দক্ষিণ এশিয়ার পূর্বাংশে সংযোগ বৃদ্ধিতে যে সম্ভাবনা দেখছেন ড. আতিউর



স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইমেরিটাস অধ্যাপক ও বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর ড. আতিউর রহমান বলেছেন, বাংলাদেশের সঙ্গে দক্ষিণ এশিয়ার পূর্বাংশে সংযোগ বৃদ্ধির ফলে দেশসমূহের সঙ্গে সহযোগিতার নতুন সুযোগ সৃষ্টি হচ্ছে। যা বাংলাদেশের উন্নত দেশে রূপান্তরের আত্মবিশ্বাসী লক্ষ্য অর্জনে বিরাট নিয়ামক ভূমিকা রাখবে।

শনিবার (২রা মার্চ, ২০২৪) ভারতের পুনের ম্যারিয়ট হোটেলে পুনে ইন্টারন্যাশনাল সেন্টার আয়োজিত পঞ্চম ‘এশিয়ান ইকোনমিক ডায়লগ’- এর সমাপনী দিনে এক প্যানেল আলোচনায় এসব কথা বলেন তিনি।

ড. আতিউর রহমান বলেন, ‘দক্ষিণ এশিয়ার পূর্বাংশে কানেক্টিভিটি বা সংযোগ আগের চেয়ে অনেকটাই বেড়েছে। বিশেষ করে ভারত ও বাংলাদেশের মানুষে মানুষে, ব্যবসায়- বাণিজ্যে এবং জ্বালানিসহ অর্থনীতির নানা ক্ষেত্রে এই সংযোগ বেড়েছে। এবং সড়ক, রেল ও জলপথের অবকাঠামোর পাশাপাশি আর্থিক ক্ষেত্রে দুই দেশের কেন্দ্রীয় ব্যাংকের মধ্যে সংযোগ বহুলাংশে বৃদ্ধির ফলে নতুন নতুন সহযোগিতার সুযোগ তৈরি হচ্ছে। যা বাংলাদেশের উন্নত দেশে রূপান্তরের আত্মবিশ্বাসী লক্ষ্য অর্জনে বিরাট নিয়ামক ভূমিকা রাখবে।’

তিনি বলেন, ‘নেপাল ও ভূটানের সাথেও বাংলাদেশের দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্য বেড়েছে। ফেনী নদীর ওপর মৈত্রী সেতু পুরোপুরি চালু হলে ত্রিপুরা ও উত্তর-পূর্ব ভারতের অন্যান্য রাজ্যের সাথে বাংলাদেশের যাতায়াত সংযোগ বহুগুণে বাড়বে।’

রাষ্ট্রদূত সুধীর দেভারের সঞ্চালনায় দক্ষিণ এশিয়ার বাড়ন্ত কানেকটিভিটি বিষয়ে এই প্যানেল আলোচনায় দিল্লির আরআইএস গবেষণা প্রতিষ্ঠানের অধ্যাপক ড. প্রবীর দে, দ্য ভুটানিজ পত্রিকার সম্পাদক তেনজিং ল্যামস্যাং এবং নেপালের সেন্টার ফর সাউথ এশিয়ান স্টাডিজের পরিচালক ড. নিশ্চল নাথ পান্ডেও আলোচনায় অংশগ্রহণ করেন।

 

দক্ষিণ এশিয়ায় বাণিজ্য প্রসারের প্রচুর সুযোগ রয়েছে’ প্যানেল আলোচকদের এই আশাবাদের প্রেক্ষিতে ড. আতিউর বলেন, ‘ভৌত অবকাঠামো ছাড়াও ডিজিটাল পেমেন্টসহ শুল্কায়ন ও অন্যান্য সংযোগ বাড়ানোর ক্ষেত্র প্রসারিত হচ্ছে এবং তা আরও বিকাশের সুযোগ রয়েছে। বিশেষ করে এই অঞ্চলের কেন্দ্রীয় ব্যাংকসমূহ ডিজিটাল লেনদেন ও কারেন্সি সোওয়াপের মতো বহুমাত্রিক সংযোগ স্থাপনের কাজ ইতোমধ্যেই শুরু করেছে।

তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় ব্যাংক সবুজ অর্থায়নের সমর্থন দিয়ে ইতোমধ্যে টেক্সট্টাইল ইন্ডাস্ট্রি সবুজ রুপান্তরে বড়ো ধরনের ভূমিকা রেখেছে। আর্থিক অন্তর্ভুক্তির মাধ্যমে কৃষিখাতের উন্নতি ছাড়াও নারী উদ্যোক্তাসহ ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পোদ্যোক্তাদের বিকাশে বাংলাদেশ ব্যাংকের উদ্ভাবনীমূলক ভূমিকার কথা সকলেরই জানা।’

আরবিআই ডিজিটাল লেনদেনের সমন্বিত অবকাঠামো নির্মাণে বড়ো ভূমিকা রেখে চলেছে জানিয়ে বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক এই গভর্নর বলেন, ‘দক্ষিণ এশিয়ার কেন্দ্রীয় ব্যাংকগুলো একে অপরের উত্তম চর্চা থেকে অনেক কিছুই শিখতে পারে এবং এ অঞ্চলের নানামাত্রিক সংযোগের ক্ষেত্রকে নিশ্চয় আরও প্রসারিত করতে পারে।’

জাপানের জাইকা, এডিবি ও বিশ্ব ব্যাংক দক্ষিণ এশিয়ার অর্থনৈতিক সংযোগ বৃদ্ধিতে বিরাট ভূমিকা রাখছে উল্লেখ করে তিনি আরও বলেন, ‘এসবের প্রভাবে এই অঞ্চলের মানুষের দারিদ্র্য নিরসনসহ জীবন মানের উন্নয়নে বড়ো ভূমিকা রাখছে।’

   

আসন্ন ঈদকে ঘিরে প্রস্তুতি নিচ্ছে পোশাকের ব্র্যান্ড শপগুলো



স্টাফ করেস্পন্ডেন্ট বার্তা২৪.কম
ছবি: বার্তা২৪

ছবি: বার্তা২৪

  • Font increase
  • Font Decrease

আসন্ন ঈদুল আজহা’র প্রস্তুতি নিতে শুরু করেছে পোশাকের ব্র্যান্ড শপগুলো। ক্রেতারাও ইতোমধ্যে কেনাকাটা করতে শুরু করে দিয়েছেন। শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত, বাহারি সাজসজ্জার শোরুমগুলোতে ক্রেতা দেখলে কাচের দরজা খুলে অভ্যর্থনা জানিয়ে ভেতরে ডাকছেন দোকানের কর্মীরা। ক্রেতারাও পছন্দের পোশাক কিনতে আসছেন শোরুমগুলোতে। তবে ঈদুল ফিতরের মতো ঈদুল আজহাকে ঘিরে সাধারণ মানুষের কেনাকাটার তেমন একটা আগ্রহ এখনো দেখা যায়নি।

ব্যবসায়ীরা বলছেন, ক্রেতা সমাগম না থাকলেও প্রস্তুতি শুরু করেছেন তারা। আগামী কয়েকদিনের মধ্যে শুরু হতে পারে ঈদুল আজহার বেচাকেনা।

শুক্রবার (২৪ মে) বিকেলে রাজধানীর বসুন্ধরা সিটি কমপ্লেক্সে পোশাকের ব্র্যান্ড শোরুমগুলো ঘুরে দেখা যায়, কিছু কিছু শোরুমে ঈদের কাপড় কিনতে এসেছেন ক্রেতারা। ছেলেরা কিনছেন শার্ট, টিশার্ট ,পাঞ্জাবি, পায়জামা। মেয়েরা টপস, থ্রি-পিস, টু-পিস, শাড়িসহ নানা ড্রেস কিনছেন।

প্রথমতলায় বিশাল খালি জায়গায় মানুষের সমাগম লক্ষ করা গেলেও বেশির ভাগ শোরুমে চলছে নীরবতা। এদিকে, নিচতলায় ‘জেন্টেল পার্ক’ শোরুমসহ বেশ কয়েকটি শোরুমে কেনাকাটা করতে দেখা গেছে ক্রেতাদের।

