সদস্যপদ বাতিল : নিজের খোঁড়া গর্তে পড়ছেন নিপুণ?



বিনোদন ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
জায়েদ খান ও নিপুণ আক্তার

জায়েদ খান ও নিপুণ আক্তার

  • Font increase
  • Font Decrease

চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির সাধারণ সম্পাদক থাকাকালীন সাবেক সাধারণ সম্পাদক জায়েদ খানের সদস্যপদ বাতিল করেছিলেন নিপুণ আক্তার। গণমাধ্যমে শিল্পী সমিতি ও সাধারণ সম্পাদককে নিয়ে বাজে মন্তব্য করায় এমন সিদ্ধান্ত নেওয়ার কথা জানিয়েছিলেন নিপুণ। এবার একই কারণে সদস্যপদ হারাতে পারেন নিপুণ।

নিপুণের সদস্যপদ কেন বাতিল হবে না, জানতে চেয়ে চিঠি দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বর্তমান কমিটি। বৃহস্পতিবার সমিতির কার্যকরী সভা শেষে এমনটা জানিয়েছেন সহ-সভাপতি ডি এ তায়েব।

নিপুণ আক্তার

গত বুধবার ২০২৪-২০২৬ মেয়াদের নির্বাচনের ফল বাতিল চেয়ে হাইকোর্টে রিট করেন নিপুণ। তাই এ বিষয়ে সমিতির পদক্ষেপ কী হতে পারে তা নিয়ে বৈঠক করেন সদস্যরা।

বৈঠক শেষে ডি এ তায়েব বলেন, ‘রিট করা নিয়ে আমরা এখনো ভাবছি না। আমাদের কাছে নোটিশ এলে আইনিভাবে তা মোকাবিলা করা হবে।’

এর একদিন আগে সাধারণ সম্পাদক মনোয়ার হোসেন ডিপজলকে ‘অশিক্ষিত’সহ নানা কুরুচিপূর্ণ ভাষায় নিপুণ গালাগালি করেন বলেন জানান ডি এ তায়েব। তিনি বলেন, ‘নিপুণ আক্তার গণমাধ্যমে সমিতির সাধারণ সম্পাদকের বিরুদ্ধে যা বলেছেন, তা কুরুচিপূর্ণ, মানহানিকর। তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন কমিটির সবাই। তার সদস্যপদ কেন বাতিল হবে না, জানতে চেয়ে চিঠি দেওয়া হবে। ৭ দিনের মধ্যে যদি তিনি উত্তর না দেন অথবা উত্তর যথোপযুক্ত মনে না হয়, তাহলে তার সদস্যপদ বাতিল করা হবে।’

মিশা সওদাগর ও ডিপজল

বৃহস্পতিবার সমিতির সভার আগে মিশা-ডিপজল প্যানেলকে সংবর্ধনা দিয়েছেন ইলিয়াস কাঞ্চন ও নিপুণের সময় সদস্যপদ ফিরে পাওয়া ১০৩ শিল্পী। এ সময় নির্বাচন বাতিল চেয়ে রিট করা নিপুণকে নিয়ে কথা বলেন শিল্পী সমিতির সাধারণ সম্পাদক ডিপজল। তিনি বলেন, ‘আজকে যাকে (নিপুণ) নিয়ে কথা হচ্ছে, সে তো তার বাপকেই অস্বীকার করছে। রক্তে সমস্যা না থাকলে এটা হওয়ার কথা না। যাকে (ডিপজল) দিয়ে সবাই তার মুখ চিনল, তাকেই সে ভুলে যায়। সে কি আমাদের সঙ্গে টেস্ট খেলতে চায়? আসো খেলো। কিন্তু আমরা চাই ভদ্রতা ও নম্রতা। চলচ্চিত্র কীভাবে এগিয়ে নেওয়া যায় সেদিকেই কাজ করব।’

   

অনেক অনুরোধের পর রাজী হয়েছি : শিহাব শাহীন



মাসিদ রণ, সিনিয়র নিউজরুম এডিটর, বার্তা২৪.কম
নির্মাতা শিহাব শাহীন ও ‘গোলাম মামুন’ সিরিজের পোস্টার

