নির্বাচন ও পাকিস্তানে গণতন্ত্রের ভবিষ্যৎ



ড. মাহফুজ পারভেজ
নির্বাচন ও পাকিস্তানে গণতন্ত্রের ভবিষ্যৎ

নির্বাচন ও পাকিস্তানে গণতন্ত্রের ভবিষ্যৎ

  • Font increase
  • Font Decrease

২০২৪ সালে বিশ্বের ৭৮ দেশে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়ায় এ বছরকে বলা হচ্ছে নির্বাচনের বছর। গণতন্ত্রের সবচেয়ে বড় উৎসব নামে পরিচিতি নির্বাচন হলেও বিশ্ব কর্তৃত্ববাদের কবল থেকে মুক্ত হতে পারবে কিনা, তা নিয়ে রয়েছে সংশয়। বিশেষ করে, ক্ষয়িষ্ণু গণতন্ত্রের দেশগুলো নিয়ে এমন আশঙ্কা প্রবল। যে দেশগুলোর মধ্যে পাকিস্তান অন্যতম। বৃহস্পতিবার (৮ ফেব্রুয়ারি) সেখানে জাতীয় নির্বাচন।

১৯৪৭ সালে দক্ষিণ এশিয়ায় ভারত ও পাকিস্তান রাষ্ট্রের জন্ম হলেও দেশ দুটির রাজনৈতিক ভাগ্যের গতিপথ ভিন্ন। ভারত সংসদীয় গণতন্ত্রকে বেছে নিলেও পাকিস্তান গণতন্ত্রের পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হতে পারেনি। পাকিস্তান থেকেছে ফৌজি শাসনের বুটের তলায়। ১৯৭১ সালে পাকিস্তানের সামরিক ও বেসামরিক স্বৈরতন্ত্রের রাহুমুক্ত হয়ে গণতান্ত্রিক আকাঙ্ক্ষায় বাংলাদেশ স্বাধীন হয়ে গণতন্ত্রকে আলিঙ্গন করলেও পাকিস্তান সেনা ছাউনির অর্গল মুক্ত হতে পারেনি।

জন্মের ৭৭ বছর পর ২০২৪ সালের নির্বাচন পাকিস্তানে গণতন্ত্রের জন্য শুভ বার্তা বয়ে আনবে বলে বিশ্বাস করা দুষ্কর। বিশেষজ্ঞরা এ বিষয়ে যথেষ্ট সন্দিহান। আয়েশা জালাল মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের টাফ্টস ইউনিভার্সিটির ইতিহাসের অধ্যাপক, 'জার্নাল অব ডেমোক্রেসি'তে এক লেখায় প্রশ্ন তুলেছেন, 'পাকিস্তানে কি গণতন্ত্রের ভবিষ্যৎ আছে?'

পাকিস্তানে গণতন্ত্রের ভবিষ্যৎ যে অন্ধকারাচ্ছন্ন তার তাজা প্রমাণ হলো, দেশটির জাতীয় নির্বাচনের আগের দিন এক স্বতন্ত্র প্রার্থীর অফিসের সামনে বোমা হামলার ঘটনা। পাকিস্তানের বেলুচিস্তানে সে হামলায় নিহতের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ১৫ জন এবং এখন পর্যন্ত আহতের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৩০ জন। হতাহতের সংখ্যা আরো বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

ধারণা করা হয়, পাকিস্তানে সন্ত্রাস ও অগণতান্ত্রিক ব্যবস্থা জারির বিষয়ে ক্যান্টনমেন্টের প্রচ্ছন্ন মদদ থাকে। গণতন্ত্রকে কাজ করতে না দেওয়ার সব রকমের কৌশল আর্মির জানা। কাকে ক্ষমতায় থাকতে দেওয়া হবে আর কাকে দেওয়া হবে না, এ সিদ্ধান্ত গ্রহণের মালিক দেশের জনগণ নয়, আর্মি। মোদ্দা কথায়, সরকার ও রাজনীতিতে পাকিস্তানের সামরিক বাহিনীর একচ্ছত্র প্রভাবের বিষয়টি 'ওপেন সিক্রেট'।

গণতন্ত্রকে নাজেহাল করতে পাকিস্তানের সেনাবাহিনী পছন্দের দল বা নেতাকে ক্ষমতায় আনা-নেওয়ার খেলায় সর্বশেষ ভর করেছিলেন সদ্য কারাবন্দী ইমরান খানকে। তাকে নিয়ে আর্মির পরীক্ষা ব্যর্থ হয়েছে। তিনি ক্যান্টনমেন্টের কব্জায় থাকতে রাজি না হওয়ায় ক্ষমতাচ্যুত হয়ে কারাগারে যেতে বাধ্য হয়েছেন। এর আগে, প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ় শরিফকে যখন সুপ্রিম কোর্ট বরখাস্ত করল, তখনও তার পিছনে আর্মির হাত ছিল।

সর্বশেষ পরিস্থিতি পর্যালোচনায় দেখা যায়, প্রথমে সেনাকর্তাদের চোখে ইমরান খান পছন্দসই ব্যক্তিই ছিলেন— পাকিস্তান মুসলিম লিগ (পিএমএল)-এর নওয়াজ় শরিফের তুলনায়। ২০১৩-তে জাতীয় স্তরে পিএমএল(এন) জিতলেও পাখতুন-প্রধান খাইবার পাখতুনখোয়ায় জয় পেল পিটিআই। তার পর থেকেই শুরু হল ইমরান খানের ধর্না, প্রতিবাদ আন্দোলন। তিনি সঙ্গী পেলেন ইসলামি বুদ্ধিজীবী নেতা তাহির-উল-কাদরিকে। নাগরিক সমাজের একাংশে কাদরি ছিলেন বেশ ক্ষমতাশালী, নওয়াজ় শরিফ ও তাঁর ভাই পাঞ্জাব-নেতা শাহবাজ় শরিফের কঠিন প্রতিপক্ষ। তবে খান-কাদরি আন্দোলনের মধ্যেই ঘটে গেল পেশোয়ারে পাবলিক স্কুলে সন্ত্রাসী হানা, যাতে মারা গেল ১৫০টি শিশু। তারপর পরিস্থিতি দ্রুতই আর্মির নিয়ন্ত্রণে চলে আসে।

যে দেশে ‌গণতন্ত্র প্রথম থেকেই সামরিক-নিয়ন্ত্রিত পুতুল, জাতীয় পার্লামেন্টকে বলীয়ান করা সেখানে একটা অতি জরুরি কাজ হওয়ার কথা, তা হয় নি। তার বদলে তৈরি হয়েছে সামরিক শক্তিবলয়। পাকিস্তানে সকলেই জানে এবং মানে যে ক্ষমতায় পৌঁছনোর সহজতম পথ হল সামরিক বাহিনীকে তোষণ করা। এমন পরিস্থিতিতে বৃহস্পতিবার পাকিস্তানে জাতীয় নির্বাচন। কত দূর স্বাভাবিক, নিরপেক্ষ, গণতান্ত্রিক হতে পারে এই ভোট? এই ভোটে গণতন্ত্রের মুখ দেখতে পাবে পাকিস্তান?

প্রশ্ন অনেক। যার উত্তর জানা নেই। গণতন্ত্র হয়তো বহু সামাজিক-অর্থনৈতিক সঙ্কটের মধ্যে তলিয়ে যাওয়া পাকিস্তানকে বাঁচাতে পারতো। আনতে পারতো রাজনীতির স্থিতি ও ভারসাম্য এবং অর্থনীতির গতি। কিন্তু পাকিস্তানের নির্বাচন ও রাজনীতি সামরিক প্রভাব মুক্ত হতে পারবেন কিনা, সেটাই বড় আশঙ্কার বিষয়, যার মধ্যে নিহিত রয়েছে পাকিস্তানে গণতন্ত্রের ভবিষ্যৎ।

ড. মাহফুজ পারভেজ, প্রফেসর, রাজনীতি বিজ্ঞান বিভাগ, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়; অ্যাসোসিয়েট এডিটর, বার্তা২৪.কম; নির্বাহী পরিচালক, চট্টগ্রাম সেন্টার ফর রিজিওনাল স্টাডিজ, বাংলাদেশ (সিসিআরএসবিডি)।

   

বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থার দুবাই বৈঠক: বাংলাদেশের প্রেক্ষিতে তাৎপর্য ও করণীয়



