যুক্তরাষ্ট্র আসলে কি চায়? বেরিয়ে আসছে চাঞ্চল্যকর তথ্য 



আশরাফুল ইসলাম, পরিকল্পনা সম্পাদক, বার্তা২৪.কম
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

বাংলাদেশের জাতীয় নির্বাচনকে সামনে রেখে পশ্চিমা দেশসমূহ, বিশেষ করে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের নজিরবিহীন তৎপরতা বেশ চোখে পড়ার মতো। ঢাকায় নিযুক্ত দেশটির দূত পিটার হাস ছাড়াও বাইডেন প্রশাসনের উচ্চ পর্যায়ের একাধিক প্রতিনিধি দলের সাম্প্রতিক সফর নিঃন্দেহে বিশেষ বার্তা বহন করছে।

বাংলাদেশের মানবাধিকার পরিস্থিতি ও ‘সুষ্ঠু নির্বাচনের’ নির্বাচনের জন্য যুক্তরাষ্ট্রের ব্যাকুলতার প্রসঙ্গটি প্রকাশ্যে এলেও শেখ হাসিনা সরকারের ওপর অব্যাহতভাবে প্রচণ্ড চাপ প্রয়োগের নেপথ্য অনেক কারণও বেশ জোরেশোরে আলোচিত হচ্ছে। খোদ সরকার প্রধান শেখ হাসিনাও যুক্তরাষ্ট্রের অতি তৎপরতাকে কড়া ভাষায় সমালোচনার সঙ্গে দেশটির বিদেশনীতির পূর্বাপর প্রেক্ষিত তুলে ধরে সাম্প্রতিক ‘দৌড়ঝাঁপের’ কার্যকারণও জানিয়েছেন।

চলমান এই বাকযুদ্ধের মধ্যে আন্তর্জাতিক কিছু গণমাধ্যমে বাংলাদেশ নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের এই ‘দৌঁড়ঝাঁপ’ নিয়ে গুরুত্বপূর্ণ কয়েকটি নিবন্ধ প্রকাশিত হয়েছে, যেখানে সুনির্দিষ্ট ভূ-রাজনৈতিক স্বার্থসংশ্লিষ্ট কারণে ওয়াশিংটন ঢাকাকে দু’টি সামরিক চুক্তিতে সম্মত করাতে তৎপর হওয়ার তথ্য রয়েছে। ভারতের বিশিষ্ট সাংবাদিক ও নিরাপত্তা বিশ্লেষক সুবীর ভৌমিক সম্প্রতি তাঁর এক নাতিদীর্ঘ নিবন্ধে উল্লেখিত চুক্তি ও অন্যান্য প্রসঙ্গে অনেক নতুন তথ্যের অবতারণা করেছেন।

যুক্তরাষ্ট্রের কাঙ্খিত এই চুক্তি দু’টির আনুষ্ঠানিকভাবে কিছু না জানালেও সুবীর ভৌমিকের নিবন্ধে এর বিস্তারিত উঠে এসেছে। এতে উল্লেখ করা হয়েছে, ‘জেনারেল সিকিউরিটি অব মিলিটারি ইনফরমেশন অ্যাগ্রিমেন্ট বা ‘জিসোমিয়া এবং ‘অ্যাকুইজিশনস অ্যান্ড ক্রস সার্ভিসিং অ্যাগ্রিমেন্ট বা ‘এসিএসএ’নামে এই দুই চুক্তির বাইরে এই অঞ্চলে ‘নোফ্লাই জোন’ প্রতিষ্ঠার জন্যই যুক্তরাষ্ট্র ভূ-রাজনৈতিকভাবে গুরুত্বপূর্ণ বাংলাদেশকে ‘গণতন্ত্র’ ও ‘মানবাধিকার’ ইস্যু সামনে রেখে চাপ প্রয়োগের অপকৌশল নিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। সামরিক কৌশলগত এই চুক্তিতে বাংলাদেশ সম্মত না হলে বর্তমান সরকার উৎখাতে বিরোধীদের সহিংস আন্দোলনে সমর্থনসহ অন্যান্য অর্থনৈতিক অবরোধের চক্রান্তে তৎপর হয়েছে যুক্তরাষ্ট্র।

এ নিয়ে দেশের রাজনৈতিক ও কুটনৈতিক পরিমণ্ডলে নতুন করে বিতর্ক দাঁনা বেধেছে, যেখানে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বাংলাদেশের আসন্ন নির্বাচনকে ঘিরে কুটনৈতিক ‘দৌড়ঝাঁপ’ এর কার্যকারণ পরিস্কার হয়ে যাচ্ছে বলেই মনে করছেন সামরিক বিশ্লেষক ও আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিশেষজ্ঞরা।

সাংবাদিক ও নিরাপত্তা বিশ্লেষক সুবীর ভৌমিক, আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক ড. দেলোয়ার হোসেন এবং নিরাপত্তা বিশেষজ্ঞ মেজর জেনারেল (অবসরপ্রাপ্ত) আবদুর রশীদের কাছে এবিষয়ে জানবার চেষ্টা করেছে বার্তা২৪.কম। তাদের মূল্যায়নে বিশ্বের বৃহৎ শক্তিগুলোর ত্রিমাত্রিক দ্বন্ধে বাংলাদেশকে অন্যায়ভাবে টেনে আনা হয়েছে বলেই মনে করছেন তারা। তবে বাংলাদেশের ভারসাম্যপূর্ণ কুটনীতি ও পরিণত আচরণ, অপরদিকে তিন পরাশক্তি রাশিয়া, চীন ও ভারতের বাংলাদেশ বিষয়ে যুক্তরাষ্ট্র বিরোধী অবস্থান এই সংকটে সহায়ক ভূমিকা রাখবে বলেই মনে করেন তারা।

বাংলাদেশের আসন্ন জাতীয় নির্বাচনকে ঘিরে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সাম্প্রতিক ‘তৎপরতা’বা  ‘অপতৎপরতা, চাপ প্রয়োগ, ভিসানীতি ঘোষণা ইত্যাদির কার্যকারণ আসলে কি, এমন প্রশ্নে সাংবাদিক সুবীর ভৌমিক বলেন, ‘প্রথমেই তিনটি কথা বলার আছে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এখন এবং আগেও নিজেদেরকে গণতন্ত্রের সবচেয়ে শক্তিশালী প্রবক্তা হিসেবে তুলে ধরার চেষ্টা করে, তারাই গণতন্ত্রের ধারক-বাহক। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র বিশ্বযুদ্ধের পর থেকে ২৭টি দেশে মিলিটারি ডিক্টেটর-ফান্ডামেন্টালিস্টদের ক্ষমতায় বসিয়েছে গণতন্ত্রের কোন ধার না ধেরে। বিশেষ করে মুসলিমপ্রধান দেশগুলিতে তারা যখনই গণতন্ত্রের নামে একটা শক্তিশালী স্থানীয় সরকারের পতন ঘটাবার চেষ্টা করেছে বা করতে পেরেছে সেই সুযোগটা সবচেয়ে বেশি ফান্ডামেন্টালিস্টরা নিয়েছে।’

‘চাইনিজ স্টেটের ক্যারেক্টার হচ্ছে-ওদের ব্যবসা-বাণিজ্য..ওই হিসেবপত্র ঠিক থাকলে অন্য সব কিছু ওরা মেনে নেয়। আপনি সরকারে যখন থাকবেন ডিল করবে। আপনি যখন সরকারে নেই আপনার দিকে ফিরেও থাকাবে না। এটা হচ্ছে চাইনিজ মার্কেন্টাইল স্টেট যাকে আমরা বলি। যেখানে বণিকদের মানদণ্ড রাজদণ্ড রূপে দেখা দেয়-রবীন্দ্রনাথের ভাষায়। এই চাইনিজ স্টেট ও আমেরিকান কাউবয়-এই দু’টি জায়গায় তাদের সমস্যা আছে। এখন এখানে বাংলাদেশ কেন গুরুত্ব পাচ্ছে? চায়নার সবথেকে বড় সমস্যা হচ্ছে, তাদের ছোট উপকূল। পূর্বএশিয়ার দিকে ফোকাসড। চায়না এতো বড় একটি মিলিটারি ও ইকনমিক পাওয়ার। তার ব্যবসা-বাণিজ্য সবটাই ওই সিঙ্গাপুরের মালাঙ্কা প্রণালী দিয়ে করতে হয়। ওই জায়গাটা ব্লক করে দিলে ওরা শেষ। এজন্য চাইনিজরা বেল্ট অ্যান্ড রোড ইনিশিয়েটিভের নামে বেশ কতোগুলি করিডোর ল্যান্ড যাকে ‘সি একসেস করিডোর ল্যান্ড’বলে ওরা...ল্যান্ড থেকে সি একসেস-এই যে কৌশল তাদের, মায়ানমার-চায়না ইকনমিক করিডোর, মায়ানমার-পাকিস্তান ইকনিমক করিডোর; এই দুটির অংশ’-যোগ করে মি. ভৌমিক।

