জিএম কাদেরের নিষেধাজ্ঞা বহাল করল চেম্বার জজ আদালত



স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

দলীয় কার্যক্রম পরিচালনায় জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যান জিএম কাদেরের প্রশ্নে হাইকোর্টের দেওয়া স্থগিতাদেশ স্থগিত করেছেন সুপ্রীম কোর্টের চেম্বার জজ আদালত। অর্থাৎ পার্টির চেয়ারম্যান পদের দায়িত্ব পালনের স্থগিতাদেশ বহাল থাকছে।।

বুধবার (৩০ নভেম্বর) বিকেলে আপিল বিভাগের বিচারপতি এম এনায়েতুর রহিম আদালত হাইকোর্টের স্থগিত আদেশ স্থগিত চেয়ে করা আপিল শুনানিতে এ রায় দেন।

আপিলকারী সিনিয়র আইনজীবী ব্যরিস্টার ফায়েজ আহমেদ রাজার নেতৃত্বে শুনানিতে অংশ নেন অ্যাড.মোহাম্মদ আলী, অ্যাড.অশোক কুমার ঘোষ ও অ্যাড.হেলাল উদ্দিন। রাষ্ট্রপক্ষে আদালতে উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত এটর্নি জেনারেল অ্যাড. শেখ মোহাম্মদ মোরশেদ। জিএম কাদেরের পক্ষে শুনানিতে অংশ নেন সিনিয়র আইনজীবী শেখ মুহাম্মদ সিরাজুল ইসলাম।

এরআগে ২৯ নভেম্বর নিম্ন আদালতের আদেশের বিরুদ্ধে জিএম কাদেরের আনা রিভিশন আবেদনের শুনানি শেষে বিচারপতি শেখ আবদুল আউয়াল রুলসহ দলীয় কার্যক্রমে নিষেধাজ্ঞা স্থগিত আদেশ দেন।

গত ১৬ নভেম্বর বুধবার জাতীয় পার্টির সাবেক এমপি ও চেয়ারম্যানের সাবেক উপদেষ্টা অ্যাডভোকেট জিয়াউল হক মৃধার করা মামলায় জাপা চেয়ারম্যানের রাজনৈতিক ও দলীয় কার্যক্রমের উপর দেয়া নিষেধাজ্ঞা বহাল রাখেন ঢাকার প্রথম যুগ্ম জেলা জজ মাসুদুল হকের আদালত। এদিকে আজ বুধবার প্রথম যুগ্ম জেলা জজ আদালতে শুনানির নির্ধারিত দিন থাকলেও তা হাইকোর্টে স্থগিত আদেশ থাকায় শুনানি অনুষ্ঠিত হয়নি।

   

যৌন হয়রানির মামলায় ভিকারুননিসার শিক্ষক মুরাদ কারাগারে



স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

শিক্ষার্থীকে যৌন হয়রানির মামলায় ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের আজিমপুর শাখার শিক্ষক মোহাম্মদ মুরাদ হোসেন সরকারকে রিমান্ড শেষে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।

বৃহস্পতিবার (২৯ ফেব্রুয়ারি) ঢাকার মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ জসিমের আদালত শুনানি শেষে জামিনের আবেদন নামঞ্জুর করে তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা লালবাগ থানার সাব-ইন্সপেক্টর ফাইয়াজ হোসেন দুই দিনের রিমান্ড শেষে আসামিকে আদালতে হাজির করে কারাগারে আটক রাখার আবেদন করেন।

অ্যাডভোকেট মেহেদী হাসান আসামি পক্ষে জামিন চেয়ে আবেদন করেছিলেন।

গত মঙ্গলবার (২৭ ফেব্রুয়ারি) তার দুই দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন আদালত। ওইদিনই রাত দেড়টার দিকে রাজধানীর কলাবাগানের বাসা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়।

ভিকারুননিসার আজিমপুর শাখার গণিতের শিক্ষক মুরাদের বিরুদ্ধে লালবাগ থানায় যৌন নিপীড়নের মামলা করেন এক ছাত্রী।

;

