বেনাপোলে পলাতক ১৭ আসামি গ্রেফতার



সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, বেনাপোল (যশোর)
বেনাপোলে পলাতক ১৭ আসামি গ্রেফতার

বেনাপোলে পলাতক ১৭ আসামি গ্রেফতার

  • Font increase
  • Font Decrease

যশোরের বেনাপোল পোর্টথানার বিভিন্ন এলাকা থেকে বিভিন্ন মামলার পলাতক আসামিসহ ১৭ জনকে আটক করেছে বেনাপোল পোর্টথানা পুলিশ সদস্যরা।

রোববার (২৬ মে) সকাল থেকে বিকাল পর্যন্ত অভিযানে তাদের গ্রেফতার করা হয়। এদের মধ্যে দুই আসামির কাছ থেকে ১০০ গ্রাম গাঁজাসহ ও ২৪ পুরিয়া হেরোইন পাওয়া যায়।

গ্রেফতারকৃত আসামিরা হলেন, বেনাপোল পোর্টথানার ধান্যখোলা গ্রামের নুর মোহাম্মদের ছেলে আব্দুল সালাম (৪৭), খলিলুর রহমানের ছেলে কালু মিয়া (৩৫), আলম হোসেনের ছেলে রাজু আহম্মেদ (৩২), সুরুজ মিয়া (৫০), মৃত নুরোর ছেলে মনির, নুরইসলামের ছেলে মোহাম্মদ সালাম (৪৭), আলাউদ্দিনের ছেলে মোহাম্মদ দেলোয়ার হোসনে দেলো (৩৫), জাহাঙ্গীর মোড়লের ছেলে মোহাম্মদ ইকবাল হোসেন (২১), মৃত পুটে মালিখার ছেলে মোহাম্মদ গোলাম রহমান খোকন (৪৫), মৃত রফি মোড়লের ছেলে মোহাম্মদ সুবাহান (৪০), মৃত জিলহাসের ছেলে আলমগীর হোসেন (২৮), মৃত আনোয়ার হোসেনর ছেলে রেজওয়ান হোসেন (২১), শুকুর আলীর ছেলে মহিউদ্দিন হোসেন ময়না (২০), জামাল হোসেনের ছেলে রকি, মৃত মোতালেবর ছেলে তাইজুল ইসলাম (২৫), আনারুল ইসলামের ছেলে সাগর হোসেন (২৪) ও নুর ইসলামের ছেলে সালাম (৪৬)।

বেনাপোল পোর্টথানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সুমন ভক্ত জানান, তাদের কাছে গোপন খবর আসে বিভিন্ন মামলার পলাতক আসামিরা গোপনে এলাকায় ফিরে অবস্থান করছে। পরে পুলিশ অভিযান চালিয়ে তাদের মধ্যে ১৭ জনকে গ্রেফতার করে। গ্রেফতারকৃত আসামিদের পুলিশ প্রহরায় বিজ্ঞ আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে।

   

চবি রাজনীতি বিজ্ঞান সেমিনার কক্ষে উন্মুক্ত গ্রন্থাগার উদ্বোধন



নিউজ ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
চবি রাজনীতি বিজ্ঞান সেমিনার কক্ষে উন্মুক্ত গ্রন্থাগার উদ্বোধন

চবি রাজনীতি বিজ্ঞান সেমিনার কক্ষে উন্মুক্ত গ্রন্থাগার উদ্বোধন

  • Font increase
  • Font Decrease

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের (চবি) ঐতিহ্যবাহী রাজনীতি বিজ্ঞান বিভাগের সেমিনার কক্ষে উন্মুক্ত গ্রন্থাগার উদ্বোধন করা হয়েছে। বুধবার (১২ জুন) সকালে রাজনীতি বিজ্ঞান বিভাগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি অধ্যাপক ড. মাহফুজ পারভেজের সভাপতিত্বে উন্মুক্ত গ্রন্থাগার উদ্বোধন করেন বরিষ্ঠ অধ্যাপক ড. ভূঁইয়া মো. মনোয়ার কবির। এতে উন্মুক্ত গ্রন্থাগারের কনসেপ্ট ও উপযোগিতা সম্পর্কে বক্তব্য দেন অধ্যাপক ড. আনোয়ারা বেগম।