ভারতের বিশিষ্ট সাংবাদিক ও নিরাপত্তা বিশ্লেষক সুবীর ভৌমিক

তিনি উল্লেখ করেন, ‘এই জায়গার মাধ্যমে তারা বঙ্গপোসাগর, সেখান থেকে আরব সাগর একসেস পাবে তারা এবং এটা পেলে ভারত মহাসাগরের দিকে যাবে। আমেরিকা ওয়ান্ট টু ব্লক ইট। চায়নার সঙ্গে তাদের বিশ্বব্যাপি প্রতিযোগিতার যে জায়গা তৈরি হয়েছে। এই কম্পিটিশনে সবথেকে গুরুত্বপূর্ণ সিট কে? ভারতবর্ষ। এখন আমেরিকার সাথে আমাদের স্ট্যাটিজিক ডিল আছে, চারটা ফাউন্ডেশনাল এগ্রিমেন্ট আছে। তারপরেও সরাসরি চীনের সঙ্গে খড়গহস্ত হওয়ার ক্ষেত্রে ভারত ততোটা এগোয়নি। বিভিন্ন সময়ে আমেরিকানরা চেয়েছে চায়নার সঙ্গে সংঘাত..তবে ভারত সেটা এড়িয়ে গেছে। ছোটখাটো ক্লেশ যা হয়েছে..তা বেশিদূর গড়ায়নি। এখন যদি চায়না-মায়ানমার ইকনমিক করিডোরটা ব্লক করতে হয় তার জন্য ওরা আরকান আর্মিকে রাখাইন স্টেটে প্রচন্ড রকম সাহায্য করছে। ড্রোন দিচ্ছে, অস্ত্র দিচ্ছে এবং ওরা চাইছে আরাকান আমি যদি তাদের বিচ্ছিন্নতাবাদী সংগ্রামে সফল হয় তখন আলাদা রাষ্ট্র রাখাইন প্রদেশ উঠে আসে, বার্মা ভাঙতে শুরু করে, সেরকম একটা ব্যাপার নিয়ে মার্কিনিরা এগুচ্ছে। তার জন্য যেটা দরকার, ওদের ধারণা যে, এখন আরাকান আর্মি রাখাইন রাজ্যের ২ তৃতীয়াংশ তাদের কন্ট্রোলে..ডিফ্যাক্টো কন্ট্রোল। কার্যতঃ তাদের নিয়ন্ত্রণ রয়েছে।’

‘সেখানে বার্মিজ আর্মি ও বার্মিজ স্টেট মূলতঃ টিকে আছে এয়ার পাওয়ারের জোরে। বার্মিজরা রিসেন্টলি রাশিয়া থেকে প্রচুর এয়ার গানশিপ কিনেছে। চায়না থেকে যুদ্ধ কিমান কিনেছে। এখন সুখুই যুদ্ধ বিমান যেটা ভারতের কাছে আছে সেটাও তারা কিনছে রাশিয়ার কাছ থেকে..এই এয়ার পাওয়ার ব্যবহার করে বিভিন্ন গেরিলা সংগঠন যারা নিজ নিজ এলাকায় মিয়ানমারে বেশ ক্ষমতাশালী হয়ে যাচ্ছে, তারা যাতে শেষ অবধি পুরো ক্ষমতা তার অঞ্চলে করতে না পারে মায়ানমার আর্মি এয়ার পাওয়ার ব্যবহার করে তা আটকে রেখেছে। এখন মার্কিনরা চাচ্ছে এয়ার পাওয়ার দিয়ে কোন মতে রাখাইনই বলুন আর কাচিনই বলুন, চিন বলুন, সাগাাইন বলুন, চারটি পশ্চিম ও পূর্ব-উত্তরের প্রদেশ যেখানে মার্কিনদের বিশেষ ইন্টারেস্ট আছে…এই জায়গাগুলিতে বার্মার সেনাবাহিনীকে গেরিলারা যতোই তৎপর হোক আর পেছনে ঠেলে দিক, শেষ পর্যন্ত পুরো রাজ্যটাকে স্বাধীন করার মতো অবস্থায় তারা যেতে পারেনি মূলত বার্মিজ এয়ার পাওয়ারের জন্য। এজন্য আমেরিকানরা চাইছে, বসনিয়াতে যেমন তারা চেয়েছিল সার্বিয়ান আর্মিকে হিট করার জন্য, এখানে তারা একটি নোফ্লাই জোন করতে চাইছে। মানে হচ্ছে এখানে যাদের মিউচ্যুয়াল এগ্রিমেন্ট হয়েছে এই এয়ার পাওয়ার ব্যবহার করার ক্ষেত্রে.. একটা বা দুটা এয়ারক্রাফট কেরিয়ার বঙ্গপোসাগরে এনে সেখান থেকে যুদ্ধযানগুলো এনে বার্মার এয়ার ফোর্সকে ডেস্ট্রয় করে দিবে এক দুদিনের মধ্যে। তারপরে আরাকান আমি এই জায়গা দখল করার ক্ষেত্রে সক্রিয় হবে এবং এক বা দু’দিনের মধ্যে করে ফেলতে পারবে। এরকম একটা মনোভাব থেকে আমেরিকা এটাকে নো ফ্লাইজোন করতে চাইছে’ -বার্তা২৪.কম-কে বলেন সুবীর ভৌমিক। 

এবিষয়ে যুক্তরাষ্ট্রের মিত্র হিসেবে পরিচিত ভারতের ভূমিকাও স্পষ্ট করেন সুবীর ভৌমিক। তিনি বলেন, ‘এর জন্য ভারতের সাহায্য তারা চেয়েছিল। ভারত অত্যন্ত সুকৌশলে এড়িয়ে গেছে, কেন? ভারত মিয়ানমারে একটা বিরাট রকমের গৃহযুদ্ধ বেঁধে যাক, সেটা চায় না। ভারতের সব সময়ের স্ট্রাটেজি হচ্ছে, এই দক্ষিণ এশিয়াতে কোন দেশ বিগ পওয়ারের কন্ট্রোলে চলে যাবে এটা ভারত চায় না। কারণে তাতে ভারতের গুরুত্ব কমে যাবে। সোজা হিসাব। এখানে আমেরিকা-চায়নার বাড়াবাড়ি হলে ভারত উইল টেক ব্যাক সিট। আমেরিকা এখানে সচেষ্ট হবে। নো ফ্লাই জোন ইমপোজ করবে, চাইনিজরা কি চুপ করে বসে থাকবে। এতে করে একটা বড় রকম শক্তির সংঘাত এখানে বেঁধে যেতে পারে। যেটা ১৯৭৯ এ আফগানিস্তানে হয়েছিল সোভিয়েত ইউনিয়নের আগমনে..ইন্দিরা গান্ধী সোভিয়েত ইউনিয়নের শাসকদের উদ্দেশ্যে মহাকবি শেলীর বিখ্যাত চরণ উদ্ধৃত করে বলেছিলেন, ‘ইফ উইন্টার কামস ক্যান স্প্রিং বি ফার বিহাইন্ড। তিনি বলেছিলেন, ‘তোমরা এখানে ঢুকেছো, আমেরিকানরা এখানে আসবে।’

‘‘আরাকানে আমেরিকা ‘নো ফ্লাই জোন’করতে ভারতকে টানতে চেয়েছিল, কিন্তু ভারত বলেছে, না-আমরা মিয়ানমারের সমস্যা নেগোসিয়েশনের মাধ্যমে সমাধান হোক সেটা চাই। বিভিন্ন সশস্ত্র উপজাতীয় গোষ্ঠি-এদের সঙ্গে ডেমোক্রেটিক দলগুলোর সঙ্গে বার্মিজ মিলিটারি জান্তার কথা বলবে, কথা বলে সমাধান করবে এটা আমরা চাই। আমরা এখানে কোন বলয়ের সংঘাত চাই না। ‘ইউ ডোন্ট মায়ানমার টু এনাদার ইউক্রেন, সো সিম্পল হিসাব..’

