ওজন কমবে মেথির গুণে



লাইফস্টাইল ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

অনলাইনে হাল ফ্যাশনের জামাকাপড় দেখেই হাত নিশপিশ করে, তবে কেনার আগেই মাথায় শত চিন্তা আসে! যা ভুঁড়ি হয়েছে, তাতে পোশাকগুলি পরলে আদৌ মানাবে তো? রোগা হতে গেলে তো ভারী কসরত করতে হবে, আর ওতেই যে বড্ড অনীহা! রোগা হতে গেলে যে জিমে গিয়ে ভারী শরীরচর্চা করতে হবে, এমনটা একেবারেই নয়। রোজ নিয়ম করে হাঁটাহাটি করে আর খাদ্যাভ্যাসে রাশ টানলেই কিন্তু ওজন কমানো যায়। এর পাশাপাশি কিছু মশলার গুণেও কিন্তু ওজন ঝরানোর প্রক্রিয়াকে তরান্বিত করা যায়। মেথিরও সেই গুণ রয়েছে।

মেথি চা

চা তো খান রোজ, এ বার সেই চায়েই যোগ করুন কয়েকটা মেথির বীজ। হজমশক্তি তো বাড়বেই, সঙ্গে রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণও হবে। স্বাদে তেঁতো হলেও কাজ দেবে ষোলো আনা। একেবারেই খেতে না পারলে, চায়ে যোগ করে দিন এলাচ কিংবা আদা।

কী করে বানাবেন? ফুটিয়ে তাতে কয়েক দানা মেথি মিশিয়ে দিন। তার পর চা ও এলাচ দিয়ে ফুটিয়ে নিন কিছুক্ষণ। খালি পেটে এমন চা খেলে মেদ ঝরবে খুব সহজে।

মেথির পানি

ঠাকুরমা-দিদিমারা পেট গরম হলেই মেথির পানি খাওয়ার পরামর্শ দিতেন। পেট ঠান্ডা করার পাশাপাশি এটি কিন্তু খিদেও কমায়। খাওয়ার ইচ্ছা কমে যায় বলে স্বাভাবিক ভাবেই ওজন নিয়ন্ত্রণে কার্যকর ভূমিকা নেয় এই পানীয়।

অঙ্কুরিত মেথি

ভিটামিন ও নানা খনিজপদার্থে ভরপুর মেথিবীজ হজমে সাহায্য করে। একটা পাত্রে মেথিবীজ নিয়ে তার উপর একটা ভিজে কাপড় ঢাকা দিয়ে রাখুন। মাঝেমাঝেই কাপড়টিতে পানি দিন। দিন তিনেক পর মেথি বীজের অঙ্কুরোদ্গম হবে। এই অঙ্কুরিত মেথি খেলে তা খুব সহজেই কমিয়ে দেবে শরীরের মেদ।

মেথি গুঁড়ো

মেথিতে রয়েছে উচ্চ মাত্রায় ক্যারোটিনয়েড, যা দ্রুত ওজন কমায়। বাজার চলতি মেথি গুঁড়োর উপর ভরসা না করে, বাড়িতেই শুকনো খোলায় মেথি ভেজে গুঁড়িয়ে নিন। এর পর তা গরম পানিতে মিশিয়ে খান। এই পানিতে লেবু ও মধুও মেশাতে পারেন। মেথিগুঁড়ো ব্যবহার করতে পারেন তরকারিতেও। দেখবেন, ফল মিলছে হাতেনাতে।

ইশা আম্বানির লেহেঙ্গায় প্রাচীন মূদ্রা-অলঙ্কার আর সংস্কৃত শ্লোক



মাসিদ রণ, সিনিয়র নিউজরুম এডিটর, বার্তা২৪.কম
ইশা আম্বানির এই লেহেঙ্গা উঠে এসেছে আলোচনায়

