‘টাকা জমাচ্ছি, আল্লাহর কাছ থেকে বাবাকে কিনে আনবো’



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

'টাকা জমাচ্ছি, আল্লাহর কাছ থেকে বাবাকে কিনে আনবো' কান্নাজড়িত কণ্ঠে কথাগুলো বলছিলেন ২৮ অক্টোবর নিহত কনস্টেবল আমিরুল পারভেজের ৫ বছরের অবুঝ শিশু তানহা।

রোববার (১০ ডিসেম্বর) সকালে শিল্পকলা একাডেমির জাতীয় নাট্যশালা অডিটোরিয়ামে 'মায়ের কান্না ও অগ্নি-সন্ত্রাসের আর্তনাদ' এর যৌথ উদ্যোগে মানবাধিকার লঙ্ঘন ও এর বিচারের দাবিতে আয়োজিত আলোচনা সভা হয়ে উঠে এমনই নানা দুঃসহ ঘটনার সাক্ষী। পুরো পরিবেশ ভারি হয়ে উঠে বিএনপি-জামায়াতের আগুন সন্ত্রাসে নিহত পরিবারের স্বজনদের কান্না ও আহাজারিতে।

নিহত কনস্টেবলের স্ত্রী বলেন, যদি আমার মেয়েকে কেউ টাকা দেয়, সে টাকা জমায়। আমি যদি জিজ্ঞেস করি, এই টাকা দিয়ে কী করবে? মেয়ে বলে, এ টাকা দিয়ে আমি বাবাকে আল্লাহর কাছ থেকে কিনে আনবো। এই কথার পরে আমি তাকে কী উত্তর দিব? আমার কাছে তো কোনো উত্তর নেই।

গত ২৮ অক্টোবর রাজধানীর ফকিরাপুল এলাকায় বিএনপির সঙ্গে সংঘর্ষে পুলিশ সদস্য কনস্টেবল আমিরুল পারভেজ নিহত হন। এছাড়াও ২০১৩/১৪ সালে বিএনপি জামায়াতের আগুন সন্ত্রাসে নিহত পরিবারের স্বজন ও ভিক্টিমরাও ছিলেন এ আলোচনা অনুষ্ঠানে। উপস্থিত হয়েছিলেন, ১৯৭৭ সালে সামরিক আদালতে বিচার হওয়া বিমান ও সেনাবাহিনীর সদস্যদের স্বজনরা। ২১ এ আগস্টের গ্রেনেড হামলার স্বীকার মানুষজনও তাদের কষ্টের কথা বলে কাঁদিয়েছেন উপস্থিত দর্শনার্থীদের।

২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি গাড়ি নিয়ে যাবার সময় দিনাজপুরে জামায়াত-বিএনপির লোকজন পেট্রোল বোমা মেরে পুরো শরীরে আগুন ধরে যায় জানিয়ে গাড়ি চালক বিল্লাল হোসেন বলেন, আমি তো কোনো রাজনৈতিক ব্যক্তি ছিলাম না। আমি তো কোনো রাজনৈতিক দলের সাথেও যুক্ত ছিলাম না। আমি আমার সংসার চালানোর জন্য গাড়ি চালায়। গাড়ি না চালালে আমার পরিবার খাবে কী? তাহলে কি আমি না খেয়ে থাকবো? আমি এখনো সুস্থ হয়ে হাঁটতে পারি না। আমার হাত, পা'সহ শারা শরীরে ব্যথা। আমার কী দোষ ছিল? আমাকে কেন পুড়তে হলো পেট্রোল বোমায়? এটাই আমার জানতে চাওয়া। 

আমাকে কেন পুড়তে হলো পেট্রোল বোমায়? 