ড. মোস্তাফিজুর রহমান
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

একটি উত্তরণকালীন স্বল্পোন্নত দেশ হিসেবে বাংলাদেশের জন্য সদ্য সম্প্রতি সময়ে সংযুক্ত আমিরাতের রাজধানী আবুধাবিতে অনুষ্ঠিত বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থার ত্রয়োদশ মন্ত্রী পর্যায়ের সম্মেলন (২৬ ফেব্রুয়ারি-১ মার্চ ২০২৪) ছিল আলাদাভাবে তাৎপর্যপূর্ণ। সুবিদিত যে, বাংলাদেশ নভেম্বর ২০২৬ সালে স্বল্পোন্নত দেশ থেকে স্বল্পোন্নত-বহির্ভূত উন্নয়নশীল দেশে উন্নীত হবে। ত্রয়োদশ বৈঠকে (এম. সি. ১৩) বাংলাদেশের অংশগ্রহণ ছিল ত্রিমাত্রিক পরিচয়কে ধারণ করে: স্বল্পোন্নত দেশ, উত্তরণকালীন স্বল্পোন্নত দেশ ও উন্নয়নশীল দেশ হিসেবে।

বাংলাদেশকে একদিকে স্বল্পোন্নত দেশসমূহের সাথে সংহতি রাখতে হয়েছে; একই সাথে উত্তরণকালীন স্বল্পোন্নত দেশ হিসাবে নিজস্ব স্বার্থকে অগ্রাধিকার দিতে হয়েছে, আবার অন্যদিকে নিকট ভবিষ্যতের একটি উন্নয়নশীল দেশ হিসাবে তার স্বার্থ-সংশ্লিষ্ট বিষয় ও ইস্যু সমূহকেও বিবেচনায় রাখতে হয়েছে। সম্মেলনে নাগরিক সমাজের একজন প্রতিনিধি হিসেবে অংশগ্রহণের অভিজ্ঞতা থেকে বলা যায় যে, এবারের এম.সি. ১৩ তে বাংলাদেশের সরকারি প্রতিনিধি দলের প্রস্তুতি ছিল বেশ ভাল। এ ধরণের সম্মেলনের ক্ষেত্রে প্রস্তুতিমূলক আলোচনা সবসময়ই অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সাথে পরামর্শক্রমে বাংলাদেশের জেনেভাস্থ মিশন জেনেভাতে এম.সি ১২ ও এম. সি. ১৩ এর মধ্যবর্তী সময়ে অনুষ্ঠিত বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থার বিভিন্ন আলোচনায় সক্রিয় ভূমিকা রেখেছে এবং তার সুফল আবুধাবিতে দেখা গেছে। এম. সি. ১৩-তে মাননীয় বাণিজ্য প্রতিমন্ত্রী জনাব আহসানুল ইসলাম এম. পি.’র নেতৃত্বে, বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব ও জেনেভাস্থ বাংলাদেশ মিশন প্রধান ও অন্যান্য সদস্যদের সমন্বয়ে গঠিত সরকারি ডেলিগেশন আবুধাবিতে গ্রিনরুম (বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থাভূক্ত সীমিত সংখ্যক দেশের অংশগ্রহণমূলক আলোচনা) ও সাধারণ আলোচনায় সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণ করেছেন এবং দ্বিপাক্ষিক মতবিনিময়ের বিভিন্ন সুযোগকেও কাজে লাগিয়েছেন। ফলশ্রুতিতে, সর্বক্ষেত্রে সম্ভব না হলেও বেশকিছু গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে সিদ্ধান্তসমূহ বাংলাদেশের অনুকূলে এসেছে, যা সম্মেলন শেষে এম. সি. ১৩ এর মন্ত্রীপর্যায়ের ঘোষণায় প্রতিফলিত হয়েছে।

এবারের মন্ত্রীপর্যায়ের বৈঠকে উত্তরণকালীন স্বল্পোন্নত দেশ হিসেবে বাংলাদেশের অগ্রাধিকারপ্রাপ্ত বিষয় ছিল বেশ কয়েকটি: ক) শুল্কমুক্ত, কোটামুক্ত বাজার সুবিধার প্রসারণ; খ) স্বল্পোন্নত দেশসমূহকে প্রদেয় অন্যান্য আন্তর্জাতিক সহায়তা কার্যক্রমের সময়-নির্দিষ্ট প্রসারণ, গ) মৎস্যখাতের ভর্তুকির আলোচনায় উত্তরণকালীন স্বল্পোন্নত দেশসমূহের জন্য সময়-নির্দিষ্ট বিশেষ সুবিধা; ঘ) বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থার সংস্কার বিষয়ক আলোচনায় বহুপাক্ষিক বাণিজ্য ব্যবস্থায় স্বল্পোন্নত ও উন্নয়নশীল দেশসমূহের স্বার্থের নিশ্চয়তা বিধান। এর বাইরে সরকারি খাদ্য সংগ্রহে প্রদত্ত কৃষি ভর্তুকিকে কৃষিখাতে প্রদত্ত ভর্তুকির সর্বোচ্চ হিসাবের (যা কৃষি জিডিপির ১০% এর সমপরিমাণ) বাইরে রাখা, ই-কমার্সের ওপর ১৯৯৮ সাল থেকে প্রচলিত শুল্ক নিষেধাজ্ঞার সমাপ্তি, বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থার প্রাতিষ্ঠনিক প্ল্যাটফর্মের বাইরে অনুষ্ঠিত বহুপাক্ষিক আলোচনায় অংশগ্রহণ করার বিষয়ে অবস্থান নির্ধারণ ইত্যাদি।

উত্তরণকালীন স্বল্পোন্নত দেশ হিসেবে বাংলাদেশের জন্য সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ছিল শুল্কমুক্ত ও কোটামুক্ত বাজার সুবিধার প্রসারণ। এ বিষয়ে অবশ্য ইতিপূর্বে, ২৩ অক্টোবর ২০২৩-এ বিশ^ বাণিজ্য সংস্থার সাধারণ অধিবেশনে একটি ইতিবাচক সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়েছিল, যা এম. সি. ১৩-তে অনুমোদিত হয়। এ ক্ষেত্রে তিনটি বিষয় প্রণিধানযোগ্যঃ প্রথমত, সিদ্ধান্তটি ‘বেস্ট এনডিয়েভার’ (সেরা প্রচেষ্টা) আকারে গৃহীত হয়েছে, অর্থাৎ এটা মেন্ডেটরি বা বাধ্যতামূলক নয়, বরং সদস্যদের সদিচ্ছার ওপর ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। দ্বিতীয়ত, এক্ষেত্রে কোন সুনির্দিষ্ট সময়ের কথা বলা হয়নি, যদিও স্বল্পোন্নত দেশসমূহের এ সংক্রান্ত প্রথম প্রস্তাবে ১২ বছরের কথা বলা হয়েছিল, যা পরবর্তীতে ৬-৯ বছরে নামিয়ে নিয়ে আসা হয়েছিল। তৃতীয়ত প্রস্তাবটি কেবলমাত্র সেসব দেশের জন্য প্রযোজ্য যাদের স্বল্পোন্নত দেশ-নির্দিষ্ট বাজার সুবিধা স্কিম আছে। উদাহরণস্বরূপ, যেহেতু মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের এধরণের কোন স্কিম নেই, সিদ্ধান্তটি সে দেশের জন্য প্রযোজ্য হবে না।

এতদসত্ত্বেও এ কথা বলার অপেক্ষা রাখে না যে, এম. সি. ১৩-এর সিদ্ধান্তটি বাংলাদেশ ও অন্যান্য উত্তরণকালীন স্বল্পোন্নত দেশের জন্য দ্বিপাক্ষিক আলোচনার মাধ্যমে বাজার সুবিধা সম্প্রসারণের একটি সুযোগ সৃষ্টি করেছে। এখানে উল্লেখ্য যে, ইউরোপিয় ইউনিয়ন (এভরিথিং বাট আর্মস বা ই. বি. এ.) ও যুক্তরাজ্য (ডেভেলপিং কান্ট্রিজ ট্রেডিং স্কিম বা ডি. সি. টি. এস) তাদের স্ব-স্ব এলডিসি স্কিম এর মেয়াদকাল উত্তরণকালীন স্বল্পোন্নত দেশসমূহের জন্য উত্তরণ-পরবর্তী আরো তিন বছর বৃদ্ধির ঘোষণা দিয়েছে। অন্য দেশসমূহের সাথে বাজার সুবিধা সম্পর্কিত আলোচনায় এটা একটা মানবিন্দু (রেফারেন্স পয়েন্ট) হিসেবে ব্যবহার করা যাবে। বাংলাদেশকে এখন দ্বিপাক্ষিকভাবে কানাডা, জাপান, দক্ষিণ কোরিয়া, চীন, ভারতসহ অন্যান্য দেশসমূহের সাথে এম. সি. ১৩ এর সিদ্ধান্তের আলোকে আলোচনা চালিয়ে যেতে হবে। এম. সি. ১৩-তে এ সিদ্ধান্তও হয়েছে যে, উত্তরণকালীন স্বল্পোন্নত দেশসমূহকে কারিগরি সহায়তা ও সক্ষমতাবৃদ্ধিমূলক সাহায্য উত্তরণ পরবর্তীতে আরো তিন বছরের জন্য প্রদান করা হবে।