যুক্তরাষ্ট্রের নজর কেন বাংলাদেশের দিকে?

এই প্রসঙ্গেও স্পষ্ট জবাব মি. ভৌমিকের, ‘এই জায়গাতে তখন ওরা দেখছে, নো ফ্লাই জোন ইমপোজ করতে গেলে একটা কোন কোস্টাল স্টেটের যাদের দু-একটা বন্দর আছে গ্লোবাল। এখানে বৃহৎ জাহাজ নোঙর করতে পারে। এরকম জায়গায়, একটা রাষ্ট্র যে ভারতের মতো এতো কায়দা-কানুন করবে না, এতো বার্গেনিং পাওয়ার যাদের নেই তাকে। সেটা কে? সেই রাষ্ট্রটা এখানে বাংলাদেশ। তারা বাংলাদেশকে, শেখ হাসিনাকে বোঝাচ্ছে, তোমাদের যে রিফিউজি প্রবলেম ছিল, বাঙালি রিফিউজি প্রবলেম ৭১-এ এটা ভারত কিভাবে টেকেল করলো? তোমরা যে রোহিঙ্গাদের ফেরত পাঠাতে চাচ্ছো, এবং মায়ানমার সেটা কৌশলে বার বার এড়িয়ে যাচ্ছে-এটি একমাত্র সম্ভব হবে যদি এখানে মিয়ানমারের সেনাবাহিনী ও রাষ্ট্রশক্তি পুরোপুরি পর্যুদস্ত হয়। পিছু হটতে বাধ্য হয়। একটি স্বাধীন আরাকান-রাখাইন প্রদেশ করা যায়, আরাকান আর্মি তো ইতিমধ্যে বলেছে যে রোহিঙ্গারা আমাদের ভাই। তাহলে এই রিফিউজিদেও ফেরত পাঠানো যাবে। এসব নানারকম যুক্তি দিয়ে শেখ হাসিনাকে লাইনে ফেলতে চাইছে ওরা। যাতে এই নো ফ্লাই জোন ইমপ্লিমেন্ট করার ক্ষেত্রে বা যদি প্রয়োজন পড়ে মিয়ানমারে মিলিটারি ইন্টারভেনশন সেক্ষেত্রে বাংলাদেশকে তাদের প্রয়োজন। কিন্তু শেখ হাসিনাও অত্যন্ত পরিণত রাজনীতিবিদ। তিনিও বোঝেন ব্যাপারটা যে আমেরিকা ধানাইপানাই করছে।’

যুক্তরাষ্ট্রের তথাকথিত ‘গণতন্ত্র’ আর ‘মানবাধিকার’ ইস্যুটি প্রকৃত ইস্যু নয় সেই দাবি করে জ্যেষ্ঠ এই সাংবাদিক বলেন, ‘আমেরিকার দুটি অস্ত্র আছে-হিউম্যান রাইটস আরেকটা ডেমোক্রেসি। আমি এটি বলছি না যে বাংলাদেশে গণতন্ত্র একেবারে দুর্দান্ত অবস্থায় আছে। দুটো নির্বাচন নিয়ে নানা রকম প্রশ্ন আছে। বাংলাদেশে গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়া শক্তিশালী হবে বাংলাদেশের অর্থনীতি শক্তিশালী হবে-এতে ভারতের একটি নিবদ্ধ স্বার্থ আছে। কেন, বাংলাদেশ যদি একটা গরীব রাষ্ট্র, পাকিন্তানের মতো একটা ফেইল স্টেট হয়, এতে লক্ষ লক্ষ লোক ভারতে আসবে। এতে ভারতের সীমান্তবর্তী রাজনীতিতে নানারকম সমস্যা তৈরি হবে। খানিকটা যেমন আসামে আমরা দেখছি। ভারত চায় বাংলাদেশ শক্তিশালী ইকনমি হবে। তাতে ভারতের অপেক্ষকৃত পিছিয়ে থাকা পূর্বাঞ্চলীয় ও উত্তর পূর্বাঞ্চলীয় রাজ্যগুলির উন্নয়ন দ্রুততর হবে। এটা দুজনের জন্য উইন-উইন সিচুয়েশন দুজনের জন্য। এইখানে আমেরিকার সঙ্গে বাংলাদেশকে নিয়ে ভারতের বিরাট পার্থক্য রয়েছে। ভারত চায় বাংলাদেশের ইকনমি ডেভেলপ হবে। বাংলাদেশে একটা স্টেবেল সরকার থাকবে। ভারতের কাছে স্থিতিশীলতা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। আর আমেরিকার গণতন্ত্র-টন্ত্র  করছে, নো ফ্লাই জোন করতে চাইছ কিন্তু ভারত তা চাইছে না। বাংলাদেশ এখানে এমন একটা কিছু করুক আমেরিকাকে নিয়ে এটা ভারত চায় না। ভারত চায় না, চীন উত্তেজিত হয়ে এই অঞ্চলে নতুন করে গোলমাল শুরু করুক।’

‘চট্টগ্রাম, টেকনাফ, উখিয়া, পার্বত্য চট্টগ্রাম এই জোনটাকে ব্যবহার করে আমেরিকানরা বাংলাদেশের ভূখণ্ড ব্যবহার করে মিয়ানমারে গোলোযোগ পাকাচ্ছে এবং সেখানে আরাকান আর্মি অন্যান্য বিচ্ছিন্নতাবাদীদের হেল্প করছে। চীন তখন কি করবে? চীন তখন পার্বত্য চট্টগ্রামকে আবার ডিস্টার্ব করবে। চীন ভারতের উত্তর-পূর্বাঞ্চলকে আবার ডিস্টার্ব করবে। ভারত এ কারণে পরিস্কার করে বলছে, বিগ পাওয়ারের খেলা এখানে। আমেরিকা এখানে চাইছে যেকোন মূল্যে চীনকে প্যাচে ফেলো। চীনের করিডোর বন্ধ করো। ভারতের কথা হচ্ছে, চীনের করিডোর বন্ধ হলে আমরা যে অখুশি হবো তা না। কিন্তু তাতে বাংলাদেশ ও ভারতের উত্তর-পূর্বাঞ্চলে নানা গোলোযোগ সৃষ্টিতে সক্ষম হবে, সেটা আমরা চাই না। এখানে একটা ইউক্রেন বা প্যালেস্টাইন আমরা চাই না। এই জায়গাতে আমেরিকার সঙ্গে মতপার্থক্য আছে। তাদের কথা, শেখ হাসিনা যদি এই চুক্তি সই না করে লাইনে না পড়ে তাহলে তাকে গণতন্ত্র আর হিউম্যান রাইটস নামক দুটি রকেট ব্যবহার করে তাঁর সোনার তরীকে ডুবিয়ে দাও।’

(চলবে)

   

গণহত্যায় ইসরায়েলের সঙ্গে উচ্চারিত হোক পাকিস্তানেরও নাম



কবির য়াহমদ, অ্যাসিস্ট্যান্ট এডিটর, বার্তা২৪.কম
গণহত্যায় ইসরায়েলের সঙ্গে উচ্চারিত হোক পাকিস্তানেরও নাম

