তীব্র গরম মুমিনকে যা শিক্ষা দেয়



মাওলানা ফখরুল ইসলাম, অতিথি লেখক, ইসলাম
গরম থেকে বাঁচতে ফুটপাতের এক ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী মাথায় পানি দিচ্ছেন, ছবি : রাজু আহমেদ

গরম থেকে বাঁচতে ফুটপাতের এক ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী মাথায় পানি দিচ্ছেন, ছবি : রাজু আহমেদ

  • Font increase
  • Font Decrease

বাংলাদেশে এখন চলছে গ্রীষ্মকাল। ফলে তীব্র গরম অনুভূত হচ্ছে। বস্তুত শীত, গরম, রোদ, বৃষ্টি সবই আল্লাহর দেওয়া। তীব্র শীত আর প্রচণ্ড গরমে রয়েছে মুমিনে জন্য শিক্ষা। জনজীবন অতিষ্ট হওয়া গরম আমাদেরকে স্মরণ করিয়ে দেয় সৃষ্টিকর্তা আল্লাহর আজাবের কথা। তাই তীব্র তাপদাহের সময় দয়াময় আল্লাহতায়ালার কাছে বেশি বেশি তওবা-ইস্তেগফার করা জরুরি।

পৃথিবীতে ইসলামই একমাত্র ধর্ম, যেখানে মানবতার কল্যাণ সাধনকে গুরুত্বের সঙ্গে বিবেচনা করা হয়। ফলে তীব্র গরমের সময় ইবাদত-বন্দেগি সহজ করেছে ইসলাম। হজরত আবু জার (রা.) বলেন, এক সফরে আমরা আল্লাহর রাসুল (সা.)-এর সঙ্গে ছিলাম।
এক সময় মোয়াজ্জিন জোহরের আজান দিতে চেয়েছিল। তখন নবী কারিম (সা.) বলেন, গরম কমতে দাও। কিছুক্ষণ পর আবার মোয়াজ্জিন আজান দিতে চাইলে নবী কারিম (সা.) পুনরায় বলেন, গরম কমতে দাও।
এভাবে তিনি (নামাজ আদায়ে) এত বিলম্ব করলেন যে, আমরা টিলাগুলোর ছায়া দেখতে পেলাম।
এরপর নবী কারিম (সা.) বলেন, গরমের প্রচণ্ডতা জাহান্নামের উত্তাপ হতে। কাজেই গরম প্রচণ্ড হলে উত্তাপ কমার পর নামাজ আদায় করো। -সহিহ বোখারি : ৫৩৯
বর্ণিত হাদিসের আলোকে বিধান হলো, অতীব গরমের সময় কিছুটা বিলম্ব করে জোহরের নামাজ আদায় করা সুন্নত।

গরমের সময় এমন কিছু আমল রয়েছে, যেগুলোর সওয়াব অনেক। একজন মুমিন সেসব আমল করে সহজেই আল্লাহর নৈকট্য অর্জন করতে পারেন। ওই সব আমলের কয়েকটি হলো-

নফল রোজা
গরমের রোজা শীতের থেকে বেশি কষ্টকর। গরমের কষ্ট উপেক্ষা করে যদি নফল রোজা রাখা যায়, তাহলে আল্লাহতায়ালা বেশি নেকি দেবেন। সাহাবায়ে কেরাম ও পূর্ববর্তী বুজুর্গরা বেশি সওয়াবের আশায় গরমকালে রোজা রাখতেন।

পিপাসার্তকে পানি পান করানো
পিপাসার্তকে পানি পান করানো একটি উত্তম কাজ। আর যদি প্রচণ্ড গরমে কাউকে ঠাণ্ডা পানি পান করানো হয়, তাহলে তো কাজটি আরও উত্তম হবে। এক ব্যক্তি হজরত রাসুলুল্লাহ (সা.)-কে প্রশ্ন করলেন, ‘কোন দান উত্তম? তিনি বললেন, ‘পানি পান করানো।’ -সুনানে নাসাই : ৫৪৫৬
ইমাম কুরতুবি (রহ.) বলেন, ‘তৃষ্ণার্তের তৃষ্ণা নিবারণ সর্বোত্তম মহৎ কাজের একটি।’
হাদিসের অন্য এক বর্ণনায় এসেছে, হজরত রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেন, ‘সদকা বা দান জাহান্নামের আগুন নির্বাপণ করে। আর পানি পান করানো উত্তম সদকা।’ -সুনানে আবু দাউদ : ৭৪৩৫