গুরুত্বপূর্ণ আরেকটি সিদ্ধান্ত হল-উত্তরণকালীন স্বল্পোন্নত দেশসমূহ স্বল্পোন্নত দেশসমূহের অনুরূপ ডিউ রেসট্রেইন্ট (যথাযথ সংযম) সুবিধা উত্তরণ-পরবর্তী আরও তিন বছরের জন্য ভোগ করতে পারবে। এর অর্থ হল-স্বল্পোন্নত দেশ থেকে উত্তরণের পর তিন বছর পর্যন্ত বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থার সদস্যভূক্ত কোন দেশ এসব দেশের বিরুদ্ধে বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থার বিরোধ নিষ্পত্তি বডি (ডিসপিউট সেটেলম্যান্ট বডি)-তে নালিশ করতে পারবে না।

স্বল্পোন্নত দেশগুলি এর বাইরে যেসব সুবিধা ভোগ করে সেসবগুলিও যাতে উত্তরণ-পরবর্তীতে তারা বাড়তি সময়ের জন্য ভোগ করতে পারে এমন একটি প্রস্তাবও রাখা হয়েছিল উত্তরণকালীন স্বল্পোন্নত দেশের স্বার্থসমূহ বিচেনায় রেখে। তবে এ সম্বন্ধে সুনির্দিষ্ট কোন সিদ্ধান্ত এম. সি. ১৩-এ গৃহীত হয়নি। মেধাসত্ব অধিকার, ওষুধ ও মেধাসত্ব অধিকার, রপ্তানিতে ভর্তুকি প্রদান ইত্যাদি ইস্যুতে বাড়তি সময় সুবিধা ভোগ করতে সমর্থ হলে উত্তরণকালীন স্বল্পোন্নত দেশসমূহ, বিশেষ করে বাংলাদেশ, উপকৃত হত। এম. সি. ১৩ এর সিদ্ধান্তে বলা হয়েছে যে, এ সম্বন্ধীয় আলাপ-আলাচেনা জেনেভাতে অব্যাহত থাকবে এবং এম. সি. ১৪-তে এ বিষয়ে আলোচনার ফলাফল উপস্থাপন করা হবে। জেনেভাস্থ বাংলাদেশ মিশন নিশ্চয়ই এম. সি. ১৩ পরবর্তী আলোচনায় সক্রিয় অংশগ্রহণের মাধ্যমে এ সংক্রান্ত প্রস্তাব (তথাকথিত এনেক্স ২ প্রস্তাব) এর প্রেক্ষিতে সুনির্দিষ্ট সিদ্ধান্তে উপনীত হবার জন্য সক্রিয় ভূমিকা রাখবে। বিশেষত বাংলাদেশের ওষুধশিল্পের বিকাশে মেধাসত্ব অধিকার বিষয়ক নমনীয়তার যে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা আছে তা সুবিদিত।

মৎস্য খাতে ভর্তুকি বিষয়ক আলোচনায় কোন সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা যায়নি, যদিও নিয়মবহির্ভূত, অনথিভূক্ত, অপ্রতিবেদিত মৎস্য শিকারের ক্ষেত্রে প্রদেয় ভর্তুকির প্রেক্ষিতে একটি সিদ্ধান্ত এম. সি. ১২-তে গৃহীত হয়েছিল। দ্বিতীয় ধাপের আলোচনায় ধারণক্ষমতার অতিরিক্ত মৎস্য আহরণের ক্ষেত্রে প্রদেয় ভর্তুকি হ্রাস ছিল মূল প্রতিপাদ্য বিষয়।

উত্তরণকালীন স্বল্পোন্নত দেশসমূহকে যাতে মৎস্য খাতে ভর্তুকী প্রদানের ক্ষেত্রে স্বল্পোন্নত দেশসমূহের অনুরূপ সুবিধা দেয়া হয়; বাংলাদেশ সে বিষয়ে সচেষ্ট ছিল, জেনেভাতে এ বিষয়ে যে টেক্সট নিয়ে আলোচনা অনুষ্ঠিত হয়েছিল তাতে মতৈক্যে পৌছান সম্ভব হয়নি (এ সংক্রান্ত টেক্সট-এ অনেক ব্র্যাকেট থেকে গিয়েছিল)। আবুধাবিতে বিশেষতঃ ভারতের সাথে উন্নত ও ধনী দেশসমূহের ভর্তুকি বিষয়ে বিরাজমান বড় পার্থক্যের নিরসন করা সম্ভব হয়নি। ভারতের যুক্তি ছিল ছোট ও আর্টিসানাল মৎস্য শিকারের ক্ষেত্রে প্রদেয় ভর্তুকির ক্ষেত্রে কোন ধরণের সীমা আরোপ করা যাবে না (অন্ততঃ ২৫ বছরের জন্য)। এক্ষেত্রে বাংলাদেশের স্বার্থ ছিল ভারতের অনুরূপ, বিশেষতঃ আগামীর উন্নয়নশীল দেশ হিসেবে।

সামুদ্রিক মৎস্য শিকারে ভর্তুকির ক্ষেত্রে শৈথিল্য প্রাপ্তির জন্য বিশ^ সামুদ্রিক মৎস্য শিকারের ০.৮% এর একটি সীমারেখা আলোচ্য টেক্সটে ছিল, যে সীমারেখাটি বৃদ্ধি করতে বাংলাদেশ সচেষ্ট ছিল (যেহেতু ইলিশকে সামুদ্রিক মাছ হিসেবে গণ্য করলে বাংলাদেশের সামুদ্রিক মৎস্য শিকার ০.৮% এর সীমারেখা অতিক্রম করে)। আলোচ্য টেক্সটে বৃহৎ মৎস্যশিকারী দেশসমূহের বড় বড় সামুদ্রিক মৎস্যশিকারী কোম্পানিসমূহের জন্য প্রদত্ত ভর্তুকির বিষয়ে যেসব ছাড় দেওয়ার প্রস্তাব করা হয়েছে, সে বিষয়েও অনেক উন্নয়নশীল দেশের জোরাল আপত্তি ছিল। অবশ্য এ বিষয়ে কোন সিদ্ধান্ত না হওয়া ও স্থিতাবস্থা বিরাজমান থাকায় বাংলাদেশের সংক্ষুব্ধ হবার তেমন কোন কারণ নেই। তবে এম. সি. ১৩ ও এম. সি. ১৪ এর অন্তবর্তীকালীন আলোচনায় বাংলাদেশকে উত্তরণকালীন স্বল্পোন্নত দেশ ও উন্নয়নশীল দেশ-এ দ্বিবিধ স্বার্থ বিবেচনায় রেখে অংশগ্রহণ করতে হবে।

কৃষিখাত সংক্রান্ত ‘পিস ক্লজ’ এর আলোচনায় বেশ বড় ধরণের মতপার্থক্য থেকে যায় যার কারণে কোন সিদ্ধান্তে উপনীত হওয়া সম্ভব হয়নি। ভারতের প্রদেয় কৃষি খাতের ভর্তুকি ১০% সীমা অতিক্রম করে যদি সরকারি খাদ্য ক্রয়ের ক্ষেত্রে প্রদত্ত ভর্তুকি এ হিসাবের মধ্যে অন্তর্ভূক্ত হয়; ভারতের যুক্তি ছিল এ ভর্তুকি ‘গ্রিন সাবসিডি’র অনুরূপ যেহেতু এর লক্ষ্য হল প্রান্তিক মানুষের জন্য খাদ্য সহায়তা। বেশ কিছু দেশ এর বিরোধিতা করে এই যুক্তি দিয়ে যে, এই খাদ্যের একটি অংশ ভারত আবার রপ্তানিও করে। ভারতের দাবি ছিল ‘পিস ক্লজ’-কে চিরস্থায়ী করা। অন্য বেশ কয়েকটি দেশের অবস্থান ছিল, এ সংক্রান্ত আলোচনা কৃষি খাত বিষয়ক বৃহত্তর পরিসরের আলোচনার অংশ হতে হবে। শেষ অবধি দুই পক্ষের অনড় অবস্থানের কারণে এ বিষয়ে কোন ঐক্যমতে পৌছান সম্ভব হয়নি।

