বুয়েটে নিয়মতান্ত্রিক ছাত্র রাজনীতির লক্ষ্যে ছাত্রলীগের কর্মসূচি



ঢাবি করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

একুশ শতকের চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করে চতুর্থ শিল্প বিপ্লব উপযোগী আধুনিক, স্মার্ট ও পলিসি নির্ভর নিয়মতান্ত্রিক ছাত্র রাজনীতি প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে বাংলাদেশ ছাত্রলীগের কর্মসূচি ঘোষণা করেছেন সংগঠনটির সভাপতি সাদ্দাম হোসেন।

মঙ্গলবার (২ এপ্রিল) বেলা সাড়ে ১১টায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মধুর ক্যান্টিনে এক সংবাদ সম্মেলনে ছাত্রলীগ নেতৃবৃন্দ এ কর্মসূচি ঘোষণা করেন। এ সময় ছাত্রলীগের সভাপতি সাদ্দাম হোসেন, সাধারণ সম্পাদক শেখ ওয়ালী আসিফ ইনানসহ উপস্থিত ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ও ঢাকা মহানগরী ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীরা।

কর্মসূচিগুলো হলো-

>> ইমতিয়াজ হোসেন রাহিম রাব্বীর আবাসিক হল ফিরিয়ে দেওয়ার লক্ষ্যে বুয়েট শহীদ মিনারে অবস্থান কর্মসূচি।

>> আধুনিক, স্মার্ট, পলিসি নির্ভর নিয়মতান্ত্রিক ছাত্র রাজনীতি প্রতিষ্ঠার কর্মপরিকল্পনা নির্ধারণে বুয়েট শিক্ষার্থীদের সাথে মতামত আহ্বান ও আলোচনা।

>> সাম্প্রদায়িক-মৌলবাদী-জঙ্গি কালোছায়া থেকে বুয়েটকে মুক্ত করতে সেমিনার ও সাংস্কৃতিক উৎসব আয়োজন।

>> বুয়েটে ছাত্র সংসদ নির্বাচনের দাবিতে প্রশাসনের সাথে আলোচনা।

সংবাদ সম্মেলনে সাদ্দাম হোসেন বলেন, তুচ্ছ কারণে গত ২৯ মার্চ ছাত্র রাজনীতি বন্ধের নামে স্বৈরাচারী কায়দায় বুয়েট শিক্ষার্থী ইমতিয়াজ হোসেন রাহিম রাব্বীর আবাসিক হলের সিট বাতিল করা হয় এবং তাকে বুয়েট থেকে স্থায়ী বহিষ্কারের দাবি উত্থাপন করা হয়। সাধারণ শিক্ষার্থীদের আড়ালে পরিচয় গোপন করে রাখা নিষিদ্ধ ও আন্ডারগ্রাউন্ড সংগঠনের কর্মীদের এই অহেতুক দাবি বুয়েট প্রশাসন অবিবেচকের মতো মেনে নিলে প্রতিবাদে ফুঁসে ওঠে দেশের ছাত্রসমাজ ও রাজনীতি সচেতন গণতন্ত্রকামী মানুষ। এমন পরিস্থিতে ছাত্রলীগ বুয়েটে ছাত্র রাজনীতি বন্ধের অবৈধ আদেশ হাইকোর্টে চ্যালেঞ্জ করলে আদালত তা বাতিল করে দেয়। ফলে বুয়েটে নিয়মতান্ত্রিক ছাত্র রাজনীতি পরিচালনা করতে আর কোনো বাধা নেই।

তিনি বলেন, ছাত্রলীগ বুয়েটের শিক্ষার্থীদের অভিনন্দন জানাচ্ছে। বাংলাদেশের ছাত্র রাজনীতির ইতিহাসে আজকের দিনটি একটি ঐতিহাসিক দিন। বর্তমানে বুয়েটে ছাত্র রাজনীতি পুনরায় শুরু হবে। কিন্তু সেটি কোনো ছাত্র রাজনীতি তা নিয়ে আমাদের ভাবতে হবে। এই রাজনীতি অবশ্যই ক্লাস-পরীক্ষা বন্ধ, সেশনজট, র‍্যাগিং-বুলিং, দখল-বাণিজ্য, হত্যা-সন্ত্রাসের ছাত্র রাজনীতি নয়। এই ছাত্র রাজনীতি হবে আধুনিক, যুগোপযোগী, বৈচিত্র্যময়-সৃষ্টিশীল, জ্ঞান-যুক্তি-তথ্য-তত্ত্বনির্ভর। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবের রেখে যাওয়া যে বাংলাদেশকে সবাইকে মিলে পিছিয়ে দিয়েছিল,দারিদ্র্যের অন্ধকারে গত ১৫ বছরে তা আবার আলোর পথে, উন্নয়ন-অগ্রগতির পথে ফিরিয়ে এনেছেন দেশরত্ন শেখ হাসিনার নেতৃত্বে। শেখ হাসিনার পরিকল্পিত উন্নত-আধুনিক বাংলাদেশে আমাদের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোতে সর্বোপরি আমাদের সামগ্রিক ছাত্র রাজনীতি কোনোভাবেই পশ্চাৎপদ ধারায় পরিচালিত হতে পারে না এবং আধুনিক নিয়মতান্ত্রিক ধারার ছাত্র রাজনীতির সূচনা যে দেশের সর্বোচ্চ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বুয়েট থেকেই শুরু হতে যাচ্ছে, বুয়েটের শিক্ষার্থীরাই যে সমগ্র ছাত্র রাজনীতিকে বদলে যাবার পথ দেখাতে যাচ্ছে, আজ সেই শুভ উপলক্ষ্যের উদ্বোধন।

