সুদানের সহিংস পরিস্থিতি নিয়ে জাতিসংঘের সতর্কবার্তা



আন্তর্জাতিক ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

উত্তর-পূর্ব আফ্রিকার দেশ সুদানের পশ্চিম দারফুরে বেসামরিক নাগরিকদের ওপর চলমান সহিংসতার চরম অবনতি ঘটেছে। জাতিগত সহিংসতা বেড়ে যাওয়ায় সুদানে মানবিক সংকট আরও ঘনীভূত হচ্ছে বলে গত শুক্রবার জাতিসংঘ এক সতর্কবার্তায় জানিয়েছে।

সামরিক শাসন থেকে গণতান্ত্রিক ব্যবস্থায় রূপান্তরের অংশ হিসেবে সুদানের সেনাবাহিনী এবং আধাসামরিক বাহিনী র‍্যাপিড সাপোর্ট ফোর্সেসকে (আরএসএফ) একীভূত করার পরিকল্পনা নেওয়া হয়। এতেই দুপক্ষের মধ্যে কয়েক সপ্তাহের ব্যবধানে উত্তেজনা বেড়ে যায়।

শনিবার(১১ নভেম্বর) বার্তাসংস্থা রয়টার্সের প্রতিবেদনে এই তথ্য জানানো হয়েছে।

চলতি বছরের ১৫ এপ্রিল থেকে সুদানের সেনাবাহিনী এবং আরএসএফের মধ্যে যুদ্ধ শুরু হয়। বর্তমানে পরিস্থিতি চরম ধ্বংসের দিকে রয়েছে।পশ্চিম দারফুরের আল জুনায়নায় অবস্থিত সুদানের সেনাবাহিনীর প্রধান সেনা ঘাঁটি দখল করেছে আরএসএফ।

সুদানে জাতিসংঘের ত্রাণ বিষয়ক শীর্ষ কর্মকর্তা ক্লেমেন্টাইন এনকোয়েটা-সালামি বলেন, সুদানে যৌন নিপীড়ন, লিঙ্গভিত্তিক সহিংসতা, জোরপূর্বক গুম, নির্বিচারে আটক, শিশু ও মানবাধিকারের গুরুতর লঙ্ঘন এবং নির্মম ও আতঙ্কজনক পরিস্থিতির ঘটনা ঘটছে।

সাংবাদিকদের তিনি বলেন, ‘পরিস্থিতি সম্পূর্ণভাবে খারাপের দিকেই যাচ্ছে। বেসামরিক নাগরিকদের সুরক্ষা এখনও উদ্বেগের প্রধান বিষয়। সুদানের মোট জনসংখ্যার অর্ধেকেরও বেশি, প্রায় আড়াই কোটি মানুষের এখন মানবিক সাহায্য এবং সুরক্ষার প্রয়োজন। ৬০ লাখেরও বেশি নাগরিক তাদের বাড়িঘর ছেড়ে সুদানের অন্যত্র বা প্রতিবেশী দেশগুলিতে বাস্তুচ্যুত হয়েছে।’

তিনি আরও বলেন, সংঘাতপূর্ণ এলাকায় ৭০ শতাংশেরও বেশি মানুষ স্বাস্থ্য সুবিধাগুলোর বাইরে রয়েছে। এর ফলে কলেরা, ডেঙ্গু, ম্যালেরিয়া ও হামের প্রাদুর্ভাব এবং শিশুদের মধ্যে উচ্চ মাত্রার অপুষ্টি দেখা দিয়েছে। 

জাতিসংঘের পক্ষ থেকে ১ কোটি ২০ লাখ মানুষকে ত্রাণ সহায়তা দেওয়ার লক্ষ্য নির্ধারণের কথাও জানান তিনি। পাশাপাশি, আরও ২৬০ কোটি ডলার সহায়তা দেওয়ার আবেদনও করা হয়েছে বলে তিনি জানান।

এনকোয়েটা-সালামি বলেন, দারফুরে জাতিগত সহিংসতার ঘটনা সাম্প্রতিক সময়ে অনেক বেড়েছে। বেসামরিকদের ওপর ক্রমবর্ধমান সহিংসতা এবং আক্রমণ সম্পর্কে উদ্বেগজনক প্রতিবেদন পেয়েছি।