গণহত্যায় ইসরায়েলের সঙ্গে উচ্চারিত হোক পাকিস্তানেরও নাম

  • Font increase
  • Font Decrease

গণহত্যা নিকৃষ্টতম। দেশে-দেশে তারা ধিকৃত, ঘৃণিত হওয়ার কথা ছিল; কিন্তু তেমনভাবে হয় না। কারণ গণহত্যাকে বিশ্বজন নিকৃষ্টতম বললেও এর সংজ্ঞায় ফেলে না সবগুলোকে। এই যেমন ফিলিস্তিনের ওপর ইসরায়েলের আগ্রাসনকে গণহত্যা বলতে রাজি নয় পশ্চিমাবিশ্বের বেশিরভাগই। এর প্রতিবাদে আওয়াজ ওঠলেও প্রাতিষ্ঠানিক প্রতিবাদ ও প্রতিক্রিয়া যেভাবে হওয়ার কথা, সেভাবে হয়নি, হচ্ছে না। ফলে বিচ্ছিন্ন কিছু প্রতিবাদ-প্রতিক্রিয়া ছাড়া মোটাদাগে এটা নিয়ে অনেকটাই প্রতিক্রিয়াহীন সবাই। ফলে ইসরায়েলি আগ্রাসন চলছেই।

ইসরায়েল-ফিলিস্তিন ‘যুদ্ধ’ বলা হচ্ছে এটাকে। কিন্তু যুদ্ধ বলতে দ্বিপাক্ষিক যে বিষয় থাকার কথা সেটা এখানে নেই। ফিলিস্তিনের বিচ্ছিন্ন সংগঠন হামাসের আক্রমণের পর ফিলিস্তিন কেবল একপাক্ষিক আগ্রাসন চালিয়েছে, যেখানে ক্ষতিগ্রস্ত ফিলিস্তিনের সাধারণ মানুষ; নারী-শিশু। নারী-শিশুরাও সাধারণ মানুষের কাতারে পড়েন, কিন্তু তাদের নিয়ে আলাদা কথা বলতে হয়, আলাদাভাবে কথা বলা হয়, পৃথক আইন-নীতি-রীতি রয়েছে বিশ্বজুড়ে। সংগঠনও রয়েছে। এতকিছু পরেও তবু আগ্রাসন বন্ধ হয়নি। বন্ধ করা যায়নি। বন্ধের যে দাবি, তার মাঝে আওয়াজ আছে, তবে আছে আন্তরিকতা নিয়ে প্রশ্ন।

ফিলিস্তিনের গাজায় ইসরায়েলি হামলার আট মাস চলছে। গত বছরের অক্টোবরের প্রথম সপ্তাহ থেকে চলমান এই আগ্রাসনে অন্তত ৩৭ হাজার মানুষ প্রাণ হারিয়েছেন। দাপ্তরিক এ তথ্যের বাইরের বাস্তবতা সাধারণত এরচেয়েও কঠিন। প্রাণ হারানো মানুষদের সংখ্যা দিয়ে বিবেচনার বাইরেও থাকে অগণন মানুষের আহত হওয়ার খবর, থাকে বিপুল সম্পদের ক্ষয়ক্ষতি, যা অনেকটাই অপূরণীয়। এছাড়া ইসরায়েলি এই আগ্রাসন যখন বছরের পর বছর ধরে যখন নির্বিঘ্নে চলছে, তখন সহসা এটা বন্ধ হবে বলেও মনে করাও কঠিন।

‘মৃত্যুকূপ’ গাজা অনেকটাই। অবরুদ্ধ গাজায় মানবিক বিপর্যয়ের কথা বলছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল জাজিরা বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার বরাত দিয়ে জানাচ্ছে, গাজায় চলমান সংঘাতে এখন পর্যন্ত ১৫ হাজার ৬৯৪ শিশু নিহত হয়েছে। ১৭ হাজারেরও বেশি শিশু তাদের বা-মাকে হারিয়েছে। পর্যাপ্ত খাদ্য এবং অপুষ্টিতে ভুগছে পাঁচ বছরের কম বয়সী আরও ৮ হাজারের বেশি শিশু। ওখানে বিপর্যয়কর ক্ষুধা ও দুর্ভিক্ষাবস্থা চলছে বলে জানাচ্ছে সংস্থাটি। ফিলিস্তিনে ইসরায়েলের এবারের এই আগ্রাসনে অন্তত ৩৭ হাজার মানুষ নিহত ও আহত হয়েছেন অন্তত আরও ৮৫ হাজার ফিলিস্তিনি নাগরিক। অন্যদিকে হামাসের হামলায় ইসরায়েলে মৃতের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১ হাজার ১৩৯ জনে।

ইসরায়েল-ফিলিস্তিন ইস্যুকে বলা হচ্ছে ‘যুদ্ধ’, কিন্তু এটা যুদ্ধের সংজ্ঞায় পড়ে কিনা, এনিয়ে জোর আলোচনা নেই। যুদ্ধ আখ্যায় ইসরায়েলকে ছাড় দেওয়ার মানসিকতা বিদ্যমান বলেই কিনা এভাবে সংজ্ঞায়িত বিষয়টা। অথচ যুদ্ধ বলতে দুই পক্ষের একের বিরুদ্ধে অন্যের লড়াইকে বুঝানো হয়ে থাকলেও ফিলিস্তিনে হচ্ছে একপাক্ষিক আগ্রাসন, এবং এখানে ফিলিস্তিনিদের জয়ের সম্ভাবনা নাই বললেই চলে। এখানে ইসরায়েলিরা একপাক্ষিক আগ্রাসন চালাচ্ছে, এবং ফিলিস্তিনিরা প্রাণে বাঁচতে লড়ছে কেবল। তাই এটাকে যুদ্ধ বলা না গেলেও বিশ্বমোড়লদের চালাকি এবং ইসরায়েলের প্রতি প্রকাশ্য-অপ্রকাশ্য অনুরাগ কাজ করছে। ইসরায়েল ফিলিস্তিনে গণহত্যা চালাচ্ছে। তবু এখানে এসে পালটে যায় গণহত্যার সংজ্ঞা।

বাংলাদেশ ফিলিস্তিনে ইসরায়েলের এই আগ্রাসনের বিরুদ্ধে সবসময় সরব কণ্ঠ। স্বাধীন ফিলিস্তিনের প্রতি বাংলাদেশের অকুণ্ঠ সমর্থন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সময় থেকেই। এই সময়ে বাংলাদেশের ক্ষমতায় যারাই আসুক না কেন এই সমর্থনের অন্যথা হয়নি। নিপীড়িত ফিলিস্তিনিদের প্রতি বাংলাদেশের এই সমর্থন অনেকটাই আত্মিক। এখানে আছে মানবাধিকারের প্রশ্ন, আছে ধর্মীয় সংবেদনশীলতা।

এবার ইসরায়েলি আগ্রাসনের বিরুদ্ধে বাংলাদেশ যথাসম্ভব ভূমিকা রাখছে। প্রতিবাদ জানিয়েছে, জাতিসংঘেও সামর্থ্য অনুযায়ী ভূমিকা রেখেছে। যুক্তরাষ্ট্র-যুক্তরাজ্যসহ পশ্চিমা বিশ্বের বেশিরভাগই ইসরায়েলি আগ্রাসনের প্রত্যক্ষ-পরোক্ষ সমর্থক হওয়া সত্ত্বেও বাংলাদেশের এই ভূমিকা সাহসী এবং উল্লেখের মতো। বিগত নির্বাচনের সময়ে দেশি-বিদেশি বিবিধ চাপ সত্ত্বেও ফিলিস্তিনে ইসরায়েলি আগ্রাসনের প্রতিবাদ-প্রতিক্রিয়া জানিয়েছে সরকার। নিজেদের অবস্থানকে অনিশ্চয়তা রেখেও আওয়ামী লীগ সরকারের এই ভূমিকাকে স্মরণ করতেই হবে। অথচ সরকারই ছিল তখন বহুবিধ চাপে। ওই সময়ে আমরা দেখেছি, ইসরায়েলের বিরুদ্ধে কিছু বললে কেবল ‘আমেরিকা রুষ্ট হয়ে যাবে এই ভয়ে’ ধর্ম নিয়ে রাজনীতি করা রাজনৈতিক দলগুলো, এমনকি বিএনপিও কিছু বলেনি। অথচ ফিলিস্তিনিদের ন্যায্য দাবি ও অধিকারের প্রশ্নে আমরা ঐতিহাসিকভাবেই একাত্ম।

