যে খুনের গল্প সিনেমাকেও হার মানায়!



স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, চট্টগ্রাম ব্যুরো
যে খুনের গল্প সিনেমাকেও হার মানায়!

যে খুনের গল্প সিনেমাকেও হার মানায়!

  • Font increase
  • Font Decrease

চট্টগ্রামে শুধু একটি ডিএসএলআর ক্যামেরা হাতিয়ে নেওয়ার পরিকল্পনা থেকে যেভাবে ফাঁদে ফেলে ফটোগ্রাফার শাওন বড়ুয়াকে খুন করা হয়েছে তাতে বিস্মিত হয়েছেন পুলিশ সদস্যরাও। ওই কলেজছাত্রকে খুনের ঘটনায় পাঁচজনকে গ্রেফতারের পর হত্যাকাণ্ডের পুরো রহস্য উদঘাটন করেছে পুলিশ। সেই খুনের গল্প যেন সিনেমাকেও হার মানিয়েছে।

বুধবার (২৮ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে নগর পুলিশের অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার (উত্তর) পঙ্কজ দত্ত চান্দগাঁও থানায় এক সংবাদ সম্মেলন ডেকে ঘটনার পুরোটা তুলে ধরেন।

সংবাদ সম্মেলনে পঙ্কজ দত্ত জানান, নগরের চান্দগাঁও থানার বাহির সিগন্যাল এলাকার স্থানীয় বাসিন্দা আশহাদুল ইসলাম ইমন ও মো. তৌহিদুল আলম এক সময় অন্যজনের সহকারী হিসেবে বিভিন্ন বিয়ে অনুষ্ঠানে ছবি তোলার কাজ করতেন। তাদের কাছে কোনো ডিএসএলআর ক্যামেরা ছিল না। সেজন্য একটি ক্যামেরার শখ জাগে তাদের। বিষয়টি তারা এলাকার বড় ভাই মো. বাহারকে জানান। বাহারসহ মিলে এরপর ক্যামেরা ছিনতাইয়ের ফন্দি আঁটেন। সেই পরিকল্পনায় তারা যুক্ত করেন সিএনজিচালিত অটোরিকশা চালক মো. আলমগীর ও মো. ইমতিয়াজ আলম মুরাদ নামে আরও দু’জনকে।

তিনি জানান, শুরুতে পরিকল্পনা অনুযায়ী তারা ফটোগ্রাফিতে যুক্ত এমন বেশ কয়েকটি ফেসবুক পেজে যোগাযোগের সিদ্ধান্ত নেন। এর মধ্যে উচ্ছ্বাস বড়ুয়া নামের একটি ফেসবুক পেজে যোগাযোগ করে তারা সোমবার (২৬ ফেব্রুয়ারি) রাতে একটি বিয়েতে ছবি তোলার বিষয়ে কথা বলেন। তবে ওই পেজ থেকে জানানো হয় তারা এখন ফটোগ্রাফি করেন না, সেখান থেকে জনি বড়ুয়া নামের এক ফটোগ্রাফারের মুঠোফোন নম্বর দেওয়া হয়। তবে জনি বড়ুয়ার অন্য কাজ থাকায় তিনি শাওন বড়ুয়ার সঙ্গে যোগাযোগ করে কাজটি করবেন কিনা জানান। শাওন রাজি হলে ইমন-তৌহিদুলের সঙ্গে যোগাযোগ করিয়ে দেন জনি। এরই মধ্যে বিশ্বাস স্থাপন করতে মোবাইল আর্থিক লেনদেন সেবা-বিকাশে অগ্রিম ৫০০ টাকাও পাঠান ইমন-তৌহিদুল।


পুলিশ কর্মকর্তা পঙ্কজ দত্ত বলেন, ‘পরিকল্পনা অনুযায়ী ইমন ও তৌহিদুল সোমবার রাত ৮টা ২৫মিনিটের দিকে ফোন করে শাওনকে জানান তাকে ‘রিসিভ’ করতে মুরাদ নামের এক ছোট ভাই বাহির সিগন্যালের ব্যাপারী পাড়ার ভাঙা পুলের মাথায় অপেক্ষা করছেন। পরে শাওন মোটরসাইকেল চালিয়ে ওই এলাকায় আসেন। এরপর মুরাদকে নিজের মোটরসাইকেলের পেছনে বসান শাওন। এসময় মুরাদ শাওনকে জানান বিয়ের অনুষ্ঠানটা অনন্যা আবাসিক এলাকা হয়ে যেতে হবে। সে অনুযায়ী শাওন গাড়ি চালাচ্ছিলেন। পূর্ব পরিকল্পনা অনুযায়ী সিএনজি অটোরিকশাচালক আলমগীর গাড়িতে করে ইমন, তৌহিদুলকে নিয়ে তাদের পেছনে পেছনে যেতে থাকেন। তবে এক পর্যায়ে ফাঁদে পড়েছেন বিষয়টি আঁচ করতে পেরে শাওন দ্রুত গাড়ি চালিয়ে অনন্যা আবাসিকের দিকে চলে যান।