নফল নামাজ
অতিরিক্ত গরম হলো- জাহান্নামের নিশ্বাস, তাই জাহান্নামের ভয়ে বেশি করে এবং লম্বা লম্বা সুরা দিয়ে নফল নামাজ আদায় করা উত্তম। হাদিসে এসেছে, হজরত রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, ‘যখন গরম বেশি পড়বে, তখন বেশি নামাজ আদায় করো। কারণ অতিরিক্ত গরম হলো- জাহান্নামের নিশ্বাস।’ -মেশকাত : ৫৯১

গরম থেকে শিক্ষা
গরমের তীব্রতা থেকে মুমিনের জন্য রয়েছে শিক্ষা। কেননা জাহান্নামের আগুনের উত্তাপ পৃথিবীর আগুনের চেয়ে ৭০ গুণ বেশি। তাই এ গরম থেকে জাহান্নামের তীব্রতা অনুমান করে গোনাহ থেকে মুক্ত থাকা। হাদিসে এসেছে, হজরত রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেন, ‘জাহান্নাম তার প্রতিপালকের কাছে এ বলে নালিশ করেছিল, হে আমার প্রতিপালক! (দহনের প্রচণ্ডতায়) আমার এক অংশ আরেক অংশকে গ্রাস করে ফেলছে। ফলে আল্লাহ তাকে দুইটি শ্বাস ফেলার অনুমতি দেন। একটি শীতকালে অপরটি গ্রীষ্মকালে। আর তাই তোমরা গ্রীষ্মকালে প্রচণ্ড উত্তাপ এবং শীতকালে তীব্র ঠাণ্ডা অনুভব করো।’ -সহিহ বোখারি : ৫৪৫৫

গ্রীষ্মকালকে গালমন্দ না করা
আল্লাহর নৈকট্য অর্জন করার অন্যতম মাধ্যম হচ্ছে, গরিবদের মাঝে সুমিষ্ট ফল বিতরণ করা। ঝড়ে ক্ষতিগ্রস্তদের সাহায্য করা। ঘামে ভেজা শরীরে জনসমাগমে গমন না করা। গরমের সময় প্রবাহিত ঘামের গন্ধ যেন অন্যের কষ্টের কারণ না হয়, সেদিকে দৃষ্টি রাখা। গ্রীষ্মকালকে গালমন্দ না করা বিষয়টিও খেয়াল রাখার নির্দেশ দেয় ইসলাম।

বৃষ্টির জন্য নামাজ
প্রচণ্ড গরমে একপশলা বৃষ্টির জন্য মুমিনরা আল্লাহর রহমতের প্রত্যাশী। শস্য ফলানোসহ পশুপাখির খাবারের জন্য যেমন বৃষ্টি দরকার, তেমনি তীব্র তাপদাহে সৃষ্ট নানা জটিলতা ও কষ্ট থেকে মুক্তি পেতেও আল্লাহর রহমতের বৃষ্টি খুব প্রয়োজন। এমন পরিস্থিতিতে দয়াময় আল্লাহতায়ালার দরবারে বৃষ্টি কামনা করে নামাজ পড়া ও দোয়া করা সুন্নত। পরিভাষায় এই নামাজের নাম ‘ইসতিসকা’ বা বৃষ্টির নামাজ।

ইসলামের শিক্ষা হলো- সর্বাবস্থায় বান্দা আল্লাহর প্রতি কৃতজ্ঞতা আদায় করবে। প্রচণ্ড গরমের সময়ও এর ব্যতিক্রম নয়। তীব্র তাপদাহের সময় মানুষের উচিৎ জাহান্নামের গরমের কথা স্মরণ করা। জাহান্নাম থেকে বাঁচতে আল্লাহর সন্তুষ্টি অর্জনের লক্ষে আত্মনিয়োগ করা।