ই-কমার্সের ওপর শুল্ক আরোপে যে নিষেধাজ্ঞা ১৯৯৮ সাল থেকে বর্তমান, সে বিষয়ে ভারত, দক্ষিণ আফ্রিকা ও ইন্দোনেশিয়াসহ বেশ কয়েকটি দেশের অবস্থান ছিল, এতে ই-পণ্য ও সেবা রপ্তানিকারক উন্নত দেশগুলিই লাভবান হচ্ছে; আর আমদানিকারক উন্নয়নশীল দেশসমূহ শুল্ক আহোরণ থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। বাংলাদেশের ক্ষেত্রেও এক অর্থে এই যুক্তি প্রযোজ্য। সিপিডি-র গবেষণায় দেখা যায়, প্রতিবছর বাংলাদেশ সরকার এ নিষেধাজ্ঞার কারণে প্রায় ৪০ মিলিয়ন ডলার শুল্ক থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। ই-কমার্সের ক্ষেত্রে বাংলাদেশের দৃষ্টিভঙ্গি অবশ্য কিছুটা মিশ্র। এক্ষেত্রে বাংলাদেশের রক্ষণাত্মক স্বার্থ (ডিফেন্সিভ ইন্টারেস্ট) যেমন আছে, তেমনি আছে আক্রমণাত্মক স্বার্থ (অফেন্সিভ ইন্টারেস্ট)। তার কারণ বাংলাদেশ সেবাখাতে রপ্তানিও করে থাকে এবং নিষেধাজ্ঞা উঠে গেলে গন্তব্য দেশসমূহে রপ্তানির ওপর শুল্ক আরোপিত হবে যা এসব রপ্তানির প্রতিযোগিতা সক্ষমতার ওপর বিরূপ প্রভাব ফেলতে পারে। আবুধাবিতে সিদ্ধান্ত হয়েছে, যদি পরবর্তী আলোচনায় অগ্রগতি না হয় তাহলে ৩১ মার্চ ২০২৬ বা এম. সি. ১৪ এ দুটোর মধ্যে যেটিই আগে আসবে সে তারিখ থেকে নিষেধাজ্ঞা উঠে যাবে। উত্তরণকালীন স্বল্পোন্নত দেশের ক্ষেত্রে একটি নির্দিষ্ট পরিমাণ রপ্তানির ওপর কোনো শুল্ক বসবে না (নির্দিষ্ট সময়ের জন্য), এমন একটি সিদ্ধান্ত গৃহীত হলে বাংলাদেশের জন্য তা ইতিবাচক হবে।

বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থার সংস্কার বিষয়ক আলোচনা জেনেভা ও পরবর্তীতে আবুধাবি এম. সি. ১৩-তে বিশেষ গুরুত্ব পায়। স্মর্তব্য যে, বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থার ডি. এস. বি. বর্তমানে অনেকাংশে অকেজো হয়ে আছে কারণ সংস্কার আলোচনার পরিসমাপ্তি ব্যতিরেকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ডি. এস. বি.’র আপিল বডিতে কোন নিয়োগ প্রদান করতে বাধা দিচ্ছে। অথচ ডি. এস. বি.’-কে বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থার ‘জুয়েল ইন দি ক্রাউন’ বলা হয় যা এ সংস্থাকে ব্যতিক্রমী বিশিষ্টতা দিয়েছে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রসহ বেশকিছু উন্নত রাষ্ট্রের যুক্তি হচ্ছে ব্যাপক সংস্কারের অনুপস্থিতিতে বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থা কার্যকর ভূমিকা রাখতে ব্যর্থ হচ্ছে। তারা বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থার বিদ্যমান প্রাতিষ্ঠানিক কাঠামো ও চলমান সিদ্ধান্ত গ্রহণ প্রক্রিয়া দুটোরই বিরোধিতা করে আসছে। বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থার ঐকমতভিত্তিক সিদ্ধান্ত ‘সব কিছুতে সহমত না হলে কোন কিছুতেই সিদ্ধান্ত নয়’ (নাথিং ইজ এগ্রিড আনলেস এভরিথিং ইজ এগ্রিড) এবং ‘একক অঙ্গীকার’ (সিঙ্গল আন্ডারটেকিং) -এসব পদ্ধতিগত বিষয়েও প্রশ্ন তোলা হচ্ছে বেশ কিছু উন্নত দেশের পক্ষ থেকে। বিশেষত, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের অবস্থান এসব ক্ষেত্রে অনেকটাই অনড়। এসব বিষয়ে আবুধাবিতে বিশেষ অগ্রগতি হয়নি। উন্নয়নশীল দেশসমূহের অবস্থান হল সংস্কারের নামে বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থাতে যেন শক্তিশালী ও উন্নত দেশসমূহের আধিপত্য প্রতিষ্ঠা না করা হয় এবং যে কোন সংস্কার কর্মসূচির নামে এ সংস্থার ‘উন্নয়ন মাত্রা’ (ডেভেলপমেন্ট ডাইমেনশন) যেন দুর্বল না হয়।

আবুধাবিতে একটি বিষয় স্পষ্ট হয়েছে যে, ভারত, বাংলাদেশের মত দেশসমূহ অংশগ্রহণ না করলেও ‘বহুপাক্ষিক আলোচনা’ (প্লুরিলেটারেল ডিসকাশন) ক্রমান্নয়ে অধিকতর গুরুত্ব পাচ্ছে। বিনিয়োগ (ইনভেস্টমেন্ট ফেসিলেটেশন ফর ডেভেলপমেন্ট), পরিবেশ (ট্রেড অ্যান্ড এনভায়রনমেন্ট সাসটেইনেবিলিটি, স্ট্রাকচারড ডিসকাশন), ই-কমার্স (জয়েন্ট ইনিশেয়েটিভ অন ই-কমার্স) ও অন্যান্য ইস্যুর ওপর বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থার প্রাতিষ্ঠানিক প্ল্যাটফর্ম সমূহের বাইরে অনেক সদস্য দেশ শুল্ক হার, রুলস অ্যান্ড রেগুলেশন সংক্রান্ত আলোচনা চালিয়ে যাচ্ছে।

উদ্দেশ্য হল, ঐক্যমত্য প্রতিষ্ঠিত হলে এসব আলোচনাকে বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থার মূলধারাতে নিয়ে আসা। আবুধাবিতে এভাবেই সেবা সংক্রান্ত অভ্যন্তরীন রেগুলেশন্সকে প্লুরিলেটারেল থেকে বহুপাক্ষিক রূপ দেওয়া হয়েছে, যা পরবর্তীতে সবার জন্য ‘মোস্ট ফেবারড নেশানন্স বা এম. এফ. এন.’ ভিত্তিতে প্রয়োগ হবে। পূর্বেই বলা হয়েছে, বাংলাদেশ এখনো কোন প্লুরিলেটারেল আলোচনায় অংশগ্রহণ করেনি যদিও বেশ কিছু সংখ্যক স্বল্পোন্নত দেশ বেশ ক’টিতে সক্রিয় আছেঃ যেমন-বিনিয়োগ সংক্রান্ত আলোচনায় ২৫টি স্বল্পোন্নত দেশ অংশগ্রহণ করছে। এসব আলোচনায় বাংলাদেশের অংশগ্রহণ করা সমীচীন হবে। তাহলে রুলস নির্ধারণে ও সিদ্ধান্ত গ্রহণে বাংলাদেশ প্রভাব রাখতে পারবে এবং উন্নয়নশীল দেশ সমূহের স্বার্থরক্ষায় অবদান রাখতে পারবে।

স্বল্পোন্নত দেশসমূহের মধ্যে অন্যতম শক্তিশালী অর্থনীতি হিসেবে বাংলাদেশ বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থার বিভিন্ন আলোচনায় ধারাবাহিতভাবে উদ্যোগী ও অগ্রগণ্য ভূমিকা পালন করে আসছে। আগামীতে এ ভূমিকা অব্যাহত রাখতে হবে, একই সাথে উত্তরণকালীন স্বল্পোন্নত দেশ ও উন্নয়নশীল দেশসমূহের স্বার্থও বিবেচনায় রাখতে হবে। বাংলাদেশ সরকার টেকসই উত্তরণের লক্ষ্যে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের আওতায় উচ্চ পর্যায়ের একটি কমিটি গঠন করেছে, যার অধীনে সাতটি উপ-কমিটি কাজ করে যাচ্ছে। ‘স্মুথ গ্রেজুয়েশন’ এর লক্ষ্যে এসব সাব-কমিটি অনেকগুলি সুনির্দিষ্ট পরামর্শও প্রণয়ন করেছে। লক্ষ্য ও সময় নির্দিষ্টভাবে এগুলি বাস্তবায়ন করতে হবে। একই সাথে বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থার অধীনে উন্নয়নশীল সদস্য দেশসমূহকে যেসব বিশেষ ও বিভাজিত (স্পেশাল অ্যান্ড ডিফারেনসিয়াল) সুবিধা দেওয়া হয়েছে এবং উত্তরণশীল স্বল্পোন্নত দেশসমূহের ক্ষেত্রে যেসব বিদ্যমান সুবিধা আছে (যেমন টেকনোলজি ব্যাংক এবং বাণিজ্যের জন্য সহায়তা ফান্ড থেকে উত্তরণ-পরবর্তী আরো পাঁচ বছরের জন্য সহায়তা প্রাপ্তি, এল. ডি. সি. ক্লাইমেট ফান্ড, লিগ্যাল সাপোর্ট) সেগুলিরও সুযোগ নিতে হবে।

