ইসলামের ইতিহাসের প্রথম মসজিদ



মো.সুমন, রিয়াদ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

মক্কা শরিফ থেকে ৩২০ কিলোমিটার উত্তরে এবং মসজিদে নববীর দক্ষিণ-পশ্চিম কোণ বরাবর প্রায় ৩.২৫ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত মসজিদে কুবা যা ইসলামের ইতিহাসের প্রথম মসজিদ। এটি মসজিদে নববি থেকে প্রায় পাঁচ কিলোমিটার দূরত্বে অবস্থিত।

হিজরতের পর মুহাম্মদ সাল্লেলাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এই মসজিদের ভিত্তি স্থাপন করেন। এখানে তিনি বেশ কিছুদিন অবস্থান করেছিলেন। আল্লাহর রাসুল মহানবী (সা.) প্রতি শনিবার এই মসজিদে যেতেন।

ইসলামের ইতিহাসে সবচেয়ে ফজিলতপূর্ণ ও মর্যাদাসম্পন্ন মসজিদ তিনটি। মক্কার মসজিদুল হারাম, মদিনার মসজিদে নববি ও জেরুজালেমে অবস্থিত মসজিদুল আকসা। এরপর হলো মসজিদে কুবা। এই মসজিদে নামাজ আদায় করলে এক ওমরাহর সমপরিমাণ সওয়াব মিলে।

ইসলামের ইতিহাসের প্রথম মসজিদ এটি। মহানবী (সা.) মক্কা থেকে মদিনায় হিজরত করার সময় মদিনার অদূরে কুবায় এ মসজিদ নির্মাণ করেন। এর আগে মক্কায় তিনি কোনো মসজিদ নির্মাণ করেননি। হিজরতের প্রথম দিন কুবা অবস্থানকালে এই মসজিদের ভিত্তি স্থাপন করেন। মসজিদের নির্মাণকাজে সাহাবাদের সঙ্গে স্বয়ং রাসুল (সা.) অংশগ্রহণ করেন।

পূর্বে এই মসজিদের আশেপাশে কুবা নামে একটি বিখ্যাত কূপ ছিল। তৎকালীন সময়ে এই কূপকে কেন্দ্র করে একটি জনবসতি গড়ে উঠে, সেই জনবসতি কুবা মহল্লা নামে পরিচিত হয়। এবং কালের পরিক্রমায় মসজিদে কুবা নামকরণ হয়। ধারণা করা হয়, সূরা তওবার ১০৮ নং আয়াতে বলা মসজিদটি মূলত কুবা মসজিদ।

নবীর আমলের পর ইসলামের তৃতীয় খলিফা হযরত উসমান ( রা.) তার খেলাফতকালে মসজিদে কুবার সংস্কার ও পুনর্নিমাণ করেন। এরপর বিভিন্ন সময়ে আরও বেশ কয়েকবার এই মসজিদের পুনর্নিমাণ ও সংস্কার করা হয়। উমর বিন আবদুল আজিজ (রহ.), ওসমানি সুলতান দ্বিতীয় মাহমুদ ও তার ছেলে প্রথম আবদুল মাজিদ প্রমুখ শাসকরা মসজিদে কুবার সংস্কারকাজ করেন। ৪৩৫ হিজরিতে আবু ইয়ালি আল-হোসাায়নি কুবা মসজিদ সংস্কার করেন। তিনি মসজিদের মিহরাব তৈরি করেন। ৫৫৫ হিজরিতে কামাল আল-দিন আল-ইসফাহানি মসজিদে আরও বেশ কিছু সংবর্ধনের করেন। পরবর্তী সময়ে ৬৭১, ৭৩৩, ৮৪০ ও ৮৮১ হিজরিতে ওসমানি সাম্রাজ্যকালে মসজিদটি সংস্কার করা হয়। ওসমানি শাসনামলে ১২৪৫ হিজরিতে সর্বশেষ সংস্কার করেন সুলতান আবদুল মজিদ।

