পিকনিক মৌসুমে প্রস্তুতি নিচ্ছে বিনোদন কেন্দ্রগুলো



বর্ণালী জামান ,স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, রংপুর
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

শীত সমাগমে দর্শনার্থীদের মাঝে বিনোদন স্পটগুলোতে ভ্রমণের আগ্রহ বাড়ে। সাধারণত শীত এলেই ভ্রমণপিপাসু মানুষের বিনোদন আকাঙ্ক্ষা বেড়ে যায় অনেকাংশেই। 

বিশেষ করে শীত মানেই পিকনিক উৎসব। শীতের ৩ থেকে ৪ মাস পর্যন্ত আবহাওয়ার উপর নির্ভর করে স্থানীয় বিভিন্ন বিনোদন কেন্দ্রসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে ভ্রমণ করে থাকেন সৌখিন মানুষেরা।

শীত মৌসুমে পিকনিকে অংশ নিয়ে দেহমনে প্রফুল্ল আনতে আগ্রহী ব্যক্তির সংখ্যা নিহায়েত কম নয়। এই সময় তাই পিকনিক স্পট গুলোতেও থাকে ভেজায় ভিড়। এ মৌসুমকে ঘিরে রংপুরের পিকনিক স্পটগুলো এখন প্রস্তুতি নিতে ব্যস্ত। অতিরিক্ত জনবল নিয়োগ, স্থাপনার সুরক্ষা ও সৌন্দর্যের জন্য রঙ করা, পরিচ্ছন্নতা বজায় রাখাসহ দর্শনার্থীদের আনন্দদানের নানাবিধ ব্যবসায়িক পরিকল্পনা গ্রহণের চেষ্টাও চলছে।

রংপুর এলাকায় যে সকল পিকনিক স্পট বা বিনোদন পার্ক রয়েছে তার মধ্যে রংপুর পাগলাপীর এলাকার ভিন্নজগৎ, পীরগঞ্জের আনন্দনগর, মাহিগঞ্জ এলাকার তাজহাট জমিদার বাড়ি, রংপুর চিড়িয়াখানা অন্যতম। এছাড়াও শহরের চিকলি ওয়াটার পার্ক, মিঠাপুকুরের ইকোপার্কসহ আরও কিছু স্থান রয়েছে, যে জায়গাগুলোতেও বিনোদন প্রত্যাশী মানুষের উপস্থিতিতে ব্যাপক সমাগম ঘটে।

এ নিয়ে ভিন্ন জগতের দায়িত্বরত সুপারভাইজার শরিফুল ইসলাম জানান, বিনোদন পার্কগুলোতে সারা বছরের ব্যবসায়িক সফলতা সাধারণত মৌসুমের ব্যবসার উপর অনেকটা নির্ভর করে। সেই লক্ষ্যে ভিন্নজগৎ কর্তৃপক্ষ নানাবিধ পদক্ষেপ গ্রহণ করছেন। উন্নয়ন কর্মকাণ্ডও এগিয়ে চলছে। প্রতিবছরের মতো এ বছর শীত মৌসুমেও ব্যবসায় লাভের প্রত্যাশা ব্যক্ত করেছেন তিনি। 

পীরগঞ্জের আনন্দনগরেও বিনোদনপ্রেমীদের অধিক হারে আকর্ষণ করার নানাবিধ প্রচেষ্টা অব্যাহত আছে। যুক্ত করা হচ্ছে বেশকিছু নতুন নতুন রাইডসহ নির্দশন। 

সব মিলিয়ে নির্মল আনন্দদানে বিনোদন পার্কগুলো আরও বেশি আন্তরিক হবে- এই প্রত্যাশা বিনোদন প্রেমীদের। 

 

   

গদখালী যেন এক ফুলের স্বর্গ উদ্যান!



