সংগ্রামী নারী বিথী সেনের বিসিএস ক্যাডার হওয়ার গল্প



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, রাজবাড়ী
বিথী সেন

বিথী সেন

  • Font increase
  • Font Decrease

বিথী সেন। ৪০তম বিসিএস সাধারণ শিক্ষা ক্যাডারের একজন সদস্য। বর্তমানে ফরিদপুরের বোয়ালমারি সরকারি কলেজে দর্শন বিষয়ের প্রভাষক হিসেবে কর্মরত রয়েছেন। কিন্তু বিথী সেনের বিসিএস ক্যাডার হওয়ার পিছনের গল্পটা অন্যরকম। কষ্ট আর সংগ্রামের মধ্য দিয়ে জীবন কাটিয়েছে বিথী সেন। বিথী সেনের চলার পথ খুব একটা সহজ ছিল না। কখনও খেয়ে কখনও না খেয়ে জীবনের সাথে প্রতিনিয়ত যুদ্ধ করেছেন তিনি। জীবন সংগ্রামের যুদ্ধে আজ বিথী সেন একজন সফল নারী।

বিথী সেন রাজবাড়ীর বালিয়াকান্দি উপজেলার জঙ্গল গ্রামের মনোরঞ্জন সেন ও নাগরি সেনের মেয়ে। তার বাবা খেটে খাওয়া একজন দিনমজুর। আর মা অন্যের বাড়িতে কাজ করতেন। দুই বোন ও এক ভাইয়ের মধ্যে বিথী সেন সবার বড়। পাঁচ সদস্যের পরিবারের ভরণপোষণ জোগাড় করতে যেখানে দরিদ্র বাবার ঘাম ছুঁটে যায় সেখানে সন্তানদের লেখাপড়ার করানোটা তাদের কাছে বিলাসিতা ছিল।

কিন্তু অদম্য ইচ্ছা আর সৃষ্টিকর্তার রহমতে বিভিন্ন লোকের সাহায্যে নিয়ে লেখাপড়া করা বিথী সেন আজ জীবনের সফল একজন নারী। ২০২৩ সালে বালিয়াকান্দি উপজেলা প্রশাসন ও মহিলা বিষয়ক অধিদফতর আয়োজিত জয়িতা পুরস্কার হিসেবে বিথী সেন শিক্ষা ও চাকরি ক্ষেত্রে সাফল্য অর্জনকারী নারী হিসেবে জয়িতা পুরস্কারে ভূষিত হন। তার এই সফলতা ও পুরস্কার অর্জনে পুরো পরিবার গর্বিত।

নিজের জীবনের কষ্ট, সংগ্রাম আর সফলতার গল্প শোনান বিথী সেন। তিনি জানান, তার বাবা একজন দিনমজুর। মা অন্যের বাড়িতে কাজ করে তাদের লেখাপড়া ও খাবারের জোগান দিতেন। এমনও দিন গেছে তাদের ঘরে কোন খাবার ছিলনা। মা অন্যের বাড়ি থেকে যে খাবার পেতেন সেই খাবারই তারা ভাগ করে খেতেন। তার বাবা-মা দুজনই অক্ষর জ্ঞানহীন। শিক্ষার আলো থেকে বঞ্চিত হওয়া মানুষ। তবুও তার মা-বাবার চাওয়া ছিল ছেলেমেয়েকে সুশিক্ষায় শিক্ষিত করার। তারই ফলশ্রুতিতে শত কষ্ট আর বাঁধা উপেক্ষা করে আজ তার এ পর্যন্ত আসা।

সন্তান কোলে মায়ের সঙ্গে বিথী সেন

বিথী সেন ২০০৬ সালে জঙ্গল সম্মিলনী মাধ্যমিক বিদ্যালয় থেকে এসএসসি, ২০০৮ সালে মাগুরা আদর্শ কলেজ থেকে এইচএসসি ও যশোর এমএম কলেজ থেকে দর্শন বিষয়ের ওপর স্নাতকোত্তর ডিগ্রি অর্জন করেন।