ইশা আম্বানির এই লেহেঙ্গা উঠে এসেছে আলোচনায়

  • Font increase
  • Font Decrease

গত কয়েক মাস ধরে চলছে এশিয়ার সবচেয়ে ধনী ব্যক্তি মুকেশ আম্বানির ছোট ছেলে অনন্ত আম্বানি ও রাধিকা মার্চেন্ট বিয়ের আয়োজন। অবশেষে আজ শুক্রবার মুম্বাইয়ের জিও ওয়ার্ল্ড কনভেনশন সেন্টারে বসছে তাদের বিয়ের মূল আসর। তিন দিন ধরে চলবে এ বিয়ের উৎসব। শুভবিবাহ দিয়ে অনুষ্ঠান শুরু হবে তাদের। এরপর ১৩ জুলাই অনুষ্ঠিত হবে শুভ আশীর্বাদ। আর ১৪ জুলাই উৎসব বা রিসেপশন অনুষ্ঠিত হবে।

তার আগে দুটি প্রাক বিবাহ অনুষ্ঠান থেকে শুরু করে সঙ্গীত ও হলুদের অনুষ্ঠান হয়েছে। প্রতিটি অনুষ্ঠানে আম্বানি পরিবারের সদস্যদের ছবি উঠে আসছে আলোচনায়। বিশেষ করে তাদের সাজ পোশাক নিয়ে চলছে তুমুল চর্চা।

ইশা আম্বানির এই লেহেঙ্গা উঠে এসেছে আলোচনায়

এবার ছোট ভাইয়ের হলুদ অনুষ্ঠানে পরা আম্বানি পরিবারের আদরের কন্যা ইশা আম্বানির ল্যাহেঙ্গা উঠে এসেছে আলোচনায়।

দুদিন আগে অনুষ্ঠিত এই হলুদ অনুষ্ঠানে ইশা বিশেষ এক লেহেঙ্গায় সাজেন। বেশিরভাগ অনুষ্ঠানেই আম্বানি পরিবারের নারীরা জনপ্রিয় ফ্যাশন ডিজাইনার মানিষ মালহোত্রার ডিজাইন করা পোশাক পরলেও ইশা এদিন বেছে নিয়েছিলেন তুলনামূলক কম পরিচিত একটি ব্র্যান্ডের লেহেঙ্গা।

ইশা আম্বানির এই লেহেঙ্গা উঠে এসেছে আলোচনায়

তিনি পরেছিলেন দিল্লী ভিন্টেজ কোম্পানি নামের একটি ব্যান্ডের এক্সক্লুসিভ ডিজাইন করা লেহেঙ্গা। এই ব্র্যান্ডের ইন্সটাগ্রাম পেজে ইশার দারুণ ছবিসহ উঠে এসেছে সেই লেহেঙ্গার বর্ননা।

ব্র্যান্ডের সূত্রে জানা যায়, ইশার জন্য এমন একটি পোশাক তৈরি করার আইডিয়া ছিল যা ঐতিহ্যগত এবং সাংস্কৃতিকভাবে শক্তিশালী। একইসঙ্গে আবেদনের দিক দিয়ে তা হতে হবে খুব আধুনিক। লেহেঙ্গায় নিপুণ কারুকাজের মাধ্যমে উঠে এসেছে গাছের মোটিফ, যার নিচে বিশ্রাম নিচ্ছে ষাড়েরা! একপাশে মন্দির এবং চারদিকে পাখি।

ইশা আম্বানির এই লেহেঙ্গা উঠে এসেছে আলোচনায়

শৈল্পিক পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর, বিভিন্ন সেলাই কৌশলের ও নিখুত জারদোসির কাজ ব্যবহার করে একটি ভিন্টেজ লুক দেয়া হয়েছে লেহেঙ্গায়। সঙ্গে রয়েছে প্রাচীন মুদ্রা এবং অন্যান্য অলঙ্কার দিয়ে করা ডিজাইনর। তবে এই লেহেঙ্গার সবচেয়ে বিশেষত্ব হলো- এতে ‘কর্ম্মণে বাধিকারস্তে, মা ফলেষু কদা চনা’ নামের একটি সংস্কৃত শ্লোক ব্যবহার করা হয়েছে। যার অর্থ- আপনার কর্ম সম্পাদনের অধিকার আপনার আছে, কিন্তু কর্মের ফল পাওয়ার অধিকারী আপনি নন। পোশাকটি তৈরি করতে একজন মানুষের মোট ৪০০০ ঘন্টা সময় লেগেছে।