একটু শান্তির জন্য দুনিয়ার জীবনে গরমের কষ্ট ও তীব্রতা থেকে বাঁচার জন্য যদি আমরা সম্ভবপর সব উপায় অবলম্বন করতে পারি, তাহলে আখেরাতের আজাব ও ভয়াবহতা থেকে বাঁচার জন্য আমলদার এবং সাধনাকারী হওয়া জরুরি।

   

উদ্বেগ-উৎকণ্ঠার মধ্য দিয়ে হজ ভিসা সম্পন্ন

আবারও কেলেঙ্কারিতে লুৎফুর রহমান ফারুকীর নাম



স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
মন্ত্রণালয়ের চিঠি ও মুফতি লুৎফুর রহমান ফারুকী, ছবি: সংগৃহীত

মন্ত্রণালয়ের চিঠি ও মুফতি লুৎফুর রহমান ফারুকী, ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

সরকারি ও বেসরকারি হজযাত্রীদের ভিসা কার্যক্রম শেষের পথে। চূড়ান্ত নিবন্ধনের পরও অনেকেই হজপালনে যাবেন না, কিংবা অসুস্থ এমন কিছু যাত্রীর ভিসা বাদে অন্যদের ভিসা হয়েছে। তবে সৌদি আরবের দেওয়া নির্ধারিত সময়েও পরও ভিসা প্রক্রিয়া চলমান রাখতে ধর্ম মন্ত্রণলায় ও হাব কর্তৃপক্ষকে প্রচুর দৌঁড়-ঝাপ করতে হয়। এমনকি খোদ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে হস্তক্ষেপ করতে হয়, তিনি সৌদি রাষ্ট্রদূতকে ব্যবস্থা নেওয়ার কথা বলেন।

ঠিক এমন সময় কয়েকটি হজ এজেন্সির নানাবিধ গাফিলতি, অনিয়ম ও অব্যবস্থাপনার কথা প্রকাশ পায়। প্রায় তিন হাজার হজযাত্রীর হজগমন নিয়ে শঙ্কা তৈরি হয়। ধর্ম মন্ত্রণালয় বারবার চিঠি দিয়ে এবং হাব কর্তৃপক্ষ হজ এজেন্সির মালিকদের নিয়ে বসে সমস্যা সমাধানে ব্যাপক তৎপরতা চালান।

তখনই সামনে আসে আকবর হজগ্রুপের চেয়ারম্যান মুফতি লুৎফুর রহমান ফারুকীর অনিয়ম। দুইটি হজ লাইসেন্স ভাড়া নিয়ে জালিয়াতির আশ্রয় নিয়েছেন। এর মধ্যে আল রিসান ট্রাভেলস এজেন্সির (০৬৭২) অধীনে ৪৪৮ জন এবং নর্থ বাংলা হজ ট্রাভেলস এন্ড ট্যুরসের (১০৮৬) অধীনে ২৬০ জন হজযাত্রীর চূড়ান্ত নিবন্ধন করেছেন। কিন্তু তাদের ভিসার জন্য প্রয়োজনীয় কাজ সম্পন্ন করেননি। এতে করে ৭ শতাধিক হজযাত্রী, তাদের আত্মীয়-স্বজন, ধর্মমন্ত্রণায় এবং হাব নেতৃবৃন্দকে চরম উদ্বেগ ও উৎকণ্ঠার মধ্য দিয়ে সময় পার করতে হয়। পরে হাব সভাপতির তৎপরতায় প্রয়োজনীয় কাজ সম্পন্নের পর তাদের ভিসা পাওয়া যায়।

কিন্তু প্রশ্ন হলো, প্রতি বার হজ গমনের শেষসময়ে এমন ঘটনা কেন ঘটে? আর ঘুরেফিরে একজনের নামই কেন সামনে আসে? তিনি হচ্ছেন মুফতি লুৎফুর রহমান ফারুকী। বিভিন্নজনের কাছ থেকে লাইসেন্স ভাড়া নিয়ে একেক বছর একেক লাইসেন্স নিয়ে অপকর্ম চালিয়ে যাচ্ছেন। যদিও তার পরিবারের সদস্যদের নামে থাকা একাধিক লাইসেন্স ব্যবহার করেন না।

