণ নেতাদের দু'চারজন প্রার্থী আছে বিভিন্ন বিভাগে, তারা দায়িত্বশীল মানুষ, দায়িত্বশীল নেতা, তারা দলের অভিমতকে, সিদ্ধান্তকে অবশ্যই মানবেন, সম্মান দেবেন, প্রতিপালন করবেন।

   

বিএনপি এখন পরজীবী হয়ে গেছে: পররাষ্ট্রমন্ত্রী



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

পররাষ্ট্রমন্ত্রী হাছান মাইদ বলেছেন, ‘বিএনপি এখন পরজীবী হয়েছে গেছে। তাই রিকশা চালকদের আন্দোলনে ঢুকে গেছে। নিজেদের কিছু ক্ষমতা নাই। অন্যের প্রতি আশ্রিত হয়ে দেশের ভিতর গন্ডগোল করার চেষ্টা করছে৷’

মঙ্গলবার (২১ মে) দুপুরে রিপোর্টার্স ইউনিটির সাগর রুগি মিলনায়তনে মিট দ্য প্রেস অনুষ্ঠানে এসব বলেন তিনি।

হাছান মাহমুদ বলেন, বিএনপি নির্বাচনে প্রতিহত করার নাম করে অগ্নি সন্ত্রাস করেছে। দেশ বিরোধী অবস্থানে চলে গেছে। নানা জনে প্রশ্ন বিদ্ধ করার চেষ্টা করেছে ঠিক ই, কিন্তু এমন শান্তিপূর্ণ নির্বাচন নিকট অতীতে দেখা যায়নি। ৪২ শতাংশ ভোট কাস্টিং হয়েছিল। ইউরোপীয় ইউনিয়নসহ অনেক দেশে এত ভোটার উপস্থিত হয় না। এখন পর্যন্ত ৮০টা দেশের রাষ্ট্র ও সরকার প্রধান অভিনন্দন জানিয়েছে। বিশ্ব প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও তার সরকারের সাথে কাজ করতে চায়।

তিনি আরও বলেন, বিশ্ব পরিস্থিতি টালমাটাল সত্ত্বেও আমরা এগিয়ে যাচ্ছি। অনেক দেশের চেয়ে আমাদের প্রবৃদ্ধির হার বেশি। সারা পৃথিবীতে পণ্যের দাম বেড়েছে, সংকটও বেড়েছে। এ বাস্তবতায় আমাদের এখানেও দাম বেশি। বাংলাদেশ পৃথিবী থেকে বিচ্ছিন্ন কোনো দেশ না। কোথাও কিছু হলে, তার প্রভাব বাংলাদেশে আসে। বিশ্বের অন্যান্য স্থানে দাম বেশি, আমাদের দেশেও সংগত কারণ জিনিসপত্রের দাম বেশি।

সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, জেনারেল আজিজকে ভিসা নীতির অধীনে নয়, অন্য অ্যাক্টে এ নিষেধাজ্ঞা দেয়া হয়েছে। যুক্তরাষ্ট্রের ভিসা নীতি ৩টি ভিসা পলিসি দেওয়া হয়েছিল। ইমিগ্রেশন এন্ড ভিসা পলিসি এর আওতায় এটা করা হয়েছে। সরকার দুর্নীতির বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স । মার্কিন সরকার এর সাথে একযোগে কাজ করে যেতে চাই।

সাবেক সেনা প্রধানের নিষেধাজ্ঞার ব্যাপারে ইউএসএ মিশনকে আগে জানানো হয়েছে। আমরা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সাথে একযোগে কাজ করতে চাই। যেহেতু সেনাবাহিনীর বিষয়। এনিয়ে আগবাড়িয়ে কিছু বলতে চাই না। আমরা মার্কিন সরকারের সাথে সম্পর্ককে এগিয়ে নিয়ে যেতে চাই।

গণতন্ত্রকে বাধাগ্রস্ত করতে সত্যিকারে ভিসা নীতি হলে, যার বাধাগ্রস্ত করছে, তাদের বিরুদ্ধে এটা কার্যকর করা হয়। যারা নির্বাচন প্রতিহত করতে চেয়েছে। পুলিশ পিটিয়ে মেরেছে৷ হত্যা, অগ্নি-সন্ত্রাস তাদের বিরুদ্ধে হওয়া উচিত।

;

সাবেক সেনাপ্রধানের ওপর নিষেধাজ্ঞা সরকারের দুর্নীতির প্রমাণ: ফখরুল



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

সাবেক সেনাপ্রধান জেনারেল (অব.) আজিজ আহমেদের ওপর মার্কিন নিষেধাজ্ঞা সরকারের দুর্নীতির প্রমাণ বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