উপস্থিত দর্শনার্থীদের প্রতি প্রশ্ন রেখে বেসরকারি চাকরিজীবী নোমান বলেন, আমার কী দোষ ছিল? ২০১৫ সালে অফিস শেষে বাসা যাবার পথে যাত্রাবাড়ীতে আমাদের গাড়ির উপর জামায়াত-বিএনপির সন্ত্রাসীরা পেট্রোল বোমা মারে। এতে পুরো গাড়িতে আগুন ধরে যায়। আমার পুরো শরীরেও আগুন লেগে যায়। আমি তো সাধারণ মানুষ। তাহলে আমাকে কেন পুড়তে হলো? শরীর পুড়ে যাবার অসহ্য যন্ত্রণা আজও বেড়াতে হচ্ছে আমাকে।

এসময় ভুক্তভোগীরা বিএনপি-জামায়াতের এই নৈরাজ্য বন্ধে সরকারকে কঠোর পদক্ষেপ নেয়ার আহবান জানান। তারা বলেন, আমরা যে অসহ্য যন্ত্রণার মধ্য দিয়ে যাচ্ছি তা যেন আর কোনো মানুষ ভোগ না করে। আমরা এর অবসান চাই। আমরা চাই এই আগুন-সন্ত্রাসীদের কঠিন থেকে কঠিনভাবে বিচার করা হউক। এই বাংলাদেশে এমন সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড করে কেউ যেন কোনো মায়ের বুক খালি করতে না পারে। স্ত্রী যেন তার স্বামীকে না হারায়। সন্তান যেন পিতা হারিয়ে এতিম না হয়। 

কেউ যেন কোনো মায়ের বুক খালি করতে না পারে 

সামরিক শাসক জিয়াউর রহমানের শাসনামলে স্বামী হারানো এক স্ত্রী বলেন, আমি জানতেও পারলাম না আমার স্বামীর কী দোষ। কেন আমার স্বামীকে বিচারের নামে প্রহসন করে হত্যা করা হলো? আমার স্বামীর লাশটা পর্যন্ত আমি দেখতে পারিনি। আমার শিশু সন্তানকে তার বাবার একটা ছবি দেখাবো, সে ছবিটি পর্যন্ত আমাকে দেয়া হয়নি। কত কান্না করলাম, কিন্তু আমার স্বামীর একটা ছবিও পেলাম না।

ভুক্তভোগীদের অসীম দুঃখের এমন অবর্ণনীয় দুঃখগাথায় ভারী হয়ে উঠে পুরো অডিটোরিয়াম। চোখের কোনায় জল নিয়ে হতবাক হয়ে তাকিয়ে থাকে দর্শনার্থীরা। এ যেন কষ্টের সাথে কাঁধ মেলানো। দুঃখ তাড়িয়ে একে অপরকে সান্ত্বনা দেয়ার অপচেষ্টা। তবুও একটুখানি দুঃখ তাড়ানোর উপায় পেয়ে, সেটাকেই সম্বল করে সমাপ্তি আসে অনুষ্ঠানের।

   

ট্রাক-অটোরিকশা শ্রমিকদের হাতাহাতি, ঢাকা-সিলেট মহাসড়ক অবরোধ



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, সিলেট
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

সিলেটে ৫ দফা দাবিতে শ্রমিকদের পরিবহন ধর্মঘট চলছে। এরই মধ্যে সিএনজিচালিত অটোরিকশা  চালক ও পিকআপ ভ্যান চালকদের মধ্যে হাতাহাতি হয়েছে। এ ঘটনায় পিকআপ ভ্যান চালকরা ঢাকা-সিলেট মহাসড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ প্রদর্শন শুরু করেন।

বুধবার (২৮ ফেব্রুয়ারি) দুপুর আড়াইটা থেকে মহাসড়ক অবরোধ করে রাখেন পিকআপ ভ্যান শ্রমিকরা।

এসময় রোগীবাহী অ্যাম্বুলেন্সসহ আটকা পড়েন বিভিন্ন যানবাহনের যাত্রীরা।

;

কুষ্টিয়ায় ফেন্সিডিল ও অস্ত্রসহ নারী আটক    



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, কুষ্টিয়া
ছবি: বার্তা ২৪

ছবি: বার্তা ২৪

  • Font increase
  • Font Decrease

কুষ্টিয়ায় র‌্যাব-১২ এর অভিযানে ১ হাজার ৯৩৬ বোতল ফেন্সিডিল, একটি বিদেশি পিস্তল ও ৮ রাউন্ড গুলি এবং মাদক বিক্রির নগদ ৯৯ হাজার টাকাসহ শেফালী খাতুন (৫০) নামে একজন নারীকে আটক করেছে র‌্যাব-১২।

