কবি আফজাল চৌধুরীর মৃত্যুবার্ষিকীতে লন্ডনে দোয়া মাহফিল



সাঈদ চৌধুরী
কবি আফজাল চৌধুরী

কবি আফজাল চৌধুরী

  • Font increase
  • Font Decrease

বাংলা সাহিত্যের শক্তিমান কবি প্রফেসর ও প্রিন্সিপাল আফজাল চৌধুরীর মৃত্যুবার্ষিকী ছিল ৯ জানুয়ারি। এ উপলক্ষে দেশ-বিদেশে বিভিন্ন সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠন বিশেষ কর্মসূচি পালন করেছে। লন্ডনে সংলাপ সাহিত্য-সংস্কৃতি ফ্রন্টের উদ্যোগে কবির স্মরণে আলোচনা, খতমে কোরআন ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে।

ইস্ট লন্ডনের গ্রীনলেন আদম মসজিদে অনুষ্ঠিত মোনাজাতে অংশ গ্রহণ করেন সংলাপ চেয়ারম্যান ও সময় সম্পাদক সাঈদ চৌধুরী। মোনাজত পরিচালনা করেন মুফতি গোলাম কিবরিয়া । ওলামায়ে কেরাম ও বিশিষ্টজনের মধ্যে অংশগ্রহণ করেন শায়েখ আহমদ নাজির, মাওলানা আব্দুল কুদ্দুস, শাহিন আহমদ, হামিদ হোসেন প্রমুখ। প্রিয় কবির জান্নাতুল ফেরদৌস কামনা করেন উপস্থিত কবি প্রেমিক ও মুসল্লিগণ।

কবি আফজাল চৌধুরী (১৯৪২-২০০৪) তাওহীদবাদী নান্দনিক সাহিত্য রচনা করে এক নবতর ধারার সৃষ্টি করেছেন। বিদ্রোহী কবি কাজী নজরুল ইসলামের কালজয়ী কিছু কবিতা ও ফররুখ আহমদের ইসলামী সাহিত্য সম্ভার এই ধারায় ছিল প্রাণপ্রবাহ। ষাটের দশকে অনিকেত গোষ্ঠির বিপরীতে সুনিকেত বৃত্তির এই নতুন মাত্রা বেগবান হয়।

সেসময় বিশ্বব্যাপী কমিউনিজমের ধ্বজাধারী কায়েমি স্বার্থান্বেষী রাজনৈতিক-লেখক ও পৌত্তলিকতার দ্বারা প্রভাবিত ও অনুপ্রাণিত লেখকগোষ্ঠী অবিভক্ত বাংলার সাহিত্যস্রষ্টা হিসেবে প্রতিষ্ঠিত। তখন রাশিয়ান বলয়ে এবং কলকাতাকে কেন্দ্র করে যারা লেখেন তাদের বিপরীতে ঢাকা কেন্দ্রিক বিশ্বাসী কবিদের চেতনাগত সংঘাত চলছিল। দুটি শক্তির মোকাবেলায় দাঁড়ানো শুধু সাহসের ব্যাপার ছিল না, সাহিত্যে অভাবনীয় দক্ষতা ও পারদর্শিতার পরিচয়ও দিতে হয়েছে। কবি আল মাহমুদ, কবি আফজাল চৌধুরী প্রমুখ এই ধারায় নেতৃত্ব দেন।

কবি আফজাল চৌধুরী শুধু চেতনাগত পার্থক্য নয়, শব্দ প্রয়োগেও ভিন্নতার সৃষ্টি করেন। তিনি আমাদের সাহিত্যে মূর্তিপূজা বা প্রতিমাপূজার আচার ও বিশ্বাস থেকে ফিরিয়ে বাঙালি মুসলিম মধ্যবিত্তের স্বকীয় ভাবনা প্রকাশে সচেষ্ট হন। এটা এতোটাই কঠিন চ্যালেঞ্জ ছিল, তার প্রেরণায় উজ্জীবিত হলেও সাহিত্য চর্চার উপাত্ত সংগ্রহের জন্য নতুন লেখিয়েরা বিশ্বাসের বিপরীত ধারায় বসবাস করতে হত।

তখনকার কবিদের লেখায় গ্রেকো রোমান বহুদেববাদ রুপকভাবে ব্যবহৃত হত। ইউরোপ এবং উত্তর আফ্রিকায় খ্রিস্টান ধর্মের প্রসারের আগে বহু ঈশ্বরবাদী সংস্কৃতির ব্যবহার ছিল। এটি ব্যাপক অর্থে প্রসারিত সমকালীন ধর্মগুলোতে বিশেষত অধিকাংশ পূর্বাঞ্চলীয় ধর্ম এবং আমেরিকা, মধ্য এশিয়া, অস্ট্রেলিয়া ও আফ্রিকার আদিবাসী সমাজেও বিদ্যমান ছিল।

কবি আফজাল চৌধুরী প্রচলিত পৌত্তলিকতা ও নাস্তিক্যবাদের বিপরীতে সংলাপ সাহিত্য-সংস্কৃতি ফ্রন্ট নামে একটি সাহিত্য আন্দোলনের যাত্রা করেন।অল্পদিনের মধ্যে নিজস্ব বিশ্বাসের আলোকে নতুন কমিটমেন্ট নিয়ে একঝাক তরুণকে স্বকীয় ভাবনা প্রকাশে উজ্জীবিত করতে সক্ষম হন।

আমি নিজেও সংলাপের সাথে সম্পৃক্ত ছিলাম। আফজাল চৌধুরী চেয়ারম্যান এবং আমি সেক্রেটারি জেনারেল হিসেবে দীর্ঘদিন কাজ করেছি। সংলাপের সাথে সংশ্লিষ্ট অনেকেই এখন জাতীয় ভাবে প্রতিষ্ঠিত।

কল্যাণব্রতের কবি খ্যাত শিক্ষাবিদ আফজাল চৌধুরী বিচিত্র রচনায় সমৃদ্ধ করে গেছেন বাংলা সাহিত্যের ভান্ডার। শিল্প-সাহিত্যের নানা অঙ্গনে তিনি অসংখ্য কালজয়ী রচনা সৃষ্টি করেছেন। তিনি একজন বিশ্বাসী কবি কন্ঠ। আধুনিক মুসলিম সাহিত্যের এক মহারাজ। বীরদর্পে বাংলা সাহিত্যের সব শাখায় সফল বিচরণ করে তিনি চিরস্মরণীয় হয়ে আছেন।

আফজাল চৌধুরী শুধু আদর্শবাদী শিল্পীই ছিলেন না, তিনি সমাজ সংস্কারকও ছিলেন। তিনি সংস্কার চেয়েছিলেন সাংস্কৃতিক বিপ্লবের মাধ্যমে। তিনি ছিলেন অসীম প্রাণ স্ফূর্তির অধিকারী অদম্য সাহসী মানুষ। পলায়নপরতা ও হতোদ্যম তার স্বভাবে ছিল না। তিনি ছিলেন একক এবং সমষ্টিগতভাবে নিরন্তন গতিশীল।