পশ্চিম দারফুরে জাতিগত সহিংসতা ও হত্যাকাণ্ড নতুন করে মাথাচাড়া দিয়েছে বলে জানিয়েছে সুদানের নাগরিকেরা।

   

লেবাননে ভয়ঙ্কর ফসফরাস বোমা হামলা ইসরায়েলের



আন্তর্জাতিক ডেস্ক বার্তা২৪.কম
ছবি : সংগৃহীত

ছবি : সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

লেবাননের রাষ্ট্রীয় বার্তা সংস্থা ন্যাশনাল নিউজ এজেন্সি (এনএনএ) জানিয়েছে, দক্ষিণ লেবাননের বনাঞ্চল লক্ষ্য করে ফসফরাস বোমা হামলা চালিয়েছে ইসরায়েল।

এর ফলে সেখানে আগুন ধরে গেছে। কাফার কিলা শহরের কাছে এ হামলা চালানো হয় বলে জানিয়েছে আল-জাজিরা।

হিউম্যান রাইটস ওয়াচের গবেষক রামজি কাইস সাম্প্রতিক এক প্রতিবেদনে বলেছেন, জনবহুল এলাকায় ইসরায়েলের এয়ারবার্স্ট সাদা ফসফরাস যুদ্ধাস্ত্র ব্যবহার নির্বিচারে বেসামরিক লোকজনের ক্ষতি করছে এবং অনেককে তাদের বাড়িঘর ছেড়ে চলে যেতে বাধ্য করেছে।

এদিকে আল-জাজিরার সানাদ ফ্যাক্ট-চেকিং এজেন্সির যাচাই করা একটি ভিডিওতে দেখা গেছে, আপার গ্যালিলির আয়েলেত হাশাহারে একটি ইসরায়েলি সামরিক ঘাঁটি লক্ষ্য করে হিজবুল্লাহর ড্রোন হামলা সেনাদের মধ্যে আতঙ্ক সৃষ্টি করেছে।

এক্স-এ ইসরাইলি আর্মি রেডিওর শেয়ার করা ফুটেজে দেখা যায়, ইসরাইলি ঘাঁটির আশপাশে সাইরেন বাজছে এবং সেনারা ভয়ে দৌড়াচ্ছে।

সাদা ফসফরাসের সংস্পর্শে এলে মানুষ তীব্র জ্বালা অনুভব করে অনেক ক্ষেত্রে এটা মানুষের হাড় পর্যন্ত পুড়িয়ে দেয় এবং এর নিরাময়ে অনেক সময় লাগে। সেসঙ্গে সংক্রমণের ঝুঁকিও থাকে।

সাদা ফসফরাসের কারণে যদি মানুষের শরীরের মাত্র ১০ শতাংশও দগ্ধ হয়, তাহলেও তা মারাত্মক। এর সংস্পর্শে এলে মানুষের শ্বাস নিতে অসুবিধা হতে পারে এবং শরীরের অনেক অঙ্গ কাজ করা বন্ধ হয়ে যেতে পারে।

যে কারণে সশস্ত্র সংঘাতে সাদা ফসফরাস ব্যবহার বেশ কয়েকটি আন্তর্জাতিক আইনি কাঠামোতে নিষিদ্ধ।

কনভেনশন অন কনভেনশন উইপনস (সিসিডব্লিউ) এর প্রটোকল ৩ বেসামরিক জনগোষ্ঠী বা বেসামরিক এলাকায় আগ্নেয়াস্ত্র হিসেবে সাদা ফসফরাস ব্যবহার নিষিদ্ধ করে।

এই প্রোটোকলের অধীনে, এটি কেবল আন্তর্জাতিক মানবিক আইনের নীতি অনুসারে সংকেত, স্ক্রিনিং এবং চিহ্নিতকরণের জন্য ব্যবহার করা উচিত।

;