১৯৮৬ সালে বাদশাহ ফাহাদ বিন আবদুল আজিজ আলে সৌদের সময় মসজিদটি সর্বশেষ সম্প্রসারণ হয়। তখন পুরো মসজিদে এক ধরণের সাদাপাথর ব্যবহার করা হয়, যা অন্য কোনো মসজিদে সাধারণত দেখা যায় না।

মসজিদে কুবার বর্তমান আয়তন ১৩ হাজার ৫০০ স্কয়ার মিটার। চারটি উঁচু মিনার, ছাদে ১টি বড় গম্বুজ এবং ৫টি ছোট গম্বুজ । এছাড়া ছাদের অন্য অংশে ৫৬টি ছোট গম্বুজের অবয়ব রয়েছে। ২০ হাজার মুসল্লি একসঙ্গে নামাজ আদায় করতে পারে এই মসজিদে।

মূল মসজিদ ছাড়াও এখানে রয়েছে আবাসিক এলাকা, অফিস, অজুখানা, দোকান ও লাইব্রেরি। তবে মসজিদের মূল আকর্ষণ বিশাল গম্বুজ এবং চার কোণায় চারটি সুউচ্চ মিনার। মসজিদের চতুর্দিকের সুবজ পাম গাছের বলয় মসজিদটিক বাড়তি সৌন্দর্য দিয়েছে।

মদিনায় মসজিদে নববীতে যাওয়ার পথে প্রতিদিন প্রচুর মানুষ আসেন এই মসজিদে। এখানে নারী ও পুরুষদের নামাজের জায়গা ও প্রবেশ পথ আলাদা। অজুর জায়গাও ভিন্ন। মসজিদের উত্তর দিক নারীদের জন্য সংরক্ষিত।

মূল মসজিদ ভবনের মাঝে একটি খালি জায়গা আছে, সেখানেও নামাজ আদায়ের ব্যবস্থা রয়েছে। দামি কারপেট বিছানো মেঝেতে মুসল্লিরা নামাজ আদায় করেন। এছাড়াও রয়েছে জমজম পানির ব্যবস্থা। সম্পূর্ণ শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত মসজিদের ভেতরের কারুকাজও বেশ মনোমুগ্ধকর।

১১২ বর্গমিটার অংশজুড়ে ইমাম ও মুয়াজ্জিনের থাকার জায়গা, একটি লাইব্রেরি, প্রহরীদের থাকার জায়গা এবং সাড়ে ৪শ’ বর্গমিটার স্থানে ১২টি দোকানসমৃদ্ধ একটি বাণিজ্যিক এলাকা।

মসজিদে ৭টি মূল প্রবেশ দ্বার ও ১২টি সম্পূরক প্রবেশ পথ রয়েছে। প্রতিটি ১০ লাখ ৮০ হাজার থার্মাল ইউনিট বিশিষ্ট তিনটি কেন্দ্রীয় শীতাতপ নিয়ন্ত্রণ যন্ত্র মসজিদকে ঠাণ্ডা রাখছে।

মসজিদের বাইরে এ মসজিদ সম্পর্কে বর্ণিত পবিত্র কোরআনের আয়াত ও হাদিসের বাণীগুলো সুন্দরভাবে লিখে রাখা হয়েছে। ঐতিহাসিক কুবা মসজিদ শ্বেতবর্ণের একটি অনন্য স্থাপত্যকর্ম হওয়ার দরুন বহু দূর থেকে দৃষ্টিগোচর হয়।

   

গদখালী যেন এক ফুলের স্বর্গ উদ্যান!