‘কল্যাণব্রত’ আফজাল চৌধুরীর প্রথম কাব্যগ্রন্থ। ‘বলিও আমার প্রেম ঈশ্বরের ভষ্ম নয় ভূমা/ আলোকিত কোলাহলে সমতল আত্মার সঙ্গীত/ রাশি রাশি পুলকের বিন্দু বিন্দু বোধের অতীত/ অন্য এক বোধ আর স্পন্দমান আলোর উপমা/ আলোক সে নির্ভুলের আন্তরিক বলীয়ান ক্ষমা/ বলিও আমার প্রেম ঈশ্বরের ভষ্ম নয়-ভুমা।’

কবি আফজাল চৌধুরীর কবিতায় অবেগ-অনুভূতি সহজ কথা ও ছন্দে পরিস্ফুটিত। এর উচ্চারণ বলিষ্ঠ এবং প্রত্যয়ী। জীবন-বিশ্বাসের গভীর থেকে উত্থিত।
’মৃত্যুর মোহন নৃত্য বার বার চোখ বুঁজে দেখি,/ পরলোকে ছায়া ফেলে এই কুঞ্জে দাঁড়াই যখনি/ খুলে দাও দাও খুলে রহস্যের নিখিল দরোজা,/ তোমার গৃহস্থ যারা তাদের স্বচ্ছন্দ বিচরণে/ নিভৃত এ কুঞ্জ হোক ওপারের বিমূর্ত আঙিনা/ শিরা উপশিরাগামী রক্তস্রোত নাশ করে স্নায়ু/ এবং গোগ্রাসে গিলে শতাব্দীর মস্ত অজগর’
বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা আব্দুল্লাহ আবু সায়ীদ ‘কল্যাণব্রত’ কাব্যগ্রন্থ প্রকাশের পর ত্রৈমাসিক ‘কন্ঠস্বর’ (কবিতা সংখ্যা-১৯৭০)এ লিখেছেন “আমাদের কাব্যক্ষেত্রে ষাটের অঙ্গন যেসব উদ্যোগী তরুণের আশান্বিত পদপাতে সরব হয়েছিল, আফজাল চৌধুরী তাদের অন্যতম। অন্য লোকের মত আমরাও যারা সেই নতুন কবিতা-চেষ্টার প্রতিটি অনিবার্য ও সজীব প্রবণতাকে উদগ্রীব প্রত্যাশা নিয়ে লক্ষ্য করে চলছিলাম সে সময়, নিশ্চিতভাবে অনুভব করেছিলাম, আফজাল চৌধুরীর অপরাগ হাত এমন কিছু উল্লেখযোগ্য উপহার দেবার প্রতিশ্রুতি দেখাচ্ছে যা সজীব ও প্রাণবন্ত এবং যা আগামী সময়ের আকাঙ্খিত দিনগুলোয় কবিতার স্বচ্ছল প্রয়াসে আমাদের কাব্য-ভাঁড়ারকে সমৃদ্ধ করবে।

আব্দুল্লাহ আবু সায়ীদ আরো বলেন, ‘কল্যাণব্রত’ পাঠের সময় এই কাব্যের যে গুণটি বড় হয়ে পাঠকের চোখে ভাসে তা হলঃ এর স্বকীয়তা। আফজাল চৌধুরীর কন্ঠস্বর আলাদা ও স্বকীয়, স্বাদে ও চরিত্রে গতানুগতিক কবিতা থেকে আলাদা। তার কবিতার ডালে ডালে শব্দের যে অবাক বিস্ময় গুচ্ছ গুচ্ছ হয়ে ফুটে আছে, তা যে কোন পাঠককেই আকর্ষণ করবে।

আফজাল চৌধুরীর প্রাণস্পর্শী প্রজ্ঞাদীপ্ত বক্তৃতা-ভাষণ ছিল সাহিত্য আসরে বিরল বিস্ময়। তার কন্ঠের যাদুকরী উচ্চারণে দর্শক শ্রোতা সম্মোহিত ও আকৃষ্ট হতেন। কবিতার ধ্বনিসঙ্গীতে নিপিড়িত মানুষের কথা তিনি বলতেন। তার বহুমাত্রিক সাহিত্য সম্ভার সমকালীন কবি সাহিত্যিকদের ভাবনায় ফেলে দিয়েছিল। মোকাবেলায় কোন পথ না পেয়ে তাদের পছন্দের কাগজ সমূহে তাকে বর্জনের চেষ্টা করা হয়েছে অত্যন্ত জঘন্যভাবে।

কবিতার পাশাপাশি কাব্যনাট্যেও শক্তিমান এক পুরুষ হিসেবে আফজাল চৌধুরী নিজের লেখনীর প্রমান দিয়েছেন। ‘হে পৃথিবী নিরাময় হও’ কাব্যনাটকে বিষয় ও প্রকরণগত সৃজন শৈলীতে বহু মাত্রিকতার সংযোজন ঘটিয়েছেন তিনি।

বাংলা ভাষার অন্যতম প্রধান কবি আল মাহমুদ এ কাব্যনাট্য সম্পর্কে বলেন, ‘হে পৃথিবী নিরাময় হও’ কাব্যনাট্য এক অসাধারণ নাট্যগুণ আর প্রতিবাদগুণ সম্পন্ন গ্রন্থ। প্রতিবাদ প্রচলিত সমাজের রন্দ্রে রন্দ্রে কলুষ কালিমার বিরুদ্ধে। এই কাব্য নাট্যখানি আমাদের সাহিত্যে এক নতুন দিগন্ত উন্মোচনকারী সফল কাব্যনাট্য।

বিশিষ্ট সাংবাদিক আখতারুল আলম ‘হে পৃথিবী নিরাময় হও’ কাব্যনাট্যকে স্বতন্ত্র এক ধারার সূচনাকারী হিসেবে চিহ্নিত করেন। তিনি বলেন, আমাদের সাহিত্য ক্ষেত্রে নিদারুন হৈ চৈ আর গোলযোগের মধ্যে এই গ্রন্থখানি এক আশ্চর্য ব্যতিক্রম।

কবি আল মুজাহিদী আফজাল চৌধুরীর ‘হে পৃথিবী নিরাময় হও’ কাব্যনাট্য সম্পর্কে আলোকপাত করতে গিয়ে কবিকে এ শতাব্দীর সবচে প্রতিবাদী কবিকন্ঠ হিসেবে আখ্যায়িত করেন।

কবি আফজাল চৌধুরীর ২য় কাব্যগ্রন্থ ‘শ্বেতপত্র’ এবং তৃতীয় কাব্যগ্রন্থ ‘সামগীত দুঃসময়ের’ প্রতিটি কবিতা পুষ্প সৌরভে পাঠককে মুহিত করে। তারপর ’শবমেহেরের ছুটি’, ’নয়া পৃথিবীর জন্য’, ’বিশ্বাসের দিওয়ান’, ’এই ঢাকা এই জাহাঙ্গীরনগর’ প্রভৃতি কাব্যগ্রন্থে নতুন রুপ ও গ্রাণ ছড়িয়ে পড়ে। তার সনেট এবং আত্মজৈবনিক কবিতা আমাদের সাহিত্যে এক ভিন্ন মাত্রার সংযোজন।

কবি আফজাল চৌধুরী কবিতা, কাব্যনাট্য এবং প্রবন্ধের পাশাপাশি চমৎকার নাটকও লিখেছেন। হযরত শাহজালাল (র) এর সিলেট আগমনের পটভূমিতে লেখা তার নাটক ‘সিলেট বিজয়’। একটি অত্যন্ত মঞ্চ সফল নাটক। তুমুল আলোড়ন সৃষ্টি করতে সক্ষম হয়েছিল ব্যতিক্রমী এই নাটক।

