বিশ্বব্যাংক-আইএমএফের ঋণ আর নয়, এখন তাদের ক্ষতিপূরণ দেবার পালা



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট বার্তা২৪.কম, ঢাকা
বিশ্বব্যাংক-আইএমএফের ঋণ আর নয়, এখন তাদের ক্ষতিপূরণ দেবার পালা

বিশ্বব্যাংক-আইএমএফের ঋণ আর নয়, এখন তাদের ক্ষতিপূরণ দেবার পালা

  • Font increase
  • Font Decrease

যুক্তরাষ্ট্রের ওয়াশিংটনে চলমান বিশ্বব্যাংক-আইএমএফের বসন্তকালীন সম্মেলনের প্রাক্কালে সারাবিশ্বে নাগরিক সমাজ তাদের ঋণ ব্যবস্থার সমালোচনায় প্রতিবাদ সমাবেশ করছে আজ ১৯ এপ্রিল। তার অংশ হিসেবে বাংলাদেশের নাগরিক সমাজ জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে প্রতিবাদ সমাবেশের আয়োজন করে। এছাড়াও আজ বাংলাদেশ সময় রাত আটটায় সারাবিশ্বে একযোগে টুইটারে প্রতিবাদ বার্তা প্রকাশ করবে বৈশ্বিক নাগরিক সমাজ। তাদের মূল দাবি, জনগণের ওপর আরোপিত অনৈতিক ঋণ অবিলম্বে বাতিল করতে হবে। কারণ, বিশ্বের দরিদ্রদের প্রতি বিশ্বব্যাংক ও আইএমএফের দেনা রয়েছে।

এশিয়ান পিপলস মুভমেন্ট অন ডেট এন্ড ডেভেলপমেন্ট (এপিএমডিডি), বাংলাদেশ কৃষক ফেডারেশন, কোস্ট ফাউন্ডেশন, ওয়াটারকিপার্স বাংলাদেশ ও সিপিআরডি’র যৌথ উদ্যোগে আয়োজিত এই প্রতিবাদ সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন বাংলাদেশ কৃষক ফেডারশনের সাধারণ সম্পাদক জায়েদ ইকবাল খান এবং সঞ্চালনা করেন কোস্ট ফাউন্ডেশনের পরিচালক মোস্তফা কামাল আকন্দ। সভায় বক্তব্য রাখেন, জয় বাংলা জাতীয় শ্রমিক ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক লাভলি ইয়াসমিন, কোস্ট ফাউন্ডেশনের উপ-নির্বাহী পরিচালক সনত কুমার ভৌমিক, ওয়াটারকিপার্স বাংলাদেশের ইকবাল ফারুক, বিশ্ব গ্রামীণ নারী দিবস উদযাপন কমিটির সাধারণ সম্পাদক ফেরদৌস আরা রুমি, সিপিআরপি’র শেখ নূর আতাইয়া রাব্বি, এবং বাংলাদেশ ভুমিহীন সমিতির সাধারণ সম্পাদক ইঞ্জি: ফয়েজ আহমেদ খান।

কোস্ট ফাউন্ডেশনের উপ-নির্বাহী পরিচালক সনত কুমার ভৌমিক তার বক্তব্যে বলেন, রোহিঙ্গা শরণার্থীর আগমনের কারণে ক্ষতিগ্রস্ত স্থানীয় জনগোষ্ঠীর উন্নয়নে এবং জলবায়ু পরিবর্তনজনিত সমস্যা মোকাবেলায় বাংলাদেশকে ঋণ প্রস্তাব করা হচ্ছে। এসমস্ত সমস্যার জন্য আমরা কোনো অংশে দায়ী নই। তাহলে এর জন্য আমরা কেন ঋণ গ্রহন করব? এর জন্য যারা দায়ী, তাদের উচিত ক্ষতিপূরণ প্রদান করা।