তার কারণে ২০১৮ সালে শত শত প্রাক-নিবন্ধিত হজযাত্রী অনিশ্চতার মুখে পড়েছিলেন। পরে পুলিশের তৎপরতার সমস্যা সমাধান করা হয়। তখন পুরানা পল্টনস্থ আল-রাজী কমপ্লেক্সে আকবর হজগ্রুপের অফিসে তল্লাশিও চালিয়েছিল পুলিশ। ওই সময়ে পরিবারের অন্য সদস্যদের নিয়ে সৌদি আরব পালিয়েছিলেন। তবে বিদেশ পালিয়ে যাবার সময় তার স্ত্রী তামান্না রহমানকে (আবাবিল ওভারসিজের মালিক) চট্টগ্রাম বিমানবন্দর থেকে গ্রেফতার করে পুলিশ। তার বিরুদ্ধে দুই হাজার হজযাত্রীর প্রায় ৫০ কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগ আনা হয়। তখন পুলিশ বলেছিলেন, আবাবিল ওভারসিজ, নিয়ার অ্যান্ড ফার, সুমাইয়া এয়ার ইন্টারন্যাশনাল, আকবর ট্রাভেলস অ্যান্ড ট্যুরস, আফতাব ট্রাভেলস, সিরাজাম মুনিরা এয়ার ট্রাভেলস, সানরাইজ এয়ার ইন্টারন্যাশনাল, সুন্দর এয়ার এক্সপ্রেস ও সুহাইল এয়ার ইন্টারন্যাশনালের মাধ্যমে নানা অনিয়ম করছেন লুৎফুর রহমান। হজ নিয়ে নানা অনিয়মের কারণে লুৎফুর রহমান ফারুকী একাধিকবার গ্রেফতার হন, তারপরও থামেনি তার অপতৎপরতা।

হাবের একজন নেতা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বার্তা২৪.কমকে বলেন, আকবর হজগ্রুপের চেয়ারম্যান ও গাজীপুর এয়ার ট্রাভেলস(৭৮২)-এর স্বত্বাধিকারী। আকবর হজগ্রুপ বাংলাদেশ(৬১৫) নামে বেনামে প্রায় ১০টি হজ এজেন্সির মাধ্যমে হজের কার্যক্রম পরিচালনা করেন।

বারবার হজ কেলেঙ্কারিতে তার নাম আসার পরও তিনি কিভাবে হাজি পান, এমন প্রশ্নের উত্তরে হাবের ওই নেতা বলেন, ‘সরকার ঘোষিত সর্বনিন্ম হজ প্যাকেজের চেয়ে কম টাকায় হজ করানোর প্রতিশ্রুতি দিয়ে হজযাত্রী সংগ্রহ করেন তিনি। আর এ কাজে ব্যবহার করেন বিভিন্ন অঞ্চলের ইমাম-মুয়াজ্জিন ও মাদ্রাসার শিক্ষকদের। তিনি কখনও হাজিদের মুখোমুখি হন না, সবকিছু করেন মধ্যস্বত্বভোগীদের মাধ্যমে।

হজ ট্রেড সেক্টরে কম টাকায় হজ করানোর আলোচিত ব্যক্তি মুফতি লুৎফুর রহমান ফারুকী। সারাদেশে গ্রুপ লিডারদের মাধ্যমে আল ক্বিবলা হজ ট্যুরস এন্ড ট্রাভেলস(০৬৭০), মৌসুমী এয়ার ট্রাভেলস(১০৫), আবাবিল ওভারসীজ (১৬), আফতাব ট্রাভেলস ইন্টারন্যাশনাল(৫৮৪), মনিরামপুর এয়ার ট্রাভেলস (১৩৭৫)-এর মাধ্যমে কম টাকায় হজযাত্রী সংগ্রহ করে থাকেন।

চলতি হজ মৌসুমে ‘নর্থ বাংলা হজ ট্রাভেলস অ্যান্ড ট্যুরস’-এর মোনাজ্জেম হিসেবে বর্তমানে সৌদি আরব অবস্থান করছেন। তার পরও হজ ব্যবস্থাপনায় দায়িত্বে অবহেলাসহ নানা কারণে ভবিষ্যতে তাকে হজ কার্যক্রমের আওতার বাইরে রাখার জন্য ধর্ম মন্ত্রণালয়ের হজ অনুবিভাগ একটি চিঠি দিয়েছে।