ঢাকা আইনজীবী সমিতির ভোটগ্রহণ ফের শুরু



স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
ছবি: বার্তা২৪

ছবি: বার্তা২৪

  • Font increase
  • Font Decrease

ঢাকা আইনজীবী সমিতির দ্বিতীয় দিনের ভোটগ্রহণ সাময়িক বন্ধ থাকার পর ফের শুরু হয়েছে। বৃহস্পতিবার (২৯ ফেব্রুয়ারি) দুপুর সোয়া ১২টার সময় ভোটচুরির পাল্টাপাল্টি অভিযোগের পর ঢাকা বারে ভোটগ্রহণ বন্ধ রাখা হয়। এর পর বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে ফের ভোটগ্রহণ শুরু করা হয়।

সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত ভোটগ্রহণ চলবে। তার পরেও কোনো ভোটার ভোটকেন্দ্রে উপস্থিত থাকলে ভোট নেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার সিনিয়র আইনজীবী মোখলেছুর রহমান বাদল।

এর আগে পাল্টাপাল্টি অভিযোগ করা হয়, নির্ধারিত ব্যালট পেপারের বদলে নকল স্ক্যানিং করা ব্যালট পেপার পাওয়া গেছে। এ অভিযোগ পাওয়ার পর কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ কার্যক্রম স্থগিত করা হয়।

এ সময় অ্যাডভোকেট আরিফ জানান, তিনি সাড়ে ১২টায় ভোট দিতে গিয়ে শোনেন, কারচুপির ও স্ক্যানিং ব্যালট পাওয়াকে কেন্দ্র করে ভোটগ্রহণ সাময়িক বন্ধ রয়েছে। সে কারণে তিনি ভোট দিতে পারেননি।

নির্বাচনে সিনিয়র আইনজীবী মোখলেছুর রহমান বাদল প্রধান নির্বাচন কমিশনারের দায়িত্ব পালন করছেন। তার অধীনে ১০ জন কমিশনার এবং ১০০ জন সদস্য রয়েছেন।

এ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ সমর্থিত বঙ্গবন্ধু আওয়ামী আইনজীবী পরিষদ সমর্থিত সাদা প্যানেল এবং বিএনপি-জামায়াত সমর্থিত জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ঐক্যের নীল প্যানেল নির্বাচনে অংশ নিয়েছে। প্রথম দিন শান্তিপূর্ণ ও উৎসবমুখর পরিবেশে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়।

;

ভোট চুরির পাল্টাপাল্টি অভিযোগ, ঢাকা বারে ভোট গ্রহণ বন্ধ



স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

ভোট চুরির পাল্টাপাল্টি অভিযোগে আইনজীবী সমিতির ২০২৪-২০২৫ কার্যকরী কমিটি গঠনের দুই দিনব্যাপী নির্বাচনের দ্বিতীয় দিনের ভোট গ্রহণ বন্ধ রয়েছে।

বৃহস্পতিবার (২৯ ফেব্রুয়ারি) সোয়া ১২ টার দিকে ভোট কেন্দ্রে নির্ধারিত ব্যালট পেপারের বদলে নকল স্ক্যানিং করা ব্যালট পেপার পাওয়াকে কেন্দ্র করে ভোট গ্রহণ কার্যক্রম স্থগিত রয়েছে বলে জানিয়েছেন প্রত্যক্ষদর্শী আইনজীবীরা।

এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত প্রধান নির্বাচন কমিশনার বারের সাবেক সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকদের সাথে নির্বাচন কমিশন কার্যালয়ে মিটিং চলছে।

অ্যাডভোকেট আরিফ জানান, তিনি সাড়ে ১২টায় ভোট দিতে গিয়ে শোনেন, কারচুপির ও স্ক্যানিং ব্যালট পাওয়াকে কেন্দ্র করে ভোটগ্রহণ সাময়িক বন্ধ রয়েছে। তিনি ভোট দিতে পারেননি।