ইসরায়েল ফিলিস্তিনে মানবাধিকার লঙ্ঘন করছে। বিশ্ববিবেক প্রভাব রাখার মতো অবস্থানে না গিয়ে অনেকটা নম্য থাকলেও বাংলাদেশ চুপ নয়। সামর্থ্যের যতটুকু তার সব করেছে বাংলাদেশ রাষ্ট্রীয়ভাবে, জনতার আছে এখানে সমর্থন। রাষ্ট্রীয় ভূমিকার বাইরে বাংলাদেশের মানুষের মধ্যে ছড়িয়ে পড়া ক্ষোভ সবটাই ইসরায়েলের বিরুদ্ধে। এখানে প্রভাবক অধিকাংশ ক্ষেত্রে ধর্মীয় সংবেদনশীলতা। অথচ মানবিক আহবানে ধর্মের বিরোধ নেই, রাজনৈতিক যোগ নেই; সম্পর্কটা কেবল আত্মিক।

যেভাবেই হোক মানুষ ইসরায়েলের আগ্রাসনের বিরুদ্ধে মুখর, মানবতাবিরোধী অপরাধের প্রতি কঠোর—এখানে এভাবে কি বিশ্লেষণ সম্ভব, এখানেই কি সন্তুষ্ট থাকা উচিত? উত্তর হোক আমাদের— ‘না’! কারণ যতক্ষণ না মানবতাবিরোধী অপরাধকে মানবতার বিরুদ্ধে আগ্রাসন না ভাবা হচ্ছে, ততক্ষণ ধর্মে-ধর্মে, জাতিতে-জাতিতে, শ্রেণি-বর্ণসহ বিবিধ ক্ষেত্রে প্রতিবন্ধতা সৃষ্টি হবে; ক্রমেই সংকুচিত হবে সাম্যের পথ। কিছু অবিবেচনাবোধ এখানে মূর্ত যদিও, তবে এটাকে বিভক্তিমূলক সংবেদনশীলতার প্রশ্নকে উহ্য রেখে সামনে আনা উচিত মানবিক দিক।

ফিলিস্তিনে ইসরায়েলের আগ্রাসনকে তাই ধর্মীয় দিক দিয়ে বিবেচনা করা যাবে না। এভাবে বিবেচনার পথগুলোকে উন্মুক্ত না করে এখানে মানবিক দিকটিকে সামনে আনতে হবে। গণহত্যাকারীকে গণহত্যাকারীই বলতে হবে। কেবল ফিলিস্তিনেই নয়, বিশ্বের যেখানে যেখানে মানবাধিকার লঙ্ঘন, গণহত্যা হয় সেখানেও প্রতিবাদ জারি রাখতে হবে। একই সঙ্গে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে মাথায় রাখতে হবে আমরাও ছিলাম গণহত্যার শিকার। ১৯৭১ সালের মহান মুক্তিযুদ্ধের সময়ে পাকিস্তান বাংলাদেশে গণহত্যা চালিয়েছিল।

ইসরায়েল যদি ফিলিস্তিনে গণহত্যা অব্যাহত রেখে ধিকৃত হয়, একইভাবে আমাদের ওপর গণহত্যা চালানো পাকিস্তানিরাও ধিকৃত। ইসরায়েলের গণহত্যায় যেন আড়ালে না পড়ে পাকিস্তানিদের গণহত্যা!

;

জাতিসংঘের ব্ল্যাকলিস্ট: ইসরায়েলের অমোচনীয় কালিমা



ড. মাহফুজ পারভেজ
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

জাতিসংঘের মতো আন্তর্জাতিক সংস্থায় কোনো সিদ্ধান্ত গ্রহণ সহজ ব্যাপার নয়। নানা পরাশক্তি, লবি, ইন্টারেস্ট, প্রেশার গ্রুপ সামাল দিয়ে সিদ্ধান্তে উপনীত হওয়া সত্যিই কঠিন কাজ। এহেন জাতিসংঘের সিদ্ধান্তে প্রণীত কালো তালিকায় খুব বেশি দেশের নাম নেই। মহা হম্বিতম্বি আর পশ্চিমা মুরুব্বিদের নেকনজর থাকার পরেও জাতিসংঘের ‘কালো’ তালিকায় ইসরায়েল নাম লেখা হয়েছে। যে অমোচনীয় কালিমা ইসরায়েল নামক গণহত্যার দোষে দুষ্ট দেশটির ললাট থেকে কোনো দিনই মুছে ফেলা সম্ভব হবে না।

জাতিসংঘের কালো তালিকা বা ‘ব্ল্যাকলিস্ট’-এর তালিকায় ইসরায়েলের নাম যুক্ত হয়েছে মূলত শিশুদের হত্যা ও তাদের উপরে ‘অকল্পনীয়’ অত্যাচার চালানোর অভিযোগে। ইসরায়েলকে কালো-তালিকাভূক্ত করার বিষয়ে প্রদত্ত জাতিসংঘের রিপোর্ট এমনটিই বলা হয়েছে।

ইসরায়েলি গণহত্যা ও বর্বরোচিত হামলার পটভূমিতে আতঙ্কিত বিশ্ববিবেক ভীত ও ত্রস্ত হয়ে বার বার নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে আসছে। এমনকি, আল-বালার আল-আকসা হাসপাতালের জরুরি বিভাগের সামনে দাঁড়িয়ে বলতে বাধ্য হয়েছেন এক চিকিৎসক: 'এটা হাসপাতাল না কসাইখানা?’ সাংবাদিকদের তিনি দেখাচ্ছিলেন, চারিদিকে পড়ে থাকা রক্তাক্ত মৃতদেহ। যাদের অধিকাংশই শিশু। এরই মধ্যে 'হয়ত কোথাও হয়তো কেউ বেঁচে' এই নিষ্ফল আশায় খোঁজ চালাচ্ছেন প্রিয়জনেরা।

হামাসের সঙ্গে লিপ্ত সংঘাতে ইসরায়েলের তরফে হাসপাতালে সশস্ত্র হামলা চালানোর কোনো যুক্তিই ছিল না। বৃদ্ধ, শিশু ও রোগী ছাড়া সক্ষম মানুষও সেখানে ছিল। হামাস যোদ্ধা থাকার বিষয় ছিল অকল্পনীয়। তবু রেহাই পায়নি হাসপাতাল, অসুস্থ মানুষ, অগণিত শিশু। আসলে ইসরায়েলের আক্রমণগুলোকে বলা যায় গণহত্যার ছুতানাতায় গণহত্যা।

অসংখ্য ইসরায়েলি হামলার আরেক ঘৃণ্য দৃষ্টান্ত নুসেরাত ও দের আল-বালার শিবিরে ‘অভিযান’। সেখানে হামলা চালিয়ে হামাসের হাতে থাকা চার ইসরায়েলি বন্দিকে যখন মুক্ত করতে সফল ইসরায়েল, সংবাদমাধ্যম সূত্রে তখন খবর প্রকাশিত হয়- ঐ দুই জায়গায় ইসরায়েলি হানায় নিহত অন্তত ২১০। গুরুতর আহত ৪শ’র ও বেশি। চারজনকে উদ্ধার করতে ২১০ মানুষ হত্যা ও চার শতাধিক লোককে জখম করা আসলে গণহত্যার নামান্তর। যে কারণে, প্রতিদিন তো বটেই ঘণ্টায় ঘণ্টায় বাড়ছে মৃতদেহ। সরকারি হিসাব অনুযায়ী, গাজ়ায় নিহত হয়েছেন অন্তত সাড়ে ৩৮ হাজার মানুষ। নানা মহলের যদিও আশঙ্কা, হতাহতের সংখ্যা এর চেয়ে কয়েক গুণ বেশি।

এরই মাঝে, জাতিসংঘের ‘ব্ল্যাকলিস্ট’-এর তালিকায় উঠল ইসরায়েলের নাম। মূলত শিশুদের হত্যা ও তাদের উপরে ‘অকল্পনীয়’ অত্যাচার চালানোর অভিযোগে ইসরায়েলকে কালো-তালিকাভূক্ত করা হয়েছে। উল্লেখ্য, মানবতা বিরোধী অপরাধের জন্য আন্তর্জাতিক আদালতের বিচারও ইসরায়েলের নৃশংসতার বিষয়গুলো উন্মোচিত করেছে।