তিনি বলেন, বর্তমান সরকার আকণ্ঠ দুর্নীতিতে নিমজ্জিত। দুর্নীতি গণতান্ত্রিক প্রতিষ্ঠানগুলোকে করায়ত্ব করেছে। তাই সাবেক সেনাপ্রধান আজিজের ওপর নিষেধাজ্ঞায় খুশির কিছু নেই। এর আগে র‍্যাবের ওপর নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হয়েছিল। কেউ গণতন্ত্র উদ্ধার করে দিবে না।

মঙ্গলবার (২১ মে) সকালে রাজধানীর ডিআরইউতে শফিউল আলম প্রধানের ৭ম মৃত্যুবার্ষিকীর আলোচনায় এসব কথা বলেন তিনি।

বিএনপির মহাসচিব বলেন, অর্থনীতিকে ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে নিয়ে গেছে সরকার। মূল্যস্ফীতি বৃদ্ধির সাথে সাথে সরকারের দুর্নীতি বাড়ছে।

ফখরুল বলেন, ১৫ বছরে ব্যাপক অপকর্মে জনসমর্থন হারিয়েছে আওয়ামী লীগ। তাই, সুষ্ঠু নির্বাচন দিতে তাতের এতো ভয়। তার অভিযোগ, মূল্যস্ফীতি বৃদ্ধির সাথে সাথে সরকারের দুর্নীতি বাড়ছে। সব নিয়ম হয় দুর্নীতিবাজদের জন্য। স্বাধীনতার চেতনাকে ধ্বংস করেছে আওয়ামী লীগ।

রাজনৈতিক প্রতিহিংসা কখনও দেশের কল্যাণ বয়ে আনতে পারে না মন্তব্য করে তিনি বলেন, কে কী বললো, কে কী করলো সেদিকে নজর না দিয়ে নিজেদের গণতন্ত্র, নিজেদের উদ্ধার করতে হবে। এ সময় আন্দোলন তীব্র থেকে তীব্রতর করার প্রত্যয় ব্যক্ত করেন এ বিএনপি নেতা।

তিনি আরও বলেন, উপজেলা নির্বাচনে নিজেরা নিজেরা লড়াই করছে। এই নির্বাচনে মানুষ অংশগ্রহণ করছে না। কারণ তারা জানে এখানে তাদের অধিকার প্রতিষ্ঠিত হচ্ছে না। তারা বলে, তারা দুর্নীতি করে না। অথচ সাবেক সেনাপ্রধানকে দুর্নীতির কারণে নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র।

;

উপজেলা নির্বাচন

দ্বিতীয় দফায় ভোটার বাড়ার আশা আওয়ামী লীগের



রুহুল আমিন, স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

ষষ্ঠ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের দ্বিতীয় দফায় ভোটার উপস্থিতি বাড়াতে আটঘাট বেঁধে মাঠে নেমেছে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগ। প্রথম দফার কম ভোটের রেকর্ডের পুনরাবৃত্তি যেন না হয় সে বিষয়ে সতর্ক দলটি। সে চেষ্টায় নেতাকর্মীদের আরও বেশি সক্রিয় হওয়ার নির্দেশ কেন্দ্রের।

উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের প্রথম দফায় ১৩৯টি উপজেলায় ভোট অনুষ্ঠিত হয়। যেখানে এখন পর্যন্ত হওয়া ৬টি উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের মধ্যে সর্বনিম্ন ৩৬.১ শতাংশ ভোটার তার ভোট প্রয়োগ করে। ফলে ভোটারদের নির্বাচন বিমুখতা নিয়ে প্রশ্ন তুলে বিশ্লেষকরা।

তাই দ্বিতীয় দফায় ১৫৬টি উপজেলায় শুরু হতে যাওয়া আজকের নির্বাচনে ভোটার উপস্থিতি সন্তোষজনক পর্যায়ে আনতে চায় ক্ষমতাসীন দলটি।

সেই লক্ষে নেতাকর্মীদের প্রতি কেন্দ্রের কড়া নির্দেশনা, ভোটের যেনো সুষ্ঠু পরিবেশ বজায় থাকে। ভোটের মাঠে কেউ যেনো আধিপত্য বিস্তার না করে। অমান্য করলে আছে কঠোর হবার হুমকিও!