ইসরায়েলের গোপন স্থাপনার ফুটেজ প্রকাশ করল হিজবুল্লাহ



আন্তর্জাতিক ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

ইসরায়েলের গুরুত্বপূর্ণ ও স্পর্শকাতর স্থাপনার ভিডিও ফুটেজ প্রকাশ করেছে লেবাননের সশস্ত্র গোষ্ঠী হিজবুল্লাহর সামরিক গণমাধ্যম বিভাগ। 

রোববার (২৩ জুন) প্রকাশিত এই ভিডিও ফুটেজ সম্পর্কে লেবাননের আল-মায়াদিন টেলিভিশন চ্যানেল বলছে, ইসরায়েলের সামরিক বাহিনীর কাছে নিরাপত্তার দিক দিয়ে গুরুত্বপূর্ণ এবং স্পর্শকাতর স্থাপনাগুলোকে হিজবুল্লাহ চিহ্নিত করেছে।

দেশটির ক্ষমতাসীন বেনিয়ামিন নেতানিয়াহুর সরকার যখন লেবাননের হিজবুল্লাহর বিরুদ্ধে সর্বাত্মক যুদ্ধের হুমকি দিচ্ছে, ঠিক তখনই এ ফুটেজ প্রকাশ করল সংগঠনটি। 

বার্তাসংস্থা ইরনার প্রতিবেদনে এই তথ্য জানানো হয়েছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়, প্রকাশিত ফুটেজে যেসব গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনাকে চিহ্নিত করা হয়েছে, তার মধ্যে রয়েছে- নেগেভ মরুভূমিতে অবস্থিত ইসরায়েলের দিমোনা পরমাণু চুল্লি, তেল আবিবের বেনগুরিয়ন আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর, হাকিরিয়া কমপ্লেক্স এবং নেভাতিম বিমানঘাঁটি।

উল্লেখ্য, গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনা হাকিরিয়া কমপ্লেক্সে রয়েছে ইসরায়েলের সামরিক বাহিনীর জেনারেল স্টাফ এবং বহু শীর্ষ সামরিক কর্মকর্তার বাসা-বাড়ি, রামাত ডেভিড বিমান ঘাঁটি এবং লেবানন উপকূলের কারিশ গ্যাসক্ষেত্র। 

এর আগে, শুক্রবার (২১ জুন) ইসরায়েলের একটি নৌঘাঁটিসহ ৬টি স্থাপনায় ড্রোন হামলা চালিয়েছে হিজবুল্লাহ। এতে ওই নৌঘাঁটির একাংশ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে এবং বহু সেনা হতাহত হয়েছে বলে দাবি করেছে সংগঠনটি। 

;

ভারতে সরকারি অফিসে ১৫ মিনিট দেরি হলেই কাটা যাবে ছুটি



আন্তর্জাতিক ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

ভারতের সরকারি অফিস সকাল ৯টা থেকে বিকেল সাড়ে ৫টা পর্যন্ত চলবে। এক্ষেত্রে চাকরিজীবীদের অফিসে ঢুকতে হবে সকাল ৯টায়। দেরি হলেই ক্যাজুয়াল লিভ কাটা হবে বলে পরিপত্র জারি করা হয়েছে।

ভারতের কেন্দ্রীয় সরকার ভারতের সরকারি চাকরিজীবীদের জন্য এই নতুন নিয়ম প্রণয়ন করেন।

রোববার (২৩ জুন)  টাইমস অব ইন্ডিয়ার প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

প্রতিবেদনে জানানো হয়, সরকারি চাকরিজীবীদের সময়মত অফিসে উপস্থিতির প্রকাশিত পরিপত্রে বলা হয়েছে, এখন থেকে অফিসে ঢুকতে সরকারি চাকরিজীবীরা সর্বোচ্চ ১৫ মিনিট ছাড় পাবেন। সকাল সোয়া ৯টার মধ্য অফিসে উপস্থিত না হলে তাদের জন্য বরাদ্দ ক্যাজুয়াল লিভের মধ্যে থেকে অর্ধদিবস ছুটি কেটে নেওয়া হবে।