নির্মাতা শিহাব শাহীন ও ‘গোলাম মামুন’ সিরিজের পোস্টার

  • Font increase
  • Font Decrease

প্রায় দুই যুগের নির্মাতা ক্যারিয়ারে অনেক দর্শকপ্রিয় কাজ উপহার দিয়েছেন শিহাব শাহীন। টেলিভিশনের পর সিনেমায় সফলতা পাওয়া এই নির্মাতা এখন ওটিটিতেও দেখাচ্ছেন নিজের মুন্সিয়ানা। আজ মুক্তি পেয়েছে তার নতুন সিরিজ ‘গোলাম মামুন’। সমসাময়িক বিষয়ে বার্তা২৪.কমের সঙ্গে কথা বলেছেন তিনি। লিখেছেন মাসিদ রণ


রোমান্টিক নাটকের জন্যই আপনি বেশি জনপ্রিয়। সাম্প্রতিক সময়ে এসে রোমান্টিক জনরার বাইরেও কাজ করছেন। এই তাগিদটা কেন?


বেশকিছু রোমান্টিক নাটক নির্মাণ করেছি যার কারণে দর্শকের এমন ভাবাটা অমূলক নয়। কিন্তু এখন এটা শুনতে একটু কেমন জানি লাগে, আর ভালো লাগে না। আমার প্রথম নির্মিত নাটক ‘ঘূর্ণি’ ছিল থ্রিলার, সায়েন্স ফিকশন এবং রোমান্টিকের মিশেলে। এরপর ‘এক্স ফ্যাক্টর’ ছিল রম-কম, ‘রমিজের আয়না’ ড্রামা সিরিজ, ‘কাঠের খাঁচা’ ড্রামা সিরিজ। এখনকার এই সময়টাতে আমার সবচেয়ে বেশি পপুলার কাজ হয়েছে থ্রিলার; যেমন- আগস্ট ১৪, সিন্ডিকেট, মাইসেলফ অ্যালেন স্বপন। তাগিদ বলব না, বলব যে সবসময় নতুন কিছু করতে চাই, ভালো গল্প বলতে চাই এবং নিজের কমফোর্ট জোনের বাইরে গিয়ে কিছু করতে চাই। যে গল্প কিংবা চরিত্রটাতে আমি নিজে এনগেজড হই সেই গল্পটা আমি দর্শকের বলতে চাই। আমার বিশ্বাস দর্শকও সেটার সঙ্গে সংযোগ স্থাপন করতে পারেন। কবে কে কি নির্মাণ করেছেন, তার চেয়ে সর্বশেষ কাজটা দিয়েই কাউকে বিচার করে দর্শক। আর তাই সবসময় আমি আমার শেষ কাজটাকেই সেরা হিসেবে করতে চাই, যেমন এখন আমার শেষ নির্মাণ ‘গোলাম মামুন’।

‘গোলাম মামুন’ সিরিজে অপূর্ব’র লুক

‘বুকের মধ্যে আগুন’ সিরিজটি গেল বছরের আলোচিত সিরিজ। আরেকজন নির্মাতার সিরিজ থেকে স্পিন অফ নির্মাণ করা আপনার জন্য কতটুকু চ্যালেঞ্জের ছিল?


‘বুকের মধ্যে আগুন’ সিরিজটির তানিম রহমান অংশুর দারুণ নির্মাণ এবং ‘গোলাম মামুন’ চরিত্র তানিমের চমৎকার একটি সৃষ্টি। যেহেতু সিরিজটি অনেক পপুলার ছিল তাই হইচই আমাকে ‘গোলাম মামুন’ চরিত্রটি নিয়ে স্পিন অফ করার প্রস্তাব দেয়। প্রথমে আমি দ্বিধাদ্বন্দ্বে ছিলাম যেহেতু এটা আরেকজন নির্মাতার সৃষ্টি। পরে হইচই বেশ কয়েকবার অনুরোধ করে, তারা আমাকে দিয়েই এটা করাতে চান। অনেকটা জোর করেই আমাকে রাজি করান। পরে আমি তানিমের সঙ্গে এটা নিয়ে কথা বলি। তানিম যখন সম্মতি দেয় তখনই কাজটি শুরু করি। ‘গোলাম মামুন’ কোনোভাবেই ‘বুকের মধ্যে আগুন’-এর সিক্যুয়েল বা সিজন-২ নয়। ওখান থেকে শুধুমাত্র একটি চরিত্র নিয়েছি। এটা একদমই নতুন একটি সিরিজ, নতুন একটি গল্প। যেমনটা ‘সিন্ডিকেট’ থেকে ‘মাইসেলফ অ্যালেন স্বপন’ হয়েছিল। ‘মাইসেলফ অ্যালেন স্বপন’ নিজেই একটি সিরিজ বা ফ্র্যাঞ্চাইজি।

