ফরিদপুরে বাস উল্টে নিহত ৩



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ফরিদপুর
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

ফরিদপুরের ভাঙ্গায় বাস খাদে পড়ে তিনজন নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় অন্তত ১০ জন আহত হয়েছেন।

বৃহস্পতিবার (৭ মার্চ) দিবাগত রাত ২টা ১০ মিনিটের দিকে ঢাকা-বরিশাল মহাসড়কের ফরিদপুরের ভাঙ্গা উপজেলার বাবনা তলা এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে।

ভাঙ্গা হাইওয়ে থানা পুলিশের উপ-পরিদর্শক মো. নোমান শিকদার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। 

পাবনা জেলার সাথিয়া উপজেলার পানদুড়িয়া গ্রামের মৃত ইদ্রিস মিয়ার ছেলে শফিকুল ইসলাম সুরুজ (৪৫) ঘটনাস্থলেই মারা যান। বাকি দুজনের নাম পরিচয় জানা যায়নি। 

জানা গেছে, ইমরান ট্রাভেলসের একটি বাস দ্রুত ও বেপরোয়াগতিতে বরগুনা থেকে ঢাকায় আসার পথে ঢাকা-বরিশাল মহাসড়কের ফরিদপুরের ভাঙ্গায় পৌঁছালে নিয়ন্ত্রণ হারায়। এতে বাস উল্টে ঘটনাস্থলে শফিকুল ইসলাম সুরুজ (৪৫) ও আনুমানিক ৪৮ বছর বয়সী অজ্ঞাত একজন ব্যক্তি নিহত হয়েছেন। এছাড়া হাসপাতালে আরেকজন নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় আহতদের প্রথমে ভাঙ্গা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ও পরে ফরিদপুর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

নোমান শিকদার জানান, বরগুনা থেকে ঢাকাগামী বেপরোয়া গতির ইমরান ট্রাভেলস নামের একটি বেস ঘটনাস্থলে এসে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে মহাসড়কে উল্টে যায়। এতে ঘটনাস্থলে দুইজন নিহত হয়। আহত হন অন্তত প্রায় ১০ জন। খবর পেয়ে পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা ঘটনাস্থলে পৌঁছে উদ্ধার অভিযান চালায়।

তিনি আরও জানান, বাসটি হাইওয়ে থানা হেফাজতে আনা হয়েছে। বাসটির চালক ও হেলপার পলাতক থাকায় তাদেরকে আটক করা যায়নি। মরদেহগুলো পরিবারের কাছে হস্তান্তরের প্রক্রিয়া চলছে। এ ঘটনায় মামলা প্রক্রিয়াধীন।

 

   

দেশ ছাড়া কারও প্রতি প্রেম ভালোবাসা থাকতে পারে না: হানিফ



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
দেশ ছাড়া কারো প্রতি প্রেম ভালবাসা থাকতে পারে না: হানিফ

দেশ ছাড়া কারো প্রতি প্রেম ভালবাসা থাকতে পারে না: হানিফ

  • Font increase
  • Font Decrease

দেশ ছাড়া আমাদের অন্য কারও প্রতি প্রেম ভালোবাসা থাকতে পারে না বলে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ।

শনিবার (২৫ মে) সকালে রমনার আই ই বি রমনা মিলনায়তনে বঙ্গীয় সাহিত্য-সংস্কৃতি সংসদ কবি গুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর ১৬৩তম ও কাজী নজরুল ইসলামের ১২৫তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত "শ্রদ্ধার্ঘ সভা" অনুষ্ঠানে এ কথা বলেন তিনি।

হানিফ বলেন, কিছু মানুষের কাজে পাকিস্তানে যে আমরা ছিলাম সে বহিঃপ্রকাশ এখনো দেখা যায়। এই স্বাধীন দেশে বাস করে এখনো তাদের মাঝে পাকিস্তান প্রেম দেখা যায়। কিছু মানুষ পাকিস্তানকে এখনো তাদের প্রেমের জায়গায় রেখেছে।

আবার কিছু মানুষের মাঝে আমাদের পাশের দেশের প্রতি এখনো প্রেমের আবেগটা রক্ষিত আছে। আমাদের দেশটাকে ভালোবাসছে কে? এত ত্যাগের বিনিময়ে আমাদের দেশ, আমাদের দেশের প্রতি টানটা কোথায়?