জান্নাতুল মাওয়া নামে এক ক্রেতা বার্তা২৪.কমকে জানান, রোজার ঈদের সব কেনাকাটা হয়ে গেছে। সামনে ঈদ, তাই নতুন কালেকশন আসছে কি না, দেখতে এসেছি। যদিও একটা ড্রেস কিনেছি। তবে খুব একটা ইচ্ছা নেই এবার। ভালো কিছু পেলে তবেই কিনবো। না-পেলে কিনবো না আর।

মোরশেদ খন্দকার নামে আরেক ক্রেতা বলেন, আসলে কোরবানির ঈদে তেমন কেনাকাটা হয় না। এবার যেহেতু গরম বেশি, সেদিক বিবেচনায় কিছু গরম উপযোগী কাপড় কিনবো পরিবারের সদস্যদের জন্য।

এদিকে, ক্রেতাদের টানতে বেশ কয়েকটি শোরুমে দেওয়া হয়েছে, নির্দিষ্ট পণ্যে মূল্য ছাড়। ৩০ থেকে ৭০ শতাংশ পর্যন্ত মূল্য ছাড় চলছে ব্র্যান্ডের শোরুমগুলোতে।

‘জেন্টাল পার্ক-এর বিক্রয়কর্মী দিহান বলেন, ঈদ কালেকশন শুরু হয়ে গেছে। কোরবানির ঈদে তুলনামূলকভাবে বেচাকেনা কম হয়। তবে মূল্য ছাড় দেওয়ায় ক্রেতা সমাগম হচ্ছে।

‘জেন্টাল পার্ক’-এর বিপরীতে রয়েছে ‘ইয়োলো’ শোরুম। সেখানে ঢুকে দেখা যায়, ভিন্নচিত্র। সেখানে মূল্য ছাড় না থাকায় ক্রেতাদের আনাগোনা কম। এখানে পাঞ্জাবি ৩ হাজার থেকে শুরু করে ৬ হাজার ৫শ টাকা পর্যন্ত রয়েছে। ঈদে বেশকিছু নতুন কালেকশন আনা হয়েছে বলে জানান তারা।

কোরবানি ঈদ উপলক্ষে তেমন একটা কেনাকাটা হয় না বলে জানান বিক্রেতারা। তবে গরম বেশ পড়ায় বিক্রির আশা করছেন তারা, ছবি- বার্তা২৪.কম
 

‘লুক অ্যন্ড লাইক’ শপের মাহফুজ বলেন, মাসের শেষ; তাই বিক্রি কম। তবে আগামী ১ তারিখ থেকে বিক্রি বাড়বে বলে আমরা আশাবাদী। সেভাবেই প্রস্তুতি নিচ্ছি আমরা।

বসুন্ধরা সিটি কমপ্লেক্সের দ্বিতীয়তলার ব্র্যান্ডশপ ‘লুবনান’। পাঞ্জাবির জন্য ব্যাপকভাবে পরিচিত এই শোরুমে ঈদকে ঘিরে বাহারি কালেকশন রাখা হয়েছে।

শোরুমটির ম্যানেজার রিয়াজ হোসেন জানান, সেখানে ২ হাজার ১শ থেকে শুরু করে ১৬ হাজার টাকা পর্যন্ত নানা ধরনের দেশি-বিদেশি কাপড়ের পাঞ্জাবি রয়েছে। ক্রেতারাও বেশ পছন্দ করছেন তাদের ডিসপ্লেতে থাকা পাঞ্জাবিগুলো। আরো কয়েকদিন পর ঈদের বিক্রির চাপ বাড়বে বলে প্রত্যাশা করেন তিনি।

‘লুবনান’-এ ছেলের সঙ্গে পাঞ্জাবি কিনতে আসা ফারহানা আফরোজ বলেন, ঈদের জন্য আগেভাগে এসেছি। পরে ভিড় হয়ে যায়; সাইজ, কালার পাওয়া যায় না ঠিকমতো।

সব মিলে পুরোদমে ব্র্যান্ডের শপগুলোতে কেনাকাটা শুরু না হলেও ব্যবসায়ীরা ভালো বিক্রির আশাবাদী।