ফিচার ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
ছবি : নূর এ আলম

ছবি : নূর এ আলম

  • Font increase
  • Font Decrease

কালের সাক্ষী হয়ে শত বছরের ইতিহাস নিয়ে মাথা তুলে যশোরের রাস্তার দুপাশে দাঁড়িয়ে আছে অসংখ্য বৃক্ষ। যশোর জেলা থেকে বেনাপোলের দিকে ১৮ কি.মি. আগালেই গদখালী ফুলের বাজার।

ছবি : নূর এ আলম

দেখে মনে হবে সৃষ্টিকর্তা যেন নিজ হাতে তৈরি করে দিয়েছেন ফুলের এক স্বর্গ রাজ্য। কাকডাকা ভোরে সাইকেল, ভ্যান অথবা মোটরসাইকেলে করে ফুল চাষিরা ফুল নিয়ে আসেন গদখালীর পাইকারি ফুলের বাজারে।


 সূর্যের আলো ফোটার আগেই রাস্তার দু'পাশে সারি সারি দাঁড়িয়ে পড়েন ফুল বিক্রেতারা। শুরু হয় ফুল বিক্রি।

ছবি : নূর এ আলম

আর এই বাজারের মূল ক্রেতা দূরদূরান্ত থেকে আসা ফুলের ব্যাপারীরা। তারা এখান থেকে স্বল্প দামে ফুল কিনে নিয়ে পরে তা সরবরাহ করেন ঢাকা, চট্টগ্রামসহ দেশের বিভিন্ন জেলায়। রপ্তানি হয় বিদেশেও। 


গোলাপ, গাঁদা, গ্লাডিওলাস, রজনীগন্ধা, জারবেরা, চন্দ্রমল্লিকাসহ বিক্রি হয় বাহারি সব ফুল। ফুল চাষিরা যে বাহনে করে ফুল আনেন সেটাতে বসেই চলে বেচা-বিক্রি।

ছবি : নূর এ আলম

প্রতিদিন সকাল ৯টা থেকে ১০টার মধ্যে বাজারে ফুল বিক্রি শেষ হয়ে যায়। কোনো দিবস বা বিশেষ দিন এলেই দিনে প্রায় কোটি টাকারও বেশি ব্যবসা করেন গদখালীর ফুল চাষি ও বিক্রেতারা।

ছবি : নূর এ আলম

ঝিকরগাছা ও শার্শা থানার ৯০টি গ্রামের প্রায় ৪ হাজার বিঘা জমিতে চাষ করা হয় বাজারে আসা ফুলগুলো। দেশের ফুলের মোট চাহিদার একটা বড় অংশের জোগান দিয়ে থাকেন ঝিকরগাছা ও শার্শা উপজেলার এই ফুলচাষিরা।


এখানে আছে ফুলের সুঘ্রান, মৌমাছির গুঞ্জন আর রঙিন প্রজাপতির ডানায় ভর করে আসা চিরন্তন সুন্দরের বার্তা। প্রায় সব ধরনের ফুলের দেখা মিলবে এই ফুলের রাজ্যে।

ছবি : নূর এ আলম

দেশের মোট চাহিদার প্রায় ৭০% ফুলের জোগান আসে যশোরের গদখালি থেকে। এখন গ্রামের বেশিরভাগ মানুষই ফুল চাষ অথবা বিক্রি পেশার সাথে জড়িত।

ছবি : নূর এ আলম

ফুলের বাগানগুলোতে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে প্রতিনিয়ত কাজ করে যাচ্ছে প্রত্যেকটি পরিবার।

ছবি : নূর এ আলম

দেশের এই বৃহত্তম ফুলের রাজ্য ঘুরে আসলে আপনার মন হয়ে উঠবে আরও প্রাণবন্ত ও উচ্ছ্বল।

;

ভারতের চা খেয়ে মুগ্ধ বিল গেটস!



