এপ্রিলের ১ম সপ্তাহে পায়রা বন্দরে সবচেয়ে বড় জাহাজ ভিড়বে



সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
এপ্রিলের ১ম সপ্তাহে পায়রা বন্দরে সবচেয়ে বড় জাহাজ ভিড়বে

এপ্রিলের ১ম সপ্তাহে পায়রা বন্দরে সবচেয়ে বড় জাহাজ ভিড়বে

  • Font increase
  • Font Decrease

আগামী মাসের (এপ্রিলের) প্রথম সপ্তাহে পায়রা বন্দরে দেশের ইতিহাসে সবচেয়ে বড় (সাড়ে ১০ মিটার ড্রাফট) জাহাজ ভিড়বে। পাশাপাশি মে মাসের প্রথম সপ্তাহে পায়রা বন্দরের ‘প্রথম টার্মিনাল’ উদ্বোধন করা হবে।

বুধবার (২২ মার্চ) মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন সংস্থাগুলোর ২০২২-২৩ অর্থবছরের এডিপিভুক্ত জিওবি ও সংস্থার নিজস্ব অর্থায়নে বাস্তবায়নাধীন উন্নয়ন প্রকল্পগুলোর বাস্তবায়ন অগ্রগতি সংক্রান্ত পর্যালোচনা বৈঠকে এসব তথ্য জানানো হয়।

নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী এতে সভাপতিত্ব করেন।

নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে, ১০ দশমিক ৫ মিটার ড্রাফটের (গভীরতা) এবং ২২৫ মিটার দৈর্ঘ্যের জাহাজ আসবে। এ সপ্তাহের মধ্যে সাতটি জাহাজ আসবে। পায়রা বন্দরের ক্যাপিটাল ড্রেজিংয়ের কাজ ২৬ মার্চ সম্পন্ন হবে। তখন পোর্টটি আরও বেশি ভায়াবল হবে। বড় বড় জাহাজ আসবে। ইনার ও আউটারবারে মার্কিং, বয়া বাতি বসানো হয়েছে। ইনারবারে ১৫টি জাহাজ রাখা যাবে।

‘সেখানে লোডিং আনলোডিং কার্যক্রম চলবে। পায়রা বন্দরের জন্য অধিগ্রহণ করা চার হাজার ২০০টি পরিবারকে ২৩টি ট্রেডে প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়েছে। তারা স্বাবলম্বী হচ্ছেন। ক্যাপিটাল ড্রেজিংয়ের মাটি দিয়ে এক হাজার একর জমি ভরাট করা হয়েছে।’

বৈঠকে উন্নয়ন প্রকল্পের অগ্রগতি নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করা হয় এবং নির্ধারিত সময়ের মধ্যে কাজগুলো শেষ করার নির্দেশনা দেওয়া হয়।

মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. মোস্তফা কামাল, পায়রা বন্দরের চেয়ারম্যান রিয়ার অ্যাডমিরাল এম সোহায়েলসহ সংস্থা প্রধানরা সভায় উপস্থিত ছিলেন।

   

২০ শিল্প প্রতিষ্ঠান পেল ‘রাষ্ট্রপতির শিল্প উন্নয়ন পুরস্কার-২০২১’ 



স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

শিল্প মন্ত্রণালয় কর্তৃক ৬ ক্যাটাগরির ২০টি শিল্প প্রতিষ্ঠানকে ‘রাষ্ট্রপতির শিল্প উন্নয়ন পুরস্কার-২০২১’ প্রদান করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (২৩ মে) রাজধানীর ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে শিল্প প্রতিষ্ঠানসমূহের মালিক/প্রতিনিধিদের হাতে পুরস্কার হিসেবে ক্রেস্ট ও সম্মাননা সনদ প্রদান করেন।