;

ডায়বেটিস রোগীরা ভাত খেতে পারবেন যেভাবে



লাইফস্টাইল ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
ডায়বেটিস রোগী এবং ভাত / ছবি: সংগৃহীত

ডায়বেটিস রোগী এবং ভাত / ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

ডায়বেটিস বর্তমানে সময়ে খুবই আশঙ্কাজনক একটি সমস্যায় পরিণত হচ্ছে। ডায়বেটিসে আক্রান্ত ব্যক্তির সংখ্যা সারা বিশ্ব জুড়েই বেড়ে চলেছে। এই সমস্যায় আক্রান্ত ব্যক্তিদের ভাত না খাওয়ার পরামর্শ দেন চিকিৎসকরা। এতে সমস্যায় পড়েন ভাত-প্রেমীরা।

বাঙালিদের সাধারণত ভাত না হলে চলেই না! প্রবাদেই রয়েছে মাছে-ভাতে বাঙালি। তাই ভাত না খেলে অনেকেরই তৃপ্তি হয় না। কিন্তু ডায়বেটিস আছে যাদের, তাদের ভাত খাওয়ার কোনো উপায় নেই। তবে একটি পদ্ধতি অবলম্বন করলে, ডায়বেটিসে আক্রান্তরাও নিশ্চিন্তে ভাত খেতে পারবেন। এমনটিই জানিয়েছেন, ভারতীয় গণমাধ্যম ‘দ্য ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস।’ 

ভারতীয় ডায়েটিশিয়ান সুইডাল ত্রিনিদাদ গণমাধ্যমটির একটি প্রতিবেদনে জানান, ‘ ভাতের সঙ্গে সামান্য ঘি মিশিয়ে নিলে ডায়বেটিস রোগীরা উপকার পাবেন। ঘি এর মধ্যে উপকারী ফ্যাটি অ্যাসিড রয়েছে, যা শর্করা হজমের ক্ষমতাকে ধীর করে ফেলে। এছাড়া রক্তে হঠাৎ করে চিনি মাত্রা বেড়ে ওঠোও প্রতিহত করতে পারে। তাছাড়া ঘি যোগ করার মাধ্যমে ভাতের গ্লাইসেমিক ইনডেক্স কমিয়ে আনা যায়।’

এই প্রসঙ্গে ক্লিনিক্যাল ডায়েটিশিয়ান জি. সুষমা বলেন, ‘চর্বিতে দ্রবণীয় ভিটামিন অর্থাৎ ভিটামিন এ, ডি, ই এবং কে রয়েছে ঘি-তে। ভাতের সাতে ঘি খেলে অন্যান্য খাবার থেকে পুষ্টি শোষণ মাত্রাকে প্রভঅবিত করতে পারে। ঘিয়ের মধ্যে বাটিরেট থাকে। এটি হলো এমন একটি শর্ট চেইন ফ্যাটি অ্যাসিড যা অন্ত্রে ইতিবাচক প্রভাব ফেলতে পারে। বিপাকীয় ক্রিয়াতেও বেশ প্রভাব ফেলতে পারে। এর ফলে পরোক্ষভাবে রক্তের শর্করার পরিমাণের উপর প্রভাব পড়ে।      

