প্রতিরক্ষামন্ত্রীকে বরখাস্ত করার পর ইসরাইলে ব্যাপক বিক্ষোভ



আন্তর্জাতিক ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

ইসরাইলে প্রতিরক্ষামন্ত্রীকে বরখাস্ত করার পর প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহুর বিরুদ্ধে ব্যাপক বিক্ষোভ শুরু হয়েছে। লাখ লাখ লোক রাস্তায় নেমে নেতানিয়াহুর বিচার বিভাগ সংস্কারের চেষ্টা প্রতিরোধ করার দাবি জানাচ্ছে। রোববার পরিকল্পিত বিচার বিভাগীয় সংস্কারের বিরুদ্ধে কথা বলায় তার লিকুদ পার্টির সিনিয়র সদস্য ও প্রতিরক্ষামন্ত্রী ইয়োভ গ্যালান্টকে ছাঁটাই করেন নেতানিয়াহু।

তেলআবিবে রোববার রাতে বিক্ষোভকারীরা ইসরাইলের পতাকা গায়ে দিয়ে প্রধান রাস্তা অবরোধ করে রাখে। অনেকে বিশাল আগুন ধরিয়ে দেয়। জেরুসালেমে নেতানিয়াহুর ব্যক্তিগত বাড়ির সামনেও বিক্ষোভ আয়োজন করা হয়।

নেতানিয়াহুর ডানপন্থী দল লিকুদ পার্টির সিনিয়র সদস্য গ্যালান্ট দলের প্রথম কর্মকর্তা হিসেবে শনিবার বিচার বিভাগ সংস্কার প্রস্তাব স্থগিত করার পরামর্শ দেন। নেতানিয়াহু তার কর্তৃত্ব জোরদার করার জন্য বিচার বিভাগের ক্ষমতা খর্ব করতে চাচ্ছেন বলে ব্যাপকভাবে প্রচলিত রয়েছে।

এক সংক্ষিপ্ত বিবৃতিতে নেতানিয়াহুর অফিস জানায়, প্রধানমন্ত্রী বরখাস্ত করেছেন গ্যালান্টকে। নেতানিয়াহু পরে টুইটে বলেন, 'প্রত্যাখ্যানের বিরুদ্ধে আমাদের অবশ্যই জোরালভাবে দাঁড়াতে হবে।'

এই ঘোষণার পর গ্যালান্ট টুইটে ঘোষণা করেন, 'আমার জীবনের মিশনে সবসময় ইসরাইল রাষ্ট্রের নিরাপত্তা আগেও ছিল, ভবিষ্যতেও থাকবে।'

ঘোষণাটির পর রোববার হাজার হাজার বিক্ষোভকারী তেলআবিরে রাস্তায় রাস্তায় সমবেত হয়, প্রধান মহাসড়কটি বন্ধ করে দেয়।

এই পদক্ষেপের ফলে ইঙ্গিত পাওয়া যাচ্ছে যে বিচার বিভাগে আমূল পরিবর্তনের প্রস্তাবটি নিয়ে এগিয়ে যাবেন নেতানিয়াহু। তবে এতে জনসাধারণের পাশাপাশি সামরিক বাহিনী, ব্যবসায়িক নেতারা এবং ইসরাইলের মিত্ররাও ক্ষুব্ধ হয়েছে।

চলতি সপ্তাহেই প্রস্তাবটির ওপর ভোটাভুটি হতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে। এটি পাস হলে বিচার বিভাগের নিয়োগের ক্ষেত্রে চরম ডানপন্থী জোট সরকারকে অনেক বেশি ক্ষমতা দেবে।

গ্যালান্ট মনে করেন, প্রস্তাবটি নিয়ে সমাজে ব্যাপক বিভাজনের সৃষ্টি হয়েছে। এটি সামরিক বাহিনীর মনোবল ভেঙে দেবে, ইসরাইলের শত্রুদের সাহসী করে তুলবে।

গ্যালান্ট শনিবার বলেছিলেন, 'আমার মনে হচ্ছে, আমাদের শক্তির উৎস ক্ষয় হয়ে যাচ্ছে।'
তিনি নেতানিয়াহুর লিকুদ পার্টির কয়েকজন সদস্যের সমর্থন পেলেও অন্যরা তাকে বরখাস্ত করার আহ্বান জানাচ্ছিলেন।

অন্যদিকে বিরোধী দলের নেতা ইয়ায়ির লাপিদ বলেন, গ্যালান্টকে বরখাস্ত করা ছিল জায়নিস্ট বিরোধী সরকারের নতুন খারাপ কাজ। এটি জাতীয় নিরাপত্তাকে ক্ষতিগ্রস্ত করবে।

   

মোদির জোটের লোকজন যোগাযোগ করছেন: রাহুল



আন্তর্জাতিক ডেস্ক বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

ভারতীয় জনতা পার্টি (বিজেপি) নেতৃত্বাধীন এনডিএ জোটের নেতারা বিরোধীদল কংগ্রেসের সাথে যোগাযোগ রাখছেন বলে দাবি করেছেন দলটির নেতা রাহুল গান্ধী।