জাতীয় অর্থনীতিতে শিল্পখাতে অবদানের স্বীকৃতি প্রদান, প্রণোদনা সৃষ্টি, সৃজনশীলতাকে উৎসাহিত করা এবং বেসরকারি খাতে শিল্প স্থাপন, কর্মসংস্থান সৃষ্টি ও দেশের অর্থনীতিতে গুরুত্বপূর্ণ অবদানের জন্য এ পুরস্কার প্রদান করা হয়।

শিল্প মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব জাকিয়া সুলতানার সভাপতিত্বে পুরস্কার প্রদান অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন- কৃষিমন্ত্রী ড. মো. আব্দুস শহীদ ও এফবিসিসিআইয়ের প্রেসিডেন্ট মাহবুবুল আলম।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে শিল্পমন্ত্রী বলেন, বর্তমান সরকারের যুগোপযোগী পরিকল্পনা ও নীতি এবং কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণের ফলে শিল্পখাতে উল্লেখযোগ্য ও দৃশ্যমান উন্নয়ন সাধিত হয়েছে। পাশাপাশি জাতীয় অর্থনীতিতে ব্যবসায়ী ও শিল্প উদ্যোক্তাদের গুরুত্বপূর্ণ অবদানের স্বীকৃতি দিয়ে তাদের উৎসাহিত করা হচ্ছে। এ ধরনের সৃজনশীল উদ্যোগের অংশ হিসেবে শিল্প মন্ত্রণালয় নিয়মিত ‘বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব শিল্প পুরস্কার’, ‘রাষ্ট্রপতির শিল্প উন্নয়ন পুরস্কার’, ‘সিআইপি (শিল্প) কার্ড’, ‘প্রোডাক্টিভিটি অ্যান্ড কোয়ালিটি এক্সিলেন্স অ্যাওয়ার্ড’ প্রভৃতি পুরস্কার প্রদান করে আসছে।

তিনি বলেন, এ ধরনের স্বীকৃতি শিল্প উদ্যোক্তাদের নিজ নিজ কারখানায় উৎপাদিত পণ্যের উৎকর্ষ সাধনে অনুপ্রাণিত করবে। এই দৃষ্টান্ত অনুসরণ করে নবীন শিল্প উদ্যোক্তারাও নিজেদের পণ্যের গুণগত মানোন্নয়ন এবং বিশ্বমানের শিল্প স্থাপনে উজ্জীবিত হবেন। ফলে দেশে গুণগত মানসম্পন্ন শিল্পায়নের ধারা বেগবান হবে। রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা অর্থনৈতিক উন্নয়নের অন্যতম শর্ত। বিগত ১৫ বছরে এটি বহাল ছিল বলে শিল্পায়ন বেগবানসহ অর্থনৈতিক উন্নয়ন ত্বরান্বিত হয়েছে। 

তিনি আরও বলেন, বাংলাদেশ নিজেই একটি বড় বাজার। অভ্যন্তরীণ বাজারসহ বিশ্ববাজারে বাংলাদেশি পণ্যের চাহিদা বৃদ্ধিতে আমাদের গুণগতমানের পণ্য উৎপাদনের দিকে নজর দিতে হবে।

মন্ত্রী এ সময় বিশ্বমানের গুণগত মানসম্পন্ন পণ্য উৎপাদনে আমাদের শিল্পোদ্যোক্তাদের সততা ও আন্তরিকতার সহিত কাজ করার আহ্বান জানান।

নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন বলেন, প্রধানমন্ত্রীর দিকনির্দেশনায় টাঙ্গাইল শাড়িসহ ইতোমধ্যে বাংলাদেশের ঐতিহ্যবাহী ৩১টি পণ্যকে জিআই সনদ প্রদান করা হয়েছে। জাতীয় পর্যায়ে উৎপাদনশীলতা বাড়াতে দশ বছর মেয়াদি ‘ন্যাশনাল প্রোডাক্টিভিটি মাস্টার প্ল্যান’ প্রণয়ন করা হয়েছে। আধুনিক ও যুগোপযোগী শিল্প কারখানা স্থাপনসহ শিল্পায়নের ধারাকে বেগবান করতে ‘জাতীয় শিল্পনীতি-২০২২’ ও ‘এসএমই নীতিমালা-২০১৯’ প্রণয়ন করা হয়েছে।

তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দিকনির্দেশনায় শ্রমঘন শিল্পায়নে মনোনিবেশসহ শিল্পখাতে গতিশীলতা অব্যাহত রাখতে শিল্প মন্ত্রণালয় নতুন শিল্প কারখানা স্থাপন, পুরাতন কারখানার আধুনিকায়ন এবং যন্ত্রপাতি প্রতিস্থাপনের কাজ করছে। শিল্পখাতে উন্নয়নের চলমান অভিযাত্রা অব্যাহত থাকলে বাংলাদেশ নির্ধারিত সময়ের আগেই শিল্প সমৃদ্ধ রাষ্ট্রে পরিণত হবে।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে কৃষিমন্ত্রী ড. মো. আব্দুস শহীদ বলেন, কৃষি উৎপাদনে ঈর্ষণীয় সাফল্য থাকা সত্ত্বেও আমরা কৃষিপণ্য প্রক্রিয়াজাতকরণ, সংরক্ষণ ও রফতানিতে অনেকটা পিছিয়ে আছি। প্রক্রিয়াজাতকরণের কম সুযোগ ও সংরক্ষণাগারের অভাবে আমাদের উৎপাদিত শাকসবজি ও ফলমূলের প্রায় ২০-৩০% পর্যন্ত নষ্ট হয়ে যায়। ফলে কৃষকেরা ক্ষতিগ্রস্ত হয়, ভোক্তারাও ক্ষতিগ্রস্ত হয়। তিনি এ সময় দেশের কৃষিখাতে বিনিয়োগ বৃদ্ধির জন্য শিল্পোদ্যোক্তা ও ব্যবসায়ীদের প্রতি আহ্বান জানান।

শিল্প প্রতিষ্ঠানের শ্রেণিবিন্যাস অনুযায়ী ০৬(ছয়) ক্যাটাগরির মোট ২০টি শিল্প প্রতিষ্ঠান/উদ্যোক্তাকে এই পুরস্কার প্রদান করা হচ্ছে। এগুলো হচ্ছে- বৃহৎ শিল্প ক্যাটাগরিতে ০৬টি, মাঝারি শিল্প ক্যাটাগরিতে ০৩টি, ক্ষুদ্র শিল্প ক্যাটাগরিতে ০৪টি, মাইক্রো শিল্প ক্যাটাগরিতে ০৩টি, কুটির শিল্প ক্যাটাগরিতে ০৩টি এবং হাইটেক শিল্প ক্যাটাগরিতে ০১টি।

বৃহৎ শিল্প ক্যাটাগরিতে যৌথভাবে ১ম হয়েছে ইকোটেক্স লি., প্রাণ ডেইরী লি. ও মীর আক্তার হোসেন লি., ২য় হয়েছে স্কয়ার ফুড অ্যান্ড বেভারেজ লি., যৌথভাবে ৩য় হয়েছে স্নোটেক্স আউটারওয়্যার লি. ও স্কয়ার টয়লেট্রিজ লি.। মাঝারি শিল্প ক্যাটাগরিতে ১ম হয়েছে বেঙ্গল পলি এন্ড পেপার স্যাক লি., ২য় হয়েছে বসুমতী ডিস্ট্রিবিউশন লি. এবং ৩য় হয়েছে এপিএস এ্যাপারেলস লি.।