নির্মাতা শিহাব শাহীন

‘গোলাম মামুন’-এর অভিনয়শিল্পীরা কী আপনার প্রত্যাশাু পূরণ করতে পেরেছে?


প্রত্যেকটা শিল্পীই আমার প্রত্যাশা পূরণ করেছে। কেউই অভিযোগের আঙ্গুল তোলার সুযোগ রাখেননি। বিশেষ করে অপূর্বর কথা বলব, সে তার দুইশত ভাগ এফোর্ট দিয়ে কাজটি করেছে। ট্রেনিং, রিহার্সেল এবং পুরো কাজটির পেছনে যে পরিমাণ সময় দিয়েছে, খেটেছে সেটা অভাবনীয়। সে লুক পরিবর্তন করেছে, তার প্রিয় চুল কেটে ফেলেছে। শুটিং করতে গিয়ে আহত হয়েছে। চিকিৎসক তাকে এক সপ্তাহ বেড রেস্টে থাকতে বলেছে কিন্তু তিন ঘণ্টা পরেই সে আউটডোরে দৌড়াদৌড়ির দৃশ্যে শুটিং করতে নেমে গেছে। কমিটমেন্টের এক ফোটা পরিমাণ ঘাটতি পাইনি। সাবিলা নূরের ক্ষেত্রেও তাই। প্রায় প্রতিদিনই তার কলটাইম থাকতো আর সে ঠিক সময়ে হাজির হয়ে যেত, চরিত্রটির জন্য পরিশ্রম করতো। তাছাড়া ইমতিয়াজ বর্ষণের দৃশ্যগুলোও বেশ পরিশ্রমের ছিল। রোজা রেখে সে চেজিং সিনগুলো করতো। পানির জন্য ছটফট করতো, ক্লান্ত হলেও সেটা বুঝতে দিত না। অপু আমার এই প্রজেক্টে কাজ করার জন্য ভারতের কাজের শিডিউল পিছিয়ে দিয়েছে। শার্লিন ফারজানা অনেকদিন পর কাজে ফিরেছে। রিহার্সেলে অসম্ভব সময় দিয়েছে, খেটেছে।

‘গোলাম মামুন’ সিরিজে সাবিলার লুক

প্রথম দিনে দর্শকের সাড়া কেমন পাচ্ছেন?


একদিনে তো আর কোন কনটেন্টের ফলাফল নির্ধারন করা যায় না। তবে প্রথম দিন বিবেচনায় আমি দারুণ রেসপন্স পাচ্ছি। দর্শকের কাছে প্রত্যাশা, তারা যেন ‘গোলাম মামুন’ দেখেন এবং তাদের ভালো লাগা, মন্দ লাগা আমাদেরকে জানান। পাইরেসি থেকে বিরত থাকুন, হইচই সাবসক্রাইব করে সেখান থেকে দেখুন এবং অন্যদেরকেও পাইরেসি থেকে বিরত থাকতে বলুন। আর যারা ক্রিটিক আছেন কিংবা রিভিউ করেন তারা যেন স্পয়লার ফ্রি রিভিউ দেন।

;

শাকিব খানের শরীর নিয়ে হাস্যরস!