তবে বিশেষজ্ঞরা আরও বলেন,‘ এই সমাধান সকলের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য নাও হতে পারে। বিশেষ করে যাদের রক্তে শর্করা অনিয়ন্ত্রিত তাদের ঘি খাওয়া উচিত নয়। কারণ, ঘি‘য়ের মধ্যে থাকার স্যাচুরেটেড ফ্যাটি অ্যাসিড নিয়ন্ত্রণ মাত্রাকে আরও অনিয়ন্ত্রিত করে ফেলতে পারে। এছাড়াও, যাদের হৃদরোগও রয়েছে তাদের জন্যও ঘি খাওয়া সমাধান সুবিধাজনক নয়।’

‘ এছাড়া ক্যালরির পরিমাণ বাড়া, ওজন নিয়ন্ত্রণে বাধা ইত্যাদি আরও বাড়তি সমস্যা যোগ হওয়ারও সম্ভাবনা থাকে প্রতিদিন ঘি খেলে। দুগ্দজাত খাবারে যাদের এলার্জি আছে তাদেরও ঘি খাওয়া উচিত নয়। ঘি উপকারী একটি খাবার বটে। তাই বলে, বাধছাড়া নিয়মেও ঘি খাওয়া যাবে না। প্রতিদিন পরিমিত পরিমাণে ঘি খাওয়া উপকারী। মাত্রাতিরিক্ত খেলে নানান রোগ বাসা বাধতে পারে। আধা কাপ ভাতের সাথে ১ চা চামচ এর বেশি ঘি খাওয়া উচিত নয়। তবে ডায়বেটিস রোগীরা কেবল ভাতের সাথে  ঘি খেলেই চলবে না, নিয়মিত শরীরচর্চা চালিয়ে যেতে হবে।’             

;

মনীশ মালহোত্রার শেরওয়ানিতে জেইন মালিক



প্রমা কান্তা কোয়েল, বার্তা২৪.কম
জেইন মালিক / ছবি: ইন্সটাগ্রাম

জেইন মালিক / ছবি: ইন্সটাগ্রাম

  • Font increase
  • Font Decrease

ভারতীয় বিখ্যাত ফ্যাশন ডিজাইনার মনীশ মালহোত্রার জয়জয়কার থাকে সারাবছর জুড়েই। প্রতিবারই তিনি নিয়ে আসেন কিছু না কিছু অনন্য এবং নতুনত্ব। প্রথা বজায় রেখে এবারও নিজের নতুন ডিজাইন প্রকাশ করে হইচই ফেলে দিয়েছেন মনীশ। তবে শুধু ফ্যাশনপ্রেমীদের নয়, সঙ্গীত প্রেমীদেরও মুখ হা হয়ে গেছে মনীশের সর্বশেষ শ্যুটের ছবি দেখে।

নাম করা বিভিন্ন মডেল এবং বলি তারকাদের সাথে কাজ করা তো মনীশের নিত্যদিনের ব্যাপার। এই তালিকায় বিদেশি তারকা এবং মডেলদেরও কমতি নেই। এবার তাতে যুক্ত হলো নতুন আরেক নাম। প্রথমবারের মতো তার মডেল হয়ে শেরওয়ানি পরলেন হলিউডের জনপ্রিয় সঙ্গীত শিল্পী জেইন মালিক (জায়ান জাভেদ মালিক)। মনীশের অফিশিয়াল ইনস্টাগ্রাম একাউন্ট থেকে ছবিগুলো প্রকাশ করা হয়েছে।

‘মনীশ মালহোত্রা ওয়ার্ল্ড’ নামের একাউন্ট থেকে মনীশের ডিজাইন করা ৩ টি পোশাক পরিহিত জেইনের বেশ কয়েকটি ছবি প্রকাশ হয় ৩ তারিখ। তার সাথে শ্যুটিং চলাকালে জেইনের কিছু মুহূর্ত, যেখানে জেইন তার কাজের ব্যাপারে কথা বলছে। ‘হার্পার’স্ বাজার ইন্ডিয়া’র জুলাই’য়ের পাতার জন্য এই শ্যুটটি করা হয়।