অধ্যাপক ড. ভূঁইয়া মো. মনোয়ার কবির বলেন, বর্তমানে গ্রন্থাগার ব্যবস্থাগুলো শিক্ষার্থীদের জ্ঞান বিকাশের জন্য সহায়ক নয়। অধিকাংশ ক্ষেত্রে তালাবদ্ধ গ্রন্থাগারগুলো জ্ঞান অর্জনের আগ্রহকে কমিয়ে দেয়। তিনি বলেন, আমাদের গ্রন্থাগারগুলো ঐতিহ্যবাহী ও সমৃদ্ধ। কিন্তু এগুলো তালাবদ্ধ। এ ছাড়াও অনেক গ্রন্থাগারে নানা নিয়মকানুন থাকায় জ্ঞান অর্জনে বাধা সৃষ্টি করছে। এক্ষেত্রে উন্মুক্ত গ্রন্থাগার উদ্যোগ অগ্রগামী চিন্তার দৃষ্টান্ত, যা শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের উপকারে আসবে।

অধ্যাপক ড. আনোয়ারা বেগম বলেন, বই পড়াকে সহজ করতে আমরা এই উদ্যােগ নিয়েছি, যা প্ল্যাটফর্ম হিসেবে কাজ করবে। শিক্ষার্থীরা যখনই সময় পাবে, বই পড়বে, বই পড়ার আনন্দ উপভোগ করবে। তবে এই উন্মুক্ত গ্রন্থাগার ব্যবহারে শিক্ষার্থীদের বইয়ের প্রতি যত্নশীল হতে হবে।

রাজনীতি বিজ্ঞান বিভাগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি অধ্যাপক ড. মাহফুজ পারভেজ বলেন, প্রতিটি সভ্যতাতে গ্রন্থাগার ছিল অপরিহার্য প্রতিষ্ঠান। আমি যতদূর জানি এই বিশ্ববিদ্যালয়ে এটিই প্রথম উন্মুক্ত গ্রন্থাগার। এই লাইব্রেরির সাথে নিবিড়ভাবে সংযুক্ত থাকার ফলে শিক্ষার্থীরা ইতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গি ও প্রণোদনা পাবে বলে আশা করা যায়।

;

ধামরাইয়ে অটোচালক হত্যা, গ্রেফতার ৪ ছিনতাইকারী



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা ২৪.কম, সাভার (ঢাকা)
ধামরাইয়ে অটোচালক হত্যা, গ্রেফতার ৪ ছিনতাইকারী

ধামরাইয়ে অটোচালক হত্যা, গ্রেফতার ৪ ছিনতাইকারী

  • Font increase
  • Font Decrease

ঢাকা জেলার ধামরাইয়ে কালাম বিশ্বাস (২৬) নামে এক অটোরিকশা চালক হত্যার ঘটনায় চার ছিনতাইকারীকে গ্রেফতার করেছে র‍্যাব-৪।

বৃহস্পতিবার (১৩ জুন) দুপুরের দিকে সাভারের নবীনগর এলাকায় র‌্যাব-৪ এর সিপিসি-২ নবীনগর ক্যাম্পে সংবাদ সম্মেলন করে এ তথ্য জানানো হয়।

গ্রেফতাররা হলেন- ঢাকার শান্ত মনি দাস ওরফে বিচ্ছু শান্ত (১৯), বিজয় মনি দাস (২০), শ্রীকান্ত কর্মকার (২০) ও বিশ্বনাথ মনি দাস বিশু (২০)।

নিহত কালাম বিশ্বাস টাঙ্গাইলের নাগরপুর উপজেলার ধুপুরিয়া এলাকার বাসিন্দা। স্ত্রীসহ ঢাকার সাভারের উত্তরপাড়া খালেক মার্কেটের পাশে একটি ভাড়া বাসায় থাকতেন তিনি।

র‍্যাব জানায়, গত ৯ জুন ধামরাইয়ের কুল্লা ইউনিয়নের পশ্চিম বাড়িগাঁও এলাকায় অজ্ঞাত এক ব্যক্তির মরদেহ উদ্ধার করা হয়। পরবর্তীতে মরদেহটি অটোচালক কালাম বিশ্বাসের বলে শনাক্ত করা হয়। জানা যায়, তিনি গত ১০-১২ বছর ধরে পরিবারসহ সাভারে বসবাস করছিলেন। ওই ঘটনায় নিহতের স্ত্রী ধামরাই থানায় অজ্ঞাতদের বিরুদ্ধে হত্যা মামলা করেন। মামলার তদন্তে নেমে ধামরাই ও মানিকগঞ্জ থেকে হত্যাকাণ্ডের মূলহোতা ও অটোরিকশা ছিনতাই চক্রের মূলহোতাসহ চারজনকে গ্রেফতার করা হয়।

