অটোরিকশা ভ্যান চলাচলে নিষেধাজ্ঞা ক্ষোভে ফুঁসছেন চালকেরা



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা ২৪.কম
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

সংস্কার কাজ চলায় বন্ধ পোস্তগোলা সেতু। বিকল্প সড়ক হিসেবে বাধ্য হয়ে বাবুবাজার সেতু ব্যবহার করছে পরিবহন শ্রমিকরা। এতে করে বাবুবাজার সেতুতে সকাল থেকে শুরু হয় তীব্র যানজট।

এদিকে নিয়মিত বাবুবাজার ব্রীজ ব্যবহার করে চলাচল করা অটোরিকশা ভ্যান চালকেরা পরেছেন বিপাকে। প্রতিদিন কয়েক হাজার রিকশা ভ্যান অটোরিকশা এই সেতুর উপর চলাচল করলেও বৃহস্পতিবার (২২ ফেব্রুয়ারি) সকাল থেকে এসব যান চলাচলে নিষেধাজ্ঞা দেয় ট্রাফিক লালবাগ বিভাগ। আর এমন সিদ্ধান্তে ক্ষোভে ফুঁসছেন অটোরিকশা ও ভ্যান চালকেরা।

পুলিশ বলছে যান চলাচল নিয়ন্ত্রণ করতে গত তিন দিন ধরে মাইকিং করা হলেও তা মানতে নারাজ অটোরিকশা চালকেরা। তাদের দাবি আগের মতোই নিয়মিত চলাচল করতে দিতে হবে তাদের। কিন্তু যানজট নিরসনে তাদের দাবি মানা সম্ভব না।

গত (১৮ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে ডিএমপি ট্রাফিক লালবাগ বিভাগের পক্ষ থেকে যানজট নিরসনে সেতুর উপর দিয়ে সকল ধরনের রিকশা, ভ্যান এবং থ্রি-হুইলার চলাচলে নিষেধাজ্ঞা দেয়া হয়েছিল।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে গত তিন চার দিন আগে থেকে মাইকে প্রচার করা হলেও তা মানতে চাইছে না অটোরিকশা ভ্যান চালকেরা। বিভিন্ন অজুহাতে ট্রাফিককে ফাঁকি দিয়ে সেতু পার হবার চেষ্টা করছেন অনেক চালক। আবার ট্রাফিক পুলিশের সঙ্গে অনেকে জড়িয়ে পরছেন তর্ক-বিতর্কে।

অটোরিকশা চালক সুমন নয়াবাজার থেকে সেতুর অপরপ্রান্তে কদমতলির উদ্দেশ্য যাচ্ছিলেন। এমন সময় একজন ট্রাফিক পুলিশ তাকে বাধা দিলে চটে যান তিনি। বার্তা২৪.কমকে সুমন বলেন, আমি প্রতিবন্ধী অটোরিকশা চালিয়ে খাই। আমার বাসা নদীর ওপারে। যদি গাড়ি নিয়া বাসায় (কদমতলি) না যাই তাইলে গাড়ি নিয়া থাকুম কই রাস্তায়? মাইকিং এর বিষয়ে জানতে চাইলে সুমন জানায় আমি তো জানিনা। জানলে তো আইতাম না।

ভ্যানে করে ফল নিয়ে কেরানীগঞ্জের উদ্দেশ্যে যাচ্ছিলেন আসাদুর রহমান। তিনি বলেন, সকালে ফল কিনতে আইছি ফজরের সময়। দোকানের জন্যে ফল কিনে ভ্যানে করে যাচ্ছিলাম পুলিশ ভ্যান আটকে দিছে। এখন এগুলো যদি নিতে না পারি তাহলে তো নষ্ট হয়ে যাবে। করোনারার সময় ফলের গাড়ি আটকায়নি। কিন্তু এখন কি এমন হইলো যে ফলের গাড়ি আটকায়। এগুলো তো কাঁচামাল তাইনা।