বিশ্ব গ্রামীণ নারী দিবস উদযাপন কমিটির সাধারণ সম্পাদক ফেরদৌস আরা রুমি বলেন, উন্নত দেশ জার্মানি যেখানে ঋণের সুদ দেয় গড়ে মাত্র ১.৫%, আমেরিকা দেয় ৩.১%,  সেখানে আফ্রিকার দেশগুলো গড়ে সুদ দেয় ১১.৬%, এশিয়ার দেশগুলো ৬.৫%। যত দরিদ্র দেশ, তাদের সুদের হার তত বেশি। এর কারণ, পাবলিক প্রতিষ্ঠানগুলো তাদের আর ঋণ না দেয়ায় প্রাইভেট প্রতিষ্ঠান থেকে তারা উচ্চ সুদে ঋণ গ্রহণ করছে।

বাংলাদেশ কৃষক ফেডারেশনের সাধারন সম্পাদক জায়েদ ইকবাল খান বলেন, উন্নয়নশীল দেশগুলো ঋণ শোধ করে মূলত তাদের রপ্তানী আয় থেকে। গত এক দশকে তাদের সেই সক্ষমতা শেষ হয়ে গিয়েছে। ২০১০ সালে উন্নয়নশীল দেশগুলোর ঋণ ছিল তাদের রপ্তানীর ৭১%, যা ২০২২ সালে এসে দাঁড়িয়েছে ১১২%। অর্থাৎ, ইতিমধ্যে আয়ের তুলনায় অনেক বেশি ঋণ তারা ইতিমধ্যে করে ফেলেছে এবং ঋণ করেই যাচ্ছে।

সভা সঞ্চালনাকালে কোস্ট ফাউন্ডেশনের মোস্তফা কামাল আকন্দ বলেন, বিশ্বের উন্নয়নশীল দেশগুলো তাদের ঋণের সুদ পরিশোধ করতেই তাদের সম্পদ শেষ করে ফেলছে। বিশ্বব্যাংক থেকে ঋণ গ্রহণ করা ১৩৯টি দেশ তাদের রাজস্ব বাজেটের ৩৫% ব্যয় করে এই ঋণ পরিশোধ খাতে। নিম্ন আয়ের দেশ ও নিম্ন মধ্য আয়ের দেশের ব্যয় হয় যথাক্রমে ৫৭.৫% এবং ৪৪.৫%। তিনি বলেন, আমরা দরিদ্র জনগণের উপর আরোপিত এই গণঋণ প্রত্যাখ্যান করছি, কারণ দারিদ্রের পেছনে বিশ্বব্যাংক ও আইএমএফের দায় রয়েছে। ঋণ নয়, তাদের উচিত ঐতিহাসিক দেনা পরিশোধ করা।

আজ সকাল দশটায় জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে আয়োজিত এই প্রতিবাদ সমাবেশে, আজ সারা পৃথিবীতে বাংলাদেশ সময় রাত আটটায় এক যোগে টুইটারের মাধ্যমে যে প্রতিবাদের ঝড় তোলা হবে, তাতে সর্বস্তরের সকল মানুষকে অংশগ্রহনের আহ্বান জানানো হয়।

   

নেত্রকোনা জনস্বাস্থ্য নির্বাহী প্রকৌশলীর বিরুদ্ধে টেন্ডার জালিয়াতির অভিযোগ



অভিজিত রায় কৌশিক, স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

দুর্নীতির মহোৎসব চলছে নেত্রকোনার জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল কার্যালয়ে। টেন্ডার নিয়ন্ত্রণ ও জালিয়াতি, ব্যাংকের মাধ্যমে ঘুষ নেওয়া, ঠিকাদারদের মাধ্যমে বাড়ি নির্মাণ করিয়ে নেওয়ার অভিযোগের পর সম্প্রতি উঠেছে টেন্ডার জালিয়াতির অভিযোগও। অভিযোগের কেন্দ্রে নির্বাহী প্রকৌশলী মশিউর রহমানের নাম। আর প্রধান প্রকৌশলী তুষার মোহন সাধু খাঁ দেখেও করছেন, না দেখার ভান। সূত্র জানাচ্ছে এ নিয়ে মন্ত্রণালয়ে লিখিত অভিযোগ গেছে।