তিনি আরও বলেন, উন্নত বিশ্বের দেশগুলোতে এবং বিশ্বের সর্বোচ্চ র‍্যাংকিংধারী বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে ছাত্র রাজনীতি কীভাবে পরিচালনা হয়, তা থেকে জ্ঞান নিয়ে, নিজেদের চর্চায় সেটি নিয়ে বুয়েট আমাদের ছাত্র রাজনীতিকে পথ নির্দেশ করবে। মহাকাশে কীভাবে অভিযান পরিচালনা করা যায়, রোবোটিকসের মাধ্যমে কীভাবে শিল্পবিপ্লব জয় করা যায়, নিজ দেশের উচ্চ প্রশিক্ষিত ইঞ্জিনিয়ারদের মাধ্যমে কীভাবে পদ্মাসেতুর মতো বড় বড় সেতু নির্মাণ করা যায়, রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র পরিচালনা করা যায়, আধুনিক যন্ত্রপাতি উদ্ভাবনের মাধ্যমে কীভাবে কৃষি উৎপাদন বৃদ্ধি করা যায়, দেশের জ্বালানি নিরাপত্তায় ভূভাগ ও সমুদ্রে কীভাবে অনুসন্ধান করা যায়, দেশের আমদানি কমিয়ে কীভাবে বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ বৃদ্ধি করা যায়, কোন পদ্ধতিতে দেশের উৎপাদন বৃদ্ধি করে বেকারত্বকে চিরতরে ঘুচিয়ে দেওয়া যায়, এসব বিষয় নিয়ে কাজ করবেন আগামী দিনের বুয়েটে ছাত্র রাজনীতিতে অংশগ্রহণ করা শিক্ষার্থীরা।

বুয়েটের শিক্ষার্থীরাই তাদের নেতৃত্ব নির্বাচন করবে জানিয়ে সাদ্দাম বলেন, প্রথাগত ছাত্র রাজনীতিতে কেন্দ্র থেকে চাপিয়ে দেওয়া নেতৃত্বের মাধ্যমে বুয়েট শিক্ষার্থীরা পরিচালিত হবে না। বুয়েটের শিক্ষার্থীরা নিজেরাই স্বতঃস্ফূর্তভাবে তাদের নেতৃত্ব নির্বাচন করবেন। যে নেতৃত্ব হবে আদর্শিক, দেশাত্মবোধসম্পন্ন এবং যে নেতৃত্ব বুয়েটের শিক্ষার্থীদের মধ্যে থেকেই তৈরি করবে বিশ্বসেরা উদ্ভাবক, উদ্যোক্তা।

ছাত্রলীগের সভাপতি বলেন, অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে বুয়েটে ছাত্র রাজনীতি বন্ধের যে সিদ্ধান্ত অনাকাঙ্ক্ষিতভাবে গ্রহণ করা হয়েছিল, বাংলার ছাত্র সমাজের পক্ষে ছাত্রলীগ আইনগত ও নিয়মতান্ত্রিক প্রক্রিয়ায় তা আবার ফিরিয়ে এনেছে। বুয়েট শিক্ষার্থীদের লুণ্ঠিত হওয়া মৌলিক অধিকার ছাত্রলীগ আবার সসম্মানে ফিরিয়ে দিয়েছে। এই পরিপ্রেক্ষিতে, বুয়েটকে আধুনিক, যুগোপযোগী, চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করার উপযোগী ছাত্র রাজনীতি উপহার দেওয়ার আহ্বান জানিয়ে ছাত্রলীগের আজকের এই সম্মেলন।