এসব বিষয়ে জানতে চাইলে সহকারী পুলিশ কমিশনার ট্রাফিক (কোতোয়ালি জোন) পীযুষ কুমার দে বার্তা২৪.কমকে জানান, সকাল থেকে তারা যানযট নিরসনে কাজ করে যাচ্ছেন। যেহেতু আগামী ৮ মার্চ পর্যন্ত পোস্তগোলা সেতুর সংস্করণ কাজ চলবে তাই তারা বাবুবাজার সেতুর দুই পাশেই বাড়তি ট্রাফিক ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে। তিনি জানান, সকল ধরনের রিকশা ভ্যান এই পথে আপাতত চলাচল নিষেধ করা হচ্ছে। এছাড়া গত তিন দিন ধরে এখানে মাইকিং করা হচ্ছে। তবে জরুরি প্রয়োজন অনুশারে সাধারণ মানুষকে সহযোগিতাও করা হচ্ছে ট্রাফিকের পক্ষ থেকে।

   

মণিরামপুর ও কেশবপুর উপজেলা নির্বাচনে প্রতীক বরাদ্দ



ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, যশোর
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

ষষ্ঠ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে প্রথম ধাপে যশোরের মণিরামপুর ও কেশবপুর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে প্রার্থীদের মধ্যে প্রতীক বরাদ্দ করা হয়েছে।

মঙ্গলবার (২৩ এপ্রিল) জেলা নির্বাচন অফিসের হলরুমে প্রতীক বরাদ্দ করেন জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা আনিছুর রহমান।

নির্বাচনে কেশবপুর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পদে সাতজন, ভাইস চেয়ারম্যান পদে পাঁচজন এবং নারী ভাইস চেয়ারম্যান পদে দুইজন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

অন্যদিকে, মণিরামপুর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পদে তিনজন, ভাইস চেয়ারম্যান পদে চারজন এবং নারী ভাইস চেয়ারম্যান পদে ছয়জন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

কেশবপুর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পদে আব্দুল্লাহ-নূর-আল আহসান (দোয়াত-কলম), এসএম মাহবুবুর রহমান (মোটরসাইকেল), কাজী মুজাহীদুল ইসলাম (হেলিকপ্টার), নাসিমা আকতার সাদেক (শালিক), ইমদাদুল হক (আনারস), ওবায়দুর রহমান (জোড়া ফুল), মফিজুর রহমান (ঘোড়া)।

এ উপজেলার ভাইস চেয়ারম্যান পদে আব্দুল্লাহ আল মামুন (তালা), পলাশ কুমার মল্লিক (উড়োজাহাজ), আব্দুল লফিত রানা (মাইক), মনিরুল ইসলাম (টিউবওয়েল) ও সুমন সাহা (চশমা)।

নারী ভাইস চেয়ারম্যান পদে মনিরা খানম (কলস) ও রাবেয়া খাতুন (ফুটবল) প্রতীক পেয়েছেন।

এদিকে, মণিরামপুর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পদে আমজাদ হোসেন লাভলু (আনারস), ফারুক হোসেন (মোটরসাইকেল) এবং মিকাইল হোসেন (ঘোড়া) প্রতীক পেয়েছেন।

ভাইস চেয়ারম্যান পদে এসএম আব্দুল হক (তালা), মুনজুর আক্তার (চশমা), শরিফুল ইসলাম (টিয়া পাখি), সন্দীপ কুমার ঘোষ (টিউবওয়েল)। নারী ভাইস চেয়ারম্যান পদে আমেনা বেগম (হাঁস), কাজী মোছা. জলি আক্তার (কলস), মাহবুবা ফেরদৌস পাপিয়া (বৈদ্যুতিক পাখা), জেসমিন (প্রজাপতি), মাজেদা খাতুন (পদ্মফুল) ও সুরাইয়া আক্তার (ফুটবল) প্রতীক পেয়েছেন।

প্রসঙ্গত, নির্বাচন কমিশন ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী, প্রথম ধাপের মনোনয়নপত্র বাছাই ১৭ এপ্রিল। রিটার্নিং কর্মকর্তার সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে আপিল ১৮ থেকে ২০ এপ্রিল। আপিল নিষ্পত্তি ২১ এপ্রিল, প্রার্থিতা প্রত্যাহারের শেষ সময় ২২ এপ্রিল। প্রতীক বরাদ্দ ২৩ এপ্রিল আর ১৫০ উপজেলায় ভোটগ্রহণ হবে ৮ মে।