তিনি বলেন, ‘এক পর্যায়ে পকেট থেকে ছুরি বের করে মুরাদ বলে উঠেন, ‘কোনো বিয়ের অনুষ্ঠান নেই, ভালোমতো ক্যামেরাসহ ব্যাগটা দিয়ে দাও।’ এ নিয়ে দু’জনের মধ্যে ধস্তাধস্তিও হয়। পরে গাড়ি থামিয়ে মুরাদকে নামিয়ে দিয়ে চলে যেতে চান। এর মধ্যে ধস্তাধস্তির এক পর্যায়ে মুরাদ মাটিতে লুটিয়ে পড়লে শাওন তাকে ধাক্কা দিয়ে চলে যেতে চান। সুযোগ বুঝে মুরাদ শুরুতে শাওনের উঁরুতে ছুরিকাঘাত করেন। আহত অবস্থায় শাওন খুঁড়িয়ে খুঁড়িয়ে চলে যেতে চাইলে মুরাদ মাটি থেকে উঠে শাওনের শরীরের বিভিন্ন জায়গায় আরও ছয়টি ছুরিকাঘাত করে মৃত্যু নিশ্চিত করেন। এরপর বাহারকে ফোন করে শাওনকে মেরে ফেলার বিষয়টি জানালে তিনি মোটরসাইকেল চালিয়ে ঘটনাস্থলে আসেন। পরে শাওনের ক্যামেরাসহ ব্যাগটি নিয়ে মুরাদসহ দু’জনেই পালিয়ে যান। পরদিন মঙ্গলবার (২৭ ফেব্রুয়ারি) সকালে স্থানীয়দের কাছ থেকে খবর পেয়ে পুলিশ শাওনের রক্তাক্ত মরদেহ উদ্ধার করে। এরপরই ঘটনার কারণ বের করতে মাঠে নেমে পড়ে পুলিশের একটি দল।’

অভিযানে অংশ নেওয়া চান্দগাঁও থানার দু’জন উপপরিদর্শক (এসআই) বার্তা২৪.কমকে বলেন, ‘হত্যার পর ক্যামেরা নিয়ে পালিয়ে গেলেও শাওনের মুঠোফোনটি নিয়ে যায়নি হত্যাকারীরা। সেই মুঠোফোনই খুনি ও পরিকল্পনাকারীদের খোঁজ পাওয়ার কাজটি সহজ করে দেয়। প্রথমে আমরা জনি বড়ুয়াকে হেফাজতে নিই। তার মাধ্যমে যে নম্বর থেকে বিকাশ করা হয় সেটি বের করি। পরে বিকাশের দোকানে গিয়ে সিসি ক্যামেরার ফুটেজ বের করে বিকাশে টাকা পাঠানো ইমন ও তৌহিদুলকে শনাক্ত করি। এরপর অভিযান চালিয়ে জড়িত পাঁচজনকে গ্রেফতার করি।’ তবে হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে কোনো সম্পৃক্ততা না পাওয়ায় জনিকে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।

এই হত্যাকাণ্ডকে ‘বিরলতম’ বলেও মনে করছেন এই দুই পুলিশ কর্মকর্তা। তারা বলেন, ‘বহু সিনেমা এবং ওয়েব সিরিজ তৈরি হয়েছে হত্যার সত্য ঘটনা অবলম্বনে। আবার অনেক খুনের ঘটনা রয়েছে, যেগুলোর অনুপ্রেরণা হিসাবে কাজ করেছে সিনেমা বা ওয়েব সিরিজ। তবে শাওন বড়ুয়াকে হত্যার ঘটনায় হত্যাকারীরা কোনো সিনেমা বা ওয়েব থেকে অনুপ্রেরণা নিয়েছেন কিনা এখনো নিশ্চিত হইনি। তবে এটা ঠিক যেভাবে হত্যা করা হয়েছে সেটি সিনেমাতেই বেশি দেখা যায়।’

   

বিশ্বব্যাংক-আইএমএফের ঋণ আর নয়, এখন তাদের ক্ষতিপূরণ দেবার পালা



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট বার্তা২৪.কম, ঢাকা
বিশ্বব্যাংক-আইএমএফের ঋণ আর নয়, এখন তাদের ক্ষতিপূরণ দেবার পালা

