রিমালের তাণ্ডবে তছনছ উপকূল

  ঘূর্ণিঝড় রিমাল


স্টাফ করেসপন্ডেন্ট বার্তা২৪.কম ঢাকা
ছবি : সংগৃহীত

ছবি : সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

পূর্ণ শক্তি নিয়ে উপকূলীয় অঞ্চলে তাণ্ডব চালিয়েছে ঘূর্ণিঝড় রিমাল। প্রবল ঘূর্ণিঝড়টির প্রভাবে বৃষ্টির সঙ্গে ঝড়ে ঘর-বাড়ি, দোকান-পাট তছনচ হয়েছে, ভেঙে পড়েছে গাছ-পালা। প্রাণহানি হয়েছে বেশ কয়েকজনের।

মোংলা, সাতক্ষীরার শ্যামনগর, পটুয়াখালীর কলাপাড়া, কুয়াকাটা ও খেপুপাড়ায় ব্যাপক তাণ্ডব চালিয়েছে রিমাল। শ্যামনগরের গাবুরা ইউনিয়নে রাতভর বৃষ্টির সঙ্গে ঝোড়ো হাওয়ায় ভেঙে গেছে ঘর-বাড়ি, গাছ-পালা। জেলার অন্য এলাকাতেও ঝোড়ো হাওয়া বইছে। বাঁধ ভেঙে লোকালয়ে পানি ঢুকে গেছে।

রিমালের তাণ্ডবে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি কলাপাড়া, খেপুপাড়া ও কুয়াকাটায়। এই প্রবল ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে বিষখালি-সন্ধ্যা, পায়রা, আন্ধারমানিক, গলাচিপা ও তেতুলিয়া নদীর উপচে পড়া পানিতে বরগুনা ও পটুয়াখালীর নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে।

বরগুনায় তলিয়ে গেছে ২৭ গ্রাম, ভেঙে গেছে বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধ। আমতলী ও তালতলী উপজেলার ২৫৮টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রেখেছে উপজেলা নির্বাহী অফিস।

বলেশ্বর নদীর পানিতে পিরোজপুরের মঠবাড়িয়ার কয়েকটি এলাকা প্লাবিত হয়েছে।

বাগেরহাটের বলেশ্বর,পানগুছি-খাসিয়াখালি এবং দড়াটানা নদীর পানি বিপদ সীমার উপরে। এতে শরণখোলা ও মোড়লগঞ্জের বেশ কিছু এলাকা প্লাবিত। প্লাবিত হয়েছে গোটা সুন্দরবন।

করমজলসহ বনের উঁচু এলাকাগুলোও জোয়ারের পানিতে তলিয়ে গেছে। সদর হাসপাতালের কোন একসাইড ভেঙে ভিতরে পানি ঢুকেছে। বাগেরহাটে পাঁচ লাখেরও বেশি মানুষ বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন অবস্থায় রয়েছে।

মোংলার শ্যালা নদী ও পশুর নদীর পানি বিপদসীমার অনেক উপরে। রাস্তা ভেদ করে জয়মুনি এলাকায় পানি ঢুকে পড়েছে।

চট্টগ্রামে রিমালের প্রভাবে বৃষ্টিপাত হচ্ছে। পাহাড় ধসের আশঙ্কা করা হচ্ছে। কক্সবাজারে বঙ্গোপসাগরে জোয়ারে প্লাবিত হয়েছে ২১ টি গ্রাম।

নোয়াখালীর হাতিয়ার বেশ কিছু এলাকায় প্লাবিত হয়েছে। এতে পানিবন্দি হয়ে পড়েছে হাজারো মানুষ।

খুলনার দুর্যোগপ্রবণ উপকূলীয় উপজেলা দাকোপ, কয়রা, পাইকগাছা ও বটিয়াঘাটায় ব্যাপক তাণ্ডব চালিয়েছে ঘূর্ণিঝড় রিমাল।

এই ঘূর্ণিজড়ের প্রভাবে খুলনা, সাতক্ষীরা, বাগেরহাট, পিরোজপুর, ঝালকাঠি, বরগুনা, বরিশাল, ভোলা, পটুয়াখালী, চট্টগ্রাম, কক্সবাজারসহ দেশের অনেক জেলায় গুড়ি গুড়ি থেকে মুষলধারে বৃষ্টি হচ্ছে।

