প্রশিকার কৈট্টাস্থ প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের বেহাল দশা



তরিকুল ইসলাম সুমন, মানিকগঞ্জ থেকে ফিরে
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা প্রশিকার মানিকগঞ্জের কৈট্টাস্থ প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের বেহাল দশা। অথচ এক সময় এই প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের ছিল জাতীয় ও আন্তর্জাতিক খ্যাতি।

এদিকে কর্মচারীদের বেতন বন্ধ করে দিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি। বেতন চাইতে গেলে করা হয় নাজেহাল। তারপরও অনেকে চাকরিতে ছিলেন নতুন কিছুর আশায়। কিন্তু হঠাৎ করেই স্থায়ী ১০৫ জন এবং অস্থায়ী ৩০০ জনকে পূর্ব ঘোষণা ছাড়াই চাকরিচ্যুত করা হয়।

সরেজমিনে প্রশিকার কৈট্টাস্থ প্রশিক্ষণ কেন্দ্র ঘুরে দেখা গেছে, দীর্ঘদিন ধরে পরিষ্কার করা হয় না। অভ্যর্থনা কেন্দ্র যেন ময়লার ভাগাড়। নেই কোনো আসবাবপত্র। সর্বত্র ছড়িয়ে রয়েছে আবর্জনা। বিশাল পুকুর ও খেলার মাঠ। ফসলি জমির উপরের মাটি নেই। আগে যেখানে সব জায়গা ছিল শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত এখন সেখানে পড়ে আছে শুধুই খাঁচা। বিক্রি করে দেয়া হয়েছে মূল্যবান যন্ত্রাংশ।

কৈট্টাস্থ প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের বেহাল দশা

কৈট্টাস্থ প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে এখন কাজ করছেন হাতেগোনা ৫-৭ জন কর্মচারী। কর্মরত গেটম্যান ও কর্মীদের সঙ্গে কথা বলে জানাগেছে, এখানে কাজী ফারুক অনেকদিন আসেন না। এখানকার সকল কিছু দেখভালের দায়িত্বে রয়েছেন শহিদুল ইসলাম (জিএম)। তিনি তার খেয়াল খুশি মতো যা ইচ্ছে তাই করছেন। এখানে যারা রয়েছেন তারাও ১০ মাস ধরে বেতন পান না।

কর্মচারীরা বলেন, জিএম যখন যা ইচ্ছে তাই করছেন। বিক্রি করে দিয়েছেন পুকুরের অনেক টাকার মাছ, এসি, মাটি, গাছ, বিদ্যুতের তার, ফ্যান, টিভি, তাঁত মেশিন, টিস্যু কালচার ল্যাবের মূল্যবান যন্ত্রপাতিও।

মূল্যবান মালামাল বিক্রি প্রসঙ্গে প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের জিএম শহিদুল ইসলাম বলেন, প্রশিকাকে ধ্বংস করছে কাজী ফারুক আহম্মদের একটি বিরোধী চক্র। তারা নানাভাবে মিথ্যাচার করছেন। তারা এখন এটি দখল নেওয়ার চেষ্টা করছেন। এজন্য আমার ও চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে চালাচ্ছে অপপ্রচার।

কর্মচারীদের বেতন বন্ধ থাকার বিষয়ে বলেন, এখন কর্মসূচি অনেক কমে গেছে। এ কারণে বেতন দিতে সমস্যা হচ্ছে। দ্রুত এর সমাধান হবে বলে আশা করেন।

কর্মচারীদের বেতন বন্ধ করে দিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি

প্রশিকার বর্তমান প্রধান নির্বাহী সিরাজুল ইসলাম বলেন, একটা সময় কৈট্টার এ প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের আন্তর্জাতিক সুনাম ছিল। কিন্তু যখন থেকে এটির অবৈধ দখল নিয়েছেন কাজী ফারুক আহম্মদ ও তার সহযোগীরা, তখন থেকেই এর দুরবস্থা শুরু হয়েছে। কারণ তারা কোনো কাজতো করছেই না বরং নষ্ট করছেন। তারা এখন পর্যন্ত প্রায় ৬ কোটি টাকার সম্পদ নষ্ট করেছেন। দামি দামি আসবাপত্র ও মেশিনারীজ নামমাত্র মূল্যে বিক্রি করেছেন। অবৈধভাবে প্রায় ৪০০ কর্মচারীকে চাকরিচ্যুত করে তাদের নামে মামলা দেয়া হয়েছে। আমরা শুনেছি প্রতিদিন তারা এখণ দুঘণ্টা করে কেন্দ্রের সামনে হাজিরা হিসেবে অবস্থান করে। অনেক সময়ে তাদের ওপর চালানো হয় সন্ত্রাসী হামলাও।