বিশ্বব্যাংক-আইএমএফের ঋণ আর নয়, এখন তাদের ক্ষতিপূরণ দেবার পালা

  • Font increase
  • Font Decrease

যুক্তরাষ্ট্রের ওয়াশিংটনে চলমান বিশ্বব্যাংক-আইএমএফের বসন্তকালীন সম্মেলনের প্রাক্কালে সারাবিশ্বে নাগরিক সমাজ তাদের ঋণ ব্যবস্থার সমালোচনায় প্রতিবাদ সমাবেশ করছে আজ ১৯ এপ্রিল। তার অংশ হিসেবে বাংলাদেশের নাগরিক সমাজ জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে প্রতিবাদ সমাবেশের আয়োজন করে। এছাড়াও আজ বাংলাদেশ সময় রাত আটটায় সারাবিশ্বে একযোগে টুইটারে প্রতিবাদ বার্তা প্রকাশ করবে বৈশ্বিক নাগরিক সমাজ। তাদের মূল দাবি, জনগণের ওপর আরোপিত অনৈতিক ঋণ অবিলম্বে বাতিল করতে হবে। কারণ, বিশ্বের দরিদ্রদের প্রতি বিশ্বব্যাংক ও আইএমএফের দেনা রয়েছে।

এশিয়ান পিপলস মুভমেন্ট অন ডেট এন্ড ডেভেলপমেন্ট (এপিএমডিডি), বাংলাদেশ কৃষক ফেডারেশন, কোস্ট ফাউন্ডেশন, ওয়াটারকিপার্স বাংলাদেশ ও সিপিআরডি’র যৌথ উদ্যোগে আয়োজিত এই প্রতিবাদ সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন বাংলাদেশ কৃষক ফেডারশনের সাধারণ সম্পাদক জায়েদ ইকবাল খান এবং সঞ্চালনা করেন কোস্ট ফাউন্ডেশনের পরিচালক মোস্তফা কামাল আকন্দ। সভায় বক্তব্য রাখেন, জয় বাংলা জাতীয় শ্রমিক ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক লাভলি ইয়াসমিন, কোস্ট ফাউন্ডেশনের উপ-নির্বাহী পরিচালক সনত কুমার ভৌমিক, ওয়াটারকিপার্স বাংলাদেশের ইকবাল ফারুক, বিশ্ব গ্রামীণ নারী দিবস উদযাপন কমিটির সাধারণ সম্পাদক ফেরদৌস আরা রুমি, সিপিআরপি’র শেখ নূর আতাইয়া রাব্বি, এবং বাংলাদেশ ভুমিহীন সমিতির সাধারণ সম্পাদক ইঞ্জি: ফয়েজ আহমেদ খান।

কোস্ট ফাউন্ডেশনের উপ-নির্বাহী পরিচালক সনত কুমার ভৌমিক তার বক্তব্যে বলেন, রোহিঙ্গা শরণার্থীর আগমনের কারণে ক্ষতিগ্রস্ত স্থানীয় জনগোষ্ঠীর উন্নয়নে এবং জলবায়ু পরিবর্তনজনিত সমস্যা মোকাবেলায় বাংলাদেশকে ঋণ প্রস্তাব করা হচ্ছে। এসমস্ত সমস্যার জন্য আমরা কোনো অংশে দায়ী নই। তাহলে এর জন্য আমরা কেন ঋণ গ্রহন করব? এর জন্য যারা দায়ী, তাদের উচিত ক্ষতিপূরণ প্রদান করা।

বিশ্ব গ্রামীণ নারী দিবস উদযাপন কমিটির সাধারণ সম্পাদক ফেরদৌস আরা রুমি বলেন, উন্নত দেশ জার্মানি যেখানে ঋণের সুদ দেয় গড়ে মাত্র ১.৫%, আমেরিকা দেয় ৩.১%,  সেখানে আফ্রিকার দেশগুলো গড়ে সুদ দেয় ১১.৬%, এশিয়ার দেশগুলো ৬.৫%। যত দরিদ্র দেশ, তাদের সুদের হার তত বেশি। এর কারণ, পাবলিক প্রতিষ্ঠানগুলো তাদের আর ঋণ না দেয়ায় প্রাইভেট প্রতিষ্ঠান থেকে তারা উচ্চ সুদে ঋণ গ্রহণ করছে।