বার্নাবাসের বাইবেল অনুবাদ আফজাল চৌধুরীর এক অনবদ্য সৃষ্টি। ব্যাপকভাবে পাঠক সমাদৃত এই গ্রন্থ বাংলা ভাষী প্রতিটি শিক্ষিত মানুষ স্মরণে রাখতে বাধ্য। অনুবাদে তার বিশেষ দক্ষতা ও শক্তিমত্তার প্রামাণ্য দলিল এটি।

সম্পাদনার ক্ষেত্রেও উজ্জল স্বাক্ষর রেখেছেন কবি আফজাল চৌধুরী। আফগানিস্তানের অতীত বর্তমান এবং ভবিষ্যতের আবর্তকে ধারণ করে সুবিশাল গ্রন্থ ‘আফগানিস্তান আমার ভালবাসা’ তিনি ও কবি আল মাহমুদ যৌথ সম্পাদনা করেন।

‘ঐতিহ্য’ নামে ইসলামিক ফাউন্ডেশন থেকে একটি সাহিত্য ত্রৈমাসিক সম্পাদনাও তার আরেক উজ্জ্বল সুকৃতি। সত্য প্রকাশে, অন্যায়ের প্রতিবাদে, জুলুমের বিরুদ্ধে আফজাল চৌধুরী ছিলেন সোচ্চার ও বজ্রকন্ঠ। সমাজনীতি ও রাজনীতির কাব্য মঞ্চেও ছিলেন বীরের ভূমিকায়। মানবাধিকার প্রতিষ্ঠার মিছিলে তার কলম ছিলো ক্ষুরধার ও তেজোদ্বীপ্ত।

’মানুষই সম্পূর্ণ দ্বীপমাত্র নয়/ প্রতিটি মানুষের সম্পূর্ণের অংশ মাত্র।/ মৃত্যু আমাকে খর্ব করে/ কারণ আমি জড়িত মানবতার সঙ্গে,/ সুতরাং নিজেকে জিজ্ঞেস করোনা, কার জন্যে/ মৃত্যু ঘন্টা বাজে, জেনো, সে তোমার জন্যে,/ সে তোমার জন্যে।’

’কি-রূপ নি:সঙ্গ আজ মনে হয় নিজেকে এ পার্থিব প্রবাসে/ চারপাশে এতো ভীড়, ক্রস্ত-চাপ, বিরতিবিহীন কর্মযোগে/ কোথায় আমার নিজ স্থায়ী কক্ষ, কোথায় সে অন্তিম শয়ান?/ কি আমার পরিণতি, বিজয়ী না শহীদের রক্তাপ্লুত লাশে/ যাত্রাশেষ? জানি না তা। বুঝি না এ ভঙ্গুর দেহটি চিররোগে/ ক্ষয়ে যাবে, নাকি হবে জনারণ্যে সমাদৃত নন্দিত প্রয়াণ?/

কি হবে, কি হবে ওহে, বলে দাও কোন যোগাযোগ/ আমার শুরু ও শেষ, কোথায় কোথায় মুক্তি, কোন বিনিয়োগে?/ হে সত্য, তোমার রূপ এখনও প্রচ্ছন্ন এই জীবন বিন্যাসে/ হে জীবন, পারিনি তো তোমার দারুণ ক্ষতে যথাযোগ্য ত্রাণ/ স্নেহে বিছিয়ে দিতে। সূর্যোদয় লক্ষ্য বটে এই সন্ধ্যাকাশে।/ এখনও প্রান্তিক দূর্গে যুদ্ধ চলছে; কুরবান হয়েছে এই জান/ এইটুকু বলতে পানি-জীবন ব্যয়িত নয় কেবল সম্ভোগে/ কেবল কৈবল্য যপে অঙ্ক কষাকষি নয় যোগে ও বিয়োগে।’
আফজাল চৌধুরী ১০ মার্চ ১৯৪২ সালে হবিগঞ্জের খাগাউড়া গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন এবং ২০০৪ সালের ৯ জানুয়ারি ইন্তেকাল করেন। তিন ভাইয়ের মধ্যে তিনি সর্বকনিষ্ঠ। বড় ভাই প্রখ্যাত রাজনীতিবিদ, মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক, প্রাক্তন এমএনএ ও সংসদ সদস্য মরহুম এ কে লতিফুর রহমান চৌধুরী (কমান্ড্যান্ট মানিক চৌধুরী) এবং মেঝো ভাই বীর মুক্তিযোদ্ধা ভাষা সৈনিক ও রাজনীতিবিদ মরহুম আলতাফুর রহমান চৌধুরী (ইয়াকুত চৌধুরী)।

কবি আফজাল চৌধুরী হবিগঞ্জ সরকারী উচ্চ বিদ্যালয় থেকে মেট্রিকুলেশন (১৯৫৯), হবিগঞ্জ বৃন্দাবন কলেজ থেকে উচ্চ মাধ্যমিক (১৯৬১), ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বাংলায় বিএ (অনার্স) (১৯৬৪) ও এমএ (১৯৬৫) সম্পন্ন করেন।

১৯৬৯ সালে সাধারণ শিক্ষা ক্যাডারের সদস্য হিসেবে তার কর্ম জীবনের শুরু হয়। প্রথম কর্মস্থল ছিল রাজশাহী সরকারী ইন্টারমেডিয়েট কলেজ (১৯৬৯ -’৭০)। পরবর্তীতে সিলেট সরকারী এমসি ইন্টারমেডিয়েট কলেজ (১৯৭০-’৭২), চট্রগ্রাম সরকারী ইন্টারমেডিয়েট কলেজ (১৯৭২-৭৩), সিলেট সরকারী কলেজ (বর্তমান সরকারী এমসি বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ, ১৯৭৫ -৮০ ও ১৯৯০-৯৫) এবং সিলেট সরকারী মহিলা কলেজে (১৯৮৯-৯০) অধ্যাপনা করেন। হবিগঞ্জ সরকারী বৃন্দাবন কলেজের প্রিন্সিপাল ছিলেন ১৯৯৬-৯৯ পর্যন্ত। এ পদে কর্মরত থাকাবস্থায় ১৯৯৯ সালের ৯ মার্চ সরকারী চাকরি থেকে অবসর গ্রহণ করেন।

হবিগঞ্জ সরকারী বৃন্দাবন কলেজের প্রিন্সিপাল থাকাবস্থায় এ কলেজের উন্নয়নে তিনি প্রভুত অবদান রাখেন এবং ৭টি বিষয়ে অনার্স কোর্স চালু করেন।
মাঝখানে ১৯৮০ থেকে ১৯৮৪ সাল পর্যন্ত তিনি প্রেষণে ইসলামিক ফাউন্ডেশন বাংলাদেশ এর ইসলামী সাংস্কৃতিক কেন্দ্র সিলেট ও ঢাকার যথাক্রমে ’উপ-পরিচালক’ (১৯৮০-৮১) ও ’পরিচালক’ (১৯৮২-৮৪) এবং ১৯৮৫ থেকে ১৯৮৯ সাল পর্যন্ত মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ড, ঢাকার ’স্কুলসমূহের পরিদর্শক’ ছিলেন।