মাসিদ রণ, সিনিয়র নিউজরুম এডিটর, বার্তা২৪.কম
শাকিব খানের এই দৃশ্য হাস্যরসের জন্ম দিয়েছে

শাকিব খানের এই দৃশ্য হাস্যরসের জন্ম দিয়েছে

  • Font increase
  • Font Decrease

কিছুদিন আগেই সুপারস্টার শাকিব খানের সঙ্গে মার্কিন এক মডেলের অবকাশ যাপনের ছবি ছড়িয়ে পড়ে সোশ্যাল মিডিয়ায়। পরে জানা যায়, ওটা আসলে একটি বিজ্ঞাপনের দৃশ্য। শাকিব খান ও কেলসি নথেজ একটি বিজ্ঞাপনের মডেল হয়েছেন। বিজ্ঞাপনটি একটি শাবানের। নির্মাণ করেছেন মেধাবী নির্মাতা ইফতেখার চৌধুরী।

এবার সেই বিজ্ঞাপনের শর্ট ভার্সন এসেছে ব্র্যান্ডটির সোশ্যাল মিডিয়া পেজে। পরে সেই ভিডিও শেয়ার করা হয়েছে শাকিব খানের ভেরিফায়েড পেজেও। আর তা দেখেই চক্ষু চড়ক গাছ সবার। ভিডিওর একটি দৃশ্যে দেখা যাচ্ছে শার্টের বাটন খুলে শরীরে হাওয়া খেতে খেতে বিচে ঘুরছেন শাকিব খান। আর সেই দৃশ্যই জন্ম দিয়েছে হাস্যরসের। কারণ এই দৃশ্যে শাকিবের যে বডি স্ট্রাকচার, তাতে দেখা যাচ্ছে সিক্স প্যাক অ্যাবস। আদতে আগে কখনোই শাকিবের এমন আকর্ষনীয় বডি স্ট্রাকচার দেখা যায়নি। 

বিজ্ঞাপনের দৃশ্যে কেলসি নথেজ ও শাকিব খান

তাইতো ভিডিওর কমেন্ট বক্সে অনেকেই শাকিবের সিক্স প্যাক অ্যাবস নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন। অনেকে বলছেন, বিদেশি কোন মডেলের শরীরে শাকিবের মুখ লাগিয়ে দেওয়া হয়েছে! কেউ লিখেছেন, ফেক বডি লাগানোর কী দরকার ছিল?

শাকিব খানের বর্তমান যে অবস্থান তাতে তার কোন কাজে এ ধরনের জিনিস আশা করেন না ভক্তরা। ফলে সমালোচনা আশাটাই স্বাভাবিক।

এই সিক্স প্যাক অ্যাবস কি আসলেই শাকিব খানের?

এবারই প্রথম নয়, ইফতেখারের পরিচালনায় শাকিব খান এর আগে ‘রাজত্ব’ নামে একটি চলচ্চিত্রেও কাজ করেছিলেন। ইফতেখার চৌধুরী বার্তা২৪.কমকে বলেন, ‘লিলি একটি আন্তর্জাতিক ব্র্যান্ড। এই শাবানের বিজ্ঞাপনে অনেক চমক রয়েছে। আস্তে আস্তে সব প্রকাশ করব। ৩০ সেকেন্ডের এই বিজ্ঞাপনের শুটিং হয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের নাসা বাহামাতে। আমার জানা মতে এই লোকেশনে এর আগে বাংলাদেশ তো দূরের কথা, ভারত-পাকিস্তানেরও কোন কাজের শুটিং হয়নি। খুব শিগগিরই বিজ্ঞাপনটি দেশ ও বিদেশের নানা মাধ্যমে প্রচার হবে। এটি একটি সাড়া জাগানো কাজ হবে বলে আমার বিশ্বাস।’

;

ঈদে বৈশাখী টেলিভিশনে ৩০ নাটক!



