ভোটার উপস্থিতি কম, অলস সময় কেটেছে প্রিজাইডিং অফিসার ও এজেন্টদের



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, কুড়িগ্রাম
অলস সময় কেটেছে প্রিজাইডিং অফিসার ও এজেন্টদের

অলস সময় কেটেছে প্রিজাইডিং অফিসার ও এজেন্টদের

  • Font increase
  • Font Decrease

ষষ্ঠ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের ৩য় ধাপে কুড়িগ্রামের ৩টি উপজেলায় শেষ হলো ভোটগ্রহণ। ভোটার উপস্থিতি কম থাকায় ভোট কেন্দ্রে অলস সময় পার করেছেন ভোট গ্রহণের সাথে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা, এজেন্ট ও নিরাপত্তার কাজে নিয়োজিত পুলিশ ও আনসার সদস্যরা। কয়েকটি কেন্দ্রের এজেন্ট ও সহকারী প্রিজাইডিং অফিসারকে বাইরে ঘুরতেও দেখা গিয়েছে।

২৯ মে (বুধবার) কুড়িগ্রামের নাগেশ্বরী উপজেলা দ্বীপচর নারায়নপুর ইউনিয়নের কয়েকটি ভোটকেন্দ্র ঘুরে এমন চিত্র দেখা গেছে। সকাল ১০টা পর্যন্ত কিছু কেন্দ্রের কয়েকটি বুথে একটিও ভোট পড়েনি৷

নারায়নপুর ইউনিয়নের পদ্মারচর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভোটকেন্দ্রের ১ নম্বর বুথের সহকারী প্রিজাইডিং অফিসার জাহাঙ্গীর। দুপুর ২টার কিছু সময় পর তাকে দেখা যায় কেন্দ্র থেকে প্রায় ১০০ গজ দূরের একটি চায়ের দোকানে। চা খেতে খেতে দোকানদারের সাথে খোশগল্পে মেতেছেন তিনি। ভোটগ্রহণ চলাকালে তিনি বাইরে কেন জিজ্ঞেস করলে বলেন, আমি আমার বুথে ২টা পর্যন্ত ৮৭টি ভোট গ্রহণ করেছি। সারাদিনের পাশাপাশি দুপুরে আরও ভোটার উপস্থিতি কম। কিছু ব্যালটে সাক্ষর করে এসেছি। ভোটার আসলে পোলিং অফিসাররা ভোট নেবেন। এরপর বেলা ৩ টায় ভোটকক্ষের উদ্দেশ্যে চায়ের দোকান ত্যাগ করেন তিনি। তার পিছু নিয়ে ১ নম্বর বুথে গিয়ে দেখা যায়, তিনি এক ভোটারের সামনে ১০২ নম্বর ব্যালট পেপার প্রস্তুত করেছেন। এছাড়াও এই কেন্দ্রের কয়েকজন এজেন্টকে এজেন্টের পরিচিত কার্ড পকেটে রেখে বাইরে ঘুরতে দেখা গেছে।

পদ্মারচর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভোটকেন্দ্রে নারী-পুরুষ সহ মোট ভোটার ৩ হাজার ৭২ জন। সকাল সাড়ে ১০ টায় ঐ কেন্দ্রের মোট ৮ টি বুথে ভোট পড়েছে ১২০টি। ৫ নম্বর বুথে সকাল ১০টা পর্যন্ত একটিও ভোট পড়েনি। এরপর দুপুর ২টা পর্যন্ত মোট ভোট পড়েছে ৩৪৮ টি। কেন্দ্রটির প্রিসাইডিং অফিসার মো. আব্দুর রহিম এসব তথ্য দেন। ভোট গ্রহণের শেষ মুহূর্তে প্রতিটি বুথের প্রদানকৃত ভোট হিসেব করে দেখা যায়, মোট ৫০০ জন ভোটার ভোট দিয়েছেন। ৭ নং নারী বুথে সারাদিনে ভোট পরেছে ১৬টি এবং ৮ নং নারী বুথে ১৭টি।

একই ইউনিয়নের মিরকামারী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভোটকেন্দ্রে ১৬৪৭ জন ভোটারের মধ্যে সকাল ১০টা পর্যন্ত ভোট পড়েছে ৮ টি। কেন্দ্রটির প্রিসাইডিং অফিসার গোলাম কিবরিয়া এসব তথ্য দিয়েছেন।