;

ছুটির দিনে বেচাকেনায় জমজমাট এসএমই মেলা



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট বার্তা২৪.কম
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে ছুটির দিনে জমে উঠেছে ১১তম জাতীয় ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প পণ্য মেলা ২০২৪।

শুক্রবার (২৪ মে) মেলা ঘুরে দেখা যায়, পোষাক থেকে শুরু করে ঐতিহ্যবাহী রুচিশীল হস্ত ও কুটির শিল্পের বিভিন্ন ধরনের পণ্য সংগ্রহ করতে মেলায় ক্রেতাদের উপচে পড়া ভিড়।

মেলায় ক্রেতাদের জন্য দেশের ভিবিন্ন প্রান্ত থেকে ক্ষুদ্র ও মাঝারি উদ্যোক্তারা তাদের তৈরি বিভিন্ন নকশা করা পোশাক, পাটজাতপণ্য, জুতা, চামড়া পণ্য, প্লাস্টিক, হস্তশিল্প, খাবারসহ বিভিন্ন পণ্যের পসরা সাজিয়ে বসেছেন। ক্রেতাদের আকর্ষণ করতে তারা তাদের পণ্যে দিচ্ছেন বিভিন্ন অংকের নগদ মূল্যছাড়।

সকাল থেকে ক্রেতাদের উপস্থিতি কম থাকলেও ছুটির দিন হওয়ায় দুপুর থেকে মেলায় বাড়তে থাকে ভিড়। পছন্দ অনুযায়ী ক্ষুদ্র ও মাঝারি উদ্যোক্তাদের তৈরি বিভিন্ন ধরণের শতভাগ দেশীয় পণ্য সংগ্রহ করতে পরিবার পরিজন ও আত্মীয়-স্বজনদের সাথে নিয়ে মেলায় উপস্থিত হয়েছেন ক্রেতারা।


তাদের মধ্যে একজন রোমানা আক্তার। রাজধানীর বনানী থেকে মেলায় এসেছেন টাঙ্গাইলের ঐতিহ্যবাহী তাঁতের শাড়ি কিনতে। তিনি বার্তা২৪.কমকে বলেন, প্রশংসা এসএমই একমাত্র মেলা যেখানে শতভাগ দেশীয় পণ্য পাওয়া যায় এবং তুলনামূলক কম দামে। ছুটির দিন হওয়ায় তাই ননদকে সাথে নিয়ে চলে আসলাম শাড়ি কিনতে। পছন্দ হলে অন্যান্য জিনিসপত্রও কিনব।

রাজধানীর কলাবাগান থেকে এসেছেন শায়লা আক্তার জেরিন মেলায় এসেছেন তার পুরো পরিবার নিয়ে। কথা হয় তার সাথে। তিনি বলেন, এসএমই মেলার মত এত পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন মেলা আর কোথাও হয় না। ঐতিহ্যবাহী অসাধারণ সব দেশীয় পণ্য এখানে খুব সহজে পাওয়া যায়। এখানে আসা ক্রেতারাও খুব রুচিশীল হয়। এখানকার পরিবেশটা খুব চমৎকার। যে কারণে পরিবার নিয়ে এখানে স্বাচ্ছন্দে কেনাকাটা করা যায়।

মেলায় প্রতিটি স্টলেই দেখা গেছে উপচে পড়া ভিড়। তবে সন্ধ্যা নামার সাথে সাথে এই ভিড় আরও বাড়তে থাকে। বিভিন্ন স্টলের মধ্যভাগের রাস্তা দিয়ে হাঁটাও যেন ভিড়ের মধ্যে কষ্ট হয়ে যাচ্ছিল। দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে আসা উদ্যোক্তারাও খুশি ক্রেতাদের উপস্থিতিতে। অনেকেই বলছিলেন তাদের প্রত্যাশা অনুযায়ী বেচাকেনা হচ্ছে।

