ইউক্রেন-ইসরায়েলকে সামরিক সহায়তা দিচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র



আন্তর্জাতিক ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

ইউক্রেন, ইসরায়েল এবং তাইওয়ানকে নিরাপত্তা সহায়তা প্রদান করতে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের পার্লামেন্টের নিম্নকক্ষ প্রতিনিধি পরিষদে ৯৫ বিলিয়ন ডলারের একটি বিল পাস হয়েছে। যদিও এমন সিদ্ধান্তের বিরোধীতা করেছিলেন রিপাবলিকান সমর্থকরা। স্থানীয় সময় শনিবার (২০ এপ্রিল) ভোটাভুটির পর মার্কিন আইনপ্রণেতারা বহুল আলোচিত ৯৫ বিলিয়ন মার্কিন ডলারের এই বিল অনুমোদন করেন।

রোববার (২১ এপ্রিল) কাতারভিত্তিক গণমাধ্যম আল জাজিরার এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, পার্লামেন্টের নিম্নকক্ষ প্রতিনিধি পরিষদে পাসের পর বিলটি এখন ডেমোক্র্যাটিক-সংখ্যাগরিষ্ঠ সিনেটে চলে গেছে। দুই মাসেরও বেশি আগে একই ধরনের একটি ব্যবস্থা পাস করেছিল মার্কিন সিনেট।

এরপর থেকে ডেমোক্র্যাটিক প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন থেকে শুরু করে শীর্ষ সিনেট রিপাবলিকান মিচ ম্যাককনেল পর্যন্ত মার্কিন নেতারা রিপাবলিকান হাউসের স্পিকার মাইক জনসনকে সহায়তার বিষয়টি নিয়ে ভোটাভুটির আহ্বান জানিয়ে আসছিলেন।

আগামী সপ্তাহে সিনেটে এ বিলটি পাস হবে বলেও মার্কিন কর্তারা আশা করছেন।

এই বিলগুলোর মধ্যে ইউক্রেনের সংঘাত মোকাবিলায় প্রায় ৬১ বিলিয়ন ডলার প্রদান করা হয়। যার মধ্যে ২৩ বিলিয়ন মার্কিন ডলার অস্ত্র, স্টক এবং অন্যনান্য সুযোগ-সুবিধার জন্য দেওয়া হয়েছে। ইসরায়েলের জন্য বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে ২৬ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। এর মধ্যে মানবিক প্রয়োজনের জন্য ৯ বিলিয়ন ডলার। আর তাইওয়ানসহ এশিয়া প্যাসিফিকের দেশগুলোর জন্য নির্ধারণ করা হয়েছে ৮ বিলিয়ন মার্কিন ডলার।

এমন সিদ্ধান্তের পর ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি বাইডেন সরকারকে ধন্যবাদ জানিয়ে বলেছেন, মার্কিন আইন প্রণেতারা ইউক্রেনে রাশিয়ার আক্রমণের পর থেকেই তার দেশকে সমর্থন করে যাচ্ছে। এটি ইতিহাসের পাতায় নতুন এক দৃষ্টান্ত হয়ে থাকবে।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম এক্স-এ (সাবেক টুইটার) এক পোস্টে তিনি আরও জানান, 'মার্কিনিদের এই সহায়তা রাশিয়ার আক্রমণের হাত থেকে ইউক্রেনকে রক্ষা করতে সক্ষম হবে। এতে হাজার হাজার জীবন বাঁচাবে এবং আমাদের উভয় দেশের সম্পর্ক আরও শক্তিশালী হতে সাহায্য করবে।'

 

   

‘৩৫০ আসন প্রাপ্তির দিকে এগোচ্ছে ইন্ডিয়া জোট’