ফিচার ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
ছবি : নূর এ আলম

ছবি : নূর এ আলম

  • Font increase
  • Font Decrease

কালের সাক্ষী হয়ে শত বছরের ইতিহাস নিয়ে মাথা তুলে যশোরের রাস্তার দুপাশে দাঁড়িয়ে আছে অসংখ্য বৃক্ষ। যশোর জেলা থেকে বেনাপোলের দিকে ১৮ কি.মি. আগালেই গদখালী ফুলের বাজার।

ছবি : নূর এ আলম

দেখে মনে হবে সৃষ্টিকর্তা যেন নিজ হাতে তৈরি করে দিয়েছেন ফুলের এক স্বর্গ রাজ্য। কাকডাকা ভোরে সাইকেল, ভ্যান অথবা মোটরসাইকেলে করে ফুল চাষিরা ফুল নিয়ে আসেন গদখালীর পাইকারি ফুলের বাজারে।


 সূর্যের আলো ফোটার আগেই রাস্তার দু'পাশে সারি সারি দাঁড়িয়ে পড়েন ফুল বিক্রেতারা। শুরু হয় ফুল বিক্রি।

ছবি : নূর এ আলম

আর এই বাজারের মূল ক্রেতা দূরদূরান্ত থেকে আসা ফুলের ব্যাপারীরা। তারা এখান থেকে স্বল্প দামে ফুল কিনে নিয়ে পরে তা সরবরাহ করেন ঢাকা, চট্টগ্রামসহ দেশের বিভিন্ন জেলায়। রপ্তানি হয় বিদেশেও। 


গোলাপ, গাঁদা, গ্লাডিওলাস, রজনীগন্ধা, জারবেরা, চন্দ্রমল্লিকাসহ বিক্রি হয় বাহারি সব ফুল। ফুল চাষিরা যে বাহনে করে ফুল আনেন সেটাতে বসেই চলে বেচা-বিক্রি।

ছবি : নূর এ আলম

প্রতিদিন সকাল ৯টা থেকে ১০টার মধ্যে বাজারে ফুল বিক্রি শেষ হয়ে যায়। কোনো দিবস বা বিশেষ দিন এলেই দিনে প্রায় কোটি টাকারও বেশি ব্যবসা করেন গদখালীর ফুল চাষি ও বিক্রেতারা।

ছবি : নূর এ আলম

ঝিকরগাছা ও শার্শা থানার ৯০টি গ্রামের প্রায় ৪ হাজার বিঘা জমিতে চাষ করা হয় বাজারে আসা ফুলগুলো। দেশের ফুলের মোট চাহিদার একটা বড় অংশের জোগান দিয়ে থাকেন ঝিকরগাছা ও শার্শা উপজেলার এই ফুলচাষিরা।


এখানে আছে ফুলের সুঘ্রান, মৌমাছির গুঞ্জন আর রঙিন প্রজাপতির ডানায় ভর করে আসা চিরন্তন সুন্দরের বার্তা। প্রায় সব ধরনের ফুলের দেখা মিলবে এই ফুলের রাজ্যে।

ছবি : নূর এ আলম

দেশের মোট চাহিদার প্রায় ৭০% ফুলের জোগান আসে যশোরের গদখালি থেকে। এখন গ্রামের বেশিরভাগ মানুষই ফুল চাষ অথবা বিক্রি পেশার সাথে জড়িত।

ছবি : নূর এ আলম

ফুলের বাগানগুলোতে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে প্রতিনিয়ত কাজ করে যাচ্ছে প্রত্যেকটি পরিবার।

ছবি : নূর এ আলম

দেশের এই বৃহত্তম ফুলের রাজ্য ঘুরে আসলে আপনার মন হয়ে উঠবে আরও প্রাণবন্ত ও উচ্ছ্বল।

;

ভারতের চা খেয়ে মুগ্ধ বিল গেটস!