ফিচার ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
বিল গেটস এবং ডলি চা-ওয়ালা

বিল গেটস এবং ডলি চা-ওয়ালা

  • Font increase
  • Font Decrease

‘মামা এক কাপ চা দেন তো!’ রাস্তার হাঁটতে গেলে প্রায়ই শোনা যায় এই বাক্য। রাস্তার মোড়ে মোড়ে ছোট একটু জায়গায় চায়ের টুকরি দোকান বা ভ্যান। সেসব জায়গা জুড়ে সারাদিন অনেক মানুষই বসে চা খায়, আড্ডা দেয়! চায়ের দোকানদারের ব্যস্ত সময় কাটে। চা পাতা, দুধ, চিনি, আদা, লবঙ্গ-নানারকম মশলা মিলিয়ে বানানো হয় চা। এই পানীয়, ভারতীয় উপমহাদেশে অনেক বেশি জনপ্রিয়। রাস্তায় বের হলে আর কিছু দেখাতে পাওয়া যাক বা নাই যাক, চায়ের দোকান থাকবেই!     

প্রতিদিন শত শত গ্রাহক ভিড় জমায় চায়ের দোকানগুলোতে। তবে, একজন সুদূর আমেরিকা থেকে ভারতে পাড়ি জমালেন চা খেতে! শুনে অবাক হচ্ছেন? আরও অবাক হবেন সেই ব্যক্তির নাম শুনলে।

বিখ্যাত টেক কোম্পানি মাইক্রোসফটের প্রতিষ্ঠাতা বিল গেটস, ভারতে এসে চা খাওয়ার এক ভিডিও প্রকাশ করেছেন। নিজের ইন্সটাগ্রাম একাউন্ট থেকে সেই ভিডিওটি প্রকাশ করেন তিনি। সেই ভিডিওটি সামজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ব্যাপাক সাড়া ফেলেছে।

ভারতের সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে জনপ্রিয় ছিলেন ডলি চাওয়ালা। অনন্য ধরনে চা বানানো এবং বিক্রি করার কারণে বেশ আলোচনায় ছিলেন তিনি। এখন যেন তার জনপ্রিয়তা আরও বেশি বেড়ে গিয়েছে। তার দোকানে বিল গেটসের চা খেতে আসা মানুষকে অনুপ্রাণিত করছে। সামান্য চা বানাতে তার এতো আয়োজনে মুগ্ধ হয়েছেন স্বয়ং বিল গেটসও। 

চা বানিয়ে আলোচনায় আসেন ভারতের ডলি চা-ওয়ালা

বিল গেটসের প্রকাশ করা ভিডিওতে দেখা যায়, সাধারণ গ্রাহকদের মতো তিনি ডলির কাছে এক কাপ চা দেওয়ার জন্য বলেন। তার কণ্ঠে ভেসে ওঠে হিন্দি ভাষায়,‘ ওয়ান চায়ে প্লিজ!’ তারপর একে একে পানি, দুধ, মশলা, চা-পাতির সমন্বয়ে ফুটে ওঠে গরম চা!  হাসি ‍মুখে চা উপভোগ করেন গেটস।

ভিডিও-তে তিনি ভারতে আবার আসার কারণে, খুশি হওয়ার কথা উল্লেখ করেন। তার সাথে গেটস ভারতকে নতুন উদ্ভাবনের দেশ বলেন। মানুষের জীবনকে উন্নত করার জন্য নতুনভাবে তিনি কাজ করছেন এমন ইঙ্গিতও দিয়েছেন তিনি। তার পোস্ট দেখে স্পষ্ট  যে, চা নিয়ে চর্চা বেশ অনেক দূর গড়াবে! 

ভিডিওটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ৪ মিলিয়ন ভিউ অর্জন করে। ইন্সটাগ্রামে ৩ লাখ লাইক অর্জন করে। ভারতীয় সংস্কৃতিকে এভাবে আপন করে নেওয়াতে অনেকেই অবাক হয়েছেন এবং আনন্দ প্রকাশ করেছে।    

অনেকে তো বড় ফ্লাস্ক হাতে আর ছোট ছোট প্লাস্টিকের কাপ নিয়ে চা বিক্রি করতে বের হয়। চায়ের সাথে কেক, বিস্কুট, ড্রাইকেক বা রুটিও রাখে অনেকে। সকালে দিন শুরু করা বা বিকেলের হালকা নাস্তা, কারো সাথে গল্প করতে করতে সময় কাটানোর জন্য একদম উপযোগী এই পানীয়। এশিয়ার দেশগুলোতে বেশ আয়োজন করে চা বানানো এবং খাওয়া হয়। তাই একটু ভিন্নভাবেই বানানো হয় চা! 