মঙ্গলবার (২৭ ফেব্রুয়ারি) দৌলতপুর উপজেলার চিলমারী ইউনিয়নের খাজিরাথাক গ্রামে অভিযান পরিচালনার সময়ে তাকে আটক করা হয়।

আটককৃত মাদক সম্রাজ্ঞী শেফালী খাতুন দৌলতপুর উপজেলার চিলমারী ইউনিয়নের খাজিরাথাক গ্রামের ওমর বেপারীর স্ত্রী। 


বুধবার (২৮ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে সকালের দিকে কুষ্টিয়া র‌্যাপিড এ্যাকশন ব্যাটালিন-১২ কোম্পানী কমান্ডারের কার্যালয়ে সাংবাদিকদের সাথে বিশেষ প্রেস বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে এ তথ্য নিশ্চিত করেন কোম্পানী কমান্ডার এম আবুল হাশেম সবুজ।

এসময় তিনি বলেন, আটককৃত নারী দীর্ঘদিন যাবৎ পারিবারিকভাবে মাদক ব্যবসা করে আসছিলেন এবং মাদক ব্যবসার কাজে দেশীয় অস্ত্রের পাশাপাশি বিদেশি আগ্নেয়াস্ত্র ব্যবহার করছিলেন। ঐ নারী কুষ্টিয়া পাবনা এবং রাজশাহী জেলার বিভিন্ন থানায় অভিনব কায়দায় মাদক বিক্রি করে আসছিলেন।

;

রাজধানীতে চার হাসপাতালে দালালচক্রের ৪২ জন গ্রেফতার



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
ছবি: বার্তা ২৪.কম

ছবি: বার্তা ২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

রাজধানীর সরকাারি হাসপাতাল কেন্দ্রীক গড়ে ওঠা দালালচক্র নির্মূলের অভিযানে নেমেছে র‍‍্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‍‍্যাব)। বুধবার (২৮ ফেব্রুয়ারি) সকাল থেকে রাজধানীর শেরে বাংলা নগর থানা এলাকায় ৪টি হাসপাতালে শুরু হওয়া অভিযানে নারী ও পুরুষ মিলিয়ে মোট ৪২ জন দালালকে গ্রেফতার করেছে র‍্যাব।

অভিযান শেষে শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে এক ব্রিফিংয়ে র‌্যাব-২ এর উপ-অধিনায়ক মেজর মোহাম্মদ নাজমুল্লাহেল ওয়াদুদ এ তথ্য জানান।

নাজমুল্লাহেল ওয়াদুদ বলেন, র‍্যাব দেশজুড়ে অনিয়ম রোধে কাজ করে যাচ্ছে। তার ধারাবাহিকতায় শহীদ সোহরাওয়ার্দী হাসপাতাল, হৃদরোগ হাসপাতাল, পঙ্গু হাসপাতাল ও শিশু হাসপাতালে র‍্যাব ২ এর পক্ষ থেকে অভিযান চালানো হয়। অভিযানের মূল্য উদ্দেশ্য দালাল নির্মূল করা।

তিনি বলেন, দালাল চক্রের মাধ্যমে দেশের বিভিন্ন জায়গা থেকে আগত হাসপাতালে রোগীদের হয়রানি করা হয়। আমরা জানতে পেরেছি রোগীরা যখন হাসপাতালে প্রবেশ করেন তখন দালালরা তাদের টার্গেট করেন এবং পিছু নেন। রোগীদের বোঝানো হয় যে এখানে ভালো ডাক্তার নেই, চিকিৎসা নেই। এসব বলে তাদেরকে বাইরের প্রাইভেট হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়।