বুয়েটের প্রতি সম্মান জানিয়ে সাদ্দাম বলেন, শিক্ষক, প্রকৌশলী, ছাত্র আন্দোলনের কর্মী, বাংলাদেশের লাল-সবুজ পতাকা নির্মাণে অবদান রাখা শিক্ষার্থী, বুয়েট খেলার মাঠে অস্ত্রহাতে গেরিলা প্রশিক্ষণে অংশ নেয়া নারী মুক্তিযোদ্ধা, কর্মকর্তা-কর্মচারীসহ বাঙালির মহান স্বাধীনতা সংগ্রামে আত্মত্যাগ ও অংশগ্রহণকারী বুয়েট পরিবারের সকল অগ্রজের গৌরবোজ্জ্বল স্মৃতির প্রতি বাংলার ছাত্রসমাজের পক্ষে যুগে-যুগে অতুলনীয়-অদ্বিতীয় ভূমিকা পালন করা সংগঠন ছাত্রলীগের পক্ষ থেকে জানাই গভীর শ্রদ্ধা। একইসাথে স্বাধীনতা উত্তর বাংলাদেশে গত ৫৩ বছরে জ্ঞান-বিজ্ঞান-প্রযুক্তি চর্চা ও প্রসার, অবকাঠামো নির্মাণ ও উন্নয়ন, স্বনির্ভর, মর্যাদাশীল বাংলাদেশ গড়ার ক্ষেত্রে সর্বোচ্চ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান হিসেবে বুয়েটের যে অনন্য অবদান, তার প্রতিও সম্মান প্রদর্শন করছে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ।

১৯৪৭ থেকে শুরু করে ১৯৭১ এ বাঙালির হাজার বছরের কাঙ্ক্ষিত স্বাধীনতা ও বিজয় অর্জনের ক্ষেত্রে এদেশের ছাত্রসমাজ কেবল গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকাই পালন করেনি, অকাতরে নিজের বুকের তাজা রক্ত ঢেলে দিয়েছে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়, ঢাকা মেডিকেল কলেজ সে সময় দেশের ছাত্রসমাজ ও তরুণ প্রজন্মকে নেতৃত্বদান করেছে। পুরো এই কালপর্বে ছাত্রসমাজের মাথার মুকুট হয়ে থেকেছে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ। ১৯৪৮ সালে প্রতিষ্ঠার পর থেকে ঐতিহাসিক ভূমিকা পালনের কারণে বাংলাদেশের ইতিহাস ও ছাত্রলীগের ইতিহাস একে অপরের সঙ্গে ওতপ্রোতভাবে জড়িয়ে গেছে, একটিকে ছাড়া অপরটি অসম্পূর্ণ। স্বাধীনতা উত্তর বাংলাদেশেও গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র কাঠামো ও রাজনৈতিক-অর্থনৈতিক-শিক্ষা ব্যবস্থাকে সুপ্রতিষ্ঠিত করার লক্ষ্যে ছাত্রসমাজের নির্ভরতার প্রিয় ঠিকানা হিসেবে ভূমিকা রেখে চলেছে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ।

তিনি জানান, বাংলাদেশের স্বাধীনতা আন্দোলনে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সদা সর্বদা গণতান্ত্রিক ব্যবস্থাকে সর্বাগ্রে স্থান দিয়েছেন। স্বাধীনতা অর্জনের জন্য বিচ্ছিন্নতাবাদ, অরাজকতা, সন্ত্রাস, হত্যা ইত্যাদিকে গুরুত্ব না দিয়ে পায়ে হেঁটে, সাইকেল চালিয়ে ৫৬ হাজার বর্গমাইল ঘুরে বঙ্গবন্ধু মানুষকে সজাগ করেছেন। স্বাধীনতার চেতনায় উদ্বুদ্ধ করেছেন। সংগঠন গড়ে তুলেছেন। নিয়মতান্ত্রিক গণতন্ত্রের প্রতি বঙ্গবন্ধুর এই সংকল্প এতোটাই মজবুত ছিল যে, কারাগারের অন্ধকার প্রকোষ্ঠ, ফাঁসির দড়ি, খনন করে রাখা কবর, নানাবিধ প্রলোভন কোনোকিছুই তাঁকে সামান্য পরিমাণে বিচ্যুত করতে পারেনি। স্বাধীনতা উত্তর রাষ্ট্র গড়ার ক্ষেত্রেও তাঁর এই চেতনা অপরিবর্তনীয় ছিল। সমকালীন প্রেক্ষাপটে একটি আধুনিক সংবিধান প্রণয়ন এবং সে আলোকে গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়ায় মাত্র আড়াই বছর রাষ্ট্র পরিচালনার মাধ্যমে বঙ্গবন্ধু যুদ্ধবিধ্বস্ত বাংলাদেশকে অবকাঠামো ও অর্থনৈতিক দিক থেকে যে অনন্য উচ্চতায় নিয়ে গেছেন, তা নবগঠিত একটি রাষ্ট্রের জন্য পৃথিবীব্যাপী বিরল।