আন্তর্জাতিক ডেস্ক বার্তা২৪.কম
ছবি : সংগৃহীত

ছবি : সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

ভারতের লোকসভা নির্বাচনে পঞ্চম দফার ভোটের পরে গতবারের জেতা আসনগুলো দল ধরে রাখতে পারবে বলে আশাবাদী বিজেপি নেতৃত্ব। জবাবে দিনের শেষে কংগ্রেসের দাবি, পরিবর্তনের হাওয়ায় ভর করে অনায়াসে সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জন করে ফেলবে বিরোধী মঞ্চ ‘ইন্ডিয়া।’

কংগ্রেসের পক্ষে মঙ্গলবার (২১ মে) জয়রাম রমেশ বলেন, ‘সংখ্যাগরিষ্ঠতার পর ৩৫০-এর বেশি আসন জেতার লক্ষ্যে অগ্রসর হচ্ছে ইন্ডিয়া জোট।’

প্রসঙ্গত, ছয়টি রাজ্য ও দুটি কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলের ৪৯টি লোকসভা আসনে ভোট হয়েছে। রাত সাড়ে ১১টা পর্যন্ত দেশে ভোট পড়েছে ৬০.০৯ শতাংশ, যা পাঁচ বছর আগের পঞ্চম দফা লোকসভা নির্বাচনের চেয়ে প্রায় ৩ শতাংশ কম।

যদিও নির্বাচন কমিশন দাবি করেছে, চূড়ান্ত ফলাফলে ভোটের হার কিছুটা বাড়বে।

মঙ্গলবার জম্মু ও কাশ্মীরের বারামুলা কেন্দ্রে ৫৬ শতাংশের বেশি ভোট পড়েছে। উপত্যকাটিতে এতো মানুষের ভোট দিতে পথে নামা তাৎপর্যপূর্ণ বলেই মনে করছে নির্বাচন কমিশন।

সর্বশেষ ১৯৮৪ সালে ৬১ শতাংশ ভোট পড়েছিল এই কেন্দ্রে। মঙ্গলবার পঞ্চম দফা নির্বাচনের পরে ভারতের ৪২৮টি কেন্দ্রের নির্বাচন শেষ হয়েছে। শেষ দুটি পর্বে ১১৫টি আসনের ভোটগ্রহণ বাকি রয়েছে।

ষষ্ঠ দফার ভোট হবে আগামী ২৫ মে। মঙ্গলবারের ভোট নিয়ে ঝাড়গ্রামের সভায় দেশটির প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি বলেন, ‘পঞ্চম দফার ভোটগ্রহণ শেষ হতে চলেছে। ইন্ডিয়া পাঁচ দফাতেই পরাস্ত হয়েছে। আগামী ৪ জুন আমাদের সরকার হবে। বিরোধীরা ধুয়েমুছে যাবে। বিরোধী জোটের হেরে যাওয়ার কাউন্টডাউন চলছে।’

মঙ্গলবার যে রাজ্যগুলোতে ভোটগ্রহণ হয়েছে, তার মধ্যে সব থেকে কম ভোট পড়েছে মহারাষ্ট্রে ৫৪.২৯ শতাংশ। ওই রাজ্যের ১৩টি লোকসভা কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ ছিল। যার মধ্যে ছিল মুম্বাইয়ের ছয়টি লোকসভা কেন্দ্র।

এদিকে, মহারাষ্ট্রে কম ভোট পড়ার জন্য বিজেপি ও নির্বাচন কমিশনকে দায়ী করেছেন শিবসেনা নেতা উদ্ধব ঠাকরে। তিনি বলেছেন, ‘যেখানে আমাদের ভাল ফল করার কথা, সেই কেন্দ্রগুলোতেই মেশিন খারাপ হয়ে গেছে। দেরি করে ভোটগ্রহণ হয়েছে।’

বিজেপির বিরুদ্ধে বুথ জ্যাম করার অভিযোগও তুলেছে উদ্ধব শিবির। তাদের বক্তব্য, বুথের ভিতরে ইচ্ছে করে দেরি করানো হচ্ছিল। এতে বহু ভোটার গরমের কারণে লাইনে দাঁড়িয়েও ভোট না দিয়ে বাড়ি ফিরে গেছেন।