চিঠিতে বলা হয়, হজ ২০২৪ এ বাংলাদেশের ২৫৯টি এজেন্সি সৌদি আরবে হজপালনের জন্য হজ কার্যক্রমে সম্পৃক্ত রয়েছে। প্রত্যেক এজেন্সির একজন নির্ধারিত ব্যক্তি মোনাজ্জেমের দায়িত্বে নিয়োজিত আছেন। যিনি ওই এজেন্সির সব হজযাত্রীর হজের যাবতীয় দায়িত্ব পালনে অঙ্গীকারবদ্ধ। মোনাজ্জেমের সব তথ্য সৌদি ই-হজ সিস্টেমে (নির্দিষ্ট নম্বর সম্বলিত) রয়েছে। কাজেই একজন মোনাজ্জেম হজের নির্দিষ্ট সময়ে নির্দিষ্ট কাজগুলো যথাযথভাবে না করতে পারলে হজযাত্রীর হজে গমন অনিশ্চিত হয়ে পড়ে।

‘নর্থ বাংলা হজ ট্রাভেলস অ্যান্ড ট্যুরস’ নামে প্রতিষ্ঠানটির মোনাজ্জেম হিসেবে লুৎফর রহমান ফারুকী দায়িত্ব পালন করছেন উল্লেখ করে চিঠিতে বলা হয়, এই এজেন্সির মাধ্যমে হজ-২০২৪ মৌসুমে গাইডসহ ২৬০ জন নিবন্ধিত হজযাত্রী রয়েছে। গত ৯ মে ২০২৪ হতে হজযাত্রীর সৌদি আরবে গমন শুরু হয়। এ সময়ের মধ্যে অন্যান্য এজেন্সির হজযাত্রীদের ভিসা সম্পন্ন হলেও তার এজেন্সির কারও ভিসা হয়নি।

প্রতিষ্ঠানটির মোনাজ্জেমের নির্ধারিত মোবাইলে যোগাযোগের চেষ্টা করেও তাকে পাওয়া যায়নি এবং গত ১৫ মে মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব (হজ) মো. মতিউল ইসলামের দফতরে উপস্থিত হয়ে হজযাত্রীর টিকিটের পে-অর্ডার না করার যথাযথ ব্যাখ্যা প্রদানে তিনি কোনো দায়িত্ব পালন করেনি বলেও চিঠিতে বলা হয়েছে।

এতে আরও বলা হয়েছে, ১৬ মে আইবিএএন-এর হিসাব নম্বরের তথ্য তিনি গোপন রেখেছেন। এতে করে হজযাত্রীদের সময়মত বাড়িভাড়া ও ভিসা প্রসেসিংসহ গুরুত্বপূর্ণ কাজ করতে মোনাজ্জেম হিসেবে ব্যর্থ হয়েছেন। তার এই দায়িত্ব অবহেলায় হজ কার্যক্রম সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করণে প্রতিবন্ধকতার সৃষ্টি করেছে যার ফলে নর্থ বাংলা হজ ট্রাভেলস অ্যান্ড ট্যুরসের ২৬০ জন হজযাত্রীর হজ গমনে অনিশ্চয়তার আশংকা সৃষ্টি হয়েছে।

এমতাবস্থায় পবিত্র হজের সময়াবদ্ধ দায়িত্ব পালনে মোনাজ্জেম হিসেবে তার দায়িত্ব অবহেলার যথাযথ ব্যাখ্যা এবং ভবিষ্যতে হজ কার্যক্রম আওতার বাইরে কেন রাখা হবে না, তা আগামী ৩ কার্যদিবসের মধ্যে এ মন্ত্রণালয়ের হজ অনুবিভাগে জানানোর জন্য নির্দেশনা প্রদান করা হয়েছে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, নর্থ বাংলা হজ ট্রাভেলস এন্ড ট্যুরসের (১০৮৬) মালিক মো. হাবিবুল ইসলাম (অপু)। তিনি বার্তা২৪.কমকে বলেন, আমি ২০১৯ সালে রংপুরের আবদুল্লাহ আল কাদিরের কাছে লাইসেন্সটি বিক্রি করে দিয়েছি। এর মধ্যস্থতা করেছেন রংপুরের গ্রুপ লিডার মাওলানা বদরুল আলম। যদিও হাব সূত্রে জানা গেছে, যথাযথভাবে লাইসেন্স হস্তান্তর প্রক্রিয়া সম্পন্ন হয়নি।