টেন্ডার জালিয়াতির বিষয়ে মন্ত্রণালয় বরাবর লিখিত একটি অভিযোগ জমা পড়েছে এমনটা নিশ্চিত করে সূত্র জানায়, অভিযোগপত্রে, কাজ না করে অর্থ আত্মসাৎ, টেন্ডার পাইয়ে দেওয়ার প্রলোভন দেখিয়ে ব্যাংকের মাধ্যমে ঘুষ নেওয়ার কথা বলা হয়েছে। ঠিকাদারদের কাছ থেকে টাকা নিয়ে জামালপুরে বাড়ি নির্মাণ করছেন এমন সুনির্দিষ্ট অভিযোগও রয়েছে মশিউরের বিরুদ্ধে।

তবে সব অভিযোগ ছাপিয়ে বড় অভিযোগ হিসেবে সামনে এসেছে টেন্ডার জালিয়াতি প্রসঙ্গ। এ বিষয়ে মন্ত্রণালয়ে জমাকৃত লিখিত অভিযোগে বলা হয়, নেত্রকোণা জেলার বিভিন্ন উপজেলায় ডিপ টিউবওয়েল বসানোর প্রকল্পে এই জালিয়াতি করেছেন নির্বাহী প্রকৌশলী মশিউর রহমান। প্রকল্পের নাম- Installation of 10 Nos 100 mm x 38 mm Deep Tubewell with Submersible Pump at Different Upazilas of Netmkona Distries under revenue budget)।

বলা হয়েছে, একই ধরনের প্রকল্প বাস্তবায়নে অন্যত্র ১০ লাখ টাকা ব্যয় হয়, সেখানে এই নির্বাহী প্রকৌশলী খরচ দেখাচ্ছেন ১৫ লাখ ৬৬ হাজার টাকা।

এছাড়া মেসার্স সানি ট্রেডার্স (মি. শফিক) নামে তিনি ভুয়া সার্টিফিকেট দাখিল করেছেন। অভিযোগ মশিউর রহমান ও শফিক যৌথভাবে ভুয়া সনদ তৈরি করেন। যা কলমের খোঁচায় সঠিক বলে প্রত্যয়ন করেন নির্বাহী প্রকৌশলী মশিউর নিজেই। ই-জিপি সিস্টেমে তা আপলোড করেন এবং মেসার্স সানি ট্রেডার্স (মি. শফিক) এর নামে মূল্যায়ন প্রতিবেদন পাঠান।

অভিযোগপত্রে বলা হয়, বিষয়টি তত্বাবধায়ক প্রকৌশলীকে অবহিত করা হলেও মশিউর রহমান মূল্যায়ন প্রতিবেদনটি তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলীকে পাশ কাটিয়ে সরাসরি প্রধান প্রকৌশলীর কাছে পাঠিয়ে দেন। একে অপরাধ ও প্রতারণামূলক উল্লেখ করে বলা হয়, এমন দুর্নীতি গোটা সিস্টেমকে কলুষিত করছে।

অভিযোগপত্রের সঙ্গে জাল সার্টিফিকেটের কপি সংযুক্ত করা হয়। সনদপত্রে দেখানো হয়েছে ২০১৮-১৯ অর্থ বছরে সারাদেশে নিরাপদ পানি সরবরাহ প্রকল্পে ৫৩টি টিএসপির কাজ করেছে মেসার্স সানি ট্রেডার্স (মি. শফিক)। অথচ সারাদেশে নিরাপদ পানি সরবারাহ প্রকল্পটির কার্যক্রম শুরু হয়েছে ২০১৯-২০ অর্থবছরে। তার মানে প্রকল্প শুরু হবার আগেই এই কাজ করা হয়েছে। যা মিথ্যা। ঠিকাদার ও নির্বাহী প্রকৌশলী মশিউর রহমান মিলে কাগজপত্র জাল করেছেন, যা পিপিআর-২০০৮ এর বিধি ১২৭ অনুযায়ী মারাত্মক ধরনের পেশাগত অসদাচরণ এবং উপবিধি ৮ অনুযায়ী শাস্তিযোগ্য অপরাধ।

