কানসাই আওয়ামী লীগ জাপান শাখার বিজয় দিবস উদযাপন



নিউজ ডেস্ক বার্তা২৪.কম
ছবি : সংগৃহীত

ছবি : সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

কানসাই আওয়ামী লীগ জাপান শাখার উদ্যোগে রবিবার (১৭ ডিসেম্বর) ওসাকার ইকুনো কমিনিটি সেন্টারে যথাযোগ্য মর্যাদায় মহান বিজয় দিবস উদযাপিত হয়েছে।

জাপানের কানসাই আওয়ামী লীগের সভাপতি আবু সাহদাত মোহাম্মদ সায়েমের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানের শুরুতে জাতীয় সংগীত পরিবেশন করা হয়। তারপর কোরআন তেলোয়াত এবং গীতা পাঠ করা হয়। কোরআন থেকে তেলোয়াত করেন আবদুল কাইয়ুম শাওন।

কানসাই বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক মো হারুন অর রশিদ অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা এবং পরিচালনা করেছেন। তিনি কোবে, কিয়ুটো, নারা ও ওসাকা প্রিফেকচার থেকে অংশগ্রহনকারী আওয়ামী লীগের সকল নেতা-কর্মীদেরকে ধন্যবাদ জানান। তিনি বঙ্গবন্ধুর আজন্ম লালিত স্বপ্ন সোনার বাংলা গঠনের উপর গুরুত্ব আরোপ করে মহান বিজয় দিবসের তাৎপর্য সকলের মাঝে তুলে ধরেন।

কানসাই বাংলাদেশ স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি মাহফুজুল করিম তার বক্তৃতায় জাতির পিতাকে স্মরণ করেন। স্মরণ করেন মুক্তিযুদ্ধে আত্মোৎসর্গকারী বীর মুক্তিযোদ্ধা ও নির্যাতিতা বীরাঙ্গনাদের অবদানের কথা।

তার বক্তব্যে তিনি আরও বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বলিষ্ঠ নেতৃত্বে বাংলাদেশ এখন উন্নয়নশীল দেশে পরিনত হয়েছে। এক্ষেত্রে প্রবাসীদের অবদান নিঃসন্দেহে প্রসংশনীয়।’

কানসাই বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সভাপতি মোঃ সাকিব হাসান তার বক্তৃতায় বলেন, ‘সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে দীর্ঘ আন্দোলন-সংগ্রামের স্ফুলিঙ্গে উজ্জীবিত সশস্ত্র জনযুদ্ধের মধ্য দিয়ে অর্জিত হয়েছে আমাদের মুক্তির ইতিহাস-স্বাধীনতার ইতিহাস। তিনি তার বক্তব্যে শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করেন ৩০ লক্ষ শহীদদের প্রতি।

কানসাই যুবলীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক সাইফুল আলম তার বক্তৃতায় জাতির জনক ও স্বাধীনতার মহান স্থপতি সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করে অনুষ্ঠানের সভাপতি আবু সাহদাত মোহাম্মদ সায়েমকে ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন সার্বক্ষণিক কঠোর পরিশ্রমের মাধ্যমে দেশ থেকে দূরে জাপানের মাটিতে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের অস্তিত্বকে উজ্জীবিত করে তোলার জন্য।

তিনি আরও বলেন, ১৯৭১ সালে চিরকাঙ্ক্ষিত স্বাধীনতা অর্জনের পুরোধা ছিলেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এবং তারই সুযোগ্য কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে উন্নয়নের অগ্রযাত্রায় একের পর এক মাইলফলক অর্জন করেছে আজকের সোনার বাংলাদেশ। তারপর মধ্যাহ্নভোজের আয়োজন করা হয়।

পরবর্তীতে উপদেষ্টা মন্ডলীর পক্ষ হতে বক্তৃতা দেন জনাব মাসুদুল হাসান করিম। তিনি অত্যন্ত গুরুত্বের সাথে আসন্ন নির্বাচনে সকলকে নিজ নিজ জায়গা থেকে এগিয়ে আশার আহ্বান জানান।

তিনি আরও বলেন, এবারের নির্বাচনে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সুযোগ্য কন্যা শেখ হাসিনাকে জয়যুক্ত করাই আমাদের প্রধান লক্ষ্য। সে লক্ষ্যে আমাদের সকলকে নিজ নিজ জায়গা থেকে এগিয়ে আসতে হবে।