হজযাত্রী হয়রানিসহ প্রাসঙ্গিক বিষয়ে কথা বলতে সৌদি আরবে অবস্থান করা মুফতি লুৎফর রহমান ফারুকীর মোবাইলে একাধিকবার চেষ্টা করেও তাকে পাওয়া যায়নি।

চলতি হজ মৌসুমে ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের অনুমোদন সাপেক্ষে বেসরকারি ২৫৯টি এজেন্সি হজ কার্যক্রম পরিচালনা করছে। তাদের মাধ্যমে ৮০ হাজার ৬৯৫ জন হজযাত্রীর সৌদি আরব গমনের কথা রয়েছে। ইতোমধ্যে ৯ মে শুরু হওয়া হজফ্লাইটে বেসরকারি ব্যবস্থাপনার ২৭ হাজার ৬৩ হজযাত্রী সৌদি আরব পৌঁছেছেন।

চাঁদ দেখা সাপেক্ষে ২০২৪ সনের হজ অনুষ্ঠিত হবে ৬ জুন। এক্ষেত্রে হজযাত্রীদের প্রথম ফিরতি হবে ফ্লাইট ২০ জুন এবং শেষ ফিরতি ফ্লাইট হবে ২২ জুলাই।

;

হজের সময় কোরআন হেফজের জন্য ১ হাজার সেশন



ইসলাম ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
মসজিদে নববিতে পবিত্র কোরআন পড়ছেন শিশু শিক্ষার্থীরা, ছবি: সংগৃহীত

মসজিদে নববিতে পবিত্র কোরআন পড়ছেন শিশু শিক্ষার্থীরা, ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

হজ মৌসুমে পবিত্র কোরআন হেফজের (মুখস্থের) জন্য বিশেষভাবে ১ হাজারটি সেশন চালুর অনুমোদনসহ আসন্ন হজের কার্য পরিকল্পনা ঘোষণা করা হয়েছে।

রোববার (১৯ মে) মসজিদে হারাম ও নববির পরিচালনা বিষয়ক প্রধান শায়খ আবদুর রহমান আস-সুদাইস নতুন পরিকল্পনায় ঘোষণাকালে বলেন, সমন্বিত ব্যবস্থায় সর্বোচ্চমানের সেবা নিশ্চিত করতে কাজ করছে সৌদি কর্তৃপক্ষ। ভিশন ২০৩০-এর সঙ্গে মিল রেখে অতীতের সাফল্য ও অভিজ্ঞতার আলোকে সৌদি সরকারের ২০২৪ সালের কৌশলগত লক্ষ্য বাস্তবায়নে এবারের কার্য পরিকল্পনাটি প্রস্তুত করা হয়েছে।

সৌদি প্রেস এজেন্সির খবরে বলা হয়, মক্কা ও মদিনায় হজযাত্রীদের ধর্মীয় ও আধ্যাত্মিক ভ্রমণের অভিজ্ঞতা সমৃদ্ধ করতে নানা উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। জেনারেল প্রেসিডেন্সির আওতায় বিভিন্ন ভাষায় হজযাত্রীদের অনুবাদ সেবা দেওয়া হবে। তা ছাড়া মসজিদে থাকবে পবিত্র কোরআন পাঠ, মুখস্থ ও শিক্ষা বিষয়ক নানা প্রোগ্রাম।