জাতিসংঘের প্রতিনিধি, গিলাদ এরদান জানিয়েছেন, যে দেশ, সেনা বা গোষ্ঠী শিশুদের হত্যা, গুরুতর জখম, যৌন নির্যাতন, অপহরণ করে বা তাদের জন্য প্রয়োজনীয় পরিষেবা- হাসপাতাল, স্কুল কিংবা কোনো মানবিক সহায়তা থেকে তাদের বঞ্চিত করে, তাদেরকেই এই কালো-তালিকাভুক্ত করা হয়। সশস্ত্র সংঘর্ষ-পীড়িত শিশুদের নিয়ে জাতিসংঘের তদন্তকারী ভার্জিনিয়া গাম্বার একটি রিপোর্টে দাবি করা হয়েছে, গত আট মাসে গাজায় যে সাড়ে ৩৭ হাজার মানুষ নিহত হয়েছেন, তাদের মধ্যে অন্তত ১৩ হাজার শিশু রয়েছে। তিনি এ-ও বলেন, আগামী সপ্তাহে আরও একটি রিপোর্ট দেওয়া হবে নিরাপত্তা পরিষদে। তাতে, ঠিক কোন কোন ‘অপরাধ’ গাজায় শিশুদের প্রতি ইসরায়েল ডিফেন্স ফোর্স (আইডিএফ) করেছে, তা সবিস্তারে প্রকাশ পাবে।

মানবাধিকার সংগঠনগুলি জাতিসংঘের এই সিদ্ধান্তকে সমর্থন জানিয়েছে। স্বাগত জানিয়েছেন প্যালেস্টাইনের কর্তৃপক্ষও। তীব্র কটাক্ষ করেছে বেঞ্জামিন নেতানিয়াহুর ইসরায়েলি সরকার। সংবাদমাধ্যমকে দেওয়া প্রতিক্রিয়ায় ইসরায়েলি প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘নৈতিকতার নিরিখে ইসরায়েল সেনা বিশ্বের মধ্যে শ্রেষ্ঠ’।

যদিও ইসরায়েলি প্রধানমন্ত্রীর দাবি কেউই বিশ্বাস করছে না এবং প্রকৃত সত্যের নিরিখে তা নিতান্ত হাস্যকর বলে মনে করছেন। তথাপি ইসরায়েল এমন মিথ্যাচার করেই চলেছে এবং গাজায় গণহত্যা চালিয়েই যাচ্ছে। বিশ্বের কতিপয় শক্তিশালী রাষ্ট্রের ছত্রছায়ায় থাকার কারণে ইসরাইলকে গণহত্যার নেশা থেকে দমনও করা সম্ভব হচ্ছে না। এমতাবস্থায়, জাতিসংঘের ‘কালো’ তালিকায় ইসরায়েল নাম লেখা হওয়ার বিষয়টি দেশটির জন্য বিরাট বড় নৈতিক পরাজয়। তাদের অপরাধের পুরো শাস্তি না হলেও প্রতীকরূপে কাজ করবে কালো তালিকাভুক্তকরণের এই কলঙ্ক। যে কালিমা অমোচনীয়। যত বাহাদুরি ও বাগাড়ম্বরই করুক, ইসরায়েলের তার ললাটলিখন থেকে শিশুহত্যার কালিমা কখনোই মুছে ফেলতে পারবে না।

ড. মাহফুজ পারভেজ: অ্যাসোসিয়েট এডিটর, বার্তা২৪.কম; প্রফেসর ও চেয়ারম্যান, রাজনীতি বিজ্ঞান বিভাগ, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় ও নির্বাহী পরিচালক, চট্টগ্রাম সেন্টার ফর রিজিওনাল স্টাডিজ, বাংলাদেশ (সিসিআরএসবিডি)।

;

এ যেন পথভ্রষ্ট কোকাকোলা বাংলাদেশ!



মাজেদুল নয়ন, স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট, সাউথ-ইস্ট এশিয়া
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

বিশ্বজুড়ে সমাদৃত কোমল বা কার্বনেট পানীয় কোকাকোলা কোন দেশের প্রতিষ্ঠান, এ লেখার আলোচ্য এটা নয়। বরং গত কয়েক মাসে গণমাধ্যম এবং সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে কোকাকোলা বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে এ আলোচনা।

ফিলিস্তিনে ইসরায়েলের হামলার পর থেকে কোকাকোলা, পেপসি, ইউনিলিভার, ম্যাকডোনাল্ড, স্টারবাকসের মতো বৈশ্বিক ব্র্যান্ডগুলোর মালিকানা নিয়ে প্রশ্ন তোলেন ইসলাম ধর্মাবলম্বী এবং গণহত্যাবিরোধী মানুষেরা। এর মধ্যে বাংলাদেশে সবচেয়ে বেশি আলোচনা হচ্ছে কোকাকোলা নিয়ে, অন্তত গণমাধ্যম এবং সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম-চিত্র সেটাই বলে।

ফিলিস্তিনে ইসরায়েলের হামলার বিরুদ্ধে যে কটি দেশ শক্ত অবস্থান নেয়, তার মধ্যে নেতৃত্বস্থানীয় অবস্থায় রয়েছে মালয়েশিয়া। দেশটির প্রধানমন্ত্রী ইসরায়েলের গণহত্যাবিরোধী র‍্যালির নেতৃত্ব দিয়েছেন। তাই দেশটিতে স্টারবাকস এবং ম্যাকডোনাল্ডের মতো আউটলেট বন্ধ হওয়াতে খুব অবাক হয়নি কেউ।

চলতি বছরের শুরুতে মালয়েশিয়ায় স্টারবাকস ভয়াবহ আর্থিক বিপর্যয়ের সম্মুখীন হয়। তবে বিভিন্ন সময় সংবাদ বিজ্ঞপ্তি এবং সামাজিক কার্যক্রমে অংশগ্রহণ ছাড়া এই বয়কট স্রোতে নিজেদের শান্ত রাখে তারা। এমনকি মার্চের মাঝামাঝি সময় এসে স্টারবাকস জানায়, বছর শেষে এই অঞ্চলে তাদের ব্যবসা ঘুরে দাঁড়াবে।

বহুজাতিক এত পণ্য থাকতে বাংলাদেশে কোকাকোলার কেন সবচেয়ে বেশি ব্যবসায়িক ক্ষতি বা কোকাকোলাই কেন খাদে পড়ল—সেটা তারাই কেবল বলতে পারেন। তবে একজন সাবেক কমিউনিকেশন প্রফেশনাল এবং সাংবাদিক হিসেবে বলতে পারি, কোকাকোলার কমিউনিকেশন এবং ব্র্যান্ডিং বিভাগের দুর্বলতা স্পষ্ট।

সম্প্রতি প্রচারিত কোকাকোলার তিনটি ক্যাম্পেইন বা বিজ্ঞাপন এবং কন্টেন্ট এখানে বিশ্লেষণের চেষ্টা করব।

মে মাসের ৩ তারিখে নিজেদের দেশীয় ইমেজ প্রতিষ্ঠায় দেশের প্রথম সারির পত্রিকায় মলাট বেধে বিজ্ঞাপন প্রকাশ করে কোকাকোলা বাংলাদেশ। তবে বয়কট আন্দোলনের শ্রেণিবৈচিত্র্য নিয়ে তাদের কোন ধারণা আছে বা স্টাডি করেছে কিনা সেটা বোঝার উপায় ছিল না। 'আমরা মানুষে মানুষে সৌহার্দ্যের পক্ষে' বা ‘৬ দশকের বিশ্বাসে ভালবাসায় আছি পাশে,’ এ ধরনের বাক্য যে সকল বাঙালির কাছে এক দেখাতেই বোধগম্য হয় না, সেটা কোকাকোলা বাংলাদেশের মতো একটি কোম্পানির কমিউনিকেশনের দায়িত্বে থাকা ব্যক্তিদের চোখ এড়াল কীভাবে! বোধগম্য নয়। এরকম বাক্য দিয়ে যে মানুষের কাছে যাওয়া যায় না, এটাই হয়তো তাদের অজানা!