বিএনপিসহ সমমনা দলগুলোর অংশ না নেয়া এই নির্বাচন নিয়ে সাধারণ জনগণের আগ্রহ এমনিতেই কম। এর মধ্যে যদি প্রভাবশালীরা আধিপত্য বিস্তার করে তাহলে ভোট দিতে দলের সমর্থকরাও আসবে না। এটা বুঝতে পেরে কাউকে প্রতীক বরাদ্দ দেয়নি, সেই সাথে মন্ত্রী-এমপির স্বজনদের ওপরও নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে দলটি।

তবে সে নির্দেশনা কতটা মেনে নিয়েছে দলটির নেতাকর্মীরা সে নিয়েও আছে প্রশ্ন। তথাপি যারা নির্বাচনে আসতে ইচ্ছুক, তার যেন ভোটের অধিকারের প্রয়োগ ঘটাতে পারে সে চেষ্টাই করে যাচ্ছে দলটি। তাই ভোটের মাঠে শান্তিপূর্ণ পরিবেশ বজায় রেখে ভোটারদের আকর্ষণ করতে চায় আওয়ামী লীগ।

আওয়ামী লীগের দায়িত্বশীল নেতারা জানান, আমরা আশা করছি এবারের নির্বাচনে ভোটার উপস্থিতি বাড়বে। বিএনপিসহ সমমনা দলগুলো নির্বাচনে অংশ না নিলেও তাদের নেতাকর্মীরা অনেক জায়গায় আছেন। আবার কোন প্রতীক না থাকায় সবাই প্রার্থী হতে পেরেছেন ইচ্ছে মতো। তাই অধিকাংশ জায়গায় প্রতিযোগিতার পরিবেশও সৃষ্টি হয়েছে। সেখানেও ভোটার উপস্থিতি বাড়ানোর চেষ্টা করবেন প্রার্থীরা। ফলে বাড়বে ভোটার উপস্থিতি।

এছাড়াও প্রথম দফার নির্বাচনে বৈরি পরিবেশ ও ধান কাটার মৌসুম থাকায় অনেকে ইচ্ছে থাকাও সত্ত্বেও আসতে পারেনি ভোটকেন্দ্রে। এবার আর তেমন বাস্তবতা না থাকায় ভোটাররা ভোট দিতে আসবে। আবার নেতাদের প্রতিও নির্দেশনা ছিলো ভোটার বাড়াতে লিফলেটসহ নানা প্রচারণামূক কাজ করার জন্য। এসব কিছু মিলেই একটি পজিটিভ দিক আমরা দেখতে পাবো আজকের নির্বাচনের ফলাফলে।

ভোটার উপস্থিতি বাড়ার বিষয়ে আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দীন নাছিম বার্তা২৪.কম-কে বলেন, আমরা আশা করছি, দ্বিতীয় দফার নির্বাচন যেনো সুষ্ঠু হয়, কোন রকম বিশৃঙ্খলা যেনো না হয়। সেভাবেই দল হিসেবে আমরা আমাদের নেতাকর্মীদের নির্দেশনা দিয়েছি। নির্বাচন কমিশনও সে লক্ষে কাজ করছে। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীও নির্বাচন কমিশনের নির্দেশনা অনুযায়ী পরিস্থিতি শান্ত ও সুষ্ঠু রাখার জন্য কাজ করছি।

তিনি আরও বলেন, আমরা যদি নির্বাচনের দিন একটি সুষ্ঠু পরিবেশ বজায় রাখতে পারি, শান্তিপূর্ণ পরিবেশ ভোটারদের উপহার দিতে পারি তাহলে ভোটাররাও ভোট দিতে কেন্দ্রে আসবে। তাই আমাদের লক্ষ্য, একটা সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ পরিবেশ নিশ্চিত করা। আমরা আশা করি ভোটের দিন সেটা থাকবে।

প্রথম দফার চেয়ে এবার ভোটার উপস্থিতি বাড়ার আশা প্রকাশ করে আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আফজাল হোসেন বার্তা২৪.কম-কে বলেন, আমাদের সবসময় চেষ্টা থাকে যেনো ভোটার উপস্থিতি বেশি থাকে। প্রথমবারের চেয়ে এবার ভোটার উপস্থিতি বাড়বে।

;