বাংলাদেশ কৃষক ফেডারেশনের সাধারন সম্পাদক জায়েদ ইকবাল খান বলেন, উন্নয়নশীল দেশগুলো ঋণ শোধ করে মূলত তাদের রপ্তানী আয় থেকে। গত এক দশকে তাদের সেই সক্ষমতা শেষ হয়ে গিয়েছে। ২০১০ সালে উন্নয়নশীল দেশগুলোর ঋণ ছিল তাদের রপ্তানীর ৭১%, যা ২০২২ সালে এসে দাঁড়িয়েছে ১১২%। অর্থাৎ, ইতিমধ্যে আয়ের তুলনায় অনেক বেশি ঋণ তারা ইতিমধ্যে করে ফেলেছে এবং ঋণ করেই যাচ্ছে।

সভা সঞ্চালনাকালে কোস্ট ফাউন্ডেশনের মোস্তফা কামাল আকন্দ বলেন, বিশ্বের উন্নয়নশীল দেশগুলো তাদের ঋণের সুদ পরিশোধ করতেই তাদের সম্পদ শেষ করে ফেলছে। বিশ্বব্যাংক থেকে ঋণ গ্রহণ করা ১৩৯টি দেশ তাদের রাজস্ব বাজেটের ৩৫% ব্যয় করে এই ঋণ পরিশোধ খাতে। নিম্ন আয়ের দেশ ও নিম্ন মধ্য আয়ের দেশের ব্যয় হয় যথাক্রমে ৫৭.৫% এবং ৪৪.৫%। তিনি বলেন, আমরা দরিদ্র জনগণের উপর আরোপিত এই গণঋণ প্রত্যাখ্যান করছি, কারণ দারিদ্রের পেছনে বিশ্বব্যাংক ও আইএমএফের দায় রয়েছে। ঋণ নয়, তাদের উচিত ঐতিহাসিক দেনা পরিশোধ করা।

আজ সকাল দশটায় জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে আয়োজিত এই প্রতিবাদ সমাবেশে, আজ সারা পৃথিবীতে বাংলাদেশ সময় রাত আটটায় এক যোগে টুইটারের মাধ্যমে যে প্রতিবাদের ঝড় তোলা হবে, তাতে সর্বস্তরের সকল মানুষকে অংশগ্রহনের আহ্বান জানানো হয়।

;

‘২৮৫ বিজিপি ও সেনাসদস্যকে ২২ এপ্রিল ফেরত পাঠানো হবে’



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট বার্তা২৪.কম, ঢাকা
পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ

পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ

  • Font increase
  • Font Decrease

জীবন বাঁচাতে মিয়ানমার থেকে পালিয়ে এসে বাংলাদেশে আশ্রয় নেওয়া ২৮৫ সীমান্তরক্ষী বাহিনী বর্ডার গার্ড পুলিশের (বিজিপি) ও সেনাবাহিনীর সদস্যকে ২২ এপ্রিল নৌপথে ফেরত পাঠানো হবে।

শুক্রবার (১৯ এপ্রিল) বিকেলে বিশ্ব জোড়া শেখ হাসিনার আসন খানি বইয়ের মোড়ক উন্মোচন অনুষ্ঠানে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ।

তিনি বলেন, বাংলাদেশে আশ্রয় নেওয়া মিয়ানমার সীমান্তরক্ষী ও সেনাবাহিনীর ২৮৫ সদস্যকে ফেরত নিতে আশ্বস্ত হয়েছে দেশটি। আগামী ২২ এপ্রিল আশ্রয় নেওয়া বিজিপি সদস্য ও সেনা বাহিনীর সদস্যদের জাহাজ যোগে তাদেরকে ফেরত পাঠানো হবে। এবিষয়ে চূড়ান্ত আলোচনা হয়েছে। যে জাহাজটি তাদের নিতে আসবে। সে জাহাজে মিয়ানমারে আটকে থাকা ১৫০ জন বাঙালিকে নিয়ে আসা হবে।

;

বার্তা২৪.কম-কে একান্ত সাক্ষাৎকারে ড. সাহাব এনাম খান

‘মধ্যপ্রাচ্য সংকটে প্রথম ভিকটিম বাংলাদেশের মতো উন্নয়নশীল দেশগুলি’



আশরাফুল ইসলাম, পরিকল্পনা সম্পাদক বার্তা২৪.কম
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

ইসরায়েল-হামাস এর সংঘাতের পথ ধরে ফিলিস্তিনে ইসরাইলি বর্বরতার কোন কিনারা না হতেই ফের ইসরায়েল-ইরান সংঘাত গোটা মধ্যপ্রাচ্যের স্থিতিশীলতার জন্য বিরাট হুমকি হয়ে দাঁড়িয়েছে। আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিশেষজ্ঞ, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের অধ্যাপক ড. সাহাব এনাম খান এমনটাই মনে করেন। তিনি বলেছেন, মধ্যপ্রাচ্যে অস্থিতিশীলতার প্রথম ভিকটিম হবে বাংলাদেশের মতো উন্নয়নশীল দেশগুলো। চলমান এই সংকটকে ‘দীর্ঘমেয়াদী’ উল্লেখ করে সম্ভাব্য পরিস্থিতি মোকাবেলায় বাংলাদেশকে শুধুমাত্র গার্মেন্টস আর রেমিটেন্স নির্ভর হয়ে না থেকে আন্তর্জাতিক বাণিজ্য কুটনীতিকে ঢেলে সাজাতে হবে। বার্তা২৪.কম-কে দেওয়া একান্ত সাক্ষাৎকারে এসব কথা বলেন অধ্যাপক সাহাব। কথা বলেছেন পরিকল্পনা সম্পাদক আশরাফুল ইসলাম