মেলায় অংশগ্রহণ করা ঐতিহ্যবাহী নকশী কাঁথা নিয়ে কাজ করা রাজশাহী নকশী ঘর'র কর্ণধার পারভিন আক্তার বার্তা২৪.কমকে বলেন, কেনাবেচা ভালো হচ্ছে কিন্তু অন্যান্য বছরের তুলনায় একটু কম। তবে গত বুধবার বুদ্ধ পূর্ণিমার ছুটির দিনে কেনাবেচা খুব ভালো হয়েছে।


সূচি শিল্প নিয়ে কাজ করা রংপুর ক্রাফট'র ইলোরা পারভিন বলেন, এসএমই মেলা মানেই বিশেষ কিছু। সুন্দর ও মনোরম পরিবেশের কারণে রুচিশীল ক্রেতারা প্রতিবছরই এ মেলার জন্য অপেক্ষা করে থাকেন। আজকে ছুটির দিন হওয়ায় ক্রেতার উপস্থিতিও ভালো এবং কেনা বেচাও হচ্ছে ভালো।

পাট জাত পণ্য নিয়ে কাজ করা তুলিকা'র কর্ণধার আঞ্জুমান কাকলি বলেন, ক্রেতাদের উপস্থিতি খুব ভালো আলহামদুলিল্লাহ খুব ভালো সেল হচ্ছে। ছুটির দিন নিয়ে আমাদের যে প্রত্যাশা ছিল সে প্রত্যাশাকেও ছাড়িয়ে গেছে।

বেশিরভাগ উদ্যোক্তারা ছুটির দিনের বেচাকেনা নিয়ে সন্তুষ্ট থাকলেও কিছু কিছু উদ্যোক্তারা বলছেন, তাদের বেচাকেনা একদমই ভালো হয়নি। তারা আশা করেছিলেন মেলার শেষ দিনের আগে ছুটির দিনে খুব ভালো একটা বেচাকেনা করবেন।

উল্লেখ্য, গত রোববার (১৯ মে) গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মেলার উদ্বোধন ঘোষণা করেন। ১৯ মে থেকে শুরু হওয়া জাতীয় ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প পণ্য মেলা ২০২৪ শেষ হবে আগামিকাল ২৫ মে (শনিবার)।

;

ই-কমার্স ব্যবসার চ্যালেঞ্জ দূরীকরণে সমন্বিত উদ্যোগ গ্রহণের তাগিদ



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

অনলাইন প্ল্যাটফর্মে ব্যবসা পরিচালনা, লজিস্টিকস ও পেমেন্টের জটিলতা দূর করা এবং ক্রেতাদের আস্থা ফিরিয়ে আনাসহ অন্যান্য চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় এই খাতের অংশীজনদের সমন্বিত উদ্যোগ গ্রহণের আহ্বান জানিয়েছেন শীর্ষ বাণিজ্য সংগঠন এফবিসিসিআই’র সভাপতি মাহবুবুল আলম।

বৃহস্পতিবার (২৩ মে) বিকেলে এফবিসিসিআই’র মতিঝিল কার্যালয়ে আয়োজিত গ্লোবাল ই-কমার্স বিষয়ক স্ট্যান্ডিং কমিটির দ্বিতীয় মিটিংয়ে তিনি এই আহ্বান জানান।

উক্ত সভায় সভাপতিত্ব করেন স্ট্যান্ডিং কমিটির চেয়ারম্যান মোহাম্মদ আব্দুল ওয়াহেদ তমাল। কমিটির ডিরেক্টর ইন-চার্জ হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন এফবিসিসিআই’র পরিচালক সৈয়দ মোঃ বখতিয়ার।

সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এফবিসিসিআই সভাপতি মাহবুবুল আলম বলেন, ক্রেতাদের আস্থা ফেরাতের ই-কমার্স প্ল্যাটফর্মে নকল পণ্য বিক্রি ও প্রতারণা রোধে এই খাতের উদ্যোক্তাদের আরও সতর্ক এবং কঠোর হতে হবে। ক্রসবর্ডার ট্রেডের মূল্য পরিশোধের ক্ষেত্রে যেসব জটিলতা রয়েছে সেগুলো সুনির্দিষ্টভাবে চিহ্নিতকরণ এবং সমাধানের উপায় বেড় করতে হবে। লজিস্টিকস সহ অন্যান্য চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় কাজ করতে হবে।