বাংলাদেশের জন্যও টেকসই এল. ডি. সি. উত্তরণ-কৌশল প্রণয়ন ও বাস্তবায়নের ক্ষেত্রে একটি মূল করণীয় হতে হবে বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থার এম. সি. ১৩ পরবর্তী আলোচনার প্রেক্ষাপটে বিভিন্ন ইস্যুতে নিজস্ব অবস্থান নির্ধারণ, এসব আলোচনার অভিঘাত বিচার-বিশ্লেষণ ও তার প্রেক্ষিতে কৌশল নির্ধারণ। স্বল্পোন্নত দেশের গ্রুপ থেকে উত্তরণের পূর্বে কেমেরুনে ২০২৬ সালে অনুষ্ঠিতব্য এম. সি. ১৪-ই হবে স্বল্পোন্নত দেশ হিসেবে বাংলাদেশের শেষ মন্ত্রী পর্যায়ের বৈঠক। এসবের প্রেক্ষিতে এম. সি. ১৩ এর পরবর্তীতে জেনেভায় পরিচালিত বিভিন্ন আলোচনায় বাংলাদেশের সক্রিয় অংশগ্রহণ বিশেষ গুরুত্বের দাবি রাখে।

লেখক: সম্মানীয় ফেলো, সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগ (সিপিডি)

;

সময়ের পরিক্রমায় পহেলা বৈশাখ

  ‘এসো হে বৈশাখ’



সায়েম খান
সময়ের পরিক্রমায় পহেলা বৈশাখ

সময়ের পরিক্রমায় পহেলা বৈশাখ

  • Font increase
  • Font Decrease

সপ্তম শতাব্দীতে গৌড় সাম্রাজ্যের সার্বভৌম নৃপতি ও বাংলা অঞ্চলে একীভূত রাষ্ট্রের প্রথম স্বাধীন ও সার্বভৌম রাজা ছিলেন রাজা শশাঙ্ক। রাজা শশাঙ্ক ছিলেন বাংলা, বিহার ও উড়িষ্যার ভূবনেশ্বর পর্যন্ত একচ্ছত্র অধিপতি। তাকে অনেক ইতিহাসবিদ 'গৌড়াধিপতি'ও বলে থাকেন। আজ থেকে একহাজার ৪শ বছর আগে রাজা শশাঙ্কের শাষণামলে তার রাজ্যাভিষেককে স্মরণীয় করে রাখতে সৌরপঞ্জিকার ভিত্তিতে তিনি বঙ্গাব্দের সূচনা করেন। বঙ্গাব্দের প্রথম দিনে এই রাজ্যাভিষেককে ঘিরে নানা উৎসব ও আয়োজনের মাধ্যমে প্রজাদের নিয়ে এই দিনটি উদযাপন করতেন বাংলার প্রথম স্বাধীন রাজা শশাঙ্ক। এজন্য বাংলা নববর্ষের ১২ মাসের নাম নক্ষত্রের নামানুসারে রাখা হয়। 'বিশাখা' নক্ষত্র থেকে বৈশাখ, 'জায়ীস্থা' থেকে জ্যৈষ্ঠ, 'শার' থেকে আষাঢ়, 'শ্রাবণী' থেকে শ্রাবণ, 'ভদ্রপদ' থেকে ভাদ্র, 'আশ্বায়িনী' থেকে আশ্বিন, 'কার্তিকা' থেকে কার্তিক, 'আগ্রায়হণ' থেকে অগ্রহায়ণ, 'পউস্যা' থেকে পৌষ, 'ফাল্গুনী' থেকে ফাল্গুন এবং 'চিত্রা' নক্ষত্র থেকে চৈত্র, এমন করেই নক্ষত্রের নামে মাসের নামকরণ হয়।

কালের বিবর্তনে সেই বঙ্গাব্দ হয়ে যায় ইতিহাস। ষোড়শ শতাব্দীতে ভারতবর্ষে শুরু হয় মোগলদের শাসনামল। মোগলদের শাসনামলে চন্দ্রপঞ্জিকার ভিত্তিতে আরবি মাস গণনার মাধ্যমে "তারিখ-এ-এলাহী" হিজরি বর্ষপঞ্জির প্রচলন ঘটানো হয়। "তারিখ-এ-এলাহীর" ১২ মাসের নাম ছিল 'কার্বাদিন', 'আর্দি', 'বিসুয়া', 'কোর্দাদ', 'তীর', 'আমার্দাদ', 'শাহরিয়ার', 'আবান', 'আজুর', 'বাহাম' ও 'ইস্কান্দার মিজ'।

মাসের এই শব্দগুলো আসলে আরবি ও ফার্সি শব্দ থেকে উদ্ভুত। কিন্তু মোগলদের ও প্রজাদের সমস্যা তৈরি হয় কর আদায়ের ক্ষেত্রে। মোগলদের শাসন ব্যবস্থায় প্রশাসনিক ক্ষেত্রে তৎকালীন ভারতবর্ষের ভূমি ও কৃষি কর আদায়ের ক্ষেত্রে চন্দ্রবর্ষ বা 'হিজরি' সালকে অনুসরণ করা হতো। কৃষকেরা চাষাবাদ করতেন সৌরবর্ষের ভিত্তিতে আর মোগলদের শাসন ব্যবস্থা ভূমি ও কৃষিকর আদায় করতেন চন্দ্রবর্ষের ভিত্তিতে।

চন্দ্রবর্ষ অনুসরণ করলে কর আদায়ের সময় কৃষকদের কাছ থেকে কর আদায় করা যেতো না। কারণ, হিজরি বর্ষের শুরুতে প্রজা সাধারণের কাছে অর্থের অভাব থাকতো। কিন্তু কৃষকেরা নবান্নে ফসল ঘরে তোলার পর বঙ্গাব্দের শুরুতে তাদের কাছে অর্থের জোগান থাকে। সেই ক্ষেত্রে তারা ন্যায্য কর প্রদানে বাধাগ্রস্ত হয় না। এহেন সমস্যা সমাধানের লক্ষ্যে সম্রাট আকবরের দরবারে ডাক পড়ে মোগল সাম্রাজ্যের সেই সময়কার বিখ্যাত জ্যোতির্বিজ্ঞানী ফতেহউল্লাহ সিরাজি'র।

সম্রাটের আদেশে তাকে এই সমস্যার সমাধান করতে বলা হয়। ফতেহউল্লাহ সিরাজি তখন সৌরবর্ষ (বঙ্গাব্দ) ও হিজরি বর্ষকে একীভূত করে বাংলা সনের নিয়ম তৈরি করেন। ফসল কাটা ও খাজনা আদায়ের জন্য এই বছরের নাম দেওয়া হয়েছিল ফসলি সন। পরে তা বঙ্গাব্দ থেকে বাংলা সন করা হয়। বাংলা সনের শুরুর দিন অর্থাৎ পহেলা বৈশাখের দিনে জনসাধারণ কর প্রদান করতে আসতেন রাজ দরবারে। সম্রাট আকবরের পক্ষ থেকে তাদের মিষ্টি বিতরণ করা হতো ও প্রজাদের চিত্ত বিনোদনের জন্য সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হতো।

মোগল সম্রাট আকবরের প্রজাকর আদায়ের এই দিবস সময়ের পরিক্রমায় বাংলা সনের প্রথম দিন 'পহেলা বৈশাখ' হিসেবে রূপান্তরিত হয় বাঙালি সভ্যতার ঐতিহ্য ও আভিজাত্যের প্রতীক হিসেবে। বাঙালির রন্ধ্রে রন্ধ্রে জাগরিত হয় এই উৎসব। বাংলা বর্ষবরণের এই মহোৎসব উদযাপিত হয়, গোটা ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে। যদিও পহেলা বৈশাখ পালন নিয়ে এখনও কিছু বিভেদ আমরা লক্ষ করি। হিন্দু সম্প্রদায়ের তিথি পঞ্জিকা অনুসারে, পহেলা বৈশাখ পশ্চিমবঙ্গে পালিত হয় ১৫ এপ্রিল। আর বাংলাদেশে বাংলা একাডেমির নির্দেশনা অনুযায়ী, গ্রেগরিয় পঞ্জিকা অনুসারে পহেলা বৈশাখ পালিত হয় ১৪ এপ্রিল।