বার্তা২৪.কম: মধ্যপ্রাচ্যের সাম্প্রতিক উত্তেজনাকর পরিস্থিতিকে কিভাবে মূল্যায়ন করবেন? এটি কি ধরণের বৈশ্বিক চ্যালেঞ্জ তৈরি করছে, বিশেষ করে আমাদের মত উন্নয়নশীল দেশের জন্য?

ড. সাহাব এনাম খান: মধ্যপ্রাচ্য পরিস্থিতি পুরোই আনপ্রেডিকটেবল এবং এই আনপ্রেডিকটেবিলিটি অনেক লম্বা সময় ধরে থাকবে। এই আনপ্রেডিকটেবিলিটি শুধু ইসরায়েল বা ইরান ক’দিন লাফালাফি করলো এরপর আবার বন্ধ হয়ে গেল এরকম না। এই আনপ্রেডিকটেবিলিটি অনেকটা লম্বা সময় ধরে চলতে থাকবে এবং এর মূল কেন্দ্রবিন্দু থাকবে ইসরায়েল। ইসরায়েলেকে ঘিরেই আরব ও পশ্চিমা বিশ্বের সম্পর্ক। সুতরাং এখানে ইসরায়েলকে কেন্দ্র করে ভোলাটাইলিটি। আর এর মূল দিকটা হল পশ্চিমা বিশ্বই এটাকে হ্যান্ডেল করে। স্পষ্ট করে বলতে গেলে এখানে আরববিশ্বের কোন রোল নেই বাক্-যুদ্ধ করা ছাড়া। আরেকটা পয়েন্ট আছে তা হচ্ছে-এই ঘটনাগুলির প্রেক্ষিতে এখন একটি বড় মেরুকরণ হয়ে গেছে রাশিয়া-চীন-তুরস্ক-ইরান, এদেরকে কেন্দ্র করে। অন্যদিকে ইসরায়েলকে ঘিরে পশ্চিমা বিশ্বেও একটা মেরুকরণ হয়ে গেছে। এই মেরুকরণ বিশ্ব অর্থনীতিতে ব্যাপক প্রভাব ফেলবে। এরা চাইবে ওয়েস্ট এটা করতে না পারুক, যে কারণে বিশ্ব অর্থনীতি ও মুদ্রা ব্যবস্থার ওপর একটা বড় রকমের চাপ পড়বে। যার প্রথম ভিকটিম হবে উন্নয়নশীল দেশগুলি।

বার্তা২৪.কম: তার মানে কি এটি স্পষ্ট হয়ে উঠছে যে বিশ্বব্যবস্থায় পশ্চিমা মনোপলি ভেঙে পড়েছে?

ড. সাহাব এনাম খান: একদমই। এজন্যই তো বিশ্বে মোটাদাগে মেরুকরণ তৈরি হয়েছে। পশ্চিমা বিশ্বের মনোপলিতে ইসরায়েল রয়েছে কিন্তু ইরান নেই। তবে পশ্চিমাদের সঙ্গে ইসরায়েলের সম্পর্কটা কি হবে, তারা এই সম্পর্ককে কিভাবে হ্যান্ডেল করবে তার ওপর নির্ভর করবে সামনের দিনগুলি কি রকম হবে। আরবদের সঙ্গে ইসরায়েলের সম্পর্ক কেমন হবে সেটা এখানে ম্যাটার করবে না।

বার্তা২৪.কম: পশ্চিমাদেশসমূহ, বিশেষ করে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র প্রকাশ্যে যে বক্তৃতা-বিবৃতি দেয় আর তাদের ভেতরকার যে স্ট্যান্ড তার মাঝে কি এক ধরণের বৈপরিত্য লক্ষ্য করা যায় না…অন্ততঃ পরিস্থিতি মূল্যায়ন করলে?