তিনি ছিলেন ইসলামী সাংস্কৃতিক কেন্দ্র সিলেটের প্রতিষ্ঠাতা ’উপ-পরিচালক’ । ইসলামী সাংস্কৃতিক কেন্দ্র ঢাকার ’পরিচালক’ থাকাকালে সাহিত্য পত্রিকা ’ঐতিহ্য’ এর প্রকাশ ও সম্পাদনা, সেমিনার, আলোচনা সভা প্রভৃতির মাধ্যমে দেশের বরেণ্য কবি , সাহিত্যিক, সাংবাদিক সহ বুদ্ধিজীবিদের উপস্থিতিতে সাংস্কৃতিক ক্ষেত্রে নবজাগৃতির সৃষ্টি করেন।

১৯৮৩ সালে ঢাকায় অনুষ্ঠিত ওআইসি’র পররাষ্ট্রমন্ত্রী সম্মেলন উপলক্ষে ’আফগানিস্তান আমরা ভালবাসি’ সংকলন গ্রন্থের প্রকাশ প্রভৃতি ছিল তার অসাধারণ সাংগঠনিক দক্ষতার পরিচায়ক।

গ্রন্থপঞ্জি : কবি আফজাল চৌধুরীর প্রকাশিত গ্রন্থের সংখ্যা ১৫টি। এরমধ্যে কাব্যগ্রন্থ ৮টি, কাব্যনাটক ১টি, নাটক ১টি, প্রবন্ধ গ্রন্থ ৪টি ও অনুবাদ গ্রন্থ ১টি। তার অপ্রকাশিত গ্রন্থের সংখ্যা ১৬টির ও অধিক। রচনাসমগ্র প্রকাশিত হলে তা দেড় হাজার পৃষ্ঠা ছাড়িয়ে যাবে।

প্রকাশিত গ্রন্থ : কাব্যগ্রন্থ : কল্যাণ ব্রত (১৯৬৯, দ্বি. সং. ২০০৮), শ্বেতপত্র (১৯৮৩), সামগীত দু:সময়ের (১৯৯১), শবমেহেরের ছুটি (২০০৫), নয়া পৃথিবীর জন্য (২০০৬), বিশ্বাসের দিওয়ান (২০০৭), বন্দী আরাকান ও অন্যান্য কবিতা (২০১৮), এই ঢাকা এই জাহাঙ্গীরনগর (২০১১)। কাব্যনাটক : হে পৃথিবী নিরাময় হও (১৯৭৯)। নাটক : সিলেট বিজয় (২০০৫)। প্রবন্ধ গ্রন্থ : ঐতিহ্যচিন্তা ও রসুল প্রশস্তি (১৯৭৯, ৪র্থ সং. ২০০৪), সিলেটে সূফী সাধনা ও অন্যান্য প্রসঙ্গ (২০০৮), তাঁর কাব্যালোকে সৈয়দ আলী আহসান (২০১২), মক্কার পথ (২০১৬) । অনুবাদ গ্রন্থ : বার্নাবাসের বাইবেল (১৯৯৬, দ্বি. সং. ২০০৫)।

অপ্রকাশিত রচনা : কবিতা : খোশাহাল খান খটকের জন্য পঙক্তিমালা, অন্য গোলার্ধে হৃদয়, শাশ্বতের পক্ষে কবিতা, ঐতিহাসিক মর্সিয়া ও অন্যান্য কবিতা, অনুবাদ কবিতা : জালালুদ্দীন রুমির কবিতা (২০১৪), আলী শরীয়তীর কবিতা, কাব্যনাটক : বাঁশী, গীতিনকশা : সবুজ গম্বুজে ঢাকা ফুল, নাটক : ক্ষুধিত ক্যাম্পাস, প্রবন্ধ গ্রন্থ : কবিতার সংসারে জটিলতা, প্রতিশ্রুত কথকতা, সমকালীন সাহিত্যের ধারা, নান্দনিক ভুবন, মুহম্মদ আসাদের মহাজীবন প্রভৃতি।
কবি আফজাল চৌধুরী ২০০১ সালে সিলেট বিভাগের মর্যাদাপূর্ণ পুরস্কার ’রাগীব-রাবেয়া সাহিত্য পুরস্কার’ এবং ২০০৪ সালে মরণোত্তর ’কিশোর কন্ঠ সাহিত্য পুরস্কার’ লাভ করেন।

কবি আল মাহমুদের ভাষায় বলতে পারি, কবি আফজাল চৌধুরী বাংলা সাহিত্যে এবং কাব্যলোকে অনন্য নকীবের ভূমিকায় সরব ছিলেন। যতদিন বেঁচে ছিলেন এক অসাধারণ মেধা, প্রজ্ঞা ও প্রতিভায় নিজেকে রেখেছেন বিপুল ভাবে সক্রিয়। তার কবিতা বাংলা সাহিত্যে অমূল্য সম্পদ।

কবির একান্ত সান্নিধ্যে থাকা কবি ও সমালোচক মুকুল চৌধুরী তার জীবন ও কর্ম নিয়ে গবেষণা মূলক গ্রন্থ রচনা করেছেন। তিনি আফজাল চৌধুরীর অপ্রকাশিত মহামূল্যবান লেখাসমূহ প্রকাশের প্রয়াস অব্যাহত রেখেছেন কবি আফজাল চৌধুরী ফাউন্ডেশনের মাধ্যমে।

লেখক: লন্ডন প্রবাসী। সাংবাদিক, কবি ও কথাসাহিত্যিক।

   

আমিরাতে মায়ের ভাষার প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে ব্যতিক্রমী অনুষ্ঠান



তোফায়েল আহমেদ (পাপ্পু), সংযুক্ত আরব আমিরাত
ছবি: বার্তা ২৪.কম

ছবি: বার্তা ২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

মায়ের ভাষার প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে সংযুক্ত আরব আমিরাতে 'মায়ের ভাষায় কথা বলি’ অনুষ্ঠিত হয়েছে। আঞ্চলিক ভাষাতে কথা বলা মানেই সংকীর্ণতা নয়, অনাধুনিকতা নয় বরং আঞ্চলিক ভাষার মধ্যেই লুকিয়ে থাকে মানুষের আত্মপরিচয়।

বাংলাদেশ প্রেসক্লাব ইউএই'র আয়োজনে রোববার (২৫ ফেব্রুয়ারি) রাতে দেশটির শারজায় এই অনুষ্ঠানে দেশের বিলুপ্তপ্রায় আঞ্চলিক ভাষা তুলে ধরা ও বহির্বিশ্বে ভিনদেশি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে বাংলা পাঠদানকারী বাংলাদেশি শিক্ষকদের সম্মাননা দেওয়া হয়।

এই আয়োজনে ১০ জন বাংলাদেশি শিক্ষককে সম্মানিত করা হয়েছে। তারা দেশটিতে সর্বনিম্ন ৫ থেকে সর্বোচ্চ ৩৬ বছর পর্যন্ত বাংলাদেশ শিক্ষা বোর্ড ও সিবিএসই বোর্ডের অধীনস্থ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে বাংলা বিষয়ে পাঠদান করে আসছেন। অনুষ্ঠানে শিক্ষকদের হাতে সম্মাননা তুলে দেন অতিথিরা। 