টানা ছয় ঘণ্টারও বেশি সময় ধরে তাণ্ডব চালাবে ঘূর্ণিঝড়টি। এরপর দুর্বল হয়ে স্থলভাগে উঠবে। সকাল নাগাদ এটি দুর্বল হয়ে যাবে বলে জানিয়েছেন আবহাওয়া অধিদফতরের আবহাওয়াবিদ আবুল কালাম মল্লিক।

রবিবার (২৬ মে) দিবাগত রাত ২টার পর ঘূর্ণিঝড় রেমালের সবশেষ পরিস্থিতি নিয়ে ব্রিফিংয়ে তিনি এ তথ্য জানান।

আবুল কালাম রিমালের প্রভাবে সোমবার (২৭ মে) ও মঙ্গলবারও (২৮ মে) সারাদেশেই থেমে থেমে বৃষ্টি হবে। সঙ্গে দমকা হাওয়া বয়ে যেতে পারে।’

   

জমির আইল কাটা নিয়ে দু’ভাইয়ের দ্বন্দ্ব, প্রাণ গেল ভাতিজার



ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ময়মনসিংহ
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

ময়মনসিংহের নান্দাইলে জমির আইল কাটা নিয়ে চাচাতো ভাইয়ের ছুরির আঘাতে প্রাণ গেল লাল মিয়া (২৫) নামে এক যুবকের। এই ঘটনায় আহত হয়েছেন চাচা।

বুধবার (১৯ জুন) সকালে উপজেলার খারুয়া ইউনিয়নের মাটিকাটা গ্রামে এই ঘটনা ঘটে। নিহত লাল মিয়া ওই এলাকার সিরাজ উদ্দিনের ছেলে।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্র জানায়, ঘটনার দিন সকালে সিরাজ উদ্দিন তার ছেলে লাল মিয়াকে নিয়ে বাড়ির পাশেই নিজ জমিতে আমন ধানের বীজতলা তৈরি করার কাজ করছিল। এসময় সিরাজ উদ্দিনের ভাই গিয়াস উদ্দিন ও তার ছেলে হাফেজ মিজান আইল বেশি করে কাটার অভিযোগ করেন এবং আইল কাটতে বাধা দেন। এই নিয়ে দুই ভাইয়ের মাঝে কথা কাটাকাটি হয়। কথা কাটাকাটির একপর্যায়ে গিয়াস উদ্দিনের ছেলে হাফেজ মিজান ধারালো ছুরি দিয়ে তার চাচাতো ভাই লাল মিয়া ও চাচা সিরাজ উদ্দিনকে ধারালো ছুরি দিয়ে আঘাত করেন। এতে লাল মিয়া ও তার পিতা সিরাজ উদ্দিন গুরুতর আহত হয়।

পরে স্থানীয়রা টের পেয়ে লাল মিয়া ও পিতা সিরাজ উদ্দিনকে গফরগাঁও উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে দায়িত্বরত চিকিৎসক লাল মিয়াকে মৃত ঘোষণা করে। তার পিতা সিরাজ উদ্দিনের অবস্থা গুরুতর হওয়ায় চিকিৎসক তাকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করেন।

নান্দাইল মডেল থানার ইনচার্জ (ওসি) আ. মজিদ বলেন, এ ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য এক নারীকে আটক করা হয়েছে। নিহতের মরদেহটি ময়নাতদন্তের জন্য ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে। এই ঘটনায় আইনগত ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন আছে বলেও জানান তিনি।

  ঘূর্ণিঝড় রিমাল

;

ঈদের ছুটি শেষে রাজধানী ফিরছেন কর্মজীবীরা



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

ঈদের ছুটি শেষে রাজধানীতে ফিরতে শুরু করেছেন কর্মজীবীরা। বুধবার (১৯ জুন) থেকে খুলেছে অফিস।

