খুশির দিনে ভালো নেই সিলেট



মশাহিদ আলী, স্টাফ করেসপন্ডেন্ট বার্তা২৪.কম,সিলেট
খুশির দিনে ভালো নেই সিলেট

খুশির দিনে ভালো নেই সিলেট

  • Font increase
  • Font Decrease

সারাদেশে যখন ঈদের আনন্দে মেতেছে মানুষ, ঠিক তখন অঝোর বৃষ্টির পানিতে ভাসছেন সিলেটবাসী। এতে ম্লান হয়ে গেছে মানুষের ঈদ আনন্দ। ভারী বর্ষণ ও পাহাড়ি ঢলে সিলেটে অনেক-বাসা বাড়িতে কোমর পর্যন্ত পানি উঠেছে। এতে অনেক স্থানে কোরবানি দিতে পারছেন না স্থানীয়রা।

সোমবার (১৭ জুন) ঈদের দিন কোনো কোনো এলাকায় কোরবানি দেয়া সম্ভব না হওয়ায় মঙ্গলবার কোরবানি দেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন স্থানীয় বাসিন্দারা।

রোববার (১৬জুন) মধ্যরাত থেকে ভারি বৃষ্টি ও উজানের ঢলে ঈদের দিন ভোরেই সিলেট নগরীর অধিকাংশ এলাকায় দেখা দেয় জলাবদ্ধতা। ফলে অনেক গুরুত্বপূর্ণ ও প্রধান সড়ক তলিয়েছে পানিতে। এ অবস্থায় বেশিরভাগ ঈদগাহে ঈদুল আজহার জামাত বাতিল করে স্থানীয় মসজিদগুলোতে নামাজ আদায় করেছেন মুসল্লিরা। সেখানেও মুসল্লিদের উপস্থিতি কম দেখা যায়।

সিলেটে প্রধান ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হয় শাহী ঈদগাহ ময়দানে। সেখানে বৃষ্টিতে ভিজে সাধারণ মানুষের সঙ্গে ঈদের জামাত আদায় করেন সিলেট সিটি করপোরেশেনের মেয়র আনোয়ারুজ্জামান চৌধুরী। এই ঈদগাহে প্রতি বছর ১ থেকে দেড় লাখ মুসল্লির সমাগম ঘটলেও এবার বৃষ্টির কারণে মুসল্লি ছিলেন মাত্র কয়েক হাজার।

এদিকে, ভারী বৃষ্টিপাতের ফলে বাসবাড়ি ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে পানি ঢুকে পড়ে। ফলে সিলেট নগরীর কোরবানিদাতারা পড়েছেন বেশ বিপাকে। অনেকে পশু বাড়ির দোতলায় উঠিয়ে রেখেছেন। পানি না নামলে কোরবানি দিতে পারছেন না। আবার কেউ কেউ এক বাসা থেকে অন্য বাসায় নিয়ে রাখছেন তাদের কোরবানির পশু। তারা বলছেন, পানি না কমলে এক-দুই দিন পরে কোরবানি দিতে হবে।

সরেজমিনে সিলেট নগরীর বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা যায়, বেশিরভাগ নিচু এলাকা পানিতে ডুবে গেছে। বিশেষ করে শাহজালাল উপশহর এলাকায় পানির নিচে। অনেকের বাসার নিচ তলায় কোমর পর্যন্ত পানি। লালাদীঘিরপাড়, সোবহানীঘাট, কালিঘাট, অধিকাংশ এলাকায় জলাবদ্ধতা দেখা দিয়েছে। এছাড়াও এয়ারপোর্ট সড়ক, দক্ষিণ সুরমার বঙ্গবীর রোডসহ বিভিন্ন সড়কের বেশ কয়েকটি স্থান তলিয়ে গেছে। কোনো কোনো স্থানে কোমর পর্যন্ত পানি দেখা গেছে।

সিলেট আবহাওয়া অফিস সূত্র জানিয়েছে, গত ২৪ ঘণ্টায় (রোবার সকাল ছয়টা থেকে সোমবার সকাল ছয়টা পর্যন্ত) সিলেটে ১৭৩.৬ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত হয়েছে। আর সোমবার সকাল ছয়টা থেকে ৯টা পর্যন্ত হয়েছে ৮৬ মিলিমিটার বৃষ্টি। এখনও বৃষ্টি হচ্ছে।