এসব প্রোগ্রামের মধ্যে কোরআন পাঠ ও হেফজের বিষয়টি অন্যতম। আসন্ন হজ মৌসুমে সৌদি আরব ১ হাজারটি কোরআন হেফজের সেশন পরিচালনা করবে। যোগ্য-অভিজ্ঞ শিক্ষকরা হজযাত্রীদের অভিজ্ঞতা সমৃদ্ধ করতে এই প্রচেষ্টার নেতৃত্ব দেবেন। কোরআন মুখস্থের অভিজ্ঞতা হজযাত্রীদের নানাভাবে উপকৃত করবে, এটা তাদের আত্মনিবেদনে বিশাল ভূমিকা রাখবে। উদ্যোগটি বিশ্বব্যাপী কোরআনের নৈতিকতা এবং এর মধ্যপন্থী বার্তা প্রচারের জন্য সামঞ্জস্যপূর্ণ।

শায়খ আস-সুদাইস বলেন, এই কর্মসূচির লক্ষ্য হলো- কোরআন মাজিদের শিক্ষার পরিধি বিস্তৃত করা। পরিকল্পনা মতে, মসজিদে হারাম ও নববিতে যে কেউ যেকোনো সময় যেকোনো পরিমাণ কোরআন মুখস্থ করে সেখানে অবস্থানরত শিক্ষককে শুনাতে পারবেন।

পরিকল্পনা ঘোষণাকালে মসজিদে হারামের প্রধান ইমাম আরও বলেন, ১৬ হাজার কর্মীর পাশাপাশি এবার জেনারেল প্রেসিডেন্সির আওতায় হজের মৌসুমে ১০ হাজারের বেশি স্বেচ্ছাসেবী কাজ করবে। তারা পবিত্র দুই মসজিদের ১০টি ক্ষেত্রে দুই লাখের বেশি কর্মঘণ্টা সেবায় নিয়োজিত থাকবে।

এ ছাড়া মক্কা ও মদিনার পবিত্র দুই মসজিদে তিন লাখের বেশি কোরআনের কপি, দুই মসজিদের ৩০ হাজার পয়েন্টে হজের সময় প্রতিদিন অন্তত ২০ লাখ বোতলে ৪০ মিলিয়ন লিটার জমজম পানি বিতরণ করা হবে। গত কয়েক বছরের মতো এবারও সেবা দিতে অত্যাধুনিক প্রযুক্তি, অ্যাপ ও রোবট ব্যবহৃত হবে।

;

সৌদি পৌঁছেছেন ৩০ হাজার ৮১০ হজযাত্রী



ইসলাম ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

চলতি বছর হজ ফ্লাইট শুরু হওয়ার পর এ পর্যন্ত ৩০ হাজার ৮১০ জন হজযাত্রী সৌদি আরবে পৌঁছেছেন।

সোমবার (২০ মে) হজ পোর্টালের সবশেষ বুলেটিনে এ তথ্য জানানো হয়।

সৌদিতে যাওয়া হজযাত্রীদের মধ্যে সরকারি ব্যবস্থাপনায় ৩ হাজার হাজার ৭৪৭ জন এবং বেসরকারি ব্যবস্থাপনার গেছেন ২৭ হাজার ৬৩ জন।

বাংলাদেশ থেকে ৭৭টি ফ্লাইটে এসব হজযাত্রী সৌদি পৌঁছেছেন। এর মধ্যে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনসের ৩২টি, সৌদি এয়ারলাইনসের ২৫টি এবং ফ্লাইনাস এয়ারলাইনস ২০টি ফ্লাইট পরিচালনা করে।

এদিকে, সৌদি আরবে হজ পালন করতে গিয়ে এখন পর্যন্ত দুইজন বাংলাদেশি মৃত্যু হয়েছে।

এর আগে, গত ৯ মে বাংলাদেশ এয়ারলাইনসের প্রথম ডেডিকেটেড ফ্লাইট ৪১৫ জন হজযাত্রী নিয়ে সৌদির উদ্দেশ্যে যাত্রা করে। এর মাধ্যমেই চলতি বছরের হজের আনুষ্ঠানিক যাত্রা শুরু হয়। শেষ হবে ১০ জুন।

চাঁদ দেখা সাপেক্ষে আগামী ১৬ জুন পবিত্র হজ অনুষ্ঠিত হবে। হজযাত্রীদের প্রথম ফিরতি ফ্লাইট শুরু হবে ২০ জুন এবং শেষ হবে ২২ জুলাই।

;