সম্মাননা প্রাপ্তরা হলেন- অধ্যাপক নুরুন নাহার হুদা, রহিমা ইসলাম, সুমনা দাস, অধ্যাপক এস এম আবু তাহের, আবু তাহের মোহাম্মদ শাহনেওয়াজ, নাসরীন সুলতানা, শেখ কানিজ-এ-ফেরদৌস,  রহিমা সেলিনা সিদ্দিকী, স্নিগ্ধা সরকার তিথী ও জুইঁয়েনা আক্তার। 

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন দুবাইয়ের বাংলাদেশ কনস্যুলেটের কনসাল জেনারেল বিএম জামাল হোসেন। প্রেসক্লাবের সভাপতি শিবলী আল সাদিকের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক কামরুল হাসান জনির সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন পরিবেশ বিজ্ঞানী রেজা খান, বাংলাদেশ কনস্যুলেটের প্রথম সচিব (প্রেস) আরিফুর রহমান, শারজা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ড. আহমেদ হোসাইন ও বাংলাদেশ সমিতি দুবাইয়ের  সিনিয়র সহ-সভাপতি ইয়াকুব সুনিক, বাংলাদেশ সমিতি শারজার সহ-সভাপতি মোহাম্মদ শাহাদাত হোসেন প্রমুখ।

এ সময় শারজাহ বিশ্ববিদ্যালয়, বাংলাদেশ শিক্ষা বোর্ড ও সিবিএসই বোর্ডের অধীন ১১টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক এবং বাংলাদেশ প্রেসক্লাবের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

আমিরাতে ৩০ বছর বাংলা বিষয়ে শিক্ষকতা শেষে অবসর যাওয়া অধ্যাপক নুরুন নাহার হুদা এই সম্মাননা পেয়ে বলেন, ‘সংযুক্ত আরব আমিরাতে নতুন এক দৃষ্টান্ত সৃষ্টি হলো। এই প্রথম শিক্ষকরা একই মঞ্চে দাঁড়ানোর সুযোগ হলো। এর আগে কোন সামাজিক, রাজনৈতিক বা সেবামূলক সংগঠন বাংলাদেশি শিক্ষকদের আলাদাভাবে সম্মান জানায়নি। এই ভালোবাসা আমাদের কাছে অনেক মূল্যবান।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে জেনারেল বিএম জামাল হোসেন বলেন, ‘মাতৃভাষার জন্য জীবন উৎসর্গ করা জাতির কাছে ভাষা গুরুত্বপূর্ণ হওয়াটাই স্বাভাবিক। আর এই ভাষা দূরপরবাসে বেড়ে ওঠা শিক্ষার্থীদের কাছে যারা পৌঁছে দিচ্ছেন তাদের সম্মান জানিয়ে বাংলাদেশ প্রেসক্লাব একটি মহৎ কাজ করেছে৷ তা ছাড়া আঞ্চলিক ভাষায় যে বৈচিত্র্য তারা তুলে ধরেছে এটিও প্রশংসনীয় কাজ।’

এর আগে অনুষ্ঠানে বাংলা ভাষা চর্চায় উৎসাহিত করতে ও আঞ্চলিক ভাষার মর্যাদা রক্ষায় বিশেষ পর্ব পরিচালনা করা হয়। যেখানে দেশের আটটি বিভাগের আঞ্চলিক ভাষাসহ প্রায় বিলুপ্ত উপভাষায় নিজ অঞ্চলের ভাষার বৈচিত্র্য ও আর্থ-সামাজিক প্রেক্ষাপট তুলে ধরেন প্রবাসীরা। এতে ঢাকার কুট্টি ভাষায় রেজা খান, চাটগাঁইয়া ভাষায় মোস্তফা মাহমুদ, সিলেটি ভাষায় হাজী শফিকুল ইসলাম, রংপুরী ভাষায় স্নিগ্ধা সরকার তিথী, মোমেনশিঙ্গা ভাষায় উত্তম কুমার সরকার, বরিশাইল্যা ভাষায় সাথী আক্তার প্রিয়া, খুলনাইয়া ভাষায় শাহীদ ইসলাম, বরেন্দ্রী উপভাষায় সানজিদা আঞ্জুম শিমুল ও নোয়াখালীর আঞ্চলিক ভাষায় কামাল হোসাইন সুমন নিজের অঞ্চলকে তুলে ধরেন। 

এ ছাড়া অনুষ্ঠানে কবিতা আবৃত্তি করেন কবি জামাল হোসেন, আবিদা হোসেন, শিবলী আল সাদিক, এস এম শাফায়েত, রাহবার আবদুল্লাহ শিবলী, রুহিন হোসেন ও সাকিয়া সিদ্দিকা জেরিন।

;

আমিরাতে ‘প্রবাসের ছিন্নপত্র’ বইয়ের প্রকাশনা উৎসব



তোফায়েল পাপ্পু, সংযুক্ত আরব আমিরাত (দুবাই) থেকে
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

সংযুক্ত আরব আমিরাতে ৫২ জন প্রবাসীর লেখা ‘প্রবাসের ছিন্নপত্র’ বইয়ের প্রকাশনা উৎসব অনুষ্ঠিত হয়েছে।

শুক্রবার (২৩ ফেব্রুয়ারি) দুবাইয়ে প্রকাশনা উৎসবে প্রধান অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ কনস্যুলেট দুবাই ও উত্তর আমিরাতের কনসাল জেনারেল বিএম জামাল হোসেন, বিশেষ অতিথি ছিলেন কনস্যুলেট লেডিস গ্রুপের সভাপতি আবিদা হোসেন।

এসময় বক্তারা অভিমত প্রকাশ করে বলেন, প্রবাসের মাটিতে একসঙ্গে এতো সংখ্যক লেখককে একসঙ্গে করতে পেরেছে একটি বই। চিঠির সংকল ‘প্রবাসের ছিন্নপত্র’র মাধ্যমে অর্ধশতাধিক প্রবাসীর লেখা প্রকাশ করায় বই পড়ুয়াদের সংগঠন আরবান রিডার্স কর্তৃপক্ষকেও ধন্যবাদ জানান বক্তারা৷


আরবান রিডার্সের মুখপাত্র নওশের আলী বলেন, আরবান রিডার্স কোনো সংগঠন বা প্রতিষ্ঠান নয় কেবল একটি উদ্যোগের নাম৷ আমরা 'দীর্ঘ কয়েকবছর ধরে প্রবাসীদের বই পড়ার পাশাপাশি লেখালেখিতে উৎসাহ দিয়ে আসছি। দুবাইয়ের প্রথম ও দ্বিতীয় বাংলাদেশ বইমেলায় আরবান রিডার্স সক্রিয় অংশগ্রহণ করে একাধিক বই প্রকাশ করে। তারই ধারাবাহিকতায় এবার অমর একুশে বইমেলায় ‘‘প্রবাসে ছিন্নপত্র’’ প্রকাশের উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়।’