টাক্সেডোতে জেইন / ছবি: বাজার ইন্ডিয়া

প্রথম শ্যুটে মনীশের ডিজাইন করা একটি নোয়ার টাক্সেডো পরেন। শার্ট সাইজের টাক্সেডোটি মসৃণ এবং কালো রঙের ছিল। তার উপর ছোট ছোট চকচকে পাথরের কাজ। সঙ্গে তিনি পরেছিলেন ক্রিস্চিয়ান লবিউটিনের জুতা এবয় হাতে ছির পান্না পাথরের আংটি।

জেইনের ২য় লুকে কিছুটা মুঘল আমলের ছাপ লক্ষ্য করা যায়। এই শেরওয়ানিটি মখমল কাপড়ে তৈরি করা। বটল গ্রিণ এবং কালো রঙের সমন্বয়ে হেক্সাগনাল আকারের মধ্যে ঐতিহ্যবাহী কারুকার্য সাজিয়েছেন মনীশ। হাতে পরেছিলেন ব্রেইটলিংয়ের ঘড়ি। মখমলের প্যান্টের সাথে ম্যাচিং করে সুনিপুণভাবে সিল্কের শার্টের মেলবন্ধন করিয়েছেন ডিজাইনার।

শেরওয়ানিতে জেইন / ছবি: বাজার ইন্ডিয়া

শেষ পোশাকটিতে ছিল এমব্রয়ডারির কাজ। ডিপ সী ব্লু রঙের কাপড়ের উপর সাদা সুতায় বেশ ঘন করে ফ্লোরাল ডিজাইন করা হয়েছে। এই শেরওয়ানিটির দৈর্ঘ্য বাকি পোশাকগুলোর তুলনায় একটু লম্বা অর্থাৎ, হাঁটু অবধি ছিল। পুরো শেরওয়ানি জুড়ে নিচ থেকে উপর অবধি মাধবীলতার মতো ডিজাইন শৃঙ্খলাপূর্ণভাবে উপরে উঠে গেছে। জেইনের গায়ে পোশাকটি বেশ চমৎকার মানিয়েছে।

৩১ বছর বয়েসি শিল্পী জেইনের পিতা ইয়াসের মালিক একজন ব্রিটিশ পাকিস্তানি ছিলেন, তাই পারিবারিকভাবে জেইন একভাবে পূর্ব ভারতের সাথে সংযুক্ত। এই কারণে ভারতীয় ভক্তরা তাকে নিয়ে বেশ আগ্রহী থাকে। মনীশ মালহোত্রার ডিজাইন করা শেরওয়ানি পরা জেইনকে দেখা, তার ভারতীয় ভক্তদের একটি স্বপ্ন পূরণ হওয়ার মতো ঘটনা।

  

;

গর্ভাবস্থায় কেশরের উপকারী প্রভাব



লাইফস্টাইল ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
কেশর / ছবি: সংগহীত

কেশর / ছবি: সংগহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

গর্ভাবস্থায় একজন নারীর সর্বোচ্চ যত্ন প্রয়োজন। কারণ তার মধ্যেই বেড়ে ওঠে আরেকটি প্রাণ, যার পুষ্টির যোগান আসে মায়ের থেকেই। তাই এই সময় মায়ের জন্য পুষ্টিকর খাবারের ব্যবস্থা নিশ্চিত করতে হয়।

আমাদের সংস্কৃতিতে অনেক আগে থেকেই কেশর দুধ পানের একটি প্রচলন ছিল। যদিও তার সাথে কিছুটা ভ্রান্ত ধারণা যুক্ত ছিল। আগের দিনে মা-খালারা বলতেন কেশন দুধ পান কররে নবজাতকের গায়ের রঙ ফর্সা হবে। যদিও এই ধারণা সঠিক নয়। তবুও কেশর দুধের নানা উপকার তো রয়েছেই।    