মঙ্গলবার (১৮ জুন) ব্রিটেনের প্রভাবশালী দৈনিক দ্য ফিন্যান্সিয়াল টাইমসকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে তিনি এ দাবি করেন।

কংগ্রেসের এই নেতা বলেছেন, একটি ছোটখাটো ঝামেলাও অস্থিতিশীল করে তুলতে পারে জাতীয় গণতান্ত্রিক জোটকে (এনডিএ)। যে জোট আঞ্চলিক দলগুলোর ওপর নির্ভর করে সরকার গঠন করেছে।

নরেন্দ্র মোদি নেতৃত্বাধীন সরকার শিবিরে ‘‘ব্যাপক অসন্তোষ’’ রয়েছে দাবি করে রাহুল গান্ধী বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে সরকার টিকিয়ে রাখার জন্য ‘‘লড়াই’’ করতে হবে। সাক্ষাৎকারে রাহুল গান্ধী বলেছেন, এনডিএ শিবিরে থাকা অনেক লোকজনই কংগ্রেসের সঙ্গে যোগাযোগ রাখছেন। ফলে সামান্য এদিক-ওদিক হলেই মোদি সরকারের পতন ঘটতে পারে।

রাহুল গান্ধী বলেছেন, গত লোকসভা নির্বাচনের ফল দেশের রাজনৈতিক গতিপ্রবাহের খাতই বদলে দিয়েছে। ভারতীয় রাজনৈতিক ব্যবস্থায় সবার জন্য সুযোগ সামনে চলে এসেছে। উল্লেখযোগ্য পট পরিবর্তন হয়েছে। যে সংখ্যার ওপর সরকার দাঁড়িয়ে রয়েছে, তা অত্যন্ত ভঙ্গুর। ফলে সামান্য এদিক-ওদিক হলেই সরকারের পতন ঘটবে।

গত ৪ জুন ভারতের ৫৪৩ আসনের লোকসভার নির্বাচনের চূড়ান্ত ফল ঘোষণা করা হয়। এতে নরেন্দ্র মোদির রাজনৈতিক দল ভারতীয় জনতা পার্টি (বিজেপি) একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা পায়নি। দেশটিতে সরকার গঠনের জন্য ২৭২ আসনের সংখ্যাগরিষ্ঠতা প্রয়োজন হলেও বিজেপি এককভাবে ২৪০ আসন পায়।

পরে সরকার গঠনের জন্য এনডিএ জোটের শরিকদের ৫৩ আসনের ওপর নির্ভর করতে হয় বিজেপিকে। বিজেপি নেতৃত্বাধীন এনডিএ জোট ২৯৩ আসনে জয় পেয়েছে। নির্বাচনে কংগ্রেস নেতৃত্বাধীন জোট ইনডিয়া ২৩৩ আসন পায়। এর মধ্যে কংগ্রেস এককভাবে পেয়েছে ৯৯ আসন।

;

জার্মানিতে ২.৮ বিলিয়ন ডলারের কোকেন উদ্ধার



আন্তর্জাতিক ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

জার্মানিতে ৩৫.৫ টন কোকেন উদ্ধার করেছেন দেশটির তদন্তকারীরা। এই জব্দকৃত কোকেনের মূল্য প্রায় ২.৮ বিলিয়ন মার্কিন ডলার বলে জার্মান কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে। এর মধ্যে হামবুর্গে ২৪.৫ টন ও ডাচ বন্দর রটারডামে আরো আট টন এবং ইকুয়েডরের গুয়াকিলে তিন টন কোকেন জব্দ করা হয়েছে।

সোমবার (১৭ জুন) জার্মাম পুলিশ ও প্রসিকিউটরদের বরাতে এ তথ্য নিশ্চিত করেছে ফরাসি বার্তা সংস্থা এএফপি।

গত বছরের এপ্রিল থেকে সেপ্টেম্বরে ৯টি শিপিং কনটেইনারের বৈধ পণ্যের মধ্যে এই মাদক পাওয়া গেছে। এই অবৈধ বাণিজ্যের বিষয়ে জার্মান তদন্তকারীদের সতর্ক করেছিল কলম্বিয়ান কর্তৃপক্ষ।

ইউরোপোলের সঙ্গে কাজ করা ওপি প্লেক্সাস নামে পরিচিত একটি দল আটজন প্রধান সন্দেহভাজনকে শনাক্ত করেছে। তাদের মধ্যে দুইজন জার্মান, দুইজন তুর্কি এবং অন্যরা আজারবাইজান, বুলগেরিয়া, মরক্কো ও ইউক্রেনের।

জার্মানির ডুসেলডর্ফ শহরের শুল্ক তদন্ত কর্তৃপক্ষের প্রধান টিনো ইঙ্গেলম্যান বলেছেন, জার্মানিতে জব্দ করা কোকেনের পরিমাণ প্রতিবছরই বাড়ছে। ২০২৩ সালে মোট প্রায় ৪৩ টন কোকেন জব্দ করা হয়েছিল।