ক্ষুদ্র শিল্প ক্যাটাগরিতে যৌথভাবে ১ম হয়েছে দ্য রিলায়েবল বিল্ডার্স ও কনকর্ড এন্টারটেইনমেন্ট কোম্পানি লি., ২য় হয়েছে রংপুর ফাউন্ড্রি লি. এবং ৩য় হয়েছে গুনজে ইউনাইটেড লি.। মাইক্রো শিল্প ক্যাটাগরিতে ১ম হয়েছে ফারিহা গ্রিন মুড লেদারস্ লি., ২য় হয়েছে এ.বি.এম ওয়াটার কোম্পানি এবং ৩য় হয়েছে ডীপলেড ল্যাবরেটরিজ লি.। কুটির শিল্প ক্যাটাগরিতে ১ম হয়েছে ব্লু-স্টার অ্যাগ্রো প্রোডাক্ট এন্ড ইন্ডাস্ট্রিজ, ২য় হয়েছে প্রীতি বিউটি পার্লার এবং ৩য় হয়েছে লেহাজ সালমা যুব মহিলা কল্যাণ সংস্থা। হাইটেক শিল্প ক্যাটাগরিতে শুধমাত্র ১টি প্রতিষ্ঠান নির্বাচিত হয়েছে বিজ সলুশনস লি.।

উল্লেখ্য, শিল্প মন্ত্রণালয় কর্তৃক ‘রাষ্ট্রপতির শিল্প উন্নয়ন পুরস্কার প্রদান সংক্রান্ত নির্দেশনাবলি ২০১৩’ অনুযায়ী ২০১৪ সালে ১ম বারের মত ‘রাষ্ট্রপতির শিল্প উন্নয়ন পুরস্কার’ প্রদান শুরু হয়। এরই ধারাবাহিকতায় এই বছর ৭ম বারের মত ‘রাষ্ট্রপতির শিল্প উন্নয়ন পুরস্কার ২০২১’ প্রদান করা হচ্ছে।

‘রাষ্ট্রপতির শিল্প উন্নয়ন পুরস্কার প্রদান নীতিমালা ২০২০’-এ রাষ্ট্রপতির শিল্প উন্নয়ন পুরস্কার প্রদানের উদ্দেশ্য, ক্ষেত্র নির্ধারণ, পুরস্কার প্রাপকের সংখ্যা নির্ধারণ ও বিবেচনা সূত্র, মনোনয়ন যোগ্যতা, প্রাথমিক তালিকা প্রস্তুতকরণ কমিটি, আবেদনপত্র মূল্যায়ন কমিটি এবং মনোনয়ন চূড়ান্তকরণ কমিটি গঠন ও কার্যপরিধি ইত্যাদি বর্ণিত আছে। রাষ্ট্রপতির শিল্প উন্নয়ন পুরস্কারপ্রাপ্ত প্রতিষ্ঠানের চেয়ারম্যান/ব্যবস্থাপনা পরিচালক (প্রযোজ্য ক্ষেত্রে) পুরস্কার প্রাপ্তির পরবর্তী এক বছর বিভিন্ন জাতীয় অনুষ্ঠানে এবং সিটি কর্পোরেশন কর্তৃক আয়োজিত নাগরিক সংবর্ধনায় আমন্ত্রণ পাবেন।

;

বিএনপির ষড়যন্ত্র বাংলার জনগণ সফল হতে দিবে না: পাট ও বস্ত্রমন্ত্রী



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, রংপুর
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

পাট ও বস্ত্রমন্ত্রী জাহাঙ্গীর কবির নানক বলেছেন, বিএনপির অপপ্রচার করার মতো বলার ভান্ডার শূন্য হয়ে গেছে। বিশ্ব মোড়লদের কথায় ক্ষমতার ঘোর স্বপ্ন দেখেছিল তারা। সেটি দুঃস্বপ্নে পরিণত হয়েছে। তাই বিএনপির কোন ষড়যন্ত্র আর বাংলার জনগণ সফল হতে দিবে না।

বৃহস্পতিবার (২৩ মে) দুপুরে রংপুর পাবলিক লাইব্রেরী মাঠে তিনদিন ব্যাপী 'পাট বহুমুখী পন্য মেলার' উদ্বোধন শেষে সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন তিনি।