অনেক স্ত্রীরোগ বিশেষজ্ঞ এই সময় কেশর বা জাফরান খাওয়ার পরামর্শ দেন। কেশরের উপকারিতা সম্পর্কে জানিয়েছেন, ভারতীয় চিকিৎক সুরভী সিদ্ধার্থ। তিনি বলেন,‘ কেশর প্রাকৃতিক এন্টিঅক্সিডেন্টেস এর বেশ ভালো একটি উৎস। এছাড়া গর্ভকালীন প্রদাহ দূর করার ক্ষমতার কারণে, কেশর মাতৃত্বকালীন সময়ের অত্যবশ্যকীয় খাদ্যতালিকার অন্তর্ভুক্ত হয়।’ তিনি আরও বলেন,‘শিশুর ত্বকের রঙ জেনেটিকভাবেই নির্ধারিত হয়। গর্ভবতী মা কি খাচ্ছেন বা না খাচ্ছেন এতে শিশুর বাহ্যিক রূপে প্রভাব পড়ে না।’

অন্য এক চিকিৎসক রাধিকা কলপাথারু জানান, কেশর হজমের কার্যকারিতাকে প্রভাবিত করে। গর্ভকালে হজমের ক্ষমতা এমনিতেই দুর্বল হয়ে পড়ে। তাই দুধ বা দইতে কেশর মিশিয়ে পান করলে বা খেলে উপকার পাওয়া যায়। কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যাতেও কেশর উপকারী হতে পারে।

কেশর / ছবি: সংগহীত

এছাড়াও, কেশরে অ্যান্টি-ডিপ্রেসেন্ট উপাদানও থাকে। এই কারণে মেজাজ নিয়ন্ত্রণে রাখা এবং উদ্বেগ কমানোর ক্ষেত্রেও কেশর প্রভাব ফেলে। ফলে মায়ের উপর মানসিক চাপ কম পড়ে। গর্ভধারণের প্রথম দিকে (৩ মাস) নানাবিধ স্বাস্‌থ্য সমস্যার প্রকোপ দেখা যেতে পারে। কেশর খাওয়ায় সেইসব সমস্যা সীমিত হয়।

এছাড়াও শিশু যখন বাড়তে থাকে তখন, মায়ের শরীরের পেশি প্রসারিত হয়। প্রাকৃতিকভাবে নারী শরীরের এই সামঞ্জস্য রাখার প্রক্রিয়া চলে, যেন শিশু বেড়ে ওঠার জায়গা পায়। এই প্রক্রিয়া বেশ ব্যথাদায়ক, বিশেষ করে পেট- পাকস্থলী, পা, পিঠ- এসব স্থানে। কেশর এই ব্যথাকে প্রশমিত করতে সাহায্য করতে পারে।

হবু মায়েদের অনেকে রক্তশূন্যতায় ভোগেন বলে চিকিৎকরা আয়রন সমদ্ধ খাবার খেতে বলেন। প্রতিদিন কিছু পরিমাণে কেশর খেলে আয়রন এবং হিমোগ্লেবিন মাত্রা বিপদহীন মাত্রায় থাকে। শুধু তাই নয়, ভালো মেজাজে ঘুম এবং ত্বকের নানারকম সমস্যাও দূর হয় প্রতিরাতে ঘুমানোর আগে কেশর দুধ খেলে।

এসব মন্তব্যে সহমত প্রকাশ করেছেন ডা.সুরভীও। তবে কেশরের কিছু পার্শ্বপ্রতিক্রিয়াও আছে, যা তিনি উল্লেখ করেছেন। কিছু মায়েদের বেলায় কেশর খাওয়ার পর বমি বমি ভাব হয় এবং উদ্বেগ বেড়ে যায়। শুধু তাই নয়, সমস্যা গুরুতর হলে নাক দিয়ে রক্তপাতও হতে পারে। তাই অবশ্যই চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী যেকোনো কিছু গ্রহণ করা উচিত।    

;