উদ্ধবের অভিযোগ, ‘ওই কাজে নির্বাচন কমিশনও গেরুয়া শিবিরকে পূর্ণ মদত দিয়েছে। বিশেষ করে সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের ভোটারদের কাছে একাধিকবার পরিচয় পত্র দেখতে চাওয়া হয়েছে। হারের ভয়ে মোদি সরকার নির্বাচন কমিশনকে পাপোষের মতো ব্যবহার করছেন।’

উদ্ধবের অভিযোগ উড়িয়ে দিয়ে বিজেপি নেতা দেবেন্দ্র ফডণবীস বলেন, ‘হারার ভয় থেকেই এসব কথা বলছেন উদ্ধব। ভোট দিতে যে সময় লাগছে, সেই অভিযোগ আমরাই প্রথম কমিশনকে জানিয়েছিলাম।’

মহারাষ্ট্রের সঙ্গেই মঙ্গলবার উত্তরপ্রদেশে যে ১৪টি আসনে ভোট হয়েছে, তাতে দল গতবারের মতোই ভাল ফল করবে বলে আশা করছে গেরুয়া শিবির। পাঁচ বছর আগে ১৪টি আসনের মধ্যে রায়বরেলি ছাড়া বাকি ১৩টি আসনেই জিতেছিল বিজেপি। এবার সব কয়টি আসনেই দল জিতবে বলে আশা করছেন বিজেপি নেতৃত্ব।

মঙ্গলবার দুপুরে নিজের কেন্দ্র রায়বরেলির একাধিক বুথ ঘুরে দেখেন রাহুল গান্ধী। বহু জায়গায় বিজেপি কর্মীরা তাকে দেখে ‘জয় শ্রীরাম’ ধ্বনি তুললেও, রাহুল কোনও প্ররোচনায় পা দেননি।

তবে কিছু কেন্দ্রে বিজেপি কর্মীরা সাধারণ ভোটারদের ভয় দেখাচ্ছেন বলে অভিযোগ করেন তিনি। পরে রাহুল বলেন, ‘প্রথম চার দফায় স্পষ্ট হয়ে গেছে মানুষ সংবিধান ও গণতন্ত্রের পক্ষে দাঁড়িয়ে বিজেপিকে হারানোর পণ করেছেন। ঘৃণার রাজনীতি ছেড়ে মানুষ এখন আসল সমস্যার ভিত্তিতে ভোট দিচ্ছেন। জনতা এখন ইন্ডিয়া জোটের সঙ্গে নির্বাচনে লড়ছে। এতে দেশজুড়ে পরিবর্তনের ঝড় উঠেছে।’

রাহুলের সুর ধরে কংগ্রেসের নেতা জয়রাম রমেশও বলেন, দেশজুড়ে পরিবর্তনের ঝড় লক্ষ্য করা যাচ্ছে। যে হাওয়ায় ভর করে ৩৫০ আসন প্রাপ্তির দিকে এগোচ্ছে ইন্ডিয়া জোট।’

জয়রামের ভাষ্যমতে, ‘মোদির গদি ছাড়তে আর পনেরো দিন বাকি। বেলাগাম মূল্যবৃদ্ধি, বেকারত্ব আর সংবিধান পরিবর্তনের হুমকি বিজেপির হারের কারণ হতে যাচ্ছে।’

জয়রামের ওই বক্তব্যের প্রেক্ষিতে বিজেপি নেতারা বলছেন, ‘কার পক্ষে যে আসলে ঝড় রয়েছে তা ওই পনেরো দিন পরেই বুঝতে পারবেন ইন্ডিয়া-র নেতারা। দেশবাসী যে তাদের জোটকে প্রত্যাখ্যান করেছেন, তা ভোটের ফল প্রকাশ হলেই স্পষ্ট হয়ে যাবে।’

;