বিথী সেন তার গল্প শোনাতে গিয়ে জানান, আত্মীয় স্বজন, শিক্ষক ও সহপাঠিদের সহযোগিতায় কোন রকম দিন পার করেছে সে। কখনও স্বজনদের টাকা কখনও নিজের টিউশনির টাকা দিয়ে লেখাপড়া ও নিজের খরচ চালিয়েছে সে। স্বজনরাও মাঝে মাঝে টাকা দিতে গড়িমসি করতো। কিন্তু কখনও হাল ছাড়েননি সে। হতাশ হয়ে পড়লেই চোখের সামনে ভেসে আসত তার বাবা-মার জীর্ণশীর্ণ দেহ ও শুকনো মলিন মুখখানা। তখনই আবার নতুন উদ্দামে পথচলা শুরু করতেন। উচ্চ মাধ্যমিক পর্যন্ত বাড়ির সকল সদস্যদের পুরাতন কাপড় কিনে ব্যবহার করেছেন সে। নতুন পোশাক বলতে সে স্কুল ড্রেসকেই বুঝত।

সংগ্রামের কথা বলতে গিয়ে বিথী সেন বার্তা২৪.কমকে বলেন, তার কষ্টের কথা জানতে পেরে মাগুরা আদর্শ কলেজের তখনকার অধ্যক্ষ তাকে নতুন একসেট বই কিনে দেন এবং কলেজের বেতন মওকুফ করে দেন। এরপর থেকেই তার শিক্ষা জীবনের চলার পথ অনেকটা সহজ হয়ে যায়। এখান থেকে এইচএসসি পাস করার পর সে ভর্তি হন যশোর মাইকেল মদুসূদন মহাবিদ্যালয়ে।

টাকার অভাবে বাইর থাকার সামর্থ না থাকায় একবুক আশা নিয়ে ওঠেন পিসাতো বোনের বাসায়। কিন্তু তার পিসাতো বোন চাকরি করায় তাদের বাসার সকল কাজ ও বাচ্চাকে দেখাশুনা করতে হত তাকে। ফলে সে নিয়মিত ক্লাস করতে পারত না। তাকে কাজের লোক হিসেবে রেখেছিল। নিয়মিত ক্লাস করতে না পারায় তার প্রথম বর্ষের ফলাফর খারাপ হয়। পিসাতো বোনের কথা অমান্য করে সে দ্বিতীয় বর্ষে নিয়মিত ক্লাস করতে থাকে। বাসার কাজ করতে না পারায় পিসাতো বোন তাকে বাসা থেকে চলে যেতে বলেন। এরপর সে তার এক বান্ধবীর সহযোগিতা নিয়ে হোস্টেলে ওঠেন এবং টিউশনি করতে থাকেন। এভাবেই চলতে থাকে তার লেখাপড়া।

লেখাপড়া শেষে বিথী সেন নেমে পড়েন কর্মসংস্থানের। যেখানেই চাকরির বিজ্ঞপ্তি দেখেন সেখানেই আবেদন করতে থাকেন। ২০১৯ সালে তার প্রথম চাকরি হয় সহকারী স্টেশন মাস্টার হিসেবে। কিন্তু বিথী সেনের স্বপ্ন ক্যাডার হওয়ার। স্টেশন মাস্টারের দায়িত্ব পালন করার পাশাপাশি নিজেকে প্রস্তুত করতে থাকেন বিসিএস এর জন্য। অবশেষে তার সেই স্বপ্ন ধরা দেয় ৪০তম বিসিএস সাধারণ শিক্ষা ক্যাডারে। ২০২২ সালে ফরিদপুরের বোয়ালমারি সরকারি কলেজে সে প্রভাষক হিসেবে যোগদান করেন। এখনও সেখানেই কর্মরত রয়েছেন।

২০২২ সালে সে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন। তার স্বামী একজন ব্যাংকার। তাদের ঘবে এক বছর বয়সের একটি শিশু সন্তান রয়েছে। তার উপার্জিত টাকা দিয়ে সে তার বাবা-মা ও ভাইবোনকে সহযোগিতা করেন।

বিথী তার জীবনের গল্প শোনাতে গিয়ে সমাজের অবহেলিত দরিদ্র ও অসহায় নারীদের উদ্দেশ্যে বলেন, কোন বাধায় থেমে যাওয়া উচিত নয়। ধৈর্য্য ও সাহসের সাথে সকল প্রতিবন্ধকতা মোকাবিলা করতে হবে। তিনি চান- তাকে দেখে সমাজের অন্য নারীরা যেন অনুপ্রাণিত হন, নারীরা যেন নিজের পরিচয়ে পরিচিত হতে পারেন। নিজের পায়ে দাঁড়াতে পারলেই সমাজ থেকে নারীর ওপর সকল নির্যাতন ও অবহেলা বন্ধ হবে।