অনলাইন প্ল্যাটফর্মে ব্যবসা-বাণিজ্যর সম্ভাবনা, প্রতিবন্ধকতা এবং সমাধানের জন্য করণীয় নির্ধারণে উদ্যোক্তা, নীতি নির্ধারক, ই-কমার্স খাতের এক্সপার্ট সহ অংশীজনের উপস্থিতিতে সেমিনার বা সম্মেলন আয়োজনের পরামর্শ দেন এফবিসিসিআই’র সিনিয়র সহ-সভাপতি মোঃ আমিন হেলালী।

স্ট্যান্ডিং কমিটির সকল সদস্যের মতামতের ভিত্তিতে- ই-কমার্স খাত নিয়ে শীঘ্রই একটি পলিসি কনফারেন্স আয়োজন করা হবে বলেন জানানা কমিটির চেয়ারম্যান মোহাম্মদ আব্দুল ওয়াহেদ তমাল।

এ বিষয়ে কমিটির সদস্যবৃন্দের কাছে সুচিন্তিত মতামত আহ্বান করেন কমিটির ডিরেক্টর ইন-চার্জ সৈয়দ মোঃ বখতিয়ার।

ই-কমার্স খাতের ওপর একটি কৌশলপত্র তৈরি এবং পলিসি কনফারেন্স আয়োজনের লক্ষ্যে টেকনিক্যাল কমিটি, গবেষণা সেল তৈরি, ই-কর্মাস বিষয়ক ডেস্ক চালুসহ বেশকিছু প্রস্তাব উঠে আসে মুক্ত আলোচনায়।

সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন, এফবিসিসিআই’র সহ-সভাপতি মিস শমী কায়সার, মোঃ আনোয়ার সাদাত সরকার, পরিচালক হাফেজ হাজী হারুন-অর-রশীদ, মোঃ আবুল হাশেম, এফবিসিসিআই’র সাবেক পরিচালক আবু হোসেন ভূঁইয়া (রানু), কমিটির কো-চেয়ারম্যান ও সদস্যবৃন্দ প্রমুখ।

;

বৃহৎ শিল্পে ‘রাষ্ট্রপতির শিল্প উন্নয়ন পুরস্কার ২০২১’ পেল ‘স্নোটেক্স’



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
বৃহৎ শিল্পে ‘রাষ্ট্রপতির শিল্প উন্নয়ন পুরস্কার ২০২১’ পেল ‘স্নোটেক্স’

বৃহৎ শিল্পে ‘রাষ্ট্রপতির শিল্প উন্নয়ন পুরস্কার ২০২১’ পেল ‘স্নোটেক্স’

  • Font increase
  • Font Decrease

বৃহৎ শিল্প ক্যাটাগরিতে ‘রাষ্ট্রপতির শিল্প উন্নয়ন পুরস্কার ২০২১’ অর্জন করেছে স্নোটেক্স গ্রুপের প্রতিষ্ঠান স্নোটেক্স আউটারওয়্যার লিমিটেড। স্নোটেক্স আউটারওয়্যার লিমিটেড এর পক্ষে এ সম্মাননা গ্রহণ করেন স্নোটেক্স গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক জনাব এস এম খালেদ।

বৃহস্পতিবার (২৩ মে) রাজধানীর ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে ‘রাষ্ট্রপতির শিল্প উন্নয়ন পুরস্কার ২০২১’-এর ক্রেস্ট ও সম্মাননা সনদ প্রদান করেন অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি শিল্পমন্ত্রী জনাব নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন।

শিল্প মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব জাকিয়া সুলতানার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কৃষিমন্ত্রী ড. মোঃ আব্দুস শহীদ ও এফবিসিসিআই’র প্রেসিডেন্ট মাহবুবুল আলম। জাতীয় অর্থনীতির শিল্পখাতে অবদানের স্বীকৃতি, প্রণোদনা সৃষ্টি, সৃজনশীলতাকে উৎসাহিত করা এবং বেসরকারি খাতে শিল্প স্থাপন, কর্মসংস্থান সৃষ্টি ও দেশের অর্থনীতিতে গুরুত্বপূর্ণ অবদানের জন্য শিল্প প্রতিষ্ঠানের শ্রেণিবিন্যাস অনুযায়ী ৬ ক্যাটাগরির মোট ২০টি শিল্প প্রতিষ্ঠান/উদ্যোক্তাকে এই পুরস্কার দেয়া হয়।