তিনি আরো বলেন, এছাড়া রোগীরা যখন ডাক্তার দেখিয়ে চেম্বার থেকে বের হন, তখন এই দালালরা জোর করে প্রেসক্রিপশনটা নিয়ে তার ছবি তোলেন। এসবের ভিডিও ফুটেজ আমরা সংগ্রহ করেছি। দালালরা দেখে যে ডাক্তাররা তাদের টার্গেট দেয়া ওষুধ লিখেছেন কিনা। তারা রোগীদের বাইরে যেসব ডাক্তারদের কাছে নিয়ে যায়, তাতে বিভিন্ন সময়ে ভুল চিকিৎসার ফলে মৃত্যুর মতো ঘটনাও ঘটে। আমরা চাই প্রাইভেট হাসপাতালের এসব দৌরাত্ম বন্ধ হোক এবং সরকারি হাসপাতালের যে এজেন্ডা তা বাস্তবায়ন হোক।

মেজর বলেন, আমরা অভিযান চালিয়ে হৃদরোগ হাসপাতাল থেকে ১২ জন, সোহরাওয়ার্দী হাসপাতাল থেকে ১৮ জন, শিশু হাসপাতাল থেকে ৪ জন ও পঙ্গু হাসপাতাল থেকে ৫ জন দালালকে আটক করেছি। যাদেরকে ইতিমধ্যে বিভিন্ন মেয়াদে সাজা দেয়া হয়েছে। গ্রেফতারকৃতদের সর্বোচ্চ এক মাসের জেল ও সর্বোচ্চ ৫ হাজার টাকা পর্যন্ত জরিমানার আওতায় আনা হয়েছে।

;

সুন্দর সমাজ গড়তে ইসলামিক দলের ঐক্যের বিকল্প নেই: মাইজভান্ডারী



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, কুষ্টিয়া
সুন্দর সমাজ গড়তে ইসলামিক দলের ঐক্যের কোন বিকল্প নাই

সুন্দর সমাজ গড়তে ইসলামিক দলের ঐক্যের কোন বিকল্প নাই

  • Font increase
  • Font Decrease

সুন্দর সমাজ, শান্তি, সুশাসন ও ক্ষমতার ভারসাম্য বজায় রাখার জন্য দেশে সব ইসলামিক দলের ঐক্যের কোনো বিকল্প নেই বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশ তরীকত ফেডারেশনের চেয়ারম্যান সৈয়দ নজিবুল বশর মাইজভান্ডারী।

মঙ্গলবার (২৭ ফেব্রুয়ারি) রাতে কুষ্টিয়ার দৌলতপুর উপজেলার বাহিরমাদী রাহমানিয়া দরবার শরিফে আয়োজিত তরীকত সম্মেলনে প্রধান অথিতির বক্তব্যে তিনি এসব বলেন।

তিনি বলেন, বিগত দিনে আমাদেরও ভুল হয়েছে৷ তাই প্রয়োজনে আলোচনা করে, সব ভুল বোঝাবুঝির অবসান ঘটিয়ে, কোরআন সুন্নাহর ভিত্তিতে ঐক্য করতে হবে। তরীকত ফেডারেশন দিনে দিনে আরও শক্তিশালী হচ্ছে এবং আগের মতো সামনেও রাজনীতিতে বড় ভূমিকা পালন করবে। আজকের এই বিশাল জনসভা তার একটি ছোট উদাহরণ।

তিনি আরও বলেন, তরীকত ফেডারেশন ইসলামিক ঐক্যের জন্য কাজ করে যাচ্ছে, এইটাই সময়ের দাবি।

তরীকত সম্মেলনে সভাপতিত্ব করেন বাংলাদেশ তরীকত ফেডারেশন রাজশাহী বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক ও রাহমানিয়া দরবারের প্রতিষ্ঠাতা হাফেজ মৌলানা মোখলেসুর রহমান বাঙালি।

আরও উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ তরীকত ফেডারেশনের মুখপাত্র ও যুগ্ম মহাসচিব মোহাম্মদ আলী ফারুকী, বাঘা পৌরসভার মেয়র আক্কাস আলী, তরীকত ফেডারেশন কুষ্টিয়া জেলা কমিটির সভাপতি আমিরুল ইসলাম বাবলু, কুষ্টিয়া সরকারি কলেজের প্রভাষক শাহরিয়ার হোসেন সাজুসহ এলাকার মুক্তিযোদ্ধা ও আলেম-উলামা বৃন্দ।

;