সিলেট পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো) সূত্র জানিয়েছে, ঈদের দিন দুপুর ১২টা পর্যন্ত সিলেটে তিনটি নদীর পানি তিনটি পয়েন্টে বিপৎসীমার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। সুরমার পানি কানাইঘাট পয়েন্টে বিপৎসীমার ৭৯ সেন্টিমিটার, কুশিয়ারার পানি ফেঞ্চুগঞ্জ পয়েন্টে বিপৎসীমার ৬৭ সেন্টিমিটার ও সারি নদীর পানি সারিঘাট পয়েন্টে বিপৎসীমার ১৫ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। এছাড়া সিলেটের সব নদ-নদীর পানি বৃদ্ধি অব্যাহত রয়েছে।

জেলা প্রশাসনের তথ্যমতে, রোববার রাত ১১টা পর্যন্ত সিলেটের ১৩টি উপজেলার মধ্যে ৯টিতে বন্যা দেখা দিয়েছে। পুরো জেলায় ১ লাখ ৪২ হাজার ১৮৫ জন মানুষ বন্যাকবলিত হয়েছেন। এরমধ্যে সবচেয়ে বেশি প্লাবিত হয়েছে গোয়াইনঘাট উপজেলা। এই উপজেলার ১৩ ইউনিয়নের ১ লাখ ১৪ হাজার ৬০০ জন। জেলার ১৩টি উপজেলায় মোট ৫৩৭টি আশ্রয়কেন্দ্র খুলেছে জেলা প্রশাসন। আশ্রয় নিয়েছেন ৬৮ জন। এরমধ্যে ওসমানী নগরে ৪৩ জন, বালাগঞ্জে ১০জন ও বিয়ানীবাজারে ১৫জন আশ্রয় নিয়েছেন।

নগরীতে জলাবদ্ধতার বিষয়ে জানতে সিলেট সিটি করপোরেশনের প্রধান প্রকৌশলী নূর আজিজুর রহমানের মুঠোফোনে কল দিলে তিনি কল রিসিভ করেননি।

তবে, সিলেট সিটি করপোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মো.ইফতেখার আহমেদ চৌধুরী বার্তা২৪.কমকে বলেন, মেঘালয়ে প্রচুর বৃষ্টি হচ্ছে পাশাপাশি সিলেটেও বৃষ্টি হচ্ছে ফলে সুরমা নদীর পানি বৃদ্ধি পাচ্ছে। নদীর পানি বৃদ্ধি পাওয়ার কারণে ছড়াগুলো উপচে নগরীর নিচু এলাকাগুলোতে পানি প্রবেশ করে জলাবদ্ধতা তৈরি হয়েছে। বৃষ্টি থামলেই এসব পানি নেমে যাবে।

তিনি আরও বলেন, জলাবদ্ধতা দূরীকরণে সকলের সহযোগীতা প্রয়োজন। আমাদের লোকজন ড্রেনের ময়লা-আবর্জনা পরিষ্কার করে প্রতিদিন। কিন্তু বাসা-বাড়ি ময়লা-আবর্জনা নির্দিষ্ট স্থানে না ফেলে ড্রেনে ফেলে দেন অনেকেই। ফলে পানি নিষ্কাশন সঠিকভাবে হতে বাধা প্রাপ্ত হচ্ছে।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে সিলেটের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মোহাম্মদ মোবারক হোসেন বার্তা২৪.কমকে বলেন, পাহাড়ি ঢল ও ভারি বৃষ্টির কারণে সিলেটের সুরমা, কুশিয়ারা ও সারি নদীতে পানি বৃদ্ধি পেয়েছে। ফলে কানাইঘাট, গোয়াইনঘাট ও জৈন্তাপুর উপজেলায় কয়েকটি এলাকায় নতুন করে পানি প্রবেশ করেছে। তবে এখন পর্যন্ত আশ্রয় কেন্দ্রে যাওয়ার মতো পরিস্থিতি তৈরি হয়নি। আমরা সার্বক্ষণিক উপজেলা প্রশাসনের কর্মকর্তাদের সঙ্গে যোগাযোগ রাখছি।

তিনি বলেন, আশ্রয় কেন্দ্র খোলা রয়েছে। এখন পর্যন্ত যারা আশ্রয় কেন্দ্রে উঠেছেন তাদের প্রয়োজনীয় খাবারের ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য প্রত্যেক উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তাদের নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।