অপরদিকে নারায়নপুর ইউনিয়ন বাজার সংলগ্ন ঢাকডহর এছহাকিয়া দাখিল মাদ্রাসা ভোটকেন্দ্রের মোট ৩ হাজার ১১৫ জন ভোটারের মধ্যে সকাল ১০টা পর্যন্ত ভোট দিয়েছেন ১৬৫ জন এবং দুপুর ২টা পর্যন্ত ভোট দিয়েছেন ৩৫৬ জন। কেন্দ্রটির প্রিসাইডিং অফিসার মো. ছানারুল হক এসব তথ্য জানিয়েছেন।

এই কেন্দ্রের একটি বুথের এজেন্টকে পান হাতে দেখা যায় ভোটকেন্দ্রের বাইরে। ভোট গ্রহণের সময় বাইরে কেন জিজ্ঞেস করলে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এই এজেন্ট বলেন, ভোটার অনেক কম। ১০-১৫ মিনিট পর পর একজন করে আসেন। তাই একটু বাইরে এসে পান নিয়ে যাচ্ছি বাকী এজেন্টদের জন্য।

পদ্মার চর গ্রামের ভোটার নাজির হোসেন (৬০) বলেন, বাড়িতে কাজের চাপ। স্ত্রীকে ভোট দিতে নিয়ে আসি নাই। ভোট নিয়ে মানুষের আগ্রহ কমছে। কারণ চেয়ারম্যান আমাদের দেখতে আসে না।

উল্লেখ্য, এই উপজেলায় চেয়ারম্যান প্রার্থী ৫ জন, ভাইস চেয়ারম্যান ৬ জন, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী ৪ জন৷

নারায়নপুর ইউনিয়নে দ্বায়িত্বে থাকা নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট শরিফ খান বলেন, এই ইউনিয়নে এখন পর্যন্ত অপ্রীতিকর কোনো পরিস্থিতির খবর পাওয়া যায়নি। ভোটার উপস্থিতি নিয়ে আমার মন্তব্য করার এখতিয়ার নেই।

   

পৌর উপনির্বাচন উপলক্ষে সংশ্লিষ্ট

প্রয়োজনে সারারাত ডাকঘর খোলা রাখার নির্দেশ ইসির



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: বার্তা২৪

ছবি: বার্তা২৪

  • Font increase
  • Font Decrease

নারায়ণগঞ্জ জেলার কাঞ্চন পৌরসভার সাধারণ নির্বাচন এবং বরিশাল জেলার গৌরনদী পৌরসভার মেয়রের শূন্যপদে উপনির্বাচন উপলক্ষে ভোটের হিসাব বিবরণী পাঠানোর সুবিধার্থে আগামী ২৬ জুন বুধবার বিকেল ৫টা থেকে প্রয়োজনে সারারাত ও পরের দিন সকাল পর্যন্ত সংশ্লিষ্ট ডাকঘর খোলা রাখার নির্দেশ দিয়েছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)।

শনিবার (১৫ জুন) ইসি নির্বাচন ব্যবস্থাপনা শাখার উপসচিব মো. আতিয়ার রহমান জানিয়েছেন, ইতোমধ্যে নির্দেশনাটি ডাক অধিদফতরের মহাপরিচালককে পাঠানো হয়েছে।

মো. আতিয়ার রহমান বলেন, আগামী ২৬ জুন অনুষ্ঠিতব্য নারায়ণগঞ্জ জেলার কাঞ্চন পৌরসভার সাধারণ নির্বাচন এবং বরিশাল জেলার গৌরনদী পৌরসভার মেয়রের শূন্যপদে উপনির্বাচনে নিয়োজিত প্রিজাইডিং অফিসাররা ভোটগণনার বিবরণীর একটি কপি ডাকযোগে সরাসরি নির্বাচন কমিশনে পাঠাবেন।

ভোটগণনার বিবরণী যথাযথভাবে নির্বাচন কমিশনে পৌঁছানোর জন্য প্রিজাইডিং অফিসার অগ্রিম ডাকমাশুল পরিশোধ না করে কাছাকাছি যে কোনো ডাকঘর থেকে বীমাকৃত ডাকযোগে অথবা প্রাপ্তিস্বীকার রেজিস্টার্ড ডাকযোগে পাঠাবেন।

