দেশে এ বছর বাস্তুচ্যুত হয়েছে ৭১ লাখ মানুষ



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
দেশে এ বছর বাস্তুচ্যুত হয়েছে ৭১ লাখ মানুষ

দেশে এ বছর বাস্তুচ্যুত হয়েছে ৭১ লাখ মানুষ

  • Font increase
  • Font Decrease

জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে চলতি বছর ৭ দশমিক ১ মিলিয়নেরও বেশি বাংলাদেশি বাস্তুচ্যুত হয়েছে। যা ২০৫০ সালের মধ্যে ১৩ দশমিক ৩ মিলিয়নে (এক কোটি ৩৩ লাখ) পৌঁছতে পারে। সোমবার রাজধানীর শেরাটন হোটেলে এক সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানায় বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও)।

পাঁচ দিনব্যাপী তৃতীয় গ্লোবাল স্কুল অন রিফিউজি অ্যান্ড মাইগ্রেন্ট হেলথ শীর্ষক অনুষ্ঠান উপলক্ষে এ সংবাদ সম্মেলন করে ডব্লিউএইচও। শরণার্থী এবং অভিবাসী স্বাস্থ্য সমস্যাগুলিকে ভালোভাবে মোকাবিলা, পেশাদার দক্ষতা ও সক্ষমতা গড়ে তোলার জন্য দেশ ও অঞ্চলগুলোকে সহায়তা করতে পাঁচ দিনব্যাপী এই আয়োজন করা হচ্ছে বলে জানিয়েছে ডব্লিউএইচও।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, জলবায়ু পরিবর্তন, ক্রমবর্ধমান বৈষম্য, দ্বন্দ্ব, বাণিজ্য এবং জনসংখ্যা বৃদ্ধি এই বাস্তুচ্যুত ও অভিবাসন সমস্যা বাড়াচ্ছে। বর্তমানে বিশ্বে প্রতি ৮ জনের মধ্যে এক জন, ১ বিলিয়ন লোকের মধ্যে ২৮১ মিলিয়ন অভিবাসী এবং কয়েক মিলিয়ন মানুষ রাষ্ট্রহীন হয়েছে।

ডব্লিউএইচও কর্মকর্তারা সংবাদ সম্মেলনে আরও বলেন, ১৯৭৮ সাল থেকে বাংলাদেশ তিনটি বড় ধরনের অভিবাসী সমস্যা প্রত্যক্ষ করা গেছে। এর মধ্যে অন্যতম হচ্ছে মিয়ানমার থেকে আসা বাস্তুচ্যুতরা। মিয়ানমার তার বেশকিচু নাগরিককে জোরপূর্বক বাস্তুচ্যুত করেছে, যাদের প্রত্যেকের খাবার, চিকিৎসা ও বসবাসের ব্যবস্থার প্রয়োজন রয়েছে।

সংবাদ সম্মেলনে বিশ^ স্বাস্থ্য সংস্থার বাস্তুহীন এবং অভিবাসীদের স্বাস্থ্য ও অভিবাসন কর্মসূচির পরিচালক ডা. সান্তিনো সেভেরোনি বলেন, বার্ষিক গ্লোবাল স্কুল অন রিফিউজি অ্যান্ড মাইগ্রেন্ট হেলথ হচ্ছে ডব্লিউএইচও হেলথ অ্যান্ড মাইগ্রেশন প্রোগ্রামের একটি ফ্ল্যাগশিপ এবং প্রচারের জন্য গ্লোবাল অ্যাকশন প্ল্যান। যা বাস্তবায়নের দিকে উদ্বাস্তু ও অভিবাসী স্বাস্থ্য সম্পর্কিত আঞ্চলিক এবং দেশীয় অফিসগুলোর সঙ্গে কৌশলগত এবং অপারেশনাল সহযোগিতা জোরদারের জন্য একটি বড় সুযোগ।

