ইট ভাটা শ্রমিককে শিকলে বেঁধে নির্যাতন, মালিক-ম্যানেজার গ্রেফতার



ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ময়মনসিংহ
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জে মো. সবুজ আলী (৩৬) নামে এক ইট ভাটা শ্রমিককে ৫ দিন পা'য়ে শিকলে বেঁধে নির্যাতনের অভিযোগ উঠেছে। নির্যাতনের শিকার ইটভাটা শ্রমিক সবুজ আলী সিরাজগঞ্জ জেলার তাড়াশ উপজেলার আবজাল হোসেনের ছেলে।

এ ঘটনায় খবর পেয়ে ওই শ্রমিককে উদ্ধারের পাশাপাশি ইটভাটার মালিক ও ম্যানেজারকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। গ্রেফতারকৃতরা হলেন, ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলার ছানিয়ানতলা গ্রামের মো. আ. গণির ছেলে ইট ভাটার মালিক মো. খাইরুল আলম রাসেল ও ম্যানেজার মো. আসাদুল্লাহ মিয়া (৭০)।

শনিবার (১০ ফেব্রুয়ারি) বিকালে গ্রেফতারকৃত আসামীদের আদালতে তোলা হলে বিচারক সিফাত উল্লাহ তাদের কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

এর আগে শুক্রবার (৯ ফেব্রুয়ারি) বিকালে উপজেলার মগটুলা মগটুলা ইউনিয়নের নব্বইয়ের বাজার সংলগ্ন আব্দুল গনি ব্রিকস ফ্যাক্টরি থেকে ওই শ্রমিককে উদ্ধার করা হয়।

এই ঘটনায় সবুজ আলীর বাবা আবজাল হোসেন বাদী হয়ে ৩ জনের নামে ও অজ্ঞাতনামা ৩/৪ জনকে আসামী করে ঈশ্বরগঞ্জ থানায় মামলা দায়ের করেন। পরে দিন রাতেই অভিযান চালিয়ে ইট ভাটার মালিক ও ম্যানেজারকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

ঈশ্বরগঞ্জ থানার পরিদর্শক (তদন্ত) ফরিদ আহমেদ এই তথ্য নিশ্চিত করে মামলার নথির বরাত দিয়ে বলেন, মো. সবুজ আলী ইট ভাটার কাজ করার জন্য ৪০ দিন আগে নিজ বাড়ি থেকে একই এলাকার ইট ভাটার সর্দার আনসার আলীর নেতৃত্বে ১৮ জনের একটি দল ঈশ্বরগঞ্জের তরফ পাছাইল এজিবি (আ. গণি ব্রিক্স) কাজ করার জন্য আসেন। সর্দার আনসার আলী এজিবি (আ. গণি ব্রিক্স) মালিত মো. খাইরুল আলম রাসেলের সাথে ৩ লাখ টাকা চুক্তি করেন। চুক্তির ৩ লাখ টাকা নিয়ে গত ৫ ফেব্রুয়ারি সবুজ আলীকে ইট ভাটায় রেখে সর্দার আনসার আলী অন্য শ্রমিকদের নিয়ে ইট ভাটার কাউকে কিছু না বলে পালিয়ে যায়। এই ঘটনার জেরে ইট ভাটার মালিক খাইরুল আলম রাসেল টাকার জন্য সবুজ আলীকে ইট ভাটার ম্যানেজারের রুমে সবুজ আলীর পা'য়ে শিকলে বেধে নির্যাতন করেন এবং সর্দার আনসার আলীর কাছ থেকে টাকা এনে দেয়ার জন্য চাপ প্রয়োগ করেন। পরে পুলিশ স্থানীয়দের কাছে খবর পেয়ে ইট ভাটায় অভিযান চালিয়ে সবুজ আলীকে উদ্ধার করে।

পরিদর্শক (তদন্ত) ফরিদ আহমেদ বলেন, এই ঘটনায় অপর আসামীদের গ্রেফতারে অভিযান চলছে।

   

বন্ধুদের নিয়ে ঘুরতে বেড়িয়ে টমটম উল্টে চালকের মৃত্যু



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, কক্সবাজার
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

বন্ধুদের সাথে নাইক্ষ্যংছড়ির সোনাইছড়ি ঘুরতে গিয়ে ফেরার পথে উঁচু নিচু ঢালু রাস্তায় নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে দুর্ঘটনার কবলে পড়ে এক টমটম চালকের মৃত্যু হয়েছে। ওই চালকের নাম মোহাম্মদ ইসমাঈল।