বিনোদন ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
৭ পর্বের ধারাবাহিক ‘ক্ষমা করে দিও’তে জাহিদ হাসান ও ভাবনা, ‘গানে গানে ঈদ আনন্দ’ অনুষ্ঠানে সালমা

৭ পর্বের ধারাবাহিক ‘ক্ষমা করে দিও’তে জাহিদ হাসান ও ভাবনা, ‘গানে গানে ঈদ আনন্দ’ অনুষ্ঠানে সালমা

  • Font increase
  • Font Decrease

ঈদুল আজহা উপলক্ষে বৈশাখী টেলিভিশনের আয়োজনে থাকছে ৩০টি নাটক, ৭টি সিনেমা ও জনপ্রিয় শিল্পীদের পরিবেশনায় সংগীতানুষ্ঠান, কমেডি শোসহ নানা আয়োজন।

নাটকগুলোর মধ্যে ১৬টি একক, ৭ পর্বের ৫টি ধারাবাহিক এবং ৭টি মেগা ধারাবাহিক। একক নাটকগুলো প্রচার হবে প্রতিদিন রাত ৮টা ১০ মিনিটে এবং ৯টা ৫০ মিনিটে। এর বাইরে ঈদের দিন সকাল ৯টায় প্রচার হবে আল হাজেনের পরিচালনায় একক নাটক ‘বধূ কোন আলো লাগলো চোখে’। অভিনয় করেছেন- তানজিকা আমিন, রহমতউল্লাহ, ইশতিয়াক আহমেদ রুমেল প্রমুখ। সকাল ১০ টায় ‘সেম সেম বাট ডিফরেন্ট’। রাজিবুল ইসলাম রাজিবের রচনায় ও মেহেদী রনির পরিচালনায় এতে অভিনয় করেছেন- মোশারফ করিম, শাকিলা পারভিন, প্রণব সরকার অপু প্রমুখ।

ঈদের দিন সকাল ৯টায় প্রচার হবে আল হাজেনের পরিচালনায় একক নাটক ‘বধূ কোন আলো লাগলো চোখে’। অভিনয় করেছেন তানজিকা আমিন

বাকি ১৪টি একক নাটকের মধ্যে মোশারফ করিম-তাসনুভা তিশার ‘ধরা’, রাশেদ সীমান্ত-অহনার ‘প্রেম পরীক্ষা’, ‘নিলয়-হিমির ‘আত্মীয়’, মোশারফ করিম-রোবেনা রেজা জুঁইয়ের ‘ভাড়ায় বিয়ে’, রাশেদ সীমান্ত-অহনার ‘পুত্রবধূ’, মোশারফ করিম-জুঁইয়ের ‘বিক্রিত জিনিস ফেরত নহে’, জোভান-কেয়া পায়েলের ‘বন্ধুত্ব নাকি প্রেম’, খায়রুল বাসার-তানজিন তিশার ‘মানুষ মানুষ খেলা’, নিলয়- হিমির ‘আমরা বিবাহিত’, তৌসিফ-কেয়া পায়েলের ‘সামার ব্রেক’, মুশফিক ফারহান-মাহি’র ‘শুধু তোমার জন্য’, নিলয়-সাফা কবিরের ‘জান আমার’, জোভান-কেয়া পায়েলের ‘এ হৃদয়’ এবং মোশরফ করিম-নীঞ্জনা নীলার ‘প্রেমের কোনো বয়স নাই’।

ঈদের ৫টি ৭ পর্বের ধারাবাহিক হলো আশরাফী মিঠুর পরিচালনায় জাহের আলভী-জেবা জান্নাত অভিনীত ‘বিবাহ অভিযান’, সরদার রোকনের পরিচালনায় এ্যালেন শুভ্র-সারিকা অভিনীত ‘বিউটি এখন নায়িকা’, জামাল মল্লিকের পরিচালনায় খায়রুল বাসার-নাজিয়া অর্ষা অভিনীত ‘সোনাভান, এস আই সোহেলের পরিচালনায় মীর সাব্বির-ফারহানা মিলি অভিনীত ‘বাপকা বেটা’ এবং হানিফ খানের পরিচালনায় জাহিদ হাসান-আশনা হাবিব ভাবনা অভিনীত ‘ক্ষমা করে দিও’।

মোশরফ করিম-নীঞ্জনা নীলার একক নাটক ‘প্রেমের কোনো বয়স নাই’