তিনি আরও বলেন, এ বিষয়ে আমরা মানিকগঞ্জের এসপি, ডিসি এবং সাটুরিয়া থানায় লিখিতভাবে দিয়েছি। প্রশিকার এ কেন্দ্র থেকে যাতে করে কোনো মালামাল বিক্রি করা না হয়। এবং অবৈধ দখলদারদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য বলা হয়েছে।

স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও সদ্য সাবেক চেয়ারম্যান ওবায়দুল্লাহ বলেন, একটা সময় কৈট্টার এই প্রশিক্ষণ কেন্দ্র ছিল জমজমাট। ৩-৪ শ কর্মচারী কাজ করতেন। কিন্তু ২০০৯ সালের পর থেকেই শুরু হয় ভাটা। ৩-৪শ কর্মচারীকে কোনো কিছুই না জানিয়ে চাকরি থেকে বাদ দেয়া হয়েছে। এখনও তারা প্রায় দিনই হাজিরার জন্য আসেন কেন্দ্রের সামনে। বেতনভাতা চাইতে গেলে চালানো হয় হামলা। দেয়া হচ্ছে মামলা। আমি দায়িত্ব থাকাকালে অনেক কর্মচারীকে সরকারি সহায়তা দিয়েছি। তাদের কষ্ট সহ্য করা যায় না। পেটে ভাত নাই অন্যদিকে থাকতে হচ্ছে পুলিশের ভয়ে।

বিক্রি করা হয়েছে মূল্যবান জিনিসপত্র

কৈট্টার প্রশিক্ষণ কেন্দ্র থেকে চাকরিচ্যুত মিহির কাঞ্চন (হাউস কিপার), নূরুল ইসলাম (বাবুর্চি), রাশেদা বেগম, (হাউস কিপিং), মাজেদা বেগম (হাউস কিপিং), জমিলা বেগম, মো. আক্তার হোসেন (প্রশাসনিক কর্মকর্তা) জানান, কাজী ফারুক দখল নেওয়া পর থেকে এই কেন্দ্রের ওপর নানা সমস্যা তৈরি হয়। আমাদের ২৩ মাসের বেতন বকেয়া রেখে চাকরিচ্যুতি করা হয়েছে। বেতন চাইতে গেলে সন্ত্রাসী দিয়ে হামলা চালানো হয়। এতে আমাদের অনেক সদস্য আহত হয়েছিল। আমরা আমাদের চাকরি ফেরতসহ বকেয়া বেতন চাই। পাশাপাশি আমাদের বিরুদ্ধে যে মিথ্যা মামলা দেয়া হয়েছে, তা প্রত্যাহার চাই।

ভুক্তভোগীরা আরও জানান, চাকরি হারিয়ে অনেকে এখন দিনমজুর ও অন্যের বাসায় কাজ করেন, কেউ চায়ের দোকান দিয়ে দিন চলাচ্ছেন। অনেকে আবার এলাকা ছেড়েও চলে গেছেন।

উল্লেখ্য, প্রশিকার বর্তমান পরিচালনা পর্ষদ মনে করে, প্রশিকাকে ভঙ্গুর অবস্থা থেকে যেভাবে দেশের সকল শাখা অফিস চালু করা হয়েছে। সেভাবে প্রশিকার কৈট্টাস্থ প্রশক্ষণ কেন্দ্র পরিচালনা করা হলে, একদিকে সম্পদ রক্ষা, অন্যদিকে চাকরিচ্যুতদের চাকরিতে পুনঃনিয়োগও সম্ভব হবে।

   