জঙ্গল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান কল্লোল বসু বার্তা২৪.কমকে বলেন, বিথী সেন একজন সংগ্রামী সফল নারী। সে সরকারি চাকরি পাওয়ার পর তার পরিবার এখন অনেক সুখে আছে। তার ভাই কুয়েট থেকে ইলেকট্রিক্যাল ইঞ্জিনিয়ার পড়াশোনা শেষ করেছেন। গ্রামের সবাই এখন তাকে অনুসরণ করে।

মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা আফরোজা জেসমিন বার্তা২৪.কমকে জানান, তার দফতর থেকে বিথী সেনকে সংগ্রামী সফল নারী হিসেবে স্বীকৃতি দেওয়া হয়েছে। বিথী সেনের জীবনের গল্প যদি সবাই জানতে পারে তাহলে দেশের হাজারো অবহেলিত অসহায় নারী জেগে ওঠতে পারবে, হতে পারবে স্বাবলম্বী।

   

ধান কাটতে গিয়ে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে কৃষকের মৃত্যু



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, রংপুর 
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

কাউনিয়ায় জমিতে ধান কাটতে গিয়ে সেচ পাম্পের তারে জড়িয়ে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে রফিকুল ইসলাম (৫৫) নামের এক কৃষকের মৃত্যু হয়েছে। 

শনিবার (২৫ মে) সকাল ৯ টার দিকে উপজেলার কুর্শা ইউনিয়নের চাঁনঘাট গ্রামে ঘটনাটি ঘটেছে। রফিকুল ইসলাম উপজেলার কুর্শা ইউনিয়নের চাঁনঘাট গ্রামের মৃত্যু উলি মাহমুদের ছেলে।

পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে কৃষক রফিকুল ইসলাম (৫৫) তার নিজের জমিতে বোরোধান কাটতে যান। আব্দুল গফুর নামের এক ব্যক্তির অবৈধভাবে বিদ্যুতের খুঁটি থেকে সংযোগ নেওয়া সেচ পাম্পের তার ঝড়ে ধান খেতে পড়ে যায়। অসাবধানতাবশত সে তারে হাত লেগে গেলে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে ঘটনাস্থলেই মারা যান তিনি। এ ঘটনায় পরিবারে শোকের ছায়া নেমে এসেছে। 

রংপুর পল্লীবিদ্যুৎ সমিতি কাউনিয়া জোনাল অফিসের এজিএম আলমগীর হোসেন ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। 

কাউনিয়া থানা অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মাহফুজার রহমান বিদ্যুৎস্পৃটে মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, নিহতের স্ত্রীর কোন অভিযোগ না থাকায় পরিবারের কাছে মরদেহ হস্তান্তর করা হয়েছে।

;

দেশে কেউ হতদরিদ্র ও গৃহহীন থাকবে না: প্রধানমন্ত্রী



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

  • Font increase
  • Font Decrease

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, দেশে কেউ হতদরিদ্র এবং গৃহহীন থাকবে না। দারিদ্রমুক্ত বাংলাদেশ করতে মূল হাতিয়ার হচ্ছে শিক্ষা। সেই লক্ষ্যে কাজ করছে সরকার।

তিনি বলেন, ধর্ম বর্ণ বলে কোন কথা নেই। আমরা মানুষের জন্য কাজ করি। জাতির পিতার স্বপ্ন পূরণ করাই আমাদের লক্ষ্য।

শনিবার (২৫ মে) দুপুরে গণভবনে বুদ্ধ পূর্ণিমা উপলক্ষে বৌদ্ধ সম্প্রদায়ের ধর্মীয় গুরু ও গণ্যমান্য ব্যক্তিদের সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময় অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

বাংলাদেশকে অসাম্প্রদায়িক দেশ হিসেবে গড়ে তুলেছে বর্তমান সরকার জানিয়ে সরকার প্রধান বলেন, অসাম্প্রদায়িক দেশ হিসেবে বিশ্বের দরবারে দৃষ্টান্ত সৃষ্টি করেছে বাংলাদেশ।