তবে রাজধানীর কোথাও আজ দেখা যায়নি যানজট। সড়কে গণপরিবহন ছিল খুবই কম।

অনেকে ছুটির সঙ্গে বাড়তি ছুটি নিলেও বেশিরভাগ মানুষই ঈদের তৃতীয় দিনেই রাজধানীতে ফিরছেন। এছাড়া কর্মস্থলে যোগ দিতে ও ভিড় এড়াতে অনেকে আগেভাগেই চলে আসছেন। তবে কোলাহলপূর্ণ ব্যস্ত নগরী এখনও চিরচেনা রূপে ফেরেনি। নেই কোনো যানযট।

রাজধানীর বিভিন্ন এলাকার বাস টার্মিনাল গুলোতে দেখা যায়, ঢাকামুখী ও ঢাকা ছেড়ে যাওয়া মানুষের ভিড়। অনেকে ঈদের পরে যাচ্ছেন ছুটি কাটাতে।

এদিকে বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে বাড়তে থাকে ঢাকায় ফেরা মানুষের ভিড়। তবে রাজধানীতে ফেরার ভিড় এখনও শুরু হয়নি বলে জানিয়েছে পরিবহন সংশ্লিষ্টরা। বৃহস্পতিবার (২০ জুন) থেকে ঢাকামুখী যাত্রীদের চাপ বাড়তে পারে বলে জানান পরিবহন সংশ্লিষ্টরা।


এদিকে ঈদযাত্রা শেষে ফিরতি পথে ভোগান্তি তুলনামূলক কম ছিল বলে জানান যাত্রীরা। পাঁচ দিনের ছুটি শেষে পরিবারসহ সাতক্ষীরা থেকে রাজারবাগ বাস টার্মিনালে এসে নেমেছেন চক্ষু বিশেষজ্ঞ ডা. জিয়াউল হক।

তিনি বার্তা২৪.কমকে জানান, ‘রাস্তায় কোনো ভোগান্তি ছিল না নির্বিঘ্নে চলে এসেছি। পদ্মাসেতু হয়ে মাত্র ৫ ঘণ্টায় ঢাকা পৌঁছেছি।’

গ্রীনলাইন পরিবহনের জসিম বলেন, ঈদে ঢাকা ফেরত যাত্রীদের চাপ এখনও শুরু হয়নি। তবে, আগামী বৃহস্পতিবার থেকে ঢাকামুখী যাত্রীদের চাপ বাড়তে পারে।

অন্যদিকে মানুষ ফিরতে শুরু করলেও চিরচেনা রূপে এখনও ফেরেনি ঢাকা। গত কয়েকদিনের মতো নগরীর প্রধান সড়কগুলো আজ অনেকটাই যানজটমুক্ত। সড়কে ব্যক্তিগত গাড়িসহ গণপরিবহনের সংখ্যাও কম দেখা গেছে। কিছু স্টেশনগুলোতে যাত্রীদের ভিড় থাকলেও ঢাকা এখন অনেকটাই ফাঁকা।

  ঘূর্ণিঝড় রিমাল

;

তিস্তার পানি বিপৎসীমার ওপরে, নিম্নাঞ্চল প্লাবিত



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, রংপুর
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

ভারী বর্ষণ ও উজান থেকে নেমে আসা ঢলে তিস্তা নদীর পানি বৃদ্ধি অব্যাহত রয়েছে। এরই মধ্যে রংপুরের কাউনিয়া পয়েন্টে তিস্তা নদীর পানি বিপৎসীমা অতিক্রম করছে। এতে কাউনিয়া, গঙ্গাচড়া ও পীরগাছা উপজেলার নদী তীরবর্তী নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়ে পড়েছে। বেশ কিছু এলাকায় দেখা দিয়েছে ভাঙন।

এদিকে আগামী ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে রংপুরের নিম্নাঞ্চলে স্বল্পমেয়াদি বন্যা পরিস্থিতির সৃষ্টি হতে পারে বলে জানিয়েছে পানি উন্নয়ন বোর্ডের (পাউবো) বন্যার পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্র।

পাউবোর নিয়ন্ত্রণকক্ষ জানায়, মঙ্গলবার রাত থেকে বুধবার সকাল ৯টা পর্যন্ত গত ২৪ ঘণ্টায় রংপুর অঞ্চলে ২২১ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে। বুধবার সকাল নয়টায় তিস্তার কাউনিয়া পয়েন্টে শূন্য দশমিক ২০ সেন্টিমিটার পানি প্রবাহ বিপৎসীমার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হয়। এর আগে ভোর ছয়টায় ওই পয়েন্টে পানি প্রবাহ বিপৎসীমার ১৫ সেন্টিমিটার ওপরে ছিল। কাউনিয়া পয়েন্টে বিপৎসীমা ২৮ দশমিক ৭৫ সেন্টিমিটার ধরা হয়।