মে মাসের মাঝামাঝি সময় আবারো কিছু দুর্বল বাক্য নিয়ে বিজ্ঞাপনে আসলো কোকাকোলা। বিশেষ করে নিজেদের বাঙালি প্রমাণের জন্য যে উঠেপড়ে লাগল, সেটা কোম্পানির জন্য উদ্বেগজনক। কোকের সঙ্গে বাংলাদেশের জাতীয়তার তো কোন দ্বন্দ্ব নেই।

এই বিজ্ঞাপনগুলোতে স্পষ্ট হয়েছে, কন্টেন্ট তৈরি করা ব্যক্তিদের গবেষণার অভাব এবং সংস্কৃতির সঙ্গে দূরত্ব। একটা ৫ লাইনের কন্টেন্টে ২ বার 'ই' প্রত্যয়ের ব্যবহার যে আস্থা ও বিশ্বাসের অভাব ফুটিয়ে তোলে সেটা কোকাকোলার কন্টেন্ট বা ব্র্যান্ড নিয়ে কাজ করা কারো মাথায় আসেনি! বাক্যে ‘আমরা’ এর বদলে ‘আমরাই’, ‘কর্মী’র বদলে ‘কর্মীই’ বলাটা দৃষ্টিকটু ছিল।

আর বাক্য গঠন যেন ফেসবুকের রিলস বা টিকটকের জন্য তৈরি! 'এইতো আমার কোক', বাক্যে 'এইতো' বলায় মনে হচ্ছিল, কারো বোতলটা হারিয়ে গিয়েছিল, আবার খুঁজে পেয়েছে!

সবশেষে সম্প্রতি যে টিভিসি’ বানানো হলো তাতো মনে হচ্ছে বাংলাদেশে কোকাকোলার কফিনের শেষ পেরেক!

বাংলাদেশিরা ক্রিকেট পাগল। বিশ্বকাপ ক্রিকেটে বুঁদ হয়ে আছে এখন। বাংলাদেশে কোকাকোলার বয়কটের চেয়ে গ্রাম-গঞ্জের হাটে এবং সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের এখন আলোচনা সৌম্য সরকার এবং নাজমুল হোসেন শান্ত। সেখানে কেমন জানি নিজেদের জোর করে মনে করিয়ে দিলো কোকাকোলা বাংলাদেশ। দুর্বল স্ক্রিপ্ট এবং সমালোচিত অভিনেতাদের দিয়ে যে বিজ্ঞাপন তৈরি করা হলো, সেটি শুধু কোকাকোলা বয়কটকেই আবারো উসকে দেয়নি, কোকাকোলা বিক্রির দোকানকেও বয়কট করার পরিস্থিতি সৃষ্টি করেছে।

ভবিষ্যতে ব্র্যান্ডিং বা কমিউনিকেশনের বাজে উদাহরণ হিসেবে হয়তো কোকাকোলা বাংলাদেশের এই পদক্ষেপগুলো নিয়ে কাঁটাছেড়া করা হবে।

উপরে দেওয়া তিনটি উদাহরণে একটিতেও স্পষ্ট হয়নি আসলে কোকাকোলা বাংলাদেশ কী বলতে চায়, কেন বলতে চায়, গ্রাহকের কাছ থেকে কী চায় তারা?

;

উন্নতির অন্তহীন কান্না



সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী
-সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী। ছবি: বার্তা২৪.কম

-সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী। ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

একাত্তর সালটা বাংলাদেশে মেয়েদের জন্য ছিল চরম দুর্দশার। পাকিস্তানি হানাদারেরা হিন্দু-মুসলমান নির্বিশেষে মেয়েদের ওপর অত্যাচার চালিয়েছে। রাষ্ট্র তাদের লেলিয়ে দিয়েছিল। ছাড়পত্র দিয়ে দিয়েছিল যা ইচ্ছা তাই করবার। তারা সেটা করেছেও। রাষ্ট্রীয় সমর্থনে ক্ষমতাবান হয়ে হত্যা, অস্থাবর সম্পত্তি লুণ্ঠন এবং ধর্ষণ সমানে চালিয়েছে। এখন তো পাকিস্তান নেই, এখন তো আমরা স্বাধীন, বাঙালিই শাসন করছে বাঙালিকে। তাহলে এখন কেন মেয়েরা এভাবে নির্যাতিত হচ্ছে?

পাচার হচ্ছে ভারতে, জীবিকার অন্বেষণে মধ্যপ্রাচ্যে গিয়ে লাঞ্ছিত হচ্ছে, ধর্ষিত হচ্ছে যেখানে সেখানে, আত্মহত্যা করছে যখন তখন, আটকা পড়ছে বাল্যবিবাহের ফাঁদে? কারণটি আমাদের অজানা নয়। কারণ হচ্ছে পাকিস্তান বিদায় হয়েছে ঠিকই কিন্তু ওই রাষ্ট্রের আদর্শ বিদায় হয়নি। আদর্শটা ছিল পুঁজিবাদী। সে-আদর্শের এখন জয়জয়কার। আগের যে কোনো সময়ের তুলনায় বেশি। দুর্বল লাঞ্ছিত হচ্ছে, হতে থাকবে, কেননা আমরা উন্নতি করতেই থাকবো, এবং অত্যন্ত অল্প কিছু মানুষের উন্নতি কাল হয়ে দাঁড়াবে বাদবাকিদের জন্য। এটাই ঘটছে।

পাকিস্তানের প্রেতাত্মা এখনও আমাদের পিছু ছাড়েনি, এমন কথা যাঁরা বলেন তাঁরা মোটেই মিথ্যা কথা বলেন না। কিন্তু তাঁদের অধিকাংশই প্রেতাত্মাটাকে চিহ্নিত করেন না। প্রেতাত্মাটা অন্যকিছু নয়, প্রেতাত্মাটা পুঁজিবাদ। আর প্রেতাত্মাই বলি কি করে, সে তো ভীষণ ভাবে জীবন্ত। সে তো ব্যস্ত জীবিতদের জীবন কেড়ে নেবার কাজে। ধর্মকে সে ব্যবহার করে উপায় ও আচ্ছাদন হিসেবে। না-মেনে উপায় নেই যে, আমাদের জাতীয়তাবাদীরা সকলেই পুঁজিবাদী : পাকিস্তানিদের সঙ্গে তাদের নামে মস্ত পার্থক্য, চরিত্রে মৌলিক পার্থক্য নেই।

তাহলে উপায় কি? প্রতিবাদ? অবশ্যই। প্রতিবাদটা চলছে। বাল্যবিবাহে অসম্মত মেয়েরা কর্তৃপক্ষের কাছে নালিশ করছে, এমন খবর পাওয়া যাচ্ছে। কিশোরী মেয়েরা বিয়ের আসর থেকে সহপাঠিনীকে উদ্ধার করছে, আমরা জানতে পাচ্ছি। মে’ মাসের খবরের কাগজেই বের হয়েছে এমন খবর যে মাগুরাতে এক মা তাঁর মেয়েকে উত্ত্যক্তকারী যুবককে চাপাতি দিয়ে কুপিয়েছেন। কিন্তু তাতে তো ব্যবস্থাটা বদলায় না। ট্রাম্পের বিরুদ্ধে আমেরিকাতে বিক্ষোভ চলেছিল। আমেরিকার অরেগান-এ মেয়েদের উত্ত্যক্ত করার ঘটনার প্রতিবাদ করতে গিয়ে যে দু’জন আমেরিকান নিহত হয়েছিলেন তাঁদের একজনের মা বলেছিলেন তাঁর ছেলে বীর ছিল, মৃত্যুর পরেও বীর থাকবে। মানুষের মনুষ্যত্ব কেড়ে নেবার চেষ্টা চলছে, সে-চেষ্টা চলবে; কিন্তু মনুষ্যত্ব নষ্ট হবার নয়, হবেও না। তবে একলা একলা প্রতিবাদ করে যে কাজ হবে না সেটা তো প্রমাণিত সত্য।