এছাড়াও এই অভিযোগপত্রে বিভিন্ন ধরনের তথ্য প্রমাণ তুলে ধরা হয়েছে।

এদিকে, অভিযোগ উঠেছে প্রধান প্রকৌশলী তুষার মোহন সাধু খাঁ বিষয়টি সম্পর্কে সম্পূর্ণ অবগত রয়েছেন। তার নিয়ন্ত্রণাধীন প্রকল্পে দুর্নীতির বিষয়ে জেনেও কোন ধরনের ব্যবস্থা না নেওয়ায় অভিযোগ উঠছে তিনি নিজেও জড়িত থাকতে পারেন এই দুর্নীতির সঙ্গে।

এসব অভিযোগে বিষয়ে জানতে জনস্বাস্থ্যের তুষার মোহন সাধু খাঁর সঙ্গে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করেও ব্যর্থ হয়েছেন এই প্রতিবেদক। ভিন্ন ভিন্ন নম্বর থেকে মোবাইল ফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করলেও তিনি কোনো ফোনকলই রিসিভ করেননি। পরে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম হোয়াটসঅ্যাপে অভিযোগের বিষয় জানিয়ে ক্ষুদে বার্তা পাঠালেও তিনি কোন ধরনের উত্তর দেননি।

এ বিষয়ে অবগত আছেন কিনা জানতে স্থানীয় সরকার বিভাগের সচিব মুহম্মদ ইব্রাহীমকে মোবাইল ফোনে কল দেওয়া হলে তিনিও রিসিভ করেননি।

এর আগে, বার্তা ২৪.কমে নেত্রকোনা জেলার জনস্বাস্থ্যের নির্বাহী প্রকৌশলী মশিউর রহমান এর দূর্নীতি নিয়ে ‘জনস্বাস্থ্যের ‘রাঘববোয়াল’ মশিউর, টেন্ডার দিতে ব্যাংকের মাধ্যমে ঘুষ নিয়েও প্রতারণার অভিযোগ’ শিরোনামে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ হয়।

প্রতিবেদনে নেত্রকোনার মদন ও খালিয়াকুরী উপজেলার ৩০টি ওয়াশব্লক মেরামত কাজের টেন্ডার পাইয়ে দেওয়ার কথা বলে বুয়েট শাখার সোনালী ব্যাংক অ্যাকাউন্টের মাধ্যমে ঘুষ বাবদ ৩ লাখ টাকা নেওয়ার অভিযোগের তথ্য উঠে আসে। এছাড়া টাকা নিয়েও কাজ না দিলে সেই টাকা ফেরত চাইলে ঘুষদাতার ওপর চড়াও হন তিনি।

সেবারও চিফ ইঞ্জিনিয়ার বরাবর অভিযোগ গেলে মশিউর দম্ভ করে বলেন, যা খুশি কর, ওইসব চিফ ইঞ্জিনিয়ার আমার কিছুই করতে পারবে না।

এছাড়াও কলমাকান্দাতে হাওর প্রকল্পের ৫০টি নলকূপ বসানোর কাজ না করেই বিল উত্তোলনসহ ঠিকাদারদের কাছ থেকে টাকা নিয়ে জামালপুরে বাড়ি নির্মাণ করা ও বিভিন্ন কারণে স্টাফ এবং ঠিকাদারদের সাথে দুর্ব্যবহার, অশ্রাব্য ভাষায় গালাগাল ও প্রাণে মারার হুমকি দেওয়ার অভিযোগও রয়েছে নির্বাহী প্রকৌশলী মশিউরের বিরুদ্ধে।

সে সময় অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে মশিউর রহমান বার্তা২৪.কমকে বলেন, এসব অভিযোগ ভুয়া। যে অভিযোগ করেছে ওই নামের কাউকে আমি চিনিও না, জানিওনা।

ব্যাংকের মাধ্যমে আপনার অ্যাকাউন্টে যে টাকা দেওয়া হয়েছে তার রশিদ অভিযোগপত্রে সংযুক্ত রয়েছে, আপনি যদি তাকে না চেনেন, তাহলে আপনার অ্যাকাউন্টে অপরিচিত কেউ কেন এত টাকা দিলো, এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, এই টাকাটা আমার স্টাফ জমা দিয়েছে। সেখানে একটা স্বাক্ষর আছে, সেটা আমার হিসাব সহকারীর। যদি সেই ঠিকাদার জমা দিতো, তাহলে তো তার স্বাক্ষর থাকতো। আমার হিসাব সহকারীর স্বাক্ষরতো আর থাকতো না।

