মিয়ানমারের ওপর যুক্তরাষ্ট্রের নতুন নিষেধাজ্ঞা



আন্তর্জাতিক ডেস্ক, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

বেসামরিক জনবহুল এলাকায় বিমান হামলার পর মিয়ানমারের বিরুদ্ধে নতুন করে আরও নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে যুক্তরাষ্ট্র। দেশটির সেনাবাহিনীর সঙ্গে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানগুলোকে নিশানা করে এই নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছে।

শুক্রবার (২৪ মার্চ) মার্কিন ট্রেজারি বিভাগ এক বিবৃতিতে এতথ্য জানিয়েছে।

২০২১ সালে সেনাবাহিনী অভ্যুত্থানের মাধ্যমে মিয়ানমারের ক্ষমতা দখলের পর থেকে জান্তা সরকারের ওপর চাপ আরও বাড়াতে এ পদক্ষেপ নিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র।

বিবৃতিতে বলা হয়েছে, তারা মিয়ানমারের সেনাবাহিনীর সঙ্গে সংশ্লিষ্ট দুই ব্যক্তি এবং ছয়টি সংস্থার ওপর নতুন এই নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছে।

এইসব ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠান মিয়ানমারের সেনাবাহিনীকে জঙ্গি বিমানের জ্বালানি সরবরাহ করা এবং তা আমদানি ও মজুত করতে সহায়তা করে বেসামরিক নাগরিকদের ওপর অবিরাম বিমান ও বোমা হামলা চালাতে সক্ষম করে তুলেছে বলে অভিযোগ করেছে মার্কিন অর্থমন্ত্রণালয়।

২০২১ সালের ফেব্রুয়ারিতে মিয়ানমারের সামরিক বাহিনী ক্ষমতা দখলের পর থেকে দেশটিতে সংকট চলছে।

সামরিক বাহিনীর বিরুদ্ধে লড়াই করছে বিক্ষোভকারীরা। রক্তক্ষয়ী আন্দোলন, সংঘাত, অভ্যুত্থানবিরোধী বিক্ষোভ চলছেই। বিক্ষোভে ব্যাপক দমন-পীড়ন চালানো হচ্ছে। গঠিত হয়েছে জান্তাবিরোধী সরকার এবং প্রতিরোধ বাহিনী।

মার্কিন অর্থমন্ত্রণালয় বলেছে, অভ্যূত্থানের পর থেকেই মিয়ানমার সেনাবাহিনী দেশের জনগণের বিরুদ্ধে নৃশংসতা এবং সহিংসতা চালিয়ে আসছে। তারা উত্তোরত্তর জনবহুল এলাকাগুলোতে বিমান হামলা চালাচ্ছে। মধ্য বার্মার একটি গ্রামে বিমান হামলায় একটি স্কুল ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে এবং উত্তরাঞ্চলীয় কাচিন রাজ্যে বিমান হামলায় ৮০ জন নিহত হয়েছে।

দেশটির সামরিক শাসকরা নিজেদের জনগণের ওপরই দুর্ভোগ, যন্ত্রণা আপতিত করছে বলে এক বিবৃতিতে জানিয়েছেন মার্কিন অর্থমন্ত্রণালয়ের আন্ডার সেক্রেটারি ব্রায়ান নেলসন।

আন্দোলরত শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তা নিশ্চিতের আহ্বান জাতিসংঘের



আন্তর্জাতিক ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
স্টিফেন ডুজারিক। ছবি: সংগৃহীত

স্টিফেন ডুজারিক। ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

কোটা সংস্কার আন্দোলনে অংশগ্রহণকারী শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে বাংলাদেশ সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে জাতিসংঘ। মঙ্গলবার (১৬ জুলাই) জাতিসংঘ মহাসচিবের মুখপাত্র স্টিফেন ডুজারিক উদ্ভূত পরিস্থিতি নিয়ে গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন।

মহাসচিবের কার্যালয়ের নিয়মিত সংবাদ সম্মেলনে এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘আমরা এই পরিস্থিতি সম্পর্কে খুবই সচেতন এবং আমরা তা নিবিড়ভাবে এবং উদ্বেগের সঙ্গে পর্যবেক্ষণ করছি।’

ডুজারিক বলেছেন, আমরা বাংলাদেশ সরকারের প্রতি আহ্বান জানাই প্রতিবাদকারীদের যেকোনও ধরনের হুমকি বা সহিংসতা থেকে রক্ষা করার জন্য। বিশেষ করে যারা শান্তিপূর্ণভাবে প্রতিবাদ করছে, যেমন তরুণরা, শিশু অথবা প্রতিবন্ধীরা। তাদের অতিরিক্ত সুরক্ষা প্রদান করা উচিত।

মুখপাত্র আরও বলেছেন, আমরা বাংলাদেশে অথবা বিশ্বের যেকোনও জায়গায় শান্তিপূর্ণভাবে প্রতিবাদ করার অধিকারের পক্ষে। শান্তিপূর্ণভাবে প্রতিবাদ করা একটি মৌলিক মানবাধিকার এবং সরকারগুলোর উচিত সেই অধিকারগুলোর সুরক্ষা নিশ্চিত করা।