ড. সাহাব এনাম খান: তা তো বটেই। আরও একটি বিষয় যোগ করব, তা হচ্ছে-মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের আসন্ন নির্বাচনও গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। এ কারণে ইসরায়েল-পশ্চিমা সংযোগটি একটা লম্বা সময় ধরে অস্থিরই থাকবে। ঠিক এ কারণেই বিশ্ব অর্থনীতি ও মুদ্রা ব্যবস্থায় বড় রকমের চাপ তৈরি হচ্ছে। যার প্রভাব বাংলাদেশের মত উন্নয়নশীল দেশগুলিতে হবেই।

বার্তা২৪.কম: কি ধরণের প্রভাব পড়তে পারে বলে মনে করেন আপনি?

ড. সাহাব এনাম খান: প্রথমতঃ বিভিন্ন রকমের স্যাংশন, অলটারনেটিভ কারেন্সির প্রেশার আসবে। দ্বিতীয়তঃ কৌশলগত কুটনৈতিক চাপও প্রচুর আসবে এই সময়ে। ফিলিস্তিনের পাশে দাঁড়ানোর আমাদের এক ধরণের সাংবিধানিক অঙ্গীকারও আছে, আমরা তা দেখিয়েও আসছি। রোহিঙ্গাদের ক্ষেত্রেও আমরা একই অবস্থান নিয়েছি। বিপন্ন মানবতার পক্ষে দাঁড়ানো।

বার্তা২৪.কম: বাস্তবতার নিরিখে আমাদের কি ধরণের সতর্কতা অবলম্বন করা উচিত?

ড. সাহাব এনাম খান: আন্তর্জাতিক বাণিজ্য নিয়ে আমাদের সম্পর্ণ নতুন করে চিন্তা ভাবনা করা দরকার। শুধুই গার্মেন্টস আর রেমিটেন্স নির্ভর হয়ে থাকলে হবে না। বর্তমান বিশ্ব পরিস্থিতির কারণে আমরা যতটা না হিট হব বা ইউক্রেন সংকটে যতটা হয়েছি-ভারত কিন্তু ততটা হয়নি এর কারণ ভারতের অর্রথনীতির ডাইভার্সিটি আছে। আমি মনে করি-চারটি জায়গায় আমাদের খুব জোর দিয়ে কাজ করতে হবে। প্রথমতঃ এনার্জি সিকিউরিটি, আরও স্পষ্ট করে বললে স্বনির্ভর এনার্জি অর্জন করতে হবে আমাদের, যা জাতীয় স্বার্থের সঙ্গে সরাসরি সম্পৃক্ত। এখানে উল্লেখ করা প্রয়োজন, আমাদের দেশের জাতীয় স্বার্থকে অনেকে ব্যকিক্তগত স্বার্থের সঙ্গে গুলিয়ে ফেলেন। জাতীয় স্বার্থে আমাদের জ্বালানি নিরাপত্তা ইন্ডিজেনাস সোর্স থেকে করতে হবে। অদক্ষ এনার্জি ইনস্টিটিউশনস দিয়ে আমাদের হবে না। পুরো জ্বালানি ব্যবস্থাকে ঢেলে সাজাতে হবে।

দ্বিতীয়তঃ আমাদের বাণিজ্য কুটনীতিতে কেবল মৌখিকভাবে বললে হবে না, প্রায়োগিক অর্থে বাণিজ্য কুটনীতি জোরদার করতে হবে। এর মধ্যে নম্বার ওয়ান প্রায়োরিটি থাকবে, ‘ডাইভার্সিটি’। অর্থাৎ অর্থনীতির নানা খাত চাঙা করে তুলতে হবে।   

তৃতীয়তঃ আরব দেশগুলির সঙ্গে বিদ্যমান যে সম্পর্কে আছে, তাকে আরও গভীর করতে হবে। সেইসঙ্গে বৈশ্বিক এই উত্তেজনা ও সংঘাতে উন্নয়নশীল আরও যেসব দেশ আক্রান্ত হবে তাদের সঙ্গেও শক্তিশালী জোটবদ্ধতা তৈরি করা জরুরি। আমরা ব্রিকসে যেতে আগ্রহী না হয়ে নিজেরা একটা কিছু করতে চেষ্টা করতে পারি, যেখানে নিজেদের স্বার্থ অগ্রাধিকার পাবে। যেখানে বাংলাদেশের মত এমন অনেক দেশ বিদ্যমান পরিস্থিতিতে শঙ্কায় আছে। যদি বাংলাদেশ অনেকগুলি ইকনমিকে একসঙ্গে নিয়ে একটি কালেক্টিভ ভয়েস তৈরি করতে পারে তবেও তা কার্যকর ফল বয়ে আনবে।