ইসরায়েল-হামাস নেতাদের গ্রেফতার প্রসঙ্গে যা বলল চীন



আন্তর্জাতিক ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

গাজায় যুদ্ধাপরাধ ও মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগে আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালতে (আইসিসি) আইসিসির প্রধান কৌঁসুলি করিম খান ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু আর হামাসের নেতা ইয়াহিয়া সিনওয়ারের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারির আবেদন করেছেন। সোমবার তিনি এ ঘোষণা দেন।

এই ঘটনা নিয়ে চীন বলেছে, তাদের প্রত্যাশা ইসরায়েল ও হামাস নেতাদের বিরুদ্ধে পরোয়ানা চাওয়ার পর আইসিসি তার ‘বস্তুনিষ্ঠ’ অবস্থান বজায় রাখবে।

এদিকে আবেদনে বলা হয়, ইসরায়েলে হামাসের হামলা এবং এর ধারাবাহিকতায় গাজায় চলমান যুদ্ধে সংঘটিত যুদ্ধাপরাধ ও মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগে এ আবেদন করা হয়েছে।

ফিলিস্তিনি জনগণের সম্মিলিত শাস্তি বন্ধের আহ্বান জানিয়ে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র ওয়াং ওয়েনবিন বলেন, আশা করা যায় আইসিসি তার উদ্দেশ্যমূলক ও নিরপেক্ষ অবস্থান সমুন্নত রাখবে এবং আইন অনুযায়ী তার ক্ষমতা প্রয়োগ করবে।

সোমবার আইসিসির প্রসিকিউটর করিম খান বলেন, ৭ অক্টোবরের হামলা ও গাজায় ইসরায়েলের যুদ্ধে সংঘটিত কথিত অপরাধের জন্য তিনি প্রধানমন্ত্রী নেতানিয়াহু, প্রতিরক্ষা প্রধান গ্যালান্ট এবং হামাস প্রধান সিনওয়ারসহ তিন নেতার বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারির অনুরোধ করেছেন।

আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালতে (আইসিসি) ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহুর বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারির আবেদনে  যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য ও ইতালি নিন্দা জানিয়েছে। 

তবে ফ্রান্স তার পশ্চিমা মিত্রের সাথে দ্বিমত প্রকাশ করে বলেছে, আইসিসির ‘স্বাধীনতার’ প্রতি তাদের সমর্থন রয়েছে।

;

লিউকেমিয়ায় আক্রান্ত সিরিয়ার ফার্স্ট লেডি



আন্তর্জাতিক ডেস্ক বার্তা২৪.কম
ছবি : সংগৃহীত

ছবি : সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

সিরিয়ার ফার্স্ট লেডি আসমা আল-আসাদের লিউকেমিয়া ধরা পড়েছে। রয়টার্স জানিয়েছে, মঙ্গলবার (২১ মে) খবরটি নিশ্চিত করেছে প্রেসিডেন্ট বাশার আল-আসাদের কার্য্যালয়।

বাশার আল-আসাদের কার্য্যালয় থেকে এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, প্রেসিডেন্টের স্ত্রীর বিভিন্ন উপসর্গ দেখা দেওয়ায় নানা পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর তার এ্যাকুট মাইলয়েড লিউকেমিয়া ধরা পড়ে।

ওই বিবৃতিতে আরও বলা হয়েছে, সংক্রমণ প্রতিরোধে ফার্স্ট লেডি আসমা এখন একটি বিশেষ চিকিৎসা প্রোটোকল মেনে চলবেন এবং অস্থায়ীভাবে সকল ব্যস্ততা থেকে দূরে থাকবেন।

এ্যাকুট মাইলয়েড লিউকেমিয়া হল অস্থি মজ্জা এবং রক্তের এক রকমের আক্রমনাত্মক ক্যান্সার।

প্রসঙ্গত, আসমা আল-আসাদের এর আগে স্তন ক্যান্সার ধরা পড়েছিল। তার এই রোগ নির্ণয়ের এক বছর পরে ২০১৯ সালের আগস্টে জানিয়েছিলেন যে, তিনি এখন সম্পূর্ণ রোগ মুক্ত।