প্রিজাইডিং অফিসার সংশ্লিষ্ট পোস্ট অফিস থেকে অবশ্যই প্রাপ্তি স্বীকার গ্রহণ করবেন। এমন কী ভোটগ্রহণের পরের দিনও উল্লিখিত খামে প্রাপ্ত ভোটগণনার বিবরণী একই পদ্ধতিতে নির্বাচন কমিশন সচিবালয়ে পাঠানোর ব্যবস্থা করবেন।

উপসচিব মো. আতিয়ার রহমান জানান, প্রিজাইডিং অফিসাররা যাতে অগ্রিম ডাক মাশুল পরিশোধ না করে কাছাকাছি যে কোনো ডাকঘর থেকে ভোটগণনার বিবরণী বীমা করে ডাকে অথবা প্রাপ্তি স্বীকার রেজিস্টার্ড ডাকে সরাসরি নির্বাচন কমিশনে পাঠাতে পারেন, সে জন্য ভোটগ্রহণের জন্য নির্ধারিত দিন অর্থাৎ ২৬ জুন বুধবার বিকেল ৫টা থেকে প্রয়োজনে সারারাত ও পরের দিন সকাল পর্যন্ত সংশ্লিষ্ট ডাকঘরগুলো খোলা রেখে ডাকে পাঠানো ফলাফল বিবরণী জরুরি ভিত্তিতে নির্বাচন কমিশনে পাঠানোর নিশ্চয়তা বিধানের জন্য বিশেষভাবে অনুরোধ করা হয়েছে।

;

৪৬৯ উপজেলায় ৩৬ দশমিক ৫৬ শতাংশ ভোট পড়েছে: সিইসি



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

ষষ্ঠ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে পাঁচ ধাপ মিলিয়ে ৪৬৯ উপজেলায় মোট ৩৬ দশমিক ৫৬ শতাংশ ভোট পড়েছে বলে জানিয়েছেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কাজী হাবিবুল আউয়াল।

সোমবার (১০ জুন) বিকেলে আগারগাঁও নির্বাচন ভবনে রিপোর্টার্স ফোরাম ফর ইলেকশন অ্যান্ড ডেমোক্রেসি এর আয়োজনে 'আরএফইডি টক' অনুষ্ঠানে তিনি এই কথা বলেন।

প্রধান নির্বাচন কমিশনার বলেন, ৪৬৯টি উপজেলায় নির্বাচন সম্পন্ন হয়েছে। অতীতের তুলনায় শান্তিপূর্ণ ও নিরপেক্ষভাবে ভোট সম্পন্ন হয়েছে। সার্বিকভাবে ৩৬ দশমিক ৫৬ শতাংশ ভোট পড়েছে।

তিনি বলেন, এবার নির্বাচন অনেকটা শান্তিপূর্ণভাবে শেষ হয়েছে। অনেকে প্রভাব সৃষ্টি করতে চেয়েছিল, আমাদের তৎপরতায় সফল হয়নি। দেশের নির্বাচন ব্যবস্থা আরও বেশি সংস্কার প্রয়োজন।

;

শেষ হলো স্থগিত ১৯ উপজেলার নির্বাচন, চলছে গণনা



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

ঘূর্ণিঝড় রিমালের প্রভাবে স্থগিত হওয়া দেশের ১৯টি উপজেলায় ভোটগ্রহণ শেষ হয়েছে। শুধু রাঙামাটির বাঘাইছড়ি উপজেলা নির্বাচন ছাড়া দেশের সব উপজেলা পরিষদ নির্বাচন শেষ হলো। এর আগে অন্য উপজেলাগুলোতে দুই ধাপে ভোট শেষ করেছে নির্বাচন কমিশন। 