এসময় পাট ও বস্ত্রমন্ত্রী জাহাঙ্গীর কবির নানক বলেন, কোন কুচক্রীয় মোড়লের চোখ রাঙানোর কাছে মাথা নত করার পর্যায়ে বাংলাদেশ আর নেই। পোশাক শিল্প যেভাবে বিশ্ববাজার দখল করেছে। ঠিক সেভাবে পাট ও চামড়াজাত শিল্পকে এগিয়ে নিতে কাজ করছে সরকার। এছাড়াও পাট পণ্যের হারোনো গৌরবোজ্জ্বল ফেরাতে নানামুখী উদ্যোগের কথা জানান মন্ত্রী।

পরে মন্ত্রী রংপুর শিল্পকলা অডিটরিয়ামে জেলা প্রশাসনের সহযোগিতায় ও পাট অধিদপ্তর, জেডিপিসি,বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয়ের আয়োজনে মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে যোগ দেন।

;

১১ দফা দাবি নিয়ে প্রেসক্লাবে বাংলাদেশ নৌযান শ্রমিক ফেডারেশন



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা ২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

১১ দফা দাবি বাস্তবায়নে সরকার ও সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের প্রতি আহবান জানিয়েছে বাংলাদেশ নৌযান শ্রমিক ফেডারেশন।

বৃহস্পতিবার (২৩ মে) প্রেসক্লাবে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে সংগঠনের নেতারা এ দাবি জানান।

লিখিত বক্তব্যে সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক চৌধুরী আশিকুল আলম বলেন, নদীমাতৃক বাংলাদেশের অর্থনীতিতে নৌপরিবহন শিল্প অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে আসছে। প্রায় শত ভাগ ব্যক্তিমালিকানায় পরিচালিত এই শিল্প স্বল্প ব্যয়ে যাত্রী ও পণ্য পরিবহনের মাধ্যমে দেশের উন্নয়নে অগ্রণী ভূমিকা পালন করছে। প্রটোকল রুটসহ বহিঃবিশ্বের সাথে আমদানি ও রফতানি পণ্য পরিবহন অনেকাংশেই নৌপরিবহনের উপর নির্ভরশীল হওয়া সত্ত্বেও নৌযান শ্রমিকদের জীবনমান উন্নয়ন ও নিরাপত্তার বিষয়টি সব সময় উপেক্ষিত থেকেছে। আমরা সমস্যাগুলোর স্থায়ী সমাধানের লক্ষ্যে বছরের পর বছর দাবি জানিয়ে ও সংগ্রাম করে আসছি। সরকার ও সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ শ্রমিকদের আন্দোলনের মুখে দাবি মেনে নিয়ে কিছু কিছু কার্যকর করলেও অধিকাংশ সিদ্ধান্তই অকার্যকর অবস্থায় উপেক্ষিত থেকে যায় বছরের পর বছর।

তিনি বলেন, নৌযান শ্রমিকদের সামাজিক নিরাপত্তা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে ট্রাস্টি বোর্ডের মাধ্যমে কন্ট্রিবিউটারি প্রভিডেন্ট ফান্ড ও নাবিক কল্যাণ তহবিল গঠন এবং প্রত্যেক শ্রমিককে মালিক কর্তৃক নিয়োগপত্র-পরিচয়পত্র-সার্ভিসবুক প্রদানের দাবি মালিক, শ্রমিক ও সরকারের মধ্যে ২০১৯ সালের নভেম্বর মাসে ত্রিপক্ষীয় সভায় সর্বসম্মতভাবে মেনে নেওয়ার ৪ বছর অতিবাহিত হলেও এখন অব্দি তা বাস্তবতার মুখ দেখেনি। দুর্ঘটনা ও কর্মস্থলে মৃত্যুজনিত ক্ষতিপূরন ১০ লাখ টাকার যৌক্তিক দাবির বিষয়টি এখনো অমীমাংসিত রয়েছে। মালিকদের অভ্যন্তরীণ কোন্দল এবং এক শ্রেণির অতি মুনাফা লোভী অসৎ ব্যবসায়ীদের দৌরাত্ম্যে পণ্য পরিবহনের শৃঙ্খলা ভেঙ্গে যাওয়ায় এ শিল্প আজ ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে এসে দাঁড়িয়েছে।