হজের সময় সৌদিতে তাপদাহের আশঙ্কা



ইসলাম ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
হজের আনুষ্ঠাকিতায় হাজিরা, ছবি: সংগৃহীত

হজের আনুষ্ঠাকিতায় হাজিরা, ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

আগামী মাসে অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া হজের সময় সৌদি আরবের তাপমাত্রা অনেক বেশি থাকতে পারে। এ বিষয়ে সতর্ক করেছেন সৌদি ন্যাশনাল সেন্টার অব মেটিওরোলজির প্রধান আয়মান গোলাম।

আসন্ন হজে উচ্চ তাপমাত্রার জন্য সতর্ক করে প্রস্তুতি গ্রহণের পরামর্শ দিয়েছেন তিনি। আয়মান গোলাম বলেছেন যে, এ বছর হজের মৌসুম চলবে জুনের মাঝামাঝিতে। হজের মৌসুম সৌদি আরবে বছরের সবচেয়ে গরম সময়ের সঙ্গে মিলে গেছে।

বছরের এই সময়ে সাধারণত সৌদি আরবে তাপমাত্রা এবং বাতাসের আর্দ্রতা দুটোই অনেক বেশি থাকে। ফলে হজে অংশগ্রহণকারীদের সতর্ক থাকতে অবহিত করা হয়েছে।

জানা গেছে, হজ করতে আসা মুসল্লিদের ওপর তীব্র গরমের প্রভাব কমাতে তাদের বাসস্থানকে পর্যাপ্ত ঠাণ্ডা রাখা হবে হজ আয়োজনকারীদের অন্যতম অগ্রাধিকার। বিশেষ করে মিনা এবং আরাফাতের ময়দানে তাঁবুতে অবস্থান এবং হজের পাঁচতিন চলাচলে বেশি সতর্ক থাকতে হবে।

রোগীদের হজে যাওয়ার ক্ষেত্রে সৌদির নির্দেশনা
যারা দীর্ঘদিন ধরে রোগে ভুগছেন তাদের হজে যাওয়ার সময় চিকিৎসার নথিপত্র সঙ্গে নেওয়ার নির্দেশনা দিয়েছে সৌদি আরব। রোগীরা হজে গিয়েও যেন প্রয়োজনীয় চিকিৎসা পান তা নিশ্চিত করতেই এমন নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম এক্সে হজ ও উমরা মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে এ নির্দেশনা দেওয়া হয়।

হজ ও উমরা মন্ত্রণালয় জানায়, বিশেষ চিকিৎসার প্রয়োজন হয় এমন কোনো রোগে যদি আপনি ভুগে থাকেন এবং বিশেষ ওষুধ ব্যবহার করে থাকেন, তাহলে চিকিৎসার নথিপত্র সঙ্গে নিয়ে আসতে ভুলবেন না। যেন সৌদিতে আসার ও যাওয়ার সময় প্রয়োজনীয় চিকিৎসা পান।

এ ছাড়া বিদেশি হজযাত্রীদের সৌদি আরবে আসার আগেই ‘নেইসেরিয়া মেনিনজিটিডিস’ ভ্যাকসিন নিতে হবে এবং নিজ দেশের দ্বারা ভ্যাকসিন নেওয়ার বিষয়টির প্রমাণপত্র নিতে হবে।

বিদেশি হজযাত্রীদের পোলিও, কোভিড-১৯ এবং ফ্লুয়ের ভ্যাকসিন নেওয়া থাকতে হবে। এতে করে সব হজযাত্রীর স্বাস্থ্যগত নিরাপত্তার বিষয়টি নিশ্চিত হবে। এ ছাড়া সৌদিতে বসবাসরত যারা হজ করতে চান তাদের হজ সংক্রান্ত ভ্যাকসিনগুলো গ্রহণ করতে হবে।

এই ভ্যাকসিন প্রাথমিক স্বাস্থ্য কেন্দ্রগুলোতে রয়েছে। এ ছাড়া অভ্যন্তরীণ হজযাত্রীদের পবিত্র মক্কা নগরীতে হজের জন্য যেতে মন্ত্রণালয়ের সেহাতি অ্যাপে বাধ্যতামূলকভাবে নিবন্ধন করতে হবে।

;