পহেলা বৈশাখ মূল: প্রাচীন হিন্দু নববর্ষ উৎসবের সাথে সম্পর্কযুক্ত যা সনাতন ধর্মের বিক্রমী দিনপঞ্জির সাথে মিল আছে। খ্রিস্টপূর্ব ৫৭ অব্দে রাজা বিক্রমাদিত্য বাংলা দিনপঞ্জির আবির্ভাব করেন বলে অনেক ইতিহাসবিদ মনে করেন। যদিও বিক্রমাদিত্যের বাংলা দিনপঞ্জির আবির্ভাব নিয়ে অনেক ইতিহাসবিদ দ্বিমত পোষণ করেন।

প্রাচীনকাল থেকে ভারতবর্ষের বিভিন্ন অঞ্চলে বিভিন্ন জাতি ও ধর্মের মাঝে বাংলা নববর্ষ পালনের রীতি পরিলক্ষিত হয়। ভারতের আসাম রাজ্যে অসমীয়রা "রঙালি বিহু "উৎসবে মেতে ওঠেন বর্ষবরণের শুরুর এই দিনে। 'বিহু' অসমীয়দের ফসল কেটে ঘরে তোলার পর আনন্দে মেতে ওঠার একটি উৎসব যা বাংলা নববর্ষেরই অনুরূপ। ঠিক তেমনইভাবে ভারতের শিখধর্মের লোকেরাও "বৈশাখী" নামে পহেলা বৈশাখের দিনে উৎসব উদযাপন করেন। একইভাবে থাইল্যান্ডেও "ফ্যাসটিভাল অব ওয়াটার" বা পানি উৎসব নামে বর্ষবরণ উদযাপিত হয়, যাকে থাই ভাষায় বলা হয়ে থাকে 'সংক্রান'। পানি উৎসব দিয়ে বছর শুরুর দিনটি উদযাপনের চিত্র আমরা দেখতে পাই, আমাদের দেশের কিছু প্রাচীন নৃ-গোষ্ঠীর সম্প্রদায়ের মাঝে।

আধুনিককালে পহেলা বৈশাখ উদযাপন শুরু হয়, ১৯১৭ সালে প্রথম বিশ্বযুদ্ধে ব্রিটিশদের বিজয় কামনা করে পূজা অর্চনার মাধ্যমে। একবিংশ শতাব্দীতে নববর্ষ উদযাপনে আমরা দেখতে পাই, এক বাণিজ্যিক ধারার রূপ। বহু প্রাচীন এই উৎসবের ধারায় নেই আগের মতো কোনো স্বকীয়তা। কর্পোরেট কালচার ও পুঁজিবাদের চাপে জৌলুসময় পহেলা বৈশাখ যেন ব্যবসায়িক ফায়দার একটি পন্থা বৈ আর কিছুই নয়। জাতি, ধর্ম, বর্ণ নির্বিশেষে একত্রে মিলে পহেলা বৈশাখ উদযাপনের মাধ্যমে নতুন দিনের ও নতুন বছরের সূচনা হোক এক সুখময় আবেশে।

সায়েম খান, লেখক ও কলামিস্ট

;

বারো মাসে তের পার্বণ

  ‘এসো হে বৈশাখ’



অঞ্জনা দত্ত
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

এবারে আক্ষরিক অর্থেই মনে হইতেছে বারো মাসে তের পার্বণ পালন করিতে যাইতেছি। যদি আমরা ধারণ করিয়া থাকি ধর্ম যার যার উৎসব সবার। তবে কাহারও কাহারও এই বিষয়ে আপত্তি রহিয়াছে। উহারা বলিয়া থাকে ধর্ম অনুসারে উৎসব। অর্থাৎ যাহার যে ধর্ম সে অনুসারে সে উৎসব পালন করিবে। যাহারা এইরকম ভাবে, তাহাদিগকে এই লেখা পড়িতে বারণ করিব। যদিও ইহাতে আপত্তিকর কিছুই নাই। তবে এলার্জির ভাব হইতে কতক্ষণ? নোয়াখালীর মতো সাম্প্রদায়িক জায়গায় বাড়িয়া উঠিয়াও এই প্রৌঢ়ত্বে আসিয়াও ঈদের আনন্দ হৃদয়কে স্পর্শ করিয়া যায় ... ইহা অনুভব করিবার ক্ষমতা ঈশ্বর সবাইকে দেন নাই।

বায়ান্নর ভাষা আন্দোলনের পর হইতে তৎকালীন পাকিস্তান সরকার বুঝিতে পারিল মুসলমানদের জন্য পৃথক রাষ্ট্র গঠন করিবার নিমিত্তে তাহারা যে আশায় পূর্ববাংলাকে দেড় সহস্র মাইল দূরে রাখিয়াও ( দুই অংশ বিভক্ত ভারত দ্বারা) পাকিস্তানের অন্তর্ভুক্ত করিল, মুসলমানদের সংখ্যাগরিষ্ঠতা প্রমাণ করিবার জন্য, সেই আশায় ছাই পড়িল। পূর্বপাকিস্তানে যখন প্রথম টিভি স্টেশন চালু করিল ( ১৯৬৫ সাল) তখনকার সময়ে অত্যন্ত জনপ্রিয় এবং শ্রদ্ধেয়া গায়িকা, যিনি এক কিংবদন্তি শিল্পীর দুহিতা, তাঁহার উপর ফরমান জারি হইয়াছিল টিপ পরিয়া টিভিতে গান পরিবেশন চলিবে না। ফেরদৌসী রহমান সাথে সাথে উত্তর দিয়াছিলেন তাহা হইলে আমি গাহিব না।

বর্তমান সময়ে আমরা এমন তেজোময়ী নারী বা নাগরিকদের দেখিতে পাই না। ইহা যে একটি দেশের সংস্কৃতি হইতে পারে কেহ ভাবিয়া দেখিল না। না তাহারা,যাহারা বাঙালিদের মানুষের মর্যাদা দিতে নারাজ ছিল,না তাহাদের পাচাটা দালালেরা, বাঙালি হইয়াও যাহারা বাংলার কৃষ্টিকে বুকে ধারণ করিত না। আরব দেশে আনন্দ উৎসবে উলুধ্বনি দিয়া তাঁহাদের উল্লাস প্রকাশ করিয়া থাকে। উহাতে তাঁহাদের বেদাত বলিয়া ওয়াজ করিতে কোনো মাওলানাকে শুনি নাই। ধারণা করি উহাদের এইরূপ কথা বলিলে নানাধরণের সমস্যা সৃষ্টি হইতে পারে। অর্থনৈতিক সমস্যা ছাড়াও ইসলাম ধর্মের সর্বোচ্চ তীর্থস্থানে যাইতে অপারগ হওয়ার সম্ভাবনা রহিয়াছে। ইদানীং কোনো কোনো আরব দেশে মন্দির নির্মাণ করিবার অনুমতি দেওয়া হইতেছে। সেখানে কাহারও ধর্মে দাগ পড়িতেছে মর্মে শুনিতে পাই নাই। যত সমস্যা আমাদের দেশে।

বায়ান্নর ভাষা আন্দোলনের পর হইতে তৎকালীন পাকিস্তানি শাসকবর্গের টনক নড়িল। তাহারা বুঝিতে পারিল দুধ দিয়া কালসাপ পুষিবার ন্যায় ভুল করিয়া ফেলিয়াছে৷ তাহারা অন্য পথ ধরিল। ঠিক করিল বাঙালি সংস্কৃতি বলিয়া কিছু থাকিবে না। উহাকে বুলডোজার দিয়া ডলিয়া মাটির সাথে মিশাইয়া দিতে হইবে। ইহা মাথায় রাখিয়া পাকিস্তানি শাসকগোষ্ঠীর একাংশ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের অধ্যাপক এবং সমাজের কয়েকজন গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গকে গভর্নর ভবনে ডাকিয়া আনিয়া জানিতে চাহিল তাঁহারা কেন রবীন্দ্রসঙ্গীত রচনা করিতে পারেন না? বেওকুফ গভর্নর হয়তো বা জানিতও না এই রবীন্দ্রনাথ বাংলাভাষাকে বৃটিশ সাম্রাজ্যের অধীনে থাকিয়া বিশ্বের দরবারে মর্যাদার আসনে অধিষ্ঠিত করিয়াছিলেন।

সে দেখিয়াছে বাঙালিরা বড়ো বেশি তাঁহার ভক্ত। যখন তখন তাঁহার গান গাহিয়া উঠে। হিন্দুর লেখা গান কেন গাহিতে হইবে? রাখিলই বা সে লম্বা দাঁড়ি। আদতে লোকটা যে হিন্দু ( রবীন্দ্রনাথ ব্রাহ্ম ছিলেন। তবে জানিয়া রাখা ভালো যে ব্রাহ্ম সমাজকে সনাতন ধর্মের শাখা বলা যাইতে পারে। উহা প্রবর্তন করিতে ধরণীতে কোনো অবতারের আগমন ঘটে নাই)। হিন্দু শিক্ষিত যুবকদের মধ্যে একাংশ সনাতন ধর্মকে যুগের সাথে তাল মিলাইয়া আধুনিক ধর্মে পরিণত করিতে চাহিয়াছিলেন। তাঁহারা নিরাকার ব্রহ্মে বিশ্বাস করিতেন। সনাতন ধর্মেও নিরাকার ও সাকার দুইভাবেই ঈশ্বরের আরাধনা করা যায়।