সাধারণ সম্পাদক বলেন, শ্রমিকের জীবিকা ও শিল্পের প্রয়োজনে অচিরেই সকল মালিক সমিতিকে এক প্লাটফর্মে এনে এককেন্দ্রীক সিরিয়ালের মাধ্যমে পণ্যপরিবহনে সমতা বিধান করা না গেলে চট্টগ্রাম থেকে পণ্যপরিবহনে নিয়োজিত প্রায় ২ হাজার জাহাজের অর্ধেক জাহাজ লোকসানের বোঝা বহন করতে না পেরে বন্ধ হয়ে যাওয়াসহ হাজার হাজার নৌশ্রমিক বেকার হয়ে যাওয়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। ইতিমধ্যে শতাধিক যাত্রীবাহী লঞ্চ বন্ধ হয়ে কয়েক হাজার বেকার হয়ে পড়া শ্রমিকের সাথে যুক্ত হয়ে বেকার সমস্যা প্রকট আকার ধারন করবে। পণ্যবাহী ও যাত্রীবাহী জাহাজের অনেক মালিক নিয়মিত বেতন পরিশোধ করতে পারছে না। ২০২২ সালের নভেম্বর মাস থেকে নতুন-মজুরি কাঠামো কার্যকর হওয়ার কথা থাকলেও পণ্য পরিবহনে সমতা না থাকায় বিশেষ সুবিধাভোগী মালিক সম্প্রদায়ের মালিকরা গেজেট অনুযায়ী মজুরি প্রদান করলেও এখনো ৪০ শতাংশের বেশি শ্রমিক গেজেট মোতাবেক বেতন না পেয়ে চরম অর্থ সংকটের মধ্যে দিনাতিপাত করছে।

বক্তব্যে আরো বলা হয়, পণ্যপরিবহনে শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনার বিষয়ে ইতিপূর্বে আমরা গত ২ ও ২৫ জানুয়ারি নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী বরাবর ২ টি চিঠি পাঠাই। প্রতিমন্ত্রীর নির্দেশনায় নৌপরিহন অধিদপ্তর পণ্যপরিবহনে শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনার লক্ষ্যে নিরপেক্ষ অবস্থানে থেকে যৌক্তিক ও সময়োপযোগী সিদ্ধান্ত গ্রহণ করলেও স্বার্থান্বেসি মহলের চক্রান্তে সেটা থমকে গেছে। অতিদ্রুত পণ্যপরিবহনে শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনা সম্ভব না হল আসন্ন ঈদ-উল-আযহার বেতন বোনাস না পাওয়াসহ চাকরি রক্ষার বিষয়ে শঙ্কিত হয়ে পড়েছে নৌ শ্রমিকরা।

এসব সমস্যার সমাধানে গত ১৮ ফেব্রুয়ারি ১১ দফা দাবি নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রীর নিকট উপস্থাপন করা হলেও এখন অব্দি তার কোনো অগ্রগতি হয় নি।তবে আগামী ৩০ মে আমাদের দাবি নিষ্পত্তির লক্ষ্যে আন্তঃমন্ত্রনালয় সভা আহবান করা হয়েছে। এরপরেও দাবি বাস্তবায়িত না হলে আমরা কর্ম বিরতির কর্মসূচি শুরু করতে বাধ্য হবো।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ নৌযান শ্রমিক ফেডারেশনের সভাপতি মো শাহ আলম,কোষাধ্যক্ষ হাবিবুল্লা বাহার, নারায়ণগঞ্জ অঞ্চলের সভাপতি আজিজুল হক প্রমুখ।

;