আপনার হিসাব সহকারী বা আপনার অফিসের স্টাফ যদি টাকা জমা দেয়, তাহলে সেই টাকা জমার রশিদ কীভাবে অন্য কারো হাতে গেলো এমন প্রশ্নের জবাবে মশিউর বলেন, এটাতো আমি জানি না। এটা আমারও প্রশ্ন। কারণ ওই স্লিপটা আমার কাছেও আছে।

স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের সচিব বরাবর অভিযোগকারী ঠিকাদার হাজী আব্দুল ওহাবের লিখিত পত্রটির কপি বার্তা২৪.কমের হাতে এসেছে। ‘নির্বাহী প্রকৌশলী মশিউর রহমান নগদ টাকা নিয়ে কাজ না দেওয়া প্রসঙ্গে (প্রমাণ সংযুক্ত)’ এমন শিরোনামে এই অভিযোগপত্রে তিনি লেখেন, আপনার নিকট নিবেদন এই যে, আমি নেত্রকোনা জেলার একজন তৃতীয় সারির ঠিকাদার। জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদফতরসহ বিভিন্ন সরকারি দফতরে ছোট ও মাঝারি মানের কাজে অংশগ্রহণ করি। জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদফতর, নেত্রকোনার নির্বাহী প্রকৌশলী মশিউর রহমান এর কাছে কাজের কথা বললে তিনি মদন ও খালিয়াকুরী উপজেলার ৩০টি ওয়াশব্লক মেরামত কাজের প্রাক্কলন দেখিয়ে বলেন, এই কাজটি আপনাকে দিবো আপনি প্রস্তুতি নেন, ই-জিপি (E-GP) সিস্টেমে কিভাবে কাজ দিবেন এইটা বললে তিনি বলেন, ম্যানুয়াল টেন্ডার করে কোটেশন করবো। আপনি কাজটি করতে চাইলে আমাকে ৩ লাখ টাকা দিতে হবে। তিনি আমাকে সোনালী ব্যাংক, বুয়েট শাখার একটি হিসাব নম্বর ৪৪০৪০৩৪১৬৬১২৪ দেন। ওই ঠিকানায় টাকা জমা দিয়ে মূল স্লিপ তাকে দিতে বলেন। কথা অনুযায়ী গত ৩ এপ্রিল সোনালী ব্যাংক নেত্রকোনা শাখায় গিয়ে টাকা জমা দেই এবং মূল স্লিপ উনাকে জমা দিয়ে ওয়ার্কঅর্ডার দিতে বলি।

অভিযোগে হাজী আব্দুল ওহাব আরও লেখেন, উনি (মশিউর) ৮ এপ্রিল দেখা করতে বলেন। ওই তারিখে উনার কাছে গেলে বলেন, এখন একটু সমস্যা আছে মাস দুয়েক দেরি করেন। আমার অনেক কষ্টের টাকা আমি ফেরত চাইলে আমার দিকে তেড়ে আসেন এবং বলেন যা খুশি কর ওইসব চিফ ইঞ্জিনিয়ার আমার কিছুই করতে পারবে না।

অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদফতরের ময়মনসিংহ সার্কেলের তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী মো. আব্দুল আউয়াল বার্তা২৪.কমকে বলেন, আমি এ অভিযোগের বিষয়ে কিছুই জানি না। আমার কাছে কোন অভিযোগ আসেনি। অভিযোগ এলে বিষয়টি দেখব।

তিনি আরও বলেন, তবে আমার মনে হয় না বিষয়টা এমন। অনেক তো দুষ্টবুদ্ধির লোক আছে! ব্যাংকের স্লিপের বিষয়টি শুনেছেন জানিয়ে বলেন, তবে তার মানে এই না যে, এই টাকাটা সে ওখান থেকে নিয়েছে। যারা ঘুষ নেয়, আমার মনে হয় তারা ব্যাংকের মাধ্যমে নেয় না, অভিমত তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলীর।