;

চীনে বন্যা-ভূমিধসে নিহত ৫



আন্তর্জাতিক ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

চীনের দক্ষিণাঞ্চলীয় প্রদেশ গুয়াংডংয়ের মেইঝৌ শহরে ব্যাপক বর্ষণ, বন্যা ও ভূমিধসে ৫ জন নিহত হয়েছেন। এঘটনায় এখনও নিখোঁজ রয়েছেন অন্তত ১৫ জন।
সোমবার (১৭ জুন) চীনের রাষ্ট্রায়ত্ত সংবাদমাধ্যম সিসিটিভি এ তথ্য নিশ্চিত করেছে।

এছাড়া বন্যা-ভূমিধসের ফলে জঞ্জাল ও ধংস্তূপের তলায় আটকা পড়েছেন অন্তত ১৩ জন মানুষ। তাদের সর্বশেষ অবস্থা সম্পর্কে এখনও কোনো তথ্য পাওয়া যায়নি। ঘনবসতিপূর্ণ গুয়াংডং প্রদেশে রোববার থেকে শুরু হয় বর্ষণ।

জঞ্জাল সরানো, নিখোঁজদের সন্ধান ও আটকে পড়াদের উদ্ধারে চীনের দুর্যোগ মোকাবিলা দপ্তর মেইঝৌ শহরে ১০ হাজার উদ্ধারকর্মী পাঠিয়েছে।

গত এক সপ্তাহেরও বেশি সময় ধরে চরম প্রতিকূল আবহাওয়া সহ্য করছেন চীনের লোকজন। ব্যাপক তাপপ্রবাহে পুড়ছে দেশটির উত্তরাঞ্চলীয় প্রদেশগুলো, অন্যদিকে টানা বর্ষণ ও তার জেরে সৃষ্ট বন্যা-ভূমিধসে নাকাল হচ্ছে দক্ষিণাঞ্চলীয় বিভিন্ন প্রদেশ।

;

ভূমধ্যসাগরে নৌকা ডুবে নিহত ১১



আন্তর্জাতিক ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

ভূমধ্যসাগরের দক্ষিণ ইতালি উপকূলে দুটি নৌকা ডুবে অন্তত ১১ জনের মৃত্যু হয়েছে। এই দুই ঘটনায় ৬০ জনের বেশি মানুষ এখনো নিখোঁজ।

জার্মান দাতব্য সংস্থা রিসকিউশিপ জানিয়েছে, সোমবার (১৭ জুন) ল্যাম্পেডুসা দ্বীপের কাছে তারা একটি ডুবন্ত কাঠের নৌকা থেকে ৫১ জনকে উদ্ধার করেছেন। এ সময় নৌকার নিচের ডেকে ১০ জনের মরদেহ পাওয়া গেছে।

সংস্থাটি বলছে, বেঁচে যাওয়া ব্যক্তিদের সোমবার সকালে ইতালীয় কোস্টগার্ডের কাছে হস্তান্তরের পর তাদের তীরে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। তবে মৃতদের ল্যাম্পেডুসা দ্বীপে নেয়া হয়েছে।

জাতিসংঘের শরণার্থী বিষয়ক সংস্থা ইউএনএইচসিআর, ইন্টারন্যাশনাল অর্গানাইজেশন ফর মাইগ্রেশন (আইওএম) এবং জাতিসংঘের শিশু বিষয়ক সংস্থা ইউনিসেফ এক যৌথ বিবৃতিতে জানিয়েছে, নৌকাটি লিবিয়া থেকে যাত্রা করেছিল। এতে সিরিয়া, মিসর, পাকিস্তান ও বাংলাদেশের অভিবাসীরা ছিলেন। তবে কোন দেশের কত যাত্রী ছিলেন, তা জানানো হয়নি।

একই দিনে পৃথক আরেক নৌকাডুবির ঘটনায় ৬০ জনের বেশি মানুষ নিখোঁজ হয়েছেন। তাদের মধ্যে ২৬ জনের মতো শিশু রয়েছে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। দক্ষিণ ইতালির ক্যালাব্রিয়ার উপকূল থেকে প্রায় ১২৫ মাইল দূরে এই ঘটনা ঘটে। মেডেসিনস সানস ফ্রন্টিয়েরস (এমএসএফ) নামে একটি সংগঠন এই তথ্য জানিয়েছে।

এই ঘটনায় ১২ জনকে জীবিত উদ্ধার করা হয়। তবে তাদের সবাইকে তীরে নেয়ার পর একজন মারা যান বলে জানিয়েছে ইতালীয় কোস্টগার্ড।

ভূমধ্যসাগর বিশ্বের সবচেয়ে প্রাণঘাতী মাইগ্রেশন রুট হিসেবে পরিচিত। জাতিসংঘের তথ্য অনুসারে, ২০১৪ সাল থেকে এই রুটে ২৩ হাজার ৫০০ জনের বেশি অভিবাসী মারা গেছে বা নিখোঁজ হয়েছে।

সূত্র: বিবিসি

;