ঈদ অনুষ্ঠানমালায় প্রতিদিন রাত ১১টা ৩৫ মিনিট থেকে প্রচার হবে ৭টি মেগা নাটক। নাটকগুলো হলো- আজিজুল হাকিম-দিলারা জামান-মীর সাব্বির অভিনীত ‘কোরবানীর বিরাট হাট’, ইরফান সাজ্জাদ-নাবিলা ইসলাম অভিনীত ‘সাহেব বিবি গোলাম’, আরফান আহমেদ-মৌটুসী বিশ্বাস অভিনীত ‘আমি মানুষ’, সজল- নাদিয়া মিম অভিনীত ‘হৃদয়ে তুমি’, মাসুদ রানা মিঠু-ফাজানা আহসান মিহি অভিনীত ‘পাঁচ টন’, আঁচল-হাসান জাহাঙ্গীর অভিনীত ‘বডিগার্ড’ এবং মুকিত জাকারিয়া-উর্মিলা অভিনীত ‘পরিপূর্ণ ভালোবাসা’।

বিশেষ সংগীতানুষ্ঠানগুলোর মধ্যে ঈদের ৭দিন সকাল ৮টা ১৫ মিনিটে প্রচার হবে ‘বৈশাখীর সকালের গান’। লিটু সোলায়মানের প্রযোজনায় অংশ নেবেন প্রিয়াংকা বিশ্বাস, নাসির, চম্পা বনিক, অনুপমা মুক্তি, সাব্বির, রুমানা ইসলাম ও শবনম প্রিয়াংকা।

 ‘গানে গানে ঈদ আনন্দ’ অনুষ্ঠানে কর্ণিয়া

ঈদের ৭দিন সকাল ১১ টায় প্রচার হবে বিশেষ সংগীতানুষ্ঠান ‘গানে গানে ঈদ আনন্দ’। এ অনুষ্ঠানে অংশ নেবেন কণ্ঠশিল্পী সালমা, সাগর দেওয়ান ও অংকন ইয়াসমিন, কর্ণিয়া, ফকির শাহাবুদ্দীন ও ইসরাত জাহান জুঁই, অপু আনাম ও নদী, খায়রুল ওয়াসী ও মিতু, রাবেয়া সেতু ও জেসি মোশাররফ। অনুষ্ঠানটি উপস্থাপনা করবেন আইনুন পুতুল, তাসনুভা মোহনা, তাবাসসুম প্রিয়াংকা ও তমা রসিদ।
নিকোলাস হীরার প্রযোজনায় এবং চিত্রনায়িকা বৃষ্টি ইসলামের উপস্থাপনায় ঈদের ৭ দিন দুপুর ১ টায় প্রচার হবে চলচ্চিত্রের জনপ্রিয় গান নিয়ে অনুষ্ঠান ‘শুধু সিনেমার গান’। ঈদের দিন দুপুর ১২.৩০ মিনিটে প্রচার হবে কমেডি শো ‘ফানি মোমেন্ট’। দুপুর ১টা ৩০ মিনিটে প্রচার হবে বৈশাখী টিভিতে প্রচারিত বিভিন্ন নাটকে ব্যবহৃত গান নিয়ে বিশেষ অনুষ্ঠান নাটকের গান।

ঈদের তৃতীয় দিন প্রচার হবে রিয়াজ-পূর্ণিমা অভিনীত ‘হৃদয়ের কথা’