;

হাটহাজারীতে দুই প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, চট্টগ্রাম
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চট্টগ্রামের হাটহাজারীর একটি কেন্দ্রে দুই প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটেছে। তবে এ ঘটনায় কাউকে আটক করা যায়নি বলে জানিয়েছে পুলিশ।

মঙ্গলবার (২১ মে) বেলা সাড়ে ১১টায় হাটহাজারী উপজেলার ফতেপুর ইউনিয়নের জোবরা পি.পি উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে এই ঘটনা ঘটে।

পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা গেছে, হাটহাজারীর জোবরা পি.পি কেন্দ্রের বাইরে চেয়ারম্যান প্রার্থী রাশেদুল আলম ও সোহরাব হোসেন নোমানের সমর্থকদের মধ্যে বাগবিতণ্ডা হয়। এসময় দুই পক্ষ ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ায় জড়িয়ে পড়ে। পরস্পরের মধ্যে ইটপাটকেল নিক্ষেপ করে তারা। এসময় রেললাইনের পাশে আগুন দেওয়া হয়।

ঘটনার সময় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী সদস্যরা কয়েক রাউন্ড ফাঁকা গুলি ছোড়ে। কেন্দ্রে ভোট গ্রহণ স্বাভাবিক থাকলেও বাইরে থমথমে পরিস্থিতি বিরাজ করছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে র‌্যাব ও বিজিবি সদস্যরা ঘটনাস্থলে অবস্থান করছে।

চট্টগ্রাম জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ডিএসবি) আবু তৈয়ব মো. আরিফ হোসেন বার্তা২৪.কমকে বলেন, কেন্দ্রের বাইরে দুই পক্ষের সমর্থকদের মধ্যে ইটপাটকেল নিক্ষেপের ঘটনা ঘটে। এসময় পুলিশ ও স্ট্রাইকিং ফোর্স তাদের ধাওয়া করে পরিস্থিতি নিযন্ত্রণে আনে। তবে এতে ভোট গ্রহণের কোনো সমস্যা হয়নি। এ ঘটনায় এখনো কাউকে আটক করা যায়নি।

ফটিকছড়িতে কেন্দ্র পরিদর্শনে এসে জেলা প্রশাসক আবুল বাসার মোহাম্মদ ফখরুজ্জামানও হাটহাজারীর একটি কেন্দ্রে দুই প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার কথা স্বীকার করেন।

তিনি বলেন, আমাদের দেশে যে নির্বাচনী সংস্কৃতি এখানে দেখা যায় প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীদের সমর্থক এবং কর্মীদের মধ্যে অনেক উৎসাহ উদ্দীপনা কাজ করে। এর থেকে অনেক সময় দেখা তাদের মধ্যে হট্টগোল হয়ে থাকে। হাটহাজারীর জোবরা কেন্দ্রে এ ধরনের একটি বিচ্ছিন্ন ঘটনার কথা শুনেছি। সেখানে এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট আছেন এবং পরিস্থিতির সম্পূর্ণ নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। ভোট গ্রহণে কোন সমস্যা হয়নি।

এদিকে ফটিকছড়ি, হাটহাজারী ও রাঙ্গুনিয়া উপজেলায় দ্বিতীয় ধাপে সকাল ৮টা থেকে ভোট গ্রহণ শুরু হয়। যা চলবে বিকেল ৪টা পর্যন্ত। এ তিন উপজেলায় ২১ জন প্রার্থী তিনটি পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

;

লক্ষ্মীপুরে পানিতে ডুবে ভাই-বোনের মৃত্যু



ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট,বার্তা২৪.কম,লক্ষ্মীপুর
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

লক্ষ্মীপুরে পুকুরের পানিতে ডুবে স্কুল শিক্ষার্থী নাফিজা মোবারক মাদিহা (৮) ও তার আপন ভাই মো. ওমরের (৫) মৃত্যু হয়েছে।