ফিচার ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
বিল গেটস এবং ডলি চা-ওয়ালা

বিল গেটস এবং ডলি চা-ওয়ালা

  • Font increase
  • Font Decrease

‘মামা এক কাপ চা দেন তো!’ রাস্তার হাঁটতে গেলে প্রায়ই শোনা যায় এই বাক্য। রাস্তার মোড়ে মোড়ে ছোট একটু জায়গায় চায়ের টুকরি দোকান বা ভ্যান। সেসব জায়গা জুড়ে সারাদিন অনেক মানুষই বসে চা খায়, আড্ডা দেয়! চায়ের দোকানদারের ব্যস্ত সময় কাটে। চা পাতা, দুধ, চিনি, আদা, লবঙ্গ-নানারকম মশলা মিলিয়ে বানানো হয় চা। এই পানীয়, ভারতীয় উপমহাদেশে অনেক বেশি জনপ্রিয়। রাস্তায় বের হলে আর কিছু দেখাতে পাওয়া যাক বা নাই যাক, চায়ের দোকান থাকবেই!     

প্রতিদিন শত শত গ্রাহক ভিড় জমায় চায়ের দোকানগুলোতে। তবে, একজন সুদূর আমেরিকা থেকে ভারতে পাড়ি জমালেন চা খেতে! শুনে অবাক হচ্ছেন? আরও অবাক হবেন সেই ব্যক্তির নাম শুনলে।

বিখ্যাত টেক কোম্পানি মাইক্রোসফটের প্রতিষ্ঠাতা বিল গেটস, ভারতে এসে চা খাওয়ার এক ভিডিও প্রকাশ করেছেন। নিজের ইন্সটাগ্রাম একাউন্ট থেকে সেই ভিডিওটি প্রকাশ করেন তিনি। সেই ভিডিওটি সামজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ব্যাপাক সাড়া ফেলেছে।

ভারতের সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে জনপ্রিয় ছিলেন ডলি চাওয়ালা। অনন্য ধরনে চা বানানো এবং বিক্রি করার কারণে বেশ আলোচনায় ছিলেন তিনি। এখন যেন তার জনপ্রিয়তা আরও বেশি বেড়ে গিয়েছে। তার দোকানে বিল গেটসের চা খেতে আসা মানুষকে অনুপ্রাণিত করছে। সামান্য চা বানাতে তার এতো আয়োজনে মুগ্ধ হয়েছেন স্বয়ং বিল গেটসও। 

চা বানিয়ে আলোচনায় আসেন ভারতের ডলি চা-ওয়ালা

বিল গেটসের প্রকাশ করা ভিডিওতে দেখা যায়, সাধারণ গ্রাহকদের মতো তিনি ডলির কাছে এক কাপ চা দেওয়ার জন্য বলেন। তার কণ্ঠে ভেসে ওঠে হিন্দি ভাষায়,‘ ওয়ান চায়ে প্লিজ!’ তারপর একে একে পানি, দুধ, মশলা, চা-পাতির সমন্বয়ে ফুটে ওঠে গরম চা!  হাসি ‍মুখে চা উপভোগ করেন গেটস।

ভিডিও-তে তিনি ভারতে আবার আসার কারণে, খুশি হওয়ার কথা উল্লেখ করেন। তার সাথে গেটস ভারতকে নতুন উদ্ভাবনের দেশ বলেন। মানুষের জীবনকে উন্নত করার জন্য নতুনভাবে তিনি কাজ করছেন এমন ইঙ্গিতও দিয়েছেন তিনি। তার পোস্ট দেখে স্পষ্ট  যে, চা নিয়ে চর্চা বেশ অনেক দূর গড়াবে! 

ভিডিওটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ৪ মিলিয়ন ভিউ অর্জন করে। ইন্সটাগ্রামে ৩ লাখ লাইক অর্জন করে। ভারতীয় সংস্কৃতিকে এভাবে আপন করে নেওয়াতে অনেকেই অবাক হয়েছেন এবং আনন্দ প্রকাশ করেছে।    

অনেকে তো বড় ফ্লাস্ক হাতে আর ছোট ছোট প্লাস্টিকের কাপ নিয়ে চা বিক্রি করতে বের হয়। চায়ের সাথে কেক, বিস্কুট, ড্রাইকেক বা রুটিও রাখে অনেকে। সকালে দিন শুরু করা বা বিকেলের হালকা নাস্তা, কারো সাথে গল্প করতে করতে সময় কাটানোর জন্য একদম উপযোগী এই পানীয়। এশিয়ার দেশগুলোতে বেশ আয়োজন করে চা বানানো এবং খাওয়া হয়। তাই একটু ভিন্নভাবেই বানানো হয় চা! 