যার মধ্যে বৃহৎ শিল্প ক্যাটাগরিতে ৬টি, মাঝারি শিল্প ক্যাটাগরিতে ৩টি, ক্ষুদ্র শিল্প ক্যাটাগরিতে ৪টি, মাইক্রো শিল্প ক্যাটাগরিতে ৩টি, কুটির শিল্প ক্যাটাগরিতে ৩টি এবং হাইটেক শিল্প ক্যাটাগরিতে একটি প্রতিষ্ঠান এই সম্মাননা অর্জন করে।

বৃহৎ শিল্পে ‘রাষ্ট্রপতির শিল্প উন্নয়ন পুরস্কার ২০২১’ পেল ‘স্নোটেক্স’

শিল্প মন্ত্রণালয়ের ‘রাষ্ট্রপতির শিল্প উন্নয়ন পুরস্কার প্রদান সংক্রান্ত নির্দেশনাবলী ২০১৩’ অনুযায়ী ২০১৪ সালে প্রথম বারের মতো এ পুরস্কার দেয়া শুরু হয়। এরই ধারাবাহিকতায় এ বছর সপ্তম বারের মতো ‘রাষ্ট্রপতির শিল্প উন্নয়ন পুরস্কার’ দেয়া হয়েছে।

উল্লেখ্য, ‘স্নোটেক্স’ ২০০০ সালে বায়িং হাউজের মাধ্যমে যাত্রা শুরু করে। ২০০৫ সালে নিজেদের প্রথম কারখানা হিসেবে প্রতিষ্ঠা করে ‘স্নোটেক্স অ্যাপারেলস’। সেই সাফল্যের ধারাবাহিকতায় ২০১১ সালে ‘কাট অ্যান্ড সিউ’ এবং ২০১৪ সালে ‘স্নোটেক্স আউটারওয়্যার লিমিটেড’ প্রতিষ্ঠা করা হয়। সর্বশেষ ২০২০ সালে ‘স্নোটেক্স স্পোর্টসওয়্যার লিমিটেড’ প্রতিষ্ঠা করা হয়। বর্তমানে ‘স্নোটেক্স’ চারটি বড় কারখানার একটি প্রতিষ্ঠান।

এরই মধ্যে স্নোটেক্স আউটারওয়্যার গ্রিন ফ্যাক্টরি হিসেবে অর্জন করেছে ইউএসজিবিসির লিড প্লাটিনাম সার্টিফিকেটে। পাশাপাশি রাষ্ট্রপতির শিল্প উন্নয়ন পুরস্কার ২০২১, গ্রিন ফ্যাক্টরি অ্যাওয়ার্ড, শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের অধীনে ‘হেলথ অ্যান্ড সেফটি’ অ্যাওয়ার্ডসহ প্রতিষ্ঠানটি জাতীয় ট্যাক্সকার্ড ও সেরা করদাতা সম্মাননা-২০২২, জাতীয় রপ্তানি ট্রফি ২০২০-২১, বাংলাদেশ বিজনেস অ্যাওয়ার্ড-২০১৯, জাতীয় রপ্তানি ট্রফি ২০১৯-২০, ন্যাশনাল প্রোডাক্টিভিটি অ্যান্ড কোয়ালিটি এক্সিলেন্স অ্যাওয়ার্ড ২০২১, পেশাগত স্বাস্থ্য ও সেইফটি উত্তম চর্চা পুরস্কার-২০১৭, ফ্যাক্টরি অ্যাওয়ার্ড-২০২০, এসডিজি অ্যাওয়ার্ড, বেস্ট প্র্যাকটিস অ্যাওয়ার্ড-২০১৮ অর্জন করেছে ‘স্নোটেক্স’।

;