মঙ্গলবার (২১ মে) দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে সদর উপজেলার ভবানীগঞ্জ ইউনিয়নের ১ নম্বর ওয়ার্ডের কামালপুর গ্রামে এ দুর্ঘটনা ঘটে। দুই সন্তানকে হারিয়ে তাদের মা-বাবাসহ স্বজনদের মাঝে শোকের ছায়া নেমে এসেছে। কান্নায় মূর্ছা যাচ্ছেন নিহতদের মা।

নিহত নাফিজা স্থানীয় ফাতেমা আইডিয়াল স্কুলের প্রথম শ্রেণির ছাত্রী ও ওমর প্লে শাখার ছাত্র। তারা কামালপুর গ্রামের ব্যবসায়ী রাজু আহমেদের সন্তান।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, পুকুর ঘাটে গেলে পা পিছলে ওমর পানিতে পড়ে যায়। এসময় ভাইকে বাঁচানোর জন্য নাফিজাও পানিতে নামে। এতে দু'জনেই পানিতে ডুবে যায়। পরে ওমর ও নাফিজাকে উদ্ধার করে সদর হাসপাতালে নিলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাদেরকে মৃত ঘোষণা করেন।

ভবানীগঞ্জ ইউনিয়ন পরিষদের ১ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য (মেম্বার) খুরশিদ আলম বলেন, 'ঘটনাটি মর্মান্তিক। একসঙ্গে দুটি সন্তানের মৃত্যু খুব বেদনাদায়ক। নিহতদের মা-বাবাকে শান্তনা দেওয়ার ভাষা খুঁজে পাচ্ছি না।'

;

নিখোঁজ এমপি আনারের কোনো আপডেট নেই: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

ভারতে চিকিৎসা করাতে গিয়ে নিখোঁজ হওয়া ঝিনাইদহ-৪ আসনে আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য আনোয়ারুল আজিম আনারের বিষয়ে জানতে চাইলে এক প্রশ্নের জবাবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান বলেন, ‘আনারের বিষয়ে আমার কাছে এখন পর্যন্ত কোনো আপডেট নেই। যতটুকু শুনছি, আনারের মোবাইলটাও বন্ধ আছে।

মঙ্গলবার (২১ মে) সচিবালয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা জানান।

তিনি বলেন, আমাদের ও ভারতের ইমিগ্রেশন পার হয়ে যথাযথভাবেই তিনি ভারতে যান। তার পরিবার থেকে আমাদের জানানো হয়েছিল, তার কোনো খোঁজ-খবর পাওয়া যাচ্ছে না। সরকারি সব সংস্থা এটা নিয়ে কাজ করছে। আমাদের এনএসআই, এসবি ও পুলিশ কাজ করছে। ভারতীয় পুলিশ ও গোয়েন্দা সংস্থার সঙ্গে কাজ করা হচ্ছে। আশা করছি, ভারতীয় সরকারের মাধ্যমে শিগগিরই তার বিষয়ে জানতে পারব।

এর আগে, গত ১৯ মে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী জানিয়েছিলেন, এমপি মো. আনোয়ারুল আজিম আনারের বিষয়ে উদ্বিগ্ন হওয়ার কিছু নেই। তিনি কলকাতায় গেছেন, এসে পড়বেন।

সেদিন তিনি আরও বলেছিলেন, তিনি পুরোনো মানুষ, একজন সংসদ সদস্য, বুঝেশুনেই তো চলেন। পাশের দেশ ভারতে গেছেন। এমন তো না মিয়ানমার গেছেন, যে মারামারি লেগেছে। আমার মনে হয় তিনি এসে পড়বেন।

প্রসঙ্গত, গত ১১ মে চিকিৎসার জন্য ভারতের কলকাতায় যান সংসদ সদস্য আনোয়ারুল আজিম আনার। এরপর থেকে পরিবারের সদস্যরা তার সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারছেন না।

আনোয়ারুল আজিম আনার ঝিনাইদহ-৪ আসনের সরকারদলীয় সংসদ সদস্য। তিনি ২০১৪, ২০১৮ ও ২০২৪ সালে টানা ৩ বার আওয়ামী লীগ থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন।

;