;

গাজায় এক ঘণ্টায় তিনবার হামলা, নিহত ৪৮



আন্তর্জাতিক ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
ফিলিস্তিনের অবরুদ্ধ গাজায় হামলা

ফিলিস্তিনের অবরুদ্ধ গাজায় হামলা

  • Font increase
  • Font Decrease

ফিলিস্তিনের অবরুদ্ধ গাজায় মঙ্গলবার (১৬ জুলাই) এক ঘণ্টার মধ্যে তিনবার বিমান হামলা চালিয়েছে ইসরায়েলি বাহিনী। এতে অন্তত ৪৮ জন ফিলিস্তিনি নিহত হয়েছেন। গাজার বেসামরিক প্রতিরক্ষা সংস্থা এ তথ্য জানিয়েছে।

কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল জাজিরা জানিয়েছে, এই হামলাগুলো এক ঘণ্টারও কম সময়ের মধ্যে হয়েছে বলে দাবি করেছে গাজার বেসামরিক প্রতিরক্ষা সংস্থা। এতে ২৫ জন ফিলিস্তিনি নিহত হয়েছেন। এ ছাড়া ইসরায়েলি বাহিনীর বিমান হামলায় দক্ষিণ খান ইউনিসে ১৮ জন এবং উত্তর গাজার বেইট লাহিয়ায় পাঁচজন নিহত হয়েছেন। 

জাতিসংঘ বলেছে, দেইর এল-বালাহে এলাকায় জাতিসংঘের অপারেশন সেন্টারের কাছে ইসরায়েলি বাহিনী হামলা চালিয়েছে। জাতিসংঘের এই অপারেশন সেন্টার থেকে গাজায় মানবিক সহায়তা কার্যক্রম সমন্বয় করা হয়।

জাতিসংঘ আরও জানিয়েছে, গত ৯ মাসের যুদ্ধে গাজায় জাতিসংঘ পরিচালিত স্কুলগুলোর প্রায় ৭০ শতাংশ হামলার শিকার হয়েছে। যুদ্ধ শুরু হওয়ার পর থেকে স্কুলগুলো বেসামরিক ফিলিস্তিনিদের আশ্রয়শিবির হিসেবে ব্যবহৃত হচ্ছিল। এখন পর্যন্ত ইসরায়েলি হামলায় এখন পর্যন্ত এসব স্কুলে আশ্রয় নেওয়া ৫৩৯ জন নিরপরাধ ফিলিস্তিনি নিহত হয়েছেন।

গত বছরের ৭ অক্টোবরে ইসরায়েলে হামাসের হামলার পর পাল্টা হামলা শুরু করে ইসরায়েল। গত ৯ মাসে ইসরায়েলি হামলায় ৩৮ হাজার ৭১৩ জন ফিলিস্তিনি নিহত ও ৮৯ হাজার ১৬৬ জন আহত হয়েছে বলে দাবি করেছে গাজার স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়।

অন্যদিকে ইসরায়েল দাবি করেছে, গত ৭ অক্টোবরের হামাসের হামলায় ১ হাজার ১৩৯ জন ইসরায়েলি নিহত হয়েছেন। এ ছাড়া হামাসের হাতে বন্দি রয়েছেন দুই শতাধিক ইসরায়েলি নাগরিক।

সূত্র: আলজাজিরা

;

যুক্তরাজ্যের নতুন লর্ড চ্যান্সেলরের শপথ নিলেন শাবানা মাহমুদ



আন্তর্জাতিক ডেস্ক বার্তা২৪.কম
ছবি : সংগৃহীত

ছবি : সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

যুক্তরাজ্যের মন্ত্রিসভায় এবারই প্রথমবারের মতো স্থান পেয়েছেন মুসলিম নারী ব্যারিস্টার শাবানা মাহমুদ। লন্ডনের রয়্যাল কোর্ট অব জাস্টিসে আইন ও বিচার বিষয়ক মন্ত্রী হিসেবে সোমবার (১৫ জুলাই) শপথ নিয়েছেন তিনি।

ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যমের খবরে বলা হয়, পাকিস্তানি বংশোদ্ভূত শাবানা মাহমুদ পবিত্র কুরআন নিয়ে শপথ গ্রহণ করেছেন।

অনুষ্ঠানে শাবানা মাহমুদ বলেন, ‘এই দায়িত্ব একই সঙ্গে সৌভাগ্য ও বোঝা। এই দায়িত্ব ভবিষ্যৎ প্রজন্মের জন্য দ্বার খুলে দেবে, আমিই প্রথম লর্ড চ্যান্সেলর যে উর্দু বলতে পারে।’