ছাত্র রাজনীতির ব্যাপারে তিনি বলেন, বাংলাদেশের স্বাধীনতাবিরোধী শক্তির জিঘাংসায় পরিণত হয়ে ১৯৭৫ সালে বঙ্গবন্ধু মর্মান্তিকভাবে মৃত্যুবরণের পর থেকে এদেশ গণতান্ত্রিক ব্যবস্থার বিপরীতে পরিচালিত হতে থাকে। নির্বাচিত সরকারকে উৎখাত করে অস্ত্রের জোরে সামরিক বাহিনী রাষ্ট্র ক্ষমতায় অধিষ্ঠিত হয়। সেনাবাহিনী, সরকার ও রাষ্ট্রের সবকটি পদ দখলে চলে যায় অনির্বাচিত একক ব্যক্তির হাতে।

সামরিক শাসক জিয়াউর রহমান ও হুসাইন মহম্মদ এরশাদ দীর্ঘ প্রায় ১৫ বছর এই অসাংবিধানিক প্রক্রিয়ায় রাষ্ট্র পরিচালনার কারণে একে একে এই রাষ্ট্রের সব কয়টি প্রতিষ্ঠান, রাজনৈতিক-সামাজিক-অর্থনৈতিক ব্যবস্থা ধ্বংস হয়ে যায়। এই কালো ছায়া থেকে মুক্তি পায়নি এদেশের শিক্ষা ব্যবস্থা, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, ছাত্র ও তরুণ সমাজ। নিয়মতান্ত্রিক রাজনীতির বদলে বিরাজনীতিকীকরণ, সামরিকতন্ত্র, হত্যা-সন্ত্রাস, অস্ত্র ও অর্থের দাপটে খেয় হারিয়ে ফেলে এদেশের ছাত্র রাজনীতিও। মেধাভিত্তিক আদর্শিক ছাত্র রাজনীতির কর্মী তৈরির ধারাবাহিক প্রক্রিয়াকে পাশ কাটিয়ে সেনা ছাউনি থেকে জারি হওয়া প্রেসকিপশন অনুয়ায়ী শুরু হয় ক্যাডার তৈরির প্রক্রিয়া।

সংস্কৃতিনির্ভর, জ্ঞানভিত্তিক, বিজ্ঞানসম্মত, তত্ত্বনির্ভর আধুনিক ছাত্র রাজনীতি সেসময়ই প্রতিস্থাপিত হয় নৌবিহার, টেন্ডারবাজি, ছাত্র সন্ত্রাস, অস্ত্র ও গুলির ঝনঝনানি, কমিশন বাণিজ্য, মাদকনির্ভর, ধর্মভিত্তিক, লেজুড়ভিত্তিক ছাত্র রাজনীতির মাধ্যমে। স্বাধীনতা উত্তর একটি দেশের তরুণ প্রজন্ম, ছাত্র ও যুবসমাজের যখন দেশ গঠনে আত্মনিয়োগ করার কথা, সেসময় তাদের পরিচালিত করা হয়, দেশবিরোধী কর্মকাণ্ডে। সেনা-সামরিক-স্বৈরশাসক জিয়া-এরশাদের ধারাবাহিকতায় খালেদা-নিজামী গং এদেশের ছাত্র রাজনীতি ও সমাজ কাঠামোকে ধ্বংসের নতুনতর উচ্চতায় উত্তীর্ণ করে। রগকাটা, বোমাবাজি, নকল, প্রশ্নফাঁস, সেশনজট, অনির্দিষ্টকালের জন্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ, মেধার বিপরীতে দলীয় বিবেচনায় চাকরি, শোডাউন, পেশিশক্তি, দখল বাণিজ্য ইত্যাদি ছাত্রসমাজকে চূড়ান্তভাবে বিচ্যুত করে।

ছাত্র রাজনীতি পুনঃরুদ্ধারে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অবদান উল্লেখ করে সাদ্দাম হোসেন বলেন, রক্ত ও নীতি-বিশ্বাস-কর্মের উত্তরসূরী, বাংলাদেশের অপ্রতিরোধ্য অগ্রযাত্রার অবিকল্প সারথী, বাংলার মানুষের-ছাত্রসমাজের নির্ভরতার একমাত্র ঠিকানা দীর্ঘ ২১ বছর পর ১৯৯৬ সালে রাষ্ট্র ক্ষমতায় অধিষ্ঠিত হয়ে জিয়া-এরশাদ-খালেদা-নিজামীর দ্বারা ক্ষতবিক্ষত দেশকে সংস্কার ও পুনঃরুদ্ধারের কাজ শুরু করেন। সমাজ ও রাষ্ট্র ব্যবস্থার রন্ধ্রে রন্ধ্রে গেঁথে যাওয়া অপসংস্কৃতি, অপরাজনীতির কবলে দিশেহারা ছাত্রসমাজকে অস্ত্র ফেলে ক্লাসরুমে ফিরে যাওয়ার আহ্বান জানান, হাতে খাতা-কলম তুলে দেন।