নির্বাচনে সিনিয়র আইনজীবী মোখলেছুর রহমান বাদল প্রধান নির্বাচন কমিশনারের দায়িত্ব পালন করছেন। যার অধীনে ১০ জন কমিশনার এবং ১০০ জন সদস্য রয়েছে।

এ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ সমর্থিত বঙ্গবন্ধু আওয়ামী আইনজীবী পরিষদ সমর্থিত সাদা প্যানেল এবং বিএনপি-জামায়াত সমর্থিত জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ঐক্যের নীল প্যানেল নির্বাচনে অংশ নিয়েছে। প্রথম দিন শান্তিপূর্ণ ও উৎসবমুখর পরিবেশে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়।

;

ড. ইউনূসকে ৫০ কোটি টাকা জমা দিয়ে আপিল করতে হবে: হাইকোর্ট



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

গ্রামীণ টেলিকমের চেয়ারম্যান ও নোবেলজয়ী অর্থনীতিবিদ ড. মুহাম্মদ ইউনূসের গ্রামীণ টেলিকম ট্রাস্টকে ৫০ কোটি টাকা কর জমা দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। 

বৃহস্পতিবার (২৯ ফেব্রুয়ারি) বিচারপতি মোহাম্মদ খুরশীদ আলম সরকার ও বিচারপতি সরদার মো. রাশেদ জাহাঙ্গীরের স্বাক্ষরের পর এ রায় প্রকাশ করা হয়েছে।

এর আগে গত ১২ ফেব্রুয়ারি ড. মুহাম্মদ ইউনূসের গ্রামীণ টেলিকম ট্রাস্টকে ৫০ কোটি টাকা জমা দিয়ে ২০১১ থেকে ১৩ করবর্ষের আয়কর আপিল দায়ের করার নির্দেশ দেন হাইকোর্ট।

এর আগে ২৮ জানুয়ারি শ্রম আইন লঙ্ঘনের মামলায় আদালতে উপস্থিত হয়ে আদালতের রায়ের বিরুদ্ধে আপলি আবেদন করেন ড. ইউনূস ও গ্রামীণ টেলিকমের অপর তিন কর্মকর্তা। সেই আবেদন খারিজ করে এ রায় দেন হাইকোর্ট।

এ রায়ের বিরুদ্ধে তারা আপিল বিভাগে যাচ্ছেন বলে জানিয়েছেন ড. ইউনূসের আইনজীবী আবদুল্লাহ আল মামুন।

সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেল ব্যারিস্টার তাহমিনা পলি জানান, ২০২০ সালে নভেম্বর (২০১১ থেকে ২০১৩) দুই বছরের প্রায় ২৫০ কোটি টাকা আয়কর দাবি করে গ্রামীণ কল্যাণ ট্রাস্টকে নোটিশ পাঠায় জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর)। যার জবাবে গ্রামীণ কল্যাণ ট্রাস্ট অর্থ নেই বলে মওকুফ চান। তবে, গ্রামীণ কল্যাণ ট্রাস্টের একটি অ্যাকাউন্টেই প্রায় সাড়ে তিনশ’ কোটি থেকে চারশ’ কোটি টাকার মতো ছিল বলে দাবি করেন এনবিআর।

তিনি বলেন, এ বিষয়ে আবারও একটি নোটিশ করার পরে গ্রামীণ টেলিকম নোটিশটিকে চ্যালেঞ্জ করে হাইকোর্টে রিট করেন। রিটের শুনানি নিয়ে নোটিশ কেন বেআইনি বলা হবে না, এ নিয়ে রুলও জারি করেন আদালত। এরপর গত তিন বছরে বিভিন্ন আদালত ঘুরে মামলাটি হাইকোর্টের সংশ্লিষ্ট বেঞ্চে আসে।

অবশেষে শুনানি শেষে গ্রামীণ টেলিকমের রিট আবেদন খারিজ করেন আদালত। সেই সঙ্গে গ্রামীণ টেলিকমকে নিয়ম অনুযায়ী দাবি করা আয়করের ২৫ শতাংশ টাকা আগে জমা দিয়ে এরপর এনবিআরের বিরুদ্ধে আপিল দায়ের করতে আদেশ দেন।

;