অনুষ্ঠানের সমাপনী বক্তৃতায় কানসাই বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভাপতি আবু সাহাদাত মোহাম্মদ সায়েম সকলকে আন্তরিকভাবে ধন্যবাদ জানান এই বিজয় দিবসে উদযাপন অনুষ্ঠানকে সফল করার জন্য।

তিনি বলেন, ‘সোনার বাংলার উন্নয়নের অগ্রগতি অব্যাহত রাখার জন্য বারবার শেখ হাসিনার সরকার প্রয়োজন। দেশকে কালো হাত থেকে রক্ষা করতে আমাদের সকলকে সচেতন থাকতে হবে নিজের ভেতর দেশপ্রেমকে লালিত করতে হবে।’

এ ছাড়াও আলোচনা সভায় অংশ গ্রহণ এবং বক্তৃতা রাখেন কানসাই স্বেচ্ছাসেবক লীগ, কানসাই যুবলীগ, জাপান ছাত্রলীগ ওসাকা ছাত্রলীগের সদস্য মাহবুব, মাহমুদুল হাসান মেহেদি, মিহরাবুল ইসলাম রামিম, শাহ লালন, পরান শাহ, পারভেজ, সৌরিদ এবং রাকিব প্রমুখ।

   

ব্রুনাইতে হাইকমিশনার সুমনা’র বিদায়ী ঈদ পুনর্মিলনী



স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, সাউথ-ইস্ট এশিয়া (ব্যাংকক, থাইল্যান্ড)
ব্রুনাইতে হাইকমিশনার সুমনা’র বিদায়ী ঈদ পুনর্মিলনী

ব্রুনাইতে হাইকমিশনার সুমনা’র বিদায়ী ঈদ পুনর্মিলনী

  • Font increase
  • Font Decrease

ব্রুনাই দারুসসালামে বিভিন্ন দেশের কূটনৈতিক কর্মকর্তাদের জন্য ঈদ পরবর্তী পুনর্মিলনী বা ওপেন হাউজ আয়োজন করেছে দেশটির বাংলাদেশ হাইকমিশন। গত বৃহস্পতিবারের (এপ্রিল ১১) এই আয়োজনে আরো উপস্থিত ছিলেন, প্রবাসী বাংলাদেশি, ভারতীয় এবং স্থানীয় নাগরিকরা।

ব্রুনাই দারুসসালামে বাংলাদেশের হাইকমিশনার নাহিদা রহমান সুমনা এবং হাইকমিশনের কর্মকর্তারা অতিথিদের স্বাগত জানান।

অনুষ্ঠানে হাইকমিশনার সুমনা তার বক্তব্যে জানান, আয়োজিত ওপেন হাউজটি ব্রুনাইয়ে তার শেষ পুনর্মিলনী অনুষ্ঠান। কারণ তার মেয়াদ শীঘ্রই শেষ হতে চলেছে।

হাইকমিশনার বলেন, ব্রুনাইতে তার বন্ধুদের আন্তরিকতা তাকে মুগ্ধ করেছে। সুলতানাতে তার মেয়াদকালে সকল সহযোগিতা পেয়েছেন এবং ভালোবাসার বন্ধনে আবদ্ধ করেছেন।

তিনি বলেন, ব্রুনাই এবং বাংলাদেশের মধ্যে সাংস্কৃতিক মিলের মধ্যে অন্যতম হচ্ছে এই ঈদ-উল-ফিতরের পরের পুনর্মিলনী বা ওপেন হাউজ। যেখানে সকলের সঙ্গে দেখা হয় এবং ভাবের আদান প্রদান করা যায়।

কাম্পং তাানাহ জাম্বুতে অবস্থিত চ্যান্সারিতে আয়োজিত অনুষ্ঠানে ঐতিহ্যবাহী খাবার ও সঙ্গীত পরিবেশন করা হয়।

;

মালয়েশিয়ায় সড়ক দুর্ঘটনায় ৩ বাংলাদেশি নিহত



নিউজ ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
ছবি: বার্তা ২৪.কম

ছবি: বার্তা ২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

মালয়েশিয়ায় পবিত্র ঈদ উল ফিতরের দিনে সড়ক দুর্ঘটনায় ৩ বাংলাদেশি নিহত হয়েছেন। নিহতরা হলেন আব্দুল্লাহ মোহাম্মদ (৩১), আলি আজগর ও মো. সোহেল মিয়া।