চিঠির সংকলন ‘প্রবাসের ছিন্নপত্র’ কামরুল হাসান জনির সম্পাদনায় প্রকাশ হয়েছে সাহিত্যদেশ প্রকাশনী থেকে। বইটিতে প্রবাসীদের মধ্যে ৫২ জন লেখক অংশগ্রহণ করেছেন। এরমধ্যে নারী ১২ জন, পুরুষ ৪০ জন। ঢাকার অমর একুশে বই মেলায় সাহিত্যদেশ ৩৪০-৩৪১ স্টলে বইটি পাওয়া যাচ্ছে।

;

দুবাইয়ে ভাষা শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন



দুবাই করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, দুবাই (সংযুক্ত আরব আমিরাত)
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

যথাযোগ্য মর্যাদায় শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে সংযুক্ত আরব আমিরাতের বাণিজ্যিক শহর দুবাইয়ে ভাষা শহীদদের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা নিবেদন করা হয়েছে।

একুশের প্রথম প্রহরে বাংলাদেশ কনস্যুলেট দুবাই’র প্রাঙ্গণে আমিরাতের স্থানীয় সময় রাত ১২টা ১ মিনিটে অস্থায়ী শহীদ মিনারে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন দুবাই ও উত্তর আমিরাতের কনস্যুল জেনারেল বিএম জামাল হোসেন। এ সময় কনস্যুলেটের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। এরপর একে একে বাংলাদেশ কনস্যুলেট লেডিস গ্রুপ, বাংলাদেশ উইমেন এসোসিয়েশন, দুবাইয়স্থ বাংলাদেশ জনতা ব্যাংক, বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স, বঙ্গবন্ধু পরিষদসহ দুবাই ও উত্তর আমিরাতের ৬টি প্রদেশের ৫০টির অধিক সমাজিক-সাংস্কৃতিক ও রাজনৈতিক সংগঠন শহীদ মিনারে পুষ্পস্তবক অর্পণ করে।

বাংলাদেশ কনস্যুলেট দুবাই ও উত্তর আমিরাতের কনসাল জেনারেল বিএম জামাল হোসেন জানান, একুশের চেতনা বিশ্বময় ছড়িয়ে পড়ুক এটিই আমাদের প্রত্যাশা। ২১শে ফেব্রুয়ারি বাঙালি জাতির জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ন দিন। একুশের চেতনার সিঁড়ি বেয়ে ১৯৭১-এ উপনীত হয়েছি এবং পৃথিবীর ইতিহাসে বাংলাদেশ নামে একটি স্বাধীন সার্বভৌম দেশ আমরা পেয়েছি।

এদিকে ২১শে ফেব্রুয়ারি সকাল ৮টায় কনস্যুলেটের কর্মকর্তা-কর্মচারীর উপস্থিতিতে জাতীয় পতাকা অর্ধনমিত করেন বাংলাদেশ কনস্যুলেট দুবাই ও উত্তর আমিরাতের কনসাল জেনারেল বিএম জামাল হোসেন। দিনটি উপলক্ষে কনস্যুলেট জেনারেলে অফিসে আলোচনাসহ নানা কর্মসূচির আয়োজন করা হয়েছে।

;

দালাল ছাড়াই বিদেশ; 'আমি প্রবাসী'র সুফল পাচ্ছে বিদেশ গমনেচ্ছুরা



নিউজ ডেস্ক, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
দালাল ছাড়াই বিদেশ; 'আমি প্রবাসী'র সুফল পাচ্ছে বিদেশ গমনেচ্ছুরা

দালাল ছাড়াই বিদেশ; 'আমি প্রবাসী'র সুফল পাচ্ছে বিদেশ গমনেচ্ছুরা

  • Font increase
  • Font Decrease

 

বিদেশগামীদের ভোগান্তির কথা সবার জানা। অসহনীয় এই ভোগান্তি কমিয়ে আনতে পুরো প্রক্রিয়া ডিজিটালাইজেশনে কাজ করে যাচ্ছে প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয় এবং জনশক্তি কর্মসংস্থান ও প্রশিক্ষণ ব্যুরো (বিএমইটি)। ২০২১ সালের শেষের দিকে বিদেশগামীদের সেবা দিতে তৈরি করা হয় আমি প্রবাসী নামের একটি অ্যাপ। এটি ব্যবহার করে সহজেই যে কেউ বিদেশে কর্মসংস্থান খুঁজে বের করাসহ বিদেশ যাওয়ার পুরো প্রক্রিয়া ঘরে বসে সম্পন্ন করতে পারছেন। স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মাণে বিদেশ গমনেচ্ছুদের সেবা ডিজিটালাইজড করার মাধ্যমে অভিবাসন খাত এখন পরিণত হচ্ছে স্মার্ট সেক্টরে।

মাত্র তিন বছরেই দেশের সবচেয়ে বেশি ব্যবহারকারী অ্যাপের কাতারে জায়গা করে নিয়েছে আমি প্রবাসী। এরই মধ্যে অ্যাপটি ব্যবহার করছেন ৫২ লাখেরও বেশি মানুষ। এ সংখ্যা দিন দিন বেড়েই চলেছে। এই অ্যাপ ও ওয়েবসাইটের মাধ্যমে আবেদন করে ঘরে বসেই এখন বিএমইটির ডাটাবেজে রেজিট্রেশন করা সম্ভব হচ্ছে। আর এখন পর্যন্ত এই সেবা নিয়েছেন ২৮ লাখেরও বেশি বিদেশ গমনেচ্ছু ব্যক্তি। আগে ম্যানুয়াল পদ্ধতিতে এই সেবা নিতে যে কোনো জনশক্তি কার্যালয়ে গিয়ে দীর্ঘ লাইনে ঘণ্টার পর ঘণ্টা দাঁড়িয়ে থাকতে হতো। এখন আমি প্রবাসী অ্যাপটি ব্যবহার করে ঘরে বসেই সেবা নিচ্ছেন বিদেশগমনেচ্ছুরা।

এ প্রসঙ্গে দুবাই ফেরত প্রবাসী মুরাদ হাসান বলছিলেন তার অভিজ্ঞতার কথা। তিনি বলেন, ‘প্রথমবার বিদেশ যাইতে অনেক কষ্ট করতে হইছে। এজেন্টের মাধ্যমে বিদেশ যাওয়ার সব প্রক্রিয়া সম্পন্ন করলেও রেজিস্ট্রেশন, ট্রেইনিংয়ের সিডিউল নেওয়া, সার্টিফিকেট উত্তোলন, স্মার্ট কার্ডসহ বিদেশ যাওয়ার প্রত্যেকটা ধাপ এবং প্রক্রিয়া ম্যানুয়াল থাকায় অনেক ঝামেলা পোহাতে হতো। ভোগান্তি হতো অনেক। ব্যয় হতো অতিরিক্ত অর্থও। তবে এখন এসব প্রক্রিয়া ডিজিটাল হওয়ায় ভোগান্তি কমেছে।’

করোনা মহামারিতে সারা বিশ্বের অর্থনীতি যখন স্থবির হয়ে পড়ে। বিশ্বের সঙ্গে বাংলাদেশের অর্থনীতিও থমকে যায়। আর এই সময় ভরসা হয়ে উঠে প্রবাসী আয় বা রেমিট্যান্স। এমতাবস্থায় প্রবাসী আয় বাড়াতে তৎপর হয় সরকার। বিদেশ গমনেচ্ছুদের অগ্রাধিকার ভিত্তিতে এবং সুশৃংখলভাবে করোনার টিকা পেতে অগ্রণী ভূমিকা পালন করে আমি প্রবাসী অ্যাপ।