অপরদিকে দেশের বৃহত্তম সেচ প্রকল্প তিস্তা ব্যারেজের ডালিয়া পয়েন্টে বুধবার সকাল নয়টায় পানি প্রবাহ রেকর্ড করা হয় ৫১ দশমিক ৯২ সেন্টিমিটার, যা বিপৎসীমার শূন্য দশমিক ২৩ সেন্টিমিটার নিচ দিয়ে প্রবাহিত হয়। সকাল ৬টায় যা রেকর্ড করা হয় ৫১ দশমিক ৯৫ সেন্টিমিটার। এ পয়েন্টে ৫২ দশমিক ১৫ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে পানি প্রবাহিত হলে বিপৎসীমা অতিক্রম করে।

রংপুর পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী রবিউল ইসলাম বলেন, উজানের ঢল আর গত কয়েকদিন ধরে বৃষ্টিপাতের কারণে ডালিয়া ও কাউনিয়া পয়েন্টে তিস্তায় পানি বাড়তে শুরু করেছে। পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে ডালিয়া ব্যারেজের সবকটি গেই খুলে রাখা হয়েছে। কাউনিয়া পয়েন্টে কিছুটা বাড়ছে পানি প্রবাহ। এছাড়া ভাটির অঞ্চলে সার্বক্ষণিক নদীপাড়ের পরিস্থিতির খোঁজখবর রাখা হচ্ছে।

  ঘূর্ণিঝড় রিমাল

;

নোয়াখালীতে অস্ত্র ঠেকিয়ে কিশোরীকে অপহরণের অভিযোগ



ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, নোয়াখালী
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

নোয়াখালীর সদর উপজেলায় অস্ত্র ঠেকিয়ে ১৭ বছর বয়েসি এক কিশোরীকে অপহরণের অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় কিশোরীর মা বাদী হয়ে থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন।

মঙ্গলবার (১৮ জুন) সন্ধ্যা ৭টার দিকে উপজেলার দাদপুর ইউনিয়নের বাহারিপুর গ্রামে এই অপহরণের ঘটনা ঘটে বলে অভিযোগে জানা যায়।

লিখিত অভিযোগ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, ভিকটিম চলতি বছর স্থানীয় খলিফারহাট উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এসএসসি পাস করেন।

সেজান নামে এক কিশোর তাকে স্কুলে যাওয়া-আসার পথে উত্ত্যক্ত করতো। এসব কর্মকাণ্ডে সহযোগিতা করতো একই এলাকার শুভ, মিরাজসহ বেশ কয়েকজন কিশোর। কিশোরীটি প্রেম প্রত্যাখ্যান করায় সেজান তাকে অপহরণের হুমকি দেয়। মঙ্গলবার সন্ধ্যা ৭টার দিকে কিশোরীর বাবা মসজিদে নামাজ পড়তে যান। এই সুযোগে সেজানসহ কয়েকজন কিশোর অস্ত্র নিয়ে তাদের বসত করে ঢোকে।

এ সময় তারা কিশোরীর পরিবারের দুই সদস্যকে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে তাকে টেনে-হিঁচড়ে বসত ঘর থেকে বের করে নিয়ে যায়। এর পর তারা মোটরসাইকেলে করে কিশোরীকে অপহরণ করে নিয়ে চলে যায়। অপহরণকারীরা নগদ টাকা, মোবালই ফোন ও স্বর্ণালংকার চুরি করে নিয়ে যায় বলে অভিযোগ করেছেন কিশোরীটির পরিবারের সদস্যরা।

এ বিষয়ে সুধারাম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মীর জাহেদুল হক রনি বলেন, খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। এ ঘটনায় মামলা দায়েরের বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন।

তবে ‘অস্ত্র ঠেকিয়ে অপহরণ’-এর বিষয়টি সত্যি নয় বলে জানান তিনি।

  ঘূর্ণিঝড় রিমাল

;