ঈদের ৭দিন দুপুর ২টা ৩০ মিনিট থেকে প্রচার হবে ৭টি সিনেমা। ঈদের দিন প্রচার হবে ‘খায়রুন সুন্দরী’। একে সোহেলের পরিচালনায় এ ছবিতে অভিনয় করেছেন মৌসুমী, ফেরদৌস, এটিএম শামসুজ্জামান প্রমুখ। ঈদের দ্বিতীয় দিন প্রচার হবে ‘কথা দাও সাথী হবে’। অভিনয় করেছেন- শাকিব খান, অপু বিশ্বাস, মিশা সওদাগর প্রমুখ। পরিচালনা সোহানুর রহমান সোহান। ঈদের তৃতীয় দিন প্রচার হবে ‘হৃদয়ের কথা’। এসএ হক অলিকের পরিচালনায় এতে অভিনয় করেছেন রিয়াজ, পূর্ণিমা, মৌসুমী প্রমুখ। ঈদের চতুর্থ দিন রয়েছে ‘আমি জেল থেকে বলছি’। মালেক আফসারীর পরিচালনায় এতে অভিনয় করেছেন মান্না, মৌসুমী, নদী, ওমর সানী প্রমুখ। ঈদের ৫ম দিন রয়েছে ‘জীবন মরণের সাথী’। শাহাদৎ হোসেন লিটনের পরিচালনায় এতে অভিনয় করেছেন শাকিব খান, অপু বিশ্বাস, আলমগীর, মিশা সওদাগর প্রমুখ। ঈদের ৬ষ্ঠ দিন প্রচার হবে ‘মনের সাথে যুদ্ধ’। আহমেদ নাসিরের পরিচালনায় এতে অভিনয় করেছেন মান্না, পূর্ণিমা, বাপ্পারাজ প্রমুখ। ঈদের ৭ম দিন প্রচার হবে ‘মিয়া বাড়ির চাকর’। শাহাদৎ হোসেন লিটনের পরিচালনায় এতে অভিনয় করেছেন- শাকিব খান, অপু বিশ্বাস, রাজ্জাক, ফরীদি প্রমুখ।

;

কলকাতার সুপারস্টারদের সঙ্গে একমঞ্চে পুরস্কৃত বাংলাদেশের দুই ভাই



মাসিদ রণ, সিনিয়র নিউজরুম এডিটর, বার্তা২৪.কম
টেলিসিনে অ্যাওয়ার্ড হাতে পোলাক ও স্বপ্নিল সজীব

টেলিসিনে অ্যাওয়ার্ড হাতে পোলাক ও স্বপ্নিল সজীব

  • Font increase
  • Font Decrease

কলকাতার টেলিসিনে অ্যাওয়ার্ডের নিজস্ব ঐতিহ্য রয়েছে। দুই দশকের বেশি সময় ধরে অনুষ্ঠিত হয়ে আসছে এই পুরস্কারের আয়োজন। এতে কলকাতার সিনেমা, গান ও টিভির বর্ষসেরা তারকা ও কলাকুশলীদের পুরস্কৃত করা হয়। তাইতো টেলিসিনে অ্যাওয়ার্ড যেন সেখানকার স্টার-সুপারস্টারদের মিলনমেলায় পরিণত হয়।

তবে গত কয়েক বছর ধরে টেলিসিনে অ্যাওয়ার্ড বাংলাদেশিদের জন্যও স্পেশ্যাল হয়ে উঠেছে। কেননা, এই অ্যাওয়ার্ডে যুক্ত করা হয়েছে বাংলাদেশের শিল্পীদের। গুরুত্ব বিবেচনা করে বাংলাদেশের ২-৪ জন শিল্পীকে টেলিসিনে অ্যাওয়ার্ডে সম্মানীত করা হচ্ছে।

টেলিসিনে অ্যাওয়ার্ডে পুরস্কৃত ইমন চক্রবর্তী, প্রসেনজিৎ চ্যাটার্জি ও মুনমুন সেন

এ বছর ২১ তম টেলিসিনে অ্যাওয়ার্ড অনুষ্ঠিত হলো গত ৯ জুন, কলকাতার নজরুল মঞ্চে। সেখানে পুরস্কৃত হলেন বাংলাদেশের দুই ভাই। তারা কাজিন, এটাই তাদের পরিচয় নয়। তারা দুজনই গুণী র্শিল্পী, একজন গানের, আরেকজন কবিতার। দুজনই কণ্ঠ নিয়ে কাজ করেন। স্বপ্নীল সজীব রবীন্দ্রনাথের গান গেয়ে এরইমধ্যে দেশে বিদেশে প্রশংসা কুড়িয়েছেন, সম্মাননা অর্জন করেছেন। আর সামিউল ইসলাম পোলাক তার ভরাট গলার আবেদনভরা কবিতা পাঠে মুগ্ধ করে চলেছেন শ্রোতাদের। এই শিল্পীর অর্জনও কম নয়। তিনি কাজ করেছেন দেশি বিদেশি বড় বড় সব রেকর্ড কোম্পানির সঙ্গে।