প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয় বিদেশগামীদের জন্য অগ্রাধিকার ভিত্তিতে টিকা চালু করার সিদ্ধান্ত নেয়। মন্ত্রণালয় নিবন্ধিত কর্মীদের বিএমইটি নম্বর করোনা টিকার জন্য সুরক্ষা অ্যাপে পাঠিয়ে কর্মীদের অগ্রাধিকারভিত্তিতে করোনার টিকা দেওয়ার প্রস্তাব করা হয়। পরে পরিস্থিতির গুরুত্ব অনুধাবন সরকার অ্যাপটি ব্যবহারের অনুমতি দেয়। এরপর আমি প্রবাসী অ্যাপ ব্যবহার করে ১৭ লাখেরও বেশি বিদেশগামী করোনা টিকার রেজিস্ট্রেশন করেন। এর ফলে কোনো রকম ভোগান্তি ছাড়াই বিদেশগামীরা সেবা গ্রহণ করেন।

করোনা পরবর্তী সময়ে বিএমইটির ডিজিটাল সার্ভিস প্রোভাইডার হিসেবে বিদেশগমনেচ্ছুদের হয়রানি ও ভোগান্তি কমাতে বিদেশ যাত্রার সব সরকারি প্রক্রিয়াগুলো ডিজিটালাইজেশনের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। এরই অংশ হিসেবে আমি প্রাবাসী প্রাথমিকভাবে বিএমইটি রেজিস্ট্রেশন, প্রিডিপার্চার ওরিয়েন্টেশন (পিডিও), ট্রেনিং এবং বিএমইটি QR Code সম্বলিত স্মার্ট কার্ডসহ চারটি সেবা ডিজিটালাইজেশনের মধ্য দিয়ে অভিবাসনের ডিজাটালাইজেশন শুরু করে অ্যাপটি। বিএমইটির তথ্যমতে, এ পর্যন্ত ২০ লাখের বেশি পিডিও অন্তভূক্তি হয়েছে এই অ্যাপের মাধ্যমে।

অভিবাসন বিশ্লেষকদের মতে, আগে ম্যানুয়াল পদ্ধতিতে পিডিওতে অংশ নেওয়ার জন্যও নানা ভোগান্তিতে পড়তে হতো। এই সেবাটি নিতে বিদেশগমনেচ্ছুদের একদিন পিডিও শিডিউল চেক করতে আসতে হতো, আরেক দিন ভর্তি, তারপর কোর্সে অংশগ্রহণ এবং সর্বশেষ সার্টিফিকেট উত্তোলন। এসব প্রক্রিয়াতেই শুধু নষ্ট হতো পাঁচ কর্মদিবস। সেইসঙ্গে অতিরিক্তি অর্থও। আর এখন পিডিওর ডিজিটালাইজেশনের ফলে অনলাইনেই সেবাগ্রহীতা শিডিউল দেখে অনলাইনে পেমেন্ট করে সরাসরি পিডিও সেশনে ভর্তি হতে পারছেন। আবার কোর্স শেষে সার্টিফিকেটও মিলছে অনলাইনেই। এর ফলে বিদেশ গমনেচ্ছুরা এখন যেমন সময় ও ভোগান্তি থেকে বাঁচছেন, তেমনি বাচঁছেন অতিরিক্ত অর্থের অপচয় থেকেও।

কর্মকর্তাদের ফাইল জট কমাতে ও রিক্রুটিং এজেন্সিদের সেবাগুলোও নিরবিচ্ছিন্ন করতে বিদেশগমনেচ্ছুদের পাশাপাশি ডিজিটালাইজেশনের আওতায় আনা হয়েছে রিক্রুটিং এজেন্সিদের সার্ভিসগুলোও। শুরুতে এজেন্সিগুলোর ডিজিটালাইজেশনে কিছুটা অনীহা থাকলেও সময়ের ব্যবধানে প্রায় দুই হাজারেরও বেশি রিক্রুটিং এজেন্সি যুক্ত হয়েছে আমি প্রবাসীর স্মার্ট সার্ভিস সিস্টেমে। অ্যাপে গিয়ে যাবতীয় কাগজপত্রাদিসহ একজন বিদেশগামীকে অনলাইন ক্লিয়ারেন্সের জন্য আবেদন করতে হয়। এরপর কর্তৃপক্ষের অনুমোদনের সঙ্গে সঙ্গেই অভিবাসন প্রত্যাশীরা তাদের মোবাইলে স্মার্ট কার্ডটি পিডিএফ আকারে ডাউনলোড করতে পারবেন অথবা প্রিন্টও করতে পারবেন। সেইসঙ্গে কিউআর কোডের মাধ্যমে স্মার্ট কার্ডটি দেখাতে পারবেন ইমিগ্রেশনসহ বিশ্বের যে কোনো স্থানে। এর ফলে স্মার্ট কার্ডটি হারিয়ে বা নষ্ট হয়ে যাওয়ার কোনো ভয়ও থাকছে না।

আমি প্রবাসীর কর্মকর্তা, মোঃ সাইফ-উল-আলম জানান, ‘অ্যাপটি ব্যবহারে বিদেশগমনেচ্ছুদের চেয়েও বেশি সুবিধা পাবেন রিক্রুটিং এজেন্সিগুলো। কারণ, আমাদের সিস্টেমে রিক্রুটিং এজিন্সিগুলো বিএমইটিতে না এসেও অনলাইনে তাদের ক্লায়েন্টদের ফাইল পুট-আপের সুযোগ রয়েছে। এ কারণে ফাইল নিয়ে তাদের আর কোনো দপ্তরে দপ্তরে ঘুরতে হয় না। দীর্ঘ লাইনে দাঁড়িয়ে ভোগান্তি ও অতিরিক্তি অর্থ খরচ হয় না। তিনি আরও বলেন, আগে শুধু ম্যানুয়ালি যখন বিএমইটি ক্লিয়ারেন্সের জন্য ফাইল জমা পড়তো, সেখানে লোকবলের ঘাটতি থাকায় সময়মতো অনেকেরই ক্লিয়ারেন্স পেতে সমস্যা হতো। এবার ডিজিটালাইজেশনের কারণে অনলাইনে কিউআর কোডের মাধ্যমে মিলছে বিএমইটি ক্লিয়ারেন্স।‘

নারী কর্মীদের বিদেশ যাত্রা নিরাপদ করতে ভূয়সী প্রশংসা কুড়িয়েছেন এই অ্যাপটি। এ ই প্রসঙ্গে আমি প্রবাসীর কর্মকর্তারা বলেন, একটা সময় ভুয়া সার্টিফিকেট দিয়ে নারীদের বিদেশ পাঠানো হতো। প্রশিক্ষাণ ছাড়া বিদেশ যাওয়া যাদের বেশির ভাগকেই পড়তে হতো বিপদে। তবে এখন, নারীদের বিদেশ যাত্রা নিরাপদ করতে সরকার নারী কর্মীদের বিএমইটি ছাড়পত্র ক্লিয়ারেন্সের আবেদন আমি প্রাবসীতে বাধ্যতামুলক করেছে। ফলে এখন কোন অসাধু চক্র ভুয়া সার্টিফেকেট দিয়ে নারীদের বিদেশে পাঠাতে পারছেনা।