বিল গেটসের ভারতে আসার কারণ পরিষ্কার নয়। তবে তার পোস্ট দেখে মনে হচ্ছে, সাধারণ জনগণের জীবনযাত্রার মানকে উন্নত করতে তিনি কোনো পদক্ষেপ নিয়ে চলেছেন।         

;

ইতিহাসের পাতায় আজ ২৯ ফেব্রুয়ারি



ফিচার ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
১৯৬০ সালে মরোক্কোর ভূমিকম্প

১৯৬০ সালে মরোক্কোর ভূমিকম্প

  • Font increase
  • Font Decrease

২৯ ফেব্রুয়ারি বছরের সবচেয়ে বিরল তারিখ। কারণ এই তারিখটি প্রতি বছর আসেনা। বিশেষ কিছু বছরের ফেব্রুয়ারি মাসে ২৯ দিন গণনা করা হয়। সেই বছরগুলোকে অধিবর্ষ হিসাবে বিবেচনা করা হয়।

প্রতি ৪ বছর অন্তর এই অধিবর্ষ বা লিপ ইয়ারের আবির্ভাব ঘটে। তবে ইতিহাসে চোখ রাখলে দেখা যায়, সেই অদিবর্ষের অধিদিবস বা লিপ ইয়ারের লিপডে-তেও ঘটেছিল স্মরণীয় কিছু ঘটনা। ৪ বছর পর আবার এসেছে অধিদিবস। জেনে নেওয়া যাক, ২৯ ফেব্রুয়ারিতে ঘটে যাওয়া কিছু ঐতিহাসিক ঘটনা!

১৯৬০ সালে মরোক্কোতে ভূমিকম্প

মরক্কোর দক্ষিণাঞ্চল আগাদিতে ভয়ানক ভূমিকম্প হয়েছিল ১৯৬০ সালের এই দিনে। রাত ১১ টা ৩৯ মিনিটে রিখটার স্কেল অনুযায়ী ৬.৭ মাত্রার ভুমিকম্প লণ্ডভণ্ড করে দেয়। প্রায় এক-তৃতীয়াংশ মানুষ মারা গিয়েছিলেন সেই দুর্ঘটনায়। ধারণা করা হয় ১২ থেকে ১৫ হাজার মানুষ মারা গিয়েছিল এবং অনেক মানুষ ধ্বংসস্তুপে চাপা পড়ে আহত হয়েছিল।

মোজাম্বিকে ২০০০ সালের ভয়ানক বন্যা

২০০০ সালে বন্যায় ভেসে যায় দক্ষিণ মোজাম্বিক। সেখানে হাজার হাজার মানুষ বন্যার পানির কারণে আটকা পড়ে গিয়েছিল। আজকের দিনে সেখানে বন্যার পানি অনেক বেশি বাড়তে শুরু করে এবং আটকে পড়া মানুষকে বাঁচাতে সাহায্য চায় আন্তর্জাতিক সাহায্য সংস্থা। দুর্দশাগ্রস্তদের উদ্ধার করতে তারা আরও হেলিকপ্টারের ব্যবস্থা করার আর্জি জানায়। জাতিসংঘের তথ্যমতে এইদিন ৩ লাখ মানুষের সাহায্য প্রয়োজন ছিল।

পিয়ের ট্রুডোর পদত্যাগ

কানাডার রাজনীতিবিদ এবং ১৫ তম প্রধানমন্ত্রী ছিলেন পিয়ের ট্রুডো। তিনি ১৯৬৮ সাল থেকে ১৯৭৯ সাল পর্যন্ত কানাডার দায়িত্বে ছিলেন। তারপর আবার ১৯৮০ সাল থেকে ১৯৮৪ সাল পর্যন্ত তিনি ক্ষমতায় ছিলেন। অবশেষে ১৯৮৪ সালের ২৯ ফেব্রুয়ারি দীর্ঘ ১৫ বছর পর, তিনি ৬৪ বছর বয়সে পদত্যাগ করেন।