‘তিনদিন ধইরা মাইয়াডার জ্বর, ওষুধের টাকা পাঠাইতে পারি নাই’



রাসেল মাহমুদ ভূঁইয়া, নিউজরুম এডিটর, বার্তা২৪.কম
ভ্যান চালক বাবলু মিয়া/ছবি: বার্তা২৪.কম

ভ্যান চালক বাবলু মিয়া/ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

‘গেল তিনদিন ধইরা আমার মাইয়াডার অসুখ, তার মা কইলো অনেক জ্বর উঠছে, ওষুধ কেনার টাকা পাঠাইতাম। কিন্তু কারফু (কারফিউ) চলে দেইখা সব মার্কেট বন্ধ। গাড়ি নিয়া সেই সকালে বের হইয়া এহনো বইয়া রইছি। ২-৩দিন কোনো আয় রোজগারও নাই। আমার লগের সবারই এক অবস্থা। কারো কাছে ধারও পাই না। আইজ পরে একজনের কাছে থেকে ৫০০ টাকা নিসি, মাইয়াডার জন্য ওষুধ কিনতে পাঠামু। নিজে তিনবেলার জায়গায় দুই বেলা খাই। এভাবে কি চলা যায় কন?

আক্ষেপের সূরে কথাগুলো বলেছিলেন ভ্যান চালক বাবলু মিয়া। রাজধানীর বাংলামোটর, কাওরান বাজার, মগবাজার এলাকায় টাইলসসহ বিভিন্ন মালামাল ভাড়ায় আনা-নেওয়া করেন তিনি। কারফিউ থাকার দোকানপাট বন্ধ, তাই গাড়ি নিয়ে বের হলেও সারাদিন বসেই কাটিয়ে দিতে হচ্ছে তাকে।

শুধু বাবলু মিয়াই নন। আয় রোজগার বন্ধ হওয়ায় এমন অবস্থায় পড়েছেন অন্যান্য ভ্যান-রিকশাচালক, হকার ও অস্থায়ী চা-পান, সিগারেট, বাদাম বিক্রেতাসহ অন্যান্য দোকানীদের। ভাড়া না পাওয়া, বিক্রি না হওয়া ও দোকান খুলতে না পারায় অনেকে বাড়ি চলে গেছেন। তবে যাদের বাড়ি বেশি দূরে, তারা পড়েছেন বিপাকে। তাদের একজন রিকশাচালক নূর উদ্দিন মিয়া। থাকেন মগবাজার এলাকায়।

তিনি বার্তা২৪.কম-কে বলেন, 'গত ৪-৫ দিন ধইরা আয় কম। রিকশা নিয়ে বের হলেই মালিককে টাকা দিতে হয়, তাই গত দুইদিন বের হইনি। আজ বের হলাম। আগে হাজার বারশো টাকা আয় হলেও এখন তিন-চারশো আয় করতে কষ্ট হয়ে যায়। এর মধ্যে রিকশা ভাড়া দেওয়া লাগে। মালিককে দেওয়ার পর নিজের কাছে আর থাকে না। তিনবেলা কোনোভাবে খেয়ে না খেয়ে বেঁচে আছি। মাস শেষ হলে আবার বাড়িতে টাকা পাঠান লাগে। এভাবে চললে না খাইয়া থাকা লাগবে।'

শুধু রিকশা আর ভ্যান চালকই নন, এমন অবস্থা হকার ও ফুটপাতে অস্থায়ী দোকান নিয়ে বসা মানুষেরও।

নিউ স্কাটন রোড়ে অস্থায়ীভাবে চায়ের দোকান করেন রফিক মিয়া। তিনি বলেন, কারফিউ চলায় রাস্তায় মানুষ নাই। দোকানও গত ৩দিন বন্ধ রাখছি। আজ শুনলাম দিনে কারফিউ থাকবে না। ঘরে শুয়ে বসে থাকলে পেট চলবে না। তাই দোকান খুলে বলসি। কিন্তু তেমন বিক্রি নাই।
মগবাজার, বাংলামোটর এলাকায় বুট, বাদাম বিক্রি করেন হৃদয়। তিনি বার্তা২৪.কম-কে বলেন, 'আগে যেখানে দিনে ৮-৯শ টাকা বিক্রি হতো, এখন সেখানে ২-৩শ টাকা বিক্রি হচ্ছে। এর মধ্যে ৭০-৮০ টাকা লাভ হচ্ছে। এই টাকা দিয়ে তো একবেলা খাওনও পাওয়া যায় না। আগের কিছু জমানো টাকা ছিল, সেগুলা ভেঙে খরচ করতেছি।'