বুধবার (১০ এপ্রিল) ঈদের দিন স্থানীয় সময় দুপুর ১টা ৪৯ মিনিটে দেশটির পেরাক রাজ্যের কাম্পার এলাকায় উত্তর-দক্ষিণ এক্সপ্রেসওয়েতে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

গাড়িতে থাকা ৮ বাংলাদেশির সবাই ক্যামেরন হাইল্যান্ডে একটি ফার্মে কাজ করতেন। এ খবর প্রকাশ করেছে দেশটির জনপ্রিয় অনলাইন সংবাদপত্র বারনামা।

গাড়িচালক কবির হোসেন ( ৩২), সাইফুল ইসলাম ( ২৫), রাজু মিয়া (২৭) সোহেল রানা (৩০ ) অক্ষত অবস্থায় রয়েছেন। তবে মোহাম্মদ সোহেল নামে একজনকে গুরুতর অবস্থায় পার্শ্ববর্তি তাপাহ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

কাম্পার পুলিশের পক্ষ থেকে আরো জানানো হয়, দুপুর ১ টা ৪৯ মিনিটে এ দুর্ঘটনা ঘটে। কুয়ালালামপুর আশার পথে চলন্ত গাড়ির টায়ার ফেটে গেলে চালক নিয়ন্ত্রণ হারান এবং গার্ডরেলে ধাক্কা লেগে গাড়িটি দুমড়ে-মুচড়ে যায়। পরে পেছন থেকে একটি লরি সজোরে ধাক্কা দেয়। ঘটনাস্থলেই তাদের মৃত্যু হয়।

;

আমিরাতে ঈদ আনন্দে শামিল প্রবাসীরা



তোফায়েল আহমেদ পাপ্পু, সংযুক্ত আরব আমিরাত থেকে
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

সংযুক্ত আরব আমিরাতে (ইউএই) উৎসাহ উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে ঈদুল ফিতর উদযাপিত হচ্ছে। নিজেদের মতো করে ঈদ উদযাপন করছেন প্রবাসীরা। উৎসবের আনন্দ সবার সঙ্গে ভাগ করে নেওয়ার চেষ্টা করছেন।

বুধবার (১০ এপ্রিল) আবুধাবিতে সকাল ৬টা ২২ মিনিটে, দুবাইয়ে সকাল ৬টা ২০ মিনিটে, শারজাহ ও আজমানে ৬টা ১৭ মিনিটে, রাস আল খাইমায় সকাল ৬টা ১৫ মিনিটে, ফুজাইরাহ ও খোরফাক্কানে ৬টা ১৪ মিনিটে এবং উম্ম আল কুওয়াইনে সকাল ৬টা ১৩ মিনিটে ঈদগাহ ময়দানে ও মসজিদে ঈদুল ফিতরের জামাত অনুষ্ঠিত হয়।

এছাড়া অন্যান্য অঞ্চলের মধ্যে আল আইনে ৬টা ১৫ মিনিটে ও জায়েদ সিটিতে ৬টা ২৬ মিনিটে ঈদ জামায়াত অনুষ্ঠিত হবে।

তবে ঈদের সবচেয়ে বড় জামাত অনুষ্ঠিত হয়েছে রাজধানী আবুধাবির শেখ জায়েদ মসজিদে। সূর্য ওঠার আগেই বিশাল ঈদগাহ ময়দান কানায় কানায় পরিপূর্ণ হয়ে যায়। সেখানে বেশিরভাগ মুসল্লি বাংলাদেশি, পাকিস্তানি ও ভারতীয়। জামাত শেষে দেশ, জাতি ও বিশ্ব মুসলিম উম্মাহর সুখ, শান্তি ও সমৃদ্ধি কামনা করে বিশেষ মোনাজাত পরিচালনা করা হয়।

ঈদের নামাজ শেষ করে প্রবাসীরা মোবাইল ফোনে দেশের প্রিয়জনের সঙ্গে ঈদ শুভেচ্ছা বিনিময় করেন। বাসায় ফিরে আরব দেশের প্রধান খাদ্য খেজুর, পায়েস, বিরিয়ানি-পোলাও ও বিভিন্ন ধরনের মিষ্টি জাতীয় খাবার খান সবাই। ঈদের আনন্দ উদযাপনে বিভিন্ন দর্শনীয় স্থান ঘুরে বেড়াবেন অনেকেই।