বিল গেটসের ভারতে আসার কারণ পরিষ্কার নয়। তবে তার পোস্ট দেখে মনে হচ্ছে, সাধারণ জনগণের জীবনযাত্রার মানকে উন্নত করতে তিনি কোনো পদক্ষেপ নিয়ে চলেছেন।         

;

ইতিহাসের পাতায় আজ ২৯ ফেব্রুয়ারি



ফিচার ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
১৯৬০ সালে মরোক্কোর ভূমিকম্প

১৯৬০ সালে মরোক্কোর ভূমিকম্প

  • Font increase
  • Font Decrease

২৯ ফেব্রুয়ারি বছরের সবচেয়ে বিরল তারিখ। কারণ এই তারিখটি প্রতি বছর আসেনা। বিশেষ কিছু বছরের ফেব্রুয়ারি মাসে ২৯ দিন গণনা করা হয়। সেই বছরগুলোকে অধিবর্ষ হিসাবে বিবেচনা করা হয়।

প্রতি ৪ বছর অন্তর এই অধিবর্ষ বা লিপ ইয়ারের আবির্ভাব ঘটে। তবে ইতিহাসে চোখ রাখলে দেখা যায়, সেই অদিবর্ষের অধিদিবস বা লিপ ইয়ারের লিপডে-তেও ঘটেছিল স্মরণীয় কিছু ঘটনা। ৪ বছর পর আবার এসেছে অধিদিবস। জেনে নেওয়া যাক, ২৯ ফেব্রুয়ারিতে ঘটে যাওয়া কিছু ঐতিহাসিক ঘটনা!

১৯৬০ সালে মরোক্কোতে ভূমিকম্প

মরক্কোর দক্ষিণাঞ্চল আগাদিতে ভয়ানক ভূমিকম্প হয়েছিল ১৯৬০ সালের এই দিনে। রাত ১১ টা ৩৯ মিনিটে রিখটার স্কেল অনুযায়ী ৬.৭ মাত্রার ভুমিকম্প লণ্ডভণ্ড করে দেয়। প্রায় এক-তৃতীয়াংশ মানুষ মারা গিয়েছিলেন সেই দুর্ঘটনায়। ধারণা করা হয় ১২ থেকে ১৫ হাজার মানুষ মারা গিয়েছিল এবং অনেক মানুষ ধ্বংসস্তুপে চাপা পড়ে আহত হয়েছিল।

মোজাম্বিকে ২০০০ সালের ভয়ানক বন্যা

২০০০ সালে বন্যায় ভেসে যায় দক্ষিণ মোজাম্বিক। সেখানে হাজার হাজার মানুষ বন্যার পানির কারণে আটকা পড়ে গিয়েছিল। আজকের দিনে সেখানে বন্যার পানি অনেক বেশি বাড়তে শুরু করে এবং আটকে পড়া মানুষকে বাঁচাতে সাহায্য চায় আন্তর্জাতিক সাহায্য সংস্থা। দুর্দশাগ্রস্তদের উদ্ধার করতে তারা আরও হেলিকপ্টারের ব্যবস্থা করার আর্জি জানায়। জাতিসংঘের তথ্যমতে এইদিন ৩ লাখ মানুষের সাহায্য প্রয়োজন ছিল।

পিয়ের ট্রুডোর পদত্যাগ

কানাডার রাজনীতিবিদ এবং ১৫ তম প্রধানমন্ত্রী ছিলেন পিয়ের ট্রুডো। তিনি ১৯৬৮ সাল থেকে ১৯৭৯ সাল পর্যন্ত কানাডার দায়িত্বে ছিলেন। তারপর আবার ১৯৮০ সাল থেকে ১৯৮৪ সাল পর্যন্ত তিনি ক্ষমতায় ছিলেন। অবশেষে ১৯৮৪ সালের ২৯ ফেব্রুয়ারি দীর্ঘ ১৫ বছর পর, তিনি ৬৪ বছর বয়সে পদত্যাগ করেন।