অভিবাসন বিশেষজ্ঞগণ অ্যাপটিকে সেইফ মাইগ্রেশন বা স্মার্ট মাইগ্রেশন নাম দিয়ে ডিজিটাল QR Codeভিত্তিক স্মার্ট কার্ড প্রবর্তনকে যুগান্তকারী সংযোজন হিসেবে অবিহিত করেছেন। এর মাধ্যমে একদিকে কার্ড প্রিন্টিংয়ের অতিরিক্তি ঝামেলা কমেছে। শুধুমাত্র কার্ড প্রিন্টিং এড়ানোর কারণেই সরকার এখান থেকে লাভবান হচ্ছে। এছাড়াও ভুয়া স্মার্ট কার্ড বা জালিয়াতির মাধ্যমে ক্লিয়ারেন্স নেওয়ার সুযোগ বন্ধ হয়েছে। এছাড়াও কাজে এসেছে স্বচ্ছতা। সবচেয়ে গুরুতদ্বপূর্ন বিষয় হচ্ছে এই অ্যাপ নির্মাণে কিন্তু সরকারের কোন টাকাই খরচ করতে হয়নি। উল্টো আমাদের কাগজ প্রিন্ট এবং প্লাস্টিকের স্মার্ট কার্ড প্রিন্টিংয়েরও খরচ বেচে গেছে। কেননা এখন আমি প্রাবাসী অ্যাপের মাধ্যমে QR Code ভিত্তিক স্মার্ট কার্ড বিতরণের ফলে এই প্রিন্টিং বাবদ এখন আর কোন কোন টাকা খরচ হয়না সরকারের।

গত বছরের জুনে অনলাইনে বিএমইটি ক্লিয়ারেন্সের ফিচারটি চালুর পর থেকেই ব্যাপক সাড়া পড়েছে। বিএমইটির তথ্যমতে, এরই মধ্যে চার লাখেরও বেশি QR Code ভিত্তিক ইমিগ্রেশন স্মার্ট কার্ড ইস্যু করা হয়েছে। এর ফলে ৩০০ শতাংশ সরকারি রাজস্ব বৃদ্ধি পেয়েছে। এছাড়াও টেনিংয়ে অংশ না নিয়ে ভুয়া সার্টিফিকেট দিয়ে প্রতারণার মাধ্যমে বিদেশ যাওয়ার সুযোগ বন্ধ হয়েছে। এর ফলে একদিকে বিদেশে গিয়ে শ্রমিকদের প্রতারিত হওয়ার সম্ভাবনা কমে গেছে। অন্যদিকে, বিদেশি প্রতিষ্ঠানগুলোর কাছেও বাংলাদেশি শ্রমিকদের হারানো আস্থা ফিরে এসেছে। এরই মধ্যে আড়াই লাখেরও বেশি কর্মী বিভিন্ন ট্রেনিং সেন্টারের বিভিন্ন কোর্সে ডিজিটাল প্রক্রিয়ায় তালিকাভুক্ত হয়েছেন।

বর্তমানে প্রায় ৫ হাজার নতুন চাকরির খোঁজ মিলেছে। যে কেউ চাইলেই নিজের চাকরি নিজেই খুঁজে অথবা নিজের সংগৃহীত ভিসার প্রসেসিং বা সিংগেল ভিসার প্রসেসিং ওয়ানস্টপের মাধ্যমে করতে পারবেন। বিএমইটির ওয়ানস্টপ সার্ভিসের ডিজিটালেইজেশনের ফলে এখন যে কেউ চাইলেই নিজের ভিসার যাবতীয় কার্যক্রম ঘরে বসে অনলাইনেই সম্পন্ন করতে পারবেন। সেইসঙ্গে একজন ব্যক্তি বিদেশ যাওয়ার আগে তার জব বা তার ভিসা সঠিক কিনা অথবা তিনি যে কোম্পানিতে যাচ্ছেন সেটির তথ্য যাচাই করতে পারছেন।

সরকারের স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মাণের ঘোষণা অনুযায়ী স্মার্ট মাইগ্রেশন বা স্মার্ট অভিবাসন প্রক্রিয়া বাস্তবায়নের লক্ষ্যেই কাজ করে যাচ্ছে বলে জানিয়েছেন আমি প্রবাসীর কো-ফাউন্ডার এবং সিইও নামির আহমেদ। তিনি বলেন, আমাদের এই সেক্টর শতভাগ ডিজিটাল সেবার আওতায় নিয়ে আনতে খুব অল্প সময়ের মধ্যেই আমরা ডিজিটাল সত্যায়ন চালু করছি। এর ফলে আর কোনো কর্মী বিদেশে গিয়ে প্রতারিত হওয়ার আশঙ্কা থাকবে না। সেইসাথে সরকারও ভিসা এটাস্টেশন বাবদ নির্ধারিত রাজস্ব থেকে বঞ্চিত হবে না।

তিনি আরও বলেন, বিদেশ যাওয়ার জন্য যে কেউ চাইলেই আমাদের অ্যাপের মাধ্যমে ঘরে বসে বিদেশ যাত্রার সব কার্যক্রম সম্পন্ন করতে পারবেন অনলাইনে। সেক্ষেত্রে কিছু কিছু সার্ভিসের বিনিময়ে নামমাত্র একটা ফি নির্ধারণ করা আছে। এছাড়াও ঘরে বসে বিএমইটি ফর্ম পুরণ করে বিকাশ/নগদ বা মোবাইলে ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে পেমেন্ট করে তার রেজিস্ট্রেশন প্রক্রিয়া সম্পন্ন করতে পারবেন।

সরকার যখন ডিজিটাল বাংলাদেশ থেকে স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মাণে কাজ করে যাচ্ছে, ঠিক এই মুহুর্তে একটি মহল ডিজিটাল অভিবাসন কার্যক্রম বাধাগ্রস্ত করতে এবং সরকারের স্মার্ট বাংলাদেশের অপরিহার্য অংশ স্মার্ট অভিবাসন প্রতিষ্ঠায় বাধা হয়ে দাঁড়িয়েছে। সংশ্লিষ্টরা বলছেন, ডিজিটালাইজেশনের ফলে ভুয়া সনদ বা ভুয়া ভিসায় ক্লিয়ারেন্স পাওয়ার কোনো সুযোগ নেই। আগের ম্যানুয়াল পদ্ধতিতে একজন কর্মকর্তা চাইলেই ভুয়া সনদ এমনকি ভুয়া ভিসাতেও ছাড়পত্র দেওয়ার সুযোগ পেতেন। এ কারণেই কিছু অসাধু কর্মকর্তা ও রিক্রুটিং এজেন্সিগুলোর অবৈধ আয় বন্ধের আশঙ্কায় নানাবিধ প্রতিবন্ধকতা তৈরি করে ডিজিটাল সেবা ব্যাহত করেছে বলে অভিযোগ করেছেন ডিজিটাল সেবাগ্রহীতারা। তারা বলছেন, কর্তৃপক্ষের কঠোর নজরদারিই এবং সদিচ্ছাই পারবে সরকারের স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মাণের সহযাত্রী স্মার্ট অভিবাসন বা অভিবাসনে ডিজিটালাইজেশন করতে।

;