রোববার (৯ জুন) সকাল ৮টা থেকে শুরু হয়ে এ ভোটগ্রহণ চলে বিকেল ৪টা পর্যন্ত।

এ ধাপেবাগেরহাটের শরণখোলা, মোড়েলগঞ্জ, মোংলা, খুলনা জেলার কয়রা, পাইকগাছা, ডুমুরিয়া, বরিশালের গৌরনদী, আগৈলঝাড়া, পটুয়াখালী জেলার সদর, মির্জাগঞ্জ, দুমকী, পিরোজপুরের মঠবাড়িয়া, ভোলার লালমোহন, তজুমদ্দিন, ঝালকাঠির রাজাপুর, কাঠালিয়া, বরগুনার বামনা, পাথরঘাটা ও নেত্রকোণার খালিয়াজুরী উপজেলায় সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণভাবে ভোটগ্রহণ শেষ হয়েছে।

এর মধ্যে পিরোজপুরের মঠবাড়িয়ায় ইভিএম এবং বাকিগুলোতে ব্যালটের মাধ্যমে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়েছে।

তবে বাগেরহাটের মোংলা উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে এক আনসার সদস্যকে দায়িত্ব পালনে বাধা ও মারধর করার অপরাধে একজনকে ছয় মাসের সশ্রম কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে।

বাকি জেলাগুলোতে শান্তিপূর্ণভাবে ভোটগ্রহণ শেষ হলেও ভোটার উপস্থিতি কম ছিল।

এগুলোতে চেয়ারম্যান পদে ১১৯, ভাইস চেয়ারম্যান পদে ১৩২ ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৭৯ জনসহ মোট ৩৩০ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতায় রয়েছেন। ইসি জানিয়েছে, ১৭৯টি কেন্দ্রে ভোটের আগের দিন এবং ১ হাজার দুইটি কেন্দ্রে ভোটের দিন অর্থাৎ আজ সকালে ব্যালট গেছে।

;

নির্বাচনে দায়িত্ব পালনে বাধা, যুবককে ৬ মাসের কারাদণ্ড



ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, বাগেরহাট
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

বাগেরহাটের মোংলা উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে এক আনসার সদস্যকে দায়িত্ব পালনে বাধা ও মারধর করার অপরাধে একজনকে ছয় মাসের সশ্রম কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে।

রোববার (৯ জুন) পৌর শহরের ৮ নম্বর ওয়ার্ডের মহাসিনিয়া আলিম মাদ্রাসা কেন্দ্রে বেলা সাড়ে ১১টায় ভোট চলাকালে এই ঘটনা ঘটে। এসময় ভ্রাম্যমাণ আদালত বসিয়ে ওই কর্মি শাকিল শেখকে (২১) দণ্ড দেন বাগেরহাট জেলা অতিরিক্ত চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট ড. আতিকুস সামাদ।

তিনি বলেন, মহাসিনিয়া আলিম মাদ্রাসা সেন্টারে নির্বাচনে অন্যদের সাথে ভোটারদের নিরাপত্তার দায়িত্বে ছিলেন আনসার সদস্য মোতালেব হোসেন। এসময় শেহালাবুনিয়া এলাকার মৃত মোস্তফা শেখের ছেলে শাকিল শেখ নামে ওই যুবক নারী ও পুরুষদের সারিবদ্ধ লাইন ভেঙ্গে ভোটকেন্দ্রে ঢোকার চেষ্টা করে। এসময় আনসার সদস্য মোতালেব হোসেন তাকে বাধা দেন। কিন্তু তাকে ধাক্কা দিয়ে মারধর শুরু করেন। এসময় দায়িত্বে থাকা পুলিশ সদস্যরা ঘটনাস্থল থেকে তাকে আটক করেন।

পরে উপজেলা পরিষদ নির্বাচন বিধিমালা, ২০১৩ এর বিধি ৭৬ (গ)-(আ) অনুযায়ী আটক ব্যক্তি তার অপরাধ স্বীকার করে। এরপরে ভ্রাম্যমাণ আদালত বসিয়ে ছয় মাসের সশ্রম কারাদণ্ড ও ৫০০ টাকা জরিমানা করা হয়। জরিমানার টাকা পরিশোধে ব্যর্থ হলে আরও ১৫ দিনের কারাদণ্ড দেওয়া হয় বলেও জানান বিচারক ড.মোঃ আতিকুস সামাদ।

পরে ওই আসামিকে বাগেরহাট জেলা কারগারে পাঠানোর জন্য মোংলা থানায় সোপর্দ করা হয়।

;