২০০০ সালে তৎকালীন নবনিযুক্ত প্রেসিডেন্ট বাশার আসাদকে বিয়ে করার আগে তিনি একজন ইনভেস্টমেন্ট ব্যাংকার ছিলেন।

তারপর থেকে তিনি নানা জনকল্যানকর কাজ করেছেন। কিন্তু, তার বিরুদ্ধে ব্রিটিশ শিক্ষা এবং পশ্চিমা শৈলী ব্যবহার করার চেষ্টা করার অভিযোগ রয়েছে।

;

রাইসির মৃত্যুতে ইরানের একাংশে উল্লাস



আন্তর্জাতিক ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

ইরানের প্রেসিডেন্ট ইব্রাহিম রাইসির রহস্যজনক মৃত্যুতে ইরানের একপ্রান্তে যখন শোকের ছায়া; অন্যদিকে উল্লাসে ফেটে পড়েছে আরেক অংশ। রীতিমতো আতশবাজি ফাটিয়ে উৎসবে মেতেছে ইরানি নারীবাদী ও রাইসি বিরোধীদের একাংশ।

রাইসিকে বহনকারী হেলিকপ্টার বিধ্বস্তের ঘটনায় যখন তেহরান ও মাশহাদের রাস্তায় প্রার্থনার জন্য জড়ো কয়েক হাজার মানুষ তখন কয়েকটি এলাকায় রীতিমতো উৎসব শুরু করে মানুষ। এমনকি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও হেলিকপ্টার দুর্ঘটনা নিয়ে হাস্যরসাত্মক পোস্ট দিতে থাকেন অনেকে।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়া এক ভিডিওতে দেখা যায় তেহরানের এক ব্যক্তি বলছেন, ‘রাইসির হেলিকপ্টার বিধ্বস্তের সুখবরটি আসুন উদ্‌যাপন করি। যদিও এ ধরনের উৎসব বন্ধ করতে এরই মধ্যে মাঠে নেমে পড়েছে ইরানের ইসলামী বিপ্লবী রক্ষীবাহিনীর সদস্যরা।’

ইরানের বিভিন্ন স্থানে রাইসির মৃত্যুকে কেন্দ্র করে উৎসবের কারণ জানাতে গিয়ে সাংবাদিক ও বিশ্লেষক জোনাথন হ্যারনওফ ইরান ইন্টারন্যাশনালকে বলেন, ‘একজন সংরক্ষণশীল নেতা ছিলেন রাইসি। এর পাশাপাশি কঠিন বিচারব্যবস্থা প্রয়োগের মাধ্যমেই তিনি নিজের আসন পাকাপোক্ত করেছেন। হাজারো বন্দির প্রাণ গেছে তার হাতে। আর এ কারণেই তাকে তেহরানের কসাই ডাকা হয়।’

কুর্দি তরুণী মাহসা আমিনি নিহতের ঘটনা মনে করিয়ে দেন বেশ কয়েকজন নারীবাদী। এ কারণে তারা আজকের দিনটিকে ‘বিশ্ব হেলিকপ্টার দিবস’ হিসেবে ঘোষণা করেছেন।

এ সময় অনেককে নাচতে দেখা যায়। বিশ্বের বিভিন্ন দেশে থাকা ইরানিদেরও আনন্দ প্রকাশ করতে দেখা যায়। এর মধ্যে লন্ডনের কয়েকটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ঘুরে বেড়াচ্ছে। এ ছাড়া ইরান সরকারের রোষাণলে পড়ে যারা দেশ ছেড়েছেন, তারা উল্লাস করছেন।

ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম ডেইলি মেইল বলছে, ইব্রাহিম রাইসি ইরানের একজন ধর্মীয় ‘কট্টরপন্থি’ নেতা ছিলেন। ইরানে বাক স্বাধীনতাকে ধ্বংস করা এবং নারীদের জন্য কঠোর ‘হিজাব আইন’ প্রয়োগ করার মতো পদক্ষেপ নেওয়ার অভিযোগ ছিল তার বিরুদ্ধে।

;