শনিবার (১৩ এপ্রিল) বিকেল সন্ধ্যা ৭টার সময় এ দুর্ঘটনা ঘটে। নিহত ইসমাঈল কক্সবাজার সদর উপজেলার বাসিন্দা কামাল হোসেনের ছেলে।

ইসমাইলের বন্ধু বাপ্পী জানান, তারা ১০ জন বন্ধু মিলে সিএনজি ও টমটম যোগে সোনাইছড়িতে ঘুরতে গিয়েছিলো। ফেরার পথে টমটম উল্টে গিয়ে দুর্ঘটনার শিকার হন তারা।

ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী অনেকেই বলছেন তারা মদ্যপান করেছিলো। এ বিষয়ে ইসমাঈলের বন্ধু বাপ্পীর কাছে জানতে চাইলে সে মদপানের কথা স্বীকার করে।

বাপ্পী জানান, ফেরার পথে তাদের টমটমটি দুর্ঘটনায় পতিত হয়। এতে ইসমাঈল গুরুতর আহত হলে তাকে দ্রুত কক্সবাজার সদর হাসপাতালে নিয়ে আসেন তারা। পরে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

নিহতের লাশ কক্সবাজার সদর হাসপাতালের মর্গে রাখা হয়েছে। ময়নাতদন্তের পর নিহতের পরিবারের কাছে মরদেহ হস্তান্তর করা হবে।

;

ভারতে পাচার ৪ নারী দেশে ফিরলেন দেড় বছর পর



সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, বেনাপোল (যশোর)
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

ভালো কাজের প্রলোভনে বিভিন্ন সময় ভারতে পাচারের শিকার ৪ বাংলাদেশি নারীকে স্বদেশ প্রত্যাবাসন আইনে বেনাপোলে ফেরত দিয়েছে ভারতীয় পুলিশ।

শনিবার (১৩ এপ্রিল) বিকাল সাড়ে ৫ টায় ভারতের পেট্রাপোল ইমিগ্রেশন পুলিশ পাচার হওয়া নারীদের বেনাপোল ইমিগ্রেশন পুলিশের হাতে তুলে দেয়। ইমিগ্রেশন পুলিশের কার্যক্রম শেষে ফেরত আসা বাংলাদেশি নারীদের কর্মসংস্থান ও আইনী সহয়তা দিতে জাস্টিস এন্ড কেয়ার নামে এনজিও সংস্থা গ্রহণ করেছে।

ফেরত আসা নারী হলেন, মুন্সিগঞ্জের মিম আক্তার (২০), পাবনার কহিনুর (২৬), নেএকোনার নুরনাহার (২২) ও সাভারের জান্নাতুল ফেরদৌস ইতি (২১)।

জাস্টিস এন্ড কেয়ারের সিনিয়র প্রোগ্রামার অফিসার এবিএম মুহিত হোসেন জানান, ভালো কাজের প্রলোভনে সীমান্ত পথে চার বছর আগে দালালের মাধ্যমে সে ভারতে গিয়েছিল।

এসময় অবৈধ অনুপ্রবেশের অভিযোগে ভারতীয় পুলিশ তাদের আটক করে জেলে পাঠায়। পরে আইনী সহয়তা দিতে আদালত থেকে ছাড়িয়ে ভারতীয় গোভারমেন্ট সেন্টার হোম নামে একটি মানবাধিকার সংস্থা তাদের হেফাজতে নেয়। চার বছর পর দুই দেশের সরকারের সহযোগীতায় তারা দেশে ফেরার সুযোগ পায়।

ফেরত আসা বাংলাদেশি নারী যদি পাচারকারীকে সনাক্ত করে আইনী সহয়তা চাইলে দেওয়া হবে বলে জানান নারীদের গ্রহণকারী এনজিও সংস্থা।

;

হত্যা মামলার আসামী হওয়ায় আ. লীগের পদ থেকে অব্যাহতি



ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, জামালপুর
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

 

জামালপুরের মাদারগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক রায়হান রহমতুল্লাহ রিমুকে অব্যাহতি দিয়েছে উপজেলা আওয়ামী লীগ।

উপজেলার এক সার ও কিটনাশক ব্যবসায়ী নওশের আলী হত্যা মামলার চার্জশিটভুক্ত আসামী হওয়ায় এবং সমবায় সমিতির নামে অর্থ আত্মসাতের অভিযোগে রায়হান রহমতুল্লাহ রিমুকে অব্যাহতি দেয়া হয়।