তবে সাকার বলিতে ঠাকুরের ছবি বা প্রতিমা গড়িয়া পূজা করিবার কারণ হিসাবে হিন্দু পন্ডিতগণ ঈশ্বরকে একাগ্র মনে ডাকিবার সময়ে নয়ন সন্মুখে কোনো একজন উপাস্যকে রাখিয়া আরাধনা করিতে স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করিয়া থাকেন। ভগবান শ্রীকৃষ্ণ বলিয়াছেন আমি অনুমতি দিয়াছি বলিয়াই উঁহারা তোমাদের পূজা গ্রহণ করেন। তবে মূল কথা হইল " সর্বপ্রকার ধর্ম পরিত্যাগ করিয়া কেবল আমাতেই শরণাগত হও।আমি তোমাকে সমস্ত পাপ হইতে মুক্ত করিব " (কুরুক্ষেত্রের যুদ্ধে ভগবান শ্রীকৃষ্ণ অর্জুনকে বলিয়াছিলেন)। ইহার অর্থ হইল সনাতনধর্মেও একেশ্বরবাদীতে বিশ্বাসী। বাকি যাঁহাদের পূজা করা হইয়া থাকে তাঁহারা কেহই ঈশ্বর নহেন। তাঁহাদের বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন কারণে সৃষ্টি করা হইয়াছে। আবার তেত্রিশ কোটি দেবদবী বলিয়া যাহা বলা হয় তাহা হইল তেত্রিশ প্রকারের দেবদেবী। সংস্কৃতে কোটি শব্দের অর্থ হইল সংখ্যা।

এতখানি পড়িয়া আপনারা গালে হাত দিয়া দয়া করিয়া ভাবিতে বসিবেন না যে সনাতন ধর্মের প্রচার করার নিমিত্তে ইহা লেখা হইতেছে । মোটেই তাহা নহে। ঐ যে বলিয়াছিলাম বারো মাসে তেরো পার্বণ অথবা ধর্ম যার যার উৎসব সবার... এই কথার প্রেক্ষিতে ইহাই বুঝাইতে চাহিয়াছি এই বৎসর ঈদের আনন্দ কাটিতে না কাটিতে বাংলা নববর্ষ আসিয়া হাজির হইল। অনেক বছর যাবত বাংলা নববর্ষ উদযাপন করা লইয়া একশ্রেণির মানুষ (!) পানি ঘোলা করিয়া চলিতেছে।

২০০১ সালে রমনা বটমূলে এর আগের শতক হইতে চলিয়া আসা বাংলা নববর্ষ উদযাপনের সময়ে বোমা হামলা হইয়াছিল। ইহাতে অনুষ্ঠান উপভোগ করার জন্য আগতদের মধ্যে কয়েকজন নিহত হইয়াছিলেন। কেহ বা পঙ্গুত্ব বরণ করিয়াছিলেন। কিন্তু বাংলা নববর্ষ উদযাপন কেহ বন্ধ করিতে সক্ষম হন নাই। যতদিন বাঙালি জাতি বাঁচিয়া থাকিবে, ততদিন ইহা চলিতে থাকিবে৷ ধর্ম এবং জাতিসত্তা যে ভিন্ন জিনিস তাহা বুঝিতে হইবে। ধর্মীয় উৎসব পালন করিতে কেহ বাধা প্রদান করিতেছে না। তাহা হইলে আমাদের জাতির যে বৈশিষ্ট্য উহা পালন করিতে সমস্যা কেন থাকিবে?

সমস্যা অবশ্য গুটিকতক মানুষকে লইয়া। গুটিকতক বলিয়া বিষয়টিকে হালকা করিয়া দেখিবার কোনো উপায় নাই। ইহাদের মধ্যে পাকিস্তানিদের প্রেতাত্মা, মোনায়েম খান, সবুর খান এবং বাংলাদেশ রাষ্ট্রবিরোধীদের প্রেতাত্মারাও রহিয়াছে। দিনে দিনে ইহাদের সংখ্যা বাড়িতেছে কোনো না কোনো মুখোশের আড়ালে। সময় হইয়াছে সমাজের বুদ্ধিজীবী দিকপালদের কেবলমাত্র বক্তৃতা বিবৃতিতে নিজেদের সীমাবদ্ধ না রাখিয়া বাঙালির কৃষ্টি সংস্কৃতির ওপর ষড়যন্ত্র রুখিয়া দিবার জন্য তরুণ প্রজন্মকে তৈরি করার মহান কাজে নিজেদের নিয়োজিত করিবার। যেমন করিয়া সুফিয়া কামাল, সনজিদা খাতুন, কলিম শরাফি, কামাল লোহানি, মোখলেসুর রহমান ( সিধু ভাই) ওয়াহিদুল হক প্রমুখরা ষাটের দশকে মোনায়েম খানদের চোখ রাঙানিকে উপেক্ষা করিয়া ১৯৬১ সালে ছায়ানট প্রতিষ্ঠা করিয়াছিলেন। ১৯৬৪ সালে তাঁহারা রমনার বটমূলে প্রথমবারের মতো বাংলা নববর্ষ উদযাপন করিয়াছিলেন। ইহা অদ্যাবধি চলিতেছে।

বাংলা নববর্ষ উদযাপন করাকে কেন যে একশ্রেণির মনুষ্য আকারের প্রজাতি হিন্দুয়ানি বলিয়া প্রচার করিয়া থাকে উহা এতদিনেও বুঝিতে পারি নাই। এইদিন হিন্দুদের বিশেষ কোনো পূজার আয়োজন নাই। বাংলা সাল গণনা সম্রাট আকবরের সময় হইতে শুরু হয়। ইহার পিছনে অনেক বৃত্তান্ত রহিয়াছে।

বারোমাসে তের পার্বণে ঈদকে যুক্ত করিয়া গণনায় আনিয়াছি। সনাতন ধর্ম হইতে দুইটা পার্বণ বাদ দিয়া ঈদকে যুক্ত করায় আশা করি সনাতন ধর্মাবলম্বীরা মনোকষ্টে ভুগিবেন না। হিসাব করিয়া দেখিতে পারেন হিন্দুরা কী আদৌ বারোমাসে তেরটি উৎসব পালন করিয়া থাকে? হিন্দুদের অনেক ধরনের পূজা অঞ্চল ভিত্তিকও হইয়া থাকে। তবে পার্বণ অর্থ হইল উৎসব, পূজা নহে৷ অতএব ঈদকে তের পার্বণের দুইটি ধরিলে প্রিয় মুসলমান ভাইয়েরা ' ধর্ম গেল ধর্ম গেল' বলিয়া পঞ্চম সুরে তান ধরিবেন না। আসলে আমরা যদি নিজেদের ধর্মীয় পরিচয় অন্তরে রাখিতে পারিতাম এবং মুখে ও আচরণে মানুষ বলিয়া ভাবিতে পারিতাম তাহা হইলে অনেক সমস্যার সমাধান হইয়া যাইত। কিন্তু উহা আদৌ হইবে কী?