অনেক দেশই আমাদের অনেক কথা বলবে, কিন্তু তা প্রায়োগিক ক্ষেত্রে কতটা ফলপ্রুসু হবে তা আমাদের চিন্তা করে দেখতে হবে। অন্ততঃ এক দশক ধরে বাংলাদেশ বাণিজ্য বহুমূখিকরণের কথা বলে আসছে, কিন্তু কি রপ্তানি করবে, কি আছে-তা নিয়ে কোন কাজ হচ্ছে না। এখানে ইন্ডিজেনাস কোন ইন্ডাষ্ট্রি সৃষ্টি করছে না, সম্ভাবনাময় পাটকে নিয়ে সেভাবে বড় রকম কিছু করা গেল না। তার মানে কেবল কথা নয়, প্রায়োগিক অর্থে বাস্তবভিত্তিক প্রচেষ্টা নেওয়া দরকার।

চতুর্থ হচ্ছে-অভ্যন্তরীণ বাজারকে আরও শক্তিশালী ও সম্প্রসারণ করা। এই মুহূর্তে বাংলাদেশের অভ্যন্তরীণ বাজার বহুলাংশে পরনির্ভরশীল হয়ে আছে। ভারতে একটি ক্যাডবেরি চকলেট ব্রিটিশ স্ট্যান্ডার্ডে নিজেরা উৎপাদন করে ভোক্তাদের দেয়। তাতে ফরেন কারেন্সি নিয়ে আর ঝামেলা থাকে না। বাংলাদেশে পুরনো গাড়ি কিনতে মানুষজন একেবারে উদগ্রিব। এতবড় মার্কেট থাকতে কেন এখানে ইন্ডিজেনাস কার ইন্ডাষ্ট্রি হচ্ছে না? এটা যদি ভুটান বা মালদ্বীপের মতো স্বল্প জনসংখ্যার দেশ হতো তাহলে চিন্তা করা যেত, কিন্তু ব্যাপারটি তো আসলে তা নয়। আমরা পুরনো গাড়িতে চড়তে পারলেই খুব স্বস্তি পাই, কারণ বাস্তবতা হচ্ছে গাড়ি একটি প্রয়োজন। যেখানে অর্থনৈতিক উৎপাদনশীলতা বেড়েছে, স্কেল বেড়েছে; স্বাভাবিকভাবে মানুষের মবিলিটি বাড়বে। কিন্তু এখানে ২০০-৪০০% ট্যাক্স দিয়ে আমদানি করে মানুষের প্রোডাক্টিভিটি ও সেফটিকে ছোট করে ফেলা হচ্ছে।

২০২৬-এ উন্নয়নশীল দেশ হিসবে রূপান্তর নিয়ে অনেক হইচই হচ্ছে, কিন্তু এখানকার ওষুধশিল্প নিয়ে কি হবে? সরকার সাবসিডি দিয়ে এপিআই তৈরি করুক, তা দিয়ে কমোডিটিজগুলো তৈরি করা হোক-কিন্তু এসব বাদ দিয়ে সব হাতি-ঘোড়া মারার চিন্তাভাবনা আমাদের ভর করছে, যা মোটেও উচিত নয়।

বার্তা২৪.কম: সম্ভাবনা ও বৈচিত্রকে নিরুৎসাহিত করার অন্তরায় কি তবে বাড়তি আমলাতান্ত্রিক নির্ভরতা?

ড. সাহাব এনাম খান: অবশ্যই, অর্থনীতি কখনো আমলানির্ভর হতে পারে না। এখানে প্রাইভেট সেক্টরকে আরও নীতিনির্ধারণে আনা দরকার। প্রাইভেট সেক্টর মুনাফায় বিশ্বাস করে। সুতরাং তারা সব সময় বৈচিত্র চাইবে। আমলারা যদি এক্সপোর্ট ডাইভার্সিফিকেশন বুঝতে পারতেন তবে পাট শিল্প কেন মুখ থুবড়ে পড়ল? আমি মনে করি, এক্সটেন্সিভ প্রাইভেটাইজেশনে গিয়ে আমলা নির্ভরতাকে কমিয়ে ক্রিয়েটিভ ইন্ডাষ্ট্রিকে এখানে ঢুকাতে হবে। বর্তমান বৈশ্বিক সংকটে এটি দেশের অর্থনীতিকে অনেক সহায়তা করবে।

বার্তা২৪.কম: মিয়ানমার সীমান্তে উত্তেজনা তো থামছেই না, কোন টেকসই সমাধানের পথ কি দেখেন আপনি?