সংবাদ সম্মেলনে ডব্লিউএইচও মহাপরিচালক ড. টেডরস আধানম ঘেব্রেইসুরস বলেন, অভিবাসন এবং বাস্তুচ্যুতি শারীরিক এবং মানসিক স্বাস্থ্য এবং সুস্থতার ওপর গভীর এবং দীর্ঘস্থায়ী প্রভাব ফেলতে পারে। একই সঙ্গে সাংস্কৃতিক ও ভাষাগত পার্থক্য, আর্থিক বাধা, কুসংস্কার এবং বৈষম্য সবই উদ্বাস্তু ও অভিবাসীদের জন্য স্বাস্থ্য পরিষেবার অংশগ্রহণকে বাধাগ্রস্ত করতে পারে। শরণার্থী গ্লোবাল স্কুলের মাধ্যমে শরণার্থী এবং অভিবাসীদের আরও ভাল সেবা দেওয়ার জন্য স্বাস্থ্যকর্মীদের সক্ষমতা তৈরি করার লক্ষ্য রয়েছে।

ডব্লিউএইচওর দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার আঞ্চলিক পরিচালক ড. পুনম ক্ষেত্রপাল সিং সংবাদ সম্মেলনে বলেন, স্বাস্থ্যের অধিকার সর্বত্র সব মানুষের জন্য সমান অধিকার। বিশেষ করে উদ্বাস্তু এবং অভিবাসীদের জন্য প্রসারিত। কারণ সত্যিকার অর্থে সম্মানিত, সুরক্ষিত এবং পরিপূর্ণ হতে হলে, স্বাস্থ্যের অধিকার অবশ্যই সবচেয়ে প্রান্তিক এবং ঝুঁকিপূর্ণ ব্যক্তিদের ভালোভাবে দিতে হবে, যারা এখনো সমস্যায় এবং ঝুঁকিতে আছে। স্বাস্থ্য ক্ষেত্রে প্রতিটি প্রেক্ষাটের চিত্র ও চ্যালেঞ্জ একই নয়, সমাধানও একই না। তবে সব দেশ এবং স্বাস্থ্য ব্যবস্থার জন্য গুরুত্বপূর্ণ হচ্ছে এমন একজন স্বাস্থ্য কর্মী, যিনি প্রশিক্ষিত ও সাংস্কৃতিকভাবে সংবেদনশীল।

ডব্লিউএইচওর আঞ্চলিক পরিচালক রোহিঙ্গা প্রসঙ্গ উল্লেখ করে বলেন, বাংলাদেশ শুধুমাত্র তাদের ( রোহিঙ্গা) বিনামূল্যে স্বাস্থ্যসেবার সুবিধাই দেয়নি, আরও অনেক কিছু করেছে। যার মধ্যে সম্প্রতি করোনা ভাইরাসের ভ্যাকসিন দেওয়া হয়েছে। ছাড়াও সামাজিক, অর্থনৈতিক, পরিবেশগত এবং আইনি দুর্বলতাগুলি মোকাবিলার জন্য সমন্বিত চেষ্টাও করছে।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার পাঁচ দিনব্যাপী এই আয়োজনে গবেষক, বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী, বেসরকারি সংস্থা, যুব প্রতিনিধি ও সাংবাদিকরা অংশ নেবেন।

   

পুলিশ সদস্যের প্রচেষ্টায় আগুন থেকে রক্ষা পেলো ওসমানী হাসপাতাল



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, সিলেট
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

সিলেট জেলা পুলিশের এক সদস্যের প্রচেষ্টায় অল্পের জন্য বড় ধরণের অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা থেকে রক্ষা পেলো এমএজি ওসমানী মেডিকেল হাসপাতাল।

শনিবার (২ মার্চ) দুপুর দেড়টার দিকে এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ২নং গেইটের ১০ তলা ভবনের পাশে জেনারেটর রুমের পাশে ময়লার স্তূপে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে।

অগ্নিকাণ্ডের বিষয়টি বার্তা২৪.কম-কে নিশ্চিত করেছেন সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল ডা.মাহবুবুর রহমান ভূঁইয়া।

তিনি বলেন, এ ঘটনায় তিন সদস্য বিশিষ্ট একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হচ্ছে।