সন্ত্রাস, কুশিক্ষা, কুসংস্কার, ধর্মান্ধতায় আবদ্ধ ছাত্রসমাজকে সঠিক পথে পরিচালিত করতে শিক্ষা কমিশন গঠন করেন। নিয়মিত ক্লাস-পরীক্ষা চালু, বিজ্ঞানভিত্তিক শিক্ষার প্রসার, বহুমাত্রিক ও বিষয়ভিত্তিক শিক্ষার প্রচলন, উপবৃত্তি-শিক্ষাবৃত্তি, আবাসন সঙ্কট হ্রাস করা, সেশনজট-নকল মুক্ত করা, গবেষণায় বরাদ্দ বৃদ্ধি, মেধাভিত্তিক কর্মসংস্থান ইত্যাদি পদক্ষেপের মাধ্যমে নিরক্ষরতা দূরীভূত হয়েছে, শিক্ষার হার উল্লেখযোগ্যভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে, কোয়ালিটি ও যুগোপযোগী শিক্ষা নিশ্চিত হয়েছে।

মাঝপথে ২০০১-০৮ পর্যন্ত আবারও হোঁচট খেলেও ২০০৯ থেকে অদ্যবধি শিক্ষা ও ছাত্রবান্ধব নেত্রী শেখ হাসিনার দূরদর্শী নেতৃত্বে এদেশের শিক্ষা ব্যবস্থার অভূতপূর্ব উন্নয়ন সাধিত হয়েছে। বাংলাদেশের শিক্ষার্থীরা তাদের শিক্ষাজীবন শেষ করে মেধার ভিত্তিতে কর্মজীবনে প্রবেশ করে শেখ হাসিনার নির্ধারিত কর্মসূচি বাস্তবায়ন করছেন বলেই দেশ আজ অনুন্নত থেকে উন্নয়শীল হয়েছে। উন্নত বাংলাদেশের হাতছানি দেখছে। আমাদের শিক্ষার্থীরা আজ দেশের গণ্ডি অতিক্রম করে বহির্বিশ্বে নিজের মেধার পরিচয় দিয়ে বাংলাদেশকে মর্যাদার আসনে আসীন করছে।

দেশরত্ন শেখ হাসিনার অভিভাবকত্বে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ এদেশের ছাত্রসমাজের যাবতীয় ইতিবাচকতার পক্ষে নিরলস ভূমিকা পালন করে চলেছে। সবকিছুর পরেও বাংলাদেশ ছাত্রলীগ ত্রুটি স্বীকার করতে কুণ্ঠাবোধ করে না যে, জিয়া-এরশাদ-খালেদা-নিজামীর দীর্ঘকালের ধ্বংসাত্মক অপরাজনীতির আগুনের আঁচ ছাত্রলীগের শরীরেও অনুভূত হয়েছে, ছাত্রলীগকেও দগ্ধ করেছে। এই অপরাজনীতির আগুনকে নিয়মতান্ত্রিক ছাত্ররাজনীতির মাধ্যমে চিরস্থায়ীভাবে প্রতিস্থাপন করতে কাজ করে যাচ্ছে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ। বাংলাদেশ ছাত্রলীগ যেন তার অভ্যন্তরীণ পরিকাঠামো থেকে সব ধরনের ভুল-ভ্রান্তি-বিচ্যুতি ধুয়ে মুছে-সাফ করে ফেলতে পারে, সে লক্ষ্যে প্রতিটি নেতা-কর্মীকে প্রস্তুত করা আমাদের নৈতিক দায়িত্ব, সাংগঠনিক মূলমন্ত্র।

   

ঘূর্ণিঝড় রিমালে মানুষের পাশে থাকবে ছাত্রলীগ

  ঘূর্ণিঝড় রিমাল



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ঘূর্ণিঝড় রিমালে মানুষের পাশে থাকবে ছাত্রলীগ

ঘূর্ণিঝড় রিমালে মানুষের পাশে থাকবে ছাত্রলীগ

  • Font increase
  • Font Decrease

অতি প্রবল ঘূর্ণিঝড় 'রিমালে' আক্রান্ত মানুষের পাশে দাঁড়াবে বলে জানিয়েছে ছাত্রলীগ।