হাটহাজারীতে দুই প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, চট্টগ্রাম
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চট্টগ্রামের হাটহাজারীর একটি কেন্দ্রে দুই প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটেছে। তবে এ ঘটনায় কাউকে আটক করা যায়নি বলে জানিয়েছে পুলিশ।

মঙ্গলবার (২১ মে) বেলা সাড়ে ১১টায় হাটহাজারী উপজেলার ফতেপুর ইউনিয়নের জোবরা পি.পি উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে এই ঘটনা ঘটে।

পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা গেছে, হাটহাজারীর জোবরা পি.পি কেন্দ্রের বাইরে চেয়ারম্যান প্রার্থী রাশেদুল আলম ও সোহরাব হোসেন নোমানের সমর্থকদের মধ্যে বাগবিতণ্ডা হয়। এসময় দুই পক্ষ ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ায় জড়িয়ে পড়ে। পরস্পরের মধ্যে ইটপাটকেল নিক্ষেপ করে তারা। এসময় রেললাইনের পাশে আগুন দেওয়া হয়।

ঘটনার সময় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী সদস্যরা কয়েক রাউন্ড ফাঁকা গুলি ছোড়ে। কেন্দ্রে ভোট গ্রহণ স্বাভাবিক থাকলেও বাইরে থমথমে পরিস্থিতি বিরাজ করছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে র‌্যাব ও বিজিবি সদস্যরা ঘটনাস্থলে অবস্থান করছে।

চট্টগ্রাম জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ডিএসবি) আবু তৈয়ব মো. আরিফ হোসেন বার্তা২৪.কমকে বলেন, কেন্দ্রের বাইরে দুই পক্ষের সমর্থকদের মধ্যে ইটপাটকেল নিক্ষেপের ঘটনা ঘটে। এসময় পুলিশ ও স্ট্রাইকিং ফোর্স তাদের ধাওয়া করে পরিস্থিতি নিযন্ত্রণে আনে। তবে এতে ভোট গ্রহণের কোনো সমস্যা হয়নি। এ ঘটনায় এখনো কাউকে আটক করা যায়নি।

ফটিকছড়িতে কেন্দ্র পরিদর্শনে এসে জেলা প্রশাসক আবুল বাসার মোহাম্মদ ফখরুজ্জামানও হাটহাজারীর একটি কেন্দ্রে দুই প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার কথা স্বীকার করেন।

তিনি বলেন, আমাদের দেশে যে নির্বাচনী সংস্কৃতি এখানে দেখা যায় প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীদের সমর্থক এবং কর্মীদের মধ্যে অনেক উৎসাহ উদ্দীপনা কাজ করে। এর থেকে অনেক সময় দেখা তাদের মধ্যে হট্টগোল হয়ে থাকে। হাটহাজারীর জোবরা কেন্দ্রে এ ধরনের একটি বিচ্ছিন্ন ঘটনার কথা শুনেছি। সেখানে এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট আছেন এবং পরিস্থিতির সম্পূর্ণ নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। ভোট গ্রহণে কোন সমস্যা হয়নি।

এদিকে ফটিকছড়ি, হাটহাজারী ও রাঙ্গুনিয়া উপজেলায় দ্বিতীয় ধাপে সকাল ৮টা থেকে ভোট গ্রহণ শুরু হয়। যা চলবে বিকেল ৪টা পর্যন্ত। এ তিন উপজেলায় ২১ জন প্রার্থী তিনটি পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

;

লক্ষ্মীপুরে পানিতে ডুবে ভাই-বোনের মৃত্যু



ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট,বার্তা২৪.কম,লক্ষ্মীপুর
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

লক্ষ্মীপুরে পুকুরের পানিতে ডুবে স্কুল শিক্ষার্থী নাফিজা মোবারক মাদিহা (৮) ও তার আপন ভাই মো. ওমরের (৫) মৃত্যু হয়েছে।

মঙ্গলবার (২১ মে) দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে সদর উপজেলার ভবানীগঞ্জ ইউনিয়নের ১ নম্বর ওয়ার্ডের কামালপুর গ্রামে এ দুর্ঘটনা ঘটে। দুই সন্তানকে হারিয়ে তাদের মা-বাবাসহ স্বজনদের মাঝে শোকের ছায়া নেমে এসেছে। কান্নায় মূর্ছা যাচ্ছেন নিহতদের মা।