তথ্যসূত্র: বিবিসি

;

২৯ ফেব্রুয়ারি: আজ অধিদিবস



ফিচার ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

প্রতি ৪ বছর পর পর আসে অধিবর্ষ বা লিপ ইয়ার। এইবছরগুলোতে ফেব্রুয়ারি মাসে একদিন বেশি গণনা করা হয়। আজ ২৯ ফেব্রুয়ারি। অর্থাৎ, আজকে অধিদিবস বা লিপ ডে পালন করা হয়, যা আবার ৪ বছর পর আসবে। জেনে নেওয়া যাক, অধিদিবস বা লিপডে সম্পর্কে আকর্ষণীয় কিছু তথ্য:

১. রোমান একনায়ক জুলিয়াস সিজার খ্রিষ্টপূর্ব ৪৫ অব্দে প্রথমবার তার জুলিয়ান ক্যালেন্ডারে লিপ ডে প্রতিষ্ঠা করেছিলেন। কারণ, ফেব্রুয়ারি মাসকে জুলিয়ান ক্যালেন্ডারের শেষ মাস হিসেবে বিবেচনা করা হতো।

২. বর্তমানে আমরা গ্রেগরিয়ান ক্যালেন্ডার অনুসরণ করি। সংস্করিত এই সঠিক লিপ ইয়ারের ক্যারেলন্ডারটি প্রকাশ করা হয়েছিল ১৫৮২ সালের ২৪ ফেব্রুয়ারিতে।  

৩. প্রাচীন সময়ে অধিদিবসকে বিশেষ একটি দিন হিসেবে বিবেচনা করা হতো। এই দিনে নারীরা তার পছন্দের পুরুষকে প্রেমের প্রস্তাব দিতো।

৪. প্রেমের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করা হলে সেই নারীকে ১০ জোড়া দস্তানা উপহার দেওয়া হতো। কারণ, প্রেমের প্রস্তাবে পুরুষ রাজি হলে আংটি বদলের মাধ্যমে তাদের বাগদান হতো। যেহেতু বাগদান না হওয়ার কারণে, নারীর হাত খালি থাকবে; তাই দস্তানা উপহার দেওয়ার প্রচলন ছিল। যদিও এখন এই প্রথাগুলো একদমই পালন করা হয়না। সময়ের সাথে সাথে এইসব প্রথা বিলীন হয়ে গেছে।

৫. লিপ ডে-তে জন্ম নেওয়া শিশুদের লিপারস্ বা লিপলিং নামে ডাকা হয়। বাংলায় এদের অধিবর্ষের শিশু বলা হয়। তারা সাধারণত অধিবর্ষ ছাড়া অন্যান্য বছরগুলোতে ২৮  ফেব্রুয়ারী বা মার্চ ১ তারিখে তাদের জন্মদিন পালন করে।

৬. পৃথিবীর মোট জনসংখ্যা বিবেচনা করা হলে, অধিদিবসে জন্ম নেওয়ার সম্ভাবনা খুবই তাৎপর্যপূর্ণ। প্রতি ১৪৬১জন শিশুর মধ্যে ১ জনের ২৯ ফেব্রুয়ারিতে জন্ম নেওয়ার সম্ভাবনা থাকে।

৭. পৃথিবীতে ২  টি জায়গাকে অধিবর্ষ রাজধানী হিসেবে আখ্যায়িত করা হয়। জায়গাগুলো হলো, টেক্সাসের অ্যান্থনী এবং নিউ মেক্সিকোর অ্যান্থনী। লিপডে-তে এই জায়গা গুলোতে নানারকম অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। ধুমধাম করে অধিদিবস পালন করা হয় সেখানে।    

তথ্যসূত্র: হিন্দুস্তান টাইমস

;