আওয়ামী লীগের ‘গোপন শাস্তি’তে নির্বিকার নেতারা



রুহুল আমিন, স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

দেশে চলছে ষষ্ঠ উপজেলা পরিষদ নির্বাচন। চার ধাপের এই নির্বাচনের প্রথম ধাপ অনুষ্ঠিত হয়েছে গত ৮ মে। দ্বিতীয় ধাপের নির্বাচন মঙ্গলবার (২১ মে)। এই নির্বাচনে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগ ভোটার টানতে বাদ দিয়েছে নিজেদের প্রতীক নৌকা। মন্ত্রী-এমপির স্বজনদের ওপরও আসে নিষেধাজ্ঞা, নির্দেশ না মানলে দেওয়া হয় শাস্তির হুমকি! তবে সব কিছুকে উপেক্ষা করে নির্বাচন থেকে সরেননি মন্ত্রী-এমপির স্বজনরা।

দলীয় প্রধান ও কেন্দ্রের কড়া নির্দেশনা উপেক্ষার কারণ খুঁজতে গিয়ে জানা যায়, নেতাদের প্রকাশ্য শাস্তি না দেওয়া, লঘু শাস্তি এবং শাস্তি দিয়ে সেটা আবার ক্ষমা করে দেওয়ার মতো ঘটনা কাজ করছে নির্দেশ অমান্যের পিছনে।

অনেকেই বিশ্বাস করতে শুরু করেছেন যে, কেন্দ্র থেকে যে নির্দেশনায় দেয়া হউক, যদি নির্বাচনে বিজয়ী হয়ে আসা যায় তাহলে শাস্তির মুখোমুখি হতে হবে না। আবার যেসব নেতাদের জনপ্রিয়তা আছে, জনভিত্তি আছে তারা মনে করছেন, শাস্তি দিলেও সেটা টিকবে না বেশি দিন। লঘু কোন শাস্তি দিলেও দল তার নিজের প্রয়োজনেই ক্ষমা করে সুযোগ করে দিবে আবার।

এদিকে প্রকাশ্যে শাস্তির কথা বললেও সেটার বাস্তবায়ন দেখতে না পাওয়ায় উৎসাহিত করছে দলের নির্দেশ অমান্যের বিষয়ে।

বার বার শাস্তি দেওয়া ও ক্ষমা করার উৎকৃষ্ট উদাহরণ হতে পারেন গাজীপুর সিটি করপোরেশনের সাবেক মেয়র জাহাঙ্গীর আলম। ২০২১ সালের ১৯ নভেম্বর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে বিতর্কিত মন্তব্য করে প্রথমবারের মতো দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গের দায়ে দল থেকে বহিষ্কার হন তিনি। প্রায় এক বছর পর ২০২২ সালের ১৭ ডিসেম্বর জাহাঙ্গীর আলমের বহিষ্কারাদেশ প্রত্যাহার করে ক্ষমা করে দলটি।

তবে দলীয় শৃঙ্খলা পরিপন্থী কাজ থেমে থাকেননি গাজীপুরের প্রভাবশালী এ নেতা। গত বছরের মে মাসে অনুষ্ঠিত গাজীপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে নৌকার প্রার্থী ছিলেন গাজীপুর আওয়ামী লীগের প্রবীণ নেতা আজমত উল্লাহ খান। সে নির্বাচনে নৌকার বিপক্ষে গিয়ে, আওয়ামী লীগের নির্দেশ অমান্য করে প্রার্থিতা জমা দেন নিজের ও মা জায়েদা খাতুনের। এর জেরে আবারও দল থেকে বহিষ্কার করা হয় জাহাঙ্গীর আলমকে। তবে সে বহিষ্কারাদেরশও টেকেনি বেশিদিন। বরং দ্বাদশ জাতীয় নির্বাচনে জাহাঙ্গীর আলমের বিশাল কর্মী বাহিনী কাজে লাগানোর জন্য মাত্র পাঁচ মাস পর প্রত্যাহার করে নেয় বহিষ্কারাদেশও।

দলীয় শৃঙ্খলা রক্ষা ও আদর্শিক স্থান ধরে রাখার স্বার্থে গঠনতন্ত্রে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণের কথা থাকলেও তা পালনে দেশের রাজনৈতিক দলগুলোকে বরাবরই ঢিলেঢালা নীতি অনুসরণ করতে দেখা যায়। কখনো ব্যবস্থা নিলে সেটাও প্রত্যাহার করা হয় দ্রুতগতিতে। এর মধ্যে আছেন, চার জেলা ও উপজেলা চেয়ারম্যান, সাবেক এমপি, দলের গুরুত্বপূর্ণ নেতাসহ অনেকেই।

যদিও ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগ বলছে, দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গকারীদের কাউকে কখনো ছাড় দেওয়া হয় না। অনেক সময় কৌশলগত কারণে প্রকাশ্য শাস্তি না দিলেও পরে বড় ধরনের শাস্তিতে পড়তে হয় দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গকারীদের।