৪৩ বছর বয়সি লেবার পার্টির এই সদস্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এক্স-এ খবরটি শেয়ার করে লিখেছেন, ‘আজ আমি লর্ড চ্যান্সেলর হিসাবে শপথ নিতে পেরে সম্মানিত বোধ করছি। আমাদের স্বাধীন বিচার বিভাগকে হস্তক্ষেপ এবং অযৌক্তিক চাপ থেকে রক্ষা করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছি।’

এর আগে বৃটিশ মন্ত্রিপরিষদে কোনো মুসলিম নারী ঠাঁই পাননি। তার এই দায়িত্বে এর আগে একজনমাত্র নারী দায়িত্বে এসেছিলেন। তিনি সাবেক প্রধানমন্ত্রী লিজ ট্রাস।

শাবানা মাহমুদের জন্ম ১৯৮০ সালের ১৭ই সেপ্টেম্বর ইংল্যান্ডের বার্মিংহামে। তার পিতা মাহমুদ আহমেদ এবং মাতা জুবাইদা আহমেদ।

শাবানা মাহমুদ যে শুধু যুক্তরাজ্যের প্রথম মুসলিম নারী বিচারমন্ত্রী তাই নয়; তিনি দেশটির ইতিহাসে দ্বিতীয় নারী যিনি ‘লর্ড অব চ্যান্সেলর’ নামক প্রাচীন পদ গ্রহণ করেছেন।

শাবানার জন্ম ইংল্যান্ডের বার্মিংহামে। তবে তিনি পাকিস্তান নিয়ন্ত্রণাধীন আজাদ-কাশ্মীর বংশোদ্ভূত। তার বাবা-মা আজাদ কাশ্মীরের মিরপুর এলাকার বাসিন্দা ছিলেন।

তবে শাবানা মাহমুদের শৈশব কেটেছে সৌদি আরবের তায়েফে। তিনি ইংরেজির পাশাপাশি উর্দু ও মিরপুরি ভাষায় কথা বলতে পারেন।

পূর্ণ মন্ত্রী হওয়ার আগে শাবানা যুক্তরাজ্যের স্বরাষ্ট্র ও অর্থ মন্ত্রণালয়ের ছায়া মন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। তিনি গত দুই বছর ধরে উপনির্বাচনের সময় লেবার পার্টির নির্বাচনি প্রচারণার প্রধান হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন।

২০১৬ সাল থেকে শাবানা লেবার পার্টির জাতীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য ছিলেন। ৪ জুলাইয়ের নির্বাচনের জন্য দলের ইশতেহার তৈরিতেও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছেন তিনি।

অক্সফোর্ড গ্র্যাজুয়েট এই নারী রাজনীতিক ২০১০ সালে প্রথমবারের মতো লেবার পার্টির টিকিটে নির্বাচিত হয়েছিলেন এবং তখন থেকেই জয়ী হয়ে আসছে।

এবারের নির্বাচনে তিনি ১৫ হাজার ৫৫৮ ভোট পেয়ে নিজ আসনে জয়ী হয়েছেন।

;

গাজায় ইসরায়েলি সেনাবাহিনীর হামলায় নিহত ১৫



আন্তর্জাতিক ডেস্ক বার্তা২৪.কম
ছবি : সংগৃহীত

ছবি : সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

ইসরায়েলি বাহিনীর বোমা হামলায় গাজার নুসেইরাত ও খান ইউনিসে কমপক্ষে ১৫ জন নিহত হয়েছেন। এর মধ্যে নুসেইরাতেই নিহত হয়েছেন ১১ জন, যার মধ্যে ৫ জন শিশুও রয়েছে।

আল জাজিরার মঙ্গলবারের (১৬ জুলাই) প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

ওই প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, গাজার নুসেইরাতের একটি বাড়িতে ইসরায়েলি সামরিক বাহিনী বর্বর বোমা হামলা চালায়। এতে পাঁচ শিশুসহ অন্তত ১১ জন নিহত হন।

এর আগে জানানো হয়েছিল, নুসেইরাতের ক্যাম্প-১ এলাকায় বোমা হামলা চালানোর পর একটি বাড়ির ধ্বংসস্তূপ থেকে ছয়টি মরদেহ উদ্ধার করে প্যালেস্টাইন রেডক্রিসেন্ট সোসাইটি।

এদিকে খান ইউনিসের কাছে ইসরায়েলি সামরিক বাহিনীর বোমা হামলায় আরও চারজন নিহত হয়েছেন। দক্ষিণ গাজার খান ইউনিস শহরের পূর্বে আবাসান শহরে একটি বাড়িতে চালানো এ হামলায় আরো তিনজন আহত হন।

অন্যদিকে, গত ২৪ ঘণ্টায় গাজা ভূখণ্ডে ইসরায়েলি বর্বর হামলায় আরও ৮০ ফিলিস্তিনি নিহত হন বলে আল-জাজিরার প্রতিবেদনে বলা হয়েছে।

এতে করে গত বছরের অক্টোবর থেকে এ পর্যন্ত মোট মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৩৮ হাজার ৬৬৪ জনে পৌঁছেছে বলে সোমবার ফিলিস্তিনি স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় জানিয়েছে।

;