এসময় অনুরোধ জানিয়ে আওয়ামী লীগের এই যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক বলেন, আপনাদের প্রতি আমার অনুরোধ থাকবে এই দেশটাকে আমরা ভালবাসি। আমাদের প্রেম, আমাদের ভালবাসা, আমাদের আবেগ সব কিছুই যেন হউক আমাদের দেশকে কেন্দ্র করে।

অনুষ্ঠানে কেপিআর (খুদে প্রতিভার রাজ্য) চিত্রশিল্পীদের হাতে পুরস্কার তুলে দেন হানিফ।

এ সময় বক্তব্য রাখেন কুষ্টিয়া ইসলামি বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক প্রো ভিসি অধ্যাপক মো. শাহিনুর রহমান।

;

নতুন গ্রুপের আড়ালে সদস্য সংগ্রহ করে আসছিল ইসমাইল



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
ছবি: বার্তা ২৪

ছবি: বার্তা ২৪

  • Font increase
  • Font Decrease

আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর নিয়মিত অভিযানে নিষিদ্ধ ঘোষিত জঙ্গি সংগঠন আনসার আল ইসলামের কার্যক্রম প্রায় স্তিমিত হয়ে পড়েছে। এজন্য ‘শাহাদাত’ নামে নতুন একটি গ্রুপ তৈরি করে নতুন সদস্য সংগ্রহসহ দাওয়াতী কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছিল।

আনসার আল ইসলামের রিক্রুটিং শাখার প্রধান মোহাম্মদ ইসমাইল হোসেন (২৫), দুই আঞ্চলিক প্রশিক্ষক জিহাদ হোসেন ওরফে হুজাইফা (২৪) ও আমিনুল ইসলামকে (২৫) গ্রেফতারের পর এ তথ্য জানিয়েছে র‍্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‍্যাব)।

শুক্রবার (২৪ মে) র‍্যাব সদর দপ্তরের গোয়েন্দা শাখা ও র‍্যাব-৩ এর যৌথ অভিযানে রাজধানীর গুলিস্তান ও নারায়নগঞ্জের সাইনবোর্ড এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাদেরকে গ্রেফতার করা হয়।

শনিবার (২৫ মে) রাজধানীর কারওয়ানবাজার র‍্যাব মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা জানান র‍্যাবের লিগ্যাল অ্যান্ড মিডিয়া উইংয়ের পরিচালক কমান্ডার আরাফাত ইসলাম।

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদের বরাত দিয়ে তিনি জানান, তারা ‘আনসার আল ইসলামের’ সদস্য। আফগানিস্থানে তালেবানের উত্থানে উদ্বুদ্ধ হয়ে আল কায়েদা মতাদর্শের জঙ্গি সংগঠন ‘আনসার আল ইসলামে’ যোগাদান করে। আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর নিয়মিত অভিযানে আনসার আল ইসলামের কার্যক্রম প্রায় স্তিমিত হয়ে পড়েছে। তাদের সদস্য সংগ্রহসহ সকল কার্যক্রম পরিচালনা ব্যহত হচ্ছে। এরপর আনসার আল ইসলাম মতাদর্শী ‘শাহাদাত’ নামে নতুন গ্রুপ তৈরি করে নতুন সদস্য সংগ্রহসহ দাওয়াতী কার্যক্রম পরিচালনা করতে থাকে। এই গ্রুপের সদস্য সংখ্যা শতাধিক। ইসমাইল আনসার আল ইসলামের রিক্রুটিং শাখার প্রধান এবং ‘শাহাদাত’ গ্রুপেরও প্রধান হিসেবে কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছিল।


ইসমাইলের বরাতে কমান্ডার আরাফাত জানান, এই গ্রুপটি সালাহউদ্দিন নামক এক ব্যক্তির মাধ্যমে পরিচালিত হচ্ছে, যিনি বর্তমানে বিদেশে অবস্থান করছেন। এই গ্রুপের অন্যান্য সদস্যরা ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন এলাকায় অবস্থান করছেন। তারা বিভিন্ন সময় অনলাইনে বিভিন্ন উগ্রবাদী নেতাদের বক্তব্য দেখে উগ্রবাদে উদ্বুদ্ধ হয়ে সংগঠনের সদস্যদের মাধ্যমে যোগদান করেন। পরবর্তীতে তারা আনসার আল ইসলামের নাম ব্যবহার না করে ‘শাহাদাত’ গ্রুপের নামে সদস্য সংগ্রহ ও দাওয়াতি কার্যক্রম পরিচালনা করছিল।