দলীয় সূত্রে জানা গেছে, শনিবার (১৪ এপ্রিল) সন্ধ্যায় উপজেলা আওয়ামী লীগের মাসিক সভা অনুষ্ঠিত হয়। সম্প্রতি মাদারগঞ্জ উপজেলার এক সার ও কীটনাশক ব্যবসায়ী নওশের আলীকে হত্যার অভিযোগে মাদারগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক অভিযুক্ত রায়হান রহমতুল্লাহ রিমুর ফাসির দাবিতে সংবাদ সম্মেলন করে নিহতের পরিবার।

সংবাদটি বিভিন্ন জাতীয় গণমাধ্যম ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ব্যপকভাবে প্রচার হয়, তাছাড়া ওই হত্যা মামলায় এজাহারভুক্ত প্রধান আসামী হিসেবে তার বিরুদ্ধে চার্জশিট দাখিল করা হয়েছে।

পাশাপাশি রায়হান রহমতুল্লাহ রিমু মাদারগঞ্জ কেন্দ্রীয় সমবায় সমিতির সভাপতি ও রুপসী বাংলা সমবায় সমিতির পরিচালক হিসেবে দায়িত্বে নিয়োজিত থাকাকালীন মাদারগঞ্জ উপজেলার বিভিন্ন সমবায় সমিতি আইন লঙ্ঘন করে গ্রাহকদের নিকট থেকে আমানত সংগ্রহ করে এবং তিন থেকে চার হাজার কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগে রিমুকে জড়িয়ে বিভিন্ন জাতীয় গণমাধ্যমে সংবাদ প্রচারিত হয়। এতে আওয়ামী লীগের দলীয় ভাবমূর্তি মারাত্মকভাবে ক্ষুন্ন হয়।

মাদারগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের মাসিক সভায় এসব বিষয় নিয়ে বিস্তারিত আলোচনার পর দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গ ও সংগঠনের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন হওয়ায় মাদারগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক রায়হান রহমতুল্লাহ রিমুকে অব্যাহতি প্রদানের সিদ্ধান্ত গৃহীত হয় এবং কেন তাকে স্থায়ীভাবে বহিষ্কার করা হবেনা তা পত্র প্রাপ্তির সাত দিনের মধ্যে কারণ দর্শাতে বলা হয়েছে।

উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বাবু জীবন কৃষ্ণ সাহা বার্তা২৪ ডটকমকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

;

বকশীগঞ্জে ট্রাক চাপায় প্রাণ গেলো আইনজীবীর



ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, জামালপুর
ছবি: বার্তা ২৪.কম

ছবি: বার্তা ২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

জামালপুরের বকশীগঞ্জ উপজেলায় ট্রাক চাপায় গোলাম মোস্তফা আজাদ (৬০) নামে এক আইনজীবীর মৃত্যু হয়েছে।

শনিবার (১৩ এপ্রিল) রাত ৯ টার দিকে পৌর শহরের মালিবাগ মোড় এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহত গোলাম মোস্তফা আজাদ উপজেলার ধানুয়া কামালপুর ইউনিয়নের দক্ষিণ কামালপুর গ্রামের মৃত সোনা মিয়া চেয়ারম্যানের ছেলে।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্র জানায়, পৌর শহরের ব্যক্তিগত কাজ শেষ করে শহরের উত্তর বাজার এলাকার নিজ বাসবভনে ফিরছিলেন আইনজীবী আজাদ। এসময় তিনি মালিবাগ মোড় এলাকা পার হতে গেলে বিপরীত দিক থেকে আসা দ্রুতগামী একটি ট্রাক তাকে ধাক্কা দেয়। এতে ঘটনা স্থলেই তার মৃত্যু হয়।

এ ঘটনায় ঘাতক ট্রাকসহ চালক গোলাপ মিয়াকে বকশীগঞ্জ থানা পুলিশ তাৎক্ষণিক অভিযান চালিয়ে আটক করেছেন।

বিষয়টি নিশ্চিত করে বকশীগঞ্জ থানার ওসি মোহাম্মদ আবদুল আহাদ খান জানান, ট্রাকের চাপায় আইনজীবী নিহতের ঘটনায় আইনগত প্রক্রিয়া চলমান রয়েছে।

;