এই ধাপের নির্বাচনে রিটার্নিং কর্মকর্তা হিসেবে জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা ও সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা হিসেবে উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তাদের নিয়োগ করা হয়েছে। রিটার্নিং কর্মকর্তার সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে দায়ের করা আপিল আবেদন নিষ্পত্তি করবেন আপিল কর্তৃপক্ষ হিসেবে জেলা প্রশাসক।

;

চানখাঁরপুলে ফুটপাতে পড়ে ছিল যুবকের মরদেহ



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
ফাইল ছবি

ফাইল ছবি

  • Font increase
  • Font Decrease

রাজধানীর চানখাঁরপুলের ফুটপাত থেকে এক অজ্ঞাত যুবকের মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। তার বয়স আনুমানিক ৩২ বছর।

মঙ্গলবার (২৩ এপ্রিল) সন্ধ্যা পৌনে ৭টার দিকে অচেতন অবস্থায় তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ ( ঢামেক)হাসপাতালে আনা হলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন শাহবাগ থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মো. সেলিম। তিনি জানান, সংবাদ পেয়ে ঘটনাস্থল থেকে অচেতন অবস্থায় ওই যুবককে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেলে নিয়ে এলে চিকিৎসক জানান, সে আর বেঁচে নেই।

তিনি আরও জানান, প্রযুক্তির সহায়তায় তার নামপরিচয় জানার চেষ্টা চলছে। মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য ঢাকা মেডিকেলের মর্গে রাখা হয়েছে। এ বিষয়ে আইনি প্রক্রিয়া চলমান রয়েছে।

;

ভাওয়াল জাতীয় উদ্যানে মৃত হাতি, যা বলছেন সংশ্লিষ্টরা



ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, গাজীপুর
ভাওয়াল জাতীয় উদ্যানে মৃত হাতি, যা বলছেন সংশ্লিষ্টরা

ভাওয়াল জাতীয় উদ্যানে মৃত হাতি, যা বলছেন সংশ্লিষ্টরা

  • Font increase
  • Font Decrease

গাজীপুরে ভাওয়াল জাতীয় উদ্যান এলাকায় ঢাকা ময়মনসিংহ মহাসড়কের পাশ থেকে একটি হাতির মৃতদেহ উদ্ধার করেছে বন বিভাগ। তবে হাতিটি দাঁতবিহীন ছিল।

মঙ্গলবার (২৩ এপ্রিল) সকালে জেলার রাজেন্দ্রপুর ভাওয়াল জাতীয় উদ্যানের দ্বিতীয় গেটে হাতিটির মরদেহ পড়ে থাকার খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে যান বন বিভাগের কর্মকর্তারা। খবর পেয়ে বন্যপ্রাণী ও জীববৈচিত্র্য সংরক্ষণ অধিদফতরের একটি দল সেখানে আসেন।

বন্যপ্রাণী ও জীববৈচিত্র্য সংরক্ষণ কর্মকর্তা রুবিয়া ইসলাম বলেন, গাজীপুরের ভাওয়াল জাতীয় উদ্যান এলাকায় মৃত হাতি পড়ে থাকতে দেখে আমাদের খবর দেন। বিষয়টি দ্রুত ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের জানিয়ে পুলিশকে খবর দেই। খবর পেয়ে গাজীপুর মেট্টোপলিটন পুলিশের সদর থানা পুলিশ ও ট্যুরিস্ট পুলিশের টিম ঘটনাস্থলে যায়।

এদিকে ঘটনাস্থলে গিয়ে হাতির মাথায় ক্ষতচিহ্ন দেখা যায়। হাতির দাঁতগুলো কেটে নেয়া হয়েছে। পরে পুলিশের একটি ফরেনসিক টিম ঘটনাস্থলে গিয়ে তথ্য সংগ্রহ শুরু করেছে। এছাড়াও ভেটেনারি সার্জন ও কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন ভেটেনারি সার্জন একত্রে মৃত হাতি ময়নাতদন্ত করবেন।

প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে, অন্য কোথাও হাতিটির মৃত্যু হয়েছে। পরে রাতের আধারে হাতিটি এই স্থানে ফেলা হয়েছে। এ ব্যাপারে পরবর্তী ব্যবস্থা চলমান রয়েছে।

;

চুয়েটের দুই শিক্ষার্থী নিহতের ঘটনায় তদন্ত কমিটি



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, চট্টগ্রাম
চুয়েটের দুই শিক্ষার্থী নিহতের ঘটনায় তদন্ত কমিটি