রোববার (২৬ মে) গণমাধ্যমে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ এ তথ্য জানিয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, অতীতে বন্যা ও ঘূর্ণিঝড়কালীন সময়ে, শীতার্ত মানুষের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ করে, অগ্নিকাণ্ড বা ভবন ধসে উদ্ধারকাজ চালিয়ে, মহামারি করোনাকালীন সময়ে অসহায়-অসুস্থ মানুষের পাশে দাঁড়িয়ে, কৃষকের ধান কেটে নিরাপদে ঘরে পৌঁছে দিয়ে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ সমাজ ও মানুষের প্রতি তার কর্তব্য নিষ্ঠার সঙ্গে পালন করেছে।

সম্প্রতি বঙ্গোপসাগরে গভীর নিম্নচাপটি ঘূর্ণিঝড় 'রিমাল'-এ রূপ নিয়েছে, যা অতি প্রবল ঘূর্ণিঝড় বা সুপার সাইক্লোনে রূপ নেওয়ার আশঙ্কা রয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়, ঘূর্ণিঝড়টি বাংলাদেশের পটুয়াখালী জেলার কলাপাড়া ও ভারতের পশ্চিমবঙ্গের সাগর দ্বীপের মাঝামাঝি স্থানে অবস্থান করছে। ২৬ শে মে গভীর রাতে কিংবা ২৭ শে মে ভোরের মধ্যে বাংলাদেশের সাতক্ষীরা, পটুয়াখালী, বরগুনাসহ উপকূলবর্তী এলাকায় তীব্রভাবে আঘাত হানবে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

আঘাত হানার সময় এর কেন্দ্রের গতিবেগ ঘণ্টায় ১৩০ কিলোমিটার হতে পারে। এছাড়াও এ ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে সারা দেশব্যাপী অতি ভারী বৃষ্টি, প্রবল দুর্যোগ, বজ্রবৃষ্টি এবং সাতক্ষীরা, খুলনা, বাগেরহাট, পিরোজপুর, ঝালকাঠি, বরিশাল, বরগুনা, পটুয়াখালী, ভোলা, নোয়াখালী, লক্ষ্মীপুর, ফেনী, কুমিল্লা, চট্টগ্রাম ও কক্সবাজারসহ উপকূলীয় অঞ্চলে জলোচ্ছ্বাসের সৃষ্টি হতে পারে। প্রবল বৃষ্টির ফলে ভূমিধস হওয়ার আশঙ্কাও রয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে বাংলাদেশ ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীদের ঘূর্ণিঝড় প্রবণ এলাকার মানুষকে নিরাপদ স্থানে সরিয়ে নিতে, সচেতনতামূলক প্রচারণা চালিয়ে, মাইকিং করে, শুকনো ও রান্না করা খাবার, খাবার স্যালাইন ও পানি বিশুদ্ধকরণ ট্যাবলেট বিতরণ করে, ঘূর্ণিঝড় পরবর্তী উদ্ধারকাজ পরিচালনা করে, ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের ঘরবাড়ি স্বেচ্ছাশ্রমের মাধ্যমে সংস্কার করে, শিক্ষার্থীদের শিক্ষা উপকরণ বিতরণ এবং স্থানীয় প্রশাসন কর্তৃক গৃহীত কার্যক্রমে সহযোগিতা প্রদান করে পাশে থাকার নির্দেশ দেওয়া হচ্ছে বলেও জানানো হয়।

বাংলাদেশের অপ্রতিরোধ্য অগ্রযাত্রার অগ্রদূত, পরিবেশ বিষয়ক সর্বোচ্চ বৈশ্বিক পুরস্কার 'চ্যাম্পিয়নস অব দ্য আর্থ' এ ভূষিত মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনায় বাংলাদেশ বৈশ্বিক রোল মডেলে পরিণত হয়েছে বলে বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, দুর্যোগে পূর্বপ্রস্তুতি গ্রহণ, আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহারের মাধ্যমে প্রাণহানি কমিয়ে আনা, আশ্রয়কেন্দ্র নির্মাণ, দুর্যোগে উদ্ধার কার্যক্রম পরিচালনার জন্য যন্ত্রপাতি সংগ্রহ, বজ্রপাত নিরোধক কর্মসূচি, গৃহহীনদের জন্য দুর্যোগ সহনীয় গৃহ নির্মাণ, সময়োপযোগী আইন প্রণয়ন, জলবায়ু পরিবর্তন ও দুর্যোগজনিত ক্ষয়ক্ষতি হ্রাসের ওপর গুরুত্বারোপ করে 'বাংলাদেশ বদ্বীপ পরিকল্পনা ২১০০' প্রণয়ন ইত্যাদি কর্মকাণ্ড বাংলাদেশকে দুর্যোগ সহনশীল রাষ্ট্র হিসেবে গড়ে তুলেছে।