জানা যায়, শনিবার দুপুর ১টা থেকে দেড়টার ভেতরে সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপতালের ১০ তলা ভবনের জেনারেটর রুমের পাশে হঠাৎ আগুন  লেগে যায়। এসময় লোকজন আগুন আগুন বলে চিৎকার চেঁচামেচি শুরু করলে ছুটে আসেন ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের দায়িত্বরত ও সিলেট জেলা পুলিশের সদস্য মো.জনি চৌধুরী। পরে তিনি বালতি দিয়ে পানি ঢেলে আগুন নিয়ন্ত্রণে নিয়ে আসেন।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, হঠাৎ করে আগুন দেখে লোকজন চিৎকার শুরু করলে পাশের একটি চায়ের দোকানে বসে থাকা পুলিশ সদস্য জনি চৌধুরী ছুটে আসেন এবং আগুন নেভান। তাৎক্ষণিক তিনি না এলে অনেক বড় ধরণের দুর্ঘটনা ঘটতে পারতো। কারণ পাশেই ছিলো জেনারেটর রুম।

এ বিষয়ে ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের দায়িত্বরত ও সিলেট জেলা পুলিশের সদস্য জনি চৌধুরী বলেন, পাশের একটি টংয়ের দোকানে বসে চা খাচ্ছিলাম। আগুন লেগেছে বলে লোকজন চিৎকার শুনে তাৎক্ষণিক বালতি দিয়ে পানি ঢেলে আগুন নিয়ন্ত্রণে নিয়ে আসি।

এ ব্যাপারে সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল ডা.মাহবুবুর রহমান ভূঁইয়া বলেন, ইতোমধ্যে তিন সদস্য বিশিষ্ট একটি তদন্ত কমিটি গঠন করার জন্য নির্দেশনা দিয়েছি। অগ্নিকাণ্ডের ভিডিওটি দেখে আমার কাছে সন্দেহজনক মনে হচ্ছে। ঘটনাস্থলে অনেকগুলো ঝাঁড়ু এক সঙ্গে ও কাগজপত্র রয়েছে। সিসিটিভি ফুটেজ দেখে যদি পাওয়া যায় কেউ অগ্নিকাণ্ড ঘটিয়েছে তাহলে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

;

ভোজ্যতেলের মজুদ ও বিপণন পর্যবেক্ষণ চলছে: ভোক্তার ডিজি



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

১ মার্চ থেকে ভোজ্য তেল লিটারে ১০ টাকা কমিয়ে ১৬৩ টাকায় বিক্রি হওয়ার কথা থাকলেও সেই দামে বিক্রি হচ্ছে না। তাই রূপগঞ্জ, কেরানীগঞ্জ, চট্টগ্রামসহ ৭টি রিফাইনারিতে তেলের উৎপাদন ও মজুদ পর্যবেক্ষণের জন্য ভোক্তা অধিকারের টিম কাজ করছে বলে জানিয়েছেন ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতরের মহাপরিচালক এ. এইচ. এম সফিকুজ্জামান।

শনিবার (২ মার্চ) বিশ্ব ভোক্তা অধিকার দিবসের প্রাক্কালে ডিবেট ফর ডেমোক্রেসি’র আয়োজনে এক বিতর্ক প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন ডিবেট ফর ডেমোক্রেসির চেয়ারম্যান হাসান আহমেদ চৌধুরী কিরন।

ভোক্তার ডিজি বলেন, দাম কমানোর সিদ্ধান্ত সহজে কার্যকর হয় না, অথচ দাম বাড়ানোর সিদ্ধান্ত দ্রুত কার্যকর হয়। চারটি পণ্যের ট্যাক্স কমালেও বাজারে তার প্রভাব লক্ষ্য করা যাচ্ছে না।

তিনি আরও বলেন, সঠিক সময়ে আমদানির সিদ্ধান্ত গ্রহণ করতে না পারলে বাজার নিয়ন্ত্রণ করা কঠিন হয়ে যায়। ভোক্তা-অধিকার সংরক্ষণে আজ প্রয়োজন ভোক্তার সিন্ডিকেট। ভোক্তারা সমন্বিতভাবে কোন দ্রব্য কেনা কমিয়ে দিলে এক সপ্তাহ পরেই তার দাম কমে আসবে, যেমন গরুর মাংস।