শেখ হাসিনা বলেন, ধর্মীয় উন্মাদনা সৃষ্টি করে বাংলাদেশকে বিপথে নেওয়ার চেষ্টা করেছিল ৭৫ এর খুনিরা। ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পরে সাম্প্রদায়িকতা দেখেছি। বর্তমান সরকার বাংলাদেশকে অসাম্প্রদায়িক দেশ গড়ে তুলেছে।

তিনি আরও বলেন, বাংলাদেশের পক্ষ থেকে নেপালে একটি বৌদ্ধ মন্দির করে দেওয়া হবে। পার্বত্য চট্টগ্রামে উৎপাদন বাড়ানোসহ কর্মসংস্থান সৃষ্টির জন্য কাজ করছে সরকার।

;

বন্দরে ৩ নম্বর স্থানীয় সতর্কসংকেত



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

পূর্ব-মধ্য বঙ্গোপসাগরে ও তৎসংলগ্ন পশ্চিম-মধ্য বঙ্গোপসাগর এলাকায় অবস্থান করা গভীর নিম্নচাপটি আজ রাত ৯টার দিকে ঘূর্ণিঝড়ে রূপ নিতে পারে। এর প্রভাবে বাংলাদেশের উপকূলীয় এলাকা এবং সমুদ্রবন্দরসমূহের ওপর দিয়ে ঝোড়ো হাওয়া বয়ে যেতে পারে। এ কারণে দেশের চার বন্দরে ৩ নম্বর স্থানীয় সতর্কসংকেত দেখাতে বলেছে আবহাওয়া অফিস।

শনিবার (২৫ মে) বেলা ২টার দিকে আবহাওয়া অধিদফতরের পরিচালক আজীজুর রহমান এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, এরই মধ্যে চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, মোংলা ও পায়রাবন্দর সমূহে ১ নম্বর সতর্ক সংকেত নামিয়ে ৩ নম্বর সতর্ক সংকেত দেখিয়ে যেতে বলা হয়েছে।

তিনি বলেন, সাগরের মধ্যভাগ দিয়ে যাওয়ায় আরও শক্তিশালী হতে পারে ঘূর্ণিঝড়টি। ঘূর্ণিঝড়টি রোববার সন্ধ্যা ৬টা থেকে রাত ৯টার খেপুপাড়া দিয়ে অতিক্রম করতে পারে। অগ্রভাগের প্রভাব দুপুরের পর থেকেই উপকূলে থাকতে পারে। জোয়ারের সময় ৭ থেকে ১০ ফুট উচ্চতার জলোচ্ছ্বাস হতে পারে। আর ভাটার সময় হতে পারে ৫ থেকে ৭ ফুট উচ্চতার জলোচ্ছ্বাস।

তিনি আরও বলেন, সারা দেশেই ভারী থেকে অতিভারী বর্ষণ হতে পারে। ঘূর্ণিঝড়ের কারণে জলোচ্ছ্বাস, ভারীবর্ষণ ও ভূমিধ্বস হতে পারে। তাই সকলকে সতর্ক থাকতে হবে। এই সময় সারা দেশে ৩ থেকে ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা কমতে পারে। আর উপকূলে ৭ ডিগ্রি পর্যন্ত কমতে পারে বলেও জানিয়েছেন আজীজুর রহমান।

;

এমপি আনার হত্যা তদন্তে ভারত যাচ্ছে ডিবি



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
ছবি: বার্তা ২৪

ছবি: বার্তা ২৪

  • Font increase
  • Font Decrease

ঝিনাইদহ ৪ আসনের সংসদ সদস্য আনোয়ারুল আজীম আনার হত্যার ঘটনা তদন্তে ভারতের কলকাতায় যাচ্ছে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি)'র একটি দল। 

শনিবার (২৫ মে) দুপুরে মিন্টো রোডের ডিবি কনফারেন্স হলে এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন ডিএমপির অতিরিক্ত কমিশনার মোহাম্মদ হারুন অর রশীদ।