তাহলে কি পালাতে হবে? কিন্তু পালাবেন কোথায়? একাত্তরে বাংলাদেশ থেকে মানুষকে পালাতে হয়েছিল, ফিরে এসে তারা দেখেছে এ কী পাকিস্তান তো রয়েই গেছে! বদলটা শুধু নামেই। মানুষ এখনও পালাচ্ছে। ধনীরা ইতিমধ্যে বিদেশে বাড়ীঘর তৈরী করেছেন, সময় মতো চলে যাবেন। আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক দলীয় সংঘর্ষ থামানোর লক্ষ্যে দলীয় লোকদেরকে সতর্ক করে দিয়েছেন যে দল যদি ক্ষমতায় না থাকে তাহলে টাকাপয়সা নিয়ে পালাবার পথ পাওয়া যাবে না। এই সতর্কবাণীর দরকার ছিল কি? যারা পেরেছে তারা তো ইতিমধ্যেই ব্যবস্থা করেছে, অন্যরাও তৎপর আছে। আর যাদের টাকাপয়সার অভাব, দলের লোক নয়, সাধারণ মানুষ, তাদেরও একটা অংশ কিন্তু পালাচ্ছে।

রিপোর্টে বলছে নৌপথে ইউরোপে যারা পাড়ি দেবার চেষ্টা করে তাদের মধ্যে সংখ্যার দিক থেকে বাংলাদেশিরা এখন শীর্ষস্থানে। হতভাগা এই মানুষেরা অবশ্য টাকা পাচারের জন্য যায় না, টাকা উপার্জনের জন্যই যায়। কিন্তু যাচ্ছে তো। জীবন বাজি রেখে যাচ্ছে। ঝাঁপ দিচ্ছে সমুদ্রে। যুদ্ধে-বিধ্বস্ত সিরিয়া, ইরাক, লিবিয়া, আফগানিস্তান, ইরিত্রিয়া থেকে মানুষ পালাবে সেটা স্বাভাবিক, কিন্তু যুদ্ধ-পরবর্তী এবং উন্নতিতে পুলকিত বাংলাদেশ থেকে অত মানুষ পালাচ্ছে কেন? পালাচ্ছে এখানে জীবিকার নিরাপত্তা নেই বলে; এবং মেয়েদের দুরবস্থা বলছে এখানে নিরাপত্তা নেই জীবনেরও।

সিদ্ধান্তটা তো তাই অপরিহার্য। করণীয় হচ্ছে পুঁজিবাদকে বিদায় করা। কিন্তু সে কাজতো একা কেউ করতে পারবে না, করতে গেলে কেবল হতাশাই নয়, বিপদ বাড়বে। বিদায় করার জন্য দরকার হবে আন্দোলন, এবং আন্দোলনের জন্য চাই রাজনৈতিক দল। শুধু দলেও কুলাবে না, শত্রুকে যদি সঠিকভাবে চিহ্নিত করা না হয়, এবং সঠিক রণনীতি ও রণকৌশল গ্রহণ করা না যায়। বাংলাদেশে, এবং বিশ্বের অনেক দেশেই, জাতীয়তাবাদী যুদ্ধটা শেষ হয়েছে, বাকি রয়েছে সমাজতন্ত্রের জনযুদ্ধ।

এই যুদ্ধটা যে সহজ হবে না সেটা তো স্পষ্ট। জবরদস্ত পুঁজিবাদের দখলে অনেক অস্ত্র রয়েছে; খুবই শক্তিশালী একটি অস্ত্র হচ্ছে মিডিয়া। মিডিয়া পুঁজিবাদের নৃশংসতার খবর ছিটেফোঁটা দেয়, কিন্তু আসল খবর দেয় না; ঢেকে রাখে, বিভ্রান্ত করে, এবং নানাকিসিমের রূপকথা তৈরির কারখানা চালু রাখে। বাংলাদেশের সব খবরের কাগজের প্রথম পাতাতে মস্ত করে ছাপা হয়েছিল একটি রূপকথার খবর। ক্রিকেটে বাংলাদেশ নিউজিল্যান্ডকে হারিয়ে দিয়েছে। রূপকথাই বলা হয়েছে খবটিকে; কেননা এ বিজয় ছিল অপ্রত্যাশিত, প্রায় অসম্ভব।

মিডিয়া রূপকথাকে খুব পছন্দ করে, কিন্তু রূপকথা তো নারকীয় বাস্তবতাকে অবলুপ্ত করতে পারবে না, যার একটি খবর পত্রিকাতেই আছে, এবং প্রথম পাতাতেই। সেটি হলো তিন শিশুসহ এক মায়ের লাশ উদ্ধার। এই রাজধানীতেই। ধারণা করা হচ্ছে মা নিজেই খুন করেছে নিজের সন্তানদের, একের পর এক; তারপরে খুন করেছে সে নিজেকে। মৃত মায়ের ভাই অবশ্য বলছে অসম্ভব, তার বোন এ কাণ্ড করতে পারে না, অন্যরাই ঘটিয়েছে; এটি একটি হত্যাকাণ্ড। যেভাবেই ঘটুক, হত্যা তো বটেই। এবং তিনটি সন্তান নিয়ে মা’টি যে চরম হতাশায় ভুগছিল তাতে কোনো সন্দেহ নেই।

তার স্বামীর এক সময়ে ভালো আয় ছিল, প্রতারক ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ডেসটিনিতে ৫০ লাখ বিনিয়োগ করেছিল, মার খেয়েছে; নিজে ব্যবসা করার চেষ্টা করেছে সফল হয়নি, সন্তানদের স্কুলের বেতন দিতে পারে না, তাদের এমন কি ভালোমতো আহারও জোটে না; পারিবারিক বিরোধ আছে সম্পত্তি নিয়ে। কোথাও কোনো আলো ছিল না আশার। আর সমস্তটা বোঝা গিয়ে চেপে বসেছিল বিপন্ন মেয়েটির ঘাড়ের ওপর। মেধাবী ছাত্রী ছিল সে; এমএ পাস করেছে, চাকরি খুঁজেছে, পায়নি। স্বামীর তবু বাইরে একটা জীবন ছিল, স্ত্রীর জীবন তিন কামরার। জীবন তার জন্য দুঃসহ এক যন্ত্রণা হয়ে দাঁড়িয়েছিল।

উন্নতির রূপকথার খবর চীৎকার করে প্রচার করা হচ্ছে। কিন্তু বাস্তবতা এখন এমনই বিকট যে তাকে ঢেকে রাখার উপায় নেই। পত্রিকাতে বাংলাদেশের মানুষের নরকবাসের আরও খবর আছে। ১. সাতক্ষীরায় দ্বিতীয় মেয়ে হওয়ায় বাবার হাতে নবজাতক খুন। ২. বরগুণায় যৌতুক না পেয়ে অন্তঃসত্তা গৃহবধূকে পিটিয়ে হত্যা। ৩. রৌমারিতে ক্লাস রুমে ঢুকে ছাত্রীকে ধর্ষণের চেষ্টা। ৪. আড়াইহাজারে বিয়ের কথা বলে ছাত্রীকে ধর্ষণ। ৫. গাজীপুরে তিন সন্তানসহ নিখোঁজ প্রবাসীর স্ত্রী। ৬. ঢাকায় মেয়ে হত্যার বিচার চেয়ে মায়ের সংবাদ সম্মেলন। আরও খবর: ১. রাজধানীতে শিশু ধর্ষণের অভিযোগে দুইজন গ্রেফতার। ২. শায়েস্তাগঞ্জে ধর্ষণে ব্যর্থ হয়ে বিধবাকে পিটিয়ে হত্যা। ৩. কালিয়াকৈরে স্বামীকে বেঁধে স্ত্রীকে গণধর্ষণ। ৪. হবিগঞ্জে প্রকাশ্য সড়কে ধর্ষণের পর পিটিয়ে হত্যা। প্রতিটি ঘটনাই ভয়াবহ। ‘উন্নতি’ অব্যাহত রয়েছে।

এই উন্নতির অন্তর্গত কান্না বলছে ব্যবস্থার বদল চাই। হতাশা কাটবে না পরিবর্তনের আন্দোলন যদি জোরদার না হয়।

লেখক: ইমেরিটাস অধ্যাপক, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়

;