এসময় এ. এইচ. এম সফিকুজ্জামান বলেন, বেইলি রোড ট্রাজেডিতে ভোক্তার অধিকার ক্ষুন্ন হয়েছে। একজন গ্রাহক রেস্টুরেন্টে যাবার আগে তার পক্ষে জানা সম্ভব হয় না উক্ত স্থাপনা বিল্ডিং কোড মেনে করা হয়েছে কি না। সেখানে অগ্নিনির্বাপণ ব্যবস্থা ও জরুরি নির্গমন সিড়িসহ অন্যান্য নিরাপত্তা ব্যবস্থা সঠিক আছে কি না।

সভাপতির বক্তব্যে ডিবেট ফর ডেমোক্রেসির চেয়ারম্যান হাসান আহমেদ চৌধুরী কিরণ বলেন, দুষ্টচক্রের কারণে ন্যায্য দামে পণ্য কিনতে না পারায় ভোক্তারা কষ্টে আছে। সিন্ডিকেটের কবল থেকে বের হতে পারছে না ব্রয়লার মুরগি, গরুর মাংস, চিনি, ছোলা, পেঁয়াজ, খেজুরসহ অন্যান্য নিত্যপণ্য। আসন্ন রমজানে নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্যের দাম ক্রয় ক্ষমতার মধ্যে থাকবে কিনা তা ভাবিয়ে তুলছে ভোক্তাদের। তবে ভ্যাট ট্যাক্স সহনীয় রেখে উন্মুক্ত আমদানি, ডলার সংকট মোকাবিলা, ব্যাংক গুলোকে বাড়তি দামে ডলার বিক্রি না করা, পরিবহনে চাঁদাবাজি বন্ধ করাসহ সর্বোপরি সিন্ডিকেটের কালো হাত ভেঙে দিতে পারলে ভোক্তারা সঠিক দামে পণ্য কিনতে পারবে।

;

ফেনীতে আয়োজিত হলো পুষ্টিভাত উৎসব 



ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তা-২৪.কম, ফেনী
ছবি: বার্তা ২৪

ছবি: বার্তা ২৪

  • Font increase
  • Font Decrease

'বসা ভাতে পুষ্টি বেশি, খেলে রোগপ্রতিরোধ হয়; মাড় ফেলে রান্না হলে চাল, ১৫ ভাগ হয় অপচয়' এ প্রতিপাদ্য নিয়ে ফেনীতে পুষ্টিভাত উৎসব আয়োজিত হয়েছে। 

খাদ্যের অপচয় রোধে বিজ্ঞানসম্মত বসাভাতের গুরুত্ব জাতীয় শিক্ষাক্রমের আওতায় মাধ্যমিক স্তরে পাঠ্যভুক্ত হওয়ায় জনসচেতনতা বাড়াতে গণমাধ্যম কর্মীদের সাথে সংশ্লিষ্ট বিষয়ের গবেষক কবি ও বিজ্ঞানী গাজী রফিকের মতবিনিময় সভা ও পুষ্টিভাত উৎসব অনুষ্ঠিত হয়েছে। 

শনিবার (২ মার্চ) দুপুরে শহরের গ্র‍্যান্ড টেস্ট রেস্টুরেন্টে আয়োজিত এ সভায় বসাভাতের গুরুত্ব উল্লেখ করে বক্তব্য রাখেন বিজ্ঞানী গাজী রফিক।

এসময় তিনি পুষ্টিভাতের বিভিন্ন গুরুত্ব উল্লেখ করে সবাইকে এ বিষয়ে সচেতন হয়ে ভাতের অপচয় রোধে এবং পুষ্টিমান রক্ষায় বসাভাত খাওয়ার অভ্যাস গঠনের আহ্বান জানান।