তিনি বলেন, সংসদ সদস্য আনোয়ারুল আজীম আনার হত্যা মামলায় বাংলাদেশে একটি মামলা হয়েছে। পাশাপাশি কলকাতায় একটি হত্যা মামলা হয়েছে। এই ঘটনা তদন্তে কলকাতা পুলিশের চার সদস্যের একটি টিম বাংলাদেশে তদন্ত করছে। তাদের কাজ এখনো শেষ হয় নি। আজকেও তারা আসামিদের সঙ্গে কথা বলতে আসবে।

হারুন আরও বলেন, এই ঘটনা তদন্তে ডিবির পক্ষ থেকে একটি টিম কলকাতায় যাওয়ার বিষয়ে ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সঙ্গে আলোচনা হয়েছে। তাদের অনুমতি পেয়েছি। আমিসহ আরও কয়েকজন কর্মকর্তা আজ রাতে অথবা আগামীকাল সকালে রওনা দেবো। 

উল্লেখ্য, গত ১১ মে সংসদ সদস্য আনোয়ারুল আজীম আনার চিকিৎসার জন্য ভারতে যান। এরপর তিন দিন পার হলেও পরিবারের সদস্যরা তার সঙ্গে কোনো যোগাযোগ করতে পারেননি। ভারতে গিয়ে তিনি পশ্চিমবঙ্গের উত্তর ২৪ পরগনা জেলার বরানগর থানার ১৭/৩ মণ্ডল পাড়া লেনের বাসিন্দা ও তার দীর্ঘদিনের পরিচিত গোপাল বিশ্বাসের বাড়িতে ওঠেন।

মূলত ডাক্তার দেখানোর উদ্দেশ্যেই বাংলাদেশ থেকে ভারতে যান তিনি। পরে ১৩ মে দুপুরে ডাক্তার দেখানোর উদ্দেশ্যে বের হন। ওইদিন সন্ধ্যায় ফেরার কথা থাকলেও তিনি আর ফিরে আসেননি। পরবর্তীতে গত ১৮ মে বারানগর থানায় একটি নিখোঁজের অভিযোগ করেন গোপাল বিশ্বাস।

এদিকে, আনোয়ারুল আজীম আনারকে খুনের উদ্দেশ্য অপহরণের মামলায় ৪ জুলাইয়ের মধ্যে প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দিয়েছেন আদালত। বৃহস্পতিবার (২৩ মে) মামলার এজাহার আদালতে আসে। ঢাকার অতিরিক্ত চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মহবুবুল হকের আদালত তা গ্রহণ করে আগামী ৪ জুলাইয়ের মধ্যে প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দিয়েছেন।

এর আগে বুধবার (২২ মে) রাজধানীর শেরেবাংলা নগর থানায় খুন করার উদ্দেশ্যে অপহরণের অভিযোগে মামলাটি দায়ের করেন এমপি আনারের মেয়ে মুমতারিন ফেরদৌস ডরিন।

মামলায় তিনি উল্লেখ করেছেন, ‘মানিক মিয়া এভিনিউয়ের বাসায় আমরা সপরিবারে বসবাস করি। ৯ মে রাত ৮টার দিকে আমার বাবা আনোয়ারুল আজীম আনার গ্রামের বাড়ি ঝিনাইদহ যাওয়ার উদ্দেশে যাত্রা করেন। ১১ মে বিকেল পৌনে ৫টার দিকে বাবার সঙ্গে ভিডিও কলে কথা বললে বাবার কথাবার্তায় কিছুটা অসংলগ্ন মনে হয়। এরপর বাবার মোবাইল নম্বরে একাধিকবার কল দিলেও বন্ধ পাই।’

মামলায় তিনি আরও উল্লেখ করেন, ১৩ মে বাবার ভারতীয় নম্বর থেকে উজির মামার হোয়াটসঅ্যাপে একটি ক্ষুদেবার্তা আসে। এতে লিখা ছিল, ‘আমি হঠাৎ করে দিল্লি যাচ্ছি, আমার সঙ্গে ভিআইপি রয়েছে। আমি অমিত সাহার কাজে নিউটাউন যাচ্ছি। আমাকে ফোন দেয়ার দরকার নাই। আমি পরে ফোন দেবো। এছাড়া আরও কয়েকটি বার্তা আসে। ক্ষুদে বার্তাগুলো আমার বাবার মোবাইল ফোন ব্যবহার করে অপহরণকারীরা করে থাকতে পারে।’

;