গ্রেফতারদের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদের বরাত দিয়ে র‍্যাব জানায়, গত ৮ জুন দুপুরের দিকে গ্রেফতার শান্ত বাইক কেনার জন্য বাসা থেকে বের হয়ে বিশু ও বিজয়ের সঙ্গে দেখা করে। অল্প টাকায় বাইক কেনা যাবে না বিধায় তারা অটোরিকশা ছিনতাই করে বিক্রি করবে বলে পরিকল্পনা করে। এক পর্যায়ে তারা পূর্ব পরিচিত অটোরিকশা চালক কালামকে লক্ষ্যবস্তু করে। তাকে মাদক সেবন করিয়ে সুইচ গিয়ারের ভয় দেখিয়ে ছিনতাই করবে বলে পরিকল্পনা করে। এ অনুযায়ী তারা কালামের অটোরিকশা রিজার্ভ ভাড়া করে পার্কে ঘুরতে যাবে বলে জানায়। সেদিন রাতের দিকে বাড়িগাঁও পশ্চিমপাড়া নির্জন জায়গায় এলে পূর্বপরিকল্পনানুযায়ী তারা ভুক্তভোগীকে অচেতন করে ও শান্তর কাছে থাকা সুইচ গিয়ার দিয়ে গলায় ও বুকে ছুরিকাঘাত করে তার মৃত্যু নিশ্চিত করে।

এছাড়া মরদেহ আড়াল করতে সেটি খড় দিয়ে বিজয় আর বিশু অটোরিকশা নিয়ে ঘটনাস্থল থেকে পালিয়ে যায়। তাদের অপর সহযোগী শ্রীকান্তের সহায়তায় সেটি গোপন করে। আলামত উদ্ধারে র‍্যাবের অভিযান চলছে বলে জানানো হয়।

র‍্যাব-৪ সিপিসি ২ এর কোম্পানী কমান্ডার লে. কমান্ডার রাকিব মাহমুদ খান বলেন, গ্রেফতাররা সাভার বাজার ও ধামরাই এলাকার চুরি, ছিনতাই এবং মাদক সেবন করে থাকে।

গ্রেফতারদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে বলেও জানান র‍্যাবের এই কর্মকর্তা।

;

ভূমি অফিসে দুর্নীতিতে জিরো টলারেন্স ঘোষণা: ভূমিমন্ত্রী



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

ভূমি অফিসসমূহের অব্যবস্থাপনা ও অনিয়ম দূরীকরণের জন্য বিনা হয়রানি ও দুর্নীতিতে জিরো টলারেন্স ঘোষণা দিয়েছেন ভূমিমন্ত্রী নারায়ণ চন্দ্র চন্দ।

বৃহস্পতিবার (১৩ জুন) জাতীয় সংসদের বাজেট অধিবেশনে সংসদ সদস্য হাবিবুর রহমানের লিখিত প্রশ্নের উত্তরে তিনি এ কথা বলেন। অধিবেশনে সভাপতিত্ব করেন স্পিকার শিরীন শারমিন। 

তিনি বলেন, ভূমি অফিসসমূহের অব্যবস্থাপনা ও অনিয়ম দূরীকরণের জন্য বিনা হয়রানি ও দুর্নীতিতে জিরো টলারেন্স ঘোষণা দিয়ে ভূমি মন্ত্রণালয় ডিজিটালাইজেশন কার্যক্রমের মাধ্যমে ভূমিসেবা প্রদান করে যাচ্ছে। ইতোমধ্যে ভূমি সংক্রান্ত সেবাসমূহ ১৮০ দিনের মধ্যে নিষ্পত্তির লক্ষ্যমাত্রা নিয়ে ৮ বিভাগের ১৬টি জেলার ৩২টি উপজেলায় ও ৬৪ ইউনিয়ন ভূমি অফিস কাজ করছে।

মন্ত্রী বলেন, বর্তমানে ই-নামজারি, ভূমি উন্নয়ন কর, ই-পর্চা, কেস ম্যানেজমেন্ট সিন্টেম, অনলাইনে জলমহাল ইজারা, ডাকযোগে খতিয়ান, পর্চা ও ম্যাপ দ্রুত সময়ে প্রদান করা হচ্ছে। তাই নাগরিক ঘরে বসে ১৬১২২ নম্বরে কল করে ৭ দিন ২৪ ঘণ্টা অনলাইনে কাঙ্খিত ভূমিসেবা পাচ্ছে। উপজেলা পর্যায়ে দুর্নীতি দমন কমিটি গঠন করা হয়েছে এবং প্রতিটি উপজেলায় জনসচেতনতার লক্ষ্যে সিটিজেন চার্টার স্থাপন করা হয়েছে। কোনো কর্মকর্তা-কর্মচারীর বিরুদ্ধে কোনো অনিয়মের অভিযোগ পাওয়া গেলে তাৎক্ষণিকভাবে তদন্ত করে বিভাগীয় মামলার মাধ্যমে ব্যবস্থা নেওয়া হয়।