গবেষক কবি ও বিজ্ঞানী গাজী রফিক বলেন, ভাতের মাড়ে পুষ্টিগুণ বেশি। ভাতের মাড় ফেলে দিলে তার পুষ্টিগুণ নষ্ট হয়। বসাভাত খেলে ১৫ শতাংশ চাল সাশ্রয় হয় আর মাড় ফেলে দিলে ১৫ শতাংশ অপচয় হয়। বাংলাদেশে এ অর্থবছরে ৩ কোটি ৯০ লাখ মেট্রিক টন চাল উৎপাদন হয়েছে যা আমরা ব্যবহার করব। এ চাল থেকে ১৫ শতাংশ অপচয় হলে প্রায় ৬০ মেট্রিক টন চাল অপচয় হবে। এবং এতে করে পুষ্টি, স্বাস্থ্যর দিকে মানুষ এবং অর্থনৈতিক ভাবে দেশ ক্ষতিগ্রস্ত হবে৷

তিনি বলেন, এখন যে মিনিকেট চাউল বলে বিক্রি করা হয় এ নামে কোন চাল নেই। চালকে কেটে মিনিকেট নাম দিয়ে বিক্রি করা হয়। এসব চালে কোন গুণাগুণ নেই। বসাভাতে পুষ্টি রয়েছে এতে স্বাস্থ্য ভালো থাকবে এবং দেশ অর্থনৈতিক ভাবে লাভবান হবে। স্বাস্থ্য সুরক্ষা এবং এ বিষয়ে সচেতনতা বাড়াতে এ পুষ্টিভাত উৎসব আয়োজন করা হয়েছে বলে জানান তিনি।

আলোচনায় অংশ নিয়ে ফেনী সরকারি কলেজ অধ্যক্ষ প্রফেসর মোহাম্মদ মোক্তার হোসেইন বলেন, বসাভাতের বিষয়ে আমাদের জানার ঘাটতি রয়েছে। এর প্রয়োজনীয়তা সম্পর্কে মানুষ এখনও অবগত নয়। মানুষ সচেতন না হলে অদূর ভবিষ্যতে খাদ্য সংকটসহ নানা সমস্যার সম্মুখীন হতে হবে। বসাভাত খেলে খাদ্য সঞ্চয় হবে এটি দেশের উন্নয়নের ধারক হবে। এ বিষয়ে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসহ অন্যান্য প্রতিষ্ঠানে বহুল প্রচার প্রচারণা বাড়াতে পারলে মানুষ এ বিষয়ে সতর্ক থাকবে এবং দেশের উন্নয়ন হবে একই সাথে স্বাস্থ্যগত দিক থেকে মানুষ ভালো থাকবে।

এসময় আলোচনায় অংশ নিয়ে বক্তব্য রাখেন প্রথম আলো ফেনী প্রতিনিধি বীর মুক্তিযোদ্ধা সাংবাদিক আবু তাহের, দৈনিক ফেনীর সময় সম্পাদক মোহাম্মদ শাহাদাত হোসেন, দৈনিক ফেনী সম্পাদক আরিফুল আমিন রিজভী, কবি ওবায়েদ মজুমদার।

পুষ্টিভাত উৎসব প্রস্তুতি কমিটির আহ্বায়ক সাংবাদিক আসাদুজ্জামান দারার সঞ্চালনায় মতবিনিময় সভায় ফেনীর গণমাধ্যমকর্মী, শিক্ষক-শিক্ষিকা, আইনজীবী ও বিভিন্ন শ্রেণি প্রেশার মানুষ অংশ নেন। এতে বক্তারা পুষ্টিভাতের গুরুত্ব অনুধাবন করে এ বিষয়ে ব্যাপক প্রচার প্রচারণা বাড়ানোর আহ্বান জানান। 

;

চূড়ান্ত ভোটার তালিকা প্রকাশ, বেড়েছে ২.২৬ শতাংশ



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

দেশে মোট ভোটার সংখ্যা ১২ কোটি ১৮ লাখ ৫০ হাজার ১০০ জন। ফলে আগের তুলনায় ২ দশমিক ২৬ শতাংশ বেড়েছে।

শনিবার (২ মার্চ) মোট ভোটারের চূড়ান্ত তালিকা প্রকাশ করেছে নির্বাচন কমিশন।

কমিশনের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, মোট ভোটারের ৫ কোটি ৯৭ লাখ ৪ হাজার ৬৪১ জন নারী আর ৬ কোটি ২১ লাখ ৪৪ হাজার ৫৮৭ জন পুরুষ ভোটার।

;