এনিয়ে দলটির ভাষ্য, দলীয় নির্দেশ অমান্যকারীদের বিরুদ্ধে যথাসময়ে ব্যবস্থা নেন দলীয় প্রধান। প্রকাশ্যে কোন শাস্তি দিতে দেখা না গেলেও অনেক ক্ষেত্রেই দেওয়া হয় অপ্রকাশ্য শাস্তি। যা প্রকাশ্য শাস্তির চেয়েও বড় হয়। বাদ দেওয়া হয় দলীয় পদ-পদবি থেকেও। দেয়া হয় না মনোনয়ন। বাদ পড়তে হয় মন্ত্রিসভা থেকেও।

গত ১৭ মে বিকেলে রাজধানীর তেজগাঁওয়ে ঢাকা জেলা আওয়ামী লীগের কার্যালয়ে দলটির সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেন, শৃঙ্খলা মেনে চলতে হবে। যারা ডিসিপ্লিন ভঙ্গ করবে অবশ্যই তাদের শাস্তি ভোগ করতে হবে। শেখ হাসিনার শাস্তি দেওয়ার কায়দা একটু ভিন্ন রকম। যারা বুঝেছেন, পেয়েছেন তারা ঠিকই বুঝেন। আর যারা পাননি তাদের স্মরণ করিয়ে দিচ্ছি।

তিনি বলেন, ‘তার (দলীয় সভাপতি শেখ হাসিনা) নির্দেশনার বাইরে কেউ যেন আমরা কোনো অপকর্ম না করি। অপকর্ম যারা করেন শুদ্ধ হয়ে যান। মনে করছেন চুপচাপ আছে? কেউ শাস্তি পাচ্ছে না কেন? পাবে! শাস্তি পাবে। গত নির্বাচনে ৭৫ জন এমপি নমিনেশন পায়নি। এটিও শাস্তি। কাজেই এখানেই সব শেষ নয়। শাস্তি দেওয়ার অনেক সময় আছে। সময়মতো হিসাব হবে। কেউ রেহাই পাবে না।’

আওয়ামী লীগের দায়িত্বশীল নেতারা বলছেন, প্রকাশ্য শাস্তি যেহেতু দেখা যায়, তাই তার প্রতিক্রিয়াটাও হয় সরাসরি। সেক্ষেত্রে দলের শৃঙ্খলা ভঙ্গে নেতাকর্মীরা নিরুৎসাহিত হয়। আওয়ামী লীগ টানা ক্ষমতায় থাকায় নানা উপকারভোগী গোষ্ঠী তৈরি হয়েছে। ফলে সবসময় চাইলেই সাথে সাথে শাস্তি দেওয়া যায় না। আবার অনেক সময় দলের প্রয়োজনে দ্রুত সময়ে ক্ষমাও করে দিতে হয়। প্রকাশ্যে শাস্তি না পেলেও দলীয় প্রধান কাউকে ছেড়ে দেন না। তিনি সময় মতো ঠিকই ব্যবস্থা নেন।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এই নেতারা বলেন, অপ্রকাশ্য শাস্তি দেওয়া হয়, সেটার প্রতিক্রয়া তৃণমূলে পৌঁছায় না। যার ফলাফল আমরা দেখতে পাচ্ছি উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে। দল থেকে বার বার কড়া নির্দেশনার পরও তৃণমূলে গিয়ে ঠিক সেভাবে পালন হয়নি। এমপি-মন্ত্রীর স্বজনেরা সরে দাঁড়ায়নি নির্বাচন থেকে। তবে রাজনীতি করতে গেলে সকল বাস্তবতা মেনেই করতে হবে। আমরা সে লক্ষেই চেষ্টা করে যাচ্ছি। যতটা পারা যায় যেনো দলীয় শৃঙ্খলা অক্ষুন্ন রাখা যায়।

প্রার্থীদের প্রকাশ্য শাস্তি না দেওয়ায় কেন্দ্রের নির্দেশ মানার ব্যাপারে প্রার্থীদের অনীহা আসছে কি না এমন প্রশ্নের জবাবে আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আফজাল হোসেন বার্তা২৪.কম-কে বলেন, আমরা চাচ্ছি নির্বাচনটা যেনো প্রভাবমুক্ত থাকে। আমরা সে লক্ষেই কাজ করছি। নির্বাচন কমিশন তাদের নিজেদের মতো করে সিদ্ধান্ত নিতে পারছে। তাই আমরা মনে করি এতে কোন সমস্যা হবে না।

;