রাস্তায় হেঁটে হেঁটে পান, সিগারেট বিক্রি করছেন শাকিল। পরিবার নিয়ে কাঁঠালবাগান থাকেন তিনি।

শাকুল বার্তা২৪.কম-কে বলেন, 'আগে ৫-৬শ টাকা আয় করতাম, এখন ২-৩শ আয় হয়। তিনজন মানুষ (তিন সদস্যের পরিবার) নিয়ে এই আয় দিয়ে কীভাবে চলবো বলেন। এখন ধারকর্জা কইরা চলতেছি, পরিস্থিতি ঠিক হয়ে গেলে আবার ইনকাম করে ধার ফেরত দিমু।কিন্তু এভাবে থাকলে আমাদের মতো মানুষের না খেয়ে মরতে হবে। দেশে কোনো সমস্যা হইলে সব ভোগান্তি আইয়ে আমগো ওপরে।'

এদিকে বাংলামোটর, কারওয়ার বাজার এলাকায় ভ্যানে করে আনারস, পেয়ারা বিক্রি করছেন মামুন মিয়া। তিনি বকশি বাজার এলাকায় পরিবার নিয়ে বাস করেন। কারফিউতে তার আয় রোজগার কমে গেছে। এতে সংসার চালাত হিমশিম খেতে হচ্ছে তাকে।

তিনি বার্তা২৪.কম-কে বলেন, করফিউ চলায় নাকি ঢাকায় গাড়ি আসতে পারে না। তাই জিনিসপত্রের দাম বেশি। বেশি দামে কিনে এনেও আগের দামেই বিক্রি করছি। তাও কাস্টমার নাই। আগে আট থেকে দশ হাজার টাকা বিক্রি করতাম। এখন দুই থেকে তিন হাজারও বিক্রি করতে পারি না। পরিবার নিয়ে কীভাবে চলবো বলেন। মাস শেষ হলেও বাসা ভাড়া থেকে শুরু করে আনুষঙ্গিক খরচ ১০-১২ হাজার টাকা লাগে। এই মাসে তা মিলাইতে পারমু বলে মনে হয় না।

বাংলামোটর মোড়ে জুতা সেলাই করে জীবিকা নির্বাহ করেন আব্দুর রহমান। থাকেন সেগুনবাগিচায়। তিনি বলেন, 'রাস্তায় মানুষ না থাকায় ইনকামও নাই। পেট তো কারফিউ বুঝে না। তাই এসে দোকান খুলে বসি। তবে গত ৩-৪ দিনের তুলনায় আজ কিছু মানুষ বের হয়েছে। এভাবে চললেও তো আমরা বাঁচি। আমাদের তো দেখার কেউ নাই। আয় না হলে কেউ এসে জিজ্ঞাসাও করে না। কখনো কোনো সহযোগিতাও পাই না।'

তবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তার দলীয় নেতা-কর্মী ও সমাজের বিত্তবানদের খেটে খাওয়া মানুষের পাশে দাঁড়ানোর আহ্বান জানিয়েছেন।

উল্লেখ্য, কোটা সংস্কার আন্দোলনকে কেন্দ্র করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে গত শুক্রবার (১৯ জুলাই) রাত থেকে সারাদেশে কারফিউ জারি করা হয়েছে। এ অবস্থায় বিপাকে পড়েছেন খেটে খাওয়া নিম্ন আয়ের মানুষজন। চলমান কারফিউ কয়েক ঘণ্টার জন্য শিথিল হলেও প্রয়োজন ছাড়া বাইরে বের হচ্ছেন না কেউ। ফলে আয় রোজগারে ভাটা পড়েছে এসব নিম্ন আয়ের খেটে খাওয়া মানুষদের।

;

সিঙ্গাপুরে চিকিৎসাধীন জাহাঙ্গীরের শারীরিক অবস্থা স্থিতিশীল



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
ছবি: গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের সাবেক মেয়র সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম

ছবি: গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের সাবেক মেয়র সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম

  • Font increase
  • Font Decrease

কোটাবিরোধী আন্দোলনে রাজধানীর উত্তরায় দুর্বৃত্তদের হামলায় গুরুতর আহত হয়েছেন গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের সাবেক মেয়র ও মহানগর আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম। দুর্বৃত্তদের হামলায় তার মাথাসহ শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাত পেয়েছেন।

জানা গেছে, গাজীপুর থেকে ঢাকায় আওয়ামী লীগের সমাবেশে যোগ দেওয়ার জন্য বেশ কিছু নেতাকর্মী নিয়ে রওনা দিলে পথিমধ্যে উত্তরা হাউজ বিল্ডিং এলাকা পার হওয়ার সময় তার গাড়ি বহরে অতর্কিত হামলা চালায় দুর্বৃত্তরা। বর্তমানে তিনি সিঙ্গাপুরে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। তার শারীরিক অবস্থা স্থিতিশীল রয়েছে বলে জানা গেছে। দুর্বৃত্তদের হামলায় জুয়েল মোল্লা নামে জাহাঙ্গীর আলমের এক ব্যক্তিগত সহকারী নিহত হয়েছেন।

বৃহস্পতিবার (২৫ জুলাই) দুপুরে মহানগর আওয়ামী লীগের ৩২নং ওয়ার্ডের আহ্বায়ক কমিটির সদস্য ও জাহাঙ্গীর আলমের ঘনিষ্ঠজন মোখলেছুর রহমান এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন। 

মোখলেছুর রহমান জানান, গত শুক্রবার (১৯ জুলাই) জাহাঙ্গীর আলমের গাড়ি বহর উত্তরা হাউজ বিল্ডিং এলাকা পার হওয়ার সময় আন্দোলনকারীরা তার গাড়ি বহরের গতিরোধ করে। এ সময় জাহাঙ্গীর আলমের গাড়ি বহরে অতর্কিত হামলা চালায় দুর্বৃত্তরা। এ সময় ইট-পাটকেল ছুঁড়তে থাকে দুর্বৃত্তরা। ইটের আঘাতে জাহাঙ্গীর আলমের মাথা ফেটে যায়। তার সঙ্গে থাকা নেতাকর্মীরাও আহত হন। তার সঙ্গে থাকা নেতাকর্মীরা প্রতিরোধ তৈরি করলে জাহাঙ্গীর আলমের ব্যক্তিগত সহকারী জুয়েল মোল্লাকে পিটিয়ে হত্যা করা হয়।

পরে জাহাঙ্গীর আলম পাশের একটি বাড়িতে আশ্রয় নেন। কিছু সময় পর আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা তাকে ওই বাড়ি থেকে উদ্ধার করে পাশের একটি হাসপাতালে পাঠান। এ সময় তার মাথায় ১৭টি সেলাই দেওয়া হয়েছে। পরে জাহাঙ্গীর আলমকে চিকিৎসার জন্য রাজধানীর একটি হাসপাতালে নেওয়া হয়। এর একদিন পর তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য এয়ার অ্যাম্বুলেন্স যোগে সিঙ্গাপুরের মাউন্ট এলিজাবেথ হাসপাতালে নেওয়া হয়েছে। বর্তমানে সেখানেই তার চিকিৎসা চলছে। জাহাঙ্গীর আলমের শারীরিক অবস্থা স্থিতিশীল অবস্থায় রয়েছে বলে জানান এই আওয়ামী লীগ নেতা।

;

মুক্তিযোদ্ধার জাল সনদে চাকরি

হাউজ বিল্ডিং ফাইন্যান্সের ডিজিএমের বিরুদ্ধে দুদকের মামলা



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
ছবি: বাংলাদেশ হাউজ বিল্ডিং ফাইন্যান্স কর্পোরেশন

ছবি: বাংলাদেশ হাউজ বিল্ডিং ফাইন্যান্স কর্পোরেশন

  • Font increase
  • Font Decrease

বাংলাদেশ হাউজ বিল্ডিং ফাইন্যান্স কর্পোরেশনের উপমহাব্যবস্থাপক (ডিজিএম) এম এম জামিল আহম্মদের বিরুদ্ধে মুক্তিযোদ্ধার জাল সনদ দেখিয়ে কোটায় চাকরি নেওয়ার অভিযোগে মামলা দায়ের করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

বৃহস্পতিবার (১৪ জুলাই) দুদকের খুলনা সমন্বিত জেলা কার্যালয়ের উপ-সহকারী পরিচালক মো. আশিকুর রহমান বাদী হয়ে মামলাটি দায়ের করেন।