নারায়ণ চন্দ্র চন্দ বলেন, জেলা ও বিভাগীয় পর্যায়ের এবং বিভিন্ন সময়ে ভূমি মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তাবৃন্দ উপজেলা ভূমি অফিস-রাজস্ব সার্কেল অফিস ও ইউনিয়ন ভূমি অফিস পরিদর্শন করেন এবং অনিয়ম পাওয়া গেলে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়। অনিয়মের বিরুদ্ধে জনসচেতনতা সৃষ্টির পরামর্শ দেয়া হয়।

উপজেলা পর্যায়ে সহকারী কমিশনার (ভূমি) নিয়মিত নিবিড়ভাবে ইউনিয়ন ভূমি অফিস পরিদর্শন করেন এবং অনিয়ম পাওয়া গেলে ব্যবস্থা গ্রহণ করেন। জেলা প্রশাসক সপ্তাহে একদিন গণশুনানিকালে ভূমি অফিসসমূহের অব্যবস্থাপনা ও অনিয়ম জানতে পারলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করেন।

;

মেধাবী মেয়ে শিক্ষার্থীরা ক্যাডেট কলেজে পড়ার সুযোগ থেকে বঞ্চিত



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
মেধাবী মেয়ে শিক্ষার্থীরা ক্যাডেট কলেজে পড়ার সুযোগ থেকে বঞ্চিত

মেধাবী মেয়ে শিক্ষার্থীরা ক্যাডেট কলেজে পড়ার সুযোগ থেকে বঞ্চিত

  • Font increase
  • Font Decrease

দেশের মোট জনসংখ্যার ছেলে ও মেয়ের অনুপাত প্রায় সমান হলেও ক্যাডেট কলেজে মেয়েদের পড়ার সুযোগ কম। সেই সাথে আসন স্বল্পতার জন্য অনেক মেধাবী মেয়েরা ক্যাডেট কলেজে পড়ার সুযোগ হতে বঞ্চিত হচ্ছে বলে সংসদে জানিয়েছেন প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বপ্রাপ্ত মন্ত্রী আনিসুল হক।

বৃহস্পতিবার (১৩ জুন) জাতীয় সংসদের বাজেট অধিবেশনে সংসদ সদস্য আব্দুল কাদের আজাদের লিখিত প্রশ্নের উত্তরে তিনি এ কথা বলেন। অধিবেশনে সভাপতিত্ব করেন স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী।

সংসদে আনিসুল হক জানান, ক্যাডেট কলেজসমূহ বিশেষায়িত আবাসিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান যাহার সূচনা হয়েছিল ১৯৫৮ সালে। বাংলাদেশে বর্তমানে ১২টি ক্যাডেট কলেজের মধ্যে নয়টি ছেলেদের এবং তিনটি মেয়েদের ক্যাডেট কলেজ রয়েছে। দেশের মোট জনসংখ্যার ছেলে ও মেয়ের অনুপাত প্রায় সমান হলেও ক্যাডেট কলেজে মেয়েদের পড়ার সুযোগ কম। প্রতি বছর সপ্তম শ্রেণিতে ভর্তি পরীক্ষায় তুলনামূলক অধিক ভাল ফলাফল অর্জন করা স্বত্ত্বেও শুধুমাত্র আসন স্বল্পতার জন্য অনেক মেধাবী মেয়েরা ক্যাডেট কলেজে পড়ার সুযোগ হতে বঞ্চিত হচ্ছে।

তিনি বলেন, বিদ্যমান গার্লস ক্যাডেট কলেজসমূহের ভৌগলিক অবস্থান অনুযায়ী দেশের দক্ষিণ অঞ্চলে কোন গার্লস ক্যাডেট কলেজ নাই। নবম জাতীয় সংসদে প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির ২০১১ সালের ৪ জুলাই অনুষ্ঠিত ১৭তম বৈঠকে হাওর অঞ্চলে একটিসহ দেশের পুরাতন ২০টি জেলার যে সকল জেলায় কোন প্রকার ক্যাডেট কলেজ নাই, সেই সকল জেলায় একটি করে ক্যাডেট কলেজ স্থাপনের সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়েছিল। উক্ত ২০টি জেলার মধ্যে ফরিদপুর জেলায় একটি গার্লস ক্যাডেট কলেজ স্থাপনের প্রস্তাবনা উত্থাপিত হয়েছিল। পরবর্তীতে আর্থিক সংশ্লেষের কারণে তা স্থাপন করা সম্ভব হয়নি।

সরকারি নীতিগত অনুমোদন প্রাপ্তি সাপেক্ষে যথাযথ পদ্ধতি অনুসরণ করে ফরিদপুর জেলায় একটি গার্লস ক্যাডেট কলেজ নির্মাণ করা যেতে পারে বলে জানান আনিসুল হক।

;