এ ছাড়াও, প্রতিদিন অফিসে প্রবেশ ও বেরিয়ে যাওয়ার সময় বায়োমেট্রিক শনাক্তকরণ ব্যবস্থা ব্যবহারও বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। 

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, সাধারণ কর্মচারীরা শনাক্তকরণ ব্যবস্থা ব্যবহার করলেও ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের মধ্যে তা ব্যবহারে অনীহা দেখা যায়। তাছাড়া, করোনা মহামারির পর থেকে সরকারি চাকরিজীবীদের অফিসে দেরিতে আসার প্রবণতাও বেশি লক্ষ্য করা গেছে। ফলে নতুন এ নিয়ম চালু করেছে কেন্দ্রীয় সরকার।

;

গ্রিসে একদিনে ৬৬ দাবানল



আন্তর্জাতিক ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

গ্রীসের ইভিয়া দ্বীপের কন্টোডেস্পোটি এলাকায় এবং পশ্চিম থ্রেসের সাপসি শহরাঞ্চলে একদিনে অন্তত ৬৬টি দাবনলের ঘটনা ঘটেছে। শুক্রবার (২২ জুন) সন্ধ্যা ৬টা থেকে স্থানীয় সময় শনিবার (২৩ জুন) গভীর রাত পর্যন্ত সময়ের মধ্যে এসব দাবানলের ঘটনা ঘটে।

তুর্কি বার্তা সংস্থা আনাদোলুতে এ খবর দেওয়া হয়েছে। 

প্রতিবেদনে বলা হয়, প্রাথমিকভাবে এসব দাবানলের ৫২টি স্থানের আগুন নিয়ন্ত্রণে এনেছে দমকল বাহিনী। বাকি ১৪টি স্থানের আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতে কাজ করছে দেশটির ফয়ার সার্ভিসের সদস্যরা। তবে এসব দাবানলের ঘটনায় কোন হতাহতের খবর পাওয়া যায়নি।

দেশটির বেসামরিক সুরক্ষা কর্তৃপক্ষের উদ্ধৃতিদিয়ে রাষ্ট্রীয় বার্তা সংস্থা আমনা (এএমএনএ) জানিয়েছে, ইভিয়া দ্বীপের কন্টোডেস্পোটি এলাকায় এবং পশ্চিম থ্রেসের সাপসি শহরে এসব দাবানলের ঘটনা ঘটেছে।

প্রতিবেদনে আরও বলা হয়, দাবানল মোকাবিলায় জোর তৎপরতা অব্যাহত রেখেছে গ্রীস প্রশাসন। এসব দাবানলের ঘটনায় জড়িতদের গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সূত্রে জানা গেছে, দাবানলের ঘটনায় এখন পর্যন্ত ১৩ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। ধারণা করা হচ্ছে সন্দেভাজনরা ইয়েট ক্রজে যাওয়ার সময় আতশবাজি ছুড়ে দিলে সেখান থেকে এসব দাবানলের ঘটনা ঘটেছে। বেসামিরক নিরাপত্তা মন্ত্রী অ্যাটিকা অঞ্চলে একটি দাবানলের উচ্চ ঝুঁকির বিষয়ে সতর্কতা অবলম্বনের পরামর্শ দিয়েছেন। তিনি দেশটির ঐতিহাসিক নগরী এথেন্স এবং এর পার্শ্ববর্তী বন্দর শহর পিরেউস পিন ইভিয়াতেও বারতি সতর্কতার পরামর্শ দিয়েছেন।  

গণমাধ্যমের পৃথক আরেকটি খবরে বলা হয়েছে, তুরস্কের দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলে ভয়াবহ দাবানলে কমপক্ষে ১২ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন আরও বহু মানুষ। এই দাবানলের শত শত প্রাণীরও মৃত্যু হয়েছে। বৃহস্পতিবার থেকে এই দাবানল শুরু হয় এবং শুক্রবার পর্যন্ত আগুনে কয়েকশ প্রাণী মারা গেছে। কৃষকদের খড় পোড়ানো থেকে ওই আগুনের সূত্রপাত হয়েছিল বলে জানিয়েছে স্থানীয় প্রশাসন। 

;