লেখক: কথাসাহিত্যিক ও পরিব্রাজক। 

;

উৎসব-আবেগ, উন্নয়নের সুফল ও আমাদের মনোবৃত্তি



আশরাফুল ইসলাম পরিকল্পনা সম্পাদক, বার্তা২৪.কম
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

প্রচলিত একটি কথা আছে, সুখের দিনে আমরা পেছনের স্মৃতিকে দ্রুতই ভুলে যাই। আবার আমরা যত পেতে থাকি আমাদের প্রত্যাশাও ততই বাড়তে থাকে। বাংলাদেশের সাম্প্রতিক দশকে আমূল বদলে যাওয়া প্রযুক্তিগত ও যোগাযোগ অবকাঠামোর কথা উল্লেখ করলে উপরের কথার সারমর্ম বোঝা কঠিন হবে না।

উৎসবপ্রিয় বাঙালির আবেগের ঘনঘটা দেখা যায় প্রধান উৎসবের সময়গুলোতে। জনসংখ্যাধিক্যের বিচারে মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ দেশ হওয়ায় ঈদুল ফিতর ও ঈদুল আজহাতেই যে রাজধানী বা অন্য শহর থেকে জনস্রোত দেশের গ্রাম অভিমুখে দেখা যায় তাই নয়; বছরের কোন সময়ে লম্বা ছুটি পেলেও পরিবারের সঙ্গে সময় কাটানোর জন্য বাঙালিআবেগ লক্ষ্য করার মতো। যা বিশ্বের অন্য কোথাও দেখা যাবে কিনা তা অনুসন্ধানের বিষয়।

প্রায় দুই দশকের মতো রাজধানী থেকে উৎসবের সময়ে গ্রামে যাওয়ার এই স্রোতে শামিল হয়ে নানা রকম অভিজ্ঞতার সঞ্চয় হয়েছে। যেটি বেশ প্রমাণিত সত্য-তা হচ্ছে, এখানকার বাঙালি আবেগ চরিতার্থ করতে উৎসবপ্রিয় মানুষেরা যে কোন ঝুঁকি নিতে প্রস্তুত। এর প্রমাণ মিলবে অন্তত কয়েক দশক ধরে ঈদের কয়েক দিন আগে বা পরের ঈদযাত্রা নিয়ে সংবাদপত্রে প্রকাশিত ছবিগুলোর দিকে লক্ষ্য করলে। সংবাদপত্রের আলোকচিত্রীদের মধ্যে ঈদে ঘরমুখো মানুষদের ছবি তোলার একরকম প্রতিযোগিতা চলে। কে সবচেয়ে বেশি ঝুলন্ত মানুষদের ছবিটি তুলে আনতে পারল!

এবারও যে ট্রেনে বা অন্য যানবাহনে ঝুলে কিছু মানুষ বাড়ি ফেরেনি তা নয়, কিন্তু ঈদে ঘরে ফেরা মানুষদের চিরায়ত যে চিত্র গত কয়েক দশক লক্ষ্য করে এসেছি-তা বোধহয় আর খোঁজে পাওয়া যাবে না। আমরা লক্ষ্য করেছি, গেল এক-দেড় দশকে দেশের যোগাযোগ অবকাঠামোর যে আমূল পরিবর্তন সাধিত হয়েছে তা প্রতিটি জনপদকে রাজধানীর সঙ্গে সহজ যোগাযোগ নেটওয়ার্কের আওতায় এনেছে।

ঢাকা-চট্টগ্রাম, ঢাকা-ময়মনসিংহসহ দেশের অনেকগুলো মহাসড়কই বেশ কয়েক বছর আগেই চার লেনে রূপান্তরিত হয়েছে। আলোচিত যোগাযোগ অবকাঠামো পদ্মাসেতুও দৃশ্যমান বাস্তবতা, ২০২২ সালের ২৫ জুন থেকেই পুরো দক্ষিণবঙ্গকে এই সেতু সহজ যোগাযোগ নেটওয়ার্কে নিয়ে এসেছে। এছাড়া অগণিত বৃহৎ যোগাযোগ অবকাঠামো মানুষের যাতায়াতকে করেছে অনায়াসসাধ্য।

এবারের ঈদযাত্রার অভিজ্ঞতা ছিল অতীতের সবগুলোর চেয়ে সম্পূর্ণ ভিন্ন। কর্মস্থল রাজধানীর বাংলামটর থেকে আমার গ্রাম গাজীপুরের শ্রীপুর উপজেলার শিমুলতলার দুরত্ব (গুগল ম্যাপ অনুযায়ী) ৭৪.৫ কিলোমিটার। রাজধানী সংলগ্ন শিল্পাঞ্চল অধ্যুষিত এই জনপদে যেতেও ঈদ মৌসুমে সময়ভেদে ৫-৬ ঘন্টা পথেই আটকে থাকা যেন অবধারিত হয়ে গিয়েছিল। বিশেষ করে উত্তরবঙ্গের যানবাহনের মিলনস্থল আবদুল্লাহপুর আর গাজীপুর চৌরাস্তা হওয়ায় রাজধানী থেকে বেরুনোর এই দুই প্রবেশপথে ২-৩ ঘন্টা একই স্থানে আটকে থাকতে হতো।

এবার পরিস্থিতি কিছু স্থানে পাল্টেছে। বিশেষ করে রাজধানীর এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে ও গাজীপুরপ্রান্তে বিআরটি প্রকল্পের সুফল এবারের ঈদে ব্যাপকভাবে পেয়েছে মানুষ। যার জন্য রাজধানীর প্রবেশপথের যানজট অনেকটাই এড়ানো গেছে এবার। সড়ক দুর্ঘটনার হারও কমেছে। যদিও ঈদের দিন দুপুরে শ্রীপুর থেকে মাত্র ১ ঘন্টায় গন্তব্যে পৌছে, জানতে পারলাম সদরঘাটে রশি ছিড়ে লঞ্চের ধাক্কায় একই পরিবারের ৩জনসহ মোট ৫ জনের মৃত্যুর খবর। আনন্দের ঈদ যাত্রার মাঝে বিষাদের ছায়া নিয়ে এল এই খবর।

তবে উন্নয়নের সুফল ভোগের সঙ্গে আমাদের নাগরিকদের একথাও মনে রাখা উচিত যে, আমাদের অতীতটা কেমন ছিল। প্রত্যাশা আমাদের থাকতেই হবে, এটি মানবমনের এক অনুষঙ্গ। স্বপ্ন না থাকলে যেমন আমরা এগিয়ে চলি না, বলা হয়ে থাকে মানুষ তার স্বপ্নের সমান বড়। কিন্তু সাম্প্রতিক বাংলাদেশের বিশাল সব উন্নয়নযজ্ঞ বাস্তব রূপ নেওয়ার সঙ্গে আমাদের নাগরিকদের মন-মানসিকতারও পরিবর্তন আসা উচিত। মনের সংকীর্ণতাকে সরানো না গেলে আমাদের প্রকৃত উন্নয়ন হবে না।

অন্ততঃ গেল কয়েকটি বছর প্রবীণ অনেক নাগরিকদের কণ্ঠেই শুনতে পাই, জীবদ্দশায় এমন উন্নয়ন দেখে যেতে পারা তাদের কাছে রীতিমতো বিস্ময়কর! তবে নাগরিকদের কেউ কেউ আবার এই উন্নয়নের সুফল ভোগ করলেও তা স্বীকার করতে কার্পণ্য করেন, সমালোচনায় মুখর হন। এই প্রবণতাও কম মানুষ পোষণ করেন না।

যে উন্নয়নের সুফল জনগণ ভোগ করে, দেশের অর্থনৈতিক গতি-প্রবাহ বাড়ে তা নিঃসন্দেহে প্রণিধানযোগ্য সাফল্য। সকল সরকারেরই সমালোচনার ঢের বিষয় থাকবে। এই সরকারেরও আছে নিশ্চয়ই। কিন্তু উন্নয়ন সাফল্য স্বীকার করতে কুণ্ঠিত হওয়া উচিত নয়। ভারতবর্ষের মুঘল শাসক শাহ জাহান তাঁর প্রিয়তমাপত্নী মুমতাজ মহলের স্মৃতি ধরে রাখতে সমাধিসৌধ তাজমহল নির্মাণে রাজকোষ প্রায় খালি করে ফেলেছিলেন বলে ইতিহাসে লেখা আছে। সেই বিশাল নান্দনিক স্থাপনা বিশ্বের পর্যটকদের আকৃষ্ট করলেও সেই সময়ের জনগণের তা কি কাজে লেগেছিল সেই প্রশ্নও রয়েছে। প্রশ্ন আছে জনহিতের চেয়ে হিন্দুস্থানের শাহেনশাহ ব্যক্তিগত আকাঙ্খাকে বেশি গুরুত্ব দিয়েছিলেন।

সেই বিচারে আমরা সাম্প্রতিক দশকে বাংলাদেশের বৃহৎ সব যোগাযোগ অবকাঠামো জনকল্যাণে ব্যবহৃত হচ্ছে-এনিয়ে কোন সংশয় নেই। উন্নয়নের নানা মানদণ্ডে আলোচনা-সমালোচনা সমকালীন শাসকদের নিয়ে করাই যাবে। বলতে গেলে কেউই তা এড়াতে পারেন না এই সমালোচনা কিন্তু উন্নয়নে জনগণের স্বস্তির ইতিবাচক দিকটিও বিবেচনায় নেওয়া উচিত।

বাংলাদেশের আমূল বদলে যাওয়া তখনি পুরোপুরি সম্ভব হবে, যখন বস্তুগত উন্নয়নের সঙ্গে মানুষের মনেরও উন্নয়ন ঘটবে। মনের উন্নয়নের এই আকাঙ্খায় আমরা এখনও অনেক পিছিয়েই আছি বলা যায়।

কবি অতুল প্রসাদের ভাষায় বলতে হয়, ‘আছে তোর যাহা ভালো/ফুলের মতো দে সবারে/নইলে মনের কালো ঘুচবে নারে’।

 

;