সিলেটের রায়হান আহমেদ রিয়াদ বলেন, দেশের মতো আনন্দটা তেমন নেই বললেই চলে। প্রবাসে ঈদ মানে সকালে ঘুম থেকে উঠে ঈদগাহে নামাজ পড়ে রুমে এসে পরিচিতজনের সাথে কোলাকুলি করে ঘুমানো, পরিবার-পরিজনের সঙ্গে মোবাইলে কথা বলে সময় পার করা।

প্রবাসী কামরান চৌধুরী জানান, প্রবাসে ঈদের দিনে সবচেয়ে বেশি মনে পড়ে দেশে প্রিয়জনদের সঙ্গে কাটানোর ঈদের দিনগুলোর কথা। তারপরও আমরা আমাদের মতো করে ঈদের আনন্দকে নিজেদের মধ্যে ভাগাভাগি করে নেওয়ার চেষ্টা করি।প্রবাসীদের ঈদের দিনগুলোকে অন্যান্য দিনগুলোর সঙ্গে পার্থক্য করা কঠিন। কারণ অনেক প্রবাসীকেই ঈদের দিনও তাদের নির্ধারিত ডিউটি করতে হয়।

ঈদ মানেই আনন্দ। তবে পরিবার-পরিজন, বন্ধু-বান্ধব, শুভাকাঙ্ক্ষীদের নিয়ে ঈদ উদযাপন করলে ঈদের উল্লাস আরও গাঢ় হয়। প্রবাসীদের জীবনে এই উল্লাসের সুযোগ নেই। প্রবাসীদের ঈদ উদযাপন অন্যদের চেয়ে আলাদা। প্রবাসে বাংলাদেশের মতো ঈদের আমেজ পুরোপুরি থাকে না। তবুও সবাই সাধ্যমতো চেষ্টা করেন একে অন্যের সঙ্গে কুশল বিনিময়, কোলাকুলি, খাওয়া-দাওয়া এবং ঘুরে বেড়ানোর মধ্য দিয়ে ঈদের আনন্দ উদযাপন করতে।

;

মালয়েশিয়া আতশবাজি বিক্রির সময় ২ বাংলাদেশি আটক



স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া, ব্যাংকক (থাইল্যান্ড)
মালয়েশিয়া আতশবাজি বিক্রির সময় ২ বাংলাদেশি আটক

মালয়েশিয়া আতশবাজি বিক্রির সময় ২ বাংলাদেশি আটক

  • Font increase
  • Font Decrease

আতশবাজি ও নানা ধরনের বাজি বিক্রির অপরাধে ২ জন বাংলাদেশিসহ মোট ৩ জন বিদেশিকে আটক করেছে মালয়েশিয়ার কেলানতান ইমিগ্রেশন বিভাগ।

রোববার (৭ এপ্রিল) কোতাবারু শহর থেকে তাদেরকে আটক করা হয়।

কেলানতান ইমিগ্রেশনের পরিচালক মোহা. ফয়জাল সামশুদ্দিন বলেন, আটককৃতদের মধ্যে ২ জন বাংলাদেশি পুরুষ এবং একজন থাই নারী। এদের সকলের বয়স ৩০ থেকে ৪০ বছরের মধ্যে।

ইমিগ্রেশন আইন ১৯৬৩ এর ৩৯ (বি) ধারা অনুযায়ী অবৈধ কাজের সঙ্গে যুক্ত থাকায় তাদের আটক করা হয়েছে অপারেশন জাজা’র মাধ্যমে।

সামশুদ্দিন জানান, আটককৃতদের ইতিমধ্যে তানাহ মেরা ইমিগ্রেশন ডিপোতে পাঠানো হয়েছে পরবর্তী ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য। স্থানীয়দের পরামর্শ দেওয়া হয়েছে, তাদের চোখে অবৈধ বিদেশি বা বিদেশিরা অবৈধ কাজে যুক্ত রয়েছে এমন কিছু জানা থাকলে আমাদের তথ্য দিয়ে সহায়তা করার জন্য।

অভিবাসীদের অবৈধ কাজকে আশ্রয় দিলে বা সেই কাজে সহযোগিতা করলে বা তাদের রক্ষা করার চেষ্টা করলে কাউকে ছাড় দেয়া হবে না বলে স্থানীয়দের হুশিয়ার করেন তিনি।

;