নিহত নাফিজা স্থানীয় ফাতেমা আইডিয়াল স্কুলের প্রথম শ্রেণির ছাত্রী ও ওমর প্লে শাখার ছাত্র। তারা কামালপুর গ্রামের ব্যবসায়ী রাজু আহমেদের সন্তান।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, পুকুর ঘাটে গেলে পা পিছলে ওমর পানিতে পড়ে যায়। এসময় ভাইকে বাঁচানোর জন্য নাফিজাও পানিতে নামে। এতে দু'জনেই পানিতে ডুবে যায়। পরে ওমর ও নাফিজাকে উদ্ধার করে সদর হাসপাতালে নিলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাদেরকে মৃত ঘোষণা করেন।

ভবানীগঞ্জ ইউনিয়ন পরিষদের ১ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য (মেম্বার) খুরশিদ আলম বলেন, 'ঘটনাটি মর্মান্তিক। একসঙ্গে দুটি সন্তানের মৃত্যু খুব বেদনাদায়ক। নিহতদের মা-বাবাকে শান্তনা দেওয়ার ভাষা খুঁজে পাচ্ছি না।'

;

নিখোঁজ এমপি আনারের কোনো আপডেট নেই: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

ভারতে চিকিৎসা করাতে গিয়ে নিখোঁজ হওয়া ঝিনাইদহ-৪ আসনে আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য আনোয়ারুল আজিম আনারের বিষয়ে জানতে চাইলে এক প্রশ্নের জবাবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান বলেন, ‘আনারের বিষয়ে আমার কাছে এখন পর্যন্ত কোনো আপডেট নেই। যতটুকু শুনছি, আনারের মোবাইলটাও বন্ধ আছে।

মঙ্গলবার (২১ মে) সচিবালয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা জানান।

তিনি বলেন, আমাদের ও ভারতের ইমিগ্রেশন পার হয়ে যথাযথভাবেই তিনি ভারতে যান। তার পরিবার থেকে আমাদের জানানো হয়েছিল, তার কোনো খোঁজ-খবর পাওয়া যাচ্ছে না। সরকারি সব সংস্থা এটা নিয়ে কাজ করছে। আমাদের এনএসআই, এসবি ও পুলিশ কাজ করছে। ভারতীয় পুলিশ ও গোয়েন্দা সংস্থার সঙ্গে কাজ করা হচ্ছে। আশা করছি, ভারতীয় সরকারের মাধ্যমে শিগগিরই তার বিষয়ে জানতে পারব।

এর আগে, গত ১৯ মে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী জানিয়েছিলেন, এমপি মো. আনোয়ারুল আজিম আনারের বিষয়ে উদ্বিগ্ন হওয়ার কিছু নেই। তিনি কলকাতায় গেছেন, এসে পড়বেন।

সেদিন তিনি আরও বলেছিলেন, তিনি পুরোনো মানুষ, একজন সংসদ সদস্য, বুঝেশুনেই তো চলেন। পাশের দেশ ভারতে গেছেন। এমন তো না মিয়ানমার গেছেন, যে মারামারি লেগেছে। আমার মনে হয় তিনি এসে পড়বেন।

প্রসঙ্গত, গত ১১ মে চিকিৎসার জন্য ভারতের কলকাতায় যান সংসদ সদস্য আনোয়ারুল আজিম আনার। এরপর থেকে পরিবারের সদস্যরা তার সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারছেন না।

আনোয়ারুল আজিম আনার ঝিনাইদহ-৪ আসনের সরকারদলীয় সংসদ সদস্য। তিনি ২০১৪, ২০১৮ ও ২০২৪ সালে টানা ৩ বার আওয়ামী লীগ থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন।

;

মতপ্রকাশের স্বাধীনতায় বাংলাদেশের অবস্থান সংকটজনক



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
ছবি: বার্তা ২৪

ছবি: বার্তা ২৪

  • Font increase
  • Font Decrease

'বৈশ্বিক মতপ্রকাশ প্রতিবেদন ২০২৪' অনুসারে বাংলাদেশে মতপ্রকাশের স্বাধীনতা সংকটজনক অবস্থায় রয়েছে বলে এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে আর্টিকেল নাইনটিন। ৫ বছরের সময়কাল (২০১৮-২৩) বিবেচনায় নিলেও স্কোরের দিক থেকে একই জায়গায় আটকে আছে বাংলাদেশ। 