যার ফলে জাতিসংঘ কর্তৃক বাংলাদেশের দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয় 'জনসেবা পদক' লাভ করেছে।

বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়, রাষ্ট্র গঠন আন্দোলন থেকে শুরু করে শিক্ষার অধিকার এবং দেশমাতৃকার প্রতিটি প্রয়োজনে ও গণতান্ত্রিক আন্দোলনে বাংলাদেশ ছাত্রলীগের যে গৌরবান্বিত ইতিহাস মানবতার সেবায় আত্মনিয়োগের মাধ্যমে তা আরও মহিমান্বিত হবে, এটিই আমাদের সংকল্প।

;

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন সাংবাদিকদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করে না: রিজভী



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন বা সাইবার সিকিউরিটি অ্যাক্ট সাংবাদিকদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করে না বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব অ্যাডভোকেট রুহুল কবির রিজভী।

রোববার (২৬ মে) ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির তিন দশক পূর্তি অনুষ্ঠানে বিএনপির পক্ষ থেকে কেক কাটা ও শুভেচ্ছা বিনিময়ের সময় তিনি এসব কথা বলেন ।

শুভেচ্ছা বিনিময় অনুষ্ঠানে রিজভী বলেন, ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন সাংবাদিকদের জন্য সুখকর বিষয় নয়। সাংবাদিকদের জন্য এই আইন নিরাপত্তা নিশ্চিত করে না। ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন এমন একটি আইন, যে আইন থেকে সহজেই রেহাই পাওয়া যাচ্ছে না।

তিনি বলেন, দেশে যখন মানুষের ভোটাধিকার থাকে না, মানুষের কথা বলার অধিকার থাকে না, এমন সময়ে সাংবাদিকদের ভয়ের মধ্যে কাজ করতে হয়। আর বর্তমানে দেশে সে অবস্থা বিরাজমান।

তিনি আরও বলেন, সরকার এবং সংবাদপত্রের মালিকদের চাপে স্বাধীন সাংবাদিকতা এখন আর বাংলাদেশে নাই। কালো টাকার মালিকরা এখন বেশিরভাগ গণমাধ্যমের মালিক।

তিনি বলেন, যারা মুক্তচিন্তার মানুষ, তারা তাদের মতামত ব্যক্ত করতে গিয়ে কারাবন্দি হয়েছেন। এমন একটি আইন দেশে বিদ্যমান। এমন পরিস্থিতিতে সংবাদপত্রের পথচলা দুঃসাধ্যের বিষয়।

ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির সভাপতি সৈয়দ শুক্কুর আলী শুভ, সাধারণ সম্পাদক মহিউদ্দিন, বিএফইউজের মহাসচিব কাদের গনি চৌধুরী, ডিইউজের সভাপতি শহিদুল ইসলাম, ডিআরইউর সাবেক সভাপতি ইলিয়াস হোসেন, রফিকুল ইসলাম আজাদ, ডিইউজের সহসভাপতি রাশেদুল হক, রফিক মোহাম্মদ, ডিআরইউ বহুমুখী সমিতির সভাপতি আবুল হোসেনসহ সংগঠনের সাবেক নেতা ও সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

;

সরকার গণতন্ত্র হরণ করে ফ্যাসিবাদ প্রতিষ্ঠা করেছে: দুদু



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান শামসুজ্জামান দুদু বলেছেন, সরকার জনগণের স্বাধীনতা, গণতন্ত্র হরণ করেছে। সব কিছু লুটপাট করে ফ্যাসিবাদ প্রতিষ্ঠা করেছে।

রোববার (২৬ মে) রাজধানীর হোটেল লেকশোর লা ভিটা হলে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার জীবনভিত্তিক গ্রন্থের লেখক মাহফুজ উল্লাহ'র রচিত 'Khaleda Zia: Her life her story (ভাষান্তর- 'বেগম খালেদা জিয়া: জীবন ও সংগ্রাম'- শাহরিয়ার সুলতান) বইয়ের মোড়ক উন্মোচন ও প্রকাশনা অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন তিনি।

শামসুজ্জামান দুদু বলেন, বেগম খালেদা জিয়া সামরিক শাসন, স্বৈরাচারের বিরুদ্ধে লড়াই করেছেন। সামরিক স্বৈরাচারের বিরুদ্ধে প্রধান নয়, একক নেত্রী বেগম জিয়া। আর তার পাশে যে দাবিদার আছে, তিনি আন্দোলন করেছেন আসলে ক্ষমতাকে ভোগ করার উদ্দেশে। ৯০ এর গণ-অভ্যুত্থান শুরু হয় বেগম জিয়ার ভাবনা, নেতৃত্ব ও বিশ্বাস থেকে। বর্তমান সরকার যেভাবে জনগণের স্বাধীনতা হরণ করেছেন তরুণরা তা বেশিদিন টিকতে দিবে না। তারা ফ্যাসিবাদের সরকারের বিরুদ্ধে দাঁড়াবে।

অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান। তিনি বলেন, দেশ ও দেশের মানুষকে ভালোবেসে জাতির চরম দুঃসময়ে জনগণের আকাঙ্ক্ষা ধারণ করে তার বাস্তবায়ন করেছেন বেগম জিয়া।

উন্নয়ন ও অগ্রগতির পথে প্রবল আস্থা নিয়ে জনগণ দেশ পরিচালনার দায়িত্ব দিয়েছিলেন বেগম জিয়াকে আর তিনি সফলতার সাথে দেশ পরিচালনা করেছেন। স্বৈরাচারের বিরুদ্ধে লড়াই করে বিজয়ী হয়েছেন। বেগম জিয়া যতগুলো নির্বাচনে অংশ নিয়েছেন সবগুলো নির্বাচনে তিনি জিতেছেন। যেখানে আন্দোলন সংগ্রাম ছিল সচেতন মানুষ ছিল সেখানেই বিএনপি জিতেছে বলে মন্তব্য করেন তিনি।

অনুষ্ঠানে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস বলেন, জিয়াউর রহমানের অস্তিত্ব বিনাশ করার সর্বোচ্চ চেষ্টা করেছে সরকার। কিন্তু সাধারণ মানুষ জিয়াউর রহমানসহ খালেদা জিয়ার অস্তিত্ব বহন করে চলে। খালেদা জিয়ার চিকিৎসার প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ইতিহাস এই নির্মমতার সাক্ষী হয়ে থাকবে। অসুস্থ মানুষটির চিকিৎসার জন্য সরকার যে নির্মম ব্যবহার করছে তার বিচার হবে।

অধ্যাপক ডক্টর মাহবুবুল্লার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, নাগরিক ঐক্যের সভাপতি মাহমুদুর রহমান মান্না, শিক্ষাবিদ অধ্যাপক ড. দিলারা চৌধুরী, অধ্যাপক ড. আসিফ নজরুলসহ বিএনপির শীর্ষস্থানীয় নেতৃবৃন্দ।

;

পেশাজীবী সংগঠনগুলো পেশার চেয়ে দলীয় পরিচয়কে গুরুত্ব দিচ্ছে: জিএম কাদের



স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
পেশাজীবী সংগঠনগুলো পেশার চেয়ে দলীয় পরিচয়কে গুরুত্ব দিচ্ছে: জিএম কাদের

পেশাজীবী সংগঠনগুলো পেশার চেয়ে দলীয় পরিচয়কে গুরুত্ব দিচ্ছে: জিএম কাদের

  • Font increase
  • Font Decrease

পেশাজীবী সংগঠনগুলো পেশার চেয়ে দলীয় পরিচয়কে গুরুত্ব দিচ্ছে। পেশাকে গুরুত্ব দিলেই ঐক্য ধরে রাখা সম্ভব বলে মন্তব্য করেছেন বিরোধীদলীয় নেতা ও জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যান জিএম কাদের এমপি।

রোববার (২৬ মে) ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনটির ৩০ বছরে পদার্পণ আয়োজিত অনুষ্ঠানে সম্মানিত অতিথি হিসেবে দেয়া বক্তৃতায় এমন মন্তব্য করেন।

তিনি আরও বলেন, ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির নামেই বিশেষত্ব আছে। ইউনিটি মানে, ঐক্য বা একাতাদ্ধ হওয়া। প্রফেশনাল বডিগুলো যদি তাদের ঐক্য ধরে রাখতে পারে, তাহলে তারা শক্তিশালী হয়ে এগিয়ে যেতে পারে। আমাদের দেশের বেশির ভাগ পেশাজীবী সংগঠন তাদের ঐক্য ধরে রাখতে পারে না।

তিনি বলেন, শক্তিশালী হতে চাইলে আপনি সাংবাদিক, এটাই হচ্ছে বড় পরিচয়। আপনি হিন্দু কি মুসলমান, সাদা কি কালো বা নারী কি পুরুষ এই পরিচয় পরের কথা। খুব বেশি শক্তিশালী, হলে সেই শক্তিকে শুভশক্তি হিসেবে জনকল্যাণে কাজে লাগাতে পারবেন। শক্তিকে সঠিক পথে ব্যবহার করতে হবে।

ডিআরইউ সভাপতি সৈয়দ শুক্কুর আলী শুভ’র সভাপতিত্বে অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের এমপি, আওয়ামী লীগের যুগ্মসাধারণ সম্পাদক আফম বাহাউদ্দিন নাছিম এমপি।

;