র‍্যাবের এই কর্মকর্তা বলেন, তারা বিভিন্ন সময়ে মসজিদ, বাসা বা বিভিন্ন স্থানে সদস্যদের নিয়ে গোপন সভা পরিচালনা করতো এবং সংগঠনের সদস্যদের শারীরিক কসরত প্রশিক্ষণ দিতো। তারা বাংলাদেশের বিভিন্ন প্রান্ত বিশেষত চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, যশোর, সাতক্ষীরাসহ ঢাকার আশেপাশের বিভিন্ন এলাকাকে প্রশিক্ষণ প্রদানের জন্য নির্ধারণ করেছে বলে জানা যায়।

তাদের তথ্যের গোপনীয়তা রক্ষার স্বার্থে নতুন গোপনীয় এ্যাপসের মাধ্যমে যোগাযোগ রক্ষা করতো এবং সংগঠনের সকল প্রকার নির্দেশনা এই এ্যাপসের মাধ্যমে প্রদান করতো।

তিনি আরও বলেন, এ সংগঠনের অধিকাংশই মাদ্রাসার ছাত্র ও শিক্ষক। সাধারণ লেখাপড়ায় শিক্ষিত উগ্র মনোভাবাপন্ন লোকজনকে আকৃষ্ট করার জন্য দেশ বিরোধিতাকে হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করতো। এ সংগঠনে মাদ্রাসা শিক্ষক সদস্যগণ অত্যন্ত সু-কৌশলে মাদ্রাসা পড়ুয়া কোমলমতি ছাত্রদের এ বিষয়ে অনুপ্রানিত করতো।

র‍্যাবের মুখপাত্র বলেন, গ্রেফতার ইসমাইল নারায়ণগঞ্জের একটি মাদ্রাসায় দাওরায়ে হাদিসে অধ্যয়নরত। ১ বছর আগে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বিদেশে অবস্থানরত জঙ্গি নেতা সালাউদ্দিনের সঙ্গে তার পরিচয় হয়। সেই সূত্রে সে তার মাধ্যমে উগ্রবাদে উদ্বুদ্ধ হয়ে আনসার আল ইসলামে যোগদান করে দাওয়াতী কার্যক্রম পরিচালনা করতে থাকে। এক পর্যায়ে তাকে সংগঠনের রিক্রুটিং শাখার প্রধান হিসেবে দায়িত্ব প্রদান করা হয়।

গ্রেফতার জিহাদ একটি মাদ্রাসার শিক্ষক। সেও প্রায় ১ বছর আগে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের একটি গ্রুপে বিদেশে অবস্থানরত একজন জঙ্গি নেতার সঙ্গে পরিচয় সূত্রে আনসার আল ইসলামে যোগদান করে। এরপর থেকে তার মাদ্রাসাসহ বিভিন্ন এলাকায় দাওয়াতী কার্যক্রম পরিচালনা করতে থাকে। পরবর্তীতে সে সংগঠনে আঞ্চলিক প্রশিক্ষক হিসেবে দায়িত্ব পায়।

গ্রেফতার আমিনুল পেশায় একজন গার্মেন্টস শ্রমিক। প্রায় ৬ মাস আগে সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে বিদেশে অবস্থানরত এক জঙ্গি নেতার সঙ্গে পরিচয়সূত্রে সেও সংগঠনে যোগ দেয়। পরে সে তার নিজ এলাকায় দাওয়াতী কার্যক্রম পরিচালনা করতো। এক পর্যায়ে সে সংগঠনে আঞ্চলিক প্রশিক্ষক হিসেবে দায়িত্ব পায়।

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, সালাউদ্দিন বর্তমানে বিদেশে আছে। সংগঠনটির ঢাকাসহ বিভিন্ন এলাকায় কর্মী সংগ্রহের প্রক্রিয়া চালাচ্ছিল। আমরা অধিকর তদন্তে প্রত্যেকের অবস্থান শনাক্ত করে আইনানুগ ব্যবস্থা নেব।