সংসদ সদস্য আজীম হত্যা: কলকাতায় ক্যাবচালক আটক, জিজ্ঞাসাবাদ



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

ঝিনাইদহ-৪ (কালীগঞ্জ) আসনের সংসদ সদস্য আনোয়ারুল আজীম আনার হত্যাকাণ্ডে অ্যাপচালিত এক ট্যাক্সিক্যাবচালককে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করছে কলকাতার গোয়েন্দা পুলিশ।

বৃহস্পতিবার (২৩ মে) পশ্চিমবঙ্গের দৈনিক আনন্দবাজার এ খবর জানায়।

খবরে জানানো হয়, বাংলাদেশের সংসদ সদস্য হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় এবার সিআইডির নজরে এক অ্যাপ ক্যাবচালক। মামলার তদন্তের সূত্র ধরে ওই চালককে তলব করা হয়েছিল। বৃহস্পতিবার তাকে আটক করে জেরা করছেন সিআইডি গোয়েন্দারা। হত্যাকাণ্ড সম্পর্কে স্পষ্ট ধারণা পেতে তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।

তবে দৈনিক পত্রিকাটি আটক ক্যাবচালকের নাম প্রকাশ করেনি।

আনন্দবাজারের খবরে বলা হয়, চিকিৎসা করাতে বাংলাদেশ থেকে কলকাতায় এসেছিলেন সে দেশের সংসদ সদস্য আনোয়ারুল আজীম। কলকাতায় এসে প্রথমে তিনি উঠেছিলেন বরাহনগরে এক বন্ধুর ফ্ল্যাটে। দুইদিন সেখানে থাকার পর সেখান থেকে বের হয়ে আর ফিরে আসেননি তিনি।

আনোয়ারুল আজীম আনার বন্ধু গোপাল বিশ্বাস থানায় নিখোঁজ ডায়েরি করেন। অভিযোগ পাওয়ার পরেই তদন্ত শুরু করে ব্যারাকপুর পুলিশ কমিশনারেট। পরে এই মামলার তদন্তভার গ্রহণ করে সিআইডি।

বাংলাদেশের সংসদ সদস্য খুনের ঘটনার তদন্তে নিউ টাউনের একটি ফ্ল্যাটের খোঁজ পায় স্থানীয় থানার পুলিশ। সেই ফ্ল্যাটেই চাপ চাপ রক্তের দাগ। সেখান থেকেই নমুনা সংগ্রহ করেন ফরেন্সিক বিশেষজ্ঞরা।

তদন্তভার হাতে নেওয়ার পরে বুধবার এই ফ্ল্যাটে ঘুরে যান সিআইডির আইজি অখিলেশ চতুর্বেদী।

তিনি জানান, গত ১৮ মে একটি নিখোঁজ অভিযোগ দায়ের হয়েছিল। তারপর ব্যারাকপুর পুলিশ কমিশনারেট একটি এসআইটি গঠন করে। তদন্ত করতে গিয়ে তারা এই ফ্ল্যাটের খোঁজ পান।

তদন্ত করতে এলাকার সিসি ক্যামেরার ফুটেজ খতিয়ে দেখা শুরু করেন গোয়েন্দারা। তদন্তে তারা জানতে পারেন, বরাহনগর থেকে একটি গাড়িতে চেপে নিউ টাউনের ফ্ল্যাটে যান আনোয়ারুল আজীম। সিআইডি ইতোমধ্যে সেই গাড়িরচালককে জিজ্ঞাসাবাদ করেছে। সেখানকার আশপাশের সিসি ক্যামেরার ফুটেজ খতিয়ে দেখে গোয়েন্দারা একটি অ্যাপ ক্যাবের খোঁজ পান।

এদিকে, বৃহস্পতিবার বিকেলে কলকাতা পুলিশের বিশেষ দল ঢাকা এসে পৌঁছানোর কথা রয়েছে। তদন্তের অগ্রগতি ও তথ্য জানাতে তারা ঢাকা আসছেন বলে পুলিশ সূত্রে জানা গেছে।  

;