নজরুল মঞ্চ তখন দর্শকে কানায় কানায় পূর্ণ। মঞ্চের প্রথম সারিতে আলোকিত করে বসে আছেন প্রসেনজিৎ চ্যাটার্জি, মুনমুন সেন, চিরঞ্জিত চক্রবর্তী, দেবশ্রী রায়, গৌতম ঘোষ, কৌশিক গাঙ্গুলি, চূর্ণি গাঙ্গুলির মতো রথি মহারথিরা। ঘোষণা করা হল, শ্রেষ্ঠ সংগীতশিল্পী (সমালোচক) পুরস্কার পাচ্ছেন বাংলাদেশের জনপ্রিয় সংগীতশিল্পী স্বপ্নীল সজীব। সকলের অনুরোধে স্বপ্নীল গাইলেন , ‘ধন ধান্য পুষ্পে ভরা’। করতালিতে মুখর হয়ে উঠলো গোটা নজরুল মঞ্চ।

টেলিসিনে অ্যাওয়ার্ডের মঞ্চে স্বপ্নিল সজীব

সজীব এই সম্মান অর্জন করেছেন গ্র্যামি পুরস্কার বিজয়ী পদ্মশ্রী পদ্মভূষণ পণ্ডিত বিশ্ব মোহন ভাটের সাথে তার অসাধারণ যৌথ পরিবেশনা ‘ট্রিবিউট টু টেগোর’-এর জন্য। পুরস্কার গ্রহণের বক্তব্যে, স্বপ্নীল আন্তরিক কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে বলেন, ‘এই সম্মানের জন্য টেলিসিনে অ্যাওয়ার্ডের সম্মানিত জুরি সদস্যদের প্রতি আমার হৃদয় থেকে কৃতজ্ঞতা। আমি সত্যিই বিনীত। আমার সকল ভক্ত ও শ্রোতাদের প্রতি বিশাল ধন্যবাদ—আপনাদের ভালোবাসা ও উৎসাহ আমার জন্য পৃথিবীর সবকিছু।’

টেলিসিনে অ্যাওয়ার্ডের মঞ্চে সামিউল ইসলাম পোলাক

একই দিনে সেরা আবৃত্তিশিল্পীর পুরস্কার অর্জন করেছেন বাংলাদেশের মেধাবী আবৃত্তিশিল্পী সামিউল ইসলাম পোলাক। তিনি এই পুরস্কার পেয়েছেন ভারতের অন্যতম ঐতিহ্যবাহী রেকর্ড কোম্পানি সারেগামা’র ব্যানারে প্রকাশিত তার কবিতার অ্যালবাম ‘কবিতাঞ্জলী’র জন্য। পুরস্কার গ্রহণের ছবি পোস্ট করে পোলাম ফেসবুকে লিখেছেন, ‘আলহামদুলিল্লাহ। টেলিসিনে অ্যাওয়ার্ডকে ধন্যবাদ আমাকে সেরা আবৃত্তিশিল্পী ক্যাটাগরিতে পুরস্কৃত করার জন্য। ধন্যবাদ সারেগামা ও আমার সকল শ্রোতাদের। সবাই আমার জন্য দোয়া করবেন।’

টেলিসিনে অ্যাওয়ার্ডে কৌশিক গাঙ্গুলি, চূর্ণি গাঙ্গুলি ও আবির চ্যাটার্জি

প্রসঙ্গত, এবারের টেলিসিনে অ্যাওয়ার্ডে পুরস্কৃত হয়েছেন প্রসেনজিৎ চ্যাটার্জি, মুনমুন সেন, চিরঞ্জিত চক্রবর্তী, দেবশ্রী রায়, গৌতম ঘোষ, কৌশিক গাঙ্গুলি, আবির চ্যাটার্জি, অঙ্কুশ হাজরা, চূর্ণি গাঙ্গুলি, ইমন চক্রবর্তীর মতো প্রখ্যাত তারকারা।

অঙ্কুশ হাজরার সঙ্গে স্বপ্নিল সজীব
;