;

ধানক্ষেত থেকে অটোরিকশা চালকের মরদেহ উদ্ধার



ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, জামালপুর
ছবি: বার্তা ২৪

ছবি: বার্তা ২৪

  • Font increase
  • Font Decrease

জামালপুরে ধানক্ষেত থেকে শাহাদাত হোসেন (৫৫) নামে এক অটোরিকশা চালকের মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। শনিবার (২৫ মে) সকালে সদর উপজেলার কেন্দুয়া ইউনিয়নের পারপাড়া গ্রামে রাস্তার পাশে একটি ধানক্ষেত থেকে মরদেহটি উদ্ধার করা হয়।

নিহত শাহাদাত সদর উপজেলার শরিফপুর ইউনিয়নের ভেড়া পাথালিয়া গ্রামের জাবেদ আলীর ছেলে। সে গতকাল রাত ১০টার দিকে বাড়ি থেকে বের হয়ে আর ফিরে আসেনি।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, সকালে সদর উপজেলার কেন্দুয়া ইউনিয়নের পারপাড়া গ্রামে জামালপুর-টাঙ্গাইল মহাসড়কের কিছুটা অদূরে ধানক্ষেতে একটি মরদেহ পড়ে থাকতে দেখে স্থানীয়রা। পরে স্থানীয়রা পুলিশে খবর দিলে ঘটনাস্থল থেকে মরদেহটি উদ্ধার করে পুলিশ।

এদিকে ঘটনাস্থল থেকে আড়াই কিলোমিটার দুরে পূর্ব কুটামনি গ্রামের এক বাঁশঝাড়ে একটি ব্যাটারিচালিত অটোরিকশা পরিত্যাক্ত অবস্থায় পরেছিল, পরে পুলিশ অটোরিকশাটিও উদ্ধার করে।

জামালপুর সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মুহাম্মদ মহব্বত কবীর জানান, নিহত অটোরিকশা চালকের মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য জামালপুর মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে। এ ব্যাপারে থানায় মামলা দায়ের প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। নিহতের অটোরিকশাটি উদ্ধার করা হলেও ব্যাটারি চুরি হয়ে গিয়েছে। ধারণা করা হচ্ছে অটোরিকশা ছিনতাইয়ের উদ্দেশ্যেই তাকে হত্যা করা হয়েছে। জড়িতদের গ্রেফতারে পুলিশ কাজ করছে।

;

গণমাধ্যমের স্বাধীনতা নিশ্চিতে কাজ করবে ডিআরইউ: জিএম কাদের



স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

গণমাধ্যম কর্মীদের প্রাণের সংগঠন ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি’র (ডিআরইউ) ত্রিশ বছরে পদার্পণে প্রতিষ্ঠানটির কার্যনির্বাহী কমিটির নেতৃবৃন্দের প্রতি প্রাণঢালা অভিনন্দন জানিয়েছেন বিরোধীদলীয় নেতা ও জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যান জিএম কাদের।

শনিবার (২৫ মে) এক অভিনন্দনবার্তায় সংগঠনটির সদস্যদের প্রতিও শুভেচ্ছা জানান তিনি।

অভিনন্দন বার্তায় তিনি বলেন, সাফল্যের উনত্রিশ বছর অতিবাহিত করে ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি (ডিআরইউ) গণমাধ্যম কর্মীদের আশ্রয়স্থলে পরিণত হয়েছে। গণমাধ্যম কর্মীদের দক্ষতা উন্নয়ন, সাংবাদিকতার মানরক্ষা এবং সার্বিক নিরাপত্তা নিশ্চিতে সাফল্য পেয়েছে ডিআরইউ। ১৯৯৫ সালের ২৬ মে থেকে যারা মেধা ও শ্রম দিয়ে ডিআরইউকে শক্তিশালী সংগঠনে পরিণত করেছে তাদের প্রতিও অভিনন্দন।

তিনি আশা প্রকাশ করে বলেন, ডিআরইউ সাফল্যের পথে আরও এগিয়ে যাবে। বাংলাদেশের গণমাধ্যমের স্বাধীনতা নিশ্চিতে কাজ করবে ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি (ডিআরইউ)।

;