চুয়েটের দুই শিক্ষার্থী নিহতের ঘটনায় তদন্ত কমিটি

  • Font increase
  • Font Decrease

চট্টগ্রামের রাঙ্গুনিয়ায় মোটরসাইকেলে বাসের ধাক্কায় চট্টগ্রাম প্রকৌশল ও প্রযুক্তির বিশ্ববিদ্যালয়ের (চুয়েট) দুই শিক্ষার্থীর নিহত ও এক শিক্ষার্থী আহতের ঘটনায় চট্টগ্রামের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট এ.কে.এম গোলাম মোর্শেদ খানকে প্রধান করে সাত সদস্যদের তদন্ত কমিটি গঠন করেছে জেলা প্রশাসন।

মঙ্গলবার (২৩ এপ্রিল) চট্টগ্রাম সার্কিট হাউসে আয়োজিত এক সভায় এসব তথ্য জানানো হয়েছে।

কমিটির সদস্যরা হলেন- চট্টগ্রাম জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার পদমর্যাদার একজন প্রতিনিধি, রাউজান উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) অংগ্যজাই মারমা, রাঙ্গুনিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. রায়হান মেহেবুব, বিআরটিসির সহকারী পরিচালক রায়হানা আক্তার উর্থি, রাঙ্গুনিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) চন্দন কুমার চক্রবর্তী, রাউজান থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জাহেদ হোসেন।

চুয়েটের দুই শিক্ষার্থী সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত হওয়ার ঘটনায় উদ্ভূত পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের জন্য চুয়েট কর্তৃপক্ষ, বাস মালিক সমিতি, পুলিশও অন্যান্য আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সঙ্গে চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসনের এই সভা অনুষ্ঠিত হয়।

সভায় চট্টগ্রামের জেলা প্রশাসক আবুল বাসার মোহাম্মদ ফখরুজ্জামান বলেন, ঘটনা তদন্তে অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেটের নেতৃত্বে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটিতে চুয়েট, পুলিশসহ বিভিন্ন সংস্থার প্রতিনিধি রাখা হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, এছাড়া সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত চট্টগ্রাম প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের দুই শিক্ষার্থীর পরিবারকে ৫ লাখ টাকা করে মোট ১০ লাখ টাকা দেওয়া হবে। এছাড়াও আহত শিক্ষার্থী ৩ লাখ টাকা পাবেন। কালকের মধ্যেই আমরা সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ে কাগজপত্রসহ ফরমপূরণ করে পাঠিয়ে দিব। স্বল্প সময়ের মধ্যে আমরা সে টাকা পরিবারের কাছে পৌঁছে দিতে পারবো বলে আশা করছি। এছাড়া বাস মালিক সমিতি নিহতের প্রত্যেক পরিবারকে দুই লাখ টাকা ও আহতকে ১ লাখ টাকা দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন। এছাড়া আহত শিক্ষার্থীর সুচিকিৎসা নিশ্চিত করা হবে।

সভায় জেলা প্রশাসক আরও বলেন, কাপ্তাই রাস্তা সম্প্রসারণ কাজ ১ মাসের মধ্যে শুরু হবে। এছাড়া রাস্তায় যেন বেপরোয়া গাড়ি চালাতে না পারে সেজন্য স্পিড ব্রেকার দেওয়া হবে। এছাড়া যানবাহনের ফিটনেস, রুট পারমিটসহ সবকিছু আছে কি না তা দেখার জন্য মোবাইলকোর্ট পরিচালনা করা হবে।

সভায় চট্টগ্রামের পুলিশ সুপার এস.এম শফিউল্লাহ বলেন, এই ঘটনায় জড়িত শাহ আমানত বাসের চালক ও হেল্পারকে গ্রেপ্তারে পুলিশের অভিযান চলছে। দ্রুতই তাদেরকে গ্রেফতার করা যাবে বলে আশা করছি।

এসময় চুয়েট উপাচার্য ড. মোহাম্মদ রফিকুল আলম বলেন, শীঘ্রই চুয়েটে একটি অ্যাম্বুলেন্সের ব্যবস্থা করা হবে। এছাড়া শিক্ষার্থীদের জন্য ১ মাসের মধ্যে নতুন দুইটি বাস সংযোজন করা হবে।

;