ড. সাহাব এনাম খান: টেকসই সমাধান তখনই হবে যখন আরাকান স্থিতিশীল হবে। আরাকানকে স্থিতিশীল করতে বাংলাদেশের একটি সন্মুখ ভূমিকা থাকা প্রয়োজন। অনেকভাবেই তা হতে পারে-একক সহায়তা হতে পারে বা অবকাঠামো উন্নয়নে ভূমিকা রাখা যেতে পারে। ওদের সিভিল সোসাইটি, পলিটিক্যাল সোসাইটিকে শক্তিশালী করতে পদক্ষেপ নেওয়া যেতে পারে। দেখা যাবে আমেরিকানরা আললান্টিকের ওপার থেকে এসে ঠিকই করে ফেলছে। বাংলাদেশ তো গণতন্ত্রের কথা বলছে, তাহলে সেখানে গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারে বাংলাদেশ কাজ করতেই পারে। এখানে শুধু আরাকান আর্মি নয়-যেসব অ্যাক্টরগুলো সেখানে সক্রিয় তাদের সঙ্গে আমাদের এনগেজ হতে হবে। কারণ এদের ছাড়া রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন সম্ভব হবে না। তাতমাদো (মিয়ানমারের সরকারি সামরিক বাহিনী) এটি সমাধান করবে না। কিংবা তাতমাদো রাখাইনে গেড়ে বসলেও রোহিঙ্গা সংকট সমাধান হবে না। তাতমাদো যদি না থাকতে পারে, আরাকান আর্মি আসে, তাতেও সমাধান আসবে না, যদি তাদের সঙ্গে সম্পর্ক না রাখা হয়। যদিও রোহিঙ্গা ইস্যুতে গত এক বছরে বাংলাদেশের অনেক অগ্রগতি হয়েছে, তার আগে কিছু হয়নি।

সম্পাদনা: মাহমুদ মেনন, এডিটর-অ্যাট্-লার্জ, বার্তা২৪.কম

;

সাড়ে ৪ লাখ টাকার গাঁজাসহ কারবারী আটক



ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, বরগুনা
সাড়ে ৪ লাখ টাকার গাঁজাসহ কারবারী আটক

সাড়ে ৪ লাখ টাকার গাঁজাসহ কারবারী আটক

  • Font increase
  • Font Decrease

কুমিল্লা থেকে গাঁজা বিক্রি করতে এসে সাড়ে ৪ লাখ টাকার ৬ কেজি গাঁজাসহ আটক হয়েছে সোহেল নামে এক মাদক কারবারি।

শুক্রবার (১৯ এপ্রিল) সকালে বরগুনা জেলা গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশের একটি টিম গোপন সংবাদের ভিত্তিতে আমতলী উপজেলার সীমান্ত এলাকা শাখারিয়া বাসস্ট্যান্ড থেকে একটি ব্যাগের ভিতর থেকে ওই গাঁজাগুলো উদ্ধার করে জব্দ করে। ওই সময় তারা গাঁজা বহনকারী কারবারী সোহেলকে আটক করে জিজ্ঞাসাদের জন্য বরগুনা জেলা ডিবি কার্যালয়ে নিয়ে যায়।

আটককৃত মাদক কারবারি সোহেল কুমিল্লার কোতোয়ালি থানার ধর্মপুর এলাকার বশিরুল্লাহর ছেলে। পেশায় সে একজন স্যানিটারী মিস্ত্রি। ভারত থেকে চোরাইপথে আসা গাঁজা আখাউড়া থেকে সংগ্রহ করে সড়ক পথে বরগুনার আমতলীতে বিক্রি করার উদ্দেশ্য নিয়ে আসার সময় পথিমধ্যে জেলা গোয়েন্দা (ডিবি)'র অভিযানে ধরা পড়ে যায়।

এ বিষয়ে বরগুনা জেলা গোয়েন্দা (ডিবি) শাখার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোঃ বশির আলম বার্তা২৪.কমকে বলেন, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে আমার নেতৃত্বে উপ- পরিদর্শক জ্ঞান কুমার দাস, মোঃ বশির আহমেদ, সহকারী পরিদর্শক রুবেল হাওলাদার, ডিবি সদস্য প্রিন্স সিমলাই, মাহমুদসহ গোয়েন্দা পুলিশের একটি টিম গভীর রাত থেকে আমতলীর সীমান্ত এলাকা শাখারিয়া বাসস্ট্যান্ডে অবস্থান করি।

চট্টগ্রাম থেকে ছেড়ে আসা কুয়াকাটাগামী হানিফ পরিবহনে তল্লাশি চালিয়ে ৬ কেজি গাঁজাসহ সোহেল নামে ওই মাদক কারবারীকে হাতেনাতে আটক করতে সক্ষম হই। আটক কারবারীকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য জেলা গোয়েন্দা (ডিবি) কার্যালয়ে নিয়ে আসা হয়েছে। জিজ্ঞাসাবাদ শেষে বিধি মোতাবেক তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

 

;