মঙ্গলবার (২১ মে) রাজধানীর লেকশোর হাইটসে 'আর্টিকেল নাইনটিনের' বৈশ্বিক মত প্রকাশের স্বাধীনতা প্রতিবেদন প্রকাশ' শীর্ষক সংবাদ সম্মেলনে এ প্রতিবেদন প্রকাশ করেন আর্টিকেল নাইনটিনের দক্ষিণ এশিয়ার আঞ্চলিক পরিচালক শেখ মনজুর-ই-আলম।

তিনি বলেন, 'বিগত দশ বছর বা ২০১৩-২০২৩ সাল এই সময়কাল বিবেচনায় নিলে বাংলাদেশের মতপ্রকাশ স্কোর কমেছে ৮ পয়েন্ট। ২০১৩ সালে বাংলাদেশের জিআরএক্স স্কোর ছিল ২০ যা মতপ্রকাশের শ্রেণীগত দিক থেকে অতি বাধাগ্রস্ত দেশ। ২০১৪ সালে স্কোর ৪ পয়েন্ট কমে ১৬ স্কোর নিয়ে বাংলাদেশ প্রথমবারের মতো মতপ্রকাশের সংকটজনক শ্রেণীতে ঢুকে পড়ে। যা থেকে বাংলাদেশ এখনও উত্তরণ ঘটাতে পারেনি।'

একইভাবে ২০০০ সাল থেকে মতপ্রকাশের স্কোর বিশ্লেষণ করলে দেখা যাচ্ছে এই সময়কালে বাংলাদেশের স্কোর কমেছে ৩২ পয়েন্ট। ২০০০ সালে বাংলাদেশের স্কোর ছিল ৪৪, যেটি মতপ্রকাশের শ্রেণীগত দিক থেকে 'বাধাগ্রস্ত' হিসেবে বিবেচিত। 'বাধাগ্রস্ত' থেকে 'অতিবাধাগ্রস্ত' দেশের তালিকায় বাংলাদেশের অবনমন হয় ২০০৬ সালে। স্কোর ২০০৫ সালের তুলনায় ৪ পয়েন্ট কমে নেমে আসে ৩৯ এ। পরবর্তী বছর ২০০৭ সালে আরও ১০ পয়েন্ট কমে স্কোর নেমে আসে ২৯ এ। পরের দুই বছর (২০০৮ ও ২০০৯ সালে) স্কোর ৫ পয়েন্ট বেড়ে ৩৪এ উন্নীত হলেও ধারাবাহিকতা ধরে রাখতে পারেনি পরবর্তী বছরগুলোতে। বরং বছর বছর স্কোর কমেছে এবং মতপ্রকাশের সংকটজনক শ্রেণীতে নেমে আসে ২০১৪ সালে।

সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশের ( টিআইবি) নির্বাহী পরিচালক ড. ইফতেখারুজ্জামান। তিনি বলেন, 'মানুষ কে প্রটেক্ট করার নামে মানুষের অধিকার খর্ব করা হচ্ছে। এখন ক্ষমতার রাজনীতির সাথে স্বাধীন মত প্রকাশের দ্বন্দ্ব বিদ্যমান।'

এ সময় দৈনিক প্রথম আলোর যুগ্ম সম্পাদক সোহরাব হাসান তিনি বলেন, 'বাংলাদেশের গণতন্ত্র, আইন, মতপ্রকাশের স্বাধীনতা সংকটে জনগণ সবচেয়ে বিপদে আছে। নাগরিক পরিসরে সংকুচিত হচ্ছে। রাষ্ট্র যদি জনগণকে ভয় পায় বা সন্দেহ করে তবে তা সবচেয়ে বিপজ্জনক।'

সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ পরিবেশ আইনবিদ সমিতির (বেলা) প্রধান নির্বাহী সৈয়দা রিজওয়ানা হাসান।

;