মামলা সূত্রে জানা যায়, আসামি এম এম জামিল আহম্মদ প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধা নন। তা সত্ত্বেও প্রতারণার মাধ্যমে মুক্তিযোদ্ধা সংসদ থেকে মুক্তিযোদ্ধা সনদ সংগ্রহ করেন। পরে মুক্তিযোদ্ধা কোটায় বাংলাদেশ হাউজ বিল্ডিং কর্পোরেশনে ২০০০ সালের এপ্রিল থেকে চাকরি নিয়ে ২০২৩ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত কর্মরত ছিলেন।

ওই সময়ে বেতন ভাতা বাবদ মোট এক কোটি ৩১ লাখ ৭৬ হাজার ৭৩৪ টাকা উত্তোলন করে আত্মসাৎ করেছেন। যা দণ্ডবিধির ৪২০/৪০৯ ধারা এবং দুর্নীতি প্রতিরোধ আইন ১৯৪৭ এর ৫(২) এর ধারায় শাস্তিযোগ্য অপরাধ বলে এজাহারে উল্লেখ করা হয়েছে। জামিল আহম্মদ বর্তমানে বরিশালে কর্মরত রয়েছেন।

;

‘পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হওয়া পর্যন্ত ট্রেন চলাচল বন্ধ থাকবে’



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
রেলমন্ত্রী মো. জিল্লুল হাকিম

রেলমন্ত্রী মো. জিল্লুল হাকিম

  • Font increase
  • Font Decrease

দেশের পরিস্থিতি পুরোপুরি স্বাভাবিক না হওয়া পর্যন্ত সারাদেশে ট্রেন চলাচল বন্ধ থাকবে বলে জানিয়েছেন রেলমন্ত্রী মো. জিল্লুল হাকিম।

বৃহস্পতিবার (২৫ জুলাই) দুপুরে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে রেলমন্ত্রী এ কথা বলেন।

কোটা সংস্কার আন্দোলনকে ঘিরে সহিংসতায় এক সপ্তাহ ধরে বন্ধ রয়েছে যাত্রীবাহী ট্রেন চলাচল। এতে রেলের ২২ কোটি ৩ লাখ ৮ হাজার টাকা ক্ষতি হয়েছে বলে জানান রেলমন্ত্রী।

রেলমন্ত্রী বলেন, ট্রেন চলাচল বন্ধ থাকার ফলে বিক্রি করা টিকিটের টাকা ফেরত দেওয়া হবে। যার পরিমাণ ১৬ কোটি ৩৫ লাখের বেশি।

গত মঙ্গলবার (২৩ জুলাই) ভিয়েতনাম ও জাপান সফর শেষে দেশে ফিরেছেন রেলমন্ত্রী মো. জিল্লুল হাকিম।

রেল খাতে বিদেশি বিনিয়োগ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, কোটা সংস্কার আন্দোলনের ফলে সহিংসতা রেল যোগাযোগে বিদেশি বিনিয়োগের ক্ষেত্রে প্রভাব পড়তে পারে।

এর আগে, রেলওয়ের মহাপরিচালক (ডিজি) সরদার সাহাদাত আলী বলেন, রেল সংশ্লিষ্ট সবার সঙ্গে আলোচনা করে নিরাপত্তার বিষয় মাথায় রেখে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে কবে থেকে ট্রেন চলবে।

তিনি বলেন, ট্রেন চলাচলের বিষয়ে এখনো সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়নি। ট্রেন চালানো কোনো বিষয় না, বিষয় হচ্ছে নিরাপত্তা। সার্বিক পরিস্থিতি বিশ্লেষণ করে মন্ত্রী, সচিব এবং সংশ্লিষ্ট সবার সঙ্গে আলোচনা করে কবে থেকে ট্রেন চলবে সেই সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

এদিকে ঢাকার কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশনের স্টেশন মাস্টার আনোয়ার হোসেন জানান, স্বল্প দূরত্বে কিছু ট্রেন আজ বৃহস্পতিবার থেকে চলাচলের কথা থাকলেও সেই সিদ্ধান্ত থেকে পিছিয়ে এসেছে বাংলাদেশ রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ। পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত আন্তঃনগরসহ সব ধরনের ট্রেন চলাচল বন্ধ থাকবে।

;