তথ্যসূত্র: বিবিসি

;

২৯ ফেব্রুয়ারি: আজ অধিদিবস



ফিচার ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

প্রতি ৪ বছর পর পর আসে অধিবর্ষ বা লিপ ইয়ার। এইবছরগুলোতে ফেব্রুয়ারি মাসে একদিন বেশি গণনা করা হয়। আজ ২৯ ফেব্রুয়ারি। অর্থাৎ, আজকে অধিদিবস বা লিপ ডে পালন করা হয়, যা আবার ৪ বছর পর আসবে। জেনে নেওয়া যাক, অধিদিবস বা লিপডে সম্পর্কে আকর্ষণীয় কিছু তথ্য:

১. রোমান একনায়ক জুলিয়াস সিজার খ্রিষ্টপূর্ব ৪৫ অব্দে প্রথমবার তার জুলিয়ান ক্যালেন্ডারে লিপ ডে প্রতিষ্ঠা করেছিলেন। কারণ, ফেব্রুয়ারি মাসকে জুলিয়ান ক্যালেন্ডারের শেষ মাস হিসেবে বিবেচনা করা হতো।

২. বর্তমানে আমরা গ্রেগরিয়ান ক্যালেন্ডার অনুসরণ করি। সংস্করিত এই সঠিক লিপ ইয়ারের ক্যারেলন্ডারটি প্রকাশ করা হয়েছিল ১৫৮২ সালের ২৪ ফেব্রুয়ারিতে।  

৩. প্রাচীন সময়ে অধিদিবসকে বিশেষ একটি দিন হিসেবে বিবেচনা করা হতো। এই দিনে নারীরা তার পছন্দের পুরুষকে প্রেমের প্রস্তাব দিতো।

৪. প্রেমের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করা হলে সেই নারীকে ১০ জোড়া দস্তানা উপহার দেওয়া হতো। কারণ, প্রেমের প্রস্তাবে পুরুষ রাজি হলে আংটি বদলের মাধ্যমে তাদের বাগদান হতো। যেহেতু বাগদান না হওয়ার কারণে, নারীর হাত খালি থাকবে; তাই দস্তানা উপহার দেওয়ার প্রচলন ছিল। যদিও এখন এই প্রথাগুলো একদমই পালন করা হয়না। সময়ের সাথে সাথে এইসব প্রথা বিলীন হয়ে গেছে।

৫. লিপ ডে-তে জন্ম নেওয়া শিশুদের লিপারস্ বা লিপলিং নামে ডাকা হয়। বাংলায় এদের অধিবর্ষের শিশু বলা হয়। তারা সাধারণত অধিবর্ষ ছাড়া অন্যান্য বছরগুলোতে ২৮  ফেব্রুয়ারী বা মার্চ ১ তারিখে তাদের জন্মদিন পালন করে।

৬. পৃথিবীর মোট জনসংখ্যা বিবেচনা করা হলে, অধিদিবসে জন্ম নেওয়ার সম্ভাবনা খুবই তাৎপর্যপূর্ণ। প্রতি ১৪৬১জন শিশুর মধ্যে ১ জনের ২৯ ফেব্রুয়ারিতে জন্ম নেওয়ার সম্ভাবনা থাকে।

৭. পৃথিবীতে ২  টি জায়গাকে অধিবর্ষ রাজধানী হিসেবে আখ্যায়িত করা হয়। জায়গাগুলো হলো, টেক্সাসের অ্যান্থনী এবং নিউ মেক্সিকোর অ্যান্থনী। লিপডে-তে এই জায়গা গুলোতে নানারকম অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। ধুমধাম করে অধিদিবস পালন করা হয় সেখানে।